Logo
শিরোনাম

দীর্ঘ যানজট শিমুলিয়া ঘাটে, নাকাল ঘরমুখো মানুষ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ জুলাই ২০21 | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১ | ৬৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রাত পোহালেই পবিত্র ঈদুল আজহা। ঈদের আগের দিন আজ মঙ্গলবার দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার ঘরমুখী মানুষের উপচেপড়া ঢল দেখা গেছে মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাটে। সকাল থেকে বৃষ্টি উপেক্ষা করে হাজার হাজার যাত্রী ভিড় করছে লঞ্চ ও ফেরিঘাট এলাকায়। শৃঙ্খলা রক্ষায় ঘাটে মোতায়েন করা হয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অতিরিক্ত সদস্য। এর পরও যাত্রীদের চাপে হিমশিম খেতে হচ্ছে কর্তৃপক্ষকে, উপেক্ষিত হচ্ছে স্বাস্থ্যবিধি। যে যেভাবে পারছে লঞ্চ-ফেরিতে পারি দিচ্ছে পদ্মা।

এ ছাড়া, পদ্মায় তীব্র স্রোতে শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটে ফেরি পারাপারে বেশি সময় লাগছে এবং ঘাটে গণপরিবহণ ও ব্যক্তিগত গাড়ির চাপ বাড়ায় যানবাহন পারাপারে বেগ পেতে হচ্ছে। পারাপারের অপেক্ষায় অবস্থান করছে শতশত ব্যক্তিগত গাড়ি ও পণ্যবাহী ট্রাক। এ ছাড়া ঘাটের অভিমুখে ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়েতেও কয়েক কিলোমিটার জুড়ে পণ্যবাহী ট্রাকের দীর্ঘ সারি দেখা গেছে।

সিদ্দিকুর রহমান নামের এক যাত্রী জানান, কেরানীগঞ্জের একটি গার্মেন্টসের  সুপারভাইজার পদে কাজ করেন তিনি। সপরিবারে যাচ্ছেন বাগেরহাটে। পথে একবার যানবাহন পরিবর্তন করতে ভাড়া একটু বেশি গেছে। ঘাট এলাকায় এসে বৃষ্টির জন্য বিপাকে পড়েছেন পরিবার নিয়ে। যাত্রী ছাউনি অথবা আশপাশে দোকানপাট না থাকায় বৃষ্টিতে ভিজে অপেক্ষা করতে হচ্ছে ফেরির জন্য।

রহিমা বেগম নামের আরেক যাত্রী জানান, তিনি এসেছেন ঢাকার মিরপুর এলাকা থেকে। তিনিও একটি গার্মেন্টসে কাজ করেন। তাঁর সঙ্গে গার্মেন্টসের আরও কয়েকজন পরিচিত রয়েছেন। নদী পারি দিয়ে মাদারীপুরের শিবচরে যাবেন তিনি। কিন্তু, বৃষ্টির কারণে অপেক্ষা করতে হচ্ছে।

বেসরকারি একটি প্রতিষ্ঠানের বিক্রয়কর্মী হিসেবে কাজ করেন আশিক আহমেদ। তিনি জানান, পরিবারের দুই সদস্য নিয়ে মোটরসাইকেলে করে ফরিদপুরের ভাঙায় বাবার বাড়ি ঈদ করতে যাবেন। খুব সহজে ঢাকা থেকে শিমুলিয়া ঘাট এসেছেন। তবে, ফেরির জন্য ঘাট এলাকায় অপেক্ষা করছেন।

ঘাট কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, যানবাহন ও যাত্রী পারাপারে শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটে বর্তমানে ১৫টি ফেরি ও ৮৪টি লঞ্চ সচল রয়েছে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহণ কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) শিমুলিয়া নদীবন্দর কর্মকর্তা শাহাদাত হোসেন জানান, বরাবরই ঈদের আগে শেষ দুদিনে যাত্রীদের চাপ বাড়ে। ৮৪টি লঞ্চ দিয়ে শিমুলিয়া-বাংলাবাজার ও শিমুলিয়া-মাজিরকান্দি রুটে যাত্রী পারাপার করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহণ করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) শিমুলিয়া ঘাটের সহকারী ব্যবস্থাপক ফয়সাল আহমেদ জানান, নৌরুটে বর্তমানে ১৫টি ফেরি সচল রয়েছে। ঘাট এলাকায় পারাপারের জন্য যাত্রী ও পণ্যবাহী মিলিয়ে আট শতাধিক যানবাহন রয়েছে। পর্যায়ক্রমে সব যানবাহন পারাপার করা হবে। তবে সকাল থেকে যাত্রী ও মোটরসাইকেলের চাপ রয়েছে ফেরিগুলোতে। বেশ কয়েকটি ফেরি ছাড়তে হয়েছে শুধু যাত্রী ও মোটরসাইকেল নিয়ে।

লৌহজং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর হোসাইন বলেন, আমাদের পক্ষ থেকে যাত্রীদের স্বাস্থ্যবিধি মানতে ও লঞ্চে নির্ধারিত যাত্রী ধারণের জন্য চেষ্টা করা হচ্ছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ ও শৃঙ্খলার জন্য অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে৷ পুরো ঘাটজুড়ে বিভিন্ন স্তরের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তিন শতাধিক সদস্য মোতায়েন রয়েছে।

