Logo
শিরোনাম

১৯ জুন: ইতিহাসে আজকের দিন

প্রকাশিত:রবিবার ১৯ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | ৭৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আজ ১৯ জুন ২০২২, রোববার। ৫ আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ। গ্রেগরিয়ান বর্ষপঞ্জী অনুসারে বছরের ১৭০ তম (অধিবর্ষে ১৭১ তম) দিন।

এক নজরে দেখে নিন ইতিহাসের এ দিনে ঘটে যাওয়া উল্লেখযোগ্য ঘটনা, বিশিষ্টজনের জন্ম-মৃত্যুদিনসহ গুরুত্বপূর্ণ আরও কিছু বিষয়।

ঘটনাবলি:

১৪৬৪ - ফ্রান্সের রাজা একাদশ লুই ডাক ব্যবস্থা চালু করেন।

১৬২১ - তুরস্কের সেনাবাহিনীর কাছে পরাজিত হয় গ্রিস।

১৮২৯ - বৃটেনে আইন পাশের মাধ্যমে মেট্রোপলিটান পুলিশ প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল।

১৮৬১ - অ্যানহেইম পোস্ট অফিস প্রতিষ্ঠিত হয়।

১৮৬২ - যুক্তরাষ্ট্রে দাস প্রথা বিলুপ্ত হয়।

১৮৬৭ - অস্ট্রিয়ার যুবরাজ ম্যাক্সিমিলানকে ফাঁসী দেয়া হয়।

১৮৭৭ - ভূমি থেকে আকাশে উলম্বভাবে উড্ডয়নের ও আকাশ থেকে ভূমিতে অবতরণের এবং আকাশে স্থির থাকার যান তথা আদি যুগের হেলিকপ্টার পরীক্ষা করা হয়।

১৯১১ - পর্তুগালকে প্রজাতন্ত্র ঘোষণা করা হয়।

১৯২১ - ব্রিটেনে আদশুমারি হয়।

১৯৪৩ - টেক্সাসে জাতিগত দাঙ্গা হয়।

১৯৪৪ - ফিলিপিন সাগরে যুদ্ধ শুরু হয়।

১৯৫১ - নর্থ আটলান্টিক ট্রিটি অর্গানাইজেশান বা ন্যাটো নামক সামরিক জোট গঠন করা হয়।

১৯৫৩ - গুপ্তচর বৃত্তির অভিযোগে আমেরিকার বিপ্লবী দম্পতি জুলিয়াস রোজেনবার্গ ও এথেল রোজেনবার্গের মৃত্যুদণ্ড।

১৯৬১ - কুয়েত স্বাধীনতা লাভ করে।

১৯৬৮ - পাকিস্তানের ইতিহাসের বহুল আলোচিত আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার (রাষ্ট্র বনাম শেখ মুজিব ও অন্যান্য) শুনানি শুরু।

১৯৮৯ - পোলান্ডের সাধারণ নির্বাচনে লেস ওয়ালেসার নেতৃত্বাধীন সলিডারিটি নিরঙ্কুশ বিজয় অর্জন করে।

১৯৯২ - ইসলামী সম্মেলন সংস্থা বা ও.আই. সি জানায় সার্বদের মাধ্যমে অবরুদ্ধ ও মুসলমান অধ্যুষিত বসনিয়ার রাজধানী সারাজেভোর মানুষ জীবন বাচাতে ঘাঁস লতা-পাতা খাচ্ছে। একই দিনে ও.আই. সি বসনিয়ায় সামরিক হস্তক্ষেপ করতে জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান জানায়।

১৯৯৩ - জাপানে মিয়াজাওয়া সরকারের পতনের পর এক মাসের মধ্যে সংসদ নির্বাচন হবে বলে ঘোষণা দেয়া হয়।

জন্ম:

১৩০১ - জাপানের যুবরাজ মরিকুনির জন্ম।

১৯০৭ - শিক্ষাবিদ ও নারী শিক্ষা প্রচারক উমেশচন্দ্র দত্তের জন্ম।

মৃত্যু:

১৩৫০ - বিশিষ্ট ইসলামী আইনবিদ ও পন্ডিত ফাখরুল মুহাক্বেক্বীন ইন্তেকাল করেন।

১৯০২ - ইংরেজ ইতিহাসবিদ জন ডালবার্গের মৃত্যু।

১৯১৯ - কবি অক্ষয়কুমার বড়ালের মৃত্যু।

১৯৮২ - ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামী নলিনী দাসের মৃত্যু।


