Logo
শিরোনাম

এতদিন কোথায় ছিলেন চুমকি কারণ?

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | ৮৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি টেকনাফ থানার বরখাস্ত হওয়া ওসি প্রদীপ কুমার দাস। শুধু হত্যা নয়, তার বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদের পাহাড় গড়ারও অভিযোগ রয়েছে। সে সম্পদের একটি বড় অংশ রয়েছে তার স্ত্রী চুমকি কারণের নামে। প্রদীপ গ্রেফতার হয়ে কারাবন্দি হলেও তার স্ত্রী চুমকির খোঁজ মিলছিল না। প্রদীপপত্নী দেশে আছেন না বিদেশে পাড়ি জমিয়েছেন এ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই চলছিল আলোচনা সমালোচনা। এর মধ্যে সোমবার (২৩ মে) দুপুর ১২টায় চট্টগ্রাম বিভাগীয় বিশেষ জজ মুন্সী আবদুল মজিদের আদালতে আত্মসমর্পণ করেন চুমকি কারণ। প্রশ্ন উঠেছে, এতদিন কোথায় ছিলেন তিনি?

সকালে চট্টগ্রামের বিভাগীয় বিশেষ জজ আদালতে আত্মসমর্পণ করে চুমকি জামিন আবেদন করলে সেই আবেদন নাকচ করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন বিচারক মুন্সী আব্দুল মজিদ। মেজর সিনহা হত্যা মামলায় ২০২০ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর গ্রেপ্তার হন প্রদীপ কুমার দাস। তখন থেকেই পলাতক তার স্ত্রী চুমকী। প্রদীপ গ্রেফতারের পর একবারের জন্যও আদালত প্রাঙ্গণে বা কারাগারে তাকে স্বামীকে দেখতে যাননি চুমকি। আবার প্রদীপের চট্টগ্রামের বাড়িতেও দেখা মেলেনি তার।

এমনকি চুমকির বাবা এতদিন দাবি করে এসেছেন, তার মেয়ের সঙ্গে তার কোনো যোগাযোগ নেই। চুমকি কোথায় আছেন, সে বিষয়ে তিনি কিছুই জানেন না। তখন অনেকে ধারণা করেছিলেন চুমকি দেশত্যাগ করে অন্য দেশে চলে গেছেন। কিন্তু সোমবার আদালতে আত্মসমর্পণ করলে অনেকে ধারণা করছেন বিদেশে নয়, পরিবারের কারও সহযোগিতায় এতদিন দেশেই আত্মগোপনে ছিলেন চুমকি।

দুদকের করা এ মামলায় অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে ২০২১ সালের ১৫ ডিসেম্বর প্রদীপ ও চুমকি কারণের বিচার শুরুর আদেশ দেয় আদালত। মামলাটি বর্তমানে সাক্ষ্যগ্রহণ পর্যায়ে রয়েছে।  বরখাস্ত হওয়া ওসি প্রদীপ কুমার দাসের স্ত্রী চুমকি কারণের নামে মৎস্য খামার, বিলাসবহুল বাড়ি, গাড়ি, বিপুল পরিমাণ কৃষি-অকৃষি জমি রয়েছে। প্রদীপ তার স্ত্রীর নামে ব্যাংকে বিপুল টাকাও রেখেছেন। আবার বিদেশে টাকা পাচারের অভিযোগও রয়েছে এই দম্পতির বিরুদ্ধে।

জানা গেছে, প্রদীপের স্ত্রী চুমকি গৃহিণী। ফলে তার কোনো আয়ের উৎস নেই। কিন্তু তার নামে রয়েছে মাছের খামার। দুদকে জমা দেয়া হিসাব বিবরণীতে প্রদীপ দম্পতি দেখিয়েছেন, খামারে ১৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা বিনিয়োগ করেছেন তারা। সেখান থেকে চুমকি প্রতি বছর কোটি কোটি টাকা আয় করেছেন। সেই খামার থেকে আয়ের টাকায় কিনেছেন চট্টগ্রামে জমি, গাড়ি ও বাড়ি।

