Logo
শিরোনাম

বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে শিক্ষার রূপরেখা সাজানোর নির্দেশ

প্রকাশিত:সোমবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৬০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ও আধুনিক বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে দেশীয় শিক্ষার রূপরেখা সাজানোর নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) গণভবনে জাতীয় শিক্ষাক্রম রূপরেখার খসড়া উপস্থাপনা অবলোকনকালে তিনি এ নির্দেশনা দেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ও বিশ্ব পরিস্থিতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগিয়ে যেতে শিক্ষাব্যবস্থা আরও আধুনিকায়ন করতে হবে। শিক্ষা কার্যক্রম সময়োপযোগী করা একান্তভাবে অপরিহার্য। আমাদের যে নীতিমালা আছে, নীতিমালার ভিত্তিতে আমরা করবো। কিন্তু সব সময় সবার সঙ্গে তাল মিলিয়ে আমাদের চলতে হবে এবং বিশ্ব পরিস্থিতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হবে। বিজ্ঞান-প্রযুক্তি জ্ঞানের ক্ষেত্রে বিশ্ব যখন এগিয়ে যাচ্ছে, আমরা কোনোমতেই পিছিয়ে থাকতে পারি না।

বিজ্ঞান শিক্ষার গুরুত্ব তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আরেকটা বিষয় আমি লক্ষ্য করেছিলাম, বিজ্ঞানের প্রতি আমাদের দেশের ছেলেমেয়েদের অনীহা। বিজ্ঞান শিক্ষা তারা নিতেই চাইতো না। বিজ্ঞান বিভাগের লোকই পাওয়া যেতো না। এরকম একটা সময় কিন্তু ছিল। পরে আমরা বিজ্ঞান শিক্ষায় গুরুত্ব দিই। আমরা দেশে ১২টা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় করেছি।

এসময় ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তুলতে তার সরকারের চলমান বিভিন্ন কার্যক্রম প্রসঙ্গে কথা বলেন সরকারপ্রধান।

দীর্ঘদিন পর গতকাল রবিবার (১২ সেপ্টেম্বর) শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার বিষয়ে শেখ হাসিনা বলেন, আলহামদুলিল্লাহ, গতকাল (রবিবার) থেকে আমরা স্কুল-কলেজ খুলে দিয়েছি। ধীরে ধীরে সব খুলে দেয়া হবে। আবার নতুনভাবে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হবে।

তিনি বলেন, অত্যন্ত দুর্ভাগ্য, আমরা প্রায় দেড় বছরের মতো আমাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো খুলতে পারিনি। যদিও অনলাইনে বা টেলিভিশনের মাধ্যমে বা ঘরে বসে আমরা শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রাখার বহুমুখী পদক্ষেপ নিয়েছি, কাজও করেছি। কিন্তু সশরীরে স্কুলে যাওয়ার আনন্দ, কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ে যাওয়ার আনন্দ থেকে শিশুরা বঞ্চিত হয়েছে।

করোনাকালীন শিক্ষা কার্যক্রম সচল রাখতে সংশ্লিষ্টদের ভূমিকার প্রশংসা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, করোনার ভয়াবহ সংক্রমণের সময় যখন সব কিছু স্থবির, তখন আপনারা যথেষ্ট উদ্যোগ নিয়েছেন। বিশেষ করে শিক্ষার ক্ষেত্রে এখনকার যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে কীভাবে শিক্ষাব্যবস্থা আমাদের শিক্ষার্থীদের কাছে আরও আকর্ষণীয় করা যায়, জীবন-জীবিকার পথটা কীভাবে খোলা রাখা যায়, সে বিষয়গুলোর দিকে বিশেষ দৃষ্টি দিয়ে আপনারা এ কার্যক্রম পরিচালনা করেছেন।

শিক্ষার্থীদের সুবিধার কথা বিবেচনা করে বিভিন্ন এলাকায় নতুন নতুন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নির্মাণ করার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, আমরা এ পর্যন্ত যথেষ্ট পদক্ষেপ নিয়েছি। যে সব এলাকায় স্কুল ছিল না, সেসব এলাকায় আমরা স্কুল তৈরি করে দিচ্ছি।

সরকারপ্রধান বলেন, আমাদের দেশ নদী-নালা, খাল-বিলের দেশ। ছোট ছোট শিশুদের যোগাযোগ ও যাতায়াতের ব্যবস্থা বিবেচনা করেই কিন্তু আমরা বিভিন্ন এলাকায় স্কুল তৈরির ব্যবস্থা নিয়েছি।


