২ হাজার কোটি টাকা পাচার: ফরিদপুর ছাত্রলীগ সভাপতি রিমান্ডে

0
0
সর্বমোট
0
শেয়ার

ফরিদপুর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নিশান মাহমুদ শামীমকে মানি লন্ডারিং মামলায় তিন দিনের রিমান্ড দিয়েছেন আদালত। আজ শনিবার ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট বাকী বিল্লাহ এই আদেশ দেন।

আদালতের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা (জিআরও) রণপ কুমার ভক্ত বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘আজ ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ফরিদপুর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নিশান মাহমুদকে হাজির করে সাত দিন রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করে পুলিশ। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারক তিন দিন রিমান্ডে নেওয়ার আদেশ দেন।’

এর আগে গতকাল ঢাকার উত্তরা থেকে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) একটি দল নিশানকে গ্রেপ্তার করে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত ২৬ জুন সিআইডি ঢাকার কাফরুল থানায় ফরিদপুর শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বরকত ও তাঁর ভাই রুবেলের বিরুদ্ধে দুই হাজার কোটি টাকার মানি লন্ডারিংয়ের অভিযোগে একটি মামলা করে। ওই মামলার আসামি হিসেবে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নিশান মাহমুদকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। নিশান মাহমুদ ফরিদপুর শহরের  মধ্য আলিপুর মহল্লার বাসিন্দা।

এদিকে ফরিদপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আলিমুজ্জামান জানিয়েছেন, মানি লন্ডারিং মামলায় ঢাকায় নিশান মাহমুদ গ্রেপ্তার হলেও তাঁকে ফরিদপুরে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম চৌধুরীর ওপর হামলা এবং চাঁদাবাজির অভিযোগে হওয়া অপর একটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হবে। এ ছাড়া তাঁকে ফরিদপুরে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুবল সাহার বাড়িতে হামলা এবং মানি লন্ডারিং মামলায় এ পর্যন্ত ফরিদপুর আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের ১৭ জনকে গ্রেপ্তার করা হলো। এর মধ্যে শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি নাজমুল হাসান খন্দকার, জেলা শ্রমিক লীগের কোষাধ্যক্ষ বিল্লাল হোসেন, শহর যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসিবুর রহমান ফারহান রয়েছেন।

0
0
সর্বমোট
0
শেয়ার

Comments

comments