শিরোনাম

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এতিমখানায় হামলা, ৩১ ছাত্র আহত

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৪ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৩৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার একটি এতিমখানায় হামলা চালিয়ে ৩১ জন ছাত্রকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। খেলা নিয়ে বাগবিতণ্ডার জেরে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় পৌর এলাকার কলেজপাড়ার মদিনাতুল তাহফিজ একাডেমি ও এতিমখানায় এ হামলার ঘটনা ঘটে। আহত মাদরাসার ছাত্ররা ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছে।

এতিমখানার পরিচালক হাফেজ মো. ইমরান সাংবাদিকদের জানান, বিকেলে এতিমখানার পাশেই ছাত্ররা খেলাধুলা করছিল। এ সময় স্থানীয় এক ছেলের সঙ্গে বাগবিতণ্ডা হয়। পরবর্তী সময়ো সন্ধ্যায় দল বেঁধে স্থানীয় নারী-পুরুষ মিলে এতিমখানায় হামলা চালিয়ে ছাত্রদেরকে পিটিয়ে আহত করে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ এমরানুল ইসলাম জানান, বালুরমাঠে ফুটবল খেলার সময় মাদরাসাছাত্রদেরকে বাধা দেন স্থানীয় এক তরুণ। ওই তরুণ ক্রিকেট খেলবে জানিয়ে এতিমখানার ছাত্রদের চলে যেতে বলেন। এ নিয়ে বাগবিতণ্ডার জেরে হামলার ঘটনা ঘটেছে।


আরও খবর



৩৪ হাজার টাকা নিয়ে ভোটকেন্দ্রে নৌকার এজেন্ট, ৩ মাসের জেল

প্রকাশিত:রবিবার ২৬ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৭৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
সকালে ভোটকেন্দ্রে বেপরোয়া আচরণ দেখে মহসিনের দেহ তল্লাশি করা হয়। পরে পকেটে নগদ ৩৪ হাজার টাকা পাওয়া যায়

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিজয়নগর উপজেলায় ভোটকেন্দ্র থেকে টাকাসহ মহসিন ভূইয়া (৩২) নামে নৌকা প্রতীকের এক পোলিং এজেন্টকে আটক করেছে পু্লিশ।

রবিবার (২৬ ডিসেম্বর) সকালে উপজেলার আদমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্র থেকে তাকে ৩৪ হাজার টাকাসহ আটক করা হয়। পরে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ এইচ ইফরান উদ্দিন আহম্মেদ জানান, সকালে ভোটকেন্দ্রে বেপরোয়া আচরণ দেখে মহসিনের দেহ তল্লাশি করা হয়। পরে পকেটে নগদ ৩৪ হাজার টাকা পাওয়া যায়। টাকার উৎস জানতে চাইলে সন্তোষজনক জবাব দিতে পারেনি। পরে তাকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে তিন মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও প্রশাসন) জানান, মহসিন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী কামরুজ্জামান রতনের নৌকা প্রতীকের পোলিং এজেন্ট।

নিউজ ট্যাগ: ব্রাহ্মণবাড়িয়া

আরও খবর



দেশের ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে টিকা দেওয়া হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৬১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, আমরা এরই মধ্যে ৩১ কোটি টিকার ব্যবস্থা করেছি। এই টিকা থেকে প্রতি মাসেই প্রয়োজনীয় পরিমাণে টিকা আমাদের হাতে চলে আসছে। এর মধ্যেই ৭ কোটি প্রথম ডোজ, ৫ কোটি দ্বিতীয় ডোজসহ মোট ১২ কোটি টিকা দেওয়া সম্ভব হয়েছে। আমাদের লক্ষ্য পূরণ করতে বুস্টার ডোজসহ মোট ২৮ কোটি টিকার প্রয়োজন হবে। সরকার ৩১ কোটি টিকার ব্যবস্থা করেছে। কাজেই বুস্টার ডোজসহ লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করে হাতে আরও ৩ কোটি থাকবে।

মন্ত্রী বলেন, এরই মধ্যে আমরা স্কুল পর্যায়সহ বস্তিতে গিয়েও টিকা দিয়েছি। আগামী মাস থেকে প্রতি মাসেঅন্তত ৪ কোটি দেওয়ার কাজ শুরু করছি। এজন্য আগামী মাস থেকেই দেশের প্রতিটি ওয়ার্ডে টিকা দেওয়ার উদ্যোগ নিচ্ছি। এতে আশা করা যায়, আগামী মে-জুনের মধ্যেই লক্ষ্যমাত্রা পূরণে সক্ষম হবো।