সহকারী পুলিশ সুপার (ট্রাফিক) রাসেল মনির জানান, রাতে বেশ কয়েকটি ফেরি স্রোতের কারণে বন্ধ ছিল। এ জন্য ঘাট এলাকায় প্রচুর যানবাহন অপেক্ষায় আছে। দুই ঘণ্টার মধ্যে চৌরাস্তায় যানজটসহ অনেক ভিড় কমে যাবে। সকাল থেকে দু-তিনটি ফেরিকে শুধু মোটরসাইকেল নিয়ে পারি দিতে হয়েছে। মোটরসাইকেলের চাপ সবচেয়ে বেশি।



আরও খবর



প্রবাসী আয়ে রেকর্ড

প্রকাশিত:সোমবার ০৫ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ জুলাই ২০২১ | ১০১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

করোনার মধ্যেও গেলো ২০২০-২১ অর্থবছরে দেশে রেমিট্যান্সে নতুন রেকর্ড সৃষ্টি করেছে। প্রবাসীরা ২ হাজার ৪৭৭ কোটি ৭৭ লাখ মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন। যা টাকার হিসাবে দুই লাখ ১০ হাজার ৬১০ কোটি টাকার বেশি। এর আগে কোনো অর্থবছরে এত পরিমাণ রেমিট্যান্স আসেনি বাংলাদেশে।

সোমবার বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য মতে, গেলো অর্থবছরের শেষ মাস জুনে প্রবাসীরা ১৯৪ কোটি ডলার মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন। ফলে পুরো অর্থবছরে দেশে রেমিট্যান্সের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৪৭৭ কোটি ৭৭ লাখ ডলার।

এদিকে গেল ২০২০-২১ অর্থবছরে প্রবাসীরা সরকারি ৬টি ব্যাংকের মাধ্যমে ৬১০ কোটি ৬২ লাখ ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছে। বিশেষায়িত একটি ব্যাংকে এসেছে ৪১ কোটি ৩০ লাখ ডলার। বেসরকারি ৩৯টি বাণিজ্যিক ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে এক হাজার ৮১৪ কোটি ৪০ লাখ ডলার। আর বিদেশি ৮ ব্যাংকে এসেছে ১১ কোটি ৪৫ লাখ ডলার।

বাংলাদেশে কার্যরত ব্যাংকগুলোর মধ্যে গত অর্থবছরে একক ব্যাংক হিসেবে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স এসেছে বেসরকারি ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডে। ব্যাংকটিতে ৭৪৫ কোটি ৭৬ লাখ ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। এর পরই দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২৮২ কোটি ৩২ লাখ ডলার রেমিট্যান্স এসেছে অগ্রণী ব্যাংকে। ২৪৯ কোটি ডলার রেমিট্যান্স এনে তৃতীয় অবস্থানে আছে ডাচ বাংলা ব্যাংক। সোনালী ব্যাংকে এসেছে ১৫৩ কোটি ডলার রেমিট্যান্স।

অন্যদিকে রেমিট্যান্সের প্রবাহ চাঙ্গা থাকায় ইতিবাচক অবস্থায় রয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ। জুন মাস শেষে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৪৬ দশমিক ৪২ বিলিয়ন ডলার বা প্রায় ৪ হাজার ৬৪২ কোটি ডলার। প্রতি মাসে ৪ বিলিয়ন ডলার আমদানি ব্যয় হিসেবে মজুদ এ বৈদেশিক মুদ্রা দিয়ে সাড়ে ১১ মাসের আমদানি ব্যয় মেটানো সম্ভব।

উল্লেখ্য, বৈধ পথে প্রবাসীদের রেমিট্যান্স পাঠাতে উৎসাহ দিতে ২০১৯ সালের ১ জুলাই থেকে ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা দিচ্ছে সরকার। অর্থাৎ কোনো প্রবাসী ১০০ টাকা দেশে পাঠালে তার সঙ্গে আরও ২ টাকা যোগ করে মোট ১০২ টাকা দিচ্ছে ব্যাংকগুলো। কোনো কোনো ব্যাংক ৩ শতাংশ হারে প্রানোদনা দিচ্ছে।


আরও খবর

ব্যাংকে লেনদেন দেড়টা পর্যন্ত

রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১




ভারতে ফের বেড়েছে সংক্রমণ ও মৃত্যু

প্রকাশিত:শনিবার ২৪ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১ | ৫৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে নতুন করে করোনা ভাইরাসে ৩৯ হাজার ৯৭ জন আক্রান্ত হয়েছে। এ নিয়ে দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ কোটি ১৩ লাখ ৩২ হাজার ১৫৯ জনে। একই সময়ে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৫৪৬ জন। যা গতকালের তুলনায় ৬৩ জন বেশি। এখন পর্যন্ত দেশটিতে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৪ লাখ ২০ হাজার ১৬ জনের।

