Logo
শিরোনাম

বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পেলেন ৫৫ বছর বয়সী বেলায়েত

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২ | ৭৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পঞ্চান্ন বছর বয়সেও এইচএসসি পাসের পর বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা দিয়েছিলেন বেলায়েত শেখ। তবে কোনো পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে তার ভর্তির সুযোগ হয়নি। তবে এবার রাজশাহীর বেসরকারি বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় সাফল্য পেয়েছেন তিনি।

আজ সোমবার সকালে এ শিক্ষালয়ের জার্নালিজম, কমিউনিকেশন অ্যান্ড মিডিয়া স্টাডিজ ডিপার্টমেন্টের ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেন বেলায়েত শেখ। এমসিকিউ পদ্ধতিতে হওয়া ভর্তি পরীক্ষার ফল আজ দুপুরেই প্রকাশ করা হয়। ১০০ নম্বরের সে পরীক্ষায়৬৮ নম্বর পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছেন বেলায়েত।

বেলায়েত শেখ বলেন, ভর্তি পরীক্ষায় পাস করেছি, ভর্তি হওয়ার ইচ্ছা আছে। তবে এত দূর পড়তে হলে মায়ের অনুমতি নেওয়া লাগবে। মা অনুমতি দিলে এবং কর্তৃপক্ষ ছাড় দিলে এখানে ভর্তি হব। শুনেছি অনার্স শেষ করতে প্রায় ২ লাখ টাকা লাগবে। এত টাকা তো আমার পক্ষে দেওয়া সম্ভব হবে না। কারণ আমার সংসার রয়েছে। কর্তৃপক্ষ যদি ছাড় দেয়, তাহলে আমার পড়ার স্বপ্ন পূরণ হবে।

গাজীপুরের বাসিন্দা বেলায়েত শেখ পেশায় সাংবাদিক। তিনি এর আগে ঢাকা, জাহাঙ্গীর নগর, চট্টগ্রাম ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেন।

সাংবাদিকতা বিভাগেই পড়বেন জানিয়ে বেলায়েত বলেন, ঢাকায় দুটি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় বিনা খরচে পড়ানোর প্রস্তাব করেছিল। কিন্তু সেখানে সাংবাদিকতা সাবজেক্ট নাই, অন্য সাবজেক্টে পড়তে বলা হয়েছে। আমি সাংবাদিকতা নিয়েই পড়তে চাই।

টিউশন ফি-তে ছাড় দেওয়া হবে কিনা, এ বিষয়ে বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের জার্নালিজম, কমিউনিকেশন অ্যান্ড মিডিয়া স্টাডিজ বিভাগের কোঅর্ডিনেটর মো. শাতিল সিরাজ বলেন, ফি ছাড় দেওয়ার বিষয়ে উনি আমাকে জানিয়েছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে অথরিটি বরাবর একটা আবেদন করবেন। অথরিটি কনসিডার করলে নিশ্চিয় তিনি সুযোগ-সুবিধা পাবেন।


আরও খবর



ইন্টারনেট ছাড়াই জিমেইল ব্যবহার

প্রকাশিত:সোমবার ১২ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২ | ৬৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সাধারণত জিমেইল ব্যবহার করে নতুন ইমেইল পেতে, ইনবক্সে থাকা মেইল চেক করতে বা মেসেজ এর রিপ্লাই করতে ইন্টারনেট এর প্রয়োজন হয়। তবে হঠাৎ করেই কম্পিউটার বা স্মার্টফোনে ইন্টারনেট ব্যবহারে সমস্যা হয় অনেকের।

কিন্তু জিমেইল এর এই স্পেশাল ফিচার এর বদৌলতে ইন্টারনেট এর সাহায্য ছাড়াই জিমেইল এর কিছু ফিচার ব্যবহার করা যাবে। জিমেইল অফলাইন মোড দ্বারা ইনবক্স চেক করা যাবে, আনরিড ইমেইল ওপেন করা যাবে ও নতুন ইমেইলও লেখা যাবে।

সেক্ষেত্রে নতুন ই-মেইল সঙ্গে সঙ্গে প্রাপকের ঠিকানায় যাবে না। কম্পিউটার বা স্মার্টফোনে ইন্টারনেট-সংযোগ চালু হলেই অফলাইনে পাঠানো ই-মেইল নির্দিষ্ট ঠিকানায় চলে যাবে।