বুধবার (২৯ ডিসেম্বর) দুপুরে রাজধানীর ঢাকা ক্লাবে এসেনসিয়াল ড্রাগস লিমিটেডের (ইডিসিএল) বার্ষিক সাধারণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, দেশে ইডিসিএলের উৎপাদন চাহিদা দিন দিন বেড়েই চলছে। দেশের পাশাপাশি বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে নানা রকম ওষুধের উৎপাদনের চাহিদাও পাচ্ছে ইডিসিএল। কিন্তু সে তুলনায় ইডিসিএল স্বয়ংসম্পূর্ণ নয়। অবকাঠামো দুর্বলতা, যন্ত্রপাতির ঘাটতি, ফ্যাক্টরির জায়গা স্বল্পতাসহ এখানে নানা রকম সমস্যা রয়েছে। এজন্য ইডিসিএলের জন্য একটি অত্যাধুনিক কারখানা নির্মাণের বিল এখন একনেকে রয়েছে। এটি দ্রুতই সম্পন্ন হবে। এসব উদ্যোগ সম্পন্ন করার পর ইডিসিএল আরও বেশি শক্তিশালী হবে।

তিনি আরও আরও বলেন, বাংলাদেশ করোনা মোকাবিলায় বিশ্ববাসীর প্রশংসা পেয়েছে। সাউথইস্ট এশিয়ায় করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশ প্রথম হয়েছে। ব্লুমবার্গ প্রশংসা করেছে। ১২০টি হাসপাতালে সেন্ট্রাল অক্সিজেন লাইন করা হয়েছে। ফিল্ড হাসপাতাল করা হয়েছে। হাসপাতাল বেড বাড়ানো হয়েছে। দেশে করোনার সময় কোথাও ওষুধ বা অক্সিজেন সংকট দেখা দেয়নি। সঠিক চিকিৎসা গাইডলাইন ছিল বলেই করোনা এখন নিয়ন্ত্রণে। সামনে ওমিক্রনে আবার চাপ বাড়তে পারে। সেক্ষেত্রে শুধু ভ্যাকসিন ওমিক্রন ঠেকাবে না। আমাদের স্বাস্থ্যবিধি যথার্থ নিয়মে মানতে হবে। তাহলেই ওমিক্রন ছড়াবে না। ওমিক্রন মোকাবিলায় সবাইকে মাস্ক পরারও আহ্বান জানান জাহিদ মালেক।

স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সিনিয়র সচিব লোকমান হোসেন মিয়ার সভাপতিত্বে সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক প্রফেসর এবিএম খুরশিদ আলম, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর শারফুদ্দিন আহমেদ, পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সাহান আরা বানু, ডিজিডিএর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মাহবুবুর রহমান প্রমুখ। সভায় মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন ইডিসিএলর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. এহসানুল কবির।


আরও খবর

দেশে মোট ৫৫ জনের দেহে ওমিক্রন শনাক্ত

সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২




সাইকোলজিক্যাল হ্যাক

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২১ ডিসেম্বর 20২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৬ জানুয়ারী ২০২২ | ৭৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

প্রথমেই আমরা জেনে নেব সাইলোজিক্যাল হ্যাক কী? সাইকোলজিক্যাল হ্যাক আসলে বুদ্ধিমত্তার প্রয়োগে কাউকে হারানোকেই বোঝায়।

আরও সহজ করে বলা যায়, মস্তিষ্ককে ধোঁকা খাওয়ানো, কথার চতুরতা ইত্যাদি। অনেকটা ব্রেইন গেমের মতো। কাউকে মানসিকভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে চাইলে সাইকোলজিক্যাল হ্যাক কাজে লাগে।

আজ আমরা এমন কিছু সাইকোলজিক্যাল হ্যাক সম্পর্কে জানব, যা আপনার জীবন চলার পথে আরও সুগম করবে। আপনার ব্যক্তিগত ও কর্মজীবনে যা মেনে চললে বা প্রয়োগ করলে অনেক লাভবান হবেন।

চলুন জেনে নেওয়া যাক

১. কথা বলার সময় শ্রোতার মনোযোগ ধরে রাখতে চান? কিংবা কাউকে প্রশ্ন করে সত্য উদ্ঘাটন করতে চান?

