Logo
শিরোনাম

হাদিসের দোহাই দিয়ে বাবার শেষ স্ত্রীকেও বিয়ে করেছিল মামুনুল (ভিডিও)

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০21 | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২ | ১৯৯২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

মামুনুল হক তার বাবার শেষ স্ত্রীকেও বিয়ে করেছিল, তথ্যটি জানাচ্ছেন কমরেড ডা. এম এ সামাদ। তিনি কমিউনিস্ট পার্টি অব বাংলাদেশ-এর (মার্কসিস্ট) জেনারেল সেক্রেটারি এবং দৈনিক সিপিবিএপত্রিকার সম্পাদক। তিনি প্রয়োজনীয় তথ্য-প্রমাণ হাতে নিয়েই  ফেসবুক লাইভে এসে এমন তথ্য জানান।

 

ডা. এম এ সামাদ তার ফেসবুক লাইভে বিস্তারিত তুলে ধরে জানান, মামুনুল হকের সেই সৎ মা এবং পরবর্তীতে স্ত্রীর নাম ফারহানা। তিনি বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রবাসী। সেখান থেকে মামুনুল হকের গ্রেপ্তারের খবরে উতলা হয়ে বিভিন্ন ধরণের গুজব অপপ্রচার চালাচ্ছেন, সেই সাথে উসকানি দিচ্ছেন মামুনুল হকের অনুসারীদের রাস্তায় নেমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে আন্দোলন এবং জ্বালাও পোড়াও শুরু করার জন্য।

 

ডা. এম এ সামাদ এর সাথে মামুনুল হকের পিতা স্বঘোষিত স্বাধীনতাবিরোধী শাইখুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হকের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠতা ছিল। ডা. সামাদ সেই পরিচয় এবং পারিবারিক সম্পর্কের সুবাদে বিভিন্ন তথ্য তুলে ধরেন।

 

তিনি জানান, মামুনুল হকের পিতার স্ত্রীর সংখ্যা অনেক, যাদের অনেকেই ছিলেন তার বাড়ির গৃহ পরিচারিকা। তাদেরকে একে একে বিয়ে করেন আজিজুল হক। এসব বিয়ের কোনো রেজিষ্ট্রি বা কাবিন নাই। শুধুমাত্র মুখে কলেমা পড়ে বিয়ে এবং ছেড়ে দিলামবলে ডিভোর্স দেয়া হয়। এই স্ত্রীদের গর্ভে মোট সন্তানের সংখ্যা ১৪ জন।

 

মামুনুল হক যাকে বিয়ে করেছেন সেই ফারহানা তার পিতা আজিজুল হকের শেষ বয়সে করা বিয়ের অতি অল্প বয়সী এক স্ত্রী। বয়সের বিস্তর ব্যবধানের কারণে এ নিয়ে মাদ্রাসায় এবং ধর্মীয় অঙ্গনে বেশ রসালো আলাপ হতো। এ নিয়ে ১৯৯১ সালে এক আলোচনায় তিনি খোদ মহানবী (স.) এর ৬ বছর বয়সী হযরত আয়েশা (রা.) কে বিয়ের উদাহরণ দিয়ে নিজের বিয়ের বৈধতা দান করেন।

 

এমনকি আব্দুর রাজ্জাক বিন ইউসুফের সাথে এক আলোচনায় আজিজুল হক দেশের প্রচলিত আইনকে মুরতাদদের আইন আখ্যা দিয়ে বলেছিলেন, বিয়ের সংখ্যা এবং বয়স নির্ধারণ করা এই মুরতাদদের আইন আমরা মানি না। বরং ১৩টি পর্যন্ত বিয়ের পক্ষে যুক্তি তুলে ধরেন তিনি।

 

ডা. এম এ সামাদ জানান, মামুনুল হকের সেই সৎ মা এবং পরবর্তীতে স্ত্রী হওয়া নারী ফারহানা এখনও তার ফেসবুক প্রোফাইলে মামুনুল হকের এক্স স্ত্রী হিসেবে নিজের পরিচিতি বহন করেন।