আরও খবর

অভিভাবকরা স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না

রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১




আজ থেকে প্রতিদিন ৪ ঘণ্টা সিএনজি স্টেশন বন্ধ

প্রকাশিত:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ২০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বিদ্যুৎ উৎপাদনে গ্যাসের সরবরাহ বাড়াতে রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) থেকে প্রতিদিন সিএনজি স্টেশন ৪ ঘণ্টা বন্ধ রাখা হবে। প্রতিদিন সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত সিএনজি স্টেশন বন্ধ থাকবে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে গত ১৫ সেপ্টেম্বর পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জ্বালানি বিভাগ জানিয়েছে, পিক আওয়ারে বিদ্যুৎ উৎপাদনে গ্যাসের সরবরাহ বাড়াতে রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) থেকে প্রতিদিন সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত চার ঘণ্টা সিএনজি স্টেশনে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে।

এর আগে গত ১৩ সেপ্টেম্বর এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জ্বালানি বিভাগ জানিয়েছিল, পিক আওয়ারে বিদ্যুৎ উৎপাদনে গ্যাসের সরবরাহ বাড়াতে প্রতিদিন বিকাল ৫টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত ছয় ঘণ্টা সিএনজি স্টেশন বন্ধ রাখতে হবে। এই সিদ্ধান্ত কার্যকরের বিষয়ে পরেরদিন সিএনজি ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সঙ্গে আলোচনায় বসে পেট্রোবাংলা। সভায় স্টেশন মালিকেরা সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত তিন ঘণ্টা পাম্প বন্ধ রাখার প্রস্তাব দেয়। পাশাপাশি সিদ্ধান্ত কার্যকরের জন্য কয়েক দিন সময় চায় ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন।

এ অবস্থায় সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করতে ১৫ সেপ্টেম্বর জ্বালানি মন্ত্রণালয়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে প্রতিদিন ৪ ঘণ্টা সিএনজি স্টেশন বন্ধের সিদ্ধান্ত হয়।


আরও খবর

অভিভাবকরা স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না

রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১




দেশে এই প্রথম নারী জঙ্গি সদস্য গ্রেফতার

প্রকাশিত:রবিবার ২৯ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১০৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দেশে এই প্রথম নিষিদ্ধঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের একজন নারী সদস্যকে গ্রেফতার করেছে ডিএমপির কাউন্টার টেররিজম ইউনিট (সিটিটিসি)। তার নাম জোবাইদা সিদ্দিকা নাবিলা। তিনি উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী ছিলেন। গত ২৬ আগস্ট রাজধানীর বাড্ডা এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। বর্তমানে তাকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে সিটিটিসি।

সিটিটিসির বলছে, এর আগে আর কোনও নারী জঙ্গি গ্রেফতার হননি। নাবিলা প্রথম প্রশিক্ষিত নারী জঙ্গি। অন্যান্য জঙ্গি সংগঠনের নারী সদস্য গ্রেফতার হলেও নাবিলার মতো প্রশিক্ষিত ছিলেন না। আনসার আল ইসলামের হয়ে মিডিয়া শাখা অর্থাৎ জঙ্গিবাদের প্রচার-প্রচারণার দায়িত্ব পালন করতেন নাবিলা। তবে সামরিক শাখার সঙ্গে তার যোগাযোগ ছিল। তিনি দেশ ও দেশের বাইরে যেকোনো সময় জিহাদ করার জন্য প্রস্তুত ছিলেন।

রবিবার (২৯ আগস্ট) দুপুরে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে সিটিটিসি আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সংস্থাটির প্রধান অতিরিক্ত কমিশনার মো. আসাদুজ্জামান এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, নাবিলা ২০২০ সালের প্রথম দিকে নাম-পরিচয় গোপন করে ছদ্মনামে একটি ফেইক ফেসবুক অ্যাকাউন্ট খোলেন। একসময় ফেসবুকে আনসার আল ইসলামের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ তিতুমীর মিডিয়া-এর খোঁজ পায়। তখন তিনি এই পেজে যুক্ত হয়ে আনসার আল ইসলামের বিভিন্ন উগ্রবাদী ভিডিও ও অডিও আর্টিকেল সম্পর্কে জ্ঞান লাভ করে এবং তাদের মতাদর্শকে লালন করে। এর প্রেক্ষিতে তার তিতুমীর মিডিয়া-এর পেজের অ্যাডমিনের সঙ্গে যোগাযোগ প্রতিষ্ঠিত হয়। পরবর্তীতে ওই পেজের অ্যাডমিন উগ্রবাদী জিহাদী কনটেন্ট সম্বলিত আনসার আল ইসলামের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটের লিংক তাকে পাঠায়। এরপর ওই নারী আনসার আল ইসলামের সব অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে ও তাদের উগ্রবাদী মতাদর্শকে কঠোরভাবে লালন করে। তাদের মতাদর্শকে সবার সঙ্গে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য অনলাইন মিডিয়া প্লাটফর্মকে বেছে নেয় নাবিলা। এরই ধারাবাহিকতায় সে ফেসবুক, টেলিগ্রাম ও "Chirpwire" নামক অনলাইন প্লাটফর্মগুলোতে বিভিন্ন ছদ্মনামে একাধিক অ্যাকাউন্ট খোলে।

