ঢাকা-৫ ও নওগাঁ-৬ আসনের উপনির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু

0
0
সর্বমোট
0
শেয়ার

ঢাকা-৫ ও নওগাঁ-৬ আসনের সংসদ সদস্য পদে উপ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। শনিবার (১৭ অক্টোবর) সকাল ৯টায় শুরু হওয়া এই ভোটগ্রহণ চলবে একটানা বিকেল ৫টা পর্যন্ত।

 সকাল থেকেই ঢাকা-৫ আসনে নির্ধারিত সময়ে একযোগে ১৮৭টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) আওতাধীন ১৪টি ওয়ার্ড এবং ডেমরা, যাত্রাবাড়ী এবং কদমতলী থানার কিছু অংশ নিয়ে এই আসন বিস্তৃত।

নির্ধারিত সময়ে ভোটগ্রহণ শুরু হলেও কেন্দ্রগুলোতে এখন পর্যন্ত ভোটারদের উপস্থিতি সেভাবে দেখা যাচ্ছে না। আসনের বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে প্রাপ্ত তথ্যমতে, এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বেশকিছু ভোটকেন্দ্রে একজন ভোট ও জমা পড়েনি।

এই আসনের ২ লাখ ৪১ হাজার ৪৬৪ জন পুরুষ এবং ২ লাখ ২৯ হাজার ৬৬৫ জন নারী ভোটার মিলিয়ে মোট ভোটার আছেন ৪ লাখ ৭১ হাজার ১২৯ জন। ১৮৭টি কেন্দ্রে ৮৬৪টি ভোট কক্ষে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন ইভিএম এর মাধ্যমে ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন অত্র আসনে নিবন্ধিত ভোটাররা।

ঢাকা-৫ উপ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ছয় জন প্রার্থী। তারা হলেন- আওয়ামী লীগের মো. কাজী মনিরুল ইসলাম, বিএনপির সালাহ্ উদ্দিন আহম্মেদ, জাতীয় পার্টির মীর আব্দুর সবুর, গণফ্রন্টের এইচ এম ইব্রাহিম ভূঁইয়া, বাংলাদেশ কংগ্রেসের মো. আনছার রহমান শিকদার ও ন্যাশনাল পিপলস পার্টির মো. আরিফুর রহমান। তবে সবথেকে বেশি আলোচনায় থাকবেন প্রধান দুই রাজনৈতিক দল ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ এবং বিএনপি মনোনীত প্রার্থীরা। এরই মধ্যে কর্মী সমর্থকদের নির্ভয়ে কেন্দ্রে যেয়ে ভোটাধিকার প্রয়োগ করার আহবান জানিয়েছেন বিএনপি প্রার্থী সালাহ উদ্দিন আহম্মেদ। অন্যদিকে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার আত্মবিশ্বাস আছে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মনিরুল ইসলামের।

সকাল ১০টায় আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্রে ভোট দেওয়ার কথা রয়েছে আওয়ামী লীগের মো. কাজী মনিরুল ইসলামের। তবে এই আসনের নিবন্ধিত ভোটার না হওয়ায় ভোট দিতে পারছেন না বিএনপি প্রার্থী সালাহ উদ্দিন আহম্মেদ।

আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য হাবিবুর রহমান মোল্লা গত ৬ মে মারা যাওয়ায় শূন্য হয় ঢাকা-৫ আসন। গত ৩ সেপ্টেম্বর এ আসনে উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

এদিকে নওগাঁ-৬ আসনে দলীয় প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও এনপিপির তিন জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

আত্রাই-রানীনগর উপজেলার মোট ১০৪টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ করা হচ্ছে। আসনটিতে এবারই প্রথম ইভিএম ব্যবহার করা হচ্ছে। নির্বাচনী এলাকার গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে পুলিশ ও অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। এ আসনের মোট ভোটার ৩ লাখ ৬ হাজার ৭২৫ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৫৩ হাজার ৭৫৮ জন এবং নারী ভোটার ১ লাখ ৫২ হাজার ৯৬৭ জন।

উল্লেখ্য, গত ২৭ জুলাই এই আসনের এমপি ইসরাফিল আলম মারা যাওয়ায় আসনটি শূন্য ঘোষণা করে তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন।

0
0
সর্বমোট
0
শেয়ার

Comments

comments