Logo
শিরোনাম

আইনি চ্যালেঞ্জের মুখে এআই ইমেজ নির্মাতা

প্রকাশিত:সোমবার ২৩ জানুয়ারী 20২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ২৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন ইমেজ তৈরির টুল নির্মাতাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছে গেটি ইমেজ। বর্তমানে এআই ইমেজ জেনারেটরগুলো মানুষের তৈরি ছবি এবং অনলাইনে পাওয়া বিভিন্ন ছবি বিশ্লেষণের মাধ্যমে নতুন ছবি তৈরি করতে পারছে। 

অনেক শিল্পী এবং ফটোগ্রাফারদের অনুমতি ছাড়াই তাদের ছবি ব্যবহার করছে এই টুল। কিছু শিল্পী মনে করছেন এটির মাধ্যমে খুব সহজেই নিজেদের সৃজনশীলতা প্রকাশ করা সম্ভব। তবে কিছু শিল্পী উদিগ্ন কারণ এটি কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে তাদের স্টাইল অনুকরণ করে ছবি বানাতে সক্ষম। একটি ভাইরাল টুইটের মতে, এটি সক্রিয়ভাবে শিল্পী বিরোধী এবং শিল্পীদের চাকরি দখল করতে চায়।

স্ট্যাবিলিটি এআই-এর প্রতিষ্ঠাতা ইমাদ মোস্তাক এর আগে জানায়, স্ট্যাবল ডিফিউশনকে ইন্টারনেট থেকে স্ক্র্যাপ করা এক লাখ গিগাবাইট ইমেজে ব্যবহার করে একটি কমপ্রেসড ফাইল বানানোর প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। শিল্পীদের নাম যেন জানা যায় এর জন্য তারা তাদের টুল নিয়ে কাজ করছেন। তাদের কাজে গেটি ইমেজের কন্টেন্ট পাওয়া গেছে। গেটি ইমেজ লন্ডনের হাইকোর্টে আইনি প্রক্রিয়া শুরু করেছে।

গেটি ইমেজ অভিযোগ করেছে ,স্ট্যাবিলিটি এআই অবৈধভাবে কপিরাইট দ্বারা সুরক্ষিত হাজার হাজার ছবি কপি করেছে। এটি কন্টেন্ট নির্মাতাদের জন্য ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াবে। কার্যকর লাইসেন্সিং বিকল্প হিসেবে এটি কাজ করছে এবং দীর্ঘস্থায়ী আইনি সুরক্ষা উপেক্ষা করেব তারা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে ।

তবে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী ক্রেইগ পিটার্স বলেন, স্ট্যাবিলিটি এআই'র কাজ আইন দ্বারা কেনো সমর্থিত নয় এবং কনটেন্ট নির্মাতাদের কাজ তারা কীভাবে ব্যবহার হচ্ছে সে বিষয়ে তাদের বক্তব্য থাকা উচিত।

নিউজ ট্যাগ: এআই ইমেজ

আরও খবর



আফগানিস্তানে সাবেক নারী এমপিকে গুলি করে হত্যা

প্রকাশিত:সোমবার ১৬ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩ | ৩২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে মুরসাল নবীজাদা নামে সাবেক এক নারী সংসদ সদস্যকে (এমপি) তার নিজ বাড়িতে গুলি চালিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। গুলিতে তার এক দেহরক্ষীও নিহত হন। এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা।

নিহত মুরসাল যুক্তরাষ্ট্র-সমর্থিত সরকারের পার্লামেন্ট সদস্য ছিলেন। ২০২১ সালের আগস্ট মাসে তালেবানের হাতে ওই সরকার ক্ষমতাচ্যুত হয়। যদিও মুরসাল আফগানিস্তানের কয়েকজন নারী সংসদ সদস্যদের মধ্যে একজন যারা তালেবানের ক্ষমতা দখলের পরও কাবুলে থেকে গিয়েছিলেন।

কাবুল পুলিশের মুখপাত্র খালিদ জাদরান রোববার বলেছেন, মুরসাল এবং তার এক দেহরক্ষীকে তার বাড়িতে গুলি চালিয়ে হত্যা করা হয়েছে। নিরাপত্তা বাহিনী এ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

