শিরোনাম

ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন এখন বাস্তব: জয়

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ১৮০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
২০০৮ সালের আগে দেশে আইসিটি শিল্পে রপ্তানী আয় ছিল মাত্র ২৬ মিলিয়ন ডলার। বর্তমানে তা দাঁড়িয়েছে ১ বিলিয়ন ডলারে

২০২৫ সালের মধ্যে আয় পৌঁছাবে ৫ বিলিয়ন ডলারে। ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন এখন বাস্তব। প্রযুক্তি আমদানীকারক দেশে থেকে এখন প্রযুক্তি রপ্তানীকারক দেশ বাংলাদেশ। আইসিটি শিল্প রপ্তানী আয় এখন বিলিয়ন। ২০২৫ সালের মধ্যে যা পৌছাবে ৫ বিলিয়ন ডলারে।

২০০৮ সালের আগে দেশে আইসিটি শিল্পে রপ্তানী আয় ছিল মাত্র ২৬ মিলিয়ন ডলার। বর্তমানে তা দাঁড়িয়েছে ১ বিলিয়ন ডলারে। এর নেপথ্যে রয়েছে বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষ। যদিও ১৯৯৯ সালেই প্রযুক্তি শিল্পে উন্নয়নের জন্য কাজ শুরুর পরিকল্পনা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরে বিভিন্ন সরকারের আমলে তা চাপা পড়ে যায়। পরবর্তীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার  তথ্য-প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের পরিকল্পনায় এই স্বপ্ন রূপ নেয় বাস্তবে। 

দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে গড়ে ওঠে হাইটেক পার্ক। যেখানে একে একে বিনিয়োগ করে ৩৩টি দেশী বিদেশী বৃহৎ প্রযুক্তি শিল্প কারখানা। অরিক্স বায়োটেক, ভাইব্রেন্ট, নোকিয়া এদের মধ্যে অন্যতম। হাইটেক পার্কের ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলছেন, প্রযুক্তি আমদানী কারক দেশ থেকে রপ্তানীকারক দেশে পরিনত হয়েছে বাংলাদেশ।

শুধু বিদেশী প্রতিষ্ঠানগুলো বাংলাদেশে আগমনই নয়, পাশাপাশি দেশী প্রতিষ্ঠান গুলোও যেন বিশ্ব জয় করতে পার সেই লক্ষ্যে কাজ করবে সরকার।


আরও খবর

এবার টিকটকের নজর দারিতে সিআইডি

বৃহস্পতিবার ২৩ ডিসেম্বর ২০২১




সচিব হলেন ৫ কর্মকর্তা

প্রকাশিত:সোমবার ২০ ডিসেম্বর ২০21 | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৬৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সচিব পদে পদোন্নতি পেয়েছেন প্রশাসনের পাঁচজন কর্মকর্তা। একই সঙ্গে আরও ছয়জন সচিব ও সচিব পদমর্যাদার কর্মকর্তাকে বদলি করা হয়েছে।

সোমবার (২০ ডিসেম্বর) পাঁচজন অতিরিক্ত সচিবকে সচিব পদে পদোন্নতি দিয়ে বিভিন্ন স্থানে পদায়ন করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের আশ্রয়ণ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) মো. মাহবুব হোসেনকে পদোন্নতি দিয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনের সচিব এবং জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মু. আব্দুল হামিদ জমাদ্দারকে বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি) সচিবালয়ের সচিব করা হয়েছে।

রাজশাহীর অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির পদোন্নতির পর রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব হয়েছেন।

পদোন্নতি পেয়ে সচিব হয়েছেন রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এ বি এম আমিন উল্লাহ নূরী। পদোন্নতির পর তাকে রাজউকেই চেয়ারম্যান হিসেবে পদায়ন করা হয়েছে।

এছাড়া বরিশালের বিভাগীয় কমিশনার (অতিরিক্ত সচিব) মোহাম্মদ সাইফুল হাসান বাদল পদোন্নতির পর স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের সচিব নিয়োগ পেয়েছেন।


আরও খবর



সাতছড়িতে ১৫ মর্টার শেলসহ বিপুল গুলি উদ্ধার, অভিযান অব্যাহত

প্রকাশিত:সোমবার ২৭ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৬ জানুয়ারী ২০২২ | ৯৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

হবিগঞ্জের সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান থেকে আবারও ১৫টি মর্টার শেল ও ছয় বক্স গুলি উদ্ধার করেছে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের (সিটিটিসি)। সোমবার (২৭ ডিসেম্বর) ভোর থেকে অভিযান চালিয়ে এগুলো উদ্ধার করা হয়েছে। অভিযান এখনও অব্যাহত আছে।

কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের ডিআইজি মো. আসাদুজ্জামান জানান, ভোরে সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানের ভেতরে অভিযান শুরু হয়। এখনও একটি জায়গায় অভিযান চলছে। সেখানেও অস্ত্র পাওয়ার সম্ভাবনা আছে। অভিযান শেষে বিস্তারিত জানানো হবে ।

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের ১ জুন থেকে ১৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত তিন দফায় অভিযান চালিয়ে সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান থেকে ৩৩৪টি কামান বিধ্বংসী রকেট, ২৯৬টি রকেট চার্জার, একটি রকেট লঞ্চার, ১৬টি মেশিনগান এবং প্রায় ১৬ হাজার রাউন্ড বুলেটসহ বিপুল গোলাবারুদ উদ্ধার করে র‍্যাব।

একই বছরের ১৬ অক্টোবর থেকে চতুর্থ দফায় প্রথম পর্যায়ে উদ্যানে মাটি খুঁড়ে তিনটি মেশিনগান, চারটি ব্যারেল, আটটি ম্যাগজিন, ২৫০ গুলির ধারণক্ষমতাসম্পন্ন আটটি বেল্ট ও উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন রেডিও উদ্ধার করা হয়। পরে ১৭ অক্টোবর দুপুরে এসএমজি ও এলএমজির ৮ হাজার ৩৬০ রাউন্ড, রাইফেলের ১৫২ রাউন্ড, পিস্তলের ৫১৭ রাউন্ড, মেশিনগানের ৪২৫ রাউন্ডসহ মোট ৯ হাজার ৪৫৪ রাউন্ড বুলেট উদ্ধার করা হয়।

পঞ্চম দফায় ২০১৮ সালের ২ ফেব্রুয়ারি সাতছড়িতে অভিযান চালিয়ে ১০টি হাই এক্সক্লুসিভ ৪০ এমএম অ্যান্টি-ট্যাংক রকেট উদ্ধার করা হয়। ষষ্ঠ দফায় ২০১৯ সালের ২৪ নভেম্বর ১৩টি রকেট লঞ্চারের শেলসহ কিছু বিস্ফোরক উদ্ধার করা হয়। গত ২ মার্চ অভিযান চালিয়ে ১৮টি ট্যাংক বিধ্বংসী রকেট গোলা উদ্ধার করে বিজিবি।

সর্বশেষ ১৩ আগস্ট হবিগঞ্জের চুনারুঘাটের সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান সংলগ্ন একটি ব্রিজের পাশ থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় নয়টি একনলা বন্দুক, তিনটি পিস্তল ও ১৯ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করে বিজিবি।


আরও খবর



সরকারিভাবে লোক নিচ্ছে সৌদি আরব

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১১ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৫৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সরকারিভাবে সৌদি আরবে চাকরির সুযোগ দিচ্ছে বাংলাদেশ ওভারসিজ এমপ্লয়মেন্ট অ্যান্ড সার্ভিসেস লিমিটেড (বোয়েসেল)। প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশি ডিপ্লোমা ও বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারদের সৌদি আরব ইলেকট্রিক ইন্ডাস্ট্রিজ কোম্পানিতে চাকরির জন্য লোকবল নিতে চায়।

আগ্রহীরা নির্ধারিত নিয়ম মেনে আবেদন করতে পারবেন।

পদের নাম: সার্ভিস টেকনিশিয়ান। পদসংখ্যা: ১০।

যোগ্যতা: ডিপ্লোমা ইন ইলেকট্রিক্যাল।

বেতন: ৩০০০-৪৫০০ (সৌদি রিয়াল), বাংলাদেশি টাকায় ৬৮ হাজার ৬৭০ থেকে ১ লাখ ৩ হাজার ৫ টাকা।

পদের নাম: সার্ভিস ইঞ্জিনিয়ার/টেস্টিং অ্যান্ড কমিশনিং ইঞ্জিনিয়ার। পদসংখ্যা: ১০। যোগ্যতা: বিএসসি ইন ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং। মাসিক মূল বেতন: ৫,০০০-৬,০০০ (সৌদি রিয়াল), বাংলাদেশি টাকায় ১,১৪,৪৫০-১,৩৭,৩৪০ টাকা।

অন্যান্য যোগ্যতা: সংশ্লিষ্ট কাজে কমপক্ষে ৫ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। বয়স ৩৫-৪০ বছরের মধ্যে হতে হবে। পাসপোর্টের মেয়াদ কমপক্ষে এক বছর থাকতে হবে।

চাকরির শর্ত: চাকরিতে যোগ দেওয়ার বিমানভাড়া কর্মী বহন করবেন, থাকা কোম্পানি বহন করবে। চাকরির মেয়াদ দুই বছর। সৌদি আরবের শ্রম আইন অনুযায়ী অন্যান্য শর্ত প্রযোজ্য হবে। যাদের বিরুদ্ধে দেশে বা সৌদি আরবে মামলা আছে, তাঁরা নিয়োগের অযোগ্য।