আরও খবর

৩০ জুন: ইতিহাসে আজকের এই দিনে

বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২




ডিমলায় প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে নিয়মিত স্কুলে না আসার অভিযোগ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৩ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ | ৮৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রুহুল আমিন, ডিমলা-নীলফামারী প্রতিনিধি:

খেয়াল খুশিমতো স্কুলে এসে হাজিরা খাতায় সই করে চলে যান প্রধান শিক্ষক মকবুল হোসেন। অন্য শিক্ষকেরাও ক্লাস নেন নিজেদের খেয়াল খুশিমতো। শিক্ষার্থীরা যখন খুশি আসে, আবার চলেও যায়। স্যাঁতস্যাঁতে জরাজীর্ণ খেলার মাঠ। বিদ্যালয়ে যাওয়ার পথটি নাই বললেই। স্কুলের সামনেই শহীদ মিনার  সেখানে স্তুপ করে খড়ি রাখা হয়েছে। পাঠকক্ষের দেয়াল ঘেঁষা পশ্চিম পাশে কচুরিপানায় পরিপূর্ণ। সেখান থেকে বিষাক্ত পোকামাকড়ের কামড়ে যে কোন মায়ের বুক খালি হতে পারে! পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার বিন্দুমাত্র চিহ্ন  নেই গোটা প্রতিষ্ঠানে। মাকড়সার জালে পরিপূর্ণ গোটা শ্রেণিকক্ষ। বছরের ছয় মাস পার হয়ে গেলেও এখনো করা হয়নি ক্লাস রুটিন। নতুন শিক্ষক যোগদান করলেও শিক্ষকদের মাঝে বন্টন করা হয়নি শ্রেণিকক্ষের পাঠদান। যার কারণে শিক্ষকরা স্কুলে এসে বসে থেকে আবার চলে যান।ল্যাপটপ, প্রজেক্টর, ডিজিটাল হাজিরা মেশিন, অগ্নিনির্বাপক স্প্রে মেশিন, জ্বর মাপার থার্মোমিটার এসবের কথা জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন সব নষ্ট হয়ে গেছে আমি এসব বাসায় রেখেছি।

 ''এই অবস্থা নীলফামারী ডিমলা  উপজেলায় ঝুনাগাছ চাপানী ইউনিয়নের চাকলাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের''।

জানা গেছে, কাগজে-কলমে বিদ্যালয়ে শিক্ষককের সংখ্যা তিন জন। তবে প্রধান শিক্ষকের নিয়মিত অনুপস্থিতির কারণে অন্য শিক্ষকেরা পাঠদান করেন খেয়ালখুশিমতো। এ কারণে ছাত্র-ছাত্রীরা খেলাধুলা আর আড্ডা মেরে বাড়ি যায়। আর স্কুল ছুটি হয় শিক্ষকদের ইচ্ছে মত। ফলে প্রকৃত শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে কোমলমতি শিশু ও অন্যান্য শিক্ষার্থীরা। তাই অত্র এলাকার অনেকেই পড়ছে প্রাথমিক শিক্ষা থেকে ঝরে।

বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) দুপুরে সরেজমিনে বিদ্যালয়টিতে  গিয়ে দেখা গেছে, পুরো স্কুল শুনশান।  মাত্র দুইজন শিক্ষিকা দাঁড়িয়ে আছেন অফিস কক্ষের সামনে। মুঠোফোনে প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক মকবুল হোসেনের অনুপস্থিতির কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন নামাজ পড়তে এসেছি। ২.২৬ মিনিটে কোন নামাজ জানতে চাইলে তিনি ফোন কেটে দেন। 

স্থানীয় যুবক মহসিন, মাসুদ রানা ও সুজনের কাছে স্কুলের ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে তারা জানান, স্কুল চলছে, শিক্ষকও আছে। কিন্তু নিয়মিত পাঠদান করা হয় না। নতুন দুই ম্যাডাম আসার পর এখন একটু ক্লাস হয়। তবে প্রধান শিক্ষকের সকালে হাজিরার সময় দেখা পাওয়া যায় না। ছাড়া দুপুর ২টার পর স্কুল ছুটি দেয়া হয়। এছাড়াও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আশেপাশের অসংখ্য মানুষ প্রধান শিক্ষক উপস্থিতির বিষয়টি আমাদের বলেন।