স্থানীয় পুলিশ প্রধান মৌলভি হামিদুল্লাহ খালিদ জানান, গতকাল রোববার বিকেল ৩টার দিকে মুরসালকে গুলি চালিয়ে হত্যার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় মুরসালের ভাই ও দ্বিতীয় নিরাপত্তারক্ষী আহত হয়েছেন এবং তৃতীয় নিরাপত্তারক্ষী টাকা-গয়না নিয়ে পালিয়ে গেছে। খালিদ অবশ্য এ ঘটনার পেছনে সম্ভাব্য উদ্দেশ্য সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দেননি।

মুরসালকে জনগণের প্রতিনিধি এবং সেবক হিসেবে উল্লেখ করেছেন আফগানিস্তানের পশ্চিমা-সমর্থিত সাবেক সরকারের শীর্ষ কর্মকর্তা আবদুল্লাহ। তার আশা, অপরাধীদের শাস্তি হবে।

মুরসাল ২০১৯ সালে কাবুলের প্রতিনিধিত্ব করার জন্য নির্বাচিত হন। তিনি সংসদীয় প্রতিরক্ষা কমিশনের সদস্য ছিলেন এবং বেসরকারি গোষ্ঠী মানব সম্পদ উন্নয়ন ও গবেষণা ইনস্টিটিউটে কাজ করেছিলেন।

দেশটির সাবেক এমপি মরিয়ম সোলাইমানখিল টুইটারে বলেছেন, মুরসাল ছিলেন আফগানিস্তানের জন্য নির্ভীক চ্যাম্পিয়ন। তিনি লিখেছেন, আফগানিস্তান ছেড়ে যাওয়ার সুযোগ দেওয়া সত্ত্বেও তিনি (মুরসাল) তার জনগণের জন্য থাকার এবং লড়াই করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন।

নিউজ ট্যাগ: গুলি করে হত্যা

আরও খবর



গ্রিন হাইড্রোজেনে ভারতের ২৩০ কোটি ডলারের তহবিল

প্রকাশিত:রবিবার ০৮ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩ | ৩৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

গ্রিন হাইড্রোজেন উৎপাদন, ব্যবহার ও রফতানিতে ২৩০ কোটি ডলারের তহবিল অনুমোদন দিয়েছে ভারত সরকার। এর মধ্য দিয়ে ভারতকে বর্ধনশীল খাতটির বৈশ্বিক হাব হিসেবে গড়ে তোলার পরিকল্পনা রয়েছে।

চলতি দশকের শেষ নাগাদ ৫০ লাখ টন পরিবেশবান্ধব জ্বালানি উৎপাদনের পরিকল্পনা রয়েছে ভারতের। নবায়নযোগ্য জ্বালানি থেকে তৈরি করা বিদ্যুৎ ব্যবহার করে পানির তড়িৎ বিশ্লেষণ থেকে বানানো হয় গ্রিন হাইড্রোজেন। বিশ্বের মোট হাইড্রোজেনের বেশির ভাগই তৈরি করা হয় জীবাশ্ম জ্বালানি বিশেষ করে প্রাকৃতিক গ্যাস ব্যবহার করে।

ভারতের তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর বলেন, গ্রিন হাইড্রোজেন সহজলভ্য করা এবং আগামী পাঁচ বছরে এর দাম কমিয়ে আনাই এ তহবিল অনুমোদনের উদ্দেশ্য। এর মাধ্যমে ভারতে কার্বন নিঃসরণও কমে আসবে এবং এ খাতে দেশ সবচেয়ে বড় রফতানিকারক হয়ে উঠতে পারে। এ অর্থায়নের কারণে ২০৩০ সাল নাগাদ ১২৫ গিগাওয়াট নবায়নযোগ্য জ্বালানি সক্ষমতা বৃদ্ধি করা সম্ভব হবে। গত অক্টোবর পর্যন্ত ভারতের ১৬৬ গিগাওয়াট নবায়নযোগ্য জ্বালানি সক্ষমতা রয়েছে। তাছাড়া ৫০ হাজারের বেশি নতুন চাকরির ক্ষেত্র তৈরি করা, এ খাতে আরো বেশি বেসরকারি বিনিয়োগ আহ্বান করা, জীবাশ্ম জ্বালানি আমদানি কমানো এবং পাঁচ কোটি টন গ্রিনহাউজ গ্যাস নিঃসরণ কমানোও এমন পদক্ষেপের উদ্দেশ্য ছিল।

