Logo
শিরোনাম

এবার টিকটকের নজর দারিতে সিআইডি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৩ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ জুন ২০২২ | ২৬৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

টিকটক ব্যবহারকারীরা কোনো ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের পর চাইলেই এখন আর নিজেদের লুকাতে পারবে না। এখন থেকে টিকটক ব্যবহারকারীদের সম্পর্কে তথ্য জানতে পারবে বাংলাদেশ পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। পুলিশের এ বিশেষ শাখার কাছ থেকে পাওয়া কনটেন্ট রিমুভ্যাল রিকোয়েস্ট এবং সেটি নিয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছে টিকটক কর্তৃপক্ষ।

আজ বৃহস্পতিবার (২৩ ডিসেম্বর) সকালে সিআইডির সাইবার ক্রাইম কমান্ড অ্যান্ড কন্ট্রোল সেন্টারের বিশেষ পুলিশ সুপার (এসএসপি) মুহাম্মদ রেজাউল মাসুদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

শর্ট-ভিডিও প্ল্যাটফর্ম টিকটক কে বাংলাদেশে নিরাপদ ও গ্রহণযোগ্য প্ল্যাটফর্ম হিসেবে ব্যবহারের জন্য সিআইডি ও টিকটক কর্মকর্তাদের মধ্যে গতকাল বুধবার (২২ ডিসেম্বর) বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এ বিষয়ে এসএসপি রেজাউল মাসুদ বলেন, টিকটকের সাউথ এশিয়ার পাবলিক পলিসি ম্যানেজার প্রাচী ভূচার সঙ্গে সিআইডির সাইবার ক্রাইম ইউনিটের এ মতবিনিময় অনুষ্ঠিত হয়। দেশের আইনপ্রয়োগকারী সংস্থা সিআইডির কাছ থেকে পাওয়া টিকটক ব্যবহারকারীদের সম্পর্কে তথ্যপ্রাপ্তির অনুরোধ সম্পর্কিত বিষয় এখন সর্বোচ্চ গুরুত্ব পাবে। সিআইডির কাছ থেকে পাওয়া কনটেন্ট রিমুভ্যাল রিকোয়েস্ট এবং সেটি নিয়ে দ্রুত পদক্ষেপও নেবে টিকটক।

তিনি আরও বলেন, প্রাণবন্ত ও বৈচিত্র্যময় কমিউনিটির জন্য টিকটক এখন থেকে একটি নিরাপদ ও গ্রহণযোগ্য প্লাটফর্ম হিসেবে পরিচিতি পাবে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে গুজব ও অপপ্রচার রোধেও সিআইডির সঙ্গে কাজ করবে টিকটক।


আরও খবর



‘আছে শুধু ভালোবাসা, দিয়ে গেলাম তাই’

প্রকাশিত:শনিবার ২৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২ | ৪০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, নিঃস্ব আমি রিক্ত আমি দেবার কিছু নেই, আছে শুধু ভালোবাসা দিয়ে গেলাম তাই। শনিবার (২৫ জুন) দুপুরে মাদারীপুরের শিবচরে পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় তিনি এ কথা বলেন।

এর আগে স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধন শেষে বেলা ১২টা ৫৩ মিনিটে মাদারীপুরের শিবচরের সমাবেশে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী। এসময় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে মঞ্চে ওঠেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শাজাহান খান, জাহাঙ্গীর কবির নানক ও আব্দুর রহমান প্রমুখ। স্বাগত বক্তব্য দেন জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ ও মাদারীপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য নূর-ই-আলম চৌধুরী। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন ওবায়দুল কাদের।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, বাবা-মা-ভাই হারিয়ে পেয়েছি আপনাদের। আপনাদের মাঝেই আমি ফিরে পেয়েছি আমার বাবার স্নেহ, মায়ের স্নেহ, ভাইয়ের স্নেহ। আপনাদের পাশেই আমি আছি, আপনাদের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য। আপনাদের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য আমি যেকোনও ত্যাগ স্বীকারে প্রস্তুত, এই ওয়াদা আমি দিয়ে গেলাম।