হিসাব বিবরণীতে চুমকির স্থাবর সম্পত্তির মধ্যে রয়েছে- বন্দর নগরির পাথরঘাটা এলাকায় চার শতক জমি। যার মূল্য ৮৬ লাখ ৭৬ হাজার টাকা। ওই জমিতে গড়ে তোলা ছয়তলা ভবনের মূল্য এক কোটি ৩০ লাখ ৫০ হাজার। পাঁচলাইশে ২০১৫-১৬ অর্থবছরে কেনা হয় ৬ গণ্ডা এক কড়া এক দন্ত জমি। যার দাম এক কোটি ২৯ লাখ ৯২ হাজার ৬০০ টাকা। ২০১৭-১৮ সালে কেনা হয় কক্সবাজারে ঝিলংজা মৌজায় ৭৪০ বর্গফুটের ফ্ল্যাট। যার দাম ১২ লাখ ৩২ হাজার টাকা।

সব স্থাবর সম্পদের মূল্য দেখানো হয়েছে তিন কোটি ৫৯ লাখ ৫১ হাজার ৩০০ টাকা। এছাড়া অস্থাবর সম্পদের মধ্যে দেখানো হয়েছে পাঁচ লাখ টাকা দামের প্রাইভেটকার, সাড়ে ১৭ লাখ টাকা দামের মাইক্রোবাস, ৪৫ ভরি স্বর্ণ। ব্যাংকে গচ্ছিত আছে ৪৫ হাজার ২০০ টাকা।


আরও খবর



বেনাপোলে গলা কেটে ইউপি সদস্যকে হত্যা

প্রকাশিত:বুধবার ২২ জুন 20২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ | ৪৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

যশোরের শার্শা উপজেলার বাগআঁচড়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) এক সদস্যকে গলা বোমা মেরে ও গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তেরা। আশানুজ্জামান বাবলু (৪৩) নামের ওই ইউপি সদস্যকে হত্যার ঘটনায় আহত হয়েছেন তিন জন। গতকাল মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টায় বেনাপোল পোর্ট থানার অধীন বালুন্ডা বাজারে এ হত্যাকাণ্ড ঘটে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

নিহত আশানুজ্জামান বাবলু শার্শা উপজেলার ৭ নম্বর বাগআঁচড়া ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য। খবর পেয়ে বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশ ঘটনাস্থল গিয়ে মঙ্গলবার দিবাগত রাতে ১টার দিকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে থনায় নিয়ে আসে।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাতে পুলিশ জানায়, নিহত বাবলুর বালুন্ডা বাজারে একটি বাড়ি আছে। বাড়ির সামনে একটি চায়ের দোকানে বসে গল্প করছিলেন তিনি। কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই একদল সন্ত্রাসী মোটরসাইকেলে এসে প্রথমে চার/পাঁচটি বোমা নিক্ষেপ করে। বোমার শব্দে আশপাশের লোকজন পালিয়ে গেলে বাবলুকে ধরে গলা কেটে হত্যা করে চলে যায় দুর্বৃত্তেরা। এ ঘটনা পর থেকে এলাকায় চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে।

বেনাপোল পোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামাল হোসেন ভূইয়া বলেন, কে বা কারা তাঁকে (আশানুজ্জামান বাবলু) হত্যা করেছে, তা এখনই বলা যাচ্ছে না। তবে বিষয়টির তদন্ত শুরু হচ্ছে।

ময়নাতদন্তের জন্য নিহতের লাশ আজ বুধবার সকালে যশোর জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে বলে জানান ওসি কামাল হোসেন ভূইয়া। হত্যাকাণ্ডের পরিপ্রেক্ষিতে সংশ্লিষ্ট এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।


