Logo
শিরোনাম

বিতর্কিত পেনাল্টিতে ফাইনাল খেলা হলো না বাংলাদেশের

প্রকাশিত:বুধবার ১৩ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১ | ৭০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সেই ২০০৫ সালের পর সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে খেলা হয়নি বাংলাদেশের। ১৬ বছরের অপেক্ষার অবসান ঘটানোর সম্ভাবনাও জাগিয়েছিল লাল-সবুজের জার্সিধারীরা।

কিন্তু গোলরক্ষক আনিসুর রহমান জিকোর লাল কার্ড আর শেষদিকে পেনাল্টি গোলে সর্বনাশ হলো জামাল ভূঁইয়াদের।

বুধবার সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের রাউন্ড রবিন লিগে নিজেদের শেষ ম্যাচে নেপালের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করেছে বাংলাদেশ। ফাইনালে উঠতে হলে এই ম্যাচ জেতার কোনো বিকল্প ছিল না বাংলাদেশের সামনে। নেপালের ড্র করলেই চলতো। বাংলাদেশের স্বপ্ন পূরণ না হলেও নেপাল ঠিকই প্রথমবারের মতো সাফের ফাইনালে উঠে গেছে।

মালদ্বীপের রাজধানী মালের রাশমি ধান্দু স্টেডিয়ামে সুমন রেজার গোলে প্রথমার্ধ এগিয়ে যায় জামাল ভূঁইয়ারা। কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধের শেষ ভাগে দলের মূল গোলরক্ষক আনিসুর রহমান জিকো দলকে বাঁচাতে রেড কার্ড দেখে মাঠ ছাড়লে ১০ জনের দলে পরিণত হয় বাংলাদেশ।  এরপর ৮৮তম মিনিটে পেনাল্টি থেকে পাওয়া গোলে ড্র তুলে নেয় নেপাল।

গুরুত্বপূর্ণ এই ম্যাচে চারটি পরিবর্তন এনে সেরা একাদশ সাজান ভারপ্রাপ্ত কোচ অস্কার ব্রুসন। কার্ডের খাড়ায় ছিটকে গেছেন ইয়াসিন আরফাত। এছাড়া রহমত মিয়া, সোহেল রানা, মতিন মিয়ার বদলে টুটুল হোসেন বাদশা, বিশ্বনাথ ঘোষ, রাকিব হোসেন, সুমন রেজাকে একাদশে রাখা হয়।

শুরুর দিকে নেপালের দখলে বলের নিয়ন্ত্রণ থাকলেও দ্রুতই গুছিয়ে ওঠে বাংলাদেশ। গোলও পেয়ে যায় শুরুতেই। অষ্টম মিনিটে রাকিব হোসেন বাঁদিক থেকে বল নিয়ে প্রতিপক্ষের রক্ষণে ঢুকে পড়লে প্রতিপক্ষের ডিফেন্ডার গৌতম শ্রেষ্ঠ তাকে পেছন থেকে পা বাড়িয়ে ফেলে দিলে রেফারি ফ্রি-কিকের বাঁশি বাজান। সীমানার কাছ থেকে ফ্রি-কিক নেন জামাল ভূঁইয়া। বাংলাদেশ অধিনায়কের কিকে বল নেপালের এক ডিফেন্ডারের মাথায় লেগে পোস্টের সামনে উড়ে যায়। সঙ্গে সঙ্গে ছয় গজ বক্সে থাকা সুমন রেজা দারুণ হেডে বল জালে জড়িয়ে দেন।

২৩তম মিনিটে সুযোগ পায় নেপালে। কিন্তু অঞ্জন বিস্তার ফ্রি-কিক লাফিয়ে ফিস্ট করে ফেরান বাংলাদেশের গোলরক্ষক আনিসুর রহমান জিকো। দুই মিনিট পর সাদউদ্দিন অরক্ষিত অবস্থায় থেকেও তাড়াহুড়ো করে শট নেন। বল দূরের পোস্টের অনেক বাইরে দিয়ে যায়।


আরও খবর

টি-টোয়েন্টি র‌্যাংকিংয়ে পেছাল বাংলাদেশ

বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১

কোম্যানকে বরখাস্ত করলো বার্সেলোনা

বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১




হলুদ পানির পাঁচ গুণ

প্রকাশিত:রবিবার ২৪ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১ | ৫৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পাওয়াফুল মসলা হিসেবে সুপরিচিত হলুদের রয়েছে বেশকিছু স্বাস্থ্য উপকারিতা। এর পাঁচটি অসাধারণ গুণাবলির কথা জানলে দৈনন্দিন খাদ্যতালিকায় যোগ করতে ভুল হবে না আপনার।

১. রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি: উপমহাদেশের সুপ্রচীন এই মসলা এখন বিশ্বব্যাপীই সমাদৃত। এর রয়েছে অনেক ঔষধি গুণ। রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি এবং ত্বককে ফ্রি রেডিকেলের হাত রক্ষা করতে কার্যকরী। এতে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল ও অ্যান্টি ভাইরাল উপাদান রয়েছে।

২. ব্যথা সারাতে: উপমহাদেশে দীর্ঘ সময় ধরেই ব্যথা সারানোর দাওয়াই হিসেবে হলুদ ব্যবহৃত হয়ে আসছে। দুধের সঙ্গে এক চিমটি হলুদ গুঁড়ো মিশিয়ে খেলে জয়েন্টের ব্যথা, ইনফেকশন ও ফ্লুর সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। হলুদের অ্যান্টি প্রদাহ উপাদান আর্থ্রিটিক ব্যথা ও প্রদাহ সারাতে সাহায্য করে।

৩. ত্বকের স্বাস্থ্যের উন্নতিতে: প্রচীনকাল থেকেই রূপচর্চায় হলুদ ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এর অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস উপাদান ত্বককে ফ্রি রেডিকেল থেকে রক্ষা করে। প্রতিদিন হলুদ পানি পান করলে ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়বে, ত্বক হবে স্বাস্থ্যকর এবং সজীব।

৪. ওজন কমাতে ও হজমে সহায়ক: হলুদ হজমশক্তি বাড়াতে সহায়তা করে। এটি বমি বমি ভাব এবং অম্ল ভাব দূর করে। হলুদ ভালো হজমে নিশ্চয়তার পাশাপাশি মুটিয়ে যাওয়া রোধ করে।

৫. লিভারের সুস্থতায়: হলুদ লিভার সুস্থ রাখতে সহায়ক। এটি শরীরে উপকারী এনজাইম উৎপাদন বাড়াতে সহায়তা করে। যা রক্তের দূষিত উপাদান দূর করে।

বাড়িতেই যেভাবে তৈরি করবেন হলুদ পানি-

১. একটি প্যানে এক কাপ পানি গরম করতে দিন।

২. এবার আরেকটি কাপে এক চা চামচ হলুদ, আধা চা চামচ লেবুর রস নিন।

৩. উষ্ণ পানিতে মিশ্রণটি ঢেলে দিন।

৪. চাইলে সামান্য মধু মিশিয়ে নিতে পারেন। কুসুম গরম থাকা অবস্থায় চমৎকার এই পানীয় পান করুন।


আরও খবর

আজকের ভালো মন্দ

বুধবার ২৭ অক্টোবর ২০২১

বাটা মসলার স্বাদে চিংড়ির কোরমা

মঙ্গলবার ২৬ অক্টোবর ২০২১




উত্তরাখণ্ডে প্রবল বৃষ্টি-বন্যায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪৬

প্রকাশিত:বুধবার ২০ অক্টোবর ২০21 | হালনাগাদ:বুধবার ২৭ অক্টোবর ২০২১ | ৫২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ভারতের উত্তরাখণ্ড রাজ্যে তিন দিন ধরে চলা ভারি বৃষ্টির ফলে সৃষ্ট বিপর্যয়ে অন্তত ৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া আরো অনেকে ধ্বংসস্তূপের নিচে চাপা পড়ে আছে। এক প্রতিবেদনে এমন তথ্য জানিয়েছে বিবিসি।

মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী পুশকর সিং ধামী বলেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে রাজ্যের পরিস্থিতি সম্পর্কে অবহিত করা হয়েছে। বাড়ি-ঘর, সেতু ইত্যাদি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। উদ্ধার অভিযান পরিচালনার জন্য সেনাবাহিনীর তিনটি হেলিকপ্টার মোতায়েন করা হবে।

সামাজিক যোগাযোগামধ্যমে ছড়িয়ে পড়া বিভিন্ন ভিডিও ফুটেজে দেখা যাচ্ছে পাহাড়-পর্বতে সমৃদ্ধ এই রাজ্যটিতে গত ২৪ ঘণ্টার বৃষ্টির ফলে সৃষ্ট বন্যায় ডুবে গেছে সড়ক, বাড়িঘর। ভেঙে পড়েছে অনেক সেতুও।

