Logo
শিরোনাম

চার বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি বন্ধের নির্দেশ

প্রকাশিত:শুক্রবার ২০ জানুয়ারী ২০23 | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ৩৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সাময়িক সনদের মেয়াদ উত্তীর্ণ এবং নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে স্থায়ী ক্যাম্পাসে সব কার্যক্রম স্থানান্তর করতে ব্যর্থ হয়েছে এমন ১৮টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিষয়ে গৃহীত পদক্ষেপ সম্পর্কে বৃহস্পতিবার (১৯ জানুয়ারি) একটি গণবিজ্ঞপ্তি জারি করেছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)।

গণবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, কমিশনে চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে স্থায়ী ক্যাম্পাসে সব কার্যক্রম স্থানান্তর ও ক্যাম্পাস নির্মাণে দৃশ্যমান কোনো পদক্ষেপ না নেওয়ায় দেশের চারটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে সব প্রোগ্রামে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রাইম এশিয়া ইউনিভার্সিটি, স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ, আশা ইউনিভার্সিটি ও ভিক্টোরিয়া ইউনিভার্সিটির স্থায়ী ক্যাম্পাসে শিক্ষা কার্যক্রম স্থানান্তরিত না হওয়া পর্যন্ত সব প্রোগ্রামে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি সম্পূর্ণরূপে বন্ধ থাকবে।

স্টেট ইউনিভার্সিটি এবং মানারাত ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির স্থায়ী ক্যাম্পাস ব্যতীত অস্থায়ী ক্যাম্পাসে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি সম্পূর্ণরূপে বন্ধ থাকবে। তবে এ দুটি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থায়ী ক্যাম্পাসে পরিচালিত প্রোগ্রামসমূহ যথারীতি চালু থাকবে।

কমিশনের চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে স্থায়ী ক্যাম্পাসে স্থানান্তর ও ক্যাম্পাস নির্মাণের বিষয়ে দৃশ্যমান অগ্রগতি বিবেচনায় ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, রয়েল ইউনিভার্সিটি, সাউথইস্ট ইউনিভার্সিটি, সিটি ইউনিভার্সিটি, দ্য মিলেনিয়াম ইউনিভার্সিটি ও বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটিকে স্থায়ী ক্যাম্পাসে শিক্ষা কার্যক্রমসহ সম্পূর্ণ কার্যক্রম স্থানান্তরে আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত সময় দেওয়া হয়েছে।

উল্লিখিত সময়সীমার মধ্যে স্থায়ী ক্যাম্পাসে শিক্ষা কার্যক্রমসহ সব কার্যক্রম স্থানান্তরে ব্যর্থ হলে ১ এপ্রিল থেকে সব প্রোগ্রামে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি সম্পূর্ণরূপে বন্ধ থাকবে। একইসাথে এসব বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব স্থায়ী ক্যাম্পাস ব্যতীত সব অস্থায়ী ক্যাম্পাস বা ভবনগুলো অবৈধ বলে বিবেচিত হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, স্থায়ী ক্যাম্পাসে স্থানান্তর ও ক্যাম্পাস নির্মাণের বিষয়ে দৃশ্যমান অগ্রগতি এবং লিখিত অঙ্গীকার বিবেচনায় ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি, ইউনিভার্সিটি অব ডেভেলপমেন্ট অল্টারনেটিভ, গ্রিন ইউনিভার্সিটি, উত্তরা ইউনিভার্সিটি, প্রেসিডেন্সি ইউনিভার্সিটি এবং দ্য পিপলস ইউনিভার্সিটিকে স্থায়ী ক্যাম্পাসে শিক্ষা কার্যক্রমসহ সম্পূর্ণ কার্যক্রম স্থানান্তরে আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত সময় দেওয়া হয়েছে।

নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে স্থায়ী ক্যাম্পাসে শিক্ষা কার্যক্রমসহ সম্পূর্ণ কার্যক্রম স্থানান্তরে ব্যর্থ হলে সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়ে ১ জুলাই থেকে সব প্রোগ্রামে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি সম্পূর্ণরূপে বন্ধ থাকবে। একইসাথে এসব বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব স্থায়ী ক্যাম্পাস ব্যতীত সব অস্থায়ী ক্যাম্পাস বা ভবন অবৈধ বলে বিবেচিত হবে।