আরও খবর



নেইমারের গোলে ব্রাজিলের কষ্টার্জিত জয়

প্রকাশিত:সোমবার ০৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ | ৫৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ফিফা প্রীতি ম্যাচে গত বৃহস্পতিবার দক্ষিণ কোরিয়াকে ৫-১ গোলে উড়িয়ে দেয় ব্রাজিল। সোমবার এশিয়ার আরেক ফুটবল পরাশক্তি দল জাপানকে তাদের ঘরের মাঠেই ১-০ গোলের ব্যবধানে হারায় নেইমাররা।

এদিন টোকিওর নিউ জাপান ন্যাশনাল স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় বিকাল  ৪টা ২০ মিনিটে ম্যাচটি শুরু হয়।

ম্যাচের শুরু থেকেই স্বাগতিকদের চাপে রাখে ব্রাজিল। দ্বিতীয় মিনিটেই পোস্টে লেগে ফেরে রাফিনহার শট, ১৮ মিনিটে আরেকটি দারুণ সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেননি তিনি। জাপানিজ গোলরক্ষককে প্রায় ফাঁকায় পেয়েও লক্ষ্যভেদ করতে ব্যর্থ হন।

খেলার ৪০ মিনিটে আরও একবার গোলের খুব কাছাকাছি চলে এসেছিলেন রাফিনহা। ফ্রি-কিক থেকে তার বাঁ পায়ের বাঁকানো শট ডান দিকের পোস্টের কান ঘেঁষে চলে বাইরে যায়। প্রথমার্ধের মাঝপথে মেজাজ হারিয়ে হলুদ কার্ডও দেখেছেন লিডস ইউনাইটেড মিডফিল্ডার।

ম্যাচের ২৬ মিনিটে আক্রমণের ধার বাড়ায় ব্রাজিল। বক্সের বাইরে থেকে নেইমারের ডান পায়ের অসাধারণ বাঁকানো শট দারুণ দৃঢ়তায় বাঁ দিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে ঠেকিয়ে দেন স্বাগতিক গোলরক্ষক সুইশি গোনদা।

জাপান রক্ষণের পাশাপাশি সুযোগ বুঝে বেশ কয়েকটি শটও নিয়েছে গোলের উদ্দেশ্যে, তবে এর কোনটিই লক্ষ্যে রাখতে পারেননি।

খেলার প্রথমার্ধে বহু চেষ্টা করেও গোলের দেখা পায়নি কোনো দল। দ্বিতীয়ার্ধের ৭৭ মিনিটে প্রতিপক্ষের ফুটবলারের ফাউলের কারণে পেনাল্টি পায় ব্রাজিল। পেনাল্টি শটে গোল করে ব্রাজিলের জয় নিশ্চিত করেন নেইমার।

নিউজ ট্যাগ: ব্রাজিলের জয়

আরও খবর



দেশে করোনায় মৃত্যু নেই, শনাক্ত ৩১

প্রকাশিত:শনিবার ০৪ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ | ৬০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

মহামারী করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে আরও ৩১ জন শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ১৯ লাখ ৫৩ হাজার ৬২৩  জনে। তবে এ সময়ে কারও মৃত্যু হয়নি করোনায়। ফলে মৃত্যুর সংখ্যা ২৯ হাজার ১৩১ জনই অপরিবর্তিত রয়েছে। শনিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় ৪ হাজার ৮৩টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ৪ হাজার ১২৪টি নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৭৫ শতাংশ। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৮১ শতাংশ।

এছাড়া এ সময়ে নতুন করে আরও ১৭১ জন সুস্থ হয়েছেন। এ পর্যন্ত ভাইরাসটি থেকে সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৩ হাজার ৭৫১ জন।

দেশে করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ ধরা পড়েছিল ২০২০ সালের ৮ মার্চ। প্রথম রোগী শনাক্তের ১০ দিন পর ওই বছরের ১৮ মার্চ দেশে প্রথম মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। সেই বছর সর্বোচ্চ মৃত্যু হয়েছিল ৬৪ জনের।

ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়ায় গত বছর জুন থেকে রোগীর সংখ্যা হু-হু করে বাড়তে থাকে। ২৮ জুলাই একদিনে সর্বোচ্চ ১৬ হাজার ২৩০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল।

