ভারতের পর্যটক পরিসংখ্যানে দ্বিতীয় অবস্থানে বাংলাদেশ

1642
অনলাইন ডেস্ক : ভারতের পর্যটক পরিসংখ্যানে বর্তমানে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। দেশটিতে পর্যটনে শীর্ষস্থানে আছে যুক্তরাষ্ট্র। তারপরই বাংলাদেশের অবস্থান। সম্প্রতি ভারতের পর্যটন মন্ত্রণালয়ের প্রকাশিত তথ্যে ২০১৫ সালে দেশটিতে ভ্রমণ করা বাংলাদেশির সংখ্যা ১১ লাখ ৩০ হাজার, যা মোট বিদেশি পর্যটকের ১৪ দশমিক ১ শতাংশ।
গত বছর ভারতে বিদেশি পর্যটকদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ছিল যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকরা, ১৫ দশমিক ১ শতাংশ। তৃতীয় অবস্থানে যুক্তরাজ্যের নাগরিকরা, ১০ দশমিক ৮ শতাংশ।
২০০৬ সালে ভারত ভ্রমণকারীদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ছিল ব্রিটিশরা ১৬ দশমিক ৫ শতাংশ। সে সময় দ্বিতীয় শীর্ষ ছিল মার্কিনীরা ১৫ দশমিক ৭ শতাংশ। এই দুই দেশের পর্যটকদের সংখ্যায় কিছুটা হেরফের হয়ে অবস্থান বদলালেও অনেকটা চমক হয়ে দেখা দিয়েছে বাংলাদেশি পর্যটকদের উপস্থিতি। ২০০৬ সালে ভারত ভ্রমণ করেন চার লাখ ৮০ হাজার বাংলাদেশি, যা সে বছর দেশটিতে বিদেশি পর্যটকদের ২ শতাংশেরও কম ছিল। সেখানে ২০১৫ সালে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৪ দশমিক ১ শতাংশে। নয় বছরে ভারত ভ্রমণকারী বাংলাদেশির সংখ্যা বেড়েছে ২ দশমিক ৩ গুণ।
এর কারণ ব্যাখ্যায় টাইমস অফ ইন্ডিয়া বলছে, ঢাকায় ইউরোপের বেশ কয়েকটি দেশের কনস্যুলেট না থাকায় সেসব দেশের ভিসা পেতে ভারতে ছুটছেন বাংলাদেশিরা। তবে বিবিসি বাংলা বলছে, চিকিৎসা, ব্যবসা ও শপিংয়ের জন্যই বাংলাদেশিদের ভারত ভ্রমণ বেশি হয়ে থাকে।
ভারতে বিদেশি পর্যটকের সংখ্যায় যুক্তরাজ্যের পরে আছে শ্রীলঙ্কা, কানাডা, মালয়েশিয়া, অস্ট্রেলিয়া, জার্মানি, ফ্রান্স ও জাপানিরা। গত নয় বছরে বাংলাদেশ ছাড়াও প্রতিবেশী শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তান, আফগানিস্তান ও চীন থেকে ভারতে পর্যটন বেড়েছে।
২০০৬ সালে মাত্র ৬০ হাজার চীনা ভারতে গিয়েছিলেন, সেখানে ২০১৫ সালে এ সংখ্যা ৩ দশমিক ৩ গুণ বেড়ে হয়েছে দুই লাখ ১০ হাজার। বেড়েছে পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কা থেকে আসা পর্যটকের সংখ্যাও। এই সময়ে পাকিস্তানি পর্যটকের সংখ্যা দেড়গুণ বেড়ে ৮০ হাজার থেকে এক লাখ ২০ হাজার হয়েছে। আফগান পর্যটকের সংখ্যা ৬ দশমিক ১ গুণ বেড়ে ২০ হাজার থেকে হয়েছে এক লাখ ১০ হাজার। আর শ্রীলঙ্কার প্রায় দ্বিগুণ হয়ে দেড় লাখ থেকে তিন লাখে পৌঁছেছে। বিডি নিউজ।

Comments

comments