আরও খবর



হিমাচলে বাস খাদে পড়ে নিহত ৭

প্রকাশিত:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২ | ৪৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ভারতের হিমাচল প্রদেশের কুলুতে বাস খাদে পড়ে সাত পর্যটক নিহত হয়েছেন। নিহতদের মধ্যে তিনজন আইআইটির ছাত্র বলে জানা গেছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ১০ জন।

রোববার সন্ধ্যায় একটি গাড়ি বানজার মহকুমার ঘিয়াঘির কাছে খাদে পড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

ঘটনার জন্য শোকপ্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এ গোটা ঘটনাটি বানজারের বিজেপি বিধায়ক সুরেন্দর শৌরি রোববার মধ্যরাতে ফেসবুক লাইভে করে জানান। বিধায়ক জানান, নিহতরা রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ, হরিয়ানা এবং দিল্লিসহ বিভিন্ন রাজ্যের বাসিন্দা।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পাঁচ পর্যটক ঘটনাস্থলেই মারা যান। পরে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে আরও দুজন মারা যান। নিহতদের মধ্যে উত্তরপ্রদেশের ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি বারাণসীর তিনজন ছাত্র রয়েছে।

কুলুর পুলিশ সুপার গুরদেব শর্মা জানিয়েছেন, প্রাথমিক রিপোর্ট অনুযায়ী, চালকসহ গাড়িতে ১৭ যাত্রী ছিলেন। খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে পৌঁছে যায় পুলিশ, হোমগার্ড ও স্থানীয় প্রশাসনের সদস্যরা।


আরও খবর

‘হাসি’ মানুষের সবচেয়ে ভালো ওষুধ

শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২




হুন্ডির মাধ্যমে এক বছরে ৭.৮ বিলিয়ন ডলার পাচার : সিআইডি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২ | ৮০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

মুঠোফোনের আর্থিক সেবা ব্যবস্থা (এমএফএস) ব্যবহার করে গত চার মাসে হুন্ডির মাধ্যমে ২০ কোটি সত্তর লাখ টাকা বিদেশে পাচার হয়েছে। এই সেবাকে কাজে লাগিয়ে হুন্ডি ব্যবসা করে এমন পাঁচ হাজার বিকাশ, নগদ, রকেট ও উপায় এর এজেন্টদের চিহ্নিত করা গেছে। যারা গেল চার মাসে ২৫ হাজার কোটি টাকা এবং গত এক বছরে ৭৫ হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছে। এই পাচার চক্রের সঙ্গে যুক্ত ১৬ জনকে গ্রেপ্তারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে এমন তথ্য পেয়েছে সিআইডি। 

আজ বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে গণমাধ্যমের কাছে এসব তথ্য তুলে ধরেন সংস্থাটির প্রধান মোহাম্মদ আলী মিয়া।

গত কয়েক বছরে ব্যাংকিং চ্যানেল বহির্ভূত অবৈধভাবে মোবাইল ব্যাংকিং হুন্ডির মাধ্যমে রেমিট্যান্স পাঠানোর প্রবণতা বেড়ে যাওয়ায়, দেশের প্রবাসী আয়ের তুলনামূলক কিছুটা হলেও ভাটা পড়ে। হুন্ডি বন্ধে সরকার নানা পদক্ষেপ নিলেও কিছু অসাধু ব্যবসায়ীর কারণে বন্ধ করা যাচ্ছে না। উল্টো দিন দিন বেড়েই যাচ্ছে। এমন অবস্থায় দেশে ডলারের দাম বৃদ্ধিসহ নানা কারণ তদন্ত করতে গিয়ে এই পাচারকারী চক্রের সন্ধান পায় সিআইডি। চক্রের গ্রেপ্তার ১৬ জনের মধ্যে ছয়জন বিকাশ এজেন্ট, তিনজন বিকাশের ডিস্ট্রিবিউটর সেলস অফিসার, তিনজন বিকাশের ডিএসএস, দু’জন হুন্ডি এজেন্ট, একজন হুন্ডি এজেন্টের সহযোগী এবং একজন হুন্ডি পরিচালনাকারী।

