Logo
শিরোনাম

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার এক আসামি গ্রেফতার

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ১৮জন দেখেছেন
Share
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউতে আওয়ামী লীগের সমাবেশে গ্রেনেড হামলার ঘটনায় যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত এক আসামিকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশান ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)।

সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) দিনগত রাতে রাজধানীর দিয়াবাড়ি এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়। তবে ঘটনার প্রায় ১৭ বছর পর গ্রেফতার হওয়া এ আসামির প্রাথমিকভাবে বিস্তারিত নাম-পরিচয় জানা যায়নি।

র‍্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক লে. কর্নেল আশিক বিল্লাহ জানান, সোমবার রাতে দিয়াবাড়ি এলাকা থেকে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত এক আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) বেলা সাড়ে ১১টায় রাজধানীর কারওয়ান বাজারের র‍্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাবের মহাপরিচালক (ডিজি) চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন এ বিষয়ে বিস্তারিত জানাবেন।

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় সেই সময়ের বিরোধী দলের নেতা শেখ হাসিনা বেঁচে গেলেও নিহত হন নারী আওয়ামী লীগের সভাপতি আইভি রহমানসহ ২৪ জন।

Share

মাদক মামলায় পারভিনের ১০টি বই পড়ার দণ্ড

বুধবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১




মার্কিন সেনাপ্রধানের সঙ্গে জেনারেল আজিজের সৌজন্য সাক্ষাৎ

প্রকাশিত:রবিবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৫৮জন দেখেছেন
Share
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বাংলাদেশের সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ মার্কিন সেনাপ্রধান জেমস চার্লস ম্যাককনভিলের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন।

স্থানীয় সময় শনিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) পেন্টাগনে সাক্ষাৎকালে দুই দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যকার সম্পর্ক আরো জোরদার এবং পারস্পরিক সহযোগিতার বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। দুই সেনাপ্রধান একে অপরকে ক্রেস্ট উপহার দিয়েছেন এবং পরে তাঁরা নৈশভোজে অংশ নেন।

যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনী প্রধানের আমন্ত্রণে বাংলাদেশের সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ গত ২৯ জানুয়ারি ঢাকা ছাড়েন। তিনি যুক্তরাষ্ট্রে পোঁছার দু'দিন পরেই কাতারভিত্তিক গণমাধ্যম আল-জাজিরা টেলিভিশনে গত সোমবার (১ ফেব্রুয়ারি) প্রচারিত প্রতিবেদনে সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদসহ বাংলাদেশের শীর্ষ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ তোলা হয়। যুক্তরাষ্ট্র সফররত জেনারেল আজিজ আহমেদ এখন পর্যন্ত আল-জাজিরায় প্রচারিত প্রতিবেদন নিয়ে মুখ খোলেননি বা তিনি কোন মন্তব্য করেননি।

এদিকে, যুক্তরাষ্ট্র সফরকালে তিনি বাংলাদেশ দূতাবাস, মিশন ও কন্সুলেটে কোনো সভায় অংশ নেবেন কিনা যোগাযোগ করেও তা জানা সম্ভব হয়নি। যুক্তরাষ্ট্রের বাংলা গণমাধ্যমের সংবাদকর্মিরাও বাংলাদেশের সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদের অন্যান্য কর্মসূচির কথা জানেন না।

মার্কিন সেনাপ্রধানের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতের পাশাপাশি তিনি অফিস অব দ্য সেক্রেটারি অব ডিফেন্স ফর পলিসি সাউথ ও সাউথইস্ট এশিয়াতে আঞ্চলিক প্রতিরক্ষা এবং দুই দেশের পারস্পরিক সামরিক সহযোগিতা বিষয়ক আলোচনায় অংশ নিয়েছেন। তিনি মার্কিন সেনাবাহিনীর বিভিন্ন সামরিক স্থাপনা ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র পরিদর্শন করছেন।

যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানকালে জেনারেল আজিজ জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনের মিলিটারি অ্যাডভাইজার এবং আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেলদের সঙ্গেও মতবিনিময় করছেন। শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশি সদস্য সংখ্যা বৃদ্ধি, বিভিন্ন শান্তিরক্ষা মিশন সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা এবং নীতি নির্ধারণী পর্যায়ে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব বাড়াতে এ সফর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে বিজ্ঞপ্তিতে আশাবাদ ব্যক্ত করা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র সফর শেষে সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি দেশে ফিরবেন।

Share

করোনা টিকা নিলেন শেখ রেহানা

বুধবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১




কর্তৃপক্ষের নির্দেশ প্রত্যাখ্যান, জাবি শিক্ষার্থীদের হলে অবস্থান

প্রকাশিত:সোমবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৪০জন দেখেছেন
Share
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

প্রশাসনের হল ত্যাগের নির্দেশনা প্রত্যাখ্যান করেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) তালা ভেঙে আবাসিক হলে অবস্থান নেয়া শিক্ষার্থীরা।

আবাসিক হলগুলোতে প্রাধ্যক্ষরা শিক্ষার্থীদের বুঝিয়ে হল ত্যাগের কথা বলছেন। তবে এ নির্দেশনা প্রত্যাখ্যান করে এখনও হলে অবস্থান করছেন শিক্ষার্থীরা।

রবিবার (২১ ফেব্রুয়ারি) রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার রহিমা কানিজ স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে সোমবার সকাল ১০টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার নির্দেশনা দেয়া হয়।

এদিকে হল ত্যাগের ওই নির্দেশনার প্রেক্ষিতে পাল্টা কর্মসূচির লক্ষ্যে দুপুর ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন চত্বরে একত্রিত হওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা।

এর আগে গত শুক্রবার বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন গেরুয়া এলাকায় ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র করে পূর্ব বিরোধের জেরে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা করে স্থানীয়রা।

পরে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় তা সংঘর্ষে রূপ নেয়। এ ঘটনায় ৪০ শিক্ষার্থী আহত হন। পরদিন শনিবার দুপুরে হলের তালা ভেঙে ভেতরে অবস্থান নেন শিক্ষার্থীরা।

Share

‘হয় পরীক্ষা নাও, না হয় জীবন নাও’

বুধবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১

৭ কলেজের বিষয়ে সিদ্ধান্ত আজ সন্ধ্যায়

বুধবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১

শিক্ষার্থীদের ঢাকার ৭ পয়েন্টে অবস্থান

বুধবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১




টেকনাফে ১০টি আগ্নেয়াস্ত্রসহ দুইজন রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী আটক

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০২ ফেব্রুয়ারী 2০২1 | হালনাগাদ:বুধবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৮৫জন দেখেছেন
Share
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কক্সবাজারের টেকনাফ থেকে ১০টি আগ্নেয়াস্ত্রসহ দুইজন রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীকে আটক করেছে র‌্যাব। সোমবার (১ ফেব্রুয়ারি) রাত সাড়ে ৯টার দিকে টেকনাফের দমদমিয়া ব্রীজ এলাকা থেকে তাদেরকে অস্ত্রসহ আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলো- শালবাগান রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মৃত আমির হোসেনের পুত্র সৈয়দ হোসেন (৫৫) ও মুছনি রোহিঙ্গা ক্যাম্পের আজিজুল হকের পুত্র বদি আলম (২০)। তারা দুইজনই জকির গ্রুপের সক্রিয় সদস্য।

