Logo
শিরোনাম

ঈদের আগে এসএসসি পরীক্ষা শুরুর সম্ভাবনা কতটুকু?

প্রকাশিত:সোমবার ২০ জুন ২০22 | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | ৮৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রবিবার (১৯ জুন) থেকে দেশব্যাপী এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা ছিল। তবে সিলেটসহ দেশের কয়েকটি এলাকায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় গত শুক্রবার (১৭ জুন) পরীক্ষা স্থগিতের ঘোষণা আসে। এতে অনিশ্চয়তায় পড়া ২০ লাখ শিক্ষার্থীর এখন একটাই প্রশ্ন, কবে শুরু হবে এসএসসি পরীক্ষা?

বিষয়টি নিয়ে বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক কায়সার আহমেদের সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, সিলেটে বন্যাদুর্গতদের জন্য স্কুলগুলোকে আশ্রয়কেন্দ্র করা হয়েছে। পরীক্ষার চেয়ে মানুষের জীবন বড়। যে কারণে ওখানে আপাতত পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। সিলেটে পরীক্ষার কাগজ নিয়ে আমরা শঙ্কায় আছি। ওগুলো পানিতে নষ্ট হয়ে গেছে কি না জানি না। তবে, আমাদের স্টকে আরও কাগজ আছে। আমরাও প্রস্তুত আছি। বন্যার পানি নেমে গেলে মন্ত্রী দ্রুত আমাদের সঙ্গে সভা করবেন। সেখানে পরীক্ষার নতুন সূচি ঘোষণা হবে। সে অনুযায়ী, ঈদের আগে পরীক্ষা আয়োজন করতে বললেও আমরা পারব। কারণ, আমাদের প্রশ্নপত্র তৈরি আছে। আমরাও পরীক্ষা আয়োজনে প্রস্তুত।

এর আগে একটি জাতীয় দৈনিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় কমিটির আহ্বায়ক এবং ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক তপন কুমার সরকার বলেছেন, এক সপ্তাহের মধ্যে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হলে ঈদের আগেও পরীক্ষা শুরু করতে পারব। বিষয়টি নির্ভর করছে পরিস্থিতির ওপর। বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হলে আমরা এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার নতুন সময়সূচি প্রকাশ করব। এসএসসি পরীক্ষা পেছানোর ফলে আগামী আগস্টে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষাও পেছাতে পারে কি না সেই প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, পেছাতেও পারে। কারণ, এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার মধ্যে মোটামুটি দুই মাসের একটা বিরতির প্রয়োজন হয়। না হলে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নেওয়া কঠিন হয়ে পড়ে। সে ক্ষেত্রে এইচএসসি পরীক্ষা কিছু সময় পিছিয়ে যেতে পারে।

এদিকে, বন্যা পরিস্থিতির অবনতির কারণে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার জন্য ট্রেজারি/থানা/পরীক্ষা কেন্দ্রে রক্ষিত সব মালামাল নিরাপদ ও সতর্কতার সঙ্গে সংরক্ষণ করার জন্য অনুরোধ করেছে আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাবকমিটি।

নিউজ ট্যাগ: এসএসসি পরীক্ষা

আরও খবর



পদ্মা সেতু থেকে বছরে টোল আসবে ১৬০৪ কোটি

প্রকাশিত:সোমবার ১৩ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ জুন ২০২২ | ৫৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পদ্মা সেতু থেকে মাসে টোল আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১৩৩ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। বছরের হিসেবে তা হবে ১ হাজার ৬০৩ কোটি ৯৭ লাখ টাকা। এ টাকা দিয়ে সেতুর রক্ষণাবেক্ষণ ছাড়াও নির্মাণ খরচের ঋণ পরিশোধ করবে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ। কোনো উন্নয়ন সহযোগী বা প্রতিষ্ঠানকে নয়, স্বয়ং বাংলাদেশ সরকারকে ৩৫ বছরে সুদসহ ৩৬ হাজার কোটি টাকা পরিশোধ করবে সেতু কর্তৃপক্ষ।

বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ জানায়, বাংলাদেশ সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি ৩৯ লাখ টাকা ব্যয়ে পদ্মা বহুমুখী সেতু নির্মিত। এর পুরোটাই সরকারের কাছ থেকে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ ঋণ হিসেবে গ্রহণ করেছে। চুক্তির অনুচ্ছেদ ২ মোতাবেক ঋণের অর্থ প্রকল্প সমাপ্তির পর বার্ষিক ১ শতাংশ হারে সুদসহ ৩৫ বছরে ১৪০ কিস্তিতে পরিশোধ করতে হবে। এছাড়া নকশা প্রণয়নের সময় নেওয়া ২১১ কোটি টাকার বিপরীতে ৩৪০ কোটি টাকা পরিশোধ করতে হবে ।

এ বিষয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, সেতু নির্মাণে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ সরকারের কাছ থেকে ঋণ নিয়েছে। আগামী ৩৫ বছরে সরকারকে সুদে আসলে ৩৬ হাজার কোটি টাকা পরিশোধ করতে হবে। ঋণ পরিশোধ, সেতুর পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণ ব্যয়, নদীশাসন এবং আদায়কৃত টোলের ট্যাক্স ও ভ্যাট বাবদ অর্থ পরিশোধ করার জন্য টাকা প্রয়োজন। এসব টাকা সেতুতে চলাচলকারী যানবাহনের উপর টোল আরোপ করে উঠানো হবে।

বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ জানায়, বর্তমানে ফেরি পারাপারের বিদ্যমান টোল হারকে ভিত্তি ধরে সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ বৃদ্ধি করে টোল নির্ধারণ করা হয়েছে। বিআইডব্লিউটিসির মাধ্যমে মাওয়া-জাজিরা রুটে ফেরিতে বর্তমানে চলাচলকারী যানবাহনের (নভেম্বর ২০২০ এর তথ্য অনুযায়ী) আদায়কৃত টোল হার অনুযায়ী মাসে ৫ কোটি ৬০ লাখ টাকা, বছরে ৬৭ কোটি ২০ লাখ টাকা আদায় হয়। এর দেড়গুণ হলে মাসে ৮ কোটি ৬৫ লাখ টাকা হিসেবে বছরে ১০৩ কোটি ৮৫ লাখ টাকা টোল আদায় হওয়ার কথা।

অন্যদিকে পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ২০১০ সালে দাখিলকৃত পদ্মা সেতুর ডিটেইলড ইকোনমিক অ্যান্ড ফিন্যান্সিয়াল অ্যানালাইসিস সম্বলিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০২২ সালের ট্রাফিক ফোরকাস্ট হিসেবে ফেরির টোল হারের দেড়গুণ হিসেবে মাসে টোল আদায় হবে ১৩৩ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। এ প্রতিবেদনের ভিত্তিতেই সরকার আশা করছে বছরে ১ হাজার ৬০৩ কোটি ৯৭ লাখ টাকা টোল আদায় হবে।

সূত্র জানায়, অর্থ বিভাগ এবং বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের মধ্যে সম্পাদিত ঋণ চুক্তিতে উল্লিখিত ৩৫ বছর মেয়াদি লোন রিপেমেন্ট সিডিউল অনুযায়ী, সেতুতে যানবাহন চলাচলের প্রথম বছরেই ৫৯৬ কোটি ৮৮ লাখ টাকা ঋণ পরিশোধ করতে হবে। এটা ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পেয়ে কোনো কোনো বছর ১ হাজার ৪৭৫ কোটি টাকা পর্যন্ত পরিশোধ করতে হবে। তাছাড়া সেতুর রক্ষণাবেক্ষণ ও পরিচালন ব্যয়, নদীশাসন, ভ্যাট ও ট্যাক্স পরিশোধ সবই করতে হবে টোলের টাকা থেকে। টোল আদায়ের ক্ষেত্রে এসব বিষয় বিবেচনা করা হয়েছে।

পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে চলাচলকারী যানবাহনের টোল নির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সরকার। প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী, মোটরসাইকেলের টোল ১০০ টাকা, বড় বাসের টোল ২ হাজার ৪০০ টাকা, মাঝারি ধরনের বাসের টোল ২ হাজার টাকা, কার ও জিপের ৭৫০ টাকা, চার এক্সেল টেইলারের ৬ হাজার টাকা, মাইক্রোবাস ১৩০০ টাকা এবং মিনিবাসের (৩১ সিট বা তার কম) টোল নির্ধারণ করা হয়েছে ১৪০০ টাকা।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের নির্বাহী পরিচালক (সচিব) মো. মনজুর হোসেন বলেন, আমরা সরকারের সঙ্গে ঋণচুক্তি করে পদ্মাসেতু বাস্তবায়ন করেছি। সুদসহ সরকারকে এই ঋণ পরিশোধ করতে হবে যা টোল আদায় থেকে আসবে। সরকারের কাছে আমাদের ঋণ, ফেরির ভাড়া ও বিশেষজ্ঞদের মতামতের ভিত্তিতেই টোল হার নির্ধারণ করা হয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: পদ্মা সেতু

আরও খবর



ব্যাটিং বিপর্যয়, হারের শঙ্কায় বাংলাদেশ

প্রকাশিত:সোমবার ২৭ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | ৫২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সেন্ট লুসিয়া টেস্টেও ব্যাটিং বিপর্যয়ে টাইগাররা। দ্বিতীয় ইনিংসে ফের ইনিংস হারের শঙ্কা হাজির। এবারও ক্রিজে আছেন নুরুল হাসান, তবে সঙ্গী হিসেবে আছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। চতুর্থ দিনের সকালে বাংলাদেশকে অন্তত ইনিংস হারের লজ্জা থেকে বাঁচাতে পারবে কি এই জুটি, উত্তরটা আপাতত সময়ের হাতে তোলা থাক।

সেন্ট লুসিয়া টেস্টে ইনিংস হার এড়াতে বাংলাদেশের প্রয়োজন ৪২ রান, হাতে রয়েছে চার উইকেট। উইন্ডিজকে ৪০৮ রানে অলআউট করার পর ব্যাটিংয়ে নেমে কূল-কিনারা করতে পারেনি বাংলাদেশ। দিনের দ্বিতীয় সেশনেই মাত্র ৩২ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে বসে টাইগাররা।

বৃষ্টিবিঘ্নিত শেষ সেশনে আরও তিন উইকেট খুইয়ে সাকুল্যে ১৩২ রান স্কোরবোর্ডে জমা করতে পেরেছে বাংলাদেশ।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের নেওয়া ১৮৪ রানের লিড টপকে ইনিংস হার এড়াতে তাই চতুর্থ দিনের সকালে অপরাজিত দুই ব্যাটসম্যানকে দায়িত্বশীল ব্যাটিং করতে হবে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের আত্মবিশ্বাসী বোলিং লাইনআপের বিপক্ষে তারা হালে পানি পান কিনা সেটাই এখন দেখার বিষয়।

তৃতীয় দিন দ্বিতীয় সেশনে উইন্ডিজের প্রথম ইনিংস গুঁটিয়ে যাওয়ার পর ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই বিপাকে পড়ে টাইগাররা। দলীয় এবং ব্যক্তিগত মাত্র ৪ রানেই কেমার রোচের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান তামিম ইকবাল। বেশিক্ষণ উইকেটে টিকতে পারেননি অপর ওপেনার মাহমুদুল হাসান জয় (১৩) এবং চারে নামা এনামুল হক বিজয়ও (৪)। এই দুজনকেও নিজের শিকার বানিয়েছেন এই ইনিংস দিয়ে টেস্টে ২৫০ উইকেটের মালিক বনে যাওয়া রোচ।

