Logo
শিরোনাম

ছদ্মবেশে ঢাকা মেডিকেলে দুদকের অভিযান

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২ | ৯৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ছদ্মবেশে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতলে (ঢামেক) অভিযান চালিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) এনফোর্সমেন্ট টিম।

রোববার (২৮ আগস্ট) দুদকের প্রধান কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক রনজিৎ কুমার কর্মকার ও মোহাম্মদ নুর আলম সিদ্দিকী সমন্বয়ে গঠিত এনফোর্সমেন্ট টিম অভিযান পরিচালনা করে। দুদকের উপ-পরিচালক (জনসংযোগ) মুহাম্মদ আরিফ সাদেক বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

দালালের মাধ্যমে অবৈধ আর্থিক সুবিধা নিয়ে বহির্বিভাগের রোগীদের বিভিন্ন কাজ করছেন ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে বেশ কয়েকজন কর্মচারী এমন অভিযোগের ভিত্তিতে এ অভিযান পরিচালনা করে তারা।

অভিযান চালিয়ে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলেও এ সময় দুদকের উপস্থিতি টের পেয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মচারী ও অনেক দালাল পালিয়ে গেছে বলে জানা যায়।

দুদক সূত্র জানায়, ঢাকা মেডিকেল কলেজের কর্মচারী আলী, রাজিবসহ অন্যান্যদের বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়া গেছে যে তারা দ্রুত কাজ করে দেওয়ার নাম করে বহির্বিভাগে আগত রোগীদের কাছ থেকে ঘুষ নেন। এই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে রোববার সেখানে অভিযান চালিয়েছে দুদক টিম।

অভিযানকালে দুদক টিম ছদ্মবেশে বহির্বিভাগ পর্যবেক্ষণ করে। এসময় টিম দেখতে পায়, আগত রোগীদের কাছ থেকে বিভিন্ন কাজ করে দেওয়ার নাম করে কিছু ব্যক্তি অবৈধ সুবিধা নিচ্ছে। পরবর্তীতে অভিযোগের বিষয়ে ঢামেক পরিচালক ও উপ-পরিচালকের সঙ্গে আলোচনা করা হয়।

ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ জানায়, উল্লেখিত আলী নামের ওই ব্যক্তি ঢামেকের কেউ নন। তবে আলী নামের এক দালাল বহির্বিভাগে এরকম অবৈধ কাজ করেন বলে জানা যায়। যদিও অভিযানকালে তাকে খুঁজে পাওয়া যায়নি।

অভিযোগে উল্লেখিত অপর ব্যক্তি রাজিবকেও খুঁজে পাওয়া যায়নি। অভিযোগের বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে ঢামেক কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করেছে টিম।


আরও খবর



‘স্কুইড গেম’-এ দেখা যাব লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিওকে?

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০22 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২ | ৪২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

স্কুইড গেম-এ দেখা যেতে পারে হলিউড অভিনেতা লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিওকেও, এমনটাই জানালেন নির্মাতা হোয়াং দং-হিউক। নেটফ্লিক্স স্কুইড গেম-এর জন্য বাজেট বাড়িয়েছে বহুগুণে। আর তাই রেড লাইট, গ্রিন লাইটের খেলায় হলিউড তারকাদের নিতে চান হোয়ান দং-হিউক। সেই সম্ভাবনার কথাই এক সাক্ষাৎকারে জানালেন পরিচালক।

সম্প্রতি স্কুইড গেম-এর জন্য এমি জয় করেছেন হোয়ান দং-হিউক। এই উপলক্ষে সিউলে নেটফ্লিক্স আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে নির্মাতা বলেছেন, স্কুইড গেম-এর যদি তৃতীয় সিজন আসে, তাহলে সম্ভবত লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও সহ হলিউডের অনেক বড় তারকাকে দেখতে পাবেন দর্শকরা।

