Logo
শিরোনাম

২৬শে মার্চ উপলক্ষ্যে লালমোহন-তজুমদ্দিন বাসীর আলোচনা সভা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ২৫ নভেম্বর ২০২৩ | ১৬৯৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

২৬শে মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু ও স্বাধীনতা শীর্ষক আলোচনা সভা করেছে ঢাকাস্থ লালমোহন-তজুমদ্দিন বাসী।

মঙ্গলবার (২৮ মার্চ)রাজধানীর বনানীতে এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) সোহরাওয়ার্দী হল শাখার সাবেক ভিপি ও বিবিএস গ্রুপের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার আবু নোমান হাওলাদার।

আলোচনা তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর যুগান্তকারী ৭ মার্চের ভাষণটি ছিল মুক্তিযুদ্ধের জন্য বাঙালি জাতির শপথ। কারণ, ওই দিন ভাষণটি শোনার পর গোটা জাতি শপথ নেয় এবং দখলদার পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়। ২৬ শে মার্চের স্বাধীনতা আন্দোলন থেকে শুরু করে প্রত্যেকটি আন্দোলনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সরাসরি নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। আজকের এই বাংলাদেশটি স্বাধীন হওয়ার পেছনে বঙ্গবন্ধুর অতুলনীয় অবদান রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণা শুনেই মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে। বঙ্গবন্ধু তার ভাষণে বলেছিলেন, প্রতিটি ঘরে ঘরে দুর্গ গড়ে তোলো, যার যা কিছু আছে, তা নিয়েই শক্রর মোকাবিলা করতে হবে।

ইঞ্জিনিয়ার আবু নোমান হাওলাদার আরও বলেন, বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ সমগ্র জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করেছিল এবং বহুল প্রত্যাশিত স্বাধীনতার জন্য সম্মিলিতভাবে লড়াইয়ে জাতিকে ঝাঁপিয়ে পড়ার জন্য প্রস্তুত করেছিল। কারণ, এই ভাষণে স্বাধীনতা লাভের জন্য সব ধরণের নির্দেশ এবং দিকনির্দেশনা ছিল। একটি মাত্র বক্তৃতায় এই মহামানব সমগ্র জাতিকে একটি ছাতার নিচে ঐক্যবদ্ধ করতে পেরেছিলেন এবং একটি বাস্তব সার্বভৌম নেতা হিসেবে ধর্ম, বর্ণ, সম্প্রদায় নির্বিশেষে সকলের হৃদয় জয় করতে সক্ষম হয়েছিলেন।

অনুষ্ঠানে ভোলা-৩ আসনের (লালমোহন-তজুমদ্দিন) আওয়ামী লীগ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর