Logo
শিরোনাম

দক্ষিণ আফ্রিকায় তালাবদ্ধ ঘরে বাংলাদেশি গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২ | ৭০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দক্ষিণ আফ্রিকায় শান্তা ইসলাম (২২) নামে এক বাংলাদেশি গৃহবধূকে পিটিয়ে ও ছুরিকাঘাতে হত্যার অভিযোগ উঠেছে তার স্বামীর বিরুদ্ধে। গতকাল রোববার বাংলাদেশ সময় রাত ১টার দিকে ওই গৃহবধূর স্বামী সুমন মিয়া তাঁকে হত্যা করে পালিয়ে যায় বলে জানা গেছে। নিহত শান্তা ইসলাম টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নের থলপাড়া গ্রামের আব্দুস ছালাম শিকদারের মেয়ে।

নিহতের পরিবার বলছে, টাঙ্গাইলের পার্শ্ববর্তী বাসাইল উপজেলার কাঞ্চনপুর দক্ষিণপাড়া গ্রামের খোকা মাস্টারের ছেলে সুমন মিয়া প্রায় ৮ বছর আগে দক্ষিণ আফ্রিকায় পাড়ি জমান। সেখানে লাইটেনবার্গ শহরে ব্যবসা করেন তিনি। গত বছর পারিবারিকভাবে সুমন মিয়ার সঙ্গে শান্তা ইসলামের মোবাইল ফোনে ভিডিও কলের মাধ্যমে বিয়ে হয়।

প্রায় ছয় মাস আগে স্ত্রী শান্তাকে দক্ষিণ আফ্রিকায় তার কাছে নিয়ে যান সুমন মিয়া। এর কয়েক দিন পর থেকে তাদের দাম্পত্য কলহ শুরু হয়। ব্যবসার ধরন বাড়ানোর জন্য সুমন শান্তাকে তার বাবার (শ্বশুর) কাছ থেকে টাকা চাইতে বলেন। কিন্তু শান্তা অসম্মতি জানালে একপর্যায়ে শারীরিক নির্যাতনও চালান সুমন। বিষয়টি জানার পর কয়েক দফায় সুমনকে সাত লাখ টাকা দেন শান্তার বাবা ছালাম শিকদার।

পরিবার সূত্রে আরও জানা যায়, গতকাল রোববারও শান্তাকে শারীরিক নির্যাতন করেন সুমন। এদিন বিকেলের দিকে শান্তার মোবাইলে কল করা হলে তাকে না পেয়ে ছালাম শিকদার আফ্রিকায় বসবাসরত তাঁর আত্মীয়দের বিষয়টি জানান। স্থানীয় সময় রাত ৯টার দিকে (বাংলাদেশ সময় রাত একটা) আফ্রিকায় বসবাসরত কয়েকজন আত্মীয় সুমনের বাসায় যান। বাসায় গিয়ে দরজায় তালা দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেন তারা। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তালা ভেঙে ভেতরে শান্তার মরদেহ পড়ে থাকতে দেখেন। এ সময় শরীরের বিভিন্ন অংশে জখম ও পেটে ১৪টি ছুরির আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। পুলিশ মরদেহের পাশ থেকে চাকু, হাতুড়ি ও রেঞ্জ উদ্ধার করেছে।

স্থানীয় পুলিশ শান্তার আত্মীয়দের জানিয়েছেন, স্বামী তাঁকে পিটিয়ে ও চাকু দিয়ে আঘাতের পর মৃত্যু নিশ্চিত করে পালিয়ে গেছে। ময়নাতদন্তের জন্য পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে।

নিহত শান্তার ফুপা মো. দেলোয়ার হোসেন জানান, ব্যবসা বৃদ্ধির জন্য বাবার কাছ থেকে টাকা নিয়ে দিতে শান্তাকে চাপ দিত সুমন। এ ছাড়া মাঝে মধ্যে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনও করত। মেয়ের সুখ-শান্তির কথা চিন্তা করে বিভিন্ন এনজিও এবং লোকজনের কাছ থেকে ঋণ নিয়ে কয়েক দফায় সুমনকে সাত লাখ টাকাও দিয়েছেন। আইনি প্রক্রিয়া শেষে আগামী বৃহস্পতিবার অথবা শুক্রবার শান্তার মরদেহ দেশে আসতে পারে বলে আফ্রিকায় বসবাসরত আত্মীয়রা তাদের জানিয়েছেন।