নির্মাতা বলেন, তিনি ডিক্যাপ্রিওর বড় ভক্ত। যদি সময় আমাকে সুযোগ দেয়, তাকে খেলায় অংশ নেয়ার জন্য অনুরোধ করবো। সিজন টু-এর শুটিং কোরিয়াতেই হবে। তবে সিজন থ্রি নিয়ে বড় কিছু ভাবছেন তিনি। অনেক পরিবর্তন আসবে সিজন থ্রি-তে।


আরও খবর

দুরন্তপনার ৫ বছর

বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২




বাসর ঘর থেকে বরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার, নববধূ আটক

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ০৫ অক্টোবর ২০২২ | ৫৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

জয়পুরহাট সদর উপজেলার বড় মাঝিপাড়া গ্রামে বাসর ঘর থেকে মোস্তাকিম নামে এক বরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার (১৬ সেপ্টেম্বর) মধ্যরাতে লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নববধূ রিয়াকে আটক করা হয়েছে। জয়পুরহাট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) গোলাম সরোয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

গোলাম সরোয়ার বলেন, নিহত মোস্তাকিম হোসেন (২৪) বড় মাঝিপাড়া গ্রামের আব্দুল হামিদের ছেলে। গলায় ফাঁস দেওয়া অবস্থায় ঘরের মধ্যে মোস্তাকিমকে পাওয়া যায়। এসময় নববধূ ওই ঘরেই ছিলেন। ঘরের দরজা খোলা ছিল।

শুক্রবার (১৬ সেপ্টেম্বর) নামাজের পরে মোস্তাকিম ও রিয়ার (২২) বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষ হয় কনের বাড়িতে। কনের বাড়ি ভাদসা ইউনিয়নের ধামইরহাট উপজেলার জোতরাম গ্রামে। বিয়ের পর নববধূ রিয়াকে নিয়ে ছেলে মোস্তাকিম সন্ধ্যার আগেই বড় মাঝিপাড়া নিজ বাড়িতে ফিরে আসেন। রাত দেড়টার সময় নিজ কক্ষে গলায় ফাঁস দেওয়া অবস্থায় মোস্তাকিমকে পাওয়া যায়। পুলিশ খবর পেয়ে মরহেদটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য জেলা আধুনিক হাসপাতালে পাঠায়।

মোস্তাকিমের বাবা আব্দুল হামিদ অভিযোগ করে বলেন, আমার ছেলেকে কে বা কারা মেরে ঝুলিয়ে রেখেছে। আমি সুষ্ঠু তদন্ত ও এ হত্যাকাণ্ডের বিচার চাই। এ হত্যার সঙ্গে নববধূ রিয়া জড়িত বলে দাবি করেন বরের বাবা। 

জয়পুরহাট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) গোলাম সরোয়ার বলেন, লাশের শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। অবস্থা দেখে আত্মহত্যা মনে হলেও সঠিক কারণ বের করতে লাশ ময়না তদন্তের জন্য জেলা আধুনিক হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট পাওয়া গেলে প্রকৃত কারণ জানা যাবে।’ এ ব্যাপারে জয়পুরহাট থানায় একটি অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা হয়েছে বলেও জানান তদন্ত কর্মকর্তা।


আরও খবর



অ্যান্টিবায়োটিকের অপব্যবহার বন্ধে শিগগিরই নতুন আইন : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২ | ২৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

অ্যান্টিবায়োটিকের অপব্যবহার বন্ধে শিগগিরই নতুন আইন হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক। মঙ্গলবার (৪ অক্টোবর) দুপুরে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে অ্যান্টিবায়োটিকের যত্রতত্র ব্যবহার রোধে করণীয় শীর্ষক মিডিয়া ব্রিফিংয়ে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, আইন অনুযায়ী ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া কোনো ফার্মেসি অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ বিক্রি করতে পারবে না। যদি কেউ বিক্রি করে, তাহলে আইন অনুযায়ী তার লাইসেন্স বাতিল হবে।ঔষধ আইন-২০২২ প্রণয়ন শেষ পর্যায়ে আছে। শিগগিরই অনুমোদনের জন্য সংসদে তোলা হবে। এরপরই অ্যান্টিবায়োটিক নিয়ন্ত্রণে আইন হবে।

