Logo
শিরোনাম

বাণিজ্যমেলায় ক্রেতাদের নজর কাড়ছে জয়িতা ফাউন্ডেশন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৪ মার্চ ২০২৩ | ২০৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

জমে উঠেছে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলা। মেলা উপলক্ষে বিভিন্ন স্টল ও প্যাভিলিয়নে শোভা পাচ্ছে নানা সামগ্রী। তবে মেলায় ব্যতিক্রমী প্যাভিলিয়ন করে ক্রেতাদের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে জয়িতা ফাউন্ডেশন। এই প্যাভিলিয়নটিতে শোভা পেয়েছে এক ঝাঁক নারী উদ্যোক্তার তৈরি পণ্য। এসব পণ্য কিনতে ভিড় করছেন ক্রেতারা। ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলায় জয়িতা ফাউন্ডেশনের প্যাভিলিয়নে গিয়ে এমনই চিত্র চোখে পড়ে।

জানা যায়, প্যাভিলিয়নটিতে ২৭ নারী উদ্যোক্তার ২৭টি স্টল রয়েছে। এসব স্টলে থ্রি-পিস ৭০০ থেকে সাড়ে ৩ হাজার টাকা, শাড়ি ৯০০ থেকে ৩ হাজার, বাচ্চাদের শার্ট-প্যান্ট ৩৫০ থেকে দেড় হাজার টাকা, মোয়া ১০০-১৪০ টাকা, আচার ৮০-৪০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

শিউলি আক্তার নামে এক দর্শনার্থী বলেন, বাণিজ্যমেলার অন্য সব স্টলের চেয়ে জয়িতা ফাউন্ডেশনের স্টল ভিন্ন। তারা সরকারি সহায়তা নিয়ে নারী উদ্যোক্তা তৈরি করে এবং তাদের স্বাবলম্বী করে তোলে। মেয়েদের তৈরি বিভিন্ন পণ্য এখানে বিক্রি হচ্ছে। আমি এখানে উদ্যোক্তা ফরম পূরণ করতে এসেছি। তাদের সুন্দর সৃজনশীলতাকে সাধুবাদ জানাই।

প্যাভিলিয়ন ইনচার্জ বিনয় বালা বলেন, আমাদের মূল উদ্দেশ্য নারী উদ্যোক্তা তৈরি করা ও তাদের স্বাবলম্বী করে তোলা। জয়িতা ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে উদ্যোক্তা লোন দেওয়া হয়, যা একজন নারী উদ্যোক্তাকে ব্যবসার পরিধি বিস্তার করতে সহায়তা করবে। প্রতি বছরই বাণিজ্যমেলায় আমাদের প্যাভিলিয়ন থাকে। গতবারের তুলনায় এবার ক্রেতাদের ভালো সাড়া পাচ্ছি।

এবারের মেলায় বাংলাদেশ ছাড়াও ভারত, হংকং, তুরস্ক, ইন্দোনেশিয়া, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, পাকিস্তান, থাইল্যান্ড, নেপালসহ ১২টি দেশের ব্যবসায়ীরা তাদের পণ্য নিয়ে হাজির হয়েছেন। মেলায় ১৭টি বিদেশি প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করেছে। দেশ-বিদেশের মোট ৩৩১টি স্টল, প্যাভিলিয়ন ও মিনি প্যাভিলিয়ন রয়েছে। গতবার এই সংখ্যা ছিল ২২৫টি। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত চলবে বাণিজ্যমেলা। তবে সাপ্তাহিক বন্ধের দিন রাত ১০টা পর্যন্ত খোলা থাকবে। এবারে মেলার প্রবেশ মূল্য প্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য ৪০ টাকা এবং অপ্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য ২০ টাকা। অনলাইনে ৫০ শতাংশ ডিসকাউন্টে মেলার টিকিট কেনা যাবে।

নিউজ ট্যাগ: জয়িতা ফাউন্ডেশন

আরও খবর



ইরানে শাসনব্যবস্থা পরিবর্তনের আহ্বান যুক্তরাষ্ট্রের

প্রকাশিত:শুক্রবার ১০ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৩ মার্চ 20২৩ | ৭৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভ বা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আইনসভার নিম্নকক্ষে এ বিষয় একটি জনমতের আয়োজন করা হয়। সেখানে হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভের ৪৩৫ সদস্যের মধ্যে ২২২ সদস্য এ রায়ের পক্ষে সমর্থন দিয়েছেন। সেখানে ধর্মনিরপেক্ষ ইরানি প্রজাতন্ত্র প্রতিষ্ঠা এবং ইরান সরকারের মানবাধিকার লঙ্ঘনের নিন্দা করে।