ভারতের সেরা নবায়নযোগ্য কিছু জ্বালানি প্রতিষ্ঠান যেমন আদানি গ্রুপের মালিকানাধীন কোম্পানি, রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রি ও জেএসডব্লিউ এনার্জি, সরকারি খাতের কোম্পানি যেমন ইন্ডিয়ান অয়েল, এনটিপিসি লিমিটেড এবং নবায়নযোগ্য প্রতিষ্ঠান রিনিউ পাওয়ার গ্রিন হাইড্রোজেন উৎপাদনে মনোযোগ দিচ্ছে।

বিশ্বে বর্তমানে যে পরিমাণ হাইড্রোজেন ব্যবহার হচ্ছে তার খুব অল্পই গ্রিন হাইড্রোজেন। এর মোট পরিমাণ বছরে সাত কোটি টন। সবচেয়ে বেশি বাণিজ্যিকভাবে তৈরি করা হয় গ্রে হাইড্রোজেন, যা জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহারে তৈরি। এছাড়া ব্লু হাইড্রোজেনও জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহারে তৈরি করা হয়। কিন্তু সেখানে নিঃসরণ কমানোর জন্য কার্বন ক্যাপচার পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়। ধারণা করা হচ্ছে, গ্রিন হাইড্রোজেন উৎপাদনের ফলে কার্বন নিঃসরণ আরো কমে আসবে অথবা কোনো নিঃসরণই হবে না।

গ্রিন হাইড্রোজেন উৎপাদনে উৎসাহিত করতে ভারত বেশকিছু দেশ যেমন চীন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও যুক্তরাষ্ট্রের পথ অনুসরণ করছে। জ্বালানি বিশ্লেষকদের প্রত্যাশা, আগামী কয়েক বছরে গ্রিন হাইড্রোজেন উৎপাদনের খরচ অনেক কমে আসবে। এতে ২০৩০ সালের মধ্যে গ্রিন হাইড্রোনের বাজার ২০ গুণ বেড়ে ৮ হাজার কোটি ডলারে গিয়ে দাঁড়াবে।


আরও খবর



কারাগার থেকে মুক্তি পেলেন বুশরা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১০ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২৫ জানুয়ারী ২০২৩ | ৩৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী ফারদিন নূর পরশের মৃত্যুর ঘটনায় দায়ের করা মামলায় গ্রেপ্তার হওয়ার দুই মাস পর কারাগার থেকে মুক্তি পেলেন তার বান্ধবী আমাতুল্লাহ বুশরা।

মঙ্গলবার (১০ জানুয়ারি) দুপুরে তিনি গাজীপুরের কাশিমপুর মহিলা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্ত হন।

কাশিমপুর মহিলা কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার ফারহানা আক্তার বিষয়টি নিশ্চিত করছেন।

তিনি জানান, আদালতের কাগজপত্র কারাগারে এসে পৌঁছালে তা যাচাই-বাছাই করা হয়। পরে বুশরাকে দুপুর ২টার দিকে কারাগার থেকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। কারামুক্তির পর আমাতুল্লাহ বুশরাকে তার বাবা মঞ্জুরুল ইসলাম নিয়ে যান বলে জানান তিনি।

এর আগে, গত ০৮ জানুয়ারি পরশের বাবার দায়ের করা হত্যা মামলার প্রধান আসামি আমাতুল্লাহ বুশরার অন্তবর্তীকালীন জামিন মঞ্জুর করেন দায়রা জজ আদালত।

উল্লেখ্য, গত ৪ নভেম্বর রাজধানীর রামপুরা পুলিশ বক্সের সামনে বান্ধবী বুশরাকে নামিয়ে দেওয়ার পর নিখোঁজ হন ফারদিন। এ ঘটনায় তার সন্ধান দাবিতে রামপুরা থানায় নিখোঁজের একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন বাবা কাজী নুর উদ্দিন রানা। ৭ নভেম্বর শীতলক্ষ্যা নদীতে তার লাশ পায় নৌপুলিশ। ময়নাতদন্ত করা চিকিৎসক, তার পরিবার ও সহপাঠীদের দাবি ছিল, ফারদিনকে হত্যা করা হয়েছে।

ফারদিন নূর পরশকে হত্যা করে লাশ গুম করার অভিযোগে তার বাবা মামলা করেন। এতে প্রধান আসামি করা হয় বুশরাকে। দুদিন পর ১০ নভেম্বর সকালে রাজধানীর রামপুরা এলাকার একটি বাসা থেকে বুশরাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। ওইদিনই তাকে আদালতে হাজির করে মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ। শুনানি শেষে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মেহেদী হাসান পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