বোয়েসেলের সার্ভিস চার্জ ও অন্যান্য খরচ: চূড়ান্ত নির্বাচিত কর্মীদের বোয়েসেলের সার্ভিস চার্জ বাবদ ৭২ হাজার টাকা, ভ্যাট ১০ হাজার ৮০০ টাকা, বোয়েসেলের নিবন্ধন ফি বাবদ ৩০০ টাকা, ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ ফি ৩০০ টাকা, কল্যাণ বোর্ডের ইনস্যুরেন্স ফি ৪৯০ টাকা, স্মার্ট কার্ড ফি ২৫০ টাকাসহ মোট ৮৭ হাজার ৩৪০ টাকা সোনালী ব্যাংক মগবাজার শাখা থেকে পে-অর্ডারের মাধ্যমে বোয়েসেল অফিসে জমা দিতে হবে। এ ছাড়া ভিসা ফি প্রার্থীকে দিতে হবে।

আবেদন যেভাবে: আগ্রহী যোগ্য প্রার্থীদের আবেদন ফরম পূরণ করতে হবে। ইংরেজিতে জীবনবৃত্তান্ত, শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ, পাসপোর্টের স্ক্যান কপি ও অভিজ্ঞতার সনদের কপি আবেদনপত্রের সঙ্গে সংযুক্ত করতে হবে।

নিউজ ট্যাগ: সৌদি আরবে চাকরি

আরও খবর

যমুনা গ্রুপে চাকরির সুযোগ

রবিবার ১৬ জানুয়ারী ২০২২

ঢাকায় নিয়োগ দেবে এভারকেয়ার হসপিটাল

রবিবার ০৯ জানুয়ারী ২০২২




একদিনে করোনা শনাক্ত ৪৩৭৮, মৃত্যু ৬

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৪ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৩৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় শনাক্ত হয়েছেন ৪ হাজার ৩৭৮ জন।  একই সময়ে ৬ জন মারা গেছেন বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। এখন পর্যন্ত মৃত্যু ২৮ হাজার ১২৯ জন এবং শনাক্ত হয়েছেন ১৬ লাখ ৯ হাজার ৪২ জন।

শুক্রবার ( ১৪ জানুয়ারি) স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়।

এদিন সুস্থ হয়েছেন ৩৫১ জন এবং এখন পর্যন্ত সুস্থ ১৫ লাখ ৫২ হাজার ৩০৬ জন। আর গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ১৪ দশমিক ৬৬ শতাংশ।

স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ৩০ হাজার ৩৬৬টি, অ্যান্টিজেন টেস্টসহ নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ২৯ হাজার ৮৭১টি। এখন পর্যন্ত এক কোটি ১৮ লাখ ৮ হাজার ৯২টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতর আরও জানায়, শনাক্ত বিবেচনায় গত ২৪ ঘণ্টায় প্রতি ১০০ নমুনায় ১৪ দশমিক ৬৬ শতাংশ এবং এখন পর্যন্ত ১৩ দশমিক ৬৩ শতাংশ শনাক্ত হয়েছে। শনাক্ত বিবেচনায় প্রতি ১০০ জনে সুস্থ হয়েছে ৯৬ দশমিক ৪৭ শতাংশ এবং মারা গেছেন ১ দশমিক ৭৫ শতাংশ।

মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ২ জন পুরুষ এবং ৪ জন নারী। তাদের বয়স বিশ্লেষণে দেখা যায়, ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে একজন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে ১ জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ১ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ১ জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ১ জন এবং ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে একজন মারা গেছেন। বিভাগ বিশ্লেষণে দেখা যায়, মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ৩ জন, চট্টগ্রাম ২ জন এবং রাজশাহীতে  ১ জন  মারা গেছেন। তাদের মধ্যে সরকারি হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেছেন ৫ জন এবং ১ জন বেসরকারি হাসপাতালে মারা গেছেন।


আরও খবর

দেশে মোট ৫৫ জনের দেহে ওমিক্রন শনাক্ত

সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২




শিক্ষার্থীদের রাজনীতি সচেতন হওয়ার আহ্বান শিক্ষামন্ত্রীর

প্রকাশিত:রবিবার ২৬ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৭২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

শিক্ষার্থীদের রাজনীতি সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, রাজনীতি সচেতন না হলে সফল মানুষ হতে পারবে না, সুনাগরিক হতে পারবে না, তুমি তোমার নিজের দায়িত্বও যথাযথভাবে পালন করতে পারবেন না। রাজনীতি করো বা না করো কেউ রাজনীতির বাইরে নয়। তাই শিক্ষার্থীদের রাজনীতি সচেতন হতে হবে।

