Logo
শিরোনাম

হাসপাতালের করিডরে ডিএমসির ডাক্তারদের নাচের ভিডিও ভাইরাল

প্রকাশিত:বুধবার ২৮ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ২১ মে ২০২২ | ৪৫৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

করোনায় রোগীদের সঙ্গে চিকিৎসকদের অবস্থাও করুণ। বিভিন্ন প্রতিকূলতা ও সীমাবদ্ধতার মধ্যেও মানুষের প্রাণ বাঁচাতে লড়ে যাচ্ছেন ডাক্তাররা। এই শীতল পরিবেশের মধ্যে জীবনের উষ্ণতা নিয়ে এসেছে সম্প্রতি ভাইরাল হওয়া ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ডিএমসি) হাসপাতালের তিন চিকিৎসকের নাচের একটি ভিডিও।

জানা যায়, সারাক্ষণ করোনা ওয়ার্ডে কর্মরত চিকিৎসক ও সেবাদানকারীদের উৎসাহ দিতে এই ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছেন তিন ডাক্তার। ডিউটির ফাঁকে ডা. শাশ্বত চন্দন, ডা. আনিকা ও ডা. দীপা বিশ্বাস এই নাচের আয়োজন করেন।

ভিডিওতে দেখা যায়, হাসপাতালের করিডরে এই তিন চিকিৎসক মুখে মাস্ক দিয়ে সিলেট অঞ্চলের একটি বিয়ের গীতের তালে তালে নৃত্যছন্দে মেতে ওঠেন।

এ বিষয়ে ডা. শাশ্বত চন্দন বলেন, আমরা চেষ্টা করেছি আমাদের নাচের মাধ্যমে এই করোনার দুঃসময়ে ডাক্তাররা যেন উৎফুল্ল হন এবং অনুপ্রেরণা পান।

কিছুদিন আগে করোনার সংক্রমণে হিমশিম খাওয়া ভারতের কেরালার দুই চিকিৎসকের বনি এমের গানের তালে নাচের ভিডিও ভাইরাল হয়।



আরও খবর

সিনেমা হল বন্ধ করে মাদ্রাসা চালু

মঙ্গলবার ১৯ এপ্রিল ২০২২




রাজধানীর যেসব এলাকায় গ্যাস বন্ধ থাকবে শনিবার

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২১ মে ২০২২ | ৩২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আগামী শনিবার (২১ মে) রাজধানীর বেশকিছু এলাকায় ১২ ঘণ্টা গ্যাস সংযোগ বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছে তিতাস। গ্যাস লাইনের জরুরি কাজের জন্য এ সংযোগ বন্ধ থাকবে।

তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড বৃহস্পতিবার এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গ্যাস লাইনের জরুরি কাজের জন্য আগামী ২১ মে শনিবার সকাল ৯টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত মোট ১২ ঘণ্টা রাজধানীর মিরপুর-১, ২, ৬, ৭, ১০, ১১, ১২, ১৩, ইস্টার্ন হাউজিং, রূপনগর, আরামবাগ, আলুবদি এবং মিরপুর ডিওএসএইচ এলাকায় সব শ্রেণির গ্রাহকদের গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে। এ ছাড়া পার্শ্ববর্তী এলাকায় গ্যাসের চাপ কম থাকতে পারে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে তিতাস।


আরও খবর



কান উৎসবে জুরি সদস্যদের ডিনারে দীপিকা

প্রকাশিত:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২১ মে ২০২২ | ৩৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পর্দা উঠছে কান চলচ্চিত্র উৎসবের এ বছরের আসর। মঙ্গলবার থেকে ১২ দিনের জন্য এই আয়োজন শুরু হচ্ছে। এবারের উৎসবে নতুন রূপে ধরা দিচ্ছেন বলিউড অভিনেত্রী দীপিকা পাড়ুকোন।

কান উৎসবে একাধিকবার রেড কার্পেটে দেখা গেছে এই ভারতীয় সুন্দরীকে। তবে এ বছর দীপিকা থাকছেন বিচারকের আসনে। ৭৫ তম কান চলচ্চিত্র উৎসবে ৯ জুরির একজন তিনি। এরই মধ্যে উৎসবে যোগ দিয়েছেন পদ্মাবতখ্যাত অভিনেত্রী। অংশ নিয়েছেন জুরি ডিনারে। 

সোমবার (১৬ মে) ফ্রান্সের রিভেরা শহরে পৌঁছেন দীপিকা। সেখানে গিয়ে হোটেল মার্টিনেজে কান ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল জুরি ডিনারে অংশ নেন তিনি। রেবেকা হল, ভিনসেন্ট লিন্ডন, জেসমিন ট্রিনকা, আসগর ফারহাদি, লাদি লি, জেফ নিকোলাস এবং জোয়াকিম ট্রিয়ারসহ অন্যান্য জুরি সদস্যদের সঙ্গে রাতের খাবার খান এই অভিনেত্রী। এ দিন দীপিকাকে কালো-সাদা এবং রঙিন আউটফিটে দেখা গিয়েছে।

চলতি উৎসবের সেরা পুরস্কার পাম দ-র নির্বাচন কমিটির জুরিদের অন্যতম একজন দীপিকা। দীপিকার আগে বলিউড অভিনেত্রী বিদ্যা বালান, ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন, নন্দিতা দাস ও শর্মিলা ঠাকুর কান চলচ্চিত্র উৎসবের জুরি বোর্ডের সদস্য হয়েছিলেন।


