শুক্রবার , ১৯শে অক্টোবর, ২০১৮ ইং , ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ , ৯ই সফর, ১৪৪০ হিজরী
NEWSPOST24
নাজিরপুরে বলেশ্বর নদী দখল করে পাকা ভবন নির্মাণ নাজিরপুরে বলেশ্বর নদী দখল করে পাকা ভবন নির্মাণ
নাজিরপুর(পিরোজপুর)প্রতিনিধি : পিরোজপুরের নাজিরপুর উপজেলার মাটিভাঙ্গা বাজারের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া বলেশ্বর নদী দখল করে পাকা ভবন নির্মাণ করছেন এক আওয়ামী লীগ নেতা। এ... নাজিরপুরে বলেশ্বর নদী দখল করে পাকা ভবন নির্মাণ

নাজিরপুর(পিরোজপুর)প্রতিনিধি : পিরোজপুরের নাজিরপুর উপজেলার মাটিভাঙ্গা বাজারের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া বলেশ্বর নদী দখল করে পাকা ভবন নির্মাণ করছেন এক আওয়ামী লীগ নেতা। এ দখল কাজে তাকে সহায়তা করছেন সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি বেলায়েত হোসেন বুলু। স্থানীয়রা বিষয়টি প্রশাসনকে অবহিত করলেও রহস্যজনক কারণে তারা নিরব ভুমিকায় রয়েছেন।

গত রবিবার বিকেলে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সড়ক থেকে দূরে নদীর জায়গা দখল করে পাকা ভবনের ভিত নির্মাণের কাজ ইতিমধ্যে শেষ হয়েছে। চলছে রড, সিমেন্ট ও বালু দিয়ে বড় বড় পিলার তৈরির কাজ। তখন কথা হয় স্থানীয়দের সাথে তারা জানান, এখন নদীতে পানি কম। বর্ষা মৌসুম এলে এসব জায়গা পানিতে ভরে যায়। নদী দখলের ঘটনায় এলাকার সাধারণ মানুষের মধ্যে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করলেও প্রভাবশালীদের ভয়ে কেউ মুখ খুলতে পারছেন না। তারা বলেন, এমনিতেই বিভিন্ন কারণে নদ সংকুচিত। এর ওপর নদীর তীর দখল করে এভাবে ভবন নির্মাণ করলে একপর্যায়ে এর অস্তিত্বই থাকবে না। এলাকাবাসী অবিলম্বে এই অবৈধ নির্মাণকাজ বন্ধের দাবি জানিয়েছেন।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, মাটিভাঙ্গা বাজারের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া বলেশ্বর নদীতে স্থানীয় জেলেরা মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করেন। পাশাপাশি কৃষিজমিতে সেচ ও গৃহস্থালির কাজেও এই নদীর পানি ব্যবহার করেন দুই তীরের মানুষ। হঠাৎ নদীর তীরে পাইলিং দিয়ে ভরাট করে পাকা ভবন নির্মাণ কাজ শুরু করেন উপজেলার মাহমুদকান্দা গ্রামের মৃত আফসার উদ্দিন শেখের ছেলে মাটিভাঙ্গা বাজারের ব্যবসায়ি আওয়ামী লীগ নেতা ফারুক শেখ। তিনি মাটিভাঙ্গা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেন বুলু চাচাতো ভাই।

অভিযুক্ত ফারুক শেখ বলেন, ‘আমি ডিসিআর নিয়ে সেখানে ভবন করছি। কত বছরের জন্য ডিসিআর নেয়া হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ডিসিআরের ব্যবস্থা চেয়ারম্যান বুলু ভাই করেছে। সেটা তিনি ভাল বলতে পারবেন।’

সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেন বুলু বলেন, ‘ফারুক শেখ আমার চাচাতো ভাই এটা ঠিক। তবে এ ঘটনার বিষয়ে আমি কিছুই জানিনা। শুনেছি সে একসনা ডিসিআর নিয়ে সেখানে বিল্ডিং করছে।’

সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের ভূমি সহকারি কর্মকর্তা সাখাওয়াত হোসেন বলেন, রবিবার ওই ইউনিয়নের তহসিলদার হিসেবে আমি যোগদান করেছি। এখনও কিছুই জানিনা। খোঁজ নিয়ে সেরকম কিছু হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মুহম্মদ শামীম কিবরিয়া বলেন, ‘শুনেছি তারা ডিসিআর নিয়েছে। অনুমতি নিয়ে সেখানে ভবন করতে পারবে। যদি অনুমতি না নিয়ে থাকে তাহলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

Comments

comments

Send this to a friend