Logo
শিরোনাম

গণতন্ত্রে বিশ্বাসী হলে বিএনপি অবশ্যই নির্বাচনে অংশ নেবে: স্থানীয় সরকার মন্ত্রী

প্রকাশিত:শনিবার ০৯ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১ | ৯৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

গণতন্ত্রে বিশ্বাস থাকলে বিএনপি স্থানীয় সরকারসহ সকল নির্বাচনে অবশ্যই অংশগ্রহণ করবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম বলেছেন

তিনি আজ কুমিল্লায় বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমির (বার্ড) ৫৪তম বার্ষিক পরিকল্পনা সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা জানান।

মন্ত্রী বলেন, গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাপনার প্রতি যে রাজনৈতিক দলের বিশ্বাস ও অঙ্গীকার রয়েছে। সেই দলের নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করার কোনো সুযোগ নেই। আর যারা গণতন্ত্রে বিশ্বাসী নয়, স্বৈরতন্ত্রের জন্য অপেক্ষা করে তারা নির্বাচনে অংশ না নিয়ে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির ষড়যন্ত্র করবে‌ এটায় স্বাভাবিক।

স্থানীয় সরকার নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেবে কি-না এমন প্রশ্নের উত্তরে মোঃ তাজুল ইসলাম বলেন, প্রত্যেকটি রাজনৈতিক দলের উচিত জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষা প্রতিফলন ঘটানো। বিএনপি তাদের দলের ভালোমন্দ বোঝে। আমি মনে করি, দেশ ও মানুষের স্বার্থে দলটির নির্বাচনে অংশগ্রহণ উচিত।

এর আগে সম্মেলনে দেওয়া প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী বলেন, স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান সমুহকে শক্তিশালী এবং জনপ্রতিনিধিদের মর্যাদা বৃদ্ধি করে জবাবদিহিতার আওতায় আনার লক্ষ্যে কাজ চলছে। জনপ্রতিনিধিদের অবজ্ঞা করার কোন সুযোগ নেই। কারণ বিপদে-আপদে সবার আগে মানুষের পাশে দাঁড়ায় এই জনপ্রতিনিধিরাই।

শেখ হাসিনা সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড তুলে ধরে তিনি জানান, পদ্মা সেতুসহ সকল মেগা প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে দেশে অর্থনীতির নতুন সম্ভাবনা তৈরি হবে। শেখ হাসিনা ২০৪১ সালের যে লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করেছেন তা অর্জন করা সম্ভব হবে। এজন্য

সব শ্রেণি পেশার মানুষকে ঐক্যবদ্ধ হয় একত্রে কাজ করতে হবে।

মোঃ তাজুল ইসলাম বলেন, আমাদের কর্মকান্ড শুধু মিটিং আর কাগজে-কলমেই সীমাবদ্ধ রাখা যাবে না। নাগরিক সেবা দ্রুত সময় পৌঁছে দিতে হবে। মানুষ আমাদের মিটিং আর ফাইল ওয়ার্কের দিকে তাকিয়ে থাকে না। তারা চায় সেবা। আর এটি আমাদের নিশ্চিত করতে হবে।

বার্ডকে একটি সক্ষম প্রতিষ্ঠান উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, যুগের সাথে তাল মিলিয়ে এই প্রতিষ্ঠানকে তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার ও প্রসারে ভূমিকা রাখতে হবে। যে প্রকল্পটি গ্রহণ করা হোক না কেন সেটি অবশ্যই প্রডাক্টিভ হতে হবে এবং কোয়ালিটি বজায় রেখে সময়ের মধ্যে শেষ করতে হবে।

অপরিকল্পিতভাবে আর যেখানে সেখানে কোনো অবকাঠামো নির্মাণ করা যাবে না উল্লেখ করে তিনি জানান নগরের ন্যায় পরিকল্পিতভাবে গ্রামগুলোও গড়ে তুলতে হবে। এলক্ষ্যে বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমিকে কাজ করার আহ্বান জানান মন্ত্রী।

পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের সচিব মোঃ মশিউর রহমান এনডিসি'র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে গেস্ট অব অনার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা জেলার জেলা প্রশাসক মোঃ কামরুল ইসলাম এবং পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ পিপিএম (বার)।



আরও খবর



শীর্ষ ঋণখেলাপির কাছে জিম্মি সোনালী ব্যাংক

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১২ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১ | ৮৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

খেলাপি ঋণ আদায় হচ্ছে না। পাওনা আদায়ে শক্ত কোনো ব্যবস্থা নেওয়ার উদ্যোগও নেই। অবস্থা এমন যে, সরকারি অর্থ আদায় নিয়ে কারও যেন মাথাব্যথা নেই। নেই জবাবদিহিতা। ফলে দীর্ঘদিন ধরে বিপুল অঙ্কের খেলাপির বোঝা বয়ে বেড়াচ্ছে রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী ব্যাংক। বিশেষ করে শীর্ষ ২০ খেলাপির কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে রাষ্ট্রের সবচেয়ে বড় এই ব্যাংকটি।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নানা অব্যবস্থাপনা ও অনিয়ম-দুর্নীতির মাধ্যমে দেওয়া এসব ঋণ ফেরত পাওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম। তবে বিদ্যমান আইনের যথাযথ প্রয়োগ নিশ্চিত করতে পারলে অনিয়ম কিছুটা কমে আসবে। কিন্তু বাস্তবতা হলো, বিড়ালের গলায় ঘণ্টা বাঁধার লোক খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্টের (বিআইবিএম) সাবেক মহাপরিচালক ড. মইনুল ইসলাম রোববার বলেন, এটা অনেক পুরোনো এবং পাতানো খেলা। এর সঙ্গে ব্যাংকের পর্ষদ, ব্যাংকার ও সরকার জড়িত। সব জায়গায় একটা অসাধু চক্র থাকে। তারাই এই অপকর্ম করে। শুধু সোনালী ব্যাংক নয়, পুরো ব্যাংকিং খাতে এ চিত্র। ঋণ পুনঃতপশিলের পাশাপাশি অর্থঋণ আদালতেও আটকে আছে প্রায় ২ লাখ কোটি টাকার খেলাপি ঋণ। যদিও সব সময় বলে থাকি প্রকৃত খেলাপি ঋণ ৪ লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। কিন্তু মামলা চলমান থাকায় এসব টাকাকে খেলাপি বলা যাচ্ছে না। পুরো টাকাই বিদেশে পাচার হয়ে গেছে। এ টাকা আদায়ের সম্ভাবনা নেই। তবুও বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠন করে এসব টাকা আদায়ের চেষ্টা করতে হবে।

