Logo
শিরোনাম

ছুটিতেও কমেনি সংক্রমণ, শনাক্তের শীর্ষে ঢাকা

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১০৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ঈদের বন্ধে নমুনা পরীক্ষা কম হলেও করোনা সংক্রমণের হার কমেনি বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। পাশপাশি জেলাভিত্তিক শনাক্তের হিসাবে ঢাকা শীর্ষে অবস্থান করছে।

আজ রবিবার দুপুরে কোভিড-১৯ পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর আয়োজিত ভার্চুয়াল স্বাস্থ্য বুলেটিনে অধিদপ্তরের মুখপাত্র অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলাম এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, গত সাত দিনের সংক্রমণ পরিস্থিতি দিকে তাকালে দেখা যাচ্ছে নমুনা সংগ্রহ কম হয়েছে, সে হিসেবে পরীক্ষা হয়েছে কম। ফলে মোট রোগীর সংখ্যা কমেছে। তবে শতকরা হিসেবে সংক্রমণের হার ৩০ শতাংশের নিচে নামেনি। বরং ২৪ জুলাই ৩২ দশমিক ৫৫ শতাংশ রোগী শনাক্ত হয়েছে। ১৯ জুলাই সবচেয়ে বেশি প্রাণহানি ঘটেছে ২৩১ জন। সবচেয়ে কম মারা গেছেন ২৩ জুলাই ১৬৬ জন। ২৯তম এপিডেমিক সপ্তাহে ২৪ জুলাই পর্যন্ত দুই লাখ দুই হাজার ১১৩টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। আগের সপ্তাহের তুলনায় পরীক্ষার হার ২৮ দশমিক ৯৪ শতাংশ কমেছে। ঈদের বন্ধের কারণে এই সংখ্যা কমতে পারে। তবে সুস্থতার হার ১৮ দশমিক ৪৫ শতাংশ বেড়েছে।

তিনি বলেন, জেলাভিত্তিক শনাক্তের হিসাবে ঢাকা শীর্ষে অবস্থান করছে। ঢাকায় ইতোমধ্যে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা চার লাখ ছাড়িয়ে গেছে। তারপর আছে যথাক্রমে চট্টগ্রাম, কুমিল্লা, সিলেট, বগুড়া, নারায়ণগঞ্জ, খুলনা, ফরিদপুর এবং সবচেয়ে কম সংখ্যক রোগী চিহ্নিত হয়েছে রাজশাহীতে- ১৮ হাজার ৪১৬ জন। বিভাগভিত্তিক মৃত্যুর হারেও এগিয়ে আছে ঢাকা। এরপরই রয়েছে খুলনা বিভাগ।

ডা. নাজমুল বলেন, যতোক্ষণ পর্যন্ত ভ্যাকসিনেশন নিশ্চিত না হচ্ছে সে পর্যন্ত সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি, সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে হবে। মাস্ক পরতে হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে ডা. নাজমুল বলেন, যুক্তরাষ্ট্র থেকে যে মোবাইল ভেন্টিলটরগুলো এসেছে সেগুলো আমাদের বিশেষজ্ঞরা পরীক্ষা করে দেখছেন। এগুলো যখন যেখানে প্রয়োজন সেখানে স্থাপন করা হবে।


আরও খবর

ডেঙ্গুতে হাসপাতালে আরও ২৩২ রোগী

শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

করোনায় আরও ৩৫ জনের মৃত্যু

শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১




ডেঙ্গুতে নতুন করে ৩০১ জন আক্রান্ত

প্রকাশিত:শনিবার ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৪৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও ৩০১ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকার বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ২৫৩ জন এবং ঢাকার বাইরের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ৪৮ জন।

আজ শনিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের নিয়মিত ডেঙ্গুবিষয়ক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে নতুন ৩০১ জন ভর্তি হয়েছে। এ নিয়ে বর্তমানে দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে সর্বমোট ভর্তি থাকা রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক হাজার ২৭১ জন। এর মধ্যে ঢাকার ৪১টি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি আছে এক হাজার ৮৩ জন এবং অন্যান্য বিভাগের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি আছে ১৮৮ জন।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, গত ১ জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ১৩ হাজার ৫৫৬ জন। তাদের মধ্যে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছে ১২ হাজার ২৩১ জন রোগী। ডেঙ্গুতে এ সময়ে ৫৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।


আরও খবর

ডেঙ্গুতে হাসপাতালে আরও ২৩২ রোগী

শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

করোনায় আরও ৩৫ জনের মৃত্যু

শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১




রামেক হাসপাতালে করোনা ইউনিটে আরও ৭ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০২ সেপ্টেম্বর 2০২1 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৭৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ইউনিটে ৭ জন মারা গেছেন। এর মধ্যে করোনায় দুই জন, উপসর্গে তিন জন এবং করোনা নেগেটিভ হয়েও মারা গেছেন দুই জন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) সকাল ৯টা থেকে বৃহস্পতিবার (২ সেপ্টেম্বর) সকাল ৯টার মধ্যে তারা মারা যান।

রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা সংক্রমণে হাসপাতালে রাজশাহী এবং কুষ্টিয়ার একজন করে মোট দুজন মারা গেছেন।

আর করোনা সংক্রমণের উপসর্গে নিয়ে রাজশাহী, নাটোর এবং কুষ্টিয়ার একজন করে মোট তিন জন মারা গেছেন। এছাড়া করোনা নেগেটিভ হয়েও অন্যান্য শারীরিক জটিলতায় মারা গেছেন রাজশাহী ও নওগাঁর একজন করে মোট দুজন। স্বাস্থ্যবিধি মেনে মরদেহ দাফনের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৬ জন মারা গেছেন হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্রে (আইসিইউ)। এছাড়া ১৭ নম্বর ওয়ার্ডে একজন মারা গেছেন। মারা যাওয়া সাতজনের মধ্যে পাঁচ জন পুরুষ এবং দুই জন নারী। তাদের মধ্যে চার জনের বয়স ৬১ বছরের উপরে। এছাড়া ৫১ থেকে ৬০ বছর বয়সী তিন জন মারা গেছেন।

পরিচালক আরও জানান, বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা পর্যন্ত ২৮৬ শয্যার রামেক করোনা আইসোলেশন ইউনিটে রোগী ভর্তি ছিলেন ১৪৫ জন। একদিন আগেও এই সংখ্যা ছিল ১৪৫।

বর্তমানে রাজশাহীর ৬৯ জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের ২৪ জন, নাটোরের ১৮ জন, নওগাঁর ৬ জন, পাবনার ১৫ জন, কুষ্টিয়ার ৭ জন, চুয়াডাঙ্গার একজন, জয়পুরহাটের একজন, সিরাজগঞ্জের দুই জন, মেহেরপুরের একজন এবং ঝিনাইদহের একজন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

হাসপাতালে করোনা নিয়ে ভর্তি রয়েছেন ৭৩ জন। করোনা উপসর্গ নিয়ে ভর্তি রয়েছেন ৪৫ জন। করোনা ধরা পড়েনি ভর্তি ২৭ জনের। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ২৩ জন। এই একদিনে হাসপাতাল ছেড়েছেন ১৭ জন। এর আগে বুধবার রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতাল ল্যাবে ১৪৬ জনের নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। এর মধ্যে করোনা শনাক্ত হয়েছে ২৮ জনের নমুনায়।

একই দিনে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ ল্যাবে নমুনা পরীক্ষা হয়েছে আরও ১৮৮ জনের। এর মধ্যে করোনা শনাক্ত হয়েছে ২৪ জনের। পরীক্ষার অনুপাতে রাজশাহীর ১৫ দশমিক ১৮ শতাংশ, নাটোরের ১৫ দশমিক ৭৮ শতাংশ এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জের ১০০ শতাংশ নমুনায় করোনা ধরা পড়েছে।

প্রসঙ্গত, সেপ্টেম্বরের প্রথম দুই দিনে রামেক হাসপাতালের করোনা ইউনিটে মারা গেছেন ১৭ জন। এর মধ্যে করোনায় ৬ জন, করোনা সংক্রমণের উপসর্গ নিয়ে ৭ জন এবং করোনা নেগেটিভ হয়েও অন্যান্য শারীরিক জটিলতায় ৪ জনের মৃত্যু হয়।

এর আগে গত আগস্ট মাসে রামেক হাসপাতালের করোনা ইউনিটে মারা গেছেন ৩৭৪ জন। এর মধ্যে করোনায় ১৫৪ জন, উপসর্গ নিয়ে ১৮৬ জন এবং করোনা নেগেটিভ হয়েও অন্যান্য শারীরিক জটিলতায় ৩৪ জনের মৃত্যু হয়।


আরও খবর



চট্টগ্রামে করোনায় আরও ৫ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০২ সেপ্টেম্বর 2০২1 | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৫৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

চট্টগ্রামে করোনায় আক্রান্ত আরো পাঁচ জনের মৃত্যু হয়েছে। নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ১৪০ জন। বৃহস্পতিবার সকালে জেলা সিভিল সার্জন অফিস থেকে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। এতে বলা হয় চট্টগ্রামের বিভিন্ন ল্যাবে ১১৫৫ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। সংক্রমণ শনাক্তের হার ১২ শতাংশ।

নতুন আক্রান্তের মধ্যে মহানগরীর বাসিন্দা ৮৯ জন এবং বাকি ৫১ জন বিভিন্ন উপজেলার বাসিন্দা। আগের দিন বুধবার চট্টগ্রামে করোনায় আক্রান্ত হন ১৪৫ জন। মঙ্গলবার এ সংখ্যা ছিল ২০৬। এ নিয়ে চট্টগ্রামে আক্রান্তের সংখ্যা ৯৯ হাজার ৬২৬ জন।