র‌্যাব-১৫ কক্সবাজার ক্যাম্পের উপ-অধিনায়ক মেজর মেহেদী হাসান জানান, কতিপয় অস্ত্রধারী রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী দমদমিয়ার ওমরখাল ব্রীজ সংলগ্ন এলাকা দিয়ে অস্ত্র পাচারের গোপন সংবাদে অভিযান চালানো হয়। র‌্যাব সদস্যদের উপস্থিতি টের পেয়ে ১০/১২ জন ব্যক্তি দুটি বস্তাসহ দৌড়ে পালিয়ে যাবার চেষ্টা করে। এসময় তাদের ধাওয়া করে ২ জনকে আটক করা হয়। তাদের কাছে থাকা দুটি বস্তা থেকে ৯টি এসবিবিএল ও ১টি ওয়ান শুটারগানসহ ১০টি অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। আটককৃত ২ জনকে ও উদ্ধারকৃত অস্ত্রসহ টেকনাফ থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।

তিনি জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃতরা স্বীকার করে যে, এসব অস্ত্র সন্ত্রাসী জকির গ্রুপের কাছে নিয়ে যাচ্ছিল। তারা দীর্ঘদিন যাবৎ অবৈধ অস্ত্র ও গুলি সংগ্রহপূর্বক সন্ত্রাসী গ্রুপের নিকট বিক্রয় ও এলাকায় বিভিন্ন ধরণের সন্ত্রাসী কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে।

Share

ভাসানচরের পথে আরো দুই হাজার রোহিঙ্গা

সোমবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১




নতুন করে ধরপাকড়ের মুখে রোহিঙ্গা শরণার্থীরা

প্রকাশিত:বুধবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৫২জন দেখেছেন
Share
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ভারতে অনুপ্রবেশের কারণে দেশটির সরকার গ্রেপ্তার করতে পারে এই আশঙ্কায় ভারত থেকে পালিয়ে যাচ্ছে কিংবা এক রাজ্য থেকে অন্য রাজ্যে লুকিয়ে পড়ছে রোহিঙ্গা শরণার্থীরা।

গত মাসে ভারতের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দেশজুড়ে বেশকিছু সংখ্যক রোহিঙ্গাকে ধরে কারাগারে পাঠিয়েছে। এর ফলে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে ভারতে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গা মুসলিম শরণার্থীদের মনে ভয় দেখা দিয়েছে।

নিজাম উদ্দিন নামের একজন রোহিঙ্গা শরণার্থী সপরিবারে গত মাসে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের একটি গ্রাম থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসেন। তিনি বলেন, কয়েক বছর ধরে পশ্চিমবঙ্গে কয়েকশ রোহিঙ্গা বসবাস করে আসছিল। কিন্তু রাজ্যে কয়েকজন রোহিঙ্গাকে গ্রেপ্তার করার পর, অনেকেই গা ঢাকা দিয়েছে। তাদের বেশির ভাগ অন্য রাজ্যে আত্মগোপন করেছে। বাকীরা বাংলাদেশে ঢুকেছে।

নিজাম উদ্দিন বলেন, আমার পরিবার ধরা পড়লে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ প্রথমে আমাদের কারাগারে পাঠাতো, তারপর মিয়ানমারে পাঠিয়ে দিত। মিয়ানমার এখনো রোহিঙ্গাদের জন্য অত্যন্ত অনিরাপদ। আমরা সেই নরকে যেতে চাই না। আটক হওয়ার ভয়ে আমি ভারত থেকে পালিয়েছি।

শরণার্থী বিষয়ে কাজ করেন ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এমন একজন কর্মকর্তার কাছে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে অভিযান চালানো সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে তিনি কোনো মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানান।

এক বছর আগের হিসাব অনুযায়ী, মোট ৪০ হাজার রোহিঙ্গা শরনার্থী ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে। ভারত ১৯৫১ সালের জাতিসংঘ শরণার্থী কনভেনশনে স্বাক্ষর করেনি। তাই ভারতে অনুপ্রবেশকারী সব রোহিঙ্গাকে তারা অবৈধ অভিবাসী হিসেবে দেখে থাকে।

Share

মোদি সবচেয়ে বড় দাঙ্গাবাজ: মমতা

বুধবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১

তিন কারাগারে দাঙ্গায় ৬২ জন নিহত

বুধবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১

চিরকুট লিখে হোটেলে এমপির ‘আত্মহত্যা’