সোনালী ব্যাংকের হালনাগাদ এক প্রতিবেদন অনুযায়ী ২০২০ সালের ডিসেম্বর শেষে ব্যাংকের খেলাপি ঋণের অঙ্ক দাঁড়িয়েছে ১০ হাজার ৭২১ কোটি টাকা, যা বিতরণ করা ঋণের ২০ দশমিক ৪৮ শতাংশ। এর মধ্যে শীর্ষ ২০ খেলাপির কাছেই পাওনা ৪ হাজার ৮৩ কোটি টাকা, যা মোট খেলাপির ৩৮ শতাংশ। চলতি বছরে এসব বড় খেলাপির কাছ থেকে ঋণ আদায়ের লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ২ হাজার ২৩২ কোটি টাকা। কিন্তু জানুয়ারি থেকে আগস্ট পর্যন্ত শীর্ষ ১৬ খেলাপি প্রতিষ্ঠান থেকে এক টাকাও আদায় হয়নি। এর মধ্যে রয়েছে হলমার্ক গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান মেসার্স টি অ্যান্ড ব্রাদার্সের ৪৯০ কোটি টাকা, মেসার্স হলমার্ক গ্রুপের ৪৮৪ কোটি টাকা, তাইপে বাংলা ফেব্রিক্সের ৩৩২ কোটি টাকা, মেসার্স ফেয়ার অ্যান্ড ফেব্রিক্সের ৩১৬ কোটি টাকা, মেসার্স রহমান গ্রুপের ৩১৪ কোটি টাকা, মেসার্স লীনা গ্রুপের ২১৫ কোটি টাকা, রতনপুর স্টিল রিরোলিং মিলসের ১৮২ কোটি টাকা, মেসার্স মেঘনা কনডেন্স মিল্কের ১৩১ কোটি টাকা, মেসার্স সোনালী জুট মিলের ১২৭ কোটি টাকা, মেসার্স এ কে জুট ট্রেডিংয়ের ১১৭ কোটি টাকা, মেসার্স ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ডের ১১৬ কোটি টাকা, মেসার্স সুপ্রিম জুট অ্যান্ড নিটেক্সের ১০৬ কোটি টাকা, মেসার্স ইস্টার্ন ট্রেডার্স ৯৩ কোটি টাকা, ফারুক ডাইং নিটিং অ্যান্ড ম্যানুফেকচারিংয়ের ৯০ কোটি টাকা, মেসার্স সানবীম টেক্সটাইল মিলস লিমিটেডের ৮৬ কোটি টাকা এবং মেসার্স সাইয়ান করপোরেশনের ৭৬ কোটি টাকা। তবে এ সময়ে বাকি চার খেলাপি প্রতিষ্ঠান থেকে আদায় হয়েছে লক্ষ্যমাত্রার ০.৪৩ শতাংশ মাত্র।

সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মো. আতাউর রহমান প্রধান বলেন, ছোট গ্রাহকের ঋণ ফেরত আসছে। এছাড়া বড়দের মধ্যে একটি অংশ ভালো। এর বাইরে নতুন ঋণও নিয়মিত আছে। কিন্তু পুরোনো এবং ইচ্ছাকৃত ঋণখেলাপিরা সবচেয়ে বিপজ্জনক। এটি সবাই জানেন। তবে ঋণ আদায়ে সব ধরনের চেষ্টা অব্যাহত আছে। ইচ্ছাকৃত ঋণখেলাপির সংজ্ঞা নির্ধারণ নিয়ে কাজ করছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এরপর হয়তো কোনো একটা সমাধান বেরিয়ে আসবে।



আরও খবর



‘দেশে জনসংখ্যা ও চালের চাহিদার সঠিক পরিসংখ্যান নেই’

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১ | ৭০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, দেশে জনসংখ্যা ও চালের চাহিদার সঠিক কোনো পরিসংখ্যান নেই। অন্যদিকে বছর বছর জনসংখ্যা বাড়ছে, চাষের জমি কমছে। অন্যান্য ফসলের চাষেও জমি ব্যবহার হচ্ছে। একই সঙ্গে, চালের নন-হিউম্যান কনজামশন অনেক বেড়েছে। মাছ, পোলট্রি, প্রাণিখাদ্য ও স্টার্চ হিসেবে চালের ব্যবহার দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। এসব মিলে দেশে চালের ঘাটতি দেখা যাচ্ছে বলে জানান মন্ত্রী।

আজ বুধবার ঢাকার ফার্মগেটে বিএআরসি মিলনায়তনে ফার্ম সেক্টর অব বাংলাদেশ : প্রসপেক্টস অ্যান্ড চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক বইয়ের মোড়ক উন্মোচন ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। ফোরাম ফর ইনফরমেশন ডিসেমিনেশন অন অ্যাগ্রিকালচার (ফিডা) ও সিনজেন্টা বাংলাদেশ লিমিটেড এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

মন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকারের সময়োপযোগী পদক্ষেপের ফলে দেশে চালের রেকর্ড উৎপাদন হয়েছে। গড় উৎপাদনশীলতাও বেড়েছে। এখন দেশে প্রতি শতাংশ জমিতে এক মণ করে ধান উৎপাদন হয়। তারপরও চাল আমদানি করতে হচ্ছে নানা কারণে। দেশে বছরে এখন ৬০ লাখ টন ভুট্টা উৎপাদন হচ্ছে। আগে যে খেতে ধানের চাষ হতো সেখানেই ভুট্টা চাষ হচ্ছে।

