Logo
শিরোনাম

দুদকের তালিকায় শতাধিক ভিআইপি

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১ | ১০২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দীর্ঘদিনেও অনুসন্ধান, তদন্ত নিষ্পত্তি হয়নি এমন শতাধিক ভিআইপির নামে নতুন তালিকা করেছে দুদক। অবৈধ সম্পদ, ঋণ জালিয়াতি ও অর্থ পাচারে জড়িতদের এ তালিকায় আনা হয়েছে।

সংস্থাটি এদের বিরুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ অভিযোগের ফাইলগুলো দ্রুত নিষ্পত্তির পর নতুন নথি চালু করতে চায়। এছাড়া আগের তালিকাভুক্তদের নথিও দ্রুত নিষ্পত্তি করতে চাচ্ছে দুদক। এজন্য সংস্থাটির বিশেষ অনুসন্ধান ও তদন্ত শাখার মহাপরিচালক, পরিচালক ও তদন্ত কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। খবর সংশ্লিষ্ট সূত্রের।

দুদক সূত্র জানায়, গত মার্চে বর্তমান কমিশনের নতুন চেয়ারম্যান ও একজন কমিশনার নিয়োগ পান। এরপর তিন কমিশনারের নেতৃত্বে গঠিত কমিশন দফায় দফায় বৈঠকে বসেন। কমিশন সভা ছাড়া মহাপরিচালক থেকে উপপরিচালক পর্যায়ের কর্মকর্তাদের নিয়ে পৃথক বৈঠক হয়। এতে ভিআইপিদের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান ও তদন্ত ছাড়াও অন্যদের যেসব ফাইল চলমান তা দ্রুত নিষ্পত্তির নির্দেশনা দেওয়া হয়। দুদকের প্রধান কার্যালয় ছাড়াও বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালকদের কাছেও একই বার্তা দেওয়া হয়েছে ।

নতুন তালিকায় রাজনীতিবিদদের মধ্যে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র সাঈদ খোকন, বিএনপি নেতা শিমুল বিশ্বাস, ঢাকা উত্তরের সিটি করপোরেশনের বিএনপির মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়াল, সাবেক মন্ত্রী ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা ও গোল্ডেন মনিরসহ এক ডজন নেতার নাম আছে। এদের নাম অগ্রাধিকার তালিকায় রাখা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও অবৈধ সম্পদ অর্জন এবং দেশের বাইরে অর্থ পাচারের অভিযোগে অনুসন্ধান শেষ করে পরবর্তী ব্যবস্থা নিতে চায় দুদক।

এছাড়া আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মাফিয়া শাহেদ, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক ডা. ইকবালসহ তিন পরিচালক ও অপর ৭০ কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধে অনুসন্ধান শেষ পর্যায়ে রয়েছে। নারী নেত্রী পাপিয়া ও শাহেদের অবৈধ সম্পদের অনুসন্ধান ও তদন্ত রিপোর্ট তৈরির কাজ চলছে।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের সেলস অ্যান্ড মার্কেটিং বিভাগের পরিচালক আশরাফুল আলম, কার্গো বিভাগের জিএম আরিফ উল্লাহ, সাবেক জিএম আলী আহসান, শামসুল করিমসহ শীর্ষ পর্যায়ে ১০ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিমানের কার্গো শাখা থেকে ১১৮ কোটি টাকা লোপাটের একটি অনুসন্ধান শেষ পর্যায়ে রয়েছে। বিমানের সাবেক এমডি আবদুল মুনীম মুসাদ্দিক আহমেদের বিরুদ্ধেও ক্ষমতার অপব্যবহার, বিভিন্ন অনিয়ম, দুর্নীতি ও অবৈধ সম্পদের অনুসন্ধান চলছে। তার বিদেশ গমনের ওপরও নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।