অফলাইনে জিমেইল ব্যবহার করতে হলে প্রথমে https://mail. google. com/mail/u/0/#settings/offline ঠিকানায় প্রবেশ করতে হবে। এবার Enable offline mail অপশনের পাশে টিক চিহ্ন দিতে হবে। এখানে After logging out of my Google accountএর নিচে থাকা যেকোনো একটি অপশন নির্বাচন করতে হবে। তাহলেই ইন্টারনেট ছাড়াই জিমেইল ব্যবহার করতে পারবেন।

জিমেইল অফলাইন ফিচার বন্ধ করতে চাইলে https://mail. google. com/mail/u/0/#settings/offline ঠিকানায় থেকে Remove offline data from my computer নির্বাচন করেন, তাহলে জিমেইল থেকে লগআউট হলেই অফলাইনে করা কাজের তথ্য মুছে যাবে।

 

নিউজ ট্যাগ: জিমেইল ব্যবহার

আরও খবর



মালয়েশিয়াকে ৪১ রানে গুটিয়ে দাপুটে জয় বাংলাদেশের

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ | জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

মূল স্টেডিয়ামে ম্যাচ ফিরতেই দর্শক বেড়েছে গ্যালারিতে। হাজারখানেক দর্শক বাংলাদেশ-মালয়েশিয়ার ম্যাচ উপভোগ করেছেন আনন্দচিত্তে। পাকিস্তানের বিপক্ষে হারের পর মানসিকভাবে বড় ধাক্কা খাওয়া বাংলাদেশ এই ম্যাচে কেমন করে, সেটিই ছিল দেখার। প্রত্যাশিতভাবেই ব্যাটিং-বোলিং-ফিল্ডিংয়ে দুর্দান্ত ক্রিকেট খেলে আইসিসির সহযোগী সদস্য দলটিকে নিয়ে ছেলেখেলায় মেতে উঠেছিল স্বাগতিকরা। অভিষিক্ত ফারিহা ইসলাম তৃষ্ণার হ্যাটট্রিকে মালয়েশিয়া ৪১ রানে অলআউট হয়। ফলে ৮৮ রানের বড় জয় পেয়ে নিগার সুলতানারা।

আজ (বৃহস্পতিবার) সিলেট আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে নারী এশিয়া কাপে মুখোমুখি হয়েছিল বাংলাদেশ-মালয়েশিয়া। ১৩০ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে মালয়েশিয়া শুরুতেই ধাক্কা খায়। দেখেশুনে ৫ ওভারে বিনা উইকেটে ১৩ রান তোলে তারা। ষষ্ঠ ওভারে অভিষিক্ত ফারিহার পেস বোলিংয়ে লণ্ডভণ্ড হয়ে যায়ে দলটির টপ অর্ডার। ফারিহার হ্যাটট্রিকে ৫০ রানও ছুঁতে পারেনি মালয়েশিয়া। দলটির কোনও ব্যাটারই দুই অঙ্কের ঘরে পৌঁছাতে পারেননি। নুর আরিয়ান নাট্যা ও এলসা হান্টারের ব্যাট থেকে আসে ৯ রান করে। সব মিলিয়ে ১৮.৫ ওভারে ৪১ রানে অলআউট হয় দলটি।

ফারিহা ১২ রানে ৩ উইকেট নিয়েছেন। এছাড়া লেগ স্পিনার ফাহিমা খাতুন ও রুমানা আহমেদ ২টি করে উইকেট নেন। বাঁহাতি স্পিনার সানজিদা আক্তার মেঘলাও নেন ২ উইকেট।

এর আগে টস জিতে ব্যটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন বাংলাদেশ অধিনায়ক নিগার। কিন্তু প্রথম বলেই ভয় ধরিয়ে দেন মালয়েশিয়ান পেসার সাশা আজমি। তার প্রথম বলটি টার্ন করে কিছুটা ভেতরে ঢোকে। শামীমা কিছুটা বিলম্বে ব্যাট চালিয়ে বিপদে পড়েন। আর তাতেই ব্যাটের ফাঁক গলিয়ে বল গিয়ে আঘাত হানে পায়ে। আবেদন হতেই আম্পায়ার আউটের সংকেত দেন। শামীমার বিদায়ের পর ফারজানা হক পিংকি নেমেও বেশিদূর যেতে পারেননি। ২৪ বলে ১০ রান করেন এই ব্যাটার।