এক প্রান্ত আগলে প্রতিরোধ চালিয়ে যাচ্ছিলেন তিনে নামা নাজমুল হোসেন শান্ত। তবে সঙ্গীর অভাবে তিনিও শেষ পর্যন্ত ভেঙে পড়েন। ৯১ বল থেকে ৮ চারে ৪২ রান করে আলজারি জোসেফের বলে উইকেটের পেছনে তালুবন্দি হয়ে ফেরেন শান্ত। শান্ত ফেরার আগেই অবশ্য সাঙ্গ হয়েছিল এই টেস্টে লিটন দাসের যাত্রাও। ৩২ বলে ১৯ রান করে তিনি আউট হয়েছেন জেডেন সিলসের বলে এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়ে।

অ্যান্টিগা টেস্টের দুই ইনিংসে অর্ধশত রানের দেখা পেলেও এই টেস্টে ব্যাট হাতে পুরোপুরি ব্যর্থ অধিনায়ক সাকিব। প্রথম ইনিংসে মাত্র ৮ রানে ফিরেছিলেন, দ্বিতীয় ইনিংসে সেই রানসংখ্যা দ্বিগুণ করতে পারলেও তা দলের জন্য যথেষ্ট ছিল না মোটেও।

১৪ বলে ১৬ রান নিয়ে সোহান এবং ১৩ বল খেলে এখনো রানের খাতা খোলার অপেক্ষায় থাকা মিরাজ শুরু করবেন চতুর্থ দিনের খেলা।‘


আরও খবর



জাতিসংঘে স্থায়ী প্রতিনিধি নিয়োগ পেলেন আবদুল মুহিত

প্রকাশিত:সোমবার ২০ জুন ২০22 | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ জুন ২০২২ | ৫২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

জাতিসংঘে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ও স্থায়ী প্রতিনিধি হিসেবে পেশাদার কূটনীতিক মুহাম্মদ আবদুল মুহিতকে নিয়োগ দিয়েছে সরকার। তিনি রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমার স্থলাভিষিক্ত হচ্ছেন।

সোমবার (২০ জুন) এক বার্তায় আবদুল মুহিতকে এ পদে নিয়োগের কথা জানায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

১১তম বিসিএসের পররাষ্ট্র ক্যাডারের কর্মকর্তা আবদুল মুহিত বর্তমানে অস্ট্রিয়ায় বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এবং সেখানে জাতিসংঘ কার্যালয়ে স্থায়ী প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। পাশাপাশি ভিয়েনায় অন্য আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোতেও দেশের প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব সামলাচ্ছেন। ভিয়েনা থেকে হাঙ্গেরি, স্লোভেনিয়া ও স্লোভাকিয়ার দায়িত্বও পালন করছেন আবদুল মুহিত।

এর আগে তিনি ডেনমার্কে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত পদে দায়িত্ব পালন করেন। সেখানে তিনি এস্তোনিয়া ও আইসল্যান্ডের দায়িত্বও সামলাচ্ছিলেন।

দীর্ঘ কূটনৈতিক ক্যারিয়ারে আবদুল মুহিত কুয়েত, রোম, দোহা, ওয়াশিংটন ডিসি ও নিউইয়র্কে জাতিসংঘ কার্যালয়ে বাংলাদেশের হয়ে বিভিন্ন পদেও দায়িত্ব পালন করেছেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজবিজ্ঞানে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর আবদুল মুহিত কুয়েত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আরবি ভাষায় ডিপ্লোমা সম্পন্ন করেন।


আরও খবর



টাঙ্গাইলে যমুনাসহ তিন নদীর পানি বিপৎসীমার ওপরে

প্রকাশিত:শনিবার ২৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | ৪৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