এদিকে, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স ছাড়াও সিভিল এভিয়েশন, রাজউক, সড়ক ও জনপথ, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরসহ সরকারের বিভিন্ন বিভাগের ৩৫ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির সুনির্দিষ্ট তথ্য নিয়ে দুদকের গোয়েন্দা বিভাগ থেকে গোপন অনুসন্ধান শুরু হয়েছে।

এছাড়া পিকে হালদারের নেতৃত্বে ৪০ সিন্ডিকেটের মধ্যে পিপলস লিজিংয়ের সাবেক চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেনসহ বেশ কয়েকজনের অর্থ আত্মসাতের দায়ের ২০টি মামলা হচ্ছে। পাসপোর্ট অফিসের ১৫০০ কোটি টাকার কেনাকাটায় নিুমানের মালামাল সরবরাহের অভিযোগে সংস্থার শীর্ষ কয়েকজন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে চলমান অনুসন্ধান শেষ করার ওপর জোর দিয়েছে কমিশন। সারা দেশে ই-পোস্ট অফিস নির্মাণের নামে ১০০০ কোটি টাকা দুর্নীতির অভিযোগে ডাক অধিদফতরের সাবেক মহাপরিচালক সুধাংশ শেখর ভদ্রসহ ১০ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে শিগগিরই অনুসন্ধান প্রতিবেদন দেওয়া হচ্ছে।

ব্যাংকিং সেক্টরের মধ্যে একটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের সাবেক এমডি ও এনসিসি ব্যাংকের সাবেক এমডি মোসলমের বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ ও এবি ব্যাংকে সাবেক চেয়ারম্যান এম. মোর্শেদ খান ও তার ছেলে ফয়সাল মোর্শেদ খানের বিরুদ্ধে অর্থ পাচারসহ মানিলন্ডারিংয়ের অভিযোগের অনুসন্ধান প্রতিবেদন তৈরি হচ্ছে। অনুসন্ধান চলমান। এবি ব্যাংকের ঋণ গ্রহীতা এরশাদ ট্রেডার্সের বিরুদ্ধে ৩০০ কোটি টাকা ঋণ জালিয়াতির অভিযোগে অনুসন্ধান শেষ পর্যায়ে রয়েছে।

অপরদিকে, হেফাজতের আমির বাবুনগরী ও মুফতি মামুনুল হকসহ ৪০ জন হেফাজত নেতার বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাত, দুর্নীতি ও অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে অনুসন্ধান অগ্রাধিকার ভিত্তিতে শেষ করতে চায় দুদক।

সূত্র জানায়, ক্যাসিনোকাণ্ডে জড়িত চারজন এমপির বিরুদ্ধে দেশের বাইরে অর্থ পাচারের অভিযোগ অনুসন্ধানে রয়েছে। এ ছাড়া আরও দুজন এমপির বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগের অনুসন্ধানও শেষ পর্যায়ে। কমিশন তাক লাগানোর মতো কিছু মামলা করতে চায় বলে জানান একজন এমপির বিরুদ্ধে দুর্নীতির তথ্য সংগ্রহকারী অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তা।

অনুসন্ধানে পাপুল পরিবারের মোট ব্যাংক হিসাব পাওয়া গেছে ৬১৭টি। এসব ব্যাংক হিসাব বর্তমানে আদালতের নির্দেশে জব্দ করে রেখেছে দুদক। তদন্ত কর্মকর্তারা শিগগিরই এ দুজনের বিষয়ে কমিশনে প্রতিবেদন দাখিল করবেন বলে জানা গেছে। ওই প্রতিবেদনের ভিত্তিতে পরবর্তী করণীয় ঠিক করা হবে।

কয়েকজন আমলার বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ ও অর্থ পাচারের অভিযোগ অনুসন্ধান করছে দুদক। এই তালিকায় ১৮ জনের নাম রয়েছে বলে জানা গেছে। তাদের বিরুদ্ধে মানিলন্ডারিংয়ের তথ্য সংগ্রহের লক্ষ্যে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ ব্যাংকের ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের কাছে তথ্য চেয়েছে দুদক।