এরপর টুর্নামেন্টে প্রথম সুযোগ পাওয়া মোর্শেদা খাতুনকে সঙ্গে নিয়ে অধিনায়ক নিগার দারুণ এক ইনিংস খেলেন। তৃতীয় উইকেটে দুজন মিলে গড়েন ৮৭ রানের জুটি। নিগার শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক খেলতে থাকেন। দারুণ এক চারে ৩২ বলে হাফসেঞ্চুরিতে পৌঁছান বাংলাদেশের অধিনায়ক। ১৯তম ওভারের পঞ্চম বলে লং শটস খেলতে গিয়ে বাউন্ডারি লাইনে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন তিনি। ৩৪ বলে ৬ চার ও ১ ছক্কায় বাংলাদেশ অধিনায়ক খেলেন ৫৩ রানের ইনিংস। এটা নিগারের তৃতীয় হাফসেঞ্চুরি।

তার আগে অবশ্য ক্যারিয়ারের তৃতীয় হাফসেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন মোর্শেদা। শেষ বলে দ্রুত ২ রান নিতে গিয়ে রান আউটের শিকার হন মোর্শেদা। ৪৭ বলে ৫০ রান ছোঁয়া বাঁহাতি এই ব্যাটার ৫৪ বলে ৫৬ রান করে আউট হয়েছেন, মেরেছেন ৪ বাউন্ডারি।

এক ওভারে উইকেটে জমে যাওয়া দুই ব্যাটারের আউটের পর শেষ ওভারে রান তুলতে পারেনি স্বাগতিকরা। ৬ রান তুলতে তারা হারায় ১ উইকেট। ফাহিমা খাতুন (৫) রান আউটের শিকার হন। রিতু মনি ২ ও রুমানা আহমেদ ১ রানে অপরাজিত ছিলেন। সব মিলিয়ে নির্ধারিত ২০ ওভারে বাংলাদেশ ৫ উইকেট হারিয়ে সংগ্রহ করতে পারে ১২৯ রান। মাহিরাহ ইসমাইল, উইনিফ্রেড ও সাশা আজমি একটি করে উইকেট নিয়েছেন।

নিউজ ট্যাগ: নারী এশিয়া কাপ

আরও খবর

হার দিয়ে সিরিজ শুরু বাংলাদেশের

শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২

১৬৮ রানের লক্ষ্য পেল বাংলাদেশ

শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২




ইবি উপাচার্যের পিএসকে হেনস্তা, অফিস ভাঙচুর

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ০৫ অক্টোবর ২০২২ | ৫০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) উপাচর্যের একান্ত সচিব (পিএস) আইয়ুব আলীকে হেনস্তাসহ অফিস ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) দুপুর আড়াইটার দিকে দৈনিক মজুরির ভিত্তিতে কর্মরত অস্থায়ী কর্মচারী কর্তৃক এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও ভুক্তভোগী সূত্রে জানা যায়, দুপুরে ১০-২০ জন অস্থায়ী কর্মচারী উপাচার্যের একান্ত সচিব (পিএস) আইয়ুব আলীর অফিসে গিয়ে ফাইলের বিষয়ে জানতে চান। এ সময় ফাইলের বিষয়ে কিছু জানেন না বলে জানান পিএস। এরপর অস্থায়ী কর্মচারীরা তার ওপর চড়াও হয়ে অফিস ভাঙচুর করাসহ মারধরের চেষ্টা করেন। দুইজন কর্মকর্তার সহযোগিতায় রেজিস্ট্রার অফিসে গিয়ে আশ্রয় নেন পিএস আইয়ুব আলী। পরে প্রশাসন ভবনের নিচে এসে বিক্ষোভ করেন তারা অস্থায়ী কর্মচারীরা।

সরেজমিনে দেখা যায়, পিএস এর অফিসের চেয়ার ও টেবিলের কাঁচ ভাঙা এবং টেবিলে রাখা বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ফাইল মেঝেতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। উপাচার্যের কার্যালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, অস্থায়ী কর্মচারীদের কয়েকজন এসে উপাচার্যের পিএস এর রুমে প্রবেশ করেন। প্রবেশের একটু পরেই হট্টগোল এবং ভাঙচুরের শব্দ পাওয়া যায়। তবে তারা ২০ জনের মতো কক্ষের সামনে অবস্থান করায় আমরা ঢুকতে পারিনি। পরে গিয়ে দেখি তারা অফিস ভাঙচুর করেছে।