তার চোখের দিকে তাকিয়ে আপনার প্রতিবিম্ব লক্ষ্য করে কথা বলুন, সে সম্মোহিত হয়ে যাবে। নার্ভাস ফিল করবে। যথাযথ জবাব দেবে। তবে এটা কেবল স্থির দণ্ডায়মান এবং আলোর বিপরীতে থাকলেই সম্ভব হয়।

২. কাউকে কোনো কাজের জন্য জিজ্ঞেস না করে অনুরোধ করুন।

যেমন ধরুন আমরা সচরাচর এমনভাবে প্রশ্ন করে থাকি, আপনি কি আমার এই কাজটি করে দিতে পারবেন? না, এভাবে প্রশ্ন করবেন না। সরাসরি অনুরোধ করবেন যে, দয়া করে আপনি আমার এই কাজটি করে দিন। দেখবেন তখন আর সে আপনাকে না করতে পারবে না। তাই কাউকে দিয়ে কোনো কাজ করিয়ে নেওয়ার এই সাইকোলজিক্যাল হ্যাকটা অনেক কার্যকারী।

৩. অবহেলাকারীর সঙ্গে আই কন্টাক্ট করুন।

যখন আপনি কারও সঙ্গে একটানা কথা বলেন এবং সে আপনার কথায় মনোযোগী না হয় অর্থাৎ আপনাকে ইগনোর করার চেষ্টা করে তখন কিছুক্ষণের জন্য কথা বলা থামিয়ে দিন। তার দুই চোখে চোখ রাখবেন। চোখ নামাবেন না। ফলে সে ইতস্তত বোধ করবে এবং আবার আপনার কথায় মনোযোগী হবে।

৪. আপনার হাসিতেই অন্যকে সম্মোহিত করার শক্তি আছে, তাই হাসিটা নির্মল ও সুন্দর রাখুন।

৫. বক্তৃতা দেওয়ার সময় সঙ্গে পানির বোতল সামনে রাখুন।

অনেকে এমন আছেন যারা কোনো সমাবেশে জনসম্মুখে কথা বলতে গেলে নার্ভাস ফিল করেন। বারবার গলা শুকিয়ে যায়, কথা আটকে যায়। তারা সঙ্গে করে একটি পানির বোতল রাখতে পারেন। এতে গলা শুকিয়ে গেলে যেমন পানি পান করতে পারবেন, তেমন পানি খাওয়ার বিরতিতে আপনি ঠিক কী বলতে চান তা মনে করতে পারবেন।

তা ছাড়া পানি খাওয়ার ফলে, মুড রিফ্রেশ হবে, নার্ভ শিথিল হবে, আর আপনার বক্তৃতাও ভালো হবে। জনসম্মুখে কথা বলতে যারা নার্ভাস ফিল করেন, তারা এই সাইকোলজিটা ফলো করলে সুফল পাবেন।

৬. ডি মোটিভেশনকে মোটিভেশন হিসেবে ব্যবহার করুন।

ধরুন আপনি কাউকে দিয়ে আপনার কোনো কাজ করাবেন বা অন্য কেউ তাকে দিয়ে কোনো কাজ করাবে, তখন তাকে এভাবে বলবেন যে, তুমি তো এই কাজ পারবেই নাতোমার দ্বারা হবে না, ছেড়ে দাও

তখন দেখবেন তার মনে কাজটা ভালো এবং সুন্দরভাবে করে দেওয়ার আগ্রহ জাগবে, সেটি জেদ করেই হোক, সে চাইবে কাজটা করে আপনাকে দেখিয়ে দিতে। আর বুঝিয়ে দিতে চাইবে না সে পেরেছে, আপনি ভুল ছিলেন।

৭. দেহভঙ্গি দিয়ে সামনের জনের প্রতি আগ্রহ প্রকাশ করুন।

যখন আপনি কারও সঙ্গে কথা বলবেন, তখন হালকা করে মাথা ও হাত নাড়িয়ে কথা বলবেন। এতে সামনের জন মনে করবে আপনি তার সঙ্গে কথা বলতে আগ্রহ পাচ্ছেন বা আপনার তার সাথে কথা বলতে ভাল লাগছে।

এতে দেখবেন যার সাথে কথা বলবেন সে অনেক বন্ধুত্বপূর্ণ হয়ে যাবে এবং আপনার সাথে সবকিছু শেয়ার করবে। এই সাইকোলজিক্যাল হ্যাক মানুষের সাথে ভালো সম্পর্ক স্থাপনে সাহায্য করে। আপনার প্রিয় ব্যক্তির সাথে ভালো সম্পর্ক তৈরি করতে এই টিপস ফলো করুন।

৮. সকালে চোখের ঘুম ঘুম ভাব দূর করতে চান?