আরও খবর



দেশে আরও ১৩২ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৮৪৮৩

প্রকাশিত:শুক্রবার ০২ জুলাই 2০২1 | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ জুলাই ২০২১ | ৯৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দেশে মহামারি করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণ ও মৃত্যু বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে। গত ২৪ ঘণ্টায় এ ভাইরাস কেড়ে নিয়েছে আরও ১৩২ জনের প্রাণ। যা এক দিনে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ মৃত্যু। এ নিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১৪ হাজার ৭৭৮ জনে।

২৬ জুন বাদ দিয়ে গত ২৫ জুন থেকে এ পর্যন্ত প্রতিদিনই শতাধিক মৃত্যুর তথ্য মিলেছে। গত ২৭ জুন ১১৯ জনের মৃত্যু হয়েছিল। ৩০ জুন মারা যান ১১৫ জন। গতকাল বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) সর্বোচ্চ ১৪৩ জনের মৃত্যুর তথ্য জানানো হয়।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হিসেবে নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছেন আট হাজার ৪৮৩ জন। এ নিয়ে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল নয় লাখ ৩০ হাজার ৪২ জনে।

শুক্রবার (২ জুলাই) স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ৩০ হাজার ৩৮৫টি ও নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৩০ হাজার ১২টি। দেশে এ পর্যন্ত মোট নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৬৬ লাখ ৭০ হাজার ৯৯৪টি।

নমুনা পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার ২৮ দশমিক ২৭ শতাংশ। মোট পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৯৪ শতাংশ।

মৃত ১৩২ জনের মধ্যে পুরুষ ৮১ এবং নারী ৫১ জন। এদের মধ্যে ১৩ জন বাসায় মারা গেছেন। বাকিরা হাসপাতালে মারা গেছেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৪ হাজার ৫০৯ জন। এ নিয়ে সুস্থ হয়ে ওঠা রোগীর সংখ্যা ৮ লাখ ২৫ হাজার ৪২২ জন। সুস্থতার হার ৮৮ দশমিক ৭৫ শতাংশ।

মৃত ১৩২ জনের মধ্যে বয়সের হিসেবে দশোর্ধ্ব একজন, ত্রিশোর্ধ্ব ১৪, চল্লিশোর্ধ্ব ২০, পঞ্চাশোর্ধ্ব ৩০ এবং ষাটোর্ধ্ব ৬৭ জন মারা যান।

একই সময়ে করোনায় মৃত ১৩২ জনের মধ্যে বিভাগওয়ারি হিসাব অনুযায়ী, ঢাকায় ৩০, চট্টগ্রামে ২৪, রাজশাহীতে ২৪, খুলনায় ৩৫, বরিশালে ২, সিলেটে ২, রংপুরে ৯ এবং ময়মনসিংহ বিভাগে ৬ জনের মৃত্যু হয়।

গত বছরের ৮ মার্চ দেশে প্রথম ৩ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ১৮ মার্চ দেশে এ ভাইরাসে আক্রান্ত প্রথম একজনের মৃত্যু হয়।


আরও খবর



সন্ধ্যায় আসছে মর্ডানার টিকা

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১ | ৫৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

মডার্নার ৩০ লাখ ডোজ করোনাভাইরাসের টিকা আজ সোমবার (১৯ জুলাই) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ঢাকায় পৌঁছাবে। এই টিকা আজ সকালে এসে পৌঁছানোর কথা ছিল। তবে ফ্লাইটের শিডিউল বদলের কারণে টিকা সন্ধ্যায় পৌঁছাবে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

টিকার বৈশ্বিক উদ্যোগ কোভ্যাক্সের মাধ্যমে এ টিকা আসছে। এ নিয়ে কোভ্যাক্সের মাধ্যমে বাংলাদেশকে মডার্নার ৫০ লাখ ডোজ টিকা দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র।