তিনি বলেন, যারা পদ্মা সেতু নির্মাণে বাধা দিয়েছিল, তাদের একটা জবাব আমরা দিতে পেরেছি। তাদের উপযুক্ত একটা আমরা এই পদ্মা সেতুর মাধ্যমে দিতে পারলাম যে- না, বাংলাদেশ পারে।

পদ্মা সেতু করতে গিয়ে নিজের পরিবারের অনেক সদস্য অপমান সহ্য করতে হয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজকে আলহামদুলিল্লাহ, আমরা সেই পদ্মা সেতু নির্মাণ করেছি। আর আপনাদের কষ্ট করতে হবে না। এই খরস্রোতা পদ্মা নদী পার হতে গিয়ে আর কাউকে সন্তান হারাতে হবে না, বাবা-মাকে, ভাইবোনকে হারাতে হবে না। আজকে সেখানে আপনারা নির্বিঘ্নে চলতে পারবেন। সেই ব্যবস্থা আমরা করে দিয়েছি।

সমাবেশে যোগ দেওয়ার আগে বেলা সাড়ে ১২টার দিকে ওপারে শরীয়তপুরের জাজিরা প্রান্তে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী। সেখানে ১২টা ৩৬ মিনিটে সেখানে বানানো অপর একটি ফলক মঞ্চে যান তিনি। সেখানে দ্বিতীয় দফায় মোনাজাতে অংশ নেন।

জাজিরা প্রান্তে সেতুর মোড়ক উন্মোচনের সময় প্রধানমন্ত্রীর একপাশে তার অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান এবং অপর পাশে সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন উপস্থিত ছিলেন। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, চিফ হুইপ নূর ই আলম চৌধুরী, সংসদ সদস্য শেখ হেলাল উদ্দিন প্রমুখ।

এর আগে মুন্সীগঞ্জের মাওয়া প্রান্তে সমাবেশস্থলে বক্তব্য দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রায় সাড়ে তিন হাজার অতিথিকে মাওয়া প্রান্তে সুধী সমাবেশের জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। সেতুর টোল প্লাজার কিছুটা আগে এক পাশে অস্থায়ী প্যান্ডেলে আয়োজন করা হয় সমাবেশের। এতে সভাপতিত্ব করেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

সমাবেশে ভাষণ শেষে স্মারক ডাকটিকিট, স্যুভেনির শিট, উদ্বোধনী খাম, সিলমোহর ও ১০০ টাকার স্মারক নোট উদ্বোধন করেন তিনি। এরপর গাড়িবহর নিয়ে ১১টা ৫৫ মিনিটে টোল প্লাজায় টোল প্রদান করেন তিনি। ১১টা ৫০ মিনিটে মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। এরপর ১১টা ৫৯ মিনিটে সেতুর ফলক উন্মোচন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর মাধ্যমেই খুললো পদ্মা সেতুর দুয়ার।


আরও খবর



এমবাপ্পের গোলের পরও ফ্রান্সের ড্র

প্রকাশিত:শনিবার ১১ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২ | ৭৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ফ্রান্সের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন তকমাটাই এখন প্রশ্নের মুখে। হঠাৎ করেই যেন পুরোপুরি খেই হারিয়ে ফেলেছে দিদিয়ের দেশমের দল। সর্বশেষ অস্ট্রিয়ার বিপক্ষেও জিততে পারল না তারা। দলের সেরা তারকা কিলিয়ান এমবাপ্পে গোল পাওয়ার পরও শেষ পর্যন্ত ড্র নিয়েই মাঠ ছাড়লো ফরাসিরা।