গ্রেপ্তারকৃতেরা হলেন, দিদারুল আলম সুমন, খোরশেদ আলম ইমন, রুমন কান্তি দাস জয়, রাশেদ মাঞ্জুর ফিরোজ, আক্তার হোসেন, হোসাইনুল কবির, নবীন উল্লাহ, মো. জুনাইদুল হক, আদিবুর রহমান, আসিফ নেওয়াজ, ফরহাদ হোসাইন, আবদুল বাছির, আবদুল আউয়াল সোহাগ, ফজলে রাব্বি ও মাহাবুবুর রহমান সেলিম।

হুন্ডি সব সময় দেশের রিজার্ভের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ উল্লেখ করে সিআইডি প্রধান বলেন, দেশের অর্থনীতির ঝুঁকি মোকাবিলায় হুন্ডি কার্যক্রমের বিষয়ে নজরদারি শুরু করে সিআইডি। অনুসন্ধানে জানা যায়, একটি সংঘবদ্ধ চক্রের বিরুদ্ধে অবৈধভাবে হুন্ডির মাধ্যমে বিদেশে অর্থপাচার এবং দেশের বাইরে অবস্থানরতদের কষ্টার্জিত অর্থ বিদেশ থেকে বাংলাদেশে না এনে স্থানীয় মুদ্রায় মূল্য পরিশোধ করার মাধ্যমে মানি লন্ডারিং অপরাধ করার তথ্য পাওয়া যায়। হুন্ডি চক্রটি প্রবাসী বাংলাদেশিদের উপার্জিত বৈদেশিক মুদ্রা সংগ্রহ করে তা দেশে না পাঠিয়ে এর সমপরিমাণ অর্থ স্থানীয় মুদ্রায় পরিশোধ করে।

মোহাম্মদ আলী মিয়া বলেন হুন্ডি ব্যবসায় জড়িত চক্র তিনটি গ্রুপে ভাগ হয়ে কাজ থাকে। প্রথম গ্রুপ বিদেশে অবস্থান করে প্রবাসীদের কাছ থেকে বৈদেশিক মুদ্রা সংগ্রহ করে এবং দেশ থেকে যারা টাকা পাচার করতে চায় তাদের দেয়। দ্বিতীয় গ্রুপটি পাচারকারী ও তার সহযোগীরা দেশীয় মুদ্রায় উক্ত অর্থ এমএফএস এজেন্টকে দেয়। আর তৃতীয় গ্রুপ তথা এমএফএস এজেন্টরা বিদেশে অবস্থানকারীর কাছ থেকে প্রাপ্ত এমএফএস নম্বরে দেশীয় মুদ্রায় মূল্য পরিশোধ করে। এসব চক্র প্রতিনিয়ত অবৈধভাবে এমএফএস ব্যবহার করে ক্যাশ ইনের মাধ্যমে কোটি কোটি টাকা হুন্ডি করছে। 

আটকদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান সিআইডি প্রধান।


আরও খবর



জেনে নিন রাজধানীতে কখন কোথায় লোডশেডিং

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২ | ২২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

জ্বালানি সংকটের কারণে বিদ্যুৎ উৎপাদনের ঘাটতি কমাতে সারাদেশে লোডশেডিং ব্যবস্থা চালু করেছে সরকার। গত ১৯ জুলাই থেকে এই লোডশেডিং ব্যবস্থা চালু হয়।

এরপর থেকে কোন এলাকায় কখন লোডশেডিং তার সময়সূচি প্রকাশ করে আসছে দেশের বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানিগুলো।

বৃহস্পতিবারের লোডশেডিংয়ের তালিকা প্রকাশ করেছে ঢাকা ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানি (ডেসকো)। তবে ঢাকা বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানি ডিপিডিসি এদিন কোনও লোডশেডিং তালিকা প্রকাশ করেনি।

বৃহস্পতিবার সকালে ডিপিডিসির ওয়েবসাইটে দেখা যায়, এই মুহূর্তেডিপিডিসি এলাকাতে কোনও লোডশেডিং নেই

তবে লোড কম বরাদ্দের প্রাপ্তিতে লোডশেডিং আরোপিত হতে পারে বিধায় হালনাগাদ তথ্য জানার জন্য সময়ে সময়ে ডিপিডিসির ওয়েবসাইট ভিজিট করার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।

ডেসকোর বৃহস্পতিবারের লোডশেডিং শিডিউল


আরও খবর



পুকুরে ডুবে প্রাণ গেল ২ শিশুর

প্রকাশিত:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২ | ৩৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