গত ২২ জুন হোয়াইট হাউস করোনার টিকার বৈশ্বিক উদ্যোগ কোভ্যাক্সের মাধ্যমে বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ার ৮টি দেশের পাশাপাশি এশিয়ার ১৮টি দেশকে নতুন করে ১ কোটি ৬০ লাখ ডোজ টিকা দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছে। এ ছাড়া বিশ্বের আরও ৩০টি দেশ ও জোটকে যুক্তরাষ্ট্র সরাসরি যে ১ কোটি ৪০ লাখ ডোজ টিকা দেবে, সেই তালিকায়ও রয়েছে বাংলাদেশের নাম।

কোভ্যাক্সের মাধ্যমে এবং সরাসরি বিভিন্ন দেশের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের বরাদ্দ হওয়া তিন কোটি ডোজ টিকার তালিকায় রয়েছে বাংলাদেশ।


আরও খবর



দ্বিতীয় দিনে যেমন চলছে ‘সবচেয়ে কঠোর লকডাউন’

প্রকাশিত:শনিবার ২৪ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১ | ৩৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দেশব্যাপী হু হু করে বাড়তে থাকা প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের চেষ্টায় নতুন করে আরোপিত সবচেয়ে কঠোর লকডাউনের দ্বিতীয় দিন আজ শনিবার (২৪ জুলাই)। সরেজমিনে দেখো যায়- রাজধানী ঢাকায় সড়কে জরুরি প্রয়োজনে অনুমোদিত যানবাহন চলাচল করছে, ইঞ্জিনচালিত কোন গণপরিবহন চোখে পড়েনি। মাঝেমাঝে দুএকটা রিকশার দেখা পাওয়া যাচ্ছে। তবে পায়ে হেঁটে সড়কে হাটতে দেখা গেছে অনেককেই। এক্ষেত্রে চেকপোস্টগুলোতে পায়ে হেঁটে বের হওয়াদের তেমন একটা জিজ্ঞাসাবাদের মুখে পড়তে দেখা যায়নি।

৫ই আগস্ট (বৃহস্পতিবার) দিবাগত রাত ১২টা পর্যন্ত এই কঠোর বিধিনিষেধ বহাল থাকবে। এসময় খুব জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘরের বাইরে বের হলে তাকে শাস্তির আওতায় আনার কথা বলেছে প্রশাসন। বিধিনিষেধ চলাকালে জনগণকে সতর্ক থাকা, মাস্ক পরিধানসহ স্বাস্থ্যবিধি মানার নির্দেশ দেওয়া হয়। জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন জানিয়েছেন, বিধিনিষেধ আগের চেয়ে কঠোর হবে। বিধিনিষেধ কার্যকর করতে পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাব, বিজিবি, সেনাবাহিনী ও আনসার সদস্যরা মাঠে তৎপর রয়েছেন।

গত ১৩ জুলাই বিধিনিষেধ আরোপ করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। ওই আদেশে ১৪ জুলাই মধ্যরাত থেকে ২৩ জুলাই সকাল ৬টা পর্যন্ত বিধিনিষেধ শিথিল করা হয়েছিল ঈদের কারণে। ২৩ জুলাই সকাল ৬টা থেকে নতুন করে কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছিল ওই ঘোষণায়।

কঠোর বিধিনিষেধের প্রথম দিন গতকাল শুক্রবারে (২৩ জুলাই) ঢাকায় পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হয়েছে ৪০৩ জন। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) জানায়, লকডাউন অমান্য করে অহেতুক ঘোরাফেরা করায় তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ সময় মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ২০৩ জনকে ১ লাখ ২৭ হাজার ২৭০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এদিকে র‌্যাব সদর দপ্তরের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের সিনিয়র সহকারী পরিচালক এএসপি আ ন ম ইমরান খান জানান, করোনা সংক্রমণের বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় সরকারি সবচেয়ে কঠোর বিধিনিষেধের প্রথম দিনে সারাদেশব্যাপী র‌্যাবের ১৬৮টি টহল ও ১৫৮টি চেকপোস্ট পরিচালনা করা হয়। বিনা প্রয়োজনে মানুষের চলাচল নিয়ন্ত্রণে র‌্যাবের জনসচেতনামূলক মাইকিং, লিফলেট বিতরণ ও বিনামূল্যে মাস্ক বিতরণ কর্মসূচি চলমান ছিল।