এ নিয়ে ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ফের সংক্রমণ ও প্রাণহানির সংখ্যা বেড়েছে। গত একদিনে দেশটিতে সুস্থ হয়েছেন ৩৫ হাজার ৮৭ জন। এদিকে করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে টিকা প্রয়োগে কাজ করে যাচ্ছে দেশটির সরকার।


আরও খবর



ঢাকার দোহার উপজেলায় করোনায় আরও ২ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১ | ৬২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

মহামারি করোনায় আক্রান্ত হয়ে ঢাকার দোহার উপজেলায় আরও ২ জনের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার (১৭ জুলাই) তারা মারা যান। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ২০ জনে। উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মো. জসিম উদ্দিন মৃত্যুর ঘটনা নিশ্চিত করেছেন।

মৃত ব্যক্তিরা হলেন- উপজেলার দোহার এলাকার মোরশেদ বেপারী (১১০) ও সুতারপাড়া গ্রামের মো. আলী (৬৪)। মোরশেদ বেপারী উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সুজাহার বেপারীর পিতা। করোনা আক্রান্ত হওয়ায় নিয়ম মেনে দুইজনের লাশ দাফনের প্রক্রিয়া চলছে বলে জানান ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ দোহার থানা শাখা টিম।

এদিকে দোহারে নতুন করে আরও ৪০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। গত ১৫ জুলাই পাঠানো ৯৫ জনের নমুনা থেকে এই ৪০ জনের করোনা পজিটিভ আসে। শনাক্তের হার ৪২.১১ শতাংশ। এ নিয়ে দোহারে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১ হাজার ২৯৬ জনে। সুস্থ হয়েছে ৮৮৪ জন।

এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় নবাবগঞ্জ উপজেলায় ৬৫ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে উপজেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১ হাজার ৬৮৭ জনে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার (রোগ নিয়ন্ত্রণ) ডাঃ হরগোবিন্দ সরকার অনুপ শনিবার রাতে জানান, ১৫ জুলাই পাঠানো ১৩৯ জনের নমুনা থেকে ৬৫ জনের শরীরে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। শনাক্তের হার ৪৬.৮%।


আরও খবর



করোনায় একদিনে ১১৫ মৃত্যু, শনাক্তে রেকর্ড

প্রকাশিত:বুধবার ৩০ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ জুলাই ২০২১ | ১১৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দেশে মহামারী করোনাভাইরাস সংক্রমণের ইতিহাসে একদিনে সর্বোচ্চ করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে ৮ হাজার ৮২২ জন। সবমিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৯ লাখ ১৩ হাজার ২৫৮ জনে।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে ১১৫ জন। এ নিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে ১৪ হাজার ৫০৩ জনের।

আজ বুধবার বিকালে স্বাস্থ্য অধিদফতরের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৪ হাজার ৫৫০ জন। এ নিয়ে মোট সুস্থ হয়েছেন ৮ লাখ ১৬ হাজার ২৫০ জন। ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ২৫ দশমিক ১৩ শতাংশ।

এর আগে গতকাল মঙ্গলবার করোনায় ১১২ জনের মৃত্যু হয়। করোনার ইতিহাসে সেদিন সর্বোচ্চ ৭,৬৬৬ জন আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হন।


আরও খবর



গত ২৪ ঘণ্টায় কুষ্টিয়ায় একদিনে ১২ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ জুলাই ২০21 | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১ | ৪৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কুষ্টিয়ায় গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ও এর উপসর্গ নিয়ে আরো অন্তত ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে ৯ জন করোনা শনাক্ত ছিলেন আর ৩ জনের করোনার উপসর্গ ছিল। ১৯ জুলাই সোমবার সকাল ৮টা থেকে আজ ২০ জুলাই মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত সময়ে এদের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়াও ২৪ ঘণ্টায় আরো ৪২১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার বেড়ে ৩৩.৩৬ শতাংশ হয়েছে।

কুষ্টিয়া করোনা ডেডিকেডেট জেনারেল হাসপাতালে রোগীর চাপ অব্যাহত আছে জানিয়ে তত্বাবধায়ক ডা. আব্দুল মোমেন জানান, ২শ বেডে করোনা ও এর উপসর্গ নিয়ে এখন ভর্তি আছে ২৫৩ জন। এর মধ্যে করোনা শনাক্ত রোগীই ১৮২ জন। বাকিরা করোনার উপসর্গ নিয়ে ভর্তি আছেন। প্রায় ৭০ শতাংশ রোগীদের অক্সিজেন প্রয়োজন হচ্ছে।

গত ৭ দিনেই কুষ্টিয়ায় করোনা আক্রান্ত ৭৩ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং ১ হাজার ৭১৯ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। এ পর্যন্ত শুধু করোনা আক্রান্ত ৪৩২ জনের মৃত্যু হলো। আজ সকালে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

এদিকে, ঈদকে সামনে নিয়ে রাজধানী ঢাকা থেকে জেলার মানুষ বাড়িতে আসছেন। শহরের দোকানপাট ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভিড় বাড়ছে। শহরে ও গ্রামে অধিকাংশ মানুষ স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না।



আরও খবর