Logo
শিরোনাম

‘বঙ্গবন্ধুর ছবিতে যারা হাত দিয়েছে, এদের একটা একটা করে ধরে আনা হবে’

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৫ জুন ২০২১ | ১৭৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
ধর্ম ব্যবসায়ী গোষ্ঠীর মনে রাখা প্রয়োজন স্বাধীনতা যুদ্ধে এই দেশের জনগণ এদের প্রত্যাখ্যান করেছে। এদের ছাড়াই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবিতে যারা হাত দিয়েছে, এদের একটা একটা ধরে আনা হবে, আইনের সম্মুখীন করা হবে। এমন কড়া হুঁশিয়ারি দিয়েছেন শিক্ষাউপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) রাতে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে দেয়া এক স্ট্যাটাসে তিনি এ হুঁশিয়ারি দেন।

শিক্ষা উপমন্ত্রী স্ট্যাটাসে লিখেছেন, খেলাফতে মজলিশ নামক একটি দলের এক নেতা এই কুলাঙ্গার মামুনুল হকের পক্ষে যেভাবে সাফাই গাইল, এতে বোঝা যায় দ্বীনে ইসলাম শুধুই এদের বেঁচে থাকার জন্য একটি মাধ্যম।’

এদের কীভাবে শায়েস্তা করতে হবে তা আমাদের জানা আছে উল্লেখ করে নওফেল ফেসবুকে লিখেছেন, ধর্ম ব্যবসায়ী গোষ্ঠীর মনে রাখা প্রয়োজন স্বাধীনতা যুদ্ধে এই দেশের জনগণ এদের প্রত্যাখ্যান করেছে। এদের ছাড়াই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে, আওয়ামী লীগসহ প্রগতিশীল শক্তির সঙ্গে ঐক্যবদ্ধ হয়ে বাংলাদেশের মানুষ স্বাধীনতা ছিনিয়ে এনেছিল। কিছু এতিম শিশুকে রাখে বলে এরা অনেকের সহানুভূতি পায়। এরা দেশের প্রচলিত সরকার কাঠামো, শিক্ষাব্যবস্থা, প্রশাসন ও আইনের অধীনে না আসলে, এদের কীভাবে শায়েস্তা করতে হবে তা আমাদের জানা আছে।’

মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল তার ফেসবুকে লিখেছেন, ‘‘জাতির পিতার ভাস্কর্য অপমানিত করার পর থেকে, এদের স্পর্ধার শুরু, এখন ১৭টি লাশের ওপরে চলছে এদের রিফ্রেশমেন্ট’ জীবন।’’

তিনি আরও লিখেন, আগুন যারা জ্বালিয়েছে, পিতার ছবিতে হাত যারা দিয়েছে, এদের একটা একটা করে ধরে আনা হবে, আইনের সম্মুখীন করা হবে। সামাজিক, ধর্মীয়, অর্থনৈতিক, সর্ব পর্যায়ে এই কাঠমোল্লা গোষ্ঠীকে প্রতিহত করতে হবে। আওয়ামী লীগ বানের জলে ভেসে আসে নাই। গণতান্ত্রিক সমাজে রাজনীতি করতে চায় করবে, কিন্তু ধর্ম ব্যবসা করে মানুষের ঘরবাড়ি জ্বালানোর পরিণাম এদের বোঝাতে হবে। আগুন সন্ত্রাস করে বিএনপি-জামায়াত ছাড় পায় নাই, এই ধর্ম ব্যবসায়ীরাও ছাড় পাবে না। ইনশাআল্লাহ।’

উল্লেখ্য, গত ২৬ মার্চ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে মোদিবিরোধী বিক্ষোভে রাজধানীর বায়তুল মোকাররমে নামাজ শেষে সংঘর্ষে জড়ায় হেফাজতে ইসলাম। সে সংঘর্ষে আহত হন সাংবাদিক, পুলিশসহ অর্ধশতাধিক সাধারণ মুসল্লিরা।