ভুক্তভোগী পিএস আইয়ুব আলী বলেন, আমি আর এক কর্মকর্তা অফিসে ছিলাম। এ সময় অস্থায়ী চাকরিজীবি পরিষদের সভাপতি টিটো মিজান ও সাধারণ সম্পাদক রাসেল জোয়ার্দারসহ কয়েকজন অস্থায়ী কর্মচারী আমার অফিসে আসেন। ফাইলের বিষয়ে জিজ্ঞেস করলে আমি জানি না বলি। এ সময় ক্ষুদ্ধ হয়ে তারা এ ঘটনা ঘটায়। বিষয়টি ভিসি স্যার ও কর্মকর্তা সমিতিকে জানিয়েছি। এ ঘটনায় নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। আমি এর সুষ্ঠু বিচার চাই।

অস্থায়ী কর্মচারী পরিষদের সভাপতি টিটো মিজান বলেন, আমরা নিয়মিত কাজ করলেও আমাদের ফাইল আটকে রাখা হয়েছে। এ বিষয়ে জানতে উপাচার্যের পিএস আইয়ুব আলীর অফিসে গিয়েছিলাম। কে বা কারা পিএস এর অফিস ভাঙচুর করেছে তা আমরা জানি না। আমরা আমাদের আন্দোলন শান্তিপূর্ণভাবে পালন করে আসছি।

এ ঘটনায় তাৎক্ষণিক নিন্দা প্রকাশ করে বিবৃতি প্রদান করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি এটিএম এমদাদুল আলম ও সাধারণ সম্পাদক ওলিদুর রহমান মুকুট। তারা এ ঘটনার বিচার দাবি করেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আবদুস সালাম বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কার্যালয়ে হামলা করেছে একটি অপশক্তি। এই অপশক্তিকে আমাদের সকলে মিলে রুখতে হবে। তারা শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট করার চেষ্টা করছে। আমরা বিষয়টিকে কোনোভাবেই ছাড় দেব না।


আরও খবর



গাজীপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত ২

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ অক্টোবর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ | ২১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

গাজীপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দুই জন নিহত হয়েছেন, আহত হয়েছেন আরও একজন। রবিবার সন্ধ্যায় গাজীপুর সিটি করপোরেশনের কোনাবাড়ি থানার আমবাগ মিতালী ক্লাব এলাকার রবি টাওয়ারের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মোটরসাইকেলটি পথচারীর ধাক্কা দিলে এই দুর্ঘটনা ঘটে। এতে মোটরসাইকেলের এক আরোহী কলেজ ছাত্র সৈকত আহমেদ সৌরভ (১৮) ও পথচারী মোঃ শামসুজ্জামান শানু (৪৫) মারা যান। মোটরসাইকেল চালকও গুরুতর আহত হয়েছেন।

নিহতরা হলেন-মোঃ আমির হোসেনের ছেলে সৌরভ ও আব্দুল হামিদ রেনু মোল্লার ছেলে শানু (৪৫)। আহত ইফতি (১৮) আনিছুর রহমানের ছেলে। এদের মধ্যে সৌরভ ও ইফতি’র বাড়ি গাজীপুর সিটি করপোরেশনের কোনাবাড়ি থানাধীন আমবাগ মিতালী ক্লাব এলাকায়। তারা ক্যামব্রিজ স্কুল এন্ড কলেজের কোনাবাড়ি শাখার দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র। ঝুট ব্যবসায়ী শানুর বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর থানার মাজিয়ারা এলাকায়।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের (জিএমপি) কোনাবাড়ি থানার এস আই সাখাওয়াত ইমতিয়াজ জানান, রবিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে কোনাবাড়ি থানাধীন আমবাগ মিতালী ক্লাব সড়কের রবি টাওয়ারের সামনে সড়ক পার হচ্ছিলেন ব্যবসায়ী শামসুজ্জামান শানু। এসময় আমবাগ ঈদগাহ হতে মিতালী ক্লাবগামী একটি মোটর সাইকেল তাকে সজোরে ধাক্কা দিলে তিনি গুরুতর আহত হন। এ ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী দুই বন্ধু সৌরভ ও ইফতি ছিটকে পড়ে আহত হন। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে সৌরভ ও শানুকে মৃত ঘোষণা করেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। অপর আহত ইফতিকে গুরুতর অবস্থায় সেখান থেকে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে পাঠানো হয়। খবর পেয়ে পুলিশ নিহতদের লাশ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।   