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক বলেন, উনিতো আগে তেমন স্কুলে আসতেন না, এখন আসেন, আমি বলার পর এখন কিছুটা হলেও আসেন। আমি উনাকে নানা ভাবে বলার পর এখন কিছুটা সময় ক্লাস নেন।

সহকারী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা এ কে এম সাজ্জাদুজ্জামান কে গত দুই দিনে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি ধরেননি।

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা নুর মোহাম্মদ বলেন, আমরা তাকে ডাকবো তিনি কেন নিয়মিত পাঠদানে অংশগ্রহণ করেন না? প্রয়োজনে তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


আরও খবর



যুদ্ধ শুরুর ১০০ দিনে রাশিয়ার আয় ৯৮ বিলিয়ন ডলার

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৪ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ | ৫৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নতুন এক সমীক্ষা প্রতিবেদন মতে, সাম্প্রতিক সময়ে, রুশ জ্বালানি রপ্তানির বেশিরভাগ অংশই গেছে ইউরোপে। কিয়েভ পশ্চিমের কাছে মস্কোর সঙ্গে সব ধরনের বাণিজ্য সম্পর্ক বিচ্ছিন্নের দাবি জানিয়ে আসলেও এ ক্ষেত্রে বাস্তবতা পুরোপুরি ভিন্ন।

আজ সোমবার ফিনল্যান্ড ভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর রিসার্চ অন এনার্জি অ্যান্ড ক্লিন এয়ারের (সিআরইএ) সমীক্ষার বরাত দিয়ে কাতার ভিত্তিক গণ মাধ্যম আল জাজিরা জানিয়েছে, ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের ১০০তম দিন পর্যন্ত রাশিয়া জীবাশ্মভিত্তিক জ্বালানি রপ্তানি থেকে ৯৮ বিলিয়ন ডলার আয় করেছে।

আজ যুদ্ধের ১০৯তম দিন চলছে। ইতোমধ্যে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন রুশ হামলা থেকে নিজেদের সুরক্ষিত রাখার জন্য ইউক্রেনকে অস্ত্র ও অর্থ দিয়ে সাহায্য করেছে। এছাড়াও, মস্কোর বিরুদ্ধে নজিরবিহীন অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞাও আরোপ করা হয়েছে।

তা সত্ত্বেও মস্কোর সঙ্গে সব ধরনের বাণিজ্য সম্পর্ক ছিন্ন করার জন্য কিয়েভ পশ্চিমের দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়ে এসেছে। যুদ্ধের আগে রাশিয়া ইউরোপীয় ইউনিয়নের ৪০ শতাংশ গ্যাস ও ২৭ শতাংশ তেলের জোগান দিতো।

এ মাসের শুরুর দিকে ইউরোপের দেশগুলোর এই জোটের পক্ষ থেকে জানানো হয়, তারা এ বছরের মধ্যেই রাশিয়া আমদানি করা গ্যাসের দুই তৃতীয়াংশ কমাবে। তেল আমদানিও বেশিরভাগ ক্ষেত্রে বন্ধ করে দেওয়া হবে। তবে সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি আপাতত বিবেচনাধীন নয়।

সিআরইএর প্রতিবেদন মতে, যুদ্ধের প্রথম ১০০ দিনে রাশিয়ার জীবাশ্ম ভিত্তিক জ্বালানি রপ্তানির ৬০ শতাংশের ক্রেতা ইউরোপীয় ইউনিয়ন, যার মূল্যমান প্রায় ৬০ বিলিয়ন ডলার।

সার্বিকভাবে, আমদানিকারকদের মধ্যে শীর্ষ স্থানগুলোতে আছে চীন (১৩ দশমিক ২ বিলিয়ন), জার্মানি (১২ দশমিক ৭ বিলিয়ন), ইতালি (৮ দশমিক ২ বিলিয়ন), নেদারল্যান্ডস (৮ দশমিক ৪ বিলিয়ন), তুরস্ক (৭ বিলিয়ন), পোল্যান্ড (৪ দশমিক ৬ বিলিয়ন) এবং ভারত (৩ দশমিক ৬ বিলিয়ন)।

