Logo
শিরোনাম

বাংলাদেশ থেকে ২৬ লাখের বেশি ভিডিও সরিয়েছে টিকটক

প্রকাশিত:সোমবার ২৫ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২১ মে ২০২২ | ৮৪জন দেখেছেন

Image

নিরাপদ এবং বন্ধুত্বপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখতে বাংলাদেশ থেকে আপলোড হওয়া ২৬ লাখের বেশি ভিডিও সরিয়েছে বিশ্বের নেতৃস্থানীয় শর্ট-ফর্ম ভিডিও প্ল্যাটফর্ম টিকটক। ২০২১ সালের চতুর্থ প্রান্তিকের কমিউনিটি গাইডলাইনস এনফোর্সমেন্ট প্রতিবেদন প্রকাশ করে এ তথ্য জানিয়েছে টিকটক।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, কমিউনিটি গাইডলাইন অমান্য করায় ১ অক্টোবর ২০২১ থেকে ৩০ ডিসেম্বর ২০২১ সময় পর্যন্ত বাংলাদেশ থেকে ২৬ লাখ ৩৬ হাজার ৩৭২টি ভিডিও অপসারণ করেছে টিকটক, যা অপসারণ করা ভিডিওর হিসেবে বিশ্বের মধ্যে সপ্তম।

টিকটক কর্তৃপক্ষ জানায়, সর্বশেষ কমিউনিটি গাইডলাইনস এনফোর্সমেন্ট রিপোর্ট অনুযায়ী; গাইডলাইন না মানায় ৯৪.১% ভিডিও পোস্ট করার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে মুছে ফেলা হয়, কোনো ব্যবহারকারী রিপোর্ট দেয়ার আগেই ৯৫.২% ভিডিও সরানো সম্ভব হয় এবং ৯০.১% ভিডিও কোনো ভিউ পাওয়ার আগে সরিয়ে নেয়া হয়।

এবার যে বিষয়ে টিকটক এগিয়েছে তা হলো দেখার আগেই কনটেন্ট অপসারণ করার ক্ষমতা। এর মধ্যে ১৪.৭% হয়রানি এবং বুলিং এর জন্য, ১০.১% ঘৃণা ছড়ানোর জন্য, ১৬.২% সহিংস চরমপন্থার জন্য এবং ৭.৭% বিপজ্জনক কাজের জন্য।

সর্বশেষ কমিউনিটি গাইডলাইনস এনফোর্সমেন্ট রিপোর্টটিতে কমিউনিটির সুরক্ষাকে সমর্থন করার প্রতিশ্রুতি এবং প্ল্যাটফর্মে উত্সাহিত করার প্রতিশ্রুতির আপডেটগুলো যুক্ত করা হয়েছে।

প্রতিবেদনে প্ল্যাটফর্মটির গাইডলাইন লঙ্ঘন করা কনটেন্ট শনাক্ত, ফ্ল্যাগিং এবং অপসারণ করার সময় সিস্টেমের চলমান উন্নতি সম্পর্কেও তথ্য সরবরাহ করা হয়।

টিকটক জানায়, ২০২১ সালের চতুর্থ প্রান্তিকে বিশ্বব্যাপী ৮ কোটি ৫৭ লাখ ৯৪ হাজার ২২২টি ভিডিও তাদের প্ল্যাটফর্ম থেকে অপসারণ করা হয়েছে, যা টিকটকে এ সময়ের মধ্যে আপলোড করা ভিডিওর প্রায় ১ শতাংশ। প্রায় ৯৪ দশমিক ১ শতাংশ ভিডিও কমিউনিটি গাইডলাইন লঙ্ঘনের জন্য পোস্ট করার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে মুছে ফেলা হয়েছে, কোনো ব্যবহারকারী রিপোর্ট করার আগেই সরানো সম্ভব হয়েছে ৯৫ দশমিক ২ শতাংশ এবং ৯০ দশমিক ১ শতাংশ ভিডিও কোনো ভিউ পাওয়ার আগে সরিয়ে ফেলা হয়েছে।