২০২১ সালের ৭ জুলাই প্রথমবারের মতো দেশে করোনায় মৃতের সংখ্যা ২০০ ছাড়িয়ে যায়। এর মধ্যে ৫ ও ১০ আগস্ট ২৬৪ জন করে মৃত্যু হয়, যা মহামারির মধ্যে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু। এরপর বেশকিছু দিন ২ শতাধিক মৃত্যু হয়।

এরপর গত ১৩ আগস্ট মৃত্যুর সংখ্যা ২০০ এর নিচে নামা শুরু করে। দীর্ঘদিন শতাধিক থাকার পর গত ২৮ আগস্ট মৃত্যু ১০০ এর নিচে নেমে আসে। গত ২০ এপ্রিল করোনায় মৃত্যুর খবর দিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।  এর পর টানা ৩০ দিন করোনায় মৃত্যুশূণ্য দিন পার করে বাংলাদেশ।


আরও খবর

করোনায় ৪ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২১৮৩

বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২




বজ্রপাতে বিহারে ১৭ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:সোমবার ২০ জুন ২০22 | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ | ৫১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় বিহার রাজ্যে বজ্রপাত ও ঝড়-বৃষ্টিতে ১৭ জনের প্রাণহানি হয়েছে। এ ঘটনায় শোক প্রকাশ করেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার। বজ্রপাতে মৃতদের পরিবারকে চার লাখ টাকা করে আর্থিক সহায়তা দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী।

টুইটা বার্তায় নীতীশ কুমার জানান, বজ্রপাতে ভাগলপুরে ছয় জনের মৃত্যু হয়েছে। বৈশালীতে তিন জনের, খাগাড়িয়ায় দুই জনের, কাটিহার, সহরসা, মাধেপুরা, মুঙ্গেরে এক জনের করে মৃত্যু হয়েছে। দুজনের মৃত্যু হয়েছে বাঙ্কায়। মৃতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাই। চার লাখ টাকা করে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হবে মৃতদের পরিবারকে।

আবহাওয়া পরিস্থিতির ওপর নজর রাখার পরামর্শ দিয়েছেন নীতীশ। এ জন্য আবহাওয়া অফিসের পূর্বাভাস মেনে চলার আহ্বান করেন তিনি। তবে আবহাওয়া অফিস বলছে, আগামী কয়েক দিন বিহারে বজ্রপাতসহ বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: বজ্রপাতে মৃত্যু

আরও খবর



পদ্মা সেতুসহ বিভিন্ন অভিযোগের জবাবে যা বলল ইউনূস সেন্টার

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | ২২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

গ্রামীণ ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. মুহাম্মদ ইউনূস বিশ্বব্যাংককে প্রভাবিত করে পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন বন্ধে করেছেন- এই অভিযোগ ছিল অনেক আগেই। গত ২৫ জুন স্বপ্নের এই সেতু উদ্বোধনের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিষয়টি আবারও উল্লেখ করেন। এর কয়েকদিন পর এসে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের জবাব দিল ইউনূস সেন্টার। একই সঙ্গে আরও নানা বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী ও বিভিন্ন মন্ত্রীর নানা সময়ে দেওয়া বক্তব্যের জবাব দেওয়া হয়।

বুধবার রাতে ইউনূস সেন্টারের ওয়েবসাইটে প্রতিবাদটি প্রকাশ করা হয়।

পদ্মা সেতুতে বিশ্ব বাংকের অর্থায়ন বন্ধে প্রফেসর ইউনূস ‘চাপ প্রয়োগ করেছেন’ বলে অভিযোগ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার এই বক্তব্যের জবাবে ইউনসূ সেন্টার বলছে, ‘প্রফেসর ইউনূস পদ্মা সেতু বিষয়ে বিশ্বব্যাংক বা অন্য কোনো সংস্থা বা ব্যক্তির কাছে কখনও কোনো অভিযোগ বা অনুযোগ জানাননি। সুতরাং বিষয়টি নিতান্তই কল্পনাপ্রসূত।’ প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন বন্ধে যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটনের সঙ্গে ড. ইউনূস যোগাযোগ করেছেন বলে অভিযোগ করেন।

