Logo
শিরোনাম

আর্মি-পুলিশ দিয়ে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয় : সিইসি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৪ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ | ২০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে ভারসাম্য না থাকলে শুধু পুলিশ-মিলিটারি দিয়ে সুষ্ঠু নির্বাচন করা সম্ভব নয় বলে মনে করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাববুল আউয়াল। 

বৃহস্পতিবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে নিজ দপ্তরে সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, নির্বাচন সফল হতে সবচেয়ে বেশি দরকার রাজনৈতিক দলগুলোর সমঝোতা ও সহযোগিতা। সম্প্রতি নেপাল সফর নিয়ে তার এই সংবাদ সম্মেলন।

সিইসি বলেন, “পুলিশ দিয়ে কিন্তু আমি ব্যালেন্স (সমতা) তৈরি করব না। ব্যালেন্সটা তৈরি হবে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে। যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে প্রার্থীদের ইলেকশন এজেন্টরাই প্রতিটি কেন্দ্রে ব্যালেন্স তৈরি করবে।

“তারা (রাজনৈতিক দল) যদি সেই ভারসাম্য তৈরি না করে তাহলে পুলিশ-মিলিটারি দিয়ে সব সময় নির্বাচনকে সুষ্ঠু, বিশ্বাসযোগ্য ও আস্থাভাজনভাবে উঠিয়ে আনা সম্ভব হবে না।”

রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে সংলাপ অপরিহার্য জানিয়ে তিনি বলেন, “রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে যদি মোটাদাগে মতৈক্য না থাকে নির্বাচনকে সুষ্ঠু করতে নির্বাচন কমিশন সুন্দর নির্বাচন তুলে দিতে পারবে না। রাজনৈতিক দলগুলোর সহায়তা লাগবে। তাদের মধ্যে একটা সমঝোতা লাগবে। নির্বাচন আয়োজনে একটা অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি করে দিতে হবে। তাহলে রাজনৈতিক দলগুলোর কাছে নির্বাচনটা গ্রহণযোগ্য হবে।”

সিইসি বলেন, “সরকারের একটা ভিন্ন সত্তা আছে। তার যে মিনিস্ট্রিগুলো আছে, ডিপার্টমেন্টগুলো আছে, যাদের আমাদেরকে সহায়তা করতে হবে। তাদের তরফ থেকে যদি আন্তরিক এবং সদিচ্ছাভিত্তিক সহায়তা না থাকে তাহলে নির্বাচনটাকে কাঙ্ক্ষিত মাত্রায় সফল করা সম্ভব হবে না। তাদের সহযোগিতা থাকলে নির্বাচনটা আরও বেশি সুন্দর ও সফল হবে।” গাইবান্ধা-৫ আসনে উপনির্বাচনের তদন্ত প্রতিবেদন নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি তিনি।

আরপিও সংশোধনে আইন মন্ত্রণালয়ের সাড়া না পাওয়ার বিষয়টি তুলে ধরলে সিইসি বলেন, “এখনো আসেনি। এটা ঠিক। তবে আসবে না, এটা না। আমরা একটু অপেক্ষা করি। আমার বিশ্বাস সরকার সেটা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখবে। আমরা মনে করি, যৌক্তিকভাবেই কিছু প্রস্তাব পাঠিয়েছি। সেটি সরকার অগ্রাহ্য করবে, বিষয়টি এমন নয়। আমরা আরও কিছুদিন দেখি।”

নেপালের মতো নির্বাচনে আগে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আবার সংলাপে বসবেন কিনা- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, “এ বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেই নাই। আমি মনে করি, ডায়ালগ (সংলাপ) যত করা যায়, সেটা ভালো।”

রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে সংলাপ একেবারেই হচ্ছে না জানিয়ে তিনি বলেন, “এটা হওয়া খুব প্রয়োজন বলে আমরা মনে করি। রাজনীতিতে আমরা জড়িত হতে চাই না। কিন্তু রাজনীতিবিদদের কাছ থেকে আমরা আমাদের আবশ্যক সহায়তা প্রত্যাশা করি।ওনারাও একটু চিন্তা করবেন। রাজপথে শক্তি প্রদর্শনের মাধ্যমে একটা সুন্দর নির্বাচন হবে, এটা আমি বিশ্বাস করি না। সব দলই বলতে চাচ্ছে রাজপথে দেখা হবে। রাজপথে শক্তি পরীক্ষা হবে।