গৃহীত পদক্ষেপ সম্পর্কে গণবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সাময়িক সনদের মেয়াদ উত্তীর্ণ ও স্থায়ী ক্যাম্পাসে স্থানান্তরিত হয়নি এমন বিশ্ববিদ্যালয়কে গত ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে স্থায়ী ক্যাম্পাসে স্থানান্তরের জন্য ১১ এপ্রিল বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন নির্দেশনা দেয়। ওই চিঠিতে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে স্থায়ী ক্যাম্পাসে স্থানান্তরে ব্যর্থ হলে ১৯ জানুয়ারি থেকে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি বন্ধ থাকবে বলা হয়েছিল।

ইউজিসি জানায়, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন, ২০১০ মোতাবেক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ১২ বছরের মধ্যে নিজস্ব স্থায়ী ক্যাম্পাসে সব কার্যক্রম স্থানান্তরের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। এছাড়া আইনের ১২(১) ধারায় কোন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সাময়িক অনুমতিপত্রের মেয়াদের মধ্যে বা, ক্ষেত্রমত, নবায়নকৃত সাময়িক অনুমতিপত্রের মেয়াদের মধ্যে সনদপত্রের জন্য আবেদন করিতে ব্যর্থ হইলে, অথবা সনদপত্র প্রাপ্তির জন্য ধারা ৯ এর কোন শর্তপূরণে ব্যর্থ হইলে, উক্ত সাময়িক অনুমতিপত্র বা, ক্ষেত্রমত, নবায়নকৃত সাময়িক অনুমতিপত্রের মেয়াদ অবসানের সঙ্গে সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি ও শিক্ষা সংক্রান্ত সকল কার্যক্রম বন্ধ করিতে হইবে’ বলে উল্লেখ রয়েছে।


আরও খবর



ইন্টারনেট ছাড়া ইউটিউব ভিডিও দেখার ৩ উপায়

প্রকাশিত:সোমবার ২৩ জানুয়ারী 20২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ৩০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ভিডিও স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম ইউটিউবের জনপ্রিয়তা এখন সারাবিশ্বেই। প্রতিদিন বিশ্বব্যাপী কয়েকশো কোটি গ্রাহক এই প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করেন। শুধু বিনোদনের জন্যই নয় কন্টেন্ট তৈরি করে হাজার হাজার টাকা ইনকাম করা যায় ইউটিউব থেকে। ইউটিউব দেখতে আপনার স্মার্টফোনে ইন্টারনেট কানেকশন থাকতে হবে, একথা সবারই জানা। তবে সব সময় হয়তো ইন্টারনেট থাকে না। অনেক সময় স্লো ইন্টারনেট কানেকশনের কারণে ভিডিও স্ট্রিমিং বন্ধ করে দিতে হয়। তবে ইউটিউবের ভিডিও দেখতে পারবেন ইন্টারনেট ছাড়াই।

৩ উপায়ে আইফোন ও অ্যান্ড্রয়েড উভয় গ্রাহকরা অফিশিয়াল ইউটিউব অ্যাপ থেকেই অফলাইনে প্রায় সব ভিডিও দেখার সুযোগ পাবেন। চলুন দেখে নেওয়া যাক কীভাবে ইন্টারনেট কানেকশন ছাড়াই অফলাইনে ইউটিউবে ভিডিও দেখবেন-

ইউটিউব প্রমিয়াম: আপনি যদি ইউটিউব প্রিমিয়ামের সদস্য হন তাহলে খুব সহজেই ইন্টারনেট ছাড়াই ইউটিউবের ভিডিও দেখতে পাবেন। এটিকে অনেকেই রেড বা লাল ইউটিউব বলেন। মূলত ইউটিউব প্রিমিয়ামের সদস্য হলে ইউটিউব আইকনের ব্যাকগ্রাউন্ড সাদার পরিবর্তে লাল দেখায়। ইউটিউব প্রিমিয়ামের সদস্য হওয়ার পর ভিডিও ডাউনলোড করে নিতে পারেন অনলাইনে। এরপর অফলাইনে এগুলো দেখতে পাবেন।

থার্ড পার্টি অ্যাপ: থার্ড পার্টি অ্যাপ ব্যবহার করতে পারেন। এর মাধ্যমে ইউটিউবের পছন্দের নাটক, সিনেমা বা গানের ভিডিও ডাউনলোড করে সংরক্ষণ করতে পারেন। এরপর যে কোনো সময় সেই ভিডিও দেখে নিতে পারবেন। পিসি এবং ম্যাকে ৪কে ভিডিও ডাউনলোডার ব্যবহার করতে পারেন। ৪কে ভিডিও ডাউনলোডার একটি বিনামূল্যের অ্যাপ যা আপনাকে ইউটিউব থেকে আপনার ডেস্কটপ বা ম্যাকবুকে ভিডিও ডাউনলোড করতে দেয়। তবে অফিসিয়াল ওয়েবসাইট ছাড়া অন্য কোনো উৎস থেকে ৪কে ভিডিও ডাউনলোডার ডাউনলোড করবেন না।