উয়েফা ন্যাশন্স লিগের চলতি আসরে লিগ 'এ'র এক নাম্বার গ্রুপের ম্যাচে শুক্রবার দিবাগত রাতে ১-১ গোলে ড্র নিয়ে মাঠ ছেড়েছেন বেনজেমা-এমবাপ্পেরা। 

এই নিয়ে টানা ৩ ম্যাচে জয়বিহীন রইলো ফ্রান্স। মাত্র ২ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপের তলানিতে জায়গা হয়েছে তাদের। আর সমান ম্যাচে ১টি করে জয়, হার ও ড্রয়ে ৪ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছে অস্ট্রিয়া।

কিলিয়ান এমবাপ্পেকে শুরুর একাদশে না রাখার ফল হাতেনাতে পায় ফরাসিরা। বলার মতো কোনো আক্রমণ করতে তো পারেইনি, উল্টো ম্যাচের ৩৭তম মিনিটেই গোল হজম করে বসে তারা। ফরাসিদের রক্ষণকে পরাস্ত করে দারুণ দক্ষতায় জাল ভেদ করেন অস্ট্রিয়ার আন্দ্রেস ওয়েইমান। 

গোল হজমের পর মরিয়া চেষ্টা চালিয়েও জালের ঠিকানা খুঁজে পাচ্ছিল না ফ্রান্স। অবশেষে বেঞ্চ থেকেই আক্রমণভাগের মূল অস্ত্র তথা এমবাপ্পেকে নামান দেশম। কিন্তু তিনিও প্রত্যাশা পূরণ করতে পারছিলেন না। অবশ্য শেষ পর্যন্ত বদলি নামা এমবাপ্পেই ফ্রান্সকে রক্ষা করেন। ৮৩তম মিনিটে আরেক বদলি খেলোয়াড় ক্রিস্টোফার এনকুকুর বানিয়ে দেওয়া বলে লক্ষ্যভেদ করেন পিএসজি তারকা। কিন্তু তাতে সমতা ফিরলেও বাকি সময়ে আর এগিয়ে যাওয়া হয়নি ফ্রান্সের।

এর আগে আসরে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ডেনমার্কের কাছে হেরে বসে ফ্রান্স। এরপর ক্রোয়েশিয়ার সঙ্গে ড্র। তৃতীয় ম্যাচেও তাদের ড্র ভাগ্যই বরণ করতে হলো। 

অন্যদিকে গ্রুপের আরেক ম্যাচে আজ রাতে ডেনমার্ককে ০-১ গোলে হারিয়েছে ক্রোয়েশিয়া। ৩ ম্যাচে ১ জয় ও ১ ড্রয়ে ৪ পয়েন্ট নিয়ে ক্রোয়েশিয়ার অবস্থান তিনে। আর ৩ ম্যাচে ২ জয়ে ৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে ডেনমার্ক।  


আরও খবর



নানার বাড়িতে বেড়াতে আসা কিশোরের লাশ মিলল পুকুরে

প্রকাশিত:শনিবার ০৪ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২ | ৬৬জন দেখেছেন

Image

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলায় নানার বাড়িতে বেড়াতে আসা এক কিশোরের রক্তাক্ত লাশ পুকুর থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। 

নিহত কিশোরের নাম শুভ সাহা (‌১৩)। সে কুমিল্লা জেলার লাকসাম উপজেলার দৌলতগঞ্জ গ্রামের মৃত দিলীপ সাহার ছেলে এবং ওই গ্রামের একটি বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র ছিল।

শনিবার (৪ জুন) দুপুর পৌনে ২টার দিকে উপজেলার ১০নং নরোত্তমপুর ইউনিয়নের ৮নম্বর ওয়ার্ডের মান্দার বাড়ি সংলগ্ন একটি পুকুর থেকে এ কিশোরের ভাসমান লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, নিহত শুভ গতকাল শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে কুমিল্লা জেলার লাকসাম পৌরসভা এলাকা থেকে মামা বিশ্বজিৎ এর সঙ্গে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার ১০ নং নরোত্তমপুর ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের মন্দার বাড়িতে মামার সঙ্গে বেড়াতে আসে। একই দিন রাত পৌনে ১০টার দিকে নানার বাড়ি থেকে মোবাইলে কথা বলতে বলতে বের হয় সে। তারপর থেকে নিখোঁজ ছিল সে।

বেগমগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর জাহেদুল হক রনি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন,খবর পেয়ে পুলিশ দুপুর পৌনে ২টার দিকে ঘটনাস্থল থেকে ওই কিশোরের ভাসমান লাশ উদ্ধার করে।

ওসি আরো জানায়, মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। বিকেলের দিকে ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হবে। এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়েরের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে পেলে এ বিষয়ে আরো বিস্তারিত জানা যাবে।


আরও খবর



ইউক্রেনের লুহানস্কে সেতু ধ্বংস, পালানোর পথ বন্ধ

প্রকাশিত:সোমবার ১৩ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৬ জুন ২০২২ | ৫০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পূর্ব ইউক্রেনের দোনবাসে গুরুত্বপূর্ণ একটি সেতু ধ্বংস করেছে রাশিয়া। ফলে ওই এলাকার অধিবাসীদের পালানোর সম্ভাব্য পথ বন্ধ হয়ে গেছে। খবর রয়টার্স।

খবরে বলা হয়েছে, দোনবাস অঞ্চলের লুহানস্কের সেভেরোদোনেৎস্ক শহরকে আরেকটি শহরের সঙ্গে সংযুক্ত করেছে একটি সেতু। রোববার (১২ জুন) ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়ে সেতুটি ধ্বংস করে দেয় রুশ সেনারা। স্থানীয় কর্মকর্তারা এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

এ মুহূর্তে পূর্ব ইউক্রেনের দোনবাসের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে জোরালো অভিযান অব্যাহত রেখেছে রুশ সেনাবাহিনী। কিন্তু লুহানস্কের সেভেরোদোনেৎস্ক শহরে রুশ সেনাদের বড় প্রতিরোধ গড়ে তুলেছে ইউক্রেনীয় সেনারা। ফলে কয়েক দিন ধরে শহরের বিভিন্ন স্থানে উভয় বাহিনীর মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ চলছে।

লুহানস্কের গভর্নর সেরহি গাইদাই জানান, রোববারও শহরের রাস্তায় রাস্তায় রুশ ও ইউক্রেনীয় বাহিনীর লড়াই হয়েছে। খবরে বলা হয়েছে, সেভেরোদোনেৎস্ক শহরের বেশির ভাগই দখল করে নিয়েছে রাশিয়া। তবে এর শিল্পাঞ্চল ও গুরুত্বপূর্ণ একটি রাসায়নিক প্ল্যান্ট এখনো ইউক্রেনীয় সেনাদের নিয়ন্ত্রণে রয়ে গেছে।

গাইদাই জানান, সিভেরস্কি দোনেৎস নদীর ওপর একটি সেতু গুঁড়িয়ে দিয়েছে রুশ সেনারা। সেতুটি সেভেরোদোনেৎস্ক শহরকে লিসিচানস্ক শহরের সঙ্গে যুক্ত করেছে। এ নদীর ওপর মোট তিনটি সেতু ছিল। এর মধ্যে দুটি ইতোমধ্যে ধ্বংস করা হয়েছে। ফলে অধিবাসীদের শহর ছেড়ে পালানোর মতো পথ সংকীর্ণ হয়ে আসছে।

এদিকে লিসিচানস্ক শহরে রুশ বোমা হামলায় চারটি বাড়ি ও শপিং সেন্টার ধ্বংস হয়েছে। হামলার সময় এক নারী নিহত হয়েছেন। এর আগে আলাদা এক খবরে বলা হয়, ইউক্রেনের পশ্চিমাঞ্চলের চোর্টকিভ শহরে একটি অস্ত্রের গুদাম ধ্বংস করা হয়েছে।