কৃষিমন্ত্রী আরও বলেন, যে যে ভাবে পারছে দেশের বাইরে থেকে নতুন ধরনের ফসলের জাত নিয়ে আসছে ও চাষ করছে। এটিকে আমরা উৎসাহ দেই। কিন্তু সঙ্গে সঙ্গে দেখতে হবে দেশে এসব ফসল চাষে কোনো ঝুঁকি বা স্বাস্থ্যঝুঁকি রয়েছে কি না। এসব ফসল চাষ আদৌ আমাদের প্রয়োজন আছে কি না।

দেশের কৃষির সম্ভাবনা ও চ্যালেঞ্জ নিয়ে ফার্ম সেক্টর অব বাংলাদেশ : প্রসপেক্টস অ্যান্ড চ্যালেঞ্জ’ বইটি ফিডা ও সিনজেন্টা বাংলাদেশ ফেলোশিপের আওতায় প্রকাশিত হয়েছে। এর প্রশংসা করে ড. রাজ্জাক বলেন, প্রাইভেট সেক্টর ও সাংবাদিকদের এ যৌথ উদ্যোগকে অভিনন্দন জানাই। আমরা কৃষিকে বাণিজ্যিক, আধুনিক ও লাভজনক করতে চাই। এক্ষেত্রে মিডিয়ার বিরাট ভূমিকা রয়েছে। প্রাইভেট সেক্টরকেও এগিয়ে আসতে হবে।

ফিডার সভাপতি রিয়াজ আহমদের সভাপতিত্বে বিএডিসির চেয়ারম্যান ড. অমিতাভ সরকার, বিএআরসির নির্বাহী চেয়ারম্যান ড. শেখ মো. বখতিয়ার, কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোহাম্মদ ইউসুফ, বারির মহাপরিচালক নাজিরুল ইসলাম, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের পরিচালক মনিরুল আলম, ফিডার সাধারণ সম্পাদক সালাহউদ্দিন বাবলু, ফিডার সদস্য কাউসার রহমান, সিনজেন্টার ব্যবস্থাপনা পরিচালক গোলাম তৌহিদ প্রমুখ বক্তব্য দেন।


আরও খবর



যুদ্ধাপরাধ : ময়মনসিংহের ১২ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২১ অক্টোবর 20২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১ | ৬৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
আসামিদের বিরুদ্ধে হত্যা-গণহত্যা, অপহরণ, নির্যাতন, লুণ্ঠনসহ মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগের তদন্ত শেষ পর্যায়ে

মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে দায়ের হওয়া মামলায় ময়মনসিংহ জেলার ১২ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির আদেশ দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল।

বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) চেয়ারম্যান বিচারপতি শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল এ আদেশ দেন।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন প্রসিকিউটর মোখলেসুর রহমান বাদল ও তাপস কান্তি বল।

পরে তাপস কান্তি বল জানান, আসামিদের বিরুদ্ধে হত্যা-গণহত্যা, অপহরণ, নির্যাতন, লুণ্ঠনসহ মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগের তদন্ত শেষ পর্যায়ে। আজ আদালত এই ১২ জনকে গ্রেফতার করতে পরোয়ানা জারির আদেশ দিয়েছেন।


আরও খবর



ওমানের পিচে আত্মবিশ্বাসে রসদ যোগাচ্ছে বাংলাদেশর

প্রকাশিত:শনিবার ০৯ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১ | ৯৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়ায় বাংলাদেশ দলের ব্যাটিং বিভাগ। তবে ওমান দলের বিপক্ষে অনানুষ্ঠানিক প্রস্তুতি ম্যাচের পর সে শঙ্কায় কিছুটা হলেও প্রলেপ পড়েছে।