ইউটিউব অ্যাপ: আপনার নিজের ফোন থেকেই ইউটিউবের অ্যাপ থেকে ভিডিও ডাউনলোড করতে পারবেন। এজন্য প্রথমে নিজের ফোনের ইউটিউব অ্যাপ ওপেন করুন। হোম পেজে ডান দিকে উপরে সার্চ আইকনে ট্যাপ করুন। এবার যে ভিডিও অফলাইনে দেখতে চান সেই ভিডিওটি সার্চ করুন। ভিডিও স্ট্রিমিং শুরু হলে নিচে ডাউনলোড আইকনে ট্যাপ করুন। এরপরে ডাউনলোডের কোয়ালিটি বেছে নিন। এবার অফলাইনে ইউটিউবের হোম পেজ থেকে ডাউনলোড অপশনে গিয়ে ভিডিও দেখতে পারবেন। সংরক্ষণ করতে পারবেন যতদিন ইচ্ছা।

নিউজ ট্যাগ: ইউটিউব

আরও খবর



টুঙ্গিপাড়ার পথে প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৬ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:রবিবার ২২ জানুয়ারী ২০২৩ | ২৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দুই দিনের সফরে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ার পথে রওনা হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা।শুক্রবার সকাল ৮টার দিকে সড়ক পথে গণভবন থেকে টুঙ্গিপাড়ার পথে রওনা হন তিনি।

সফরের প্রথম দিন দুপুর ১২টায় টুঙ্গিপাড়ার বঙ্গবন্ধু মাজার প্রাঙ্গণে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন শেখ হাসিনা। সেখানে তিনি ফাতেহা পাঠ ও মোনাজাতে অংশ নেবেন।

দুপুর ২টায় প্রধানমন্ত্রী সড়কপথে গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়া থেকে খুলনা যাবেন। খুলনায় নির্ধারিত কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ শেষে সন্ধ্যায় টুঙ্গিপাড়ায় ফিরে আসবেন তিনি। শুক্রবার টুঙ্গিপাড়ার নিজ বাড়িতে রাত্রিযাপন করবেন শেখ হাসিনা।

সফরের দ্বিতীয় দিনে শনিবার (৭ জানুয়ারি) দুপুর ১২টায় বঙ্গবন্ধুর মাজার প্রাঙ্গণে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের পক্ষে দলের শীর্ষ নেতাদের নিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন দলটির সভাপতি শেখ হাসিনা। সেখানে তিনি ফাতেহা পাঠ ও মোনাজাতে অংশগ্রহণ করবেন।

এদিন দুপুর সাড়ে ১২টায় গোপালগঞ্জ জেলার বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন এবং ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবেন প্রধানমন্ত্রী। দুপুর ১টায় টুঙ্গিপাড়ায় গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত সভায় যোগদান করবেন।

এরপর সেখানে দুপুর ২টায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নবনির্বাচিত জাতীয় পরিষদ, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ ও উপদেষ্টা পরিষদের যৌথ সভায় অংশ নেবেন শেখ হাসিনা।সন্ধ্যায় সড়কপথে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া থেকে ঢাকায় গণভবনে ফিরে আসবেন প্রধানমন্ত্রী।


আরও খবর



ছাত্রলীগের সংঘর্ষে রণক্ষেত্র সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৬ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২৫ জানুয়ারী ২০২৩ | ৪৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (সিকৃবি) ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ চলছে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৫ জন আহত হয়েছেন। তবে আহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

শুক্রবার (৬ জানুয়ারি) দুপুরে এই সংঘর্ষের সূত্রপাত ঘটে। এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থেমে থেমে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ চলছে।

সূত্র জানায়, কৃষি অর্থনীতি ও ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদে সম্মেলন ঘোষণাকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। সংঘর্ষের ঘটনায় ইতিমধ্যেই রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে সিকৃবি। সংঘর্ষ চলাকালেই ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে সম্মেলন স্থগিত ঘোষণা করেছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. এমাদুল হোসেন।

সরেজমিন দেখা গেছে, প্রক্টর, ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা দপ্তরের পরিচালকসহ হল প্রভোস্টদের ওপরও ছাদ থেকে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করা হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে।