এ বিষয়ে ইউনূস সেন্টার বলছে, প্রফেসর ইউনূস যত গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিই হোন না কেন, তার যত প্রভাবশালী বন্ধুই থাকুক না কেন, একটি ৩০০ কোটি ডলারের প্রকল্প শুধু এ-কারণে বন্ধ হয়ে যেতে পারে না যে, তিনি চাইছিলেন এটা বাতিল হয়ে যাক।

গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা বিতর্কের ব্যাখ্যয় বলা হয়েছে, অধ্যাপক ইউনূস ৬০ বছর বয়সে পদার্পণ করলে তিনি স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে পরিচালনা পরিষদকে জানান, যেহেতু তার বয়স ৬০ বছর হয়েছে; তারা একজন নতুন ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগের বিষয়টি বিবেচনা করতে পারেন। পরিচালনা পরিষদ অন্য কোনোরূপ সিদ্ধান্ত না হওয়া পর্যন্ত তাকেই দায়িত্ব পালন করে যেতে বলেন। পরিচালনা পরিষদ তার বর্তমান নিয়োগের মেয়াদ শেষ হবার পর তাকেই ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে পুনর্নিয়োগ দেয়। সে সময় তার বয়স ছিল ৬১ বছর ৬ মাস।

ইউনূস সেন্টার বলছে, ড. ইউনূস নিজেই একজন যোগ্য উত্তরসূরির কাছে দায়িত্ব হস্তান্তর করে ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ ছেড়ে দিতে চাইছিলেন। যখন ২০১১ সালে ড. ইউনূসকে ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে পদত্যাগ করতে বলা হলো তখন ব্যাংকটির মৌলিক আইনি মর্যাদা হুমকির মুখে পড়ে গেলে ড. ইউনূস আদালতের দ্বারস্থ হন। অধ্যাপক ইউনূসের রিট পিটিশনের সঙ্গে ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে চাকরি ধরে রাখার কোনো সম্পর্ক নেই।

গ্রামীণ ব্যাংকের ৪৭ শতাংশ সুদ নিয়ে অভিযোগের বিষয়ে ইউনূস সেন্টারে ব্যাখ্যা হচ্ছে, গ্রামীণ ব্যাংকে ৪৭ শতাংশ সুদ কখনো ছিল না এখনো নেই। ব্যবসা ঋণের ওপর গ্রামীণ ব্যাংকের সুদ বরাবরই ২০ শতাংশ।

গ্রামীণ ব্যাংকের সুদ আয়ের ওপর যে লাভ হয়, তাতে অধ্যাপক ইউনূসের শেয়ার নেই বলে উল্লেখ করেছে ইউনূস সেন্টার। বলছে, ৪৭ শতাংশ সুদ নিয়ে কাউকে ঠকানোর কোনো সুযোগই তার নেই। গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে কর্মরত থাকা অবস্থায় তিনি বেতনের বাইরে আর কোনো অর্থ ব্যাংক থেকে গ্রহণ করেননি।

অধ্যাপক ইউনূস ক্লিনটন ফাউন্ডেশনে অনুদান দিয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এই অভিযোগকে ‘সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন’ বলে উল্লেখ করেছে ইউনূস সেন্টার। প্রতিষ্ঠানটি বলছে, প্রধানমন্ত্রীকে এ বিষয়ে ভুল তথ্য দেওয়া হয়েছে।

গ্রামীণফোন থেকে লভ্যাংশ নিয়ে অধ্যাপক ইউনূস গ্রামীণ ব্যাংক পরিচালনা করতে চেয়েছেন বলে যে অভিযোগ রয়েছে এর জবাবে ইউনূস সেন্টার বলেছে, অধ্যাপক ইউনূস কোনোকালেই গ্রামীণফোনের কোনো শেয়ারের মালিক ছিলেন না, এখনও তার কোনো শেয়ার নেই।


আরও খবর