ওমান দলের বিরুদ্ধে ব্যাট হাতে তাণ্ডব চালান লিটন দাস, নুরুল হাসান সোহান, শামীম পাটোয়ারিরা। ২০ ওভারে স্কোর বোর্ডে উঠে ২০৭ রান। ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হয় ওমান ক্রিকেট একাডেমী মাঠে। এ মাঠেই বিশ্বকাপের প্রথম পর্বের ৩টি ম্যাচ খেলবে টাইগাররা। এটাই আত্মবিশ্বাসে রসদ যোগাচ্ছে বাংলাদেশ দলের কাছে। শুক্রবার ম্যাচ শেষে এক ভিডিও বার্তায় তেমনটিই জানালেন বাংলাদেশ দলের অলরাউন্ডার শামীম পাটোয়ারি।

শামীম বললেন, আমাদের ব্যাটিংয়ের শুরুটা অনেক ভালো ছিল। নাঈম ও লিটন ভাই ভালো শুরু এনে দিয়েছে। শেষদিকে সোহান ভাইয়ের সাথে ব্যাটিং করেছি। অনেক ভালো লেগেছে। উইকেট অনেক ভালো ছিল। ব্যাটসম্যানরা অনেক স্বাচ্ছন্দ্যে ব্যাটিং করেছে। আমি অনেক আশাবাদী, এই পিচে আমাদের ব্যাটসম্যানরা অনেক ভালো করবে।

সঙ্গে যোগ করেন শামীম, আমরা নতুন কন্ডিশনে এসেছি। এখানে যত ম্যাচ খেলতে পারব দলের জন্য ততই ভালো। রাতের বেলা ম্যাচ ছিল, এটাও আমাদের জন্য ভালো ছিল। ব্যাটসম্যানরা সবাই অনেক ভালো করেছেন। বোলাররাও অনেক ভালো করেছেন। টিম কম্বিনেশন দেখে ভালো লাগছে। সবার মধ্যে ভালো যোগাযোগ ছিল।

ওমান দলের বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে নেমে খুব বেশি বল খেলার সুযোগ পাননি শামীম। আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ে ১০ বলে খেলেন ১৯ রানের ইনিংস। শেষদিকের ব্যাটিং নিয়ে কিছুটা আক্ষেপ ঝরল শামীমের কণ্ঠে।

শামীম বলেন, আমি ব্যাটিংয়ে নেমে সুযোগ পাব কম। বেশিরভাগ সময় ব্যাটিংয়ে যেতে হয় ১৫ ওভারের পর। ব্যাট হাতে ইনিংস শেষ করে আসার লক্ষ্য থাকে।


আরও খবর

টি-টোয়েন্টি র‌্যাংকিংয়ে পেছাল বাংলাদেশ

বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১

কোম্যানকে বরখাস্ত করলো বার্সেলোনা

বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১




নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইলিশ ধরায় ১৪ জেলের কারাদণ্ড

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১২ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২৫ অক্টোবর ২০২১ | ৫৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলার যমুনা নদীতে ইলিশ ধরার দায়ে ২১ জেলেকে আটক করা হয়। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতে ১৪ জেলেকে কারাদণ্ড এবং সাতজন অপ্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ায় তাদের অভিভাবকের জিম্মায় ছেড়ে দেন উপজেলা প্রশাসন।

মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শিবালয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জেসমিন সুলতানা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মা ইলিশ সংরক্ষণে সোমবার মধ্যরাত থেকে মঙ্গলবার ভোর পর্যন্ত অভিযান পারিচালনা করে ২১ জেলেকে আটক করা হয়। এ সময় আটকদের কাছ থেকে ৫ কেজি মা ইলিশ উদ্ধার এবং ৩০ হাজার মিটার কারেন্ট জাল জব্দ করে ধ্বংস করা হয়।

তিনি আরও বলেন, উদ্ধার হওয়া মা ইলিশ স্থানীয় এতিমখানায় বিতরণ করা হয়। আর আটকদের মধ্যে সাতজন অপ্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ায় তাদের অভিভাবকদের জিম্মায় দেওয়া হয়। ১৪ জেলেকে এক মাস করে কারাদণ্ড দিয়ে জেলহাজতে পাঠানো হয়।

 

নিউজ ট্যাগ: জেলে আটক

আরও খবর