রাশিয়ার জীবাশ্ম ভিত্তিক জ্বালানি থেকে পাওয়া রাজস্ব আসে মূলত ক্রুড (অপরিশোধিত) তেল বিক্রি করে। এই খাত থেকে ৪৮ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার এসেছে। এরপরেই আছে পাইপলাইনের মাধ্যমে পাঠানো গ্যাস (২৫ দশমিক ১ বিলিয়ন), তেলজাত পণ্য (১৩ দশমিক ৬ বিলিয়ন), এলএনজি (৫ দশমিক ৩ বিলিয়ন) এবং কয়লা (৪ দশমিক ৮ বিলিয়ন)।

যুদ্ধের কারণে বিশ্বব্যাপী রুশ পণ্য বর্জনের কারণে মে মাসে রপ্তানি কমে গেলেও, জীবাশ্ম ভিত্তিক জ্বালানির দাম বেড়ে যাওতে ক্রেমলিনের আয় কমেনি। বরং রপ্তানি থেকে আসা রাজস্ব নতুন নতুন রেকর্ড গড়েছে।

সিআরইএ'র দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গত বছরের তুলনায় রাশিয়ার রপ্তানি মূল্য এ বছর ৬০ শতাংশ বেশি ছিল।

সমীক্ষা মতে, চীন, ভারত ও আরব আমিরাতের মত কিছু দেশ রাশিয়া থেকে আমদানি বাড়িয়েছে।

সিআরইএ জানায়, 'ভারত রুশ ক্রুড ওয়েলের উল্লেখযোগ্য আমদানিকারকে পরিণত হয়েছে। ক্রুড ওয়েল রপ্তানির ১৮ শতাংশই যাচ্ছে ভারতে।'

এই ক্রুড ওয়েল পরিশোধনের পর এর বেশিরভাগ অংশই আবারও পরিশোধিত তেল হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশে রপ্তানি করা হচ্ছে।

সিআরইএ'র বিশ্লেষক লরি মিলিভির্তা বলেন, 'ইউরোপীয় ইউনিয়ন রাশিয়ার বিরুদ্ধে আরও কঠোর বিধিনিষেধ আরোপের উদ্যোগ নিয়েছে, কিন্তু ফ্রান্স দেশটি থেকে এলএনজি আমদানি বাড়িয়েছে।'

মিলিভির্তা মত প্রকাশ করেন, যেহেতু ফ্রান্স দীর্ঘ মেয়াদী চুক্তির বদলে 'স্পট পারচেজ' করছে, সেহেতু বলা যায় আগ্রাসনের শুরু থেকেই ফ্রান্স জেনেশুনে রুশ জ্বালানি ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তিনি রুশ জীবাশ্ম জ্বালানির ওপর সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা আরোপের আহ্বান জানান, যাতে 'কথা ও কাজের মিল থাকে।'

নিউজ ট্যাগ: রাশিয়ার আয়

আরও খবর



২৮ জুন থেকে ১৯ দিন প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ

প্রকাশিত:শনিবার ২৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ | ৪৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

গ্রীষ্মকালীন ছুটি এবং ঈদুল আযহা ও আষাঢ়ী পূর্ণিমা উপলক্ষে ২৮ জুন থেকে ১৬ জুলাই পর্যন্ত মোট ১৯ দিন প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শ্রেণিকক্ষে সরাসরি পাঠদান বন্ধ থাকবে।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে বৃহস্পতিবার এ সংক্রান্ত নির্দেশনা জারি করা হয়েছে।

এতে বলা হয়, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২০২২ খ্রিস্টাব্দের ছুটি তালিকায় গ্রীষ্মকালীন ছুটি ১৬-২৩ মে নির্ধারিত ছিল। শিক্ষকদের শ্রান্তি বিনোদন ছুটি প্রদানের সুবিধার্থে পূর্বে নির্ধারিত গ্রীষ্মকালীন ছুটি ১৬-২৩ মে'র পরিবর্তে ২৮ জুন থেকে ৫ জুলাই সমন্বয়পূর্বক নির্ধারণ করা হলো।

এমতাবস্থায়, আগামী ২৮ জুন থেকে ৫ জুলাই গ্রীষ্মকালীন ছুটি ও ৬ থেকে ১৬ জুলাই পর্যন্ত ঈদুল আযহা এবং আষাঢ়ী পূর্ণিমা উপলক্ষে বিদ্যালয়ে সরাসরি পাঠদান কার্যক্রম বন্ধ থাকবে।