আরও খবর

আমার দেখা তসলিমা নাসরিন

শনিবার ০৫ জুন ২০২১




দেশে প্রথম জাতীয় চা দিবস আজ

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৪ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৪ জুন ২০২১ | ৭৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দেশে প্রথমবারের মতো জাতীয় চা দিবস উদযাপন করা হচ্ছে আজ (৪ জুন)। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় চা বোর্ডের উদ্যোগে দিবসটি উদযাপনে আয়োজন করা হয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে গত বুধবার বাংলাদেশ চা বোর্ড আয়োজিত এক অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়। এবারের চা দিবসের প্রতিপাদ্য, মুজিব বর্ষের অঙ্গীকার, চা শিল্পের প্রসার

১৯৫৭ সালের ৪ জুন প্রথম বাঙালি হিসেবে তৎকালীন চা বোর্ডের চেয়ারম্যান হিসেবে যোগ দেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। চা বোর্ডের চেয়ারম্যান থাকাকালে এবং স্বাধীনতার পর বাংলাদেশে চা শিল্পে বঙ্গবন্ধুর অবদানকে স্মরণীয় করে রাখতে প্রতিবছর ৪ জুন চা দিবস পালনের সিদ্ধান্ত হয়।

দিবসটি উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, শুক্রবার সকালে ঢাকার ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে আলোচনা সভা ও চা প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে। এছাড়া চা উৎপাদনকারী অঞ্চল চট্টগ্রাম, সিলেট ও পঞ্চগড়ে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

দিবসটি উপলক্ষে দেয়া এক বাণীতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেন, সুদীর্ঘ ১৮০ বছর ধরে বাংলাদেশের ইতিহাস ও ঐতিহ্যের সঙ্গে চা শিল্প গভীরভাবে জড়িয়ে আছে। দেশের সাধারণ মানুষের সামাজিকতা, সংস্কৃতি ও দৈনন্দিন জীবনের সঙ্গে চা অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন চা বোর্ডের প্রথম বাঙালি চেয়ারম্যান। তিনি ৪ জুন ১৯৫৭ থেকে ২৩ অক্টোবর ১৯৫৮ পর্যন্ত চা বোর্ডের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালনকালে চা শিল্পের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। পরবর্তীতে দেশ স্বাধীন হওয়ার পর যুদ্ধে ক্ষতিগ্রস্ত চা শিল্পের পুনর্বাসনে অসামান্য অবদান রাখেন তিনি। এর প্রেক্ষিতে ৪ জুন জাতীয় চা দিবস পালনের উদ্যোগ বিশেষ তাৎপর্য বহন করে।

পৃথক বাণীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বর্তমানে আওয়ামী লীগ সরকার কর্তৃক গৃহীত নানাবিধ উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের ফলে দেশে চায়ের উৎপাদন গত ১০ বছরে প্রায় ৬০ ভাগ বৃদ্ধি পেয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৯ সালে বাংলাদেশে সর্বাধিক ৯৬ দশমিক ০৭ মিলিয়ন কেজি চা উৎপাদন হয়। চা রফতানির পুরাতন ঐতিহ্যকে ফিরিয়ে আনতে সরকার এর উৎপাদনের পাশাপাশি বিপণনের ওপরও গুরুত্বারোপ করেছে। ফলে, ২০২০ সালে ১৯টি দেশে চা রফতানি করে প্রায় ৩৫ কোটি টাকা আয় করা সম্ভব হয়েছে। আমরা চা আইন ২০১৬ প্রণয়ন করেছি।


আরও খবর

সরকারি শূন্যপদ ৩ লাখ ৮০ হাজার

মঙ্গলবার ১৫ জুন ২০২১




ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাব শুরু

প্রকাশিত:সোমবার ২৪ মে ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৪ জুন ২০২১ | ১০২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাব পড়তে শুরু করেছে উপকূলের এলাকাগুলোতে। রবিবার (২৩ মে) রাত সোয়া ৯টায় পটুয়াখালীর বিভিন্ন স্থানে বজ্রপাতসহ মাঝারি ধরনের বৃষ্টি শুরু হয়। এদিকে পায়রা সমুদ্র বন্দরে ১ নম্বর বিপদ সংকেত জারি করা হয়েছে। এতে আতঙ্ক বেড়েছে উপকূলজুড়ে।