রিপোর্টে বলা হয়, ওই সময়ের মধ্যে বাংলাদেশে থেকে সরানো কনটেন্টের মধ্যে হয়রানি এবং বুলিং কনটেন্ট সরানো হয়েছে ১৪.৭ শতাংশ, ঘৃণ্য আচরণের জন্য ১০.১ শতাংশ, সহিংস চরমপন্থার জন্য ১৬.২ শতাংশ এবং বিপজ্জনক কাজের জন্য ৭.৭ শতাংশ কনটেন্ট অপসারণ করা সম্ভব হয়েছে। গাইড লাইনস রক্ষা না হওয়ায় ভিউ হওয়ারও আগেই কন্টেন্ট সরানো হয়েছে বলে জানিয়েছে টিকটক।

টিকটকের এক বিবৃতিতে বলা হয়, শ্রদ্ধা, দয়া ও সহনশীলতার ভিত্তিতে টিকটকে আমাদের কমিউনিটি গড়ে তোলা উচিত। আমাদের নিয়মের সাথে সামঞ্জস্য রেখে মানুষকে ইতিবাচক ডিজিটাল সংযোগ তৈরিতে সহায়তার জন্য আমরা বদ্ধ পরিকর। আমরা চাই আমাদের ব্যবহারকারী নিজেদের মধ্যে সদাচার ও সম্প্রীতি বজায় রাখুক। মানুষকে নিরাপদ রাখার ক্ষেত্রে নিয়মের তো কোনো শেষ নেই। আমরা কমিউনিটির কল্যাণের প্রতি সদা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’


আরও খবর

ফের ফেসবুকে নিষিদ্ধ তসলিমা নাসরিন

বুধবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২২




আবারও প্যানিক অ্যাটাকে ভুগছেন ইরা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৬১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেতা আমির খানের মেয়ে ইরা আবারও প্যানিক অ্যাটাকে ভুগছেন। বছর কয়েক আগেও একই রকম মানসিক সমস্যায় ইরা। অনেক কষ্টে নিজেকে সেই অন্ধকার থেকে টেনে বের করেছিলেন নিজেকে। আবার একই জায়গায় ফিরে গেলেন ইরা। আতঙ্কে কাটছে সারা রাত। ঘুম আসছে না তার। দম আটকে আসছে বারবার।

ইনস্টাগ্রামে অকপটে নিজের মানসিক অবসাদের কথা ভাগ করে নিলেন সকলের সঙ্গে। কেবল তাই নয়, তার অনুরাগীদের প্রশ্ন করলেন, তাদেরও একই রকম প্যানিক অ্যাটাক হয় কি না। মানুষের সঙ্গে মানুষের যোগাযোগ স্থাপন করার চেষ্টা করলেন ২৫ বছরের ইরা। দীর্ঘ সময় ধরে স্নান করলে মানসিকভাবে সুস্থ বোধ করেন তিনি। তাই স্নান করে এসে ভেজা চুলে ঘরের জামা পরে একটি ছবি পোস্ট করলেন আমির এবং রীনা দত্তের কন্যা। সঙ্গে দীর্ঘ পোস্ট লিখলেন।

ইরার লেখায়, “প্যানিক এবং প্যানিক অ্যাটাক ভিন্ন। অ্যাংজাইটি এবং অ্যাংজাইটি অ্যাটাক ভিন্ন। আমার এখন অ্যাটাক হচ্ছে। এটা আগের বারের থেকে একেবারে আলাদা। আমার মনোরোগ বিশেষজ্ঞকে জানিয়েছি। আগে যেটা মাসে দু’একবার হত, তা এখন রোজ হচ্ছে। বিশেষ করে রাতে। তাই ঘুম হচ্ছে না। বুক ধড়ফড় করছে। দম বন্ধ হয়ে আসছে। মাঝে মাঝেই কেঁদে উঠছি। মনে হচ্ছে, খুব খারাপ কিছু একটা ঘটবে। ভীষণ আতঙ্ক হচ্ছে।”

ইরা তার অনুরাগীদের কাছে জানতে চাইলেন, আর কারও এ রকম কিছু হয় কি না। তাতে খানিক সাহায্য পেতে পারেন তিনি। ইরার আর্জি, “আমি ঘুমোতে চাই!”