খাগড়াছড়ির দীঘিনালায় পুকুরের পানিতে ডুবে ফারহান ও নুসরাত নামে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। সোমবার বেলা ১১টায় উপজেলার কবাখালী ইউনিয়নের মুসলিমপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ফারহানের বয়স দুই বছর। সে কামাল হোসেনের ছেলে। অন্যদিকে নুসরাত জাহানের বয়স দেড় বছর।

দীঘিনালা উপজেলার কবাখালী ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের মেম্বার মো. আবদুল আলিম জানান, সকালে পুকুরপাড়ে খেলার সময় একপর্যায়ে তারা পুকুরের পানিতে পড়ে যায়। পরে তাদের খোঁজ শুরু হলে পুকুর থেকে তাদের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে উদ্ধার করে দীঘিনালা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

দীঘিনালা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসক উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার ডা. প্রমেশ চাকমা জানান, হাসপাতালে আনার আগেই তাদের মৃত্যু হয়েছে|


আরও খবর



ধনকুবেরের সংখ্যা বাড়ছে চীনে

প্রকাশিত:শনিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২ | ৩২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আড়াই বছরেরও বেশি সময় জিরো কোভিড নীতি অব্যাহত রেখেছে চীন। সংক্রমণ বাড়ার পরিপ্রেক্ষিতে বারবার আরোপ করা হচ্ছে লকডাউন। পাশাপাশি রিয়েল এস্টেট খাতে মন্দার কারণে ধীর হয়ে পড়ছে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির কার্যক্রম। আবার সম্পদের বৈষম্য কমানোর জন্য বেইজিং নানামুখী পদক্ষেপ নিচ্ছে। এ অবস্থায়ও দেশটিতে ধনকুবেরের সংখ্যা বাড়ছে।

ক্রেডিট সুইস একটি প্রতিবেদনে পূর্বাভাস দিয়েছে, ২০২৬ সাল নাগাদ চীনে মিলিয়নেয়ারের সংখ্যা দ্বিগুণ হবে বলে আশা করা হচ্ছ। চীনে মোট পারিবারিক সম্পদ ২০২১ সালে ৮৫ লাখ ১০ হাজার কোটি ডলারে পৌঁছেছে। এ সম্পদের পরিমাণ ২০২০ সালের ১১ লাখ ২০ হাজার কোটি ডলারের চেয়ে ১৫ দশমিক ১ শতাংশ বেশি।

বেইজিংয়ের সাধারণ সমৃদ্ধির ঘোষণা সাম্প্রতিক বছরগুলোয় রাজনৈতিক বক্তৃতায় ব্যাপকভাবে বেড়েছে। সম্পদের বৈষম্য কমাতে নেয়া এ উদ্যোগের অংশ হিসেবে প্রযুক্তি ও বেসরকারি শিক্ষাসহ কিছু শিল্পে নিয়ন্ত্রণ আরোপ জোরদার করেছে সরকার। এ পদক্ষেপ বিনিয়োগকারীদের বিচলিত করেছে এবং অনেক প্রতিষ্ঠান দেশটির বাইরে কার্যক্রম সম্প্রসারণের উদ্যোগ নিয়েছে।

সুইস বিনিয়োগ ব্যাংকের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০২১ সালে চীনে ৬২ লাখ মিলিয়নেয়ার ছিল। এ সংখ্যা আগের বছরের চেয়ে ১০ লাখ বেশি। গত বছর বিশ্বব্যাপী মোট মিলিয়নেয়ারের সংখ্যা ছিল ৫২ লাখ। পাঁচ বছরের মধ্যে এ সংখ্যা দ্বিগুণ হয়ে ১ কোটি ২২ লাখে উন্নীত হবে বলে আশা করা হচ্ছে। কোভিডজনিত লকডাউনের কারণে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতি দ্বিতীয় প্রান্তিকে মাত্র ১ দশমিক ৪ শতাংশ বেড়েছে। যদিও প্রথম প্রান্তিকের তুলনায় দেশটির মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) ২ দশমিক ৫ শতাংশ সংকুচিত হয়েছে। তবে কোভিড ও রিয়েল এস্টেট খাতের সংকট ভোক্তা এবং ব্যবসায়িক আস্থায় নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। এমন পরিস্থিতিতেও দেশটিতে ধনকুবের বাড়ার পূর্বাভাস প্রকাশ করল ক্রেডিট সুইস।