আরও খবর



২৫ শতাংশ গ্রাহক হারাবে নেটফ্লিক্স

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ | ২৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নেটফ্লিক্সের চাহিদা কমেই চলেছে। গ্রাহকরা এর সাবস্ক্রিপশন ছেড়ে দিচ্ছেন। সম্প্রতি রিভিউয়ারজ ডট ওআরজির একটি জরিপে দেখা গিয়েছে, ২৫ শতাংশ আমেরিকান এর ব্যবহার ছেড়ে দিতে চান। নেটফ্লিক্সের জন্য খবরটি মোটেও সুখকর নয়। এর আগে ডিজনি প্লাসের মোট গ্রাহক ২২ দশমিক ১ কোটিতে উন্নীত হয়। নেটফ্লিক্সের গ্রাহক সংখ্যা ২২ দশমিক শূন্য ৬ কোটি। এ বছরের প্রথম ছয় মাসে নেটফ্লিক্স ১২ লাখ গ্রাহক হারিয়েছে। গ্রাহক কমে যাওয়ার পেছনে এর সেবার মূল্যবৃদ্ধির প্রভাব রয়েছে। জানুয়ারিতে নেটফ্লিক্সের সাধারণ সেবার মূল্য ১১ শতাংশ বাড়ানো হয়। একই সময়ে স্ট্যান্ডার্ড ও প্রিমিয়াম সেবার মূল্য বাড়ে যথাক্রমে ২০ ও ২৫ শতাংশ। পাসওয়ার্ড শেয়ারিং কমাতে এ চেষ্টা করা হলেও কমছে না।

যুক্তরাষ্ট্রের আটটি স্ট্রিমিং প্লাটফর্মের মধ্যে নেটফ্লিক্সের মূল্য সবচেয়ে বেশি। এ কারণে গ্রাহকরা পরিবার বা বন্ধুদের ছাড়াও পাসওয়ার্ড শেয়ার করছেন। এ বছর নেটফ্লিক্স চেয়েছিল বিজ্ঞাপনযুক্ত স্বল্পমূল্যের কনটেন্ট ও সেবা দিতে। কিন্তু সেটাও দর্শকদের মধ্যে কাজ করেনি। দর্শকরা ডিজনিমুখী হয়েছেন। এর অন্যতম একটি কারণ অবশ্য মার্ভেলের জনপ্রিয়তা। দর্শকদের আরেকটি অভিযোগ হলো কনটেন্টস্বল্পতা। দর্শক যে ধরনের কনটেন্ট দেখতে চান নেটফ্লিক্স তা দিতে পারছে না। এ ধরনের মন্তব্য যারা করেছেন তাদের ৩০ শতাংশই নেটফ্লিক্সের তুলনায় অন্যান্য স্ট্রিমিং প্লাটফর্ম বেশি ব্যবহার করেন। রিভিউয়ারজের তথ্য অনুসারে, তাদের জরিপে অংশ নেয়া গ্রাহকদের মধ্যে ৭৮ শতাংশ নেটফ্লিক্স, ৪৬ শতাংশ ডিজনি প্লাস, ৪২ শতাংশ এইচবিও ম্যাক্স, ৩৩ শতাংশ পিকক, ২৬ শতাংশ হুলু ও ২২ শতাংশ অ্যাপল টিভি প্লাস ব্যবহার করে।

এখানে আরেকটি মজার ব্যাপার হলো গ্রাহক হয়েও অনেকে নিয়মিত স্ট্রিমিং করেন না। তবে নেটফ্লিক্সের এই ৭৮ শতাংশ গ্রাহকের ৭০ শতাংশই নিয়মিত দর্শক। ডিজনি প্লাসের গ্রাহক ৪২ শতাংশ হলেও মাত্র ৬ শতাংশ নিয়মিত দর্শক। এইচবিও ম্যাক্সের গ্রাহকের মধ্যে দর্শক ১০ শতাংশ। সেদিক থেকে অবশ্য বলা যায়, স্ট্রিমিং সাইট হিসেবে নেটফ্লিক্স এখনো এগিয়ে আছে। ডিজনির সঙ্গে তাদের প্রতিযোগিতা আসলে এখনো চলছে। কে এগিয়ে যাবে তা নিশ্চিত করে বলার সময় এখনো আসেনি।

নিউজ ট্যাগ: নেটফ্লিক্স

আরও খবর

দুরন্তপনার ৫ বছর

বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২




রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানে সরকার ব্যর্থ : জিএম কাদের

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ | ৪৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কূটনৈতিকভাবে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান করতে সরকার ব্যর্থ হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান ও বিরোধী দলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ কাদের।

শনিবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি এ মন্তব্য করেন। এছাড়াও ওই বিববৃতিতে তিনি বান্দরবান জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম সিমান্তের নোম্যানসল্যান্ডে অবস্থানরত রোহিঙ্গা শিবিরে মিয়ানমার সেনাদের নিক্ষিপ্ত গোলায় একজন নিহত এবং আরো অন্তত ৬ জন আহতের ঘটনায় গভীর উদ্বোগ প্রকাশ করেন। বিবৃতিতে তিনি নিহতের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেছেন। পাশাপাশি শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।

বিবৃতিতে জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান জি এম কাদের বলেন, অকারণে নিরীহ রোহিঙ্গা শিবিরে মিয়ানমার সেনাদের গোলা বর্ষণের ঘটনা মেনে নেয়া যায় না। নিপীড়িত রোহিঙ্গাদের ওপর এই হামলা ক্ষমার অযোগ্য।

তিনি বলেন, কুটনৈতিকভাবে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান করতে ব্যর্থ হয়েছে সরকার। রোহিঙ্গা ইস্যুতে বিশ্ব সম্প্রদায়ের কার্যকর উদ্যোগ নিশ্চিত করতে বাংলাদেশের তেমন কোন সাফল্য নেই।

বিবৃতিতে জি এম কাদের মিয়ানমার সরকারের উদ্দেশ্যে বলেন, আঞ্চলিক নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে সবাইতে সংযত আচরণ করতে হবে। তিনি বাস্তুচ্যুত, রোহিঙ্গাদের নিরাপদ প্রত্যাবাসন নিশ্চিত করতে মিয়ানমার সরকারের প্রতি আহবান জানান।


আরও খবর



বিমানবন্দর সড়কে তীব্র যানজট

প্রকাশিত:রবিবার ০২ অক্টোবর 2০২2 | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ | ৩১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সকালে ভারী বর্ষণের ফলে রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে জলাবদ্ধতা ও তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। আজ রোববার ভোর থেকেই বৃষ্টি হওয়ায় উত্তরা-বিমানবন্দর সড়কে ভোগান্তি বাড়িয়ে দিয়েছে কয়েকগুণ। এ অবস্থায় সকাল থেকেই স্থবির হয়ে পড়েছে রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটি।

সরেজমিনে দেখা গেছে, আজ সকাল ৮টা থেকে ১১টা পর্যন্ত বিমানবন্দর সড়ক প্রায় থামকে ছিল। সেই সঙ্গে সড়কের মোড়গুলোতে কাজে বের হওয়া মানুষের ভিড়। এ কারণে ফুটপাথ দিয়ে হাঁটাও দায় হয়ে পড়ে। কাজে বের হওয়া মানুষ যানজটের কারণে বাসে উঠছে না, আবার যারা বাসে করে যাচ্ছিলেন যানজট তীব্র হওয়ায় তারাও বাস থেকে নেমে হাঁটা শুরু করছেন। 

আব্দুল্লাহপুর থেকে উত্তরা, এয়ারপোর্ট, খিলক্ষেত, বিশ্ব রোড, বনানী, কুড়িল প্রগতি স্বরণিজুড়েই তীব্র যানজট । অন্যদিকে বনানী, বিশ্বরোড, খিলক্ষেত, কাওলা, এয়ারপোর্ট, উত্তরা, আব্দুল্লাহপুর পেরিয়ে যানবাহনের দীর্ঘ সারি। 

জানা গেছে, বৃষ্টির কারণে সকাল থেকে রাজধানীতে গণপরিবহন সংকট ছিল। ফলে কাজে বের হওয়া মানুষ গণপরিবহন না পেয়ে ছাতা মাথায় রাস্তায় অপেক্ষায় ছিল। রাস্তায় মানুষ দাঁড়িয়ে থাকার কারণেও অন্যান্য যানবাহনে চলাচলে বিঘ্ন ঘটে। যার প্রভাব পড়ে যানজটে। এর মধ্যে বিমানবন্দরের মতো একটি ব্যস্ত সড়কে তীব্র যানজট দেখা দেওয়ায় তা পুরো শহরেই ছড়িয়ে পড়ে।

উত্তরা থেকে বনানীতে এসে প্রতিদিন অফিস করেন বেসরকারি চাকরিজীবী ফয়সাল। তিনি বলেন, ৯টায় আমার অফিস শুরু হয়। সে হিসেবে আমি সাড়ে ৭টায় বাসে উঠি। বাস বিমানবন্দরে এসে যানজটে আটকা পড়ে। টানা ১ ঘণ্টা অপেক্ষার পর হাঁটা শুরু করি। কিন্তু ফুটপাথে মানুষের ব্যাপক চাপ। এ জন্য ঠিক মতো হাঁটাও সম্ভব হয়নি। সীমাহীন ভোগান্তির পর আমি ১০টার দিকে অফিসে ঢুকি।