রবিবার রাত ৮টায় পটুয়াখালীর আকাশ হঠাৎ মেঘে ঢেকে যায়। এরপর রাত ৯টা থেকে বজ্রপাতসহ বৃষ্টি শুরু হয়। কোথাও ঝিরিঝিরি আবার কোথাও মাঝারি আকারের বৃষ্টি হয়েছে। তবে এতে গরমের পরিমাণ কমেনি।

পটুয়াখালী আবহাওয়া অফিসের কর্মকর্তা মো. মাসুদ জানান, রাত সোয়া ৯টার দিকে ইয়াসের প্রভাবে পটুয়াখালীর বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি শুরু হয়েছে। সমুদ্রে অবস্থান করা ট্রলারগুলোকে নিরাপদ স্থানে চলে যেতে বলা হয়েছে। পায়রা সমুদ্র বন্দরে ১ নম্বর বিপদ সংকেত জারি করা হয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: ঘূর্ণিঝড় ইয়াস

আরও খবর



গত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত ১১৪ জন

প্রকাশিত:বুধবার ০৯ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৪ জুন ২০২১ | ৫৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

চট্টগ্রামে নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে ১১৪ জনের শরীরে। এ নিয়ে চট্টগ্রামে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৩১ হাজার ৯৪ জন। এছাড়া নগরীতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় একজনের মৃত্যু হয়েছে।

বুধবার সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাব ও চট্টগ্রামে ১১টি ল্যাবে নমুনা পরীক্ষা হয়।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে ১৯৫টি নমুনা পরীক্ষা করে ৩৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেসে (বিআইটিআইডি) ২৮৬টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে শনাক্ত হয় ১৩ জন। চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) ল্যাবে ৬৪টি নমুনা পরীক্ষা করে ১৩ জনের শরীরে করোনাভাইরাস পাওয়া গেছে। চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় (সিভাসু) ল্যাবে ৯৬টি নমুনা পরীক্ষা করে ১৪ জনের শরীরে করোনাভাইরাস পাওয়া গেছে।

এছাড়া ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল ল্যাবে ১১৭টি নমুনা পরীক্ষা করে ৬ জন, শেভরণ ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরিতে ২৬৪টি নমুনা পরীক্ষা করে ১ জন, চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল ল্যাবে ১৯টি নমুনা পরীক্ষা করে ৩ জন, জেনারেল হাসপাতালের রিজিওনাল টিবি রেফারেল ল্যাবরেটরিতে (আরটিআরএল) ৩১টি নমুনা পরীক্ষা করে ৮ জন, চট্টগ্রাম মেডিক্যাল সেন্টার ল্যাবে ১৮টি নমুনা পরীক্ষা করে ৫ জন, পটিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৩টি নমুনা পরীক্ষা করে ১ জন এবং এপিক হেলথ কেয়ার ল্যাবে ৫টি নমুনা পরীক্ষা করে ২ জনের করোনা আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন।

অন্যদিকে কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে চট্টগ্রামের ৬৩টি নমুনা পরীক্ষা করে ৫ জনের শরীরে করোনা ভাইরাসের অস্তিত্ব মিলেছে।

সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি জানান, ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামে ১ হাজার ১৬১টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে আক্রান্ত হয়েছেন ১১৪ জন। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে নগরে ৬৬ জন এবং উপজেলায় ৪৮ জন।



আরও খবর



বিশ্বে করোনাভাইরাসে মৃত্যু ৩৪ লাখ ৪৪ হাজার ছাড়াল

প্রকাশিত:শুক্রবার ২১ মে 20২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৫ জুন ২০২১ | ৮৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বিশ্বে মহামারি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৩৪ লাখ ৪৪ হাজার। একই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১৬ কোটি ৫৮ লাখেরও বেশি মানুষ।