“প্রধান নির্বাচন কমিশনার হিসেবে আমি বলব, রাজপথে শক্তি প্রদর্শন করে শক্তি দেখিয়ে সত্যিকারের যে গণতান্ত্রিক নির্বাচন, সেটা হবে না। আপনাদের নির্বাচনে আসতে হবে। নির্বাচনের মাঠে নির্বাচনের যে নীতিবিধি আছে, সেই অনুযায়ী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে হবে।”


আরও খবর



জীবিত ফিরলেন অপহৃত ব্যবসায়ী, নারীসহ গ্রেফতার ৬

প্রকাশিত:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০২ ডিসেম্বর 2০২2 | ৪১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সাভারের আশুলিয়ায় ফার্নিচারের শো-রুম থেকে মেহেদী হাসান (৩৫) নামে এক ব্যবসায়ীকে অপহরণের ৫ দিন পর উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ সময় নারীসহ ৬ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

রোববার (২৭ নভেম্বর) দুপুরে গ্রেপ্তারদের আদালতে পাঠানো হয়েছে। তাদের ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেওয়ার কথা রয়েছে। এর আগে মঙ্গলবার (২২ নভেম্বর) রাত ৮টার দিকে আশুলিয়ার উত্তর গাজিরচটের বগাবাড়া এলাকার নাম্বার ওয়ান স্মার্ট ফার্নিচারের দোকান থেকে তাকে অপহরণ করা হয়।

অপহৃত মেহেদী হাসান মানিকগঞ্জ জেলার ঘিওর থানার পশ্চিম কলিয়া গ্রামের পান্নু মিয়ার ছেলে। তিনি দীর্ঘ দিন ধরে আশুলিয়ার শিমুলতলা এলাকায় ভাড়া থেকে ফার্নিচারের ব্যবসা করে আসছিলেন।

গ্রেপ্তাররা হলেন- যশোর জেলার মনিরামপুর থানার কেরতপুর গ্রামের মৃত আব্দুল সাত্তার গাজীর ছেলে কেরামুন হোসেন সম্রাট (৩৪), টাঙ্গাইল জেলার মির্জাপুর থানার ধাউরা নয়াপাড়ার মৃত হাজী খবীর উদ্দীনের ছেলে আ. আউয়াল (৫০), একই থানার আন্দুরার মৃত আ. রশিদের ছেলে মো. বাবুল মিয়া (৫০), পেকুরা গ্রামের নজমত আলীর ছেলে মো. রফিকুল ইসলাম (৫১) ও তার স্ত্রী খাদিজা (৩৮)। এছাড়া একই জেলার বাসাইল থানার দাপনাজোর গ্রামের আব্দুস সামাদের ছেলে মো. রাসেল মিয়াকে (৩৮) গ্রেপ্তার করা হয়।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, মেহেদী হাসান আশুলিয়ার ধামসোনা ইউনিয়নের উত্তর গাজীরচট এলাকার মনির মন্ডলের বাড়ির নিচতলা ভাড়া নিয়ে ফার্নিচারের ব্যবসা করে আসছিলেন। প্রতিদিনের মতো গত ২২ নভেম্বর সন্ধ্যা ৭টার দিকে তিনি তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে বসেন। পরে রাত ৮টার দিকে গ্রেপ্তাররা একটি সাদা রংয়ের মাইক্রোবাস  নিয়ে ফার্নিচারের শোরুমের সামনে দাঁড়ান। পরে ৪-৫ জন শোরুমের ভেতরে প্রবেশ করে মেহেদীকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যায়। এরপর তাকে খোঁজাখুঁজি করা হলে মেহেদী ফোন করে জানায়, তাকে অজ্ঞাতনামা কয়েকজন আটকে রেখেছে। এ ব্যাপারে থানায় অভিযোগ দিলে টাঙ্গাইল থেকে তাকে উদ্ধার করে আসামিদের গ্রেপ্তার করে আশুলিয়া থানা পুলিশ।