জাহিদ মালেক বলেন, দেখা গেছে যত্রতত্র অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারের কারণে পৃথিবীতে বছরে প্রায় ১৫ লাখ লোক মারা যায়। বাংলাদেশেও অ্যান্টিবায়োটিকের যত্রতত্র ব্যবহারে অসংখ্য রোগে এখন আর ওষুধ কার্যকর হয় না। পরে তাদেরকে সুস্থ করতে হলে একটি কঠিন অবস্থার মুখোমুখি হতে হয়। যেখানে অল্প চিকিৎসাতেই রোগ ভালো হয়ে যেত, সর্বোচ্চ চিকিৎসার মাধ্যমে এখন রোগ ভালো করা যাচ্ছে না। এমনকি এর ফলে অসংখ্য লোকই অকালে মৃত্যুবরণ করছে।

তিনি আরও বলেন, আমরা বাংলাদেশের মানুষকে স্বাস্থ্য সেবা সেবা দেওয়ার জন্য সচেষ্ট। আমরা করোনা প্যানডেমিক সফলতার সঙ্গে মোকাবিলা করেছি। এবং বাংলাদেশের প্রায় ৯৮ শতাংশ মানুষকে টিকা দিতে সক্ষম হয়েছি।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা থেকে শুরু করে বিভিন্ন সংস্থা আমাদের প্রশংসা করে। আমরা এখন মনযোগী হয়েছি আমাদের স্বাস্থ্যসেবার মানোন্নয়নের দিকে। আপনারা জানেন স্বাস্থ্য সেবার মানোন্নয়নের জন্য ভালো হাসপাতাল প্রয়োজন। একইসঙ্গে ভালো ওষুধ, ভালো চিকিৎসক এবং ভালো খাদ্যের প্রয়োজন। এগুলো আমাদের স্বাস্থ্যসেবার গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।


আরও খবর

করোনায় একজনের মৃত্যু, কমেছে শনাক্ত

বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২




মরিয়ম মান্নান ও তার পরিবারের সদস্যদের গ্রেপ্তার করার দাবি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ | ৪৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আলোচিত মরিয়ম মান্নান, তার মা রহিমা বেগম ও পরিবারের সদস্যদের গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছে তাদের করা অপহরণ মামলায় গ্রেপ্তার পাঁচজনের পরিবার। একই সঙ্গে মরিয়ম মান্নানদের করা হয়রানিমূলক মামলায় গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের নিঃশর্ত মুক্তির দাবিও জানান তারা।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে খুলনা প্রেসক্লাবের হুমায়ুন কবীর মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলন করে এসব কথা বলেন মরিয়ম মান্নানদের করা মামলায় গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের পরিবারের সদস্যরা। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করে রহিমা অপহরণ মামলার আসামি মো. মহিউদ্দীনের নবম শ্রেণিপড়ুয়া মেয়ে মালিহা মাহি। সংবাদ সম্মেলনে অপহরণ মামলায় গ্রেপ্তার খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) সহকারী প্রকৌশলী মো. গোলাম কিবরিয়া, মো. মহিউদ্দিন, রফিকুল ইসলাম ওরফে পলাশ, নুরুল আলম ওরফে জুয়েল এবং হেলাল শরীফের পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।  তাদের সবার বাড়ি খুলনা পৌর শহরের দৌলতপুরের থানাবাড়ি এলাকায়।

সংবাদ সম্মেলনে মালিহা মাহি বলে, খুলনার দৌলতপুর থানার মহেশ্বরপাশা খানাবাড়ির রহিম বেগম নিখোঁজ হওয়ার ২৯ দিন পর উদ্ধার হয়। রহিমার উদ্ধারের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত মরিয়ম মান্নানসহ তার পরিবার কথিত অপহরণের নাটক মঞ্চস্থ করেছেন। কিন্তু আমরা অত্যন্ত শঙ্কিত যে, অপরাধ করেও পুলিশ প্রশাসনসহ নিরপরাধ ব্যক্তিদেরকে এখনো পর্যন্ত তারা হয়রানি ও মিথ্যা অপবাদ দিয়ে যাচ্ছেন।