রবিবার (২৬ ডিসেম্বর) রাজধানীর দক্ষিণ যাত্রাবাড়ীর দনিয়া কলেজে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও জাতির পিতার জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কলেজ গভর্নিং বডির সভাপতি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সাবেক সিনিয়র সচিব ড. মো. মোজাম্মেল হক। অনুষ্ঠানে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মশিউর রহমানসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, সবাইকে রাজনীতি সচেতন হতে হবে। এই ক্যাম্পাসে আসার পর ছাত্র রাজনীতিকর সঙ্গে যুক্তদের পরিচয় করিয়ে দেওয়া হচ্ছে। এটি আমার ভালো লেগেছে। অর্থাৎ এই ক্যাম্পাসে রাজনীতি নিষিদ্ধ নয়। আমার দুটি প্রতিষ্ঠানে যাওয়ার সুযোগ হয়েছে। একটি প্রতিষ্ঠানে গিয়ে ভয় পেয়েছি। কারণ সেখানে লেখা আছে ধূমপান ও রাজনীতিমুক্ত ক্যাম্পাস। অর্থাৎ ধূমপানের মতো রাজনীতিটাও পরিত্যজ্য; সেই প্রতিষ্ঠান এই মেসেজ দেওয়ার চেষ্টা করছে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, জীবনের সব ক্ষেত্রের মতো রাজনীতিতে ভালো-মন্দ আছে। কিন্তু তার অর্থ এই নয় যে রাজনীতি ভলো নয়। রাজনীতি সেই জয়গা, যেখানে জীবনের সব সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। আমাদের ব্যক্তি জীবনটা কেমন চলবে সেই সিদ্ধান্ত নিজেরাই নেই। কিন্তু আমাদের জীবন-জীবিকা কেমন চলবে, দেশটা কেমন হবে, আমার লেখাপড়ার সুযোগ থাকবে কি থাকবে না, খবারের সংস্থান হবে কি হবে না, কাজের সংস্থান হবে কি হবে না, সকালে উঠে কলটা চালালে পানি আসবে কি আসবে না, সেই সিদ্ধান্তগুলো যেখানে গৃহীত হয় সেটাই রাজনীতি। সেখানে দায়িত্বে পাশাপাশি ক্ষমতারও একটি যোগ আছে। সেখানে কিছু সুযোগ সন্ধানী লোক আসতে পারে। কিন্তু তার অর্থ এই নয়, রাজনীতি জায়গা ঠিক নয়। মানুষের জন্যই রাজনীতি করতে হবে। মানুষ মাত্রই রাজনৈতিক জীব। রাজনীতির বাইরে কেউ নয়, রাজনীতির ঊর্ধ্বেও মানুষ নয়।

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, রাজনীতি করো বা না করো, সেটা একেবারে ব্যক্তিগত পছন্দ-অপচ্ছন্দের ব্যাপার। দলীয় রাজনীতি করবে কি করবে না সেটাও তোমার ব্যক্তিগত বিষয়। কিন্তু রাজনীতি সচেতন না হয়ে তুমি সফল মানুষ হতে পারবে না, সুনাগরিক হতে পারবে না। কারণ তুমি তোমার দায়িত্ব পালন করতে পারবে না। সিদ্ধান্ত গ্রহণের জায়গায় তোমার সিদ্ধান্ত, তোমার দেশের সিদ্ধান্ত কে নেবে সেই সিদ্ধান্ত তুমি সঠিকভাবে নিতে পারবে না। তাই তোমাকে রাজনীতি সচেতন হতেই হবে। ভালো আর মন্দের দফাৎ বুঝতেই হবে, সাদা আর কালোর তফাৎ করতে জানতেই হবে।

এসময় নিজের অভিজ্ঞতার কথাও তুলে ধরেন দীপু মনি। তিনি বলেন, রাজনীতির নামে অনেক কিছু দেখেছি। রাজনীতির নামে মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করতে দেখেছি, ষড়যন্ত্র দেখেছি। রাজনীতির নামে দেশকে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর হাতে তুলে দেওয়ার অপচেষ্টা দেখেছি, নারীদের হানাদার বাহিনীর হাতে তুলে দিতে দেখেছি। রাজনীতির নামে জাতির পিতাকে হত্যা করতে দেখেছি। তাকে হত্যা করে কোন রাজনীতি করা হলো?

শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, রাজনীতি সেটাই যার মধ্যে থাকে দেশের জন্য ভালোবাসা, দেশের সেবা, মানুষের জন্য ভালোবাসা, মানুষের সেবা। আশাকরি তোমরা সবাই রাজনীতি করো বা না করো, সেই রাজনীতির সঠিক পথ তোমরা বেছে নিতে পারো।


আরও খবর

ফের অবরুদ্ধ শাবি ভিসি !

সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২