র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবং জেলা প্রশাসনের সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমে সারাদেশে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে। বিধি-নিষেধ অমান্য করায় সারাদেশে পরিচালিত ১২টি ভ্রাম্যমাণ আদালতে সর্বমোট ৯৫ জনকে ৪৮ হাজার ৭০০ টাকা জরিমানা করা হয়। এছাড়া স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে বিনামূল্যে এক হাজারের বেশি মাস্ক বিতরণ এবং বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে হ্যান্ড স্যানিটাইজার সরবরাহ করে র‌্যাব।

সরকার আরোপিত ‌বিধিনিষেধের মধ্যে রয়েছে-

১) সব সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি অফিস বন্ধ থাকবে।

২) সড়ক, রেল ও নৌপথে গণপরিবহন (অভ্যন্তরীণ বিমানসহ) ও সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে।

৩) শপিং মল/মার্কেটসহ সব দোকানপাট বন্ধ থাকবে।

৪) সব পর্যটনকেন্দ্র, রিসোর্ট, কমিউনিটি সেন্টার ও বিনোদন কেন্দ্র বন্ধ থাকবে।

৫) সব ধরনের শিল্প-কলকারখানা বন্ধ থাকবে।

৬) জনসমাবেশ হয় এ ধরনের সামাজিক বিবাহত্তোর অনুষ্ঠান (ওয়ালিমা), জন্মদিন, পিকনিক, পার্টি ইত্যাদি রাজনৈতিক ও ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান বন্ধ থাকবে।

৭) বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট আদালতগুলোর বিষয়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা জারি করবে।

৮) ব্যাংক-বিমা/আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক/আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ প্রয়োজনীয় নির্দেশনা জারি করবে।

৯) সরকারি কর্মচারীরা নিজ নিজ কর্মস্থলে অবস্থান করবেন এবং দাপ্তরিক কাজগুলো ভার্চুয়ালি (ই-নথি, ই-টেন্ডারিং, ই-মেইল, এসএমএস, হোয়াটঅ্যাপসহ অন্যান্য মাধ্যম) সম্পন্ন করবেন।

১০) আইনশৃঙ্খলা এবং জরুরি পরিসেবা, যেমন: কৃষি পণ্য ও উপকরণ (সার, বীজ, কীটনাশক, কৃষি যন্ত্রপাতি ইত্যাদি), খাদ্যশস্য ও খাদ্যদ্রব্য পরিবহন/বিক্রি, ত্রাণ বিতরণ, স্বাস্থ্যসেবা, কোভিড-১৯ টিকা প্রদান, জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) প্রদান কার্যক্রম, রাজস্ব আদায় সম্পর্কিত কার্যাবলী, বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস/জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, টেলিফোন ও ইন্টারনেট (সরকারি-বেসরকারি), গণমাধ্যম (প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া), বেসরকারি নিরাপত্তা ব্যবস্থা, ডাক সেবা, ব্যাংক, ভিসা সংক্রান্ত কার্যক্রম, সিটি করপোরেশন/পৌরসভা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা, সড়কের বাতি ব্যবস্থাপনা ইত্যাদি কার্যক্রম), সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি, ফার্মেসি ও ফার্মাসিউটিক্যালসসহ অন্যান্য জরুরি/অত্যাবশ্যকীয় পণ্য ও সেবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অফিসের কর্মচারী ও যানবাহন প্রাতিষ্ঠানিক পরিচয়পত্র প্রদর্শন সাপেক্ষে যাতায়াত করতে পারবে।