আরও খবর

গাজীপুরে ঝুটের গোডাউনে আগুন

বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২




বিমানবন্দর সড়কে তীব্র যানজট

প্রকাশিত:রবিবার ০২ অক্টোবর 2০২2 | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ | ৩১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সকালে ভারী বর্ষণের ফলে রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে জলাবদ্ধতা ও তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। আজ রোববার ভোর থেকেই বৃষ্টি হওয়ায় উত্তরা-বিমানবন্দর সড়কে ভোগান্তি বাড়িয়ে দিয়েছে কয়েকগুণ। এ অবস্থায় সকাল থেকেই স্থবির হয়ে পড়েছে রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটি।

সরেজমিনে দেখা গেছে, আজ সকাল ৮টা থেকে ১১টা পর্যন্ত বিমানবন্দর সড়ক প্রায় থামকে ছিল। সেই সঙ্গে সড়কের মোড়গুলোতে কাজে বের হওয়া মানুষের ভিড়। এ কারণে ফুটপাথ দিয়ে হাঁটাও দায় হয়ে পড়ে। কাজে বের হওয়া মানুষ যানজটের কারণে বাসে উঠছে না, আবার যারা বাসে করে যাচ্ছিলেন যানজট তীব্র হওয়ায় তারাও বাস থেকে নেমে হাঁটা শুরু করছেন। 

আব্দুল্লাহপুর থেকে উত্তরা, এয়ারপোর্ট, খিলক্ষেত, বিশ্ব রোড, বনানী, কুড়িল প্রগতি স্বরণিজুড়েই তীব্র যানজট । অন্যদিকে বনানী, বিশ্বরোড, খিলক্ষেত, কাওলা, এয়ারপোর্ট, উত্তরা, আব্দুল্লাহপুর পেরিয়ে যানবাহনের দীর্ঘ সারি। 

জানা গেছে, বৃষ্টির কারণে সকাল থেকে রাজধানীতে গণপরিবহন সংকট ছিল। ফলে কাজে বের হওয়া মানুষ গণপরিবহন না পেয়ে ছাতা মাথায় রাস্তায় অপেক্ষায় ছিল। রাস্তায় মানুষ দাঁড়িয়ে থাকার কারণেও অন্যান্য যানবাহনে চলাচলে বিঘ্ন ঘটে। যার প্রভাব পড়ে যানজটে। এর মধ্যে বিমানবন্দরের মতো একটি ব্যস্ত সড়কে তীব্র যানজট দেখা দেওয়ায় তা পুরো শহরেই ছড়িয়ে পড়ে।

উত্তরা থেকে বনানীতে এসে প্রতিদিন অফিস করেন বেসরকারি চাকরিজীবী ফয়সাল। তিনি বলেন, ৯টায় আমার অফিস শুরু হয়। সে হিসেবে আমি সাড়ে ৭টায় বাসে উঠি। বাস বিমানবন্দরে এসে যানজটে আটকা পড়ে। টানা ১ ঘণ্টা অপেক্ষার পর হাঁটা শুরু করি। কিন্তু ফুটপাথে মানুষের ব্যাপক চাপ। এ জন্য ঠিক মতো হাঁটাও সম্ভব হয়নি। সীমাহীন ভোগান্তির পর আমি ১০টার দিকে অফিসে ঢুকি।

ঢাকার যানজটের যে তাতে ভোগান্তিতে পড়েছে অফিসগামী মানুষ । অফিসের জন্য যারা সকালে বের হয়েছেন তারা কেউই যথা সময়ে অফিস পৌঁছাতে পারেননি। বলতে গেলে পুরো সড়কই থেমে আছে।


আরও খবর

জেনে নিন রাজধানীতে কখন কোথায় লোডশেডিং

বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২