টাঙ্গাইলে যমুনাসহ তিন নদ-নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে এখনও প্রবাহিত হচ্ছে। শনিবার (২৫ জুন) টাঙ্গাইল পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সিরাজুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছন। এর আগে বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) ভোর ৬টা থেকে শুক্রবার ভোর ৬টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় যমুনার পানি পোড়াবাড়ী পয়েন্টে ১৫ সেন্টিমিটার কমে বিপৎসীমার ৩৭ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার (২৪ জুন) ভোর ৬টা থেকে শনিবার ভোর ৬টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় যমুনার পানি পোড়াবাড়ী পয়েন্টে ৩০ সেন্টিমিটার কমে বিপৎসীমার সাত সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। অন্যদিকে ঝিনাই নদীর পানি জোকারচর পয়েন্টে ২৯ সেন্টিমিটার কমে বিপৎসীমার ১৮ সেন্টিমিটার ও ধলেশ্বরী নদীর পানি এলাসিন পয়েন্টে ১৭ সেন্টিমিটার কমে বিপৎসীমার ১৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সিরাজুল ইসলাম জানান, ধলেশ্বরী নদীর পানি এলাসিন পয়েন্টে দুই সেন্টিমিটার কমে বিপৎসীমার ৩১ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। এ ছাড়া ঝিনাই নদীর পানি জোকারচর পয়েন্টে ১২ সেন্টিমিটার কমে বিপৎসীমার ৪৭ ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। 


আরও খবর



কোরবানিকে পুঁজি করে বাড়ছে পেঁয়াজের দাম

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | ৬১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পর্যাপ্ত উৎপাদন ও নিয়মিত সরবরাহের পরও বাড়তে শুরু করেছে পেঁয়াজের দাম। আসন্ন ঈদুল আযহাকে কেন্দ্র করে পেঁয়াজের চাহিদা বাড়বে। এই সুযোগে দাম আরও কিছুটা বাড়তে পারে। বাজার ঘুরে এমন তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানিয়েছে, অতিবৃষ্টি, বন্যা এবং ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির অনুমতি বা ইমপোর্ট পারমিট (আইপি) মেয়াদ শেষ হওয়ায় এবার বেড়েছে পেঁয়াজের দাম। আমদানিকারকদের কাছে আইপি না থাকায় তারা পেঁয়াজ আমদানি করতে পারছে না বিধায় ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি আপাতত বন্ধ রয়েছে। ব্যবসায়ীদের দাবি ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি না হওয়ায় বাজারে সরবরাহ কমে গেছে। এই সুযোগটি নিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ঈদুল ফিতরের পর থেকে ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ হয়ে গেছে। এখন দেশি পেঁয়াজ বাজারে সরবরাহ কমে যাওয়ায় দাম বাড়তে শুরু করছে। ঈদুল আযহার আগে দাম আরও বাড়তে পারে বলে ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন।

বাজার ঘুরে দেখা গেছে, মাত্র কয়েকদিনের ব্যবধানে পেঁয়াজের দাম কেজিতে বেড়েছে ২০ টাকা। ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ থাকায় দিনাজপুরের হিলি বন্দরের খুচরা বাজারে দেশীয় পেঁয়াজের দাম প্রতি কেজিতে বেড়েছে ২০ টাকা। গত দুদিন আগে খুচরা বাজারে পেঁয়াজ বিক্রয় হয়েছে ৩০ টাকা কেজি দরে। এখন সেই পেঁয়াজ বিক্রয় হচ্ছে ৫০ টাকা কেজি দরে।

জানতে চাইলে পেঁয়াজ আমদানিকারক ও শ্যামবাজার পেঁয়াজ ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক হাজী মাজেদ জানিয়েছেন, পাইকারি বাজারেও পেঁয়াজের দাম বেড়েছে। গত দুদিনের ব্যবধানে পাইকারিতে কেজি প্রতি ১০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। দুইদিন আগে মানভেদে পেঁয়াজ বিক্রি করেছিলাম ৩০-৩৫ টাকা, সেটি এখন ৪০-৪৫ টাকা কেজি বিক্রি করতে হচ্ছে।