এবিষয়ে বিকেল পৌনে ৫টার দিকে প্রক্টর ড. মনিরুল ইসলাম সোহাগ বলেন, প্রক্টরিয়াল বডি এবং শিক্ষকরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি শান্ত করেছি। এখন শুধু কিবরিয়া হলে কিছু ঝামেলা চলছে। অল্প কিছুক্ষণের মধ্যে আমরা এই হলের পরিস্থিতিও শান্ত করে ফেলবো।

তিনি আরও বলেন, প্রয়োজন পড়েনি বলে আমরা ক্যাম্পাসে পুলিশকে ডাকিনি।


আরও খবর

সিলেটে হোটেল থেকে যুবকের লাশ উদ্ধার

শুক্রবার ২০ জানুয়ারী ২০23




প্রাথমিকে অনলাইনে বদলি আবেদন চলবে ৮ জানুয়ারি পর্যন্ত

প্রকাশিত:সোমবার ০২ জানুয়ারী 2০২3 | হালনাগাদ:সোমবার ২৩ জানুয়ারী 20২৩ | ৫৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষকদের একই উপজেলায় দ্বিতীয় ধাপের অনলাইনে বদলি আবেদন আগামী ৮ জানুয়ারি পর্যন্ত চালু থাকবে। সোমবার (২ জানুয়ারি) প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক নাসরিন সুলতানা স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত বছরের ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে ৬ অক্টোবর পর্যন্ত সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের কাছ থেকে একই উপজেলার মধ্যে অনলাইন বদলির আবেদন গ্রহণ করা হয়। পরে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে সমন্বিত অনলাইন বদলি নির্দেশিকা (সংশোধিত) ২০২২ জারি হয়। একই উপজেলায় দ্বিতীয় দফা অনলাইন বদলি আবেদনের ক্ষেত্রে নিম্নলিখিত শর্ত মানতে হবে। এ ক্ষেত্রে আগামীকাল (৩ জানুয়ারি) থেকে ৮ জানুয়ারি ২০২৩ পর্যন্ত সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের একই উপজেলায় বদলির আবেদন কার্যক্রম চালু থাকবে।

অনলাইন বদলি আবেদনে নিম্নলিখিত শর্ত মানতে হবে- শিক্ষকরা ক্রমানুসারে সর্বোচ্চ তিনটি বিদ্যালয় পছন্দের তালিকায় রাখবেন। তবে কোনো শিক্ষকের একাধিক পছন্দ না থাকলে শুধুমাত্র একটি বা দুইটি বিদ্যালয় পছন্দ করতে পারবেন। আবেদনের প্রেক্ষিতে বদলির আদেশ জারি হলে তা বাতিল করতে পরে কোনো আবেদন গ্রহণযোগ্য হবে না।

যাচাইকারী কর্মকর্তা প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে ২২ ডিসেম্বর ২০২২ তারিখে জারি করা সবশেষ সমন্বিত অনলাইন বদলি নির্দেশিকা (সংশোধিত) ২০২২ অনুযায়ী আবেদনকারীর আবেদন ও অন্যান্য কাগজপত্র যাচাই করবেন। যাচাইকারী কর্মকর্তা সতর্কতার সঙ্গে কাজটি করবেন। পরে পুনর্বিবেচনার আবেদন করলে তা গ্রহণযোগ্য হবে না।

উল্লেখ্য, আবেদনকারীর পছন্দক্রম অনুযায়ী বদলি হওয়ার নিশ্চয়তা নেই। একাধিক আবেদনকারীর পছন্দকে সফটওয়্যারের মাধ্যমে নির্বাচিত করা হয়। এ ক্ষেত্রে কোনো হস্তক্ষেপের সুযোগ নেই।


আরও খবর



উদ্বোধনের তিন দিনের মাথায় মাঝ গঙ্গায় আটকে গেল গঙ্গা বিলাস

প্রকাশিত:সোমবার ১৬ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩ | ৩৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বাংলাদেশ ও ভারতের মাঝে বিশ্বের দীর্ঘতম নৌবিহার গঙ্গা বিলাস’ উদ্বোধনের তিন দিনের মাথায় বিভ্রাটের মুখোমুখি হয়েছে। ভারতের উত্তরপ্রদেশ থেকে যাত্রা শুরুর পর সোমবার মাঝ গঙ্গায় আটকে গেছে বিলাসবহুল এই প্রমোদতরী। বিহার রাজ্যের ছাপরায় গঙ্গার অগভীর পানিতে হঠাৎ গঙ্গা বিলাস’ আটকা পড়েছে বলে দেশটির গণমাধ্যমের খবরে জানানো হয়েছে।