আরও খবর



২৫ জুন সবার জন্য উন্মুক্ত হচ্ছে না স্বপ্নের পদ্মা সেতু

প্রকাশিত:বুধবার ০৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ | ৫৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পদ্মা সেতু উদ্বোধনের দিন সর্বসাধারণের যানচলাচলের জন্য উন্মুক্ত করা হবে না বলে জানিয়েছেন সেতু বিভাগের সচিব মঞ্জুর হোসেন। উদ্বোধনের পর দিন সকাল ৬টা থেকে যান চলাচল শুরু হবে।

বুধবার বেলা ১১টায় রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে সেতু বিভাগ আয়োজিত পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা জানান।

মঞ্জুর হোসেন বলেন, ২৫ জুন সকাল ১০টায় মাওয়া প্রান্তে সুধী সমাবেশের পরে পদ্মা সেতু উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এরপর সেতু পার হয়ে জাজিরা প্রান্তে গিয়ে নামফলক উদ্বোধন করবেন তিনি। সেখানে কাঁঠালবাড়ী ঘাটে আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসমাবেশে বক্তব্য রাখবেন প্রধানমন্ত্রী।

নিউজ ট্যাগ: পদ্মা সেতু

আরও খবর



বুরকিনা ফাসোয় বিদ্রোহীদের হামলায় নিহত ১০০

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৪ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ | ৪৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পশ্চিম আফ্রিকার দেশ বুরকিনা ফাসোয় সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের হামলায় অন্তত ১০০ জন নিহত হয়েছেন। দেশটির উত্তরাঞ্চলীয় সেতেঙ্গা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহতের সবাই বেসামরিক নাগরিক। তবে তাৎক্ষণিকভাবে কোনো গোষ্ঠী হামলার দায় স্বীকার করেনি। খবর রয়টার্স।

দেশটির নিরাপত্তা সূত্র-সহ আরো দুটি সূত্রের বরাত দিয়ে গণমাধ্যমটি জানিয়েছে, সশস্ত্র আক্রমণকারীরা স্থানীয় সময় শনিবার ও রোববার রাতের আঁধারে সেনো প্রদেশের সেতেঙ্গা এলাকায় হামলা চালায়। এরপরই সেখানে পুরুষদের ওপর হত্যাযজ্ঞ চালায় তারা। তবে হামলাকারীরা নারী ও শিশুদের ওপর হামলা চালানো থেকে বিরত ছিল।

এদিকে, সশস্ত্র বিদ্রোহীদের হামলায় মৃতের সংখ্যা নিয়ে ভিন্ন ভিন্ন বিবরণ পাওয়া যাচ্ছে। আফ্রিকার এই দেশটির নিরাপত্তা কর্মকর্তারা সোমবার রয়টার্সকে বলেছেন, হামলায় অন্তত ১০০ জন প্রাণ হারিয়েছেন। অন্যদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি স্থানীয় সূত্র জানিয়েছে, হামলার পর মৃতের প্রাথমিক সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৬৫ জনে।

অপরদিকে বুরকিনা ফাসোর সরকারের মুখপাত্র লিওনেল বিলগো স্থানীয় সময় সোমবার বলেছেন, এখন পর্যন্ত ৫০টি মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। কিন্তু নিহতের সংখ্যাটি চূড়ান্ত নয়। তিনি আরো বলেন, মৃতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সাল থেকে সশস্ত্র মিলিশিয়া গোষ্ঠীগুলোর ক্রমবর্ধমান হামলা মোকাবিলায় রীতিমতো সংগ্রাম করছে বুরকিনা ফাসো। সশস্ত্র এসব গোষ্ঠীগুলোর বেশিরভাগই জঙ্গিগোষ্ঠী আল কায়দা এবং আইএসর সঙ্গে সম্পৃক্ত। এছাড়া গত এক দশকে আফ্রিকার এই দেশটিতে সহিংসতা অনেক বেড়েছে এবং জোরালো হয়েছে। আর এতে প্রতি বছর হাজার হাজার বেসামরিক লোক নিহত হয়েছেন।

নিউজ ট্যাগ: পশ্চিম আফ্রিকা

আরও খবর