১৬ নভেম্বর পাঁচদিনের রিমান্ড শেষে বুশরাকে আদালতে হাজির করে পুলিশ। এরপর মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের পরিদর্শক মজিবুর রহমান।

এই সময়ের মধ্যে তদন্ত চালিয়ে ফারদিন নূর পরশ আত্মহত্যা করেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।


আরও খবর



বাংলাদেশ এখন বিশ্বের ৩৫তম বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৬ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:রবিবার ২২ জানুয়ারী ২০২৩ | ৪১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বিশ্ব অর্থনীতির কঠিন চ্যালেঞ্জের বছরেও বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) আকার বেড়েছে। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) পরিসংখ্যানের ভিত্তিতে তৈরি এই তালিকায় বিশ্বের ৫০টি বৃহত্তম অর্থনীতির দেশের তালিকায় বিশ্বের ৩৫তম বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ এখন বাংলাদেশ।

৪৬৫ বিলিয়ন ডলার জিডিপি (মোট দেশজ উৎপাদন) নিয়ে বিদায়ী ২০২২ সালে বিশ্বের সবচেয়ে বড় অর্থনীতির দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ৩৫তম। এর আগের বছরে এই অবস্থান ছিল ৪১তম। সে সময় বাংলাদেশের জিডিপির আকার ছিল ৩৯৭ বিলিয়ন ডলার।

আইএমএফের পরিসংখ্যানের বরাত দিয়ে কানাডার অনলাইন প্রকাশনা সংস্থা ভিজ্যুয়াল ক্যাপিটালিস্টে গত ২৯ ডিসেম্বর প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়। দেশগুলোর মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) নিরিখেই এ তালিকা করা হয়েছে।

একটি দেশের অভ্যন্তরে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের একটি বড় নির্ণায়ক জিডিপি। একটি দেশে, একটি নির্দিষ্ট সময়ে সরকারি ও বেসরকারি খাতের পুরো অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের (পণ্য ও পরিষেবা) মোট মূল্য উঠে আসে জিডিপিতে।

এর আগে গত বছরের ১২ জুলাই ভিজ্যুয়াল ক্যাপিটালিস্ট বিশ্ব অর্থনীতিতে কোন দেশ কোথায়? শীর্ষক আরেকটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, ২০২১ সালে বিশ্বের ৪১তম বড় অর্থনীতি বাংলাদেশ। ওই প্রতিবেদনের তথ্য-উপাত্তও আইএমএফের কাছ থেকে নেওয়া হয়েছিল।

‘দি টপ হেভি গ্লোবাল ইকনোমি’ শীর্ষক ২৯ ডিসেম্বর প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রতিবেশী দেশ ভারত বিশ্ব অর্থনীতিতে পঞ্চম স্থানে চলে এসেছে। জুলাইয়ে প্রকাশিত প্রতিবেদনে ভারতের অবস্থান ছিল ষষ্ঠ।

২০২২ সালে ৩ দশমিক ৪৬ ট্রিলিয়ন আমেরিকান ডলার জিডিপি নিয়ে যুক্তরাজ্যকে পেছনে ফেলে পঞ্চম স্থান দখল করে নিয়েছে ভারত।

তালিকায় প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ স্থানে রয়েছে যথাক্রমে যুক্তরাষ্ট্র, চীন, জাপান ও জার্মানি। এই চারটি দেশের জিডিপি যথাক্রমে ২৫ দশমিক শূন্য তিন, ১৮ দশমিক ৩২, ৪ দশমিক ৩০ ও ৪ দশমিক শূন্য তিন ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার। বিশ্বের ১০টি বৃহত্তম অর্থনীতির দেশের বাকি ৫টি দেশ হচ্ছে যথাক্রমে যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, কানাডা, রাশিয়া এবং ইতালি। দেশ ৫টির জিডিপি যথাক্রমে ৩ দশমিক ২০, ২ দশমিক ৭৮, ২ দশমিক ২০, ২ দশমিক ১৩ ও ১ দশমিক ৯৯ ট্রিলিয়ন আমেরিকান ডলার।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বিদায়ী ২০২২ সালে বিশ্বে দুটি বড় ঘটনা ঘটেছে। প্রথমত-বিশ্বের জনসংখ্যা ৮০০ কোটি পার হয়েছে। দ্বিতীয়ত-বিশ্ব অর্থনীতির আকার ১০০ ট্রিলিয়ন ডলার অতিক্রম করে ১০১ দশমিক ৫৬ ট্রিলিয়ন ডলারে দাঁড়িয়েছে।