যখন অ্যাটাক শুরু হয়, সেটি উত্তরোত্তর বাড়তে থাকে। নিজের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করেন ইরা। কী জন্য আতঙ্ক হচ্ছে, তার কারণ খোঁজার চেষ্টা করেন। মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে বরাবরই সচেতন ইরা। সচেতনতার উদ্দেশ্যে স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ‘অগৎসু ফাউন্ডেশন’ তৈরি করেছেন তিনি। ইনস্টাগ্রামে লাইভ ভিডিওর মাধ্যমে একাধিকবার অনুরাগীদের সাহায্য করেছেন তিনি। শুধু তাই নয়, নিজের মানসিক অবসাদ নিয়ে খোলামেলা কথা বলেছেন নেটমাধ্যমে। একইসঙ্গে ভক্তদের নিজেদের মনের যত্ন নেওয়ার পরামর্শও দিয়েছেন একাধিকবার।

নিউজ ট্যাগ: ইরা খান

আরও খবর



ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে রাশিয়ার হামলা, নিহত ২১

প্রকাশিত:বুধবার ০৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২১ মে ২০২২ | ৫১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ইউক্রেনের দোনেতস্ক অঞ্চলে রাশিয়ার হামলায় ২১ জন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ২৭ জন। দোনেতস্কের গভর্নরের বরাত দিয়ে মঙ্গলবার (৩ মে)  আলজাজিরার এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

দোনেতস্কের গভর্নর পাভলো কিরিলেনকো বলেন, অ্যাভদিভকা কোক প্ল্যান্টে রাশিয়ার হামলায় কমপক্ষে ১০ জন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আরও ১৫ জন আহত হয়েছেন । এছাড়া লাইমান শহরে রাশিয়ার হামলায় আরও পাঁচজন নিহত হয়েছেন। ভুগলেদার শহরে আরও চারজন নিহত হয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, মাসখানেক আগে ক্রামতোরস্ক শহরের একটি ট্রেন স্টেশনে রাশিয়ার হামলায় ৫৯ জন নিহত হয়। এটিই রুশ আক্রমণে একদিনে এটিই সর্বোচ্চ মৃত্যুর সংখ্যা।


আরও খবর



পুরুষদের ‘টেকো’ বলা যৌন হয়রানি

প্রকাশিত:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২১ মে ২০২২ | ৪০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

এখন থেকে কোনো পুরুষকে টেকো বলে ডাকলে একে যৌন হয়রানির পর্যায়ে ফেলা যাবে বলে রায় দিয়েছেন যুক্তরাজ্যের একটি আদালত। সম্প্রতি একটি মামলার শুনানির রায়ে ১৯৯৫ সালের একটি মামলার ভিত্তিতে ব্রিটেনের ওই বিশেষ ট্রাইব্যুনাল বলে, টাক নিয়ে রসিকতা করার মধ্যে লিঙ্গবৈষম্য রয়েছে।

টনি ফিন নামের এক ইলেকট্রিশিয়ানের আনা অভিযোগের ভিত্তিতে এ রায় দিয়েছেন যুক্তরাজ্যের কর্মচারী নিয়োগ ট্রাইব্যুনাল। জানা যায়, টনি দীর্ঘ ২৪ বছর পশ্চিম ইয়র্কশায়ারের একটি প্রতিষ্ঠানে কাজ করেছেন। ২০২১ সালের মে মাসে হুট করেই তাকে ছাঁটাই করে প্রতিষ্ঠানটি।

মূলত এই ছাঁটাইয়ের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করেন টনি। মামলার অন্যান্য অভিযোগের সঙ্গে তিনি দাবি করেন, কথা কাটাকাটির সময় তাকে বেশ কয়েকবার 'টেকো' বলে গাল দেন ওই কারখানার সুপারভাইজার জেমি কিং। সেইসঙ্গে তাকে হুমকিও দেন জেমি।

নিজের চেয়ে ৩০ বছরের ছোট সুপারভাইজারের এরকম মন্তব্যে নিজেকে 'অনিরাপদ' ও অপমানিত বোধ করছিলেন বলে জানান টনি। এর প্রতিকার পাওয়ার জন্যই তিনি আদালতের দ্বারস্থ হন।