বিবিসির খবরে বলা হয়েছে,  রুশ বাহিনীর রকেট হামলায় সেখানকার একটি সামরিক স্থাপনা ধ্বংস হয়েছে। ইউক্রেনের দাবি, এ হামলায় ১২ বছর বয়সী এক শিশুসহ ২২ জন আহত হয়েছেন। তবে রাশিয়া হতাহতের বিষয়টি অস্বীকার করেছে। তবে রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলছে, চোর্টকিভ শহরে হামলা চালিয়ে ইউক্রেনে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় দেশগুলোর সরবরাহ করা একটি অস্ত্রের গুদাম ধ্বংস করা হয়েছে।

ওই গুদামে অ্যান্টি-ট্যাংক মিসাইল সিস্টেম, বহনযোগ্য বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা এবং গোলাবারুদ ছিল বলে জানিয়েছেন রাশিয়ার সেনা সদস্যরা। তবে বিবিসি স্বাধীনভাবে এসব দাবির সত্যতা যাচাই করতে পারেনি।

ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে চলছে তীব্র লড়াই। রুশ বাহিনীর মুহুর্মুহু গোলাবর্ষণ চলছে সেভেরোদনেৎস্ক শহরে। শনিবার (১১ জুন) গোলার আঘাতে রেডিয়েটর থেকে কয়েক টন তেল লিক হওয়ার পর স্থানীয় একটি রাসায়নিক কারখানায় আগুন লেগে যায়। ওই রাসায়নিক কারখানার ভেতরে ভূগর্ভস্থ আশ্রয়কেন্দ্রে ইউক্রেনের যোদ্ধাদের সঙ্গে অন্তত ৮০০ মানুষ আটকা পড়েছে।

কারখানাটি থেকে যোদ্ধাদের সরিয়ে নেয়ার বিষয়ে আলোচনা করতে অস্বীকার করে রুশ বাহিনী। প্ল্যান্টটি তারা অবরুদ্ধ করে রেখেছে। দোনবাসে লড়াই তীব্র হওয়ায় শহর ছেড়ে প্রাণে বাঁচতে পালাতে শুরু করেছে হাজারো মানুষ। ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে রুশ সামরিক অভিযানের মুখে শহরটির সব রেল ও বাস স্টেশনে এখন মানুষের ভিড়।

একদিকে যখন নিজ শহর ছেড়ে পালাচ্ছে মানুষ, তখন দখলে থাকা খেরসন ও মারিউপোল শহরের বাসিন্দাদের পাসপোর্ট দেয়া শুরু করেছে রুশ সরকার। রাশিয়ার গণমাধ্যমের দাবি, ওই সব এলাকায় মানুষ রুশ নাগরিকত্ব নিতে রাজি থাকায় তাদের পাসপোর্ট দেয়া শুরু হয়।

তবে রাশিয়ার এমন কার্যক্রমের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে ইউক্রেন। দেশটির দাবি, বাসিন্দাদের জোর করে রাশিয়ার নাগরিক বানানো হচ্ছে, যা আঞ্চলিক অখণ্ডতার প্রকাশ্য লঙ্ঘন। একই সঙ্গে ইউরোপীয় ইউনিয়ন প্রধানের কাছে রাশিয়ার ওপর আরও কঠোর নিষেধাজ্ঞা দেয়ার আহ্বান জানান ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি।


আরও খবর

মুম্বাইয়ে ভবন ধসে নিহত ১৯

মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২

এত শস্য কোথায় রাখবে ইউক্রেন?

মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২




জ্বালানি সাশ্রয়ে শ্রীলঙ্কায় সরকারি অফিস ৩ দিন ছুটি

প্রকাশিত:বুধবার ১৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৭ জুন ২০২২ | ৪২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বিশ্বের কিছু উন্নত দেশে কর্মীদের কর্মোদ্দীপনা ও স্বাচ্ছন্দ্য বাড়ানোর জন্য ৪ দিনের কর্মসপ্তাহ প্রচলনের সম্ভাবনাকে খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তবে শ্রীলঙ্কায় নজিরবিহীন জ্বালানি ও খাদ্য সংকট থেকে উত্তরণের জন্য সরকারি কর্মচারীদের সাপ্তাহিক ছুটির দিন ২ থেকে ৩ করা হচ্ছে। বুধবার (১৫ জুন) মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

মঙ্গলবার কয়েক দশকের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ অর্থনৈতিক সংকটে থাকা দেশটি ঘোষণা দেয়, সরকারি কর্মচারীরা পরবর্তী ৩ মাস শনি ও রবির পাশাপাশি শুক্রবারেও ছুটি পাবেন। এ ক্ষেত্রে তাদের বেতনও কমবে না। সরকারের প্রত্যাশা, কর্মচারীরা বাড়তি সময়টুকু কাজে লাগিয়ে নিজ নিজ বাসায় শস্যের আবাদ করবেন এবং খাদ্য সংকট থেকে উত্তরণে ইতিবাচক ভূমিকা পালন করবেন।

সরকারি তথ্য বিভাগ জানিয়েছে, আগামীতে যে খাদ্য সংকট দেখা দিতে যাচ্ছে, তার সঙ্গে মোকাবিলার জন্য সরকারি কর্মীরা একটি কর্মদিবস ব্যয় করে নিজেদের বাসার পেছনে বা অন্য কোথাও কৃষিকাজের সঙ্গে সংযুক্ত হবেন, এটাই উচিৎ বলে মনে হচ্ছে। সপ্তাহে কর্মদিবসের সংখ্যা কমে যাওয়াতে কর্মচারীরা বিদ্যুৎ বিভ্রাট, পরিবহনে প্রতিবন্ধকতা, জ্বালানি ও খাদ্য সঙ্কটের মত বিষয়গুলো থেকে কিছুটা হলেও রেহাই পাবেন।

ধারণা করা হয়, শ্রীলঙ্কায় মোট ১০ লাখ সরকারি কর্মচারি আছেন। তবে 'অত্যাবশ্যক সেবার' সঙ্গে যুক্ত কর্মী, হাসপাতাল, বন্দর, জ্বালানি ও পানি খাতের সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা এই বাড়তি ছুটি পাবেন না।

শ্রীলঙ্কা সরকার আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) সঙ্গে এ মাসে একটি বেলআউট প্যাকেজের বিষয়ে আলোচনা করবে। সরকার চাইছে মানুষকে বিদেশে চাকরি নিতে উৎসাহিত করতে, যাতে রেমিট্যান্সের পরিমাণ বাড়ে। যদি কোনো সরকারি কর্মচারী দেশের বাইরে চাকরি পান, তাহলে তাকে ৫ বছরের শর্তহীন ছুটি দেওয়া হবে।

সরকারের সমালোচকরা ৪ দিনের সপ্তাহে কতখানি ইতিবাচক পরিবর্তন আসতে পারে, সে বিষয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। তাদের যুক্তি, বেশিরভাগ সরকারি কর্মচারী রাজধানী কলম্বো থেকে দূরে থাকে এবং তাদের অনেকেই গণপরিবহনের মাধ্যমে কর্মক্ষেত্রে আসে।  এছাড়াও, তাদের বেশিরভাগই তুলনামুলকভাবে দরিদ্র, এবং শস্যের আবাদ করার জন্য তাদের কাছে কোনো জমি নেই।

নিউজ ট্যাগ: শ্রীলঙ্কা

আরও খবর

মুম্বাইয়ে ভবন ধসে নিহত ১৯

মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২

এত শস্য কোথায় রাখবে ইউক্রেন?

মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২