এ ব্যাপারে আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আল-মামুন কবির জানান, অভিযোগের ভিত্তিতে অপহৃতকে উদ্ধার করে ৬ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। আজ তাদের আদালতে পাঠানো হয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: আশুলিয়া অপহরণ

আরও খবর



যুবলীগের মহাসমাবেশ

মিছিল-স্লোগানে মুখর সোহরাওয়ার্দী উদ্যান

প্রকাশিত:শুক্রবার ১১ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২২ | ৫২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

যুবলীগের ৫০ বছর পূর্তি ও সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে শুক্রবার দুপুর আড়াইটায় সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে হবে সংগঠনটির মহাসমাবেশ। ইতিমধ্যে রাজধানীর বিভিন্ন স্থান থেকে খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে নেতাকর্মীরা সমাবেশ স্থলে আসতে শুরু করেছেন।

শাহবাগ, মৎস্য ভবন, রমনা, এলিফ্যান্ট রোড, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি, দোয়েল চত্বরসহ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের চার দিকেই দেখা গেছে নেতাকর্মীদের ভিড়। 

নির্দিষ্ট কিছু রঙের টিশার্ট আর ক্যাপ পরে সমাবেশে আসতে দেখা যাচ্ছে কর্মীদের। কারও কারও টিশার্টে যুবলীগ মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ শাখার আগামী দিনের পদপ্রত্যাশীদের ছবিও দেখা গেছে। 

সমাবেশে আগত নেতাকর্মীদের জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু স্লোগান দিতে শোনা যায়। বাদ্যযন্ত্র বাজিয়ে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের দিকে পিকআপে চড়ে মিছিল নিয়ে যাচ্ছেন কেউ কেউ।

সমাবেশ ঘিরে ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে নির্মাণ করা হয়েছে সুবিশাল প্যান্ডেল। রাজধানীর বিভিন্ন সড়কের পাশে জাতীয় পতাকার পাশাপাশি যুবলীগের পতাকা শোভা পাচ্ছে।

যুবলীগের মহাসমাবেশ ঘিরে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের আশেপাশের এলাকায় নিরাপত্তার জোরদার করা হয়েছে। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের প্রবেশমুখে নেতাকর্মীদের তল্লাশি করে ঢুকতে দিচ্ছেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

যুবলীগের এই যুব মহাসমাবেশে প্রধান অতিথি থাকবেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।


আরও খবর



শিশু আয়াতের লাশের খণ্ডাংশ উদ্ধার: পিবিআই

প্রকাশিত:বুধবার ৩০ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ | ২৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

চট্টগ্রামে ঘটনার ১৫ দিন পর নিখোঁজ শিশু আয়াতের লাশের দুটি খণ্ডিত অংশ উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

বুধবার (৩০ নভেম্বর) নগরীর ইপিজেড থানার আকমল আলী রোডের শেষ মাথায় নালার স্লুইচগেট এলাকা থেকে শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন দুই পায়ের অংশ পাওয়া যায় বলে সাংবাদিকদের জানান পিবিআই চট্টগ্রাম নগরীর পুলিশ সুপার নাঈমা সুলতানা। এ ব্যাপারে পরবর্তীতে বিস্তারিত জানানো হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

গত ১৫ নভেম্বর বিকালে বাসা থেকে বের হয়ে মক্তবে পড়তে যাওয়ার সময় নগরীর ইপিজেড এলাকার নয়ারহাট বিদ্যুৎ অফিসের সামনে থেকে নিখোঁজ হয় ৫ বছরের শিশু আলিনা ইসলাম আয়াত। এ ঘটনায় শিশুটির বাবা সোহেল রানা ইপিজেড থানায় নিখোঁজ ডায়েরি করেন। ঘটনা তদন্তে নেমে আয়াতদের বাসার সাবেক ভাড়াটিয়া আবিরের সম্পৃক্ততা পায় পুলিশ। সিসিটিভি ফুটেজ দেখে গত ২৪ নভেম্বর আবিরকে গ্রেফতার করা হয়।