 সকালে যখন ঘুম ভাঙে, তখন চোখের ঘুম ভাব দূর করতে উঠে বসে পড়ুন। অতঃপর দুই হাত এপরে তুলে জোরে বলুন ইয়ে। খেলা দেখার সময় অনেকে তাদের এক্সসাইটমেন্ট যেভাবে প্রকাশ করে সেভাবে আরকি।

শুনতে অদ্ভুত লাগলেও এটি আপনাকে সকালে রিফ্রেশ করতে অনেক কাজে দিবে। দেখবেন তৎক্ষণাৎ ঘুম ঘুম ভাব দূর হয়ে যাবে।

৯. অন্য কাজে মনোযোগী থাকা লোক দিয়ে নিজের কাজ করিয়ে নিন।

ধরুন, কেউ অনেক মনোযোগ দিয়ে কোন কাজ করছে। যেমন ফোনে অনেক মনোযোগ দিয়ে কারো সাথে কথা বলছে। তখন আপনি আপনার যে কোনো জিনিস তার হাতে ধরিয়ে দিতে পারবেন, যা সে মনে রাখতে পারবে না আপনি কখন দিয়েছেন। এমন করে নিজের কাজ আপনি তাকে দিয়ে করিয়ে নিতে পারবেন। আবার উল্টোটাও হয় তার হাতে থাকা যে কোনো জিনিস আপনি নিয়ে নিতে পারবেন। এটিও সে মনে রাখতে পারবে না, সে কখন দিয়েছে।

১০. যখন কেউ আপনার দিকে তাকিয়ে থাকবে আপনি তখন তার জুতোর দিকে তাকাবেন।

রাস্তায় বা বাস গাড়িতে যখন কেউ এক দৃষ্টিতে আপনার দিকে তাকিয়ে থাকবে, তখন আপনিও এক দৃষ্টিতে তার জুতার দিকে তাকিয়ে থাকবেন। চোখ সরাবেন না। দেখবেন তার মধ্যে ইতস্তত ভাব কাজ করবে, সে লজ্জাবোধ করবে। এবং তখন আপনার থেকে চোখ সরিয়ে নিতে একপ্রকার বাধ্য হবে। রাস্তাঘাটে বিশেষ করে মেয়েরা এই ট্রিকস টা ফলো করতে পারেন।

১১. চিন্তাশক্তির মাধ্যমে ক্লান্তি দূর করুন।     

 যদি আপনার আগের দিন রাতে ভালো ঘুম না হয় আর আপনি অনেক ক্লান্ত থাকেন,তা হলে মনে মনে ভাববেন আপনার ভালো ঘুম হয়েছে আপনি মোটেও ক্লান্ত না।

শুনতে আজব লাগলেও, এটি কিন্তু শতভাগ কার্যকারী। কলোরাডো কলেজ একটি পরীক্ষা করে জার্নাল অফ এক্সপেরিমেন্টাল সাইকোলজি বই এ প্রকাশ করেছেন যে, আপনি যদি মনে করেন আপনি খুব ভালোভাবে রেস্ট নিয়েছেন এবং আপনার মধ্যে কোনো ক্লান্তি নেই, তা হলে আপনার ব্রেন খুব ভালো ভাবে কাজ করে, যা ১০০ শতাংশ প্রমাণিত।

১২. প্রিয়জনের সঙ্গে দেখা করার সঠিক সময় কোনটি?