ভারতের আবহাওয়া দফতরের তথ্য অনুযায়ী, অক্টোবর মাসে উত্তরাখণ্ডে যেখানে ৩০ দশমিক ৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়, সেখানে গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যজুড়ে বৃষ্টিপাত হয়েছে ১২২ দশমিক ৪ মিলিমিটার।

ভারতের জাতীয় দুর্যোগ মোকাবেলা বাহিনী (এনডিআরএফ) জানিয়েছে, উদ্ধার ও ত্রাণ অভিযান পরিচালনা করছে সেনাবাহিনী ও স্থানীয় কর্তৃপক্ষগুলো। ইতিমধ্যে বন্যা কবলিত বিভিন্ন এলাকা থেকে ৩০০ জনেরও বেশি মানুষকে উদ্ধার করা হয়েছে। রাজ্যজুড়ে উদ্ধারকারী বাহিনীর ১৫টি দল সক্রিয় আছে বলে জানিয়েছে ভারতের বার্তাসংস্থা এএনআই।



আরও খবর



ঢাবির ‘ঘ’ ইউনিটের পরীক্ষা শুরু হচ্ছে

প্রকাশিত:শনিবার ২৩ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১ | ৪৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
প্রথমবারের মতো ঢাকা ও ঢাকার বাইরে সাতটি বিভাগীয় শহরে অনুষ্ঠিত হবে এ পরীক্ষা। কঠোর নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষায় অংশ নেবেন ভর্তিচ্ছুরা

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক ১ম বর্ষে ভর্তির জন্য ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা আজ শনিবার অনুষ্ঠিত হবে। সকাল ১১টায় শুরু হয়ে এ পরীক্ষা চলবে বেলা সাড়ে ১২টা পর্যন্ত।

এবারে ইউনিটে এক হাজার ৫৭০ আসনের বিপরীতে ১ লাখ ১৫ হাজার ৮৮১ জন আবেদন করেছেন। ঘ ইউনিটে মানবিক, ব্যবসায় শিক্ষা ও বিজ্ঞান- এই তিন বিভাগের শিক্ষার্থীরাই আবেদন করেছেন। এই ইউনিটে ১১টি অনুষদের অধীনে বিভাগ রয়েছে ৫৫টি।

 

প্রথমবারের মতো ঢাকা ও ঢাকার বাইরে সাতটি বিভাগীয় শহরে অনুষ্ঠিত হবে এ পরীক্ষা। কঠোর নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষায় অংশ নেবেন ভর্তিচ্ছুরা।

 

এর মধ্যে ঢাবিতে ৬১ হাজার ৮৫০ জন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ১২ হাজার জন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে নয় হাজার ৮৯৮ জন, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে আট হাজার ১২৪ জন, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই হাজার ১৭৮ জন, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ১১ হাজার ২০ জন, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে তিন হাজার ১৩ জন ও বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে সাত হাজার ৭৯৮ জন ভর্তিচ্ছু পরীক্ষার্থী পরীক্ষা দেবেন।

 

বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ বিভাগ জানিয়েছে, পরীক্ষা চলাকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ ভবনস্থ পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শন করবেন।

 

এর আগে গত ১ অক্টোবর বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ইউনিটের পরীক্ষার মধ্য দিয়ে শুরু হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এবারের ভর্তি পরীক্ষা। এরপর ২ অক্টোবর কলা অনুষদভুক্ত ইউনিট, ৯ অক্টোবর চারুকলা অনুষদভুক্ত ইউনিটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। শুক্রবার (২২ অক্টোবর) অনুষ্ঠিত হয় ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদভুক্ত ইউনিটের পরীক্ষা।


আরও খবর



এই দেশে আর তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না : হানিফ

প্রকাশিত:শনিবার ০২ অক্টোবর 2০২1 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৬ অক্টোবর ২০২১ | ৯১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেছেন, বাংলাদেশে আর কোনোদিন তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না।

চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের তৃণমূল প্রতিনিধি সম্মেলনে শনিবার (২ অক্টোবর) দুপুরে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, সর্বোচ্চ আদালত থেকে এ রায় ঘোষণা করা হয়েছে। বাংলাদেশে আর কখনও তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠন করা হবে না। যারা দেশের সর্বোচ্চ আদালতের রায় অবমাননা করে মনগড়া সরকার দেখতে চায়, সেটা আর হবে না।