বৃহত্তম জিডিপির দেশ:

বিশ্ব অর্থনীতির আকার এই যে ১০০ ট্রিলিয়ন ডলার ছাড়াল, তাতে ছোট-বড় সব দেশের জিডিপির হিসাব যুক্ত হয়েছে। তবে এর বড় অংশজুড়ে আছে যুক্তরাষ্ট্র, চীন, জাপান, জার্মানি ও ভারত। বিশ্বের মোট জিডিপির অর্ধেকই এ কয়েকটি দেশের। আরও পাঁচটি দেশকে যদি এর সঙ্গে যুক্ত করা যায়, তবে ১০ দেশের মিলিত জিডিপি হয় বৈশ্বিক জিডিপির ৬৬ শতাংশ। আর বিশ্বের ২৫টি দেশ বৈশ্বিক জিডিপির ৮৪ ভাগের অংশীদার।

ছোট জিডিপির দেশগুলো:

বিশ্বের বাকি ১৬৭টি দেশের জিডিপির পরিমাণ কিন্তু খুবই কম, মাত্র ১৬ শতাংশ। নিম্ন জিডিপির দেশগুলোর বেশির ভাগই ওশেনিয়া অঞ্চলের দ্বীপদেশ। মোট ১৯১টি দেশ নিয়ে তৈরি আইএমএফের এই তালিকায় সর্বশেষ নামটি হচ্ছে টুভালু। ৬৬ মিলিয়ন ডলার জিডিপি নিয়ে দেশটির ১৯১তম অবস্থানে রয়েছে।

বাংলাদেশের অবস্থান প্রতিবেদনে দেখা যায়, বৈশ্বিক জিডিপির তালিকা অনুযায়ী বাংলাদেশের অর্থনীতির অবস্থান ৩৫তম। বাংলাদেশের জিডিপির আকার এ সময় ছিল ৪৬০ বিলিয়ন ডলার বা ৪৬ হাজার কোটি ডলার। বাংলাদেশের ঠিক আগেই রয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাত, মিসর ও অস্ট্রিয়ার মতো দেশ। আর ঠিক পরেই আছে মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর ও ভিয়েতনাম।

নতুন বছরে বৈশ্বিক অর্থনীতি:

অর্থনীতির এক ঘোর অনিশ্চয়তা নিয়ে শুরু হয়েছে ২০২৩ সাল। করোনা মহামারি, এরপর রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, মূল্যস্ফীতিতে নাকাল বিভিন্ন দেশের মানুষ। অনেক বিশেষজ্ঞ স্বল্প আকারে মন্দা সৃষ্টি হওয়ার কথা বলছেন। তবে এটা স্বল্প না দীর্ঘস্থায়ী হবে, তা নিয়ে বিতর্ক আছে। এরই মধ্যে আইএমএফ বলেছে, বিশ্বের অন্তত এক-তৃতীয়াংশ দেশ মন্দার কবলে পড়বে। অনেক বিশেষজ্ঞ বলছেন, অর্থনীতির নিম্নগামী প্রবণতাকে রুখতে পারবে চীন। এই ধারণা যদি ঠিক হয়, তবে বিশ্ব জিডিপির হিস্যায় দেশটির অংশ বাড়বে আরও।


আরও খবর



চাঁদপুরে ১ হাজার ২০ কেজি জেলিযুক্ত চিংড়ি জব্দ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৩ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২৫ জানুয়ারী ২০২৩ | ৪৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

চাঁদপুরে ১ হাজার ২০ কেজি জেলিযুক্ত চিংড়ি জব্দ করেছে কোস্টগার্ড। মঙ্গলবার দুপুরে গোপন সংবাদের  ভিত্তিতে আলুবাজাার ফেরিঘাট এলাকায় কোস্টগার্ডের বিশেষ অভিযানে এই চিংড়ি জব্দ করা হয়। অভিযানকালে একটি স্টিলবডি ট্রলার তল্লাশি করে এই চিংড়িগুলো জব্দ করা হয়।

অভিযানে উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা মো. জামিল হোসেন। মৎস্য কর্মকর্তার উপস্থিতিতে জেলিযুক্ত চিংড়িগুলো মাটিতে পুঁতে নষ্ট করা হয়।

কোস্টগার্ড ঢাকা জোন মিডিয়া কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট কমান্ডার খন্দকার মুনিফ তকি এ তথ্য নিশ্চিত করেন।


আরও খবর