এ মামলার রায় দেওয়ার সময় বিচারকেরা বলেন, জেমি কিং ওসব গাল দিয়েছিলেন টনি ফিনকে অপমানিত করতে এবং তার জন্য ভীতিকর, প্রতিকূল, অপমানজনক বা আপত্তিকর পরিবেশ তৈরি করতে।

বিচারকেরা আরও বলেন, টাক পড়ার সমস্যা যেহেতু নারীদের চেয়ে পুরুষদের মধ্যেই বেশি দেখা যায়, তাই কোনো পুরুষের টাক নিয়ে কটূক্তি বা রসিকতা করার মধ্যে লিঙ্গবৈষম্য। পুরুষদের টাক সমস্যা আর নারীদের স্তনের আকার নিয়ে কটূক্তি করা একই ধরনের অপরাধ বলে মত দেন বিচারকরা।

টনিকে টেকো বলে গাল দেওয়ায় জেমি কিংকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়। তবে তার সাজা ঘোষণা করা হয়নি। তার সাজা ঘোষণার বিষয়ে পরে সিদ্ধান্ত হবে বলে জানান বিচারকেরা।


আরও খবর



সম্রাটের জামিন বাতিল করলেন হাইকোর্ট

প্রকাশিত:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২১ মে ২০২২ | ২৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাটের জামিন বাতিল করেছেন হাইকোর্ট। আদালত আগামী সাত দিনের মধ্যে তাঁকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দিয়েছেন।

আজ বুধবার (১৮ মে) বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কাজী মো. ইজহারুল হক আকন্দের বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

দুদকের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন খুরশীদ আলম খান।

এর আগে সব মামলায় জামিন পাওয়ার পর গত ১১ মে মুক্তি পান ক্যাসিনো কাণ্ডে গ্রেপ্তার হওয়া সম্রাট। পরে সম্রাটের জামিন বাতিল চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

তখন দুর্নীতি দমন কমিশনের আইনজীবী খুরশীদ আলম বলেন, অপরাধের গুরুত্ব বিবেচনায় আমরা জামিন বাতিল চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেছি।

অবৈধ ক্যাসিনো ব্যবসায় জড়িত থাকার অভিযোগে ২০১৯ সালের ৭ অক্টোবর সম্রাটকে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব। পরে তাঁর বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগে মামলা হয়।


আরও খবর



মানুষের সেবা করাই আমাদের কাজ: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ২৭ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২১ মে ২০২২ | ৫৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, মানুষ কতটুকু সেবা পেল। মানুষের জীবনমান কতটা সহজ হলো। সেটাই হচ্ছে সব থেকে বড় কথা। সব জায়গায়, সব কিছুই যে লাভবান হবে সেটা না। কিন্তু লাভবান করা যায়। আমরা বিআরটিসিকেও যেমন লাভবান করেছি, আজকে রেল যেটাকে অলাভজনক বলে বন্ধ করতে বলা হয়েছিল এবং বন্ধ করে দিয়েছিল বিএনপি সরকার, সেটা চালু করে আমরা এটা প্রমাণ করেছি যে রেলকেও লাভবান করা যেতে পারে এবং করা যায়। রেলও আজকে লাভবান প্রতিষ্ঠানে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

বুধবার (২৭ এপ্রিল) গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে মুজিববর্ষ উপলক্ষে নির্মিত একটি ব্রডগেজ ও একটি মিটারগেজ কোচ সংবলিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ভ্রাম্যমান রেল জাদুঘর এবং সংগৃহীত ৩০টি মিটারগেজ ও ১৬টি ব্রডগেজ লোকোমোটিভ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের মানুষের সেবা করাটাই হচ্ছে আমাদের কাজ। যে কারণে এক সময় (বিএনপি আমল) বলা হয়েছিল বিআরটিসি বন্ধ করে দেওয়া হবে, কারণ এটা লাভজনক না। সরকারি প্রতিষ্ঠান কতটুকু লাভ করলো, কতটুকু লাভ করলো না সেটার চেয়ে বড় কথা মানুষের সেবা কতটুকু দিতে পারলো।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকার যোগাযোগ ও পরিবহন ব্যবস্থার উন্নয়নের মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিক কর্মকা-কে আরও সচল ও গতিশীল করতে সব ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে। তিনি বলেন, আমরা দেশের জনগণের সর্বত্র চলাচলের জন্য যোগাযোগ ব্যবস্থাকে সহজ করার মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিক কর্মকান্ডকে আরো ত্বরান্বিত করার পদক্ষেপ নিচ্ছি।