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানির পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্যানুযায়ী, শুক্রবার (২১ মে) সকাল ৭টা পর্যন্ত পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে মারা গেছেন আরও প্রায় ১৩ হাজার মানুষ এবং আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় সাড়ে ৬ লাখ। এ নিয়ে বিশ্বে এখন পর্যন্ত মোট করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৩৪ লাখ ৪৪ হাজার ২৫৮ জনের এবং আক্রান্ত হয়েছেন ১৬ কোটি ৫৮ লাখ ৩১ হাজার ১৬১ জন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১৪ কোটি ৬৫ লাখ ১৬ হাজার ৮৯৩ জন।

করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও মৃত্যু হয়েছে বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশ যুক্তরাষ্ট্রে। তালিকায় শীর্ষে থাকা দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনা সংক্রমিত হয়েছেন ৩ কোটি ৩৮ লাখ ৩২ হাজার ৫০৮ জন। মৃত্যু হয়েছে ৬ লাখ ২ হাজার ৬১৪ জনের।

আক্রান্তে দ্বিতীয় ও মৃত্যুতে তৃতীয় অবস্থানে থাকা ভারতে এখন পর্যন্ত মোট সংক্রমিত হয়েছেন ২ কোটি ৬০ লাখ ৩০ হাজার ৬৭৪ জন এবং এখন পর্যন্ত মোট মৃত্যু হয়েছে ২ লাখ ৯১ হাজার ৩৬৫ জনের। আক্রান্তে তৃতীয় এবং মৃত্যুতে দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ব্রাজিলে এখন পর্যন্ত করোনায় এক কোটি ৫৮ লাখ ৯৮ হাজার ৫৫৮ জন সংক্রমিত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ৪ লাখ ৪৪ হাজার ৩৯১ জনের।

আক্রান্তের দিক থেকে ৪র্থ স্থানে রয়েছে ফ্রান্স। দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫৫ লাখ ৬৮ হাজার ৫৫১ জন। ভাইরাসটিতে মারা গেছেন এক লাখ ৮ হাজার ৩১৪ জন। এ তালিকায় পঞ্চম স্থানে রয়েছে তুরস্ক। দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ৫১ লাখ ৬০ হাজার ৪২৩ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন ৪৫ হাজার ৬২৬ জন। এদিকে আক্রান্তের তালিকায় রাশিয়া ষষ্ঠ, যুক্তরাজ্য সপ্তম, ইতালি অষ্টম, স্পেন নবম এবং জার্মানি দশম স্থানে রয়েছে।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরের শেষ দিকে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান থেকে করোনাভাইরাস সংক্রমণ শুরু হয়। এখন পর্যন্ত বাংলাদেশসহ বিশ্বের ২১৮টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে কোভিড-১৯।

নিউজ ট্যাগ: করোনাভাইরাস

আরও খবর



চুমু থেকে ছড়াতে পারে করোনা

প্রকাশিত:শনিবার ০৫ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৪ জুন ২০২১ | ৮৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
এইচআইভি বা হেপাটাইটিস বি-র মতো রোগ সংক্রমণের কিছুটা সম্ভাবনা থাকে। কাউকে চুমু খাওয়ার সময় দাঁতের কামড়ে ঠোঁট কেটে গেলে সামান্য হলেও সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাস কোনোভাবেই নিয়ন্ত্রণে আসছে না। বিশ্বের বিভিন্ন গবেষক ও বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা ভাইরাসটিকে নির্মূল করার জন্য চেষ্টা চালাচ্ছে। বিভিন্ন দেশ ও অঞ্চলে প্রতিনিয়ত ভ্যাকসিন প্রদান করা হচ্ছে। তারপরও প্রতিদিন মৃত্যু হচ্ছে অদৃশ্য শক্তিশালী এই ভাইরাসে। তবে এই সময়ের মধ্যে প্রেম থেমে নেই কারো। আর প্রেমে থাকলে তো ভালোবাসার মানুষকে চুমু খাওয়া খুব স্বাভাবিক ব্যাপার।

করোনার এই সময় সঙ্গীকে চুমু খাওয়া কতটুকু নিরাপদ, এ নিয়ে অনেক প্রেমিক যুগলের মনে প্রশ্ন রয়েছে। হালকা চুমু ঠিক আছে। কিন্তু ফ্রেঞ্চ কিস? করোনার এই সময় সচেতন প্রেমিকরা তো এই বিশেষ সময়ও সচেতন। ফ্রেঞ্চ কিস করলে তো জীবাণু প্রবেশ করবে না, করোনা হওয়ার শঙ্কা হবে না- ইত্যাদি ইত্যাদি বিভিন্ন প্রশ্ন জাগে মনে।