মঙ্গলবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২১




মিয়ানমারের সামগ্রিক পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠকে বসবে জাতিসংঘ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০২ ফেব্রুয়ারী 2০২1 | হালনাগাদ:বুধবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৬০জন দেখেছেন
Share
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

জরুরি অবস্থা জারির পর থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে মিয়ানমারে। ভবিষ্যৎ নিয়ে উদ্বেগ আর সংশয় প্রকাশ করেছেন দেশটির সাধারণ মানুষ। এর মধ্য দিয়ে রোহিঙ্গা সঙ্কট আরও প্রকট আকার ধারণ করতে পারে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে জাতিসংঘ। সামরিক শাসনের জেরে মিয়ানমারের ওপর নতুন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপের ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। মিয়ানমারের সামগ্রিক পরিস্থিতি নিয়ে আজ জরুরি বৈঠকে বসতে যাচ্ছে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ।

সেনাবাহিনী ক্ষমতা দখলের পর কার্যত স্থবির হয়ে পড়েছে মিয়ানমার। দিনে জরুরি অবস্থা ও রাতে কারফিউয়ে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করে দেশজুড়ে। তবে ইয়াঙ্গুনের পার্শ্ববর্তী চায়না টাউনে মানুষজনের চলাচল থাকলেও স্বাভাবিকের তুলনায় তা একেবারেই কম।

ইন্টারনেট সেবা সীমিত করায় বহির্বিশ্ব থেকে অনেকটাই বিচ্ছিন্ন মিয়ানমার। জরুরি অবস্থার মধ্যে কোনমতে যারা ইন্টারনেট ব্যবহারের সুযোগ পেয়েছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মিয়ানমারকে রক্ষার আহ্বান জানিয়েছেন তারা।

সামরিক শাসনের মাধ্যমে গণতন্ত্রকে হুমকিতে ফেলায় মিয়ানমারের সেনা শাসকদের ওপর নতুন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপের ঘোষণা দিয়েছে বাইডেন প্রশাসন।

হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র জেন সাকি বলেন, মিয়ানমার ও ওই অঞ্চলের সবার জন্য একই বার্তা প্রযোজ্য। অং সান সু চিসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দকে আটক, সেনাবাহিনীর ক্ষমতাগ্রহণ সবই গণতান্ত্রিক ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রতি চরম অপমান। অং সান সু চিকে আটক ও সেনাবাহিনীর দখলের রোহিঙ্গা সঙ্কট তীব্রতর হওয়ার পাশাপাশি রাখাইনে থাকা ছয় লাখের বেশি রোহিঙ্গার ভবিষ্যৎ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে জাতিসংঘ।

জাতিসংঘের মুখপাত্র স্টিফেন দুজারিক বলেন, রাখাইনে ছয় লাখ রোহিঙ্গার মধ্যে প্রায় দেড় লাখ রোহিঙ্গা বিভিন্ন শিবিরে মানবেতর জীবন যাপন করছে। আমাদের আশঙ্কা মিয়ানমার সেনাবাহিনী তাদের ওপর আরো অত্যাচার নির্যাতন চালাতে পারে। এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের ফেরাও অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।

এরমধ্যেই, মিয়ানমারের সবশেষ পরিস্থিতি নিয়ে করণীয় ঠিক করতে জরুরি বৈঠক ডেকেছে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ। এদিকে, অং সান সু চিকে আটক ও জরুরি অবস্থা জারির প্রতিবাদে থাইল্যান্ড, জাপানসহ বিভিন্ন দেশে বিক্ষোভ করেছেন মিয়ানমারের নাগরিকরা।

Share

মোদি সবচেয়ে বড় দাঙ্গাবাজ: মমতা

বুধবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১

তিন কারাগারে দাঙ্গায় ৬২ জন নিহত

বুধবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১

চিরকুট লিখে হোটেলে এমপির ‘আত্মহত্যা’

মঙ্গলবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২১