মাহি বলে, অপহরণের নাটক সাজানো রহিমা বেগম ও তার মেয়ে মরিয়মসহ পরিবারের অন্য সদস্যরা পরিকল্পিতভাবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর চাপ সৃষ্টি করেন। রহিমার মেয়ে আদুরী আক্তার বাদী হয়ে দৌলতপুর থানায় যে মামলা করেন, তাতে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করা হয়। মামলায় প্রতিবেশী খানাবাড়ি এলাকার মো. মহিউদ্দিন, গোলাম কিবরিয়া, রফিকুল ইসলাম পলাশ, মো. জুয়েল, হেলাল শরীফ অপহরণ করতে পারে বলে উল্লেখ করা হয়।

সে বলে, তবে রহিমা বেগমের বাড়ির চারপাশে থাকা সিসিটিভির ফুটেজ পর্যালোচনা করে র‌্যাব-৬ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা একাধিকবার পাঁচজনকে ডেকে নিয়ে কয়েকদফা ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করে। তবে ঘটনায় তাদের জড়িত থাকার কোনো প্রমাণ না পেয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়। ঘটনার এক সপ্তাহ পর মরিয়ম মান্নান প্রভাব খাটিয়ে দৌলতপুর থানা-পুলিশকে দিয়ে পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করান।

মালিহা মাহি বলেন, নিখোঁজের ২৯ দিন পর গত ২৪ সেপ্টেম্বর ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার সৈয়দপুরে রহিমা বেগমের বাড়ির ভাড়াটিয়া কুদ্দুস মোল্লার গ্রামের বাড়ি থেকে রহিমাকে জীবিত ও অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রশাসন। উদ্ধারের সময় তার কাছ থেকে ব্যবহারের যেসব কাপড়-চোপড়, ওষুধ ও প্রসাধনীসামগ্রী উদ্ধার করা হয়, তা থেকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বলেছে যে, তিনি অপহরণ না-ও হতে পারেন। তারা বলেছেন যে কেউ অপহৃত হলে কীভাবে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ব্যাগে করে নিয়ে যান?

মাহি বলে, রহিমা বেগম ফরিদপুরে যে এলাকায় ছিলেন, সেখানে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে জন্মনিবন্ধন বানাতে গিয়েছিলেন। আমরা মনে করি, রহিমা বেগম নিজের জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) পরিবর্তন করে ময়মনসিংহের ফুলপুরে অজ্ঞাত যে নারীর মরদেহ পাওয়া গিয়েছিল, ওই মরদেহের পরিচয় দেওয়ার জন্যই জন্মনিবন্ধন আনতে গিয়েছিলেন। এখান থেকে আবার নতুন করে ফাঁসানোর চেষ্টা করেছিল।

লিখিত বক্তব্যে গ্রেপ্তার মহিউদ্দিনের মেয়ে মালিহা মাহি বলে, রহিমা বেগম এর কাছে কোনো মোবাইল ফোন ছিল না। তিনি বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে খুলনায় না এসে কেন ফরিদপুর গেলেন? রহিমা বেগমের ছেলে মিরাজের মোবাইল নম্বরে ফরিদপুর থেকে কল করে জানানো হয় তার মা ফরিদপুরে আছেন। অথচ মিরাজের স্ত্রী মৌ ইসলাম কল রিসিভ করে এ ব্যাপারে তাদের সঙ্গে কোনো কথা বলতে চান না বলেও জানান। কেন মিরাজের স্ত্রী বিষয়টি প্রশাসন ও মরিয়ম মান্নানকে জানাননি?