মানুষ সবসময় দিনের শুরুর ঘটনা এবং শেষের ঘটনা মনে রাখে। মাঝখানে সারাদিন যা হয় তা কিন্তু এত একটা মনে রাখে না। তাই সব সময় চেষ্টা করবেন কারো সাথে দেখা কিংবা জরুরি কোন মিটিং, চাকরির ইন্টারভিউ সকালে বা বিকালে করতে। এতে করে আপনার সাথে থাকা মানুষ আপনাকে সর্বদা মনে রাখবে।


আরও খবর

মুখে স্বাদ ফেরাতে বানান মুরগির পুলি

সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২

চাইনিজ সবজি রান্নার সহজ রেসিপি

সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২




মুশতারী শফী আর নেই

প্রকাশিত:সোমবার ২০ ডিসেম্বর ২০21 | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৮৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

একাত্তরের স্বাধীন বাংলা বেতারকেন্দ্রের শব্দসৈনিক, বীর মুক্তিযোদ্ধা, নারীনেত্রী ও সাহিত্যিক এবং উদীচী চট্টগ্রামের সভাপতি বেগম মুশতারী শফীর আর নেই।

সোমবার (২০ ডিসেম্বর) বিকেল চারটায় ঢাকায় একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বেগম মুশতারী শফী শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

৮৩ বছর বয়সী বেগম মুশতারী শফী দীর্ঘদিন ধরে শ্বাসকষ্টজনিত রোগে ভুগছিলেন। এ ছাড়া বার্ধক্যজনিত বিভিন্ন রোগও ছিল। মৃত্যুকালে তিনি দুই ছেলে ও চার মেয়েসহ অসংখ্য স্বজন রেখে গেছেন।

চিকিৎসার জন্য গত ২ ডিসেম্বর তাকে চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় নেওয়া হয়। বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে ভর্তির পর অবস্থার কিছুটা উন্নতি হলে রাজধানীতে মেয়ের বাসায় নিয়ে যাওয়া হয় মুশতারী শফীকে। এরপর গত ১৪ ডিসেম্বর শারীরিক অবস্থার আবার অবনতি হলে সিএমএইচ হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসকেরা তাকে আইসিইউতে স্থানান্তর করেন।

মুশতারী শফী ১৯৩৮ সালের ১৫ জানুয়ারি তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের পশ্চিমবঙ্গে জন্মগ্রহণ করেন। তার পৈতৃক নিবাস ফরিদপুর জেলায়। ১৯৭১ সালের এপ্রিলে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে তার স্বামী মোহাম্মদ শফী এবং ছোট ভাই এহসানকে পাকিস্তানের সেনাবাহিনী নির্মমভাবে হত্যা করে। তার পরিবার একাত্তরে চট্টগ্রামে স্বাধীনবাংলা বেতারকেন্দ্র প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।

এ ছাড়া বেগম মুশতারী শফী দীর্ঘসময় ধরে চট্টগ্রামসহ সারাদেশে প্রগতিশীল সাংস্কৃতিক ও নাগরিক আন্দোলনে সক্রিয় ছিলেন। একযুগেরও বেশি সময় ধরে তিনি উদীচী চট্টগ্রামের সভাপতির দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে সোচ্চার বেগম মুশতারী শফী দেশে প্রগতিশীল চেতনার বাতিঘর হিসেবে পরিচিত হয়েছিলেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে অনন্য ভূমিকা পালনের জন্য তাকে বাংলা অ্যাকাডেমি কর্তৃক ২০১৬ সালে ফেলোশিপ প্রদান করা হয়।

এদিকে তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছে চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন (সিইউজে)। শোক বার্তায় মরহুমার আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন সিইউজে।


আরও খবর



ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় টাকাসহ চেয়ারম্যান প্রার্থীর ভাই আটক

প্রকাশিত:বুধবার ০৫ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৫৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ভোট কেন্দ্রের ভেতরে মো. কারিফ (৩৮) নামে এক পোলিং এজেন্টকে নগদ টাকাসহ পাওয়ায় এক মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সদর উপজেলার নাটাই উত্তর ইউনিয়নের একটি ভোটকেন্দ্র থেকে তাকে আটক করা হয়। দণ্ডপ্রাপ্ত কারিফ ওই ইউনিয়নের স্বতন্ত্র প্রার্থী আনারস প্রতীকের হালিম শাহ লিল মিয়ার ছোট ভাই ও পোলিং এজেন্ট।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সামিন সারোয়ার জানান, তল্লাশিকালে পোলিং এজেন্টের কাছে নগদ ২৬ হাজার ৮০০ টাকা পাওয়া যায়। তিনি এই টাকা দিয়ে নির্বাচনকে প্রভাবিত করার চেষ্টা করেছেন। তাই তাকে এক মাসের কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: ব্রাহ্মণবাড়িয়া

আরও খবর