পিবিআই জানায়, আয়াতকে অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায় করাই ছিল আবিরের লক্ষ্য। কিন্তু ঘটনার দিন নিজের মোবাইলের সিম কাজ না করায় সে আয়াতের পরিবারকে টাকার জন্য ফোন করতে পারছিল না। এক পর্যায়ে শিশুটি কান্নাকাটি শুরু করলে আবির তাকে শ্বাসরোধ করে মেরে ফেলে। সেই লাশ পরদিন সকালে ৬ টুকরা করে সাগর ও খালে ভাসিয়ে দেয় আবির।

আয়াত অপহরণ ও হত্যায় সম্পৃক্ততার অভিযোগে গ্রেফতার আবির আলীকে দ্বিতীয় দফায় রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী আয়াতের খণ্ডিত লাশের সন্ধানে গত কয়েকদিন নগরীর আউটার রিং রোডের বে-টার্মিনাল এলাকা এবং আকমল আলী খালের মোহনায় অভিযান চালায় পিবিআই। অভিযানে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত একটি বটি, আয়াতের পায়ের স্যান্ডেল, একটি এন্টিকাটার ও আবিরের হাতের লেখা একটি ডায়েরি উদ্ধার করার কথা জানায় পুলিশ।

গত ২৯ নভেম্বর আবিরের বাবা, মা ও ছোট বোনকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়েছে। তাদেরকে হেফাজতে নেয়ার একদিনের মধ্যেই আয়াতের লাশের খণ্ডাংশ পাওয়ার কথা জানালো পুলিশ।  


আরও খবর

টেকনাফে পর্যটকবাহী জাহাজে আগুন

রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২




বিএনপি আন্দোলন করতে জানে না: ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:শনিবার ১৯ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২২ | ৪৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপি বলে আমাদের নিরাপদে প্রস্থান নিতে, শেখ হাসিনাকে ক্ষমতা থেকে বিদায় নিতে। কোন মুখে তারা এমন কথা বলে? তারা তো আন্দোলন করতেই জানে না। তারা মুখে দেশনেত্রী বলে ফেনা তোলে অথচ নেত্রীর জন্য একটি মিছিলও করতে পারে না। আজ শনিবার বিকেলে গাজীপুর শহরের রাজবাড়ী মাঠে মহানগর আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, বিএনপি এখন দিনের আলোতে অমাবস্যা দেখে, পূর্ণিমার রাতেও অমাবস্যা দেখে। তারা দেশের উন্নয়ন দেখে না। তারা বলে শুধু জনতার ঢল, অথচ তাদের সিলেটে জনতার ঢেউ নেই, সেখানে আছে সুরমার ঢেউ।

তিনি বলেন, গাজীপুরের সম্মেলনে শুধু মহানগরের নেতাকর্মীরা উপস্থিত আছেন, জেলার নেতাকর্মীরা তো বাদই আছে, আর সিলেটের বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশ হচ্ছে পাঁচটি জেলা নিয়ে। এর চাইতে গাজীপুরে পাঁচগুণ বেশি জনসমাগম হয়েছে। মাঠে জায়গা না পেয়ে কয়েক কিলোমিটার পর্যন্ত মানুষ দাঁড়িয়ে এ অনুষ্ঠান শুনছেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির এখন বড় জ্বালা পদ্মা সেতু হয়ে গেছে। বঙ্গবন্ধু কর্ণফুলী টানেলও হয়ে গেল, মেট্রোরেলও হয়ে গেল।

তিনি বলেন, দেখতে দেখতে ১৩ বছর, মানুষ বাঁচে কয় বছর। এখন খেলা হবে দুর্নীতির বিরুদ্ধে, লুটপাটের বিরুদ্ধে, হাওয়া ভবনের বিরুদ্ধে। তাই খেলার জন্য সবাইকে প্রস্তুত হতে হবে।