বৃহস্পতিবার দেওয়া বিবৃতিতে বেশ কয়েকজন রিপাবলিকান এবং ডেমোক্র্যাট সেই সময় ইরানের জনগণের প্রতি তাদের সমর্থন ও ধর্মতান্ত্রিক ইরানি শাসনব্যবস্থাকে প্রতিস্থাপন করার জন্য একটি গণতান্ত্রিক সরকারের প্রতি তাদের আকাঙ্ক্ষার কথা জানিয়েছেন। একটি গণতান্ত্রিক, ধর্মনিরপেক্ষ ও অপারমাণবিক প্রজাতন্ত্রের জন্য ইরানের জনগণের আকাঙ্ক্ষার প্রতি সমর্থন প্রকাশ করা।

বিবৃতিতে বলা হয়, মাহসা আমিনির পুলিশ হেফাজতে মৃত্যুর পর গত বছরের সেপ্টেম্বরে শুরু হওয়া চলমান বিক্ষোভ চলাকালীন সরকার কর্তৃক মানবাধিকার লঙ্ঘনের নিন্দা করে। তেহরানের নৈতিকতা পুলিশ তাকে গ্রেফতার করার পরে ২২ বছর বয়সি ইরানি তরুণীর মাথায় গুরুতর আঘাত লেগেছিল যেটা ছিল অমানবিক।

আরও বলা হয়েছে, ইরানের জনগণ দমন-পীড়নের বিরুদ্ধে স্বাধীনতার জন্য, তাদের অধিকার রক্ষার জন্য আন্দোলন করছে। ইরানি সরকার কর্তৃক বিক্ষোভকারীদের নৃশংস হত্যার নিন্দা জানান হয়েছে। ইরানের জনগণের অধিকার, গণতান্ত্রিক, ধর্মনিরপেক্ষতা ও অপারমাণবিক প্রজাতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য তাদের সংগ্রামকে স্বীকৃতি দেওয়ার আহ্বান জানানো হয়।

রিপাবলিকান প্রতিনিধি পিট সেশনস এবং র‌্যান্ডি ওয়েবার উভয়ই টেক্সাস থেকে ইরানি জনগণের প্রতি তাদের সমর্থন পুনর্ব্যক্ত করেছেন। ওয়েবার বলেছেন, ইরান পরমাণু অস্ত্র থাকতে পারে না। এ বিষয় তাদের বিরুদ্ধে সামরিক শক্তি ব্যবহারের জন্য তার সমর্থন প্রকাশ করেছেন।


আরও খবর

ট্রাম্প বললেন, ‘আই এম ব্যাক’

শনিবার ১৮ মার্চ ২০২৩




বার্ন ইনস্টিটিউটে ভর্তি ১০ জ‌নের কেউই শঙ্কামুক্ত নন

প্রকাশিত:বুধবার ০৮ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৩ মার্চ 20২৩ | ১৪৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রাজধানীর গুলিস্তানের নর্থ সাউথ রোডের সিদ্দিক বাজারে ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনায় শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ইনস্টিটিউটে চি‌কিৎসাধীন ১০ জ‌নের কেউই শঙ্কামুক্ত নন ব‌লে জা‌নি‌য়ে‌ছেন ইনস্টিটিউটের সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন।

বুধবার (৮ মার্চ) বার্ন ইনস্টিটিউটে সাংবা‌দিকদের এসব তথ্য জানান তিনি।

ডা. সামন্ত লাল সেন ব‌লেন, গুলিস্তানে বিস্ফোরণের ঘটনায় আমা‌দের এখানে ১১ জন রোগী ছিলেন, তার ম‌ধ্যে একজন‌কে ঢাকা মে‌ডি‌কেলে স্থানান্তর করা হ‌য়ে‌ছে। কারণ তার বার্নট নাই। যে ১০ জন আছেন তার ম‌ধ্যে তিনজন আই‌সিইউ‌তে, দুইজন লাইফ সা‌পো‌র্টে, বাকিরা এস‌ডিইউ‌তে।

চি‌কিৎসাধীন ১০ জ‌নের ম‌ধ্যে কেউই শঙ্কামুক্ত নয় জা‌নি‌য়ে তিনি ব‌লেন, দগ্ধদের কারও ৮০ শতাংশ, কারও ৯০ শতাংশ; কারও ৫০ শতাংশ পুড়ে গেছে। সবারই শ্বাসনালী পু‌ড়ে গে‌ছে। যেহেতু সবারই শ্বাসনালী‌ পুড়ে গেছে তাই আমরা শঙ্কামুক্ত বল‌তে পারব না।

বিস্ফোরণের ঘটনায় এখন পর্যন্ত নিহত হয়েছেন ১৭ জন। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বর্তমানে ১৯ জন চিকিৎসাধীন বলে জানিয়েছেন হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক মো. বাচ্চু মিয়া।