গত বছর বিশ্বজুড়ে পারিবারিক সম্পদ ১২ দশমিক ৭ শতাংশ বেড়েছে। মুদ্রার বিনিময় হারের বিষয়গুলো বাদ দিলে এটা সবচেয়ে দ্রুততম বার্ষিক বৃদ্ধি। এমন পরিস্থিতিতে সম্ভাবনা ভূরাজনৈতিক সংকট ও আর্থিক অনিশ্চয়তার কারণে সৃষ্ট ঝুঁকিকে ছাপিয়ে গিয়েছে। ২০২১ সালের শেষ নাগাদ বৈশ্বিক পারিবারিক সম্পদ ৪৬৩ লাখ ৬০ হাজার কোটি ডলারে পৌঁছেছে। আর্থিক সম্পদে উল্লম্ফনের কারণে পারিবারিক সম্পদ বেড়ে গিয়েছে। তবে এ সময়ে সম্পদবৈষম্য আরো বেড়েছে। গত বছর যুক্তরাষ্ট্র, চীন ও কানাডার পারিবারিক সম্পদ সবচেয়ে বেশি বেড়েছে। ক্রেডিট সুইস জানিয়েছে, দেশগুলোর পারিবারিক সম্পদে যথাক্রমে ১৯ লাখ ৫০ হাজার, ১১ লাখ ২০ হাজার ও ১ লাখ ৮০ হাজার কোটি ডলার যুক্ত হয়েছে।

ক্রেডিট সুইস বোর্ডের চেয়ারম্যান অ্যাক্সেল লেহম্যান বলেন, মূল্যস্ফীতি, ইউক্রেন যুদ্ধ, সরবরাহ ব্যবস্থায় প্রতিবন্ধকতার প্রভাব এখনই মূল্যায়ন করা কঠিন। তবে চলতি বছর বৈশ্বিক সম্পদ বৃদ্ধি নিয়ে অনিশ্চয়তা অনেক বেশি। এজন্য সম্পদ বৃদ্ধির বিপরীতমুখী প্রভাব দেখা যেতে পারে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি। যদিও সুইজারল্যান্ডের বেসরকারি এ ব্যাংক পাঁচ বছরের সম্পদ বৃদ্ধি নিয়ে আশাবাদী। ২০২৬ সালের মধ্যে বিশ্বব্যাপী পারিবারিক সম্পদ ১৬৯ লাখ কোটি ডলার বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে।

সম্প্রতি প্রকাশিত লন্ডনভিত্তিক অভিবাসন পরামর্শক প্রতিষ্ঠান হেনলি অ্যান্ড পার্টনার্সের সমীক্ষায় বলা হয়েছে, চলতি বছরের প্রথমার্ধে মিলিয়নেয়ার বসবাসে বিশ্বের শীর্ষ শহর নিউইয়র্ক। যুক্তরাষ্ট্রের শহরটিতে ৩ লাখ ৪৫ হাজার ৬০০ জন ধনকুবেরের বসবাস। মিলিয়নেয়ারের সংখ্যায় এর পরেই রয়েছে জাপানের আর্থিক কেন্দ্র টোকিও। এর পরে সান ফ্রান্সিসকো বে এরিয়া, লন্ডন ও সিঙ্গাপুর। এছাড়া ১ লাখ ৯২ হাজার ৪০০ জন মিলিয়নেয়ার নিয়ে তালিকায় ষষ্ঠ স্থানে রয়েছে লস অ্যাঞ্জেলেস। এর পর শিকাগোয় ১ লাখ ৬০ হাজার ১০০, হিউস্টনে ১ লাখ ৩২ হাজার ৬০০, বেইজিংয়ে ১ লাখ ৩১ হাজার ৫০০ ও সাংহাইয়ে ১ লাখ ৩০ হাজার ১০০ জন মিলিয়নেয়ার রয়েছেন।


আরও খবর

‘হাসি’ মানুষের সবচেয়ে ভালো ওষুধ

শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২