মাহি অভিযোগ করে, উদ্ধারের পর রহিমা প্রশাসন ও সাংবাদিকদের সামনে মুখ বন্ধ রেখে রহস্যজনকভাবে নির্বাক থাকেন। পরে রহিমা বেগম যার জিম্মায় ছিলেন, সেই নারী পুলিশ কর্মকর্তা দোলা দে জানিয়েছেন, রহিমা তার মেয়ে ও স্বামীর কাছে যেতে চান না। কিন্তু মেয়েদের সঙ্গে দেখা হওয়ার পরই তিনি তার বক্তব্য পাল্টে ফেলেন। পরে আদালত থেকে মেয়ের সঙ্গেই তিনি বাড়ি চলে গেছেন। এ থেকে স্পষ্ট রাহিমা বেগম তার মেয়ে মরিয়ম মান্নানসহ পরিবারের সদস্যদের বাঁচাতে নতুন নাটক করছেন।

আদালতে রহিমা বেগমের দেওয়া জবানবন্দি প্রসঙ্গে সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, রহিমা বেগম আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন যে, তাকে অপহরণ করা হয়েছিল। স্ট্যাম্পে সই করানোর কথা বলা হয়েছে। এটাও নতুন ষড়যন্ত্র বলে মনে করছি আমরা।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মালিহা মাহি বলে, রহিমা বেগম, তার মেয়ে মরিয়ম মান্নান ও আদুরী আক্তারসহ অপহরণ নাটক ও মিথ্যা মামলা দিয়ে পাঁচজনকে জেল খাটানোয় জড়িতদের বিরুদ্ধে তারা আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

রহিমা বেগম অপহরণ মামলায় গত ১২ সেপ্টেম্বর থেকে কারাগারে রয়েছেন খানাবাড়ি এলাকার মো. মহিউদ্দিন, গোলাম কিবরিয়া, রফিকুল ইসলাম পলাশ, মো. জুয়েল ও হেলাল শরীফ।


আরও খবর



রেডমি সিরিজের নতুন ফোন আনছে শাওমি

প্রকাশিত:রবিবার ০২ অক্টোবর 2০২2 | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ | ২৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রেডমি সিরিজের নতুন ফোন এ১ আনার ঘোষণা দিয়েছিল শাওমি। এবার এ সিরিজে যুক্ত হচ্ছে রেডমি এ১+ নামের আরেকটি ফোন। কয়েকদিন ধরেই বিভিন্ন সাইটে ফোনটির সার্টিফিকেশন দেখা যাচ্ছে। এবার দেখা গেলো ফোনটির রেন্ডার ও সম্ভাব্য স্পেসিফিকেশন।

ফোনটির ফিচার ও ডিজাইন অনেকটা রেডমি এ১ এর মতোই হতে যাচ্ছে। তবে কিছুটা পরিবর্তন থাকছে। নতুন এই মডেলে যুক্ত হয়েছে ফিংগারপ্রিন্ট সেন্সর। রেডমি এ১+ এর পেছনে থাকছে ডুয়াল ক্যামেরা সেট আপ। ফোনের ফ্রন্টে রয়েছে ওয়াটারড্রপ নচ ডিসপ্লে। প্রাপ্ত তথ্য অনুসারে ব্ল্যাক, লাইট ব্লু ও লাইট গ্রিন- এই তিন কালারে পাওয়া যাবে ফোনটি।

রেডমি এ১+ ফোনটিতে ৬.৫২ইঞ্চির এইচডি+ স্ক্রিন থাকবে। ফোনটিতে প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে মিডিয়াটেক এর এন্ট্রি লেভেল চিপ, হেলিও এ২২। এছাড়া র‍্যাম থাকছে ২জিবি ও ইন্টারনাল স্টোরেজ থাকছে ৩২জিবি। এই ফোনটি চলবে অ্যান্ড্রয়েড ১২ অপারেটিং সিস্টেম দ্বারা। ডুয়াল ব্যাক ক্যামেরার ফোনটিতে ৮মেগাপিক্সেল রিয়ার ক্যামেরার পাশাপাশি সেলফি ও ভিডিও কলের জন্য থাকছে ৫মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা। রেডমি এ১+ এর ব্যাটারি হবে ৫০০০মিলিএম্পায়েরর। ফোনের বক্সে থাকবে ১০ ওয়াট এর চার্জার।

ধারণা করা হচ্ছে, এই ডিভাইসটি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ঘোষণা করবে শাওমি। বাংলাদেশেও আসতে পারে বাজেট বান্ধব ফোনটি।


আরও খবর