আর এ পর্যন্ত করোনায় মারা গেছেন ১২৩৭ জন। চট্টগ্রামে প্রথম করোনায় আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে গত ৩ এপ্রিল। করোনায় প্রথম মৃত্যু হয়েছে একই বছরের ৯ এপ্রিল।


আরও খবর



৭৭৯ মেগাওয়াটের ৫ বিদ্যুৎকেন্দ্র উদ্বোধন

প্রকাশিত:রবিবার ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৭৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সাতশ ৭৯ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনে সক্ষমতা পাঁচটি বিদ্যুৎ কেন্দ্রের উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রবিবার (১২ সেপ্টেম্বর) প্রধানমন্ত্রী তার সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি এ বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলোর উদ্বোধন করেন।

বিদ্যুৎ কেন্দ্র পাঁচটি হচ্ছে- হবিগঞ্জের জুলদায় বিবিয়ানা-৩ ৪০০ মেগাওয়াট কম্বাইন্ড সাইকেল বিদ্যুৎ কেন্দ্র, চট্টগ্রাম ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র ইউনিট-২, নারায়ণগঞ্জে মেঘনাঘাট ১০৪ মেগাওয়াট পাওয়ার প্লান্ট, বাগেরহাটে মধুমতী ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র এবং সিলেটের ১৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে ১৫০ মেগাওয়াট কম্বাইন্ড সাইকেল বিদ্যুৎ কেন্দ্রে উত্তরণ।

বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয়ের মতে, ২০০৯ সালে কাজ শুরুর পর সরকার সফলভাবেই ২০ হাজার ২৯৩ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনে সক্ষম ১১৯টি বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার ২০২১ সাল নাগাদ ২৪ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা গ্রহণ করেছিল। তবে এরই মধ্যে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদিত হয়েছে।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ ও জ্বালানি উপদেষ্টা তৌফিক-ই-এলাহি চৌধুরী বীর, বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ প্রমুখ।

আরও উপস্থিত ছিলেন, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান ওয়াসেকা আয়েশা খান, জ্বালানি বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. আনিসুর রহমান, বিদ্যুৎ সচিব মো. হাবিবুর রহমান। 


আরও খবর

অভিভাবকরা স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না

রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১




মদন মিত্রের বায়োপিকে রাফিয়াথ রশিদ মিথিলা

প্রকাশিত:বুধবার ০৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৫৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পশ্চিমবঙ্গের রাজনৈতিক নেতাদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি আলোচনায় থাকেন মদন মিত্র। সাবেক মন্ত্রী ও কামারহাটির বর্তমান এই বিধায়ককে নিয়ে এবার নির্মিত হতে যাচ্ছে বায়োপিক।

তবে একটি নয়, একসঙ্গে তাকে নিয়ে দুইটি বায়োপিকের ঘোষণা এসেছে।

শুরুতে শোনা গিয়েছিল মদন মিত্রকে নিয়ে বায়োপিক বানাতে চলেছেন রাজর্ষি দে, এরপর নাম আসে পরিচালক রাজা চন্দের। আর রাজর্ষি দে'র সিনেমাটিতে নাকি অভিনয় করতে যাচ্ছেন বাংলাদেশের অভিনেত্রী ও কলকাতার নির্মাতা সৃজিত মুখার্জির স্ত্রী রাফিয়াথ রশিদ মিথিলা।

এ প্রসঙ্গে রাজর্ষি পশ্চিমবঙ্গের সংবাদমাধ্যম সংবাদ প্রতিদিনকে বলেন, মিথিলা থাকবেন সিনেমাতে, তবে কোন চরিত্রে থাকবেন, সেটা এখনও ঠিক হয়নি।

তবে গুঞ্জনে রয়েছে, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের চরিত্রে নাকি দেখা যেতে পারে মিথিলাকে!

পশ্চিমবঙ্গের রাজনৈতিক নেতাদের মধ্যে সবসময় সবচেয়ে বেশি আলোচনায় থাকেন মদন মিত্র। কখনও তিনি রাস্তায় বাইক ছোটান, কখনও জিমে ঘাম ঝরান। তার মিউজিক ভিডিও ঝড়ের গতিতে ভাইরাল হয়, ফেসবুক লাইভ এলেও তিনি পান অসংখ্য দর্শক। সেই মদন মিত্রকে নিয়েই দুই পরিচালক বানাবেন বায়োপিক।

বায়োপিক প্রসঙ্গে মদন মিত্র বলেন, 'গত দু’বছর ধরে বায়োপিক করার চাপ আসছিল। কিন্তু হেরে যাওয়া পরাজিত সৈন্য হিসেবে নয়, কামারহাটি রায়ের জন্য আমি অপেক্ষা করছিলাম'। 

পর্দায় মদন মিত্রের ভূমিকায় অভিনেতা শাশ্বত চট্টোপাধ্যায় ও বলিউড তারকা পঙ্কজ ত্রিপাঠিকে পছন্দ নির্মাতাদ্বয়ের। তবে বিষয়টি এখনো চূড়ান্ত হয়নি।


আরও খবর