হানিফ বলেন, ফখরুল ইসলাম আলমগীর বর্তমান একটি কথা বলছেন, আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ৩০টি আসন পাবে না। কিন্তু আমি বলতে চাই, এই কথাটি ২০০১ থেকে ২০০৬ সালে বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালে বেগম খালেদা জিয়াও একাধিক জনসভায় বলেছিলেন। কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাস ২০০৮ সালের নির্বাচনে বেগম খালেদা জিয়া ৩০-এর নিচে আসন পেয়েছিল। তারা দেশের জন্য বা জনগণের জন্য এমন কোনো কাজ করেনি যে, জনগণ তাদের ওপর আস্থাশীল হবে বরং তাদের প্রতিটি কুকর্ম, সন্ত্রাস-নাশকতা, দুর্নীতি ও পেট্রোল বোমায় মানুষ হত্যার কারণে তারা জনগণ থেকে এতটাই দূরে সরে গেছে যে, আগামী নির্বাচন তো দূরের কথা, তাদের জীবদ্দশায় আর কোনোদিন ক্ষমতায় আসতে পারবে কিনা, তা নিয়ে সংশয় রয়েছে।

মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, আমরা চাই সব দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করুক। জনগণ তাদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট প্রদান করুক এবং তাদের পছন্দের দলকে নির্বাচিত করুক। এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নাসির উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে ও আলহাজ আবু নঈম পাটোয়ারী দুলালের সঞ্চালনায় আয়োজিত তৃণমূল প্রতিনিধি সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মণি, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সদস্য মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রমসহ জেলা আওয়ামী লীগ নেতারা।


আরও খবর



তিস্তা নদীর মহাপরিকল্পনা নিয়ে সুখবর দিতে পারল না প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত:শুক্রবার ২২ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১ | ১৬৩জন দেখেছেন

Image

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি:

হঠাৎ উজানের ঢলে সৃষ্ট বন্যায় তিস্তা নদীর বন্যা এবং ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান। শুক্রবার সকালে কুড়িগ্রামের রাজারহাটের ঘড়িয়াল ডাঙ্গা ইউনিয়নের গতিয়াশাম এলাকায় তিস্তা নদীর ভাঙন কবলিত এলাকাপরিদর্শন করেন তিনি।

এসময় প্রতিমন্ত্রী ভাঙ্গন কবলিতদের জন্য পরিদর্শনকালে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, প্রকল্পের ডিজাইন ও প্রজেক্ট প্রোফাইল কমপ্লিট করা হয়েছে। এখন এটা আপনারা জানেন তো অনেক বড় প্রজেক্ট এবং এই অঞ্চলের তিস্তা পারের মানুষজনের জীবনমানের উন্নতি হবে। এটার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাজ করে যাচ্ছেন। এখন পর্যন্ত চুড়ান্ত ভাবে কবে থেকে কাজ শুরু করবে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয় নাই।

এছাড়াও তিনি আরও বলেন, কুড়িগ্রামসহ চারটি জেলায় আকস্মিক বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। সরকার বন্যার্ত ও ভাঙন কবলিতদের দুর্দশা লাঘবে কাজ করছে। এই চার জেলার প্রতিটিতে ৫০ মে.টন চাল, নগদ ৫ লাখ টাকা, চার হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার, পশু খাদ্যের জন্য আরো ২লাখ টাকা এবং একশ বান্ডিল করে ঢেউটিন বরাদ্দ করা হয়েছে। পরবর্তীতে বন্যার্ত ও নদী ভাঙনের শিকার প্রতিটি পরিবারের পুণর্বাসনের ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ত্রাণ মন্ত্রী স্থানীয় সরিষাবাড়ি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের মাঝে চাল, ডাল, তেলসহ ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেন।

এসময় অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, কুড়িগ্রাম-২ আসনের সংসদ সদস্য পনির উদ্দিন আহমেদ, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও  ত্রাণ মন্ত্রনালয়ের সচিব মো: মহসীন, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রেজাউল করিম, পুলিশ সুপার সৈয়দা জান্নাত আরা, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাফর আলী, রাজারহাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাহিদ সোহরাওয়ার্দী বাপ্পি, উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূরে তাসনীম এবং ঘড়িয়াল ডাঙা ইউপি চেয়ারম্যান রবীন্দ্রনাথ কর্মকার।


আরও খবর