আসাদুজ্জামান বলেন, প্রাথমিক তদন্তে জঙ্গিবাদী প্রচারণার জন্য দুটি ফেইক ফেসবুক অ্যাকাউন্ট, একটি "Chirpwire" ও চারটি টেলিগ্রাম অ্যাকাউন্টের তথ্য পাওয়া যায় নাবিলার। সে ফেসবুকে ফেইক অ্যাকাউন্ট দিয়ে ব্যাপকহারে আনসার আল ইসলামের উগ্রবাদী সহিংস মতাদর্শ প্রচার, বিভিন্ন উগ্রবাদী প্রচারণাকারী আইডির সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ এবং নানা কর্মপরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা করতো। নাবিলা আনসার আল ইসলামের মতাদর্শ প্রচারের জন্য ব্যাপকভাবে টেলিগ্রাম মাধ্যম ব্যবহার করতো। টেলিগ্রাম ব্যবহার করে চারটি অ্যাকাউন্ট এবং সেই টেলিগ্রাম অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে ১৫টির বেশি চ্যানেল ব্যবহার করতো জঙ্গি প্রচারণায়।

তিনি আরও বলেন, এসব চ্যানেলে নাবিলা আনসার আল ইসলামের বিভিন্ন উগ্রবাদী সহিংস ভিডিও, অডিও, ছবি ও ফাইল শেয়ার করতো। তার নিজের সবগুলো টেলিগ্রাম চ্যানেল মিলে আনুমানিক ২৫ হাজার সাবস্ক্রাইবার আছে, যারা নিয়মিত তার চানেলগুলো অনুসরণ করে। গ্রেফতার নাবিলা তার টেলিগ্রাম চ্যানেলগুলোতে জিহাদ কেন প্রয়োজন, Kitabul Jihad, একাকী শিকারি লন উলফ, স্নিপার সেলগুলোতে গোয়েন্দাদের অনুপ্রবেশ ও প্রতিরোধের উপায়, নীরবে হত্যার কৌশল, পুলিশ শরীয়তের শত্রু, Lone_wolf-balakot-media-hq, আল আনসার ম্যাগাজিন ইস্যু, জিহাদের সাধারণ দিক নির্দেশনা, তাগুতের শাসন থেকে মুক্তির ঘোষণা ইত্যাদি ছাড়াও আরও অসংখ্য উগ্রবাদী সহিংস জিহাদী প্রচারণার বই বিভিন্ন সময় আপলোড করতো।

সিটিটিসি প্রধান আরও বলেন, নাবিলা নিজে আনসার আল ইসলামের বিভিন্ন অফিসিয়াল ও আন অফিসিয়াল চ্যানেলে যুক্ত ছিলো। সেই চ্যানেলে আইডি ও আগ্নেয়াস্ত্র তৈরি করা ও বিভিন্ন হামলায় কৌশলগত বিষয়ে ভিডিও এবং ফাইল শেয়ার করতেন। এই নারী আনসার আল ইসলামের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকে "Chirpwire"-এ অ্যাকাউন্ট খোলার নির্দেশনা পেয়ে সেখানেও অ্যাকাউন্ট খুলে উগ্রবাদী প্রচারণা চালাতো। জিহাদের ময়দানে অংশগ্রহণের জন্য নিজেকে মানসিকভাবে প্রস্তুত করে নাবিলা। এমনকি সাম্প্রতিক সময়ে তার বিয়ের কথাবার্তা চললে সে ছেলেপক্ষকে জানায়, জিহাদের ময়দানে ডাক আসলে সে সামনের সারিতে থাকবে। এমনকি শহীদি মৃত্যু আসলেও পিছু হটবে না এবং ছেলে (পাত্র) এরূপ মতাদর্শের না হলে সে বিয়ে করবে না।


আরও খবর



জন্মসূত্রে আমি একজন আফগানি পাঠান : আরশি খান

প্রকাশিত:রবিবার ২২ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৮৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আফগানিস্তানে তালেবানদের পুনরুত্থান নিয়ে কোনো টুইট না করেই ভারতের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ট্রলের শিকার হচ্ছেন বলিউড অভিনেত্রী ও বিগবস প্রতিযোগী আরশি খান।

তার দোষ একটিই তার জন্ম আফগানিস্তানে। যে কারণে ভারতীয় নেটিজেনদের অনেকে তাকে তালেবান বলে কটাক্ষ করছেন।