আরও খবর

বায়ুদূষণে আজ সপ্তম ঢাকা

শনিবার ১৮ মার্চ ২০২৩




সেপ্টেম্বরের মধ্যে ৫ সিটিতে নির্বাচন শেষ করতে চায় ইসি

প্রকাশিত:সোমবার ০৬ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৩ মার্চ 20২৩ | ৪৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আগামী সেপ্টেম্বরের মধ্যে দেশের ৫টি সিটি কর্পোরেশনে নির্বাচন সম্পন্ন করা হবে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর। সিটি কর্পোরেশনগুলো হলো- গাজীপুর, রাজশাহী, সিলেট, বরিশাল ও খুলনা।

ইসি কমিশনার আলমগীর বলেন, গাজীপুর, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন নিয়ে কমিশন আলোচনা করেছে। মেয়াদ শেষ হওয়ার ৬ মাসের মধ্যে এসব সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন করতে হয়। ইচ্ছা করলে ৬ মাসে শেষ করা যায়। মাঝামাঝিও করা যায়, আগেও করা যায়। যেহেতু জাতীয় নির্বাচন আছে এ বছরের ডিসেম্বরের শেষে অথবা জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে সেজন্য আমাদের চেষ্টা থাকবে এ সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন আগে শেষ করা।’ রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনের নিজ দফতরে রোববার গণমাধ্যম কর্মীদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন তিনি।

৫ সিটি করপোরেশনের ভোট একই দিনে হবে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে নির্বাচন কমিশনার আলমগীর বলেন, এক দিনে হবে না। ৬টি সিটি কর্পোরেশনে নির্বাচন করতে হবে। এগুলোর মধ্যে ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনের অনেক দেরি। বাকি ৫ সিটির নির্বাচন দুই দিনে বা তিন দিনে হতে পারে। যেগুলো আগে নির্বাচন উপযোগী হবে, সেগুলোতে আগে ভোট করা হবে।

তিনি বলেন, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের তফসিল নিয়ে এখন পর্যন্ত কমিশনে কোনো আলোচনা হয়নি, তবে আগামী জুনের মধ্যে গাজীপুর সিটির নির্বাচন করতে কমিশন আগ্রহী বলেও জানান তিনি।

সিটি নির্বাচনে সিসি ক্যামেরা থাকবে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এগুলো নির্ভর করবে বাজেটের ওপরে। আমরা বাজেট চাইবো, টাকা পেলে সিসি ক্যামেরা ব্যবহার করবো। তবে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার করার আগ্রহ রয়েছে। তবে ইভিএমগুলোর ব্যাটারির মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে, ব্যাটারি রিপ্লেসমেন্ট করতে হবে। সার্ভিসিং করাতে হবে। সেজন্য টাকা লাগবে। তবে কমিশনের ইচ্ছা ইভিএমে করা।

সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন আইন অনুযায়ী কোনো সিটির মেয়াদ ধরা হয় প্রথম সভা থেকে পরবর্তী ৫ বছর। কোনো সিটির মেয়াদ শেষ হওয়ার আগের ১৮০ দিনের মধ্যে ভোটগ্রহণ করতে হয়।

গাজীপুর সিটির পরবর্তী ভোটের সময় গণনা শুরু হবে ১১ মার্চ। ১০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ভোট করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। খুলনা ও রাজশাহী সিটির সময় গণনা শুরু হবে ১৩ এপ্রিল, ১০ অক্টোবরের মধ্যে ভোট করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

এছাড়া বরিশাল সিটি নির্বাচনের সময় গণনা শুরু হবে ১৪ মে, ভোট করতে হবে ১৩ নভেম্বরের মধ্যে। সিলেট সিটির নির্বাচন করতে হবে ৬ মে থেকে ৬ নভেম্বরের মধ্যে। আর ময়মনসিংহ সিটি নির্বাচনের সময় গণনা শুরু হবে ২০ ডিসেম্বর থেকে, আগামী বছরের ১৯ জুনের মধ্যে নির্বাচন করতে হবে।


আরও খবর

বায়ুদূষণে আজ সপ্তম ঢাকা

শনিবার ১৮ মার্চ ২০২৩




র‍্যাগিং-যৌন হয়রানির বিরুদ্ধে পদযাত্রা করবে ছাত্রলীগ

প্রকাশিত:রবিবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ মার্চ ২০২৩ | ৯২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দেশের বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে র‍্যাগিংয়ের অভিযোগ উঠেছে সম্প্রতি। এর অধিকাংশে জড়িত হিসেবে ছাত্রলীগের নাম উঠে এসেছে। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের সহসভাপতির বিরুদ্ধে এক ছাত্রীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন ও ভিডিও ধারণের অভিযোগ, শাবিপ্রবিতে র‍্যাগিংয়ের অভিযোগে ছাত্রলীগের পাঁচ কর্মীকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার ও রাবিতে এক ছাত্রকে ছাত্রলীগ নেতাদের দ্বারা নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে সম্প্রতি।