এখানে লোকবল আরও ভালোভাবে দিতে পারলে, লাইনগুলো আরও সম্প্রসারণ করতে পারলে এবং এই যে নতুন নতুন আমরা লাইন করছি এগুলো চালু হয়ে গেলে আমি মনে করি এটা আরও লাভবান হবে।

বিএনপির আমলে রেল বন্ধ করার সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, সব থেকে বেশি পণ্য পরিবহন করতে পারে রেল। আবার মানুষ যাতায়াতও করতে পারে রেলে অল্প খরচে। সেই রেলকেই সব থেকে দুঃখের বিষয় বিএনপি সরকার ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে রেল বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয়। মূলত আমাদের বিআরটিসি বন্ধ করার পরিকল্পনা, রেল বন্ধ করার পরিকল্পনা এসব পরামর্শ দিয়েছে বিশ্ব ব্যাংক।

গোল্ডেন হ্যান্ডসেকের মাধ্যমে ১০ হাজার কর্মচারীকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছিল। অনেক রেল লাইন বন্ধ করে দেওয়া হয়। রেল আসলে মুখ থুবড়ে পড়ে। আওয়ামী লীগ যখন সরকারে আসে তখন আমরা চেষ্টা করেছি এই রেলকে আবার নতুনভাবে গড়ে তোলা এবং মানুষের যোগাযোগ ব্যবস্থাকে সুগম করা।

দেশকে এগিয়ে নেওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করে টানা তিনবারের সরকার প্রধান বলেন, আমরা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই। জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীতে এটাই আমাদের লক্ষ্য। স্বাধীনতার জাতির পিতা আমাদের স্বল্পোন্নত দেশে উন্নীত করেছিলেন। আজ আমরা উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছি। কাজেই এই মর্যাদা ধরে রেখে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। মাঝে মধ্যে বিপত্তি আসে। এটা হচ্ছে দুঃখজনক।

বিগত বিএনপি-জামায়াতের আন্দোলনের সময় রেলে অগ্নিসংযোগের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, যখন আমরা নতুন নতুন কোচ কিনলাম, নতুন লোকোমোটিভ কিনলাম, ইঞ্জিন কিনলাম, সেই সময় বিএনপি শুরু করলো অগ্নিসন্ত্রাস। সব থেকে দুঃখজনক।

যে নতুন রেলগুলো, যাত্রী নিয়ে যাচ্ছে সেই রেলে আগুন দেওয়া, আগুন দিয়ে রেল লাইন, রেল কোচ, রেল ইঞ্জিন বিএনপি পুড়িয়ে দিয়েছিল। এটা নাকি তাদের আন্দোলন ছিল।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি জানি না মানুষকে পুড়িয়ে মারা বা চলন্ত বাস, গাড়ি অথবা রেলে আগুন দিয়ে, লঞ্চে আগুন দিয়ে এটা কোনো ধরনের আন্দোলন। এটা তো এক ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড। অবশ্য তারা তো ক্ষমতা দখলকারীদের হাতে ক্ষমতায় বসে প্রতিষ্ঠিত পার্টি। জনগণের মধ্যে থেকে তো উঠে আসেনি। কাজেই জনগণের কল্যাণে তাদের দৃষ্টি থাকে না। ক্ষমতার লোভটাই তাদের বড়। মানিলন্ডারিং, দুর্নীতি, জঙ্গিবাদ সৃষ্টি, বাংলা ভাই সৃষ্টি, এগুলোই তো তাদের কাজ ছিল। তারা তো দেশের মানুষের কল্যাণে কিছু করেনি।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে কমলাপুর প্রান্ত থেকে বক্তব্য রাখেন রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন।


আরও খবর