ঢাকার যানজটের যে তাতে ভোগান্তিতে পড়েছে অফিসগামী মানুষ । অফিসের জন্য যারা সকালে বের হয়েছেন তারা কেউই যথা সময়ে অফিস পৌঁছাতে পারেননি। বলতে গেলে পুরো সড়কই থেমে আছে।


আরও খবর

জেনে নিন রাজধানীতে কখন কোথায় লোডশেডিং

বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২




বিধিনিষেধ শিথিলে জাপানে ফ্লাইট বুকিং বেড়েছে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ | ৪৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কোভিড-১৯ বিধিনিষেধ শিথিল করায় আন্তর্জাতিক ফ্লাইটে আগ্রহ বেড়েছে জাপানি ভ্রমণকারীদের। গত ২৪ আগস্ট বিধিনিষেধ শিথিলের বিষয়ে ঘোষণার পর দেশটির অভ্যন্তরীণ এবং বৈদেশিক ফ্লাইটের নতুন বুকিং সংখ্যাও দ্বিগুণ বেড়ে গিয়েছে। এ বৃদ্ধির সংখ্যা বিশেষ করে আগস্টের মাঝামাঝি সময়ের তুলনায় চলতি সপ্তাহে ২ দশমিক ৭ গুণ বেশি।

নিক্কেই এশিয়া প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, জাপান সরকারের কোভিড-১৯ বিধিনিষেধ শিথিলে অল নিপ্পন এয়ারলাইনস (এএনএ) ও জাপান এয়ারলাইনসের (জেএএল) বুকিং রিজার্ভেশন দ্রুত বৃদ্ধি পেয়েছে। বিধিনিষেধের বিষয়ে সরকারের ঘোষণার পর আগামী অক্টোবরের আন্তর্জাতিক ফ্লাইটের নতুন বুকিংও দ্বিগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে।

মহামারীর কারণে জাপান সরকার এত দিন দেশটিতে দৈনিক ভ্রমণকারীর সংখ্যা ২০ হাজারে সীমাবদ্ধ রেখেছিল। গত বুধবার এ সংখ্যা বাড়িয়ে ৫০ হাজার করা হয়েছে। পাশাপাশি ভ্রমণকারীদের বিভিন্ন কোভিড পরীক্ষার প্রয়োজনীয়তাও বাতিল করা হয়েছে। এমনকি ব্যবসায়ের প্রয়োজনে বৈদেশিক ভ্রমণেও বিধিনিষেধ শিথিল করা হয়েছে। এসব কারণে দেশটির অভ্যন্তরীণ এবং বৈদেশিক ফ্লাইটে ভ্রমণকারীদের আগ্রহ বেড়েছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। পাশাপাশি দেশটি থেকে ছেড়ে যাওয়া ফ্লাইটের সংখ্যাও বেড়েছে। আগস্টের মাঝামাঝি সময়ের তুলনায় জেএএলের বুকিং সংখ্যাও চলতি সপ্তাহে ৬ দশমিক ৬ শতাংশ বেড়েছে। ব্যবসায়িক ভ্রমণকারীর পাশাপাশি বিদেশে বসবাসকারী জাপানিরা এ সময়ে বেশি ভ্রমণ করেছেন।

এএনএর নির্বাহী ভাইস প্রেসিডেন্ট আকিকো ওয়ামাদা বলেন, ভ্রমণে কোভিড পরীক্ষার প্রয়োজনীয়তা বাতিলের পর গ্রাহকদের এখন বিদেশ ভ্রমণে শঙ্কা দূর হয়েছে। এএনএ ও জেএএল উভয় উড়োজাহাজ প্রতিষ্ঠান দুটি তাদের আন্তর্জাতিক পরিষেবা সম্প্রসারণ করছে। বিশেষ করে ব্যবসায়িক রুটগুলোর জন্য ব্যাপকভাবে প্রস্তুতি নিচ্ছে।

সিঙ্গাপুর থেকে ফিরে আসা টোকিও অফিসের এক কর্মী বলেন, বিদেশ থাকাকালে জাপান ভ্রমণে কোভিড পরীক্ষার ইতিবাচক ফলাফলের বিষয়ে চিন্তিত ছিলাম। তবে সরকারের ঘোষণার পর পরীক্ষা ছাড়াই দেশে আসতে পেরেছি।

