গত ১০ বছরে ৪০০ জনকে অবৈধভাবে লিবিয়া পাঠান হাজী কামাল

0
0
সর্বমোট
0
শেয়ার

লিবিয়ায় ২৬ জন বাংলাদেশি নিহতের ঘটনায় মানব পাচারকারী চক্রের মূল হোতা হাজী কামাল হোসেনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। গত ১০ বছর ধরে তিনি অবৈধ পন্থায় প্রায় ৪০০ বাংলাদেশিকে লিবিয়ায় পাঠিয়েছেন।

সোমবার (১ জুন) দুপুরে বিফ্রিং করে এসব তথ্য দেন র‌্যাব-৩ এর প্রধান লে. কর্নেল রকিবুল হাসান।

তিনি বলেন, লিবিয়া ছাড়াও হাজী কামাল মধ্য প্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে অবৈধ প্রক্রিয়ায় লোক পাঠান। এছাড়াও তিনি একজন টাইলস কন্ট্রাক্টর। অনেক টাইলস শ্রমিক তার সংস্পর্শে আসেন। সেই সুযোগে তিনি শ্রমিকদের প্রলুব্ধ করে বলেন— বাংলাদেশে তোমরা ৫০০-৮০০ টাকা আয় করতে পারো। কিন্তু লিবিয়াতে গেলে তোমরা প্রতি দিন ৫০০০-৬০০০ টাকা আয় করতে পারবা। লিবিয়াতে টাইলস মিস্ত্রীদের অনেক চাহিদা।

র‌্যাব কর্মকর্তা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে জানান, কামাল শ্রমিকদের বলেন—লিবিয়াতে যাওয়ার পূর্বে মাত্র ১ লাখ টাকা আমাকে দিবে এবং বাকি ৪ লাখ টাকা লিবিয়াতে পৌঁছানোর পর তোমার পরিবার আমাকে দেবে।

এমন ফাঁদে ফেলে শ্রমিকদের বিদেশে পাঠান তিনি। পরে শ্রমিকরা লিবিয়াতে পৌঁছানোর পরে সেখানে অবস্থান করা অন্যান্য পাচারকারী দলের সদস্যরা ভিকটিমদের জিম্মি করে অতিরিক্ত টাকা দাবি করে। এমনকি শারীরিক নির্যাতন করে। সেই নির্যাতনের ভিডিও ভিকটিমদের পরিবারের কাছে পাঠানো হয়।

র‌্যাব কর্মকর্তা আরও বলেন, সম্প্রতি লিবিয়ার মিজদাহ শহরে গত ২৮ মে নৃশংস হত্যাকাণ্ডে ২৬ বাংলাদেশি নিহত এবং ১১ বাংলাদেশি মারাত্মকভাবে আহত হওয়ার ঘটনার সাথে জড়িত চক্রের হোতা ছিলেন কামাল। তাকে ভোরে রাজধানীর গুলশানের শাহজাদপুর এলাকা থেকে আটক করা হয়।

0
0
সর্বমোট
0
শেয়ার

Comments

comments