সেতুমন্ত্রী বলেন, বিএনপির সমাবেশগুলোতে খানপিনা ভালোই হচ্ছে। কাঁথা, বালিশ, হাঁড়ি-পাতিল নিয়ে সাত দিন আগে থেকেই সমাবেশস্থলে চলে যাচ্ছে। তারা গরুর মাংস খাচ্ছে, মুরগির মাংস খাচ্ছে। এরপরেও বিএনপির আন্দোলন রঙিন খোয়াবেই থাকবে। তারা এখন বিদেশিদের কাছে নালিশ করে নালিশ পার্টি হিসেবে পরিচিত হয়েছে। বিএনপি জনগণ কর্তৃক প্রত্যাখ্যাত।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ডিসেম্বর বিজয়ের মাস, তারা যদি মাঠে নামে তাহলে রাজপথে খেলা হবে। তারা শেখ হাসিনাকেও সম্মান করতে জানে না। শেখ হাসিনাকে হাসিনা বলে ডাকে অথচ শেখ হাসিনা দয়া করে তাদের নেত্রীকে দণ্ডিত হওয়া সত্ত্বেও বাড়িতে থাকতে দিয়েছে।

গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজমত উল্লাহ খানের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আতাউল্লাহ মন্ডলের সঞ্চালনায় সম্মেলেনে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক, অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম এমপি, সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী ও গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আ ক ম মোজাম্মেল হক, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন সবুজ, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মেহের আফরোজ চুমকি, সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য শামসুন্নাহার ভূঁইয়া, রুমানা আলী টুসি, গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র আসাদুর রহমান কিরণ প্রমুখ বক্তব্য দেন।

এদিন সম্মেলনের দ্বিতীয় পর্বে নেতৃত্ব বাছাই করা হয়। গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে আজমত উল্লাহ খান ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আতাউল্লাহ মন্ডলের নাম ঘোষণা করেন ওবায়দুল কাদের। এর আগে ২০১৫ সালে গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের প্রথম কমিটি ঘোষণা করা হয়েছিল।

 


আরও খবর



দেশসেরা আরচার রোমান সানা নিষিদ্ধ

প্রকাশিত:সোমবার ১৪ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০১ ডিসেম্বর ২০২২ | ৪৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

শৃঙ্খলাভঙ্গের জন্য দেশসেরা আরচার রোমান সানাকে সাময়িকভাবে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তবে তিনি কী ধরনের শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেছেন, তা বিস্তারিত জানা যায়নি।

বাংলাদেশ আরচারি ফেডারেশন জানায়, টঙ্গীতে চলমান আরচারি ক্যাম্পে তার কিছু আচরণগত সমস্যা ধরা পড়েছে। যার যথাযোগ্য প্রমাণ সাপেক্ষেই গত ৪ নভেম্বর বাংলাদেশ আরচারি ফেডারেশনের নির্বাহী কমিটির সভায় তাকে সাময়িকভাবে আরচারি থেকে নিষিদ্ধ ঘোষণার সিদ্ধান্ত হয়।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ আরচারি ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক কাজী রাজিব উদ্দিন আহমেদ চপল বলেন, রোমান সানার কিছু আচরণগত সমস্যা আছে। শৃঙ্খলাভঙ্গের বিষয়ও আছে। ক্যাম্পে এ বিষয়গুলো আমাদের চোখে ধরা পড়েছে। তাই তাকে সাময়িকভাবে আরচারি থেকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, আমরা চাই না তার আচরণের নেতিবাচক প্রভাব জুনিয়রদের ওপর পড়ুক। আমরা একজন রোমানের কারণে দশজন রোমানকে নষ্ট করতে চাই না। তবে আমরা এটাও চাই, আরচার তার আচরণের পরিবর্তন করুন এবং শুদ্ধ হয়ে আবার আরচারিতে ফিরে আসুন।

প্রসঙ্গত, রোমান সানা দেশের এক নম্বর আরচার। তিনি ২০২০ টোকিও অলিম্পিকে সরাসরি খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছিলেন।


আরও খবর

রোনালদোকে টপকে গেলেন মেসি

রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২