১১) বিভাগীয়, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার কার্যালয় খোলা রাখার বিষয়ে অর্থ বিভাগ প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেবে।

১২) জরুরি পণ্য পরিবহনে নিয়োজিত ট্রাক, লরি/কাভার্ডভ্যান/নৌ-যান/পণ্যবাহী রেল/ফেরি এ নিষেধাজ্ঞার আওতাবহির্ভূত থাকবে।

১৩) বন্দরগুলো (বিমান, সমুদ্র, নৌ ও স্থল) এবং তৎসংশ্লিষ্ট অফিসগুলো এ নিষেধাজ্ঞার আওতাবহির্ভূত থাকবে।

১৪) কাঁচাবাজার এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য সকাল ৯টা থেকে বেলা ৩টা পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে কেনাবেচা করা যাবে। সংশ্লিষ্ট বাণিজ্য সংগঠন/বাজার কর্তৃপক্ষ/স্থানীয় প্রশাসন বিষয়টি নিশ্চিত করবে।

১৫) অতি জরুরি প্রয়োজন ছাড়া (ওষুধ ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি কেনা, চিকিৎসা সেবা, মৃতদেহ দাফন/সৎকার ইত্যাদি) কোনোভাবেই বাড়ির বাইরে বের হওয়া যাবে না। নির্দেশনা অমান্যকারীর বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

১৬) টিকা কার্ড প্রদর্শন সাপেক্ষে টিকা নেওয়ার জন্য যাতায়াত করা যাবে।

১৭) খাবারের দোকান, হোটেল-রেস্তোরাঁ সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত খাবার বিক্রি (অনলাইন/টেকওয়ে) করতে পারবে।

১৮) আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালু থাকবে এবং বিদেশগামী যাত্রীরা তাদের আন্তর্জাতিক ভ্রমণের টিকিট প্রদর্শন করে গাড়ি ব্যবহার করে যাতায়াত করতে পারবেন।

১৯) স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে মসজিদে নামাজের বিষয়ে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় নির্দেশনা দেবে।

২০) আর্মি ইন এইড টু সিভিল পাওয়ার বিধানের আওতায় মাঠপর্যায়ে কার্যকর টহল নিশ্চিত করার জন্য সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ প্রয়োজনীয় সংখ্যক সেনা মোতায়েন করবে। জেলা ম্যাজিস্ট্রেট স্থানীয় সেনা কমান্ডারের সঙ্গে যোগাযোগ করে বিষয়টি নিশ্চিত করবেন।

২১) জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জেলা পর্যায়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নিয়ে সমন্বয় সভা করে সেনাবাহিনী, বিজিবি/কোস্টগার্ড, পুলিশ, র‌্যাব ও আনসার নিয়োগ ও টহলের অধিক্ষেত্র, পদ্ধতি সময় নির্ধারণ করবেন। সেইসঙ্গে স্থানীয়ভাবে বিশেষ কোনও কার্যক্রমের প্রয়োজন হলে সে বিষয়ে পদক্ষেপ নেবেন। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগগুলো এ বিষয়ে মাঠপর্যায়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেবে।

২২) জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় মাঠপর্যায়ে প্রয়োজনীয় সংখ্যক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগের বিষয়টি নিশ্চিত করবে।

২৩) স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক তার পক্ষে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ বাহিনীকে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার প্রয়োজনীয় ক্ষমতা দেবেন।



আরও খবর



আফগানিস্তানে সরকারি বাহিনীর হামলায় নিহত শতাধিক তালেবান

প্রকাশিত:রবিবার ১১ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ জুলাই ২০২১ | ৭০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আফগানিস্তানের বিভিন্ন এলাকায় সরকারি বাহিনীর সঙ্গে তালেবানের তুমুল সংঘর্ষে কমপক্ষে ১০৯ তালেবান যোদ্ধা নিহত এবং ২৫ জন আহত হয়েছেন। কোনো কোনো স্থানে আফগান সৈন্যরা তালেবানের অগ্রাভিযান প্রতিহত করেছেন এবং কোনো কোনো জেলা তালেবানের দখলে চলে গেছে। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়ার।