জাপানের পূর্বাঞ্চলের চিবা প্রদেশের এক ব্যক্তি বলেন, পিসিআর পরীক্ষার জন্য আর অর্থ প্রদান করতে হবে না। এ কারণে বিদেশ ভ্রমণে আরো সুযোগ বেড়ে যাবে বলে আশা করছি। হানকিউ ট্রাভেল ইন্টারন্যাশনালের এক প্রতিনিধি বলেন, ভ্রমণ শিল্প খাত উন্নত করতে জাপান সরকার কোভিডজনিত বিধিনিষেধ শিথিল করেছে। কোভিড পরীক্ষার নেতিবাচক ফলাফল এ খাতে বড় বাধা সৃষ্টি করেছিল। এটি ভোক্তাদের মানসিকভাবেও ভ্রমণ থেকে দূরে রাখত। এএনএ ও জেএএল উভয় উড়োজাহাজ প্রতিষ্ঠান দুটির আন্তর্জাতিক ফ্লাইটের যাত্রী সংখ্যা এখনো মহামারীপূর্ব স্তরের প্রায় ৪০ শতাংশে রয়ে গিয়েছে। তবে শতভাগ পুনরুদ্ধার করতে হলে বিধিনিষেধ সম্পূর্ণভাবে বাতিল করতে হবে বলে মনে করছেন দেশটির বিশেষজ্ঞরা।


আরও খবর

‘হাসি’ মানুষের সবচেয়ে ভালো ওষুধ

শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২




পদার্থে নোবেল পেলেন তিন বিজ্ঞানী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২ | ৩৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কোয়ান্টাম ইনফরমেশন সায়েন্সে অবদানের জন্য ফ্রান্সের অ্যালাইন অ্যাসপেক্ট, আমেরিকার জন এফ ক্লজার ও অস্ট্রিয়ার অ্যান্টন জেইলিঙ্গার নামের তিন বিজ্ঞানীকে এ বছরে পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কার দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার স্টকহোমের ক্যারোলিনস্কা ইনস্টিটিউটে রয়্যাল সুইডিশ একাডেমি অব সায়েন্সেসের সেক্রেটারি জেনারেল হ্যান্স এলেগ্রেন বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করেন।

মানব বিবর্তনের ওপর গবেষণার জন্য চিকিৎসাশাস্ত্রে নোবেল বিজয়ী হিসেবে সুইডিশ বিজ্ঞানী সভান্তে পাবোর নাম ঘোষণার মধ্য দিয়ে এই বছরের নোবেল বিজয়ীদের নাম ঘোষণা শুরু হয়। প্রতি বছর অক্টোবরের প্রথম সোমবার থেকে নোবেল বিজয়ীদের নাম ঘোষণা শুরু হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ৪ অক্টোবর পদার্থবিদ্যায় নোবেল বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করা হয়।

নোবেল কমিটির ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, বেল ইনেকুয়ালিটির পরীক্ষালব্ধ প্রমাণ ও কোয়ান্টাম অ্যান্টেঙ্গেলমেন্ট গবেষণায় অবদানের জন্য বিজয়ীদের এ পুরস্কার দেয়া হয়।

আগামীকাল ৫ অক্টোবর রসায়ন, ৬ অক্টোবর সাহিত্যে এবং ৭ অক্টোবর শান্তিতে নোবেল বিজয়ীর নাম ঘোষণা করা হবে। সর্বশেষ ১০ অক্টোবর অর্থনীতিতে পুরস্কার ঘোষণার মধ্য দিয়ে শেষ করা হবে ২০২২ সালের নোবেল পুরস্কার বিজয়ীর নাম ঘোষণা।

বিশ্ব পরিবেশ সংক্রান্ত গবেষণার জন্য সাইকুরো মানাবে ও ক্লাউস হ্যাসেলমান যৌথভাবে এবং পরমাণু ও গ্রহ বিষয়ক ইন্টার প্লে অব ডিজঅর্জার সংক্রান্ত গবেষণায় অবদানের জন্য জর্জিও প্যারিসি গতবছর এ পুরস্কার জিতেছিলেন।

পুরস্কার হিসেবে দেয়া হবে নগদ ১০ মিলিয়ন সুইডিশ ক্রোনার (প্রায় ৯ লাখ মার্কিন ডলার)। আগামী ১০ ডিসেম্বরে পুরস্কার হস্তান্তর করা হবে। এ অর্থ পুরস্কারের প্রবর্তক সুইডিশ বিজ্ঞানী আলফ্রেড নোবেলের রেখে যাওয়া একটি উইল থেকে অর্জিত। ১৮৯৫ সালে আলফ্রেড নোবেলে মারা যান।

নিউজ ট্যাগ: নোবেল বিজয়ী

আরও খবর

‘হাসি’ মানুষের সবচেয়ে ভালো ওষুধ

শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২