উত্তরপ্রদেশের বারানসীর রামনগরের সন্ত রামদাস ঘাট থেকে এই নৌবিহার তার যাত্রা শুরু করে বিহার-ঝাড়খণ্ড-কলকাতা-বাংলাদেশ হয়ে আগামী ১ মার্চ তা পৌঁছানোর কথা আসামের ডিব্রুগড়ে। ওই নৌবিহারে সুইজারল্যান্ডের ৩২ জন পর্যটক রয়েছেন।

কিন্তু গঙ্গা নদীতে কম পানি থাকার কারণে বিহারের ছাপড়ার দড়িগঞ্জ নামক জায়গায় মাঝ গঙ্গায় তা আটকে যায় এবং সেখানেই সেটি নোঙর করে। জানা গেছে, পর্যটকদের চিরান্দ’ নামক একটি প্রত্নতাত্ত্বিক জায়গা দর্শনের জন্য গঙ্গা তীরে নোঙর করার কথা ছিল নৌবিহারটির। কিন্তু তার আগেই এই বিপত্তি।

এ ঘটনার সামনে আসার পরই রাজ্য সরকারের দুর্যোগ মোকাবিলা কর্তৃপক্ষের (এসডিএমএ) একটি প্রতিনিধি দল ঘটনাস্থলে পৌঁছায় এবং যাত্রীদের নিরাপদে উদ্ধার করে। এরপর একটি ছোট্ট বোটে করে পর্যটকদের দক্ষিণ পূর্বছাপড়ার চিরান্দ শরণ’এ পৌঁছে দেওয়া হয়।

ঘটনাটি সম্পর্কে বলতে গিয়ে ছাপড়ার সিও সতেন্দ্র সিং জানান,  চিরান্দে পর্যটকদের জন্য পর্যাপ্ত ব্যবস্থা করা হয়েছে। এসডিএমএ’এর টিম ঘাটে মোতায়েন রয়েছে, যাতে কোনো অপ্রীতিকর পরিস্থিতির ক্ষেত্রে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়া যায়। গঙ্গা নদীতে পানি কম থাকার কারণে নৌবিহারকে তীরে আনতে সমস্যা হচ্ছে। তাই ছোট ছোট বোট দিয়ে পর্যটকদের আনার চেষ্টা করা হচ্ছে।’

দীর্ঘ ৩,২০০ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করবে এই নৌবিহার। গোটা যাত্রাপথ অতিক্রম করতে সময় লাগবে প্রায় ৫১ দিন। এই যাত্রাপথে ভারতের পাঁচটি রাজ্যের পাশাপাশি বাংলাদেশের জলপথ ছুয়ে যাবে। সেক্ষেত্রে প্রায় ২৭টি নদী প্রণাণির মধ্য দিয়ে যাবে এবং যাত্রাপথে ৫০ টিরও বেশি দর্শনীয় স্থান পরিদর্শনের জন্য ওই স্টপেজগুলোতে দাঁড়াবে নৌবিহারটি। এর মধ্যে রয়েছে সুন্দরবন ডেল্টা, গঙ্গা আরতি, অসমের মায়ং’এর কালো জাদু এবং কাজিরাঙ্গা জাতীয় উদ্যানের মতো পার্ক। যাত্রাপথেই পরিযায়ী পাখি, কাছিম, পাখির কলতান, বীচের সৌন্দর্য উপভোগ করা যাবে।

গঙ্গা বিলাস নামের এই নৌবিহারের দৈর্ঘ্য ৬২.৫ মিটার, প্রস্থ ১২.৮ মিটার। এতে ১৮টি স্যুট আছে, সেই সাথে আছে এলইডি টিভি, স্মোক ডিটেক্টর লাইফ জ্যাকেট, ফ্রেঞ্চ ব্যালকনি, রেস্তোরা, স্পা, সানডেক ইত্যাদি। এই নৌবিহারে ৩৬ জন পর্যটক ও প্রায় ৪০ জন ক্রু মেম্বারসহ প্রায় ৮০ যান মানুষের থাকার বন্দোবস্ত আছে।

ক্ষেত্রবিশেষে প্রতিদিন যাত্রীপিছু এই যাত্রার জন্য টিকিটের দাম ধার্য করা হয়েছে প্রায় ২৫ হাজার রুপি, সেক্ষেত্রে ৫১ দিনের যাত্রার জন্য যাত্রীপিছু খরচ পড়বে প্রায় ১৩ লাখ রুপি।

নিউজ ট্যাগ: গঙ্গা বিলাস

আরও খবর