 কাওরানবাজারের ব্যবসায়ী এখলাস উদ্দিন জানিয়েছেন, পাইকারি বাজারে পেঁয়াজের দাম বাড়লে খুচরা বাজারে দাম বাড়বে এটি খুবই স্বাভাবিক। তবে এই সময়ে পেঁয়াজের দাম অস্বাভাবিকভাবে বাড়ার সুযোগ নাই। কারণ দেশে এবার পর্যাপ্ত পেঁয়াজ উৎপাদন হয়েছে। দেশে পেঁয়াজের বাজারে প্রভাব বিস্তার করে ভারতীয় পেঁয়াজ। কোনওভাবে ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি এক ঘণ্টা বন্ধ থাকলেই স্থলবন্দরে এর প্রভাব পড়ে। আর সেটি এসে পড়ে দেশের প্রতিটি বাজারে। চাহিদা ব্যাপক কিন্তু সরবরাহ নাইএমন অজুহাত দিয়ে সুযোগটি নেয় পাইকারি ব্যবসায়ীরা। দাম বাড়িয়ে দেয়। ফলে তার প্রভাব এসে পড়ে খুচরা বাজারে। এবারও তেমন হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি। 

হিলি স্থলবন্দরের আমদানি-রফতানিকারক গ্রুপের সভাপতি হারুন-উর রশিদ জানিয়েছেন, ইমপোর্ট পারমিট (আইপি) মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে অনেক আগেই। নতুন করে আইপি ইস্যু করছে না কর্তৃপক্ষ। তাই এই বন্দর দিয়ে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ রয়েছে। হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ঈদুল ফিতরের পর পরই ভারত থেকে পেঁয়াজের আমদানি বন্ধ হয়ে গেছে। এখন দেশি পেঁয়াজ বাজারে সরবরাহ কিছুটা কমেছে। ফলে দাম বাড়তে শুরু করছে। ঈদুল আযহার আগে দাম আরও বাড়তে পারে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি শুরু হলে দাম কমে আসবে। হিলি স্থলবন্দরের আমদানিকারকরা ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি করার জন্য সব সময় প্রস্তুত রয়েছে বলেও জানান তারা। তবে বাজার সংশ্লিষ্টরা জানান, সরকার কৃষকের স্বার্থেই এই মুহূর্তে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ রাখার পক্ষে। কৃষকের লাভের কথা চিন্তা করে ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে কৃষকের পরিবর্তে এই সুযোগটি কাজে লাগিয়ে লাভবান হচ্ছেন পেঁয়াজ ব্যবসায়ীরা। ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ রাখার সুফল পাচ্ছেন না কৃষকরা। দেশে পর্যাপ্ত পেঁয়াজের সরবরাহ থাকার পরও কোনও কারণ ছাড়াই পাইকারি ব্যবসায়ীরা কেজিতে ১০ টাকা বাড়ি দিয়েছে। এতে কৃষকরা কোনও ভাবেই লাভবান হচ্ছেন না। বিষয়টি সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নজর দেওয়া উচিৎ। সরকারকে এখনই  বাজার নিয়ন্ত্রণে জোর দিতে হবে। তা না হলে সামনে ব্যবসায়ীরা আরও সুযোগ নিতে পারে। রাজধানীর যাত্রাবাড়ী বাজারের খুচরা ব্যবসায়ী হেমায়েত আলী বলেন, বাজারে পেঁয়াজের দাম অনেক বেড়েছে। বর্তমানে খুচরা বিক্রি করছি ৫০ টাকা কেজি দরে। দুদিন আগেও যা বিক্রি হয়েছে ৩৫ থেকে ৪০ টাকা দরে।

উল্লেখ্য, দেশে বছরে পেয়াজের চাহিদা ২৫ লাখ মেট্রিক টন। প্রতিবছর শুধু রমজান মাসেই চাহিদা থাকে ৪ থকে ৫ লাখ মেট্রিক টন। স্থানীয়ভাবে দেশে পেঁয়াজ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ৩৫ লাখ মেট্রিক টন। উৎপাদিত পেঁয়াজের ১৭ থেকে ২৫ শতাংশ পচে যায়। যা স্বাভাবিক। ভারত থেকে প্রতিবছর ৬ থেকে ৭ লাখ মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানি করা হয়।


আরও খবর