অবশেষে ধৈর্যের বাঁধ ভেঙে গেছে এ অভিনেত্রীর।

ভারতীয় এক টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে অকপট জানালেন, তার জন্ম আফগানিস্তানে। কিন্তু তিনি ভারতীয় নাগরিক। মনে ও প্রাণে তিনি ভারতীয়।

ক্ষোভ উগড়ে দিয়ে এ অভিনেত্রী বলেন,  হ্যাঁ, আমার শরীরে আফগানি রক্ত। জন্মসূত্রে আমি একজন আফগানি পাঠান।

এর পর আক্ষেপ নিয়ে আরশি খান বলেন,  আগেও নাগরিকত্ব নিয়ে আমাকে ট্রল করা হয়েছে। এ নিয়ে তৃতীয়বার আমাকে টার্গেট করেছেন তারা। অনেকে আবার আমাকে পাকিস্তানি নাগরিক মনে করে ট্রল করেন। এই একই কারণে কাজের জায়গাতেও অনেক কথা শুনতে হয়েছে। আমি একটা কথা স্পষ্ট করে জানাতে চাই যে, আমি ভারতীয়। আমার কাছে ভারত সরকারের অনুমোদিত পরিচয়পত্র রয়েছে।

এর পর নিজের বংশপরিচয় পরিষ্কার করেন আরশি খান। তিনি বলেন, পাকিস্তান না, আমার শরীরে আফগানি রক্ত। আমার পরিবার ইউসুফ জহির পাঠান গোষ্ঠীর। আমার দাদা আফগানিস্তান থেকে ভারতে চলে এসেছিলেন এবং তিনি ভুপালে স্থায়ী হন। আমার পরিবার যখন ভারতে চলে আসে, তখন আমার বয়স ছিল মাত্র ৪ বছর। আমার শিকড় আফগানিস্তানে, তবে আমি ভারতীয় নাগরিক।


আরও খবর



অনিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল ও আইপি টিভি বন্ধে হাইকোর্টের রুল

প্রকাশিত:সোমবার ০৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১০৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

অনিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল, আইপি টিভি নিউজসংক্রান্ত ফেসবুক পেজ বন্ধে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।

এক সাংবাদিকের করা রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের ভার্চ্যুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ রুল জারি করেছেন।

আদালতে রিট আবেদনটি দায়ের করেন সিলেটের বিয়ানীবাজার প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মিলাদ মোহাম্মদ জয়নুল ইসলাম। আবেদনের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী সৈয়দা রাফিকা খাতুন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার।

সোমবার ( সেপ্টেম্বর) আইনজীবী সৈয়দা রাফিকা খাতুন জানান, গত সেপ্টেম্বর রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। এরই মধ্যে রুলের আদেশটি সংশ্লিষ্টদের কাছে পাঠানো হয়েছে।

রুলে অনিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল, আইপি টিভি নিউজসংক্রান্ত ফেসবুক পেজ বন্ধে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না এবং বাংলাদেশের সাংবাদিকদের জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতা বিষয়ে বিধিমালা কেন করা হবে না তা জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট।

তথ্যসচিব, স্বরাষ্ট্রসচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শক, ্যাবের মহাপরিচালক, বিটিআরসির চেয়ারম্যান প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যানকে দুই সপ্তাহের মধ্যে ওই রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

আইনজীবী সৈয়দা রাফিকা খাতুন আরও জানান, অনিবন্ধিত এসব পোর্টাল, আইপি টিভি নিউজ সংক্রান্ত ফেসবুকে পেজে এমন সব খবর ছড়ায় যার কোনো অস্তিত্ব নেই। এসব ভুয়া খবরে দেশে অরাজক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। আর বিদেশে ভাবমূর্তি নষ্ট নয়। কারণে এসব বন্ধে রিট করা হয়।


আরও খবর



স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উপসচিব সঞ্জয় চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা

প্রকাশিত:বুধবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৩৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উপসচিব সঞ্জয় চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন একজন ভিকটিম। বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২-এর বিচারক হাবিবুর রহমান সিদ্দিকীর আদালতে এই মামলাটির আবেদন করেন ওই ভিকটিম।

এরপর আদালত বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে নথি পর্যালোচনায় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। ট্রাইব্যুনালের রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মো. জাহাঙ্গীর হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ২০১৮ সালের দিকে ভিকটিমের সঙ্গে আসামির ফেসবুকে পরিচয় হয়। পরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক হয়। এরপর ভিকটিমকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করা হয়। সর্বশেষ ফকিরাপুলের একটি আবাসিক হোটেলে তাকে ধর্ষণ করেন আসামি। এ ঘটনায় আজ ভিকটিম ট্রাইব্যুনালে এসে মামলার আবেদন করলে আদালত তা গ্রহণ করে পিবিআই-কে তদন্তের নির্দেশ দেন।


আরও খবর