কান্দাহার প্রদেশের সেনা কমান্ডার মোহাম্মাদ সাদেক ঈসা জানিয়েছেন, কান্দাহার শহরে তালেবান অস্ত্রধারীদের সঙ্গে তাদের তীব্র সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় আফগান বিমানবাহিনীর হামলায় ৭০ জন তালেবান নিহত হয়েছেন।

হামলা থেকে বাঁচতে বেসামরিক নাগরিকদের মানবঢাল হিসেবে ব্যবহার করছে তালেবান। শুক্রবার দিনভর এ সংঘর্ষ চলে বলে শনিবার আফগান বাহিনী গণমাধ্যমকে জানিয়েছে।

গজনি শহরের আশপাশে শনিবার দিনভর সংঘর্ষ হয়েছে এবং গজনি সিটি করপোরেশনের একজন কাউন্সিলর বলেছেন, তালেবান অস্ত্রধারীরা ঘরবাড়িতে ঢুকে সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে তাদের সরকারি সেনাদের বিরুদ্ধে মানবঢাল হিসেবে ব্যবহার করছে।

তিনি আরও বলেন, গজনি প্রদেশের মালেস্তান, নাহুর ও জাগুরি জেলায় তালেবানের কয়েক দফা হামলা প্রতিহত করেছেন সরকারি সেনারা।



আরও খবর



স্বামীর জন্মদিনে দীপিকার পাগলামি!

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২১ জুলাই 20২১ | ৮০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

জন্মদিনে প্রবল ঝগড়া চলছে স্বামী-স্ত্রীর! একে অপরকে বলছেন, ' কী করব আমি? মরে যাব? তোমার অনুভূতি আছে, আমার কোনও অনুভূতি নেই?' এরপরেই বেজে উঠছে জনপ্রিয় র‍্যাপ গান সাডা কুত্তা কুত্তা!

বলিউডের তারকা দম্পতি রণবীর সিং ও দীপিকা পাড়ুকোন। তাদের দাম্পত্য কেমিস্ট্রি ভক্তদের নজর কেড়েছে। রণবীরের ৩৬ তম জন্মদিনে পুরনো একটি মজার ভিডিও শেয়ার করেছেন দীপিকা।

ভিডিওতে দেখা যায়, যশরাজ মুখাটের ভাইরাল ম্যাশ আপ 'তুয়ারা কুট্টা টমি' গানের সঙ্গে ক্রমাগত নেচেই চলেছেন এই দম্পতি। ভিডিওতে রণবীর বিগ বস ১৩ প্রতিযোগী শেহনাজ গিলের ডায়লগ বলেছেন, 'মেরি কোই ফিলিং নেহি হ্যায়'। তবু তাঁকে বিরক্ত করার জন্য তাঁকে ঘিরে ঘিরে নেচে চলেছেন দীপিকা।

ভিডিওটি শেয়ার করে দীপিকা লিখেছেন, 'যেহেতু আজ তোমার জন্মদিন আর তুমি আমার সবথেকে প্রিয়, তাই আমি তোমার কথা মেনে নিলাম। শুনে নাও, তুয়ারা কুট্টা ইজ টমি, আর সাডা কুট্টা ইজ কুট্টা। শুভ জন্মদিন'।

তাদের সেই ভিডিও নেটিজেনদের নজর কেড়েছে। মন্তব্য বক্সে অনেকেই তাদের ভালোবাসা উজাড় করে দিয়েছেন। তারকা দম্পতিকে ভক্তরা ভালোবাসায় সিক্ত করেছেন।



আরও খবর