সুন্দর এই জিনিসকে অর্থাৎ ফ্রেঞ্চ কিসকে এখন পর্যন্ত বিশ্বের সেরা চুমু হিসেবেই মানা হয়। এই চুমুর সময় একজন অপরজনের মুখের ভেতর ঠোঁট, জিভ গভীরভাবে প্রবেশ করেন। দীর্ঘক্ষণ এভাবে অবস্থান করেন উভয়ই। আর এই মুহূর্তে শরীরে শিহরণ জেগে উঠার সঙ্গে সঙ্গে আবেগেরও সঞ্চার হতে থাকে। গভীরভাবে চুমু আদান-প্রদানের সময় একে অপরের মুখের লালারসও আদান-প্রদান হয়। এ কারণে রোগের আশঙ্কা করা হয়।

চুমুতে শরীর ভালো থাকবে: আপাত দৃষ্টিতে ফ্রেঞ্চ কিস থেকে রোগ সংক্রমণের কোনো ভয় নেই। বরং এতে মন ভালো হয়। তবে ভয়ের ব্যাপার হলো, দুজনের মধ্যে একজন যদি কোনো রোগে সংক্রমিত থাকেন তাহলে একজনের দ্বারা অপরজনের মধ্যে তা অনায়াসে সংক্রমিত হয়। এমনকি মুখের ইনফেকশন তো হয়ই এবং করোনা ছড়ানোরও সম্ভাবনা থাকে ফ্রেঞ্চ কিসের মাধ্যমে।

ফ্রেঞ্চ কিসের মাধ্যমে এইচপিভি (Human Papillomavirus) সংক্রমণও ছড়াতে পারে। তা থেকে এইচআইভি বা হেপাটাইটিস বি-র মতো রোগ সংক্রমণের কিছুটা সম্ভাবনা থাকে। কাউকে চুমু খাওয়ার সময় দাঁতের কামড়ে ঠোঁট কেটে গেলে সামান্য হলেও সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

যাদের ওসিডি (Obsessive Compulsive Disorder) সমস্যা রয়েছে তারা ফ্রেঞ্চ কিসের পর অনেক উদ্বেগে ভোগেন। এছাড়া দুজনের একজনের যদি এই ফ্রেঞ্চ কিসে অনীহা থাকে তাহলে সম্পর্কে কুপ্রভাব পড়ে। কেননা, একজন আরেকজন সঙ্গীর চাহিদা পূরণে ব্যর্থ হলে সেই সম্পর্ক দীর্ঘায়িত হয় না।

রোগ সংক্রমণের কোনো সম্ভাবনা বা আশঙ্কা না থাকলেও ফ্রেঞ্চ কিসের সময় বেশ কিছু বিষয়ে খেয়াল রাখা উচিত। এবার তাহলে সেই সকল বিষয়গুলো জেনে নেয়া যাক-

চুমু খাওয়ার আগে মুখের ভেতরের পরিচ্ছন্নতার বিষয়ে সতর্ক থাকুন।

চুমু খাওয়ার সময় মুখ থেকে দুর্গন্ধ বের হলে সম্পর্কের ইতি হতে পারে।

মুখে ইনফেকশন থাকলে চিকিৎসা করান। রোগ সাড়িয়ে তারপরই সঙ্গীকে চুমু দিন।

ফ্রেঞ্চ কিসের আগে এমন কিছু খাবেন না যা থেকে মুখে দুর্গন্ধ হতে পারে।

চুমু খাওয়ার আগে সুগন্ধি দিয়ে মুখশুদ্ধি করে নিন। সমীক্ষা বলছে চুমুর সময় স্বাভাবিক মুখ থাকলে সঙ্গী স্বস্তি পান।

চুমুর পর কখনোই সঙ্গীর সামনে মুখ ধুবেন না। এতে সে ভাববে আপনি তার প্রতি অস্বস্তি বোধ করছেন।


আরও খবর