এমন পরিস্থিতিতে র‍্যাগিং ও যৌন নিপীড়নের বিরুদ্ধে কর্মসূচি ঘোষণা করেছে ছাত্রলীগ। এর নাম দেওয়া হয়েছে অ্যাওয়ারনেস ক্যাম্পেইন অ্যাগেনস্ট র‍্যাগিং অ্যান্ড সেক্সুয়াল হ্যারাসমেন্ট ইন ক্যাম্পাস

আজ শনিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি সাদ্দাম হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছেন।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ক্যাম্পাসে নির্যাতন, হয়রানি ও যৌন নিপীড়নের বিরুদ্ধে আগামীকাল সকাল ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিন থেকে পদযাত্রা বের শুরু হয়ে রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে গিয়ে শেষ হবে। পদযাত্রায় নির্যাতন, হয়রানি ও যৌন নিপীড়নের বিরুদ্ধে সমাবেশ ও সচেতনতামূলক প্রচারপত্র বিতরণ করবেন তারা।

কর্মসূচিতে ছাত্রলীগের সব নেতাকর্মীকে উপস্থিত হওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। একই সঙ্গে ছাত্রলীগের সব ইউনিটকে নিজ নিজ ক্যাম্পাসে এই কর্মসূচি আয়োজনের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

২৭ ও ২৮ ফেব্রুয়ারি সব বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিক্যাল কলেজ এবং ১ থেকে ৩ মার্চের মধ্যে সব কলেজ, মাদরাসা, পলিটেকনিক্যাল ইনস্টিটিউট, টেকনিক্যাল কলেজসহ অন্যান্য সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অ্যাওয়ারনেস ক্যাম্পেইন অ্যাগেনস্ট র‍্যাগিং অ্যান্ড সেক্সুয়াল হ্যারাসমেন্ট ইন ক্যাম্পাস কর্মসূচি আয়োজনেরও নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।


আরও খবর



ইরান-সৌদির চুক্তিকে স্বাগত জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র

প্রকাশিত:শনিবার ১১ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৩ মার্চ 20২৩ | ৬৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

প্রতিদ্বন্দ্বী দেশ ইরান ও সৌদি আরবের মধ্যে স্বাক্ষরিত চুক্তিকে স্বাগত জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে তেহরান তাদের প্রতিশ্রুতি মেনে চলবে কি-না সে ব্যাপারে ওয়াশিংটন সংশয় প্রকাশ করেছে। খবর এএফপির। 

শুক্রবার এক বিবৃতিতে একথা জানায় যুক্তরাষ্ট্র। সম্পর্কের বরফ গলাতে চীনের মধ্যস্থতায় সম্প্রতি দুই দেশের মধ্যে এ চুক্তি হয়। যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের মুখপাত্র জন কিরবি বলেন, এ কূটনৈতিক চুক্তিকে আমরা স্বাগত জানাই। উদাহরণ হিসেবে আমরা দেখতে চাই এ চুক্তি ইয়েমেনকে শান্তির দিকে নিয়ে যাক। সেখানে এ দুটি আঞ্চলিক শক্তি বিরোধী পক্ষকে সমর্থন করে।

কিরবি বলেন, আমরা দেখব, ইরানিরা তাদের চুক্তির পক্ষকে সম্মান করছে কিনা। আর তা সত্যিই দেখার বাকি রয়েছে। এটি এমন কোন শাসনব্যবস্থা নয় যে সাধারণত তার কথাকে সম্মান করে।

তিনি বলেন, আমরা ইয়েমেনে এই যুদ্ধের পরিসমাপ্তি দেখতে চাই এবং এই চুক্তি আমাদেরকে সেই ফলাফলের দিকে নিয়ে যেতে সাহায্য করতে পারে।

মার্কিন মিত্র সৌদি আরব এবং চিরশত্রু ইরানকে একত্রিত করার ক্ষেত্রে চীনের অস্বাভাবিক ভূমিকা রাখার ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করা হলে কিরবি বলেন, বিদেশে এবং অভ্যন্তরীণ অসন্তোষের কারণে চাপের মুখে ইরানকে আলোচনার টেবিলে আনা হয়।

তিনি বলেন, আমরা অবশ্যই চীনকে পর্যবেক্ষণ অব্যাহত রেখেছি, কারণ তারা নিজেদের স্বার্থে বিশ্বব্যাপী প্রভাব খাটানোর এবং পা রাখার চেষ্টা করে থাকে।


আরও খবর

ট্রাম্প বললেন, ‘আই এম ব্যাক’

শনিবার ১৮ মার্চ ২০২৩