আরও খবর



রাস্তায় পচছে মৃতদেহ, মারিউপোল যেন নরক

প্রকাশিত:সোমবার ০২ মে 2০২2 | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | ৮৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রান্নাঘর ছিল বোধহয়। রুশ বোমায় গোটা বাড়িটা পড়ে গেলেও ও ঘরের একটা দেওয়াল এখনও সোজা দাঁড়িয়ে। তার সামনে একটা ছোট্ট রান্নার জায়গা। চারপাশে ইঁট-কাঠ-পাথরের স্তূপ, ভাঙা জানলা-দরজার ফ্রেম, কী না পড়ে। কিছুটা জায়গা সাফ করে দুটো চেয়ার পেতেছেন বৃদ্ধা। ওভেনে কড়াই চাপানো। রান্না করা হলে ওখানেই বসে গরম গরম খেয়ে নেওয়া। যত ক্ষণ প্রাণ আছে, পেটে দুটো দানাপানি দিয়ে যেতে হবে।

এ ভাবেই দিন কেটে যাচ্ছে মারিউপোলের। টিভি নেই, ফোন নেই, বিদ্যুৎ সংযোগই নেই। গ্যাসের লাইন কেটে দিয়েছে রুশরা। হঠাৎ আদিম কোনও দুনিয়ায় চলে আসা, দিনের বেলাতেও যেন অন্ধকার। পোড়া গাছের সংখ্যা কেউ না গুনলেও মৃত্যুর চিহ্ন নিয়ে তারা দাঁড়িয়ে। রাস্তাঘাটে ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে থাকা দেহগুলো পচতে শুরু করেছে। সৎকারের জন্যও কেউ নেই।

কিছু জায়গায় গণকবর দেওয়া হয়েছে। এ শহরের কত হাজার বাসিন্দার মৃত্যু হয়েছে, তার কোনও হিসেব নেই। যুদ্ধের আগে মারিয়ুপোলে সাড়ে ৪ লক্ষ মানুষের বাস ছিল। এখনও ১ লক্ষ মতো মানুষ রয়েছে। মেয়র বাদিম বয়চেঙ্কো বলছেন, আর খাবারও মজুত নেই। জল নেই। খুব খারাপ অবস্থা। যাঁরা পালাতে পেরেছেন, তাঁরা বলছেন, পৃথিবীতে নরক আছে, এই মারিউপোলেই।

রাশিয়ার দখল করে নিয়েছে এই শহর। আজ়ভস্টল কারখানা এলাকায় কোণঠাসা হয়ে বন্দি ইউক্রেনীয় বাহিনী একাংশ। তাদের মধ্যে রয়েছে অন্তত ৫০০ জন জখম সেনা। আর হাজারেরও বেশি সাধারণ মানুষ। উপগ্রহচিত্রে দেখা গিয়েছে, এর মধ্যে রাশিয়া বোমা ফেলেছে কারখানার উপরে। গুঁড়িয়ে দিয়েছে বেশির ভাগ অংশ। কারখানার নীচে বাঙ্কারে কত জন বেঁচে আছেন, তা নিয়ে সন্দেহ দানা বাঁধছে। এর মধ্যে রাষ্ট্রপুঞ্জের মুখপাত্র জানিয়েছেন, মারিউপোল থেকে সাধারণ মানুষকে উদ্ধার করা হবেই। মস্কো দাবি করেছে, আজ়ভস্টলের কাছ থেকে ২৫ ও ২১ জনের দুটি দলকে উদ্ধার করা হয়েছে।

কিন্তু ইউক্রেন প্রশাসন জানিয়েছে, গত কাল ২০ জন কারখানা থেকে বেরোতে পেরেছেন। তর্ক-বিতর্কের মধ্যে একটাই আশার আলো, মারিউপোলবাসীকে উদ্ধারের বিষয়টি নিয়ে আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে চাপ বাড়ছে। রাষ্ট্রপুঞ্জ-সহ আন্তর্জাতিক সংগঠনগুলো উঠেপড়ে লেগেছে। ইউক্রেন সরকারও আশ্বাস দিয়েছে, মারিউপোল ছাড়তে আগ্রহী সকলকে উদ্ধার করা হবে। এরই মধ্যে আজ আচমকা ইউক্রেনের লিভিভে হাজির অভিনেত্রী অ্যাঞ্জেলিনা জোলি। রাষ্ট্রপুঞ্জের এই বিশেষ দূত যুদ্ধে ঘরহারা মানুষদের সঙ্গে দেখা করেন। স্বেচ্ছাসেবী কর্মীদের সঙ্গে শিশু-শরণার্থীদের কথা বলেন। তাঁকে জানানো হয়েছে, যুদ্ধের অভিঘাত থেকে শিশুমনকে বাঁচাতে নিয়মিত তাদের স্বাস্থ্যপরীক্ষা করছেন মনোবিদেরা।

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত মারিউপোল। গোটা শহরটাকে কার্যত গুঁড়িয়ে দিয়েছে রাশিয়া। এখন ধ্বংসস্তূপ থেকে সাধারণ মানুষকে উদ্ধারে একপ্রকার নিমরাজি হয়েছে তারা। কিন্তু ইউক্রেনের অন্যত্র তাদের ধ্বংসলীলা চলছে। বিশেষ করে পূর্ব ইউক্রেনের বিভিন্ন গ্রাম-শহরে। মস্কো আজ দাবি করেছে, গত কাল তারা ইউক্রেনে ১৭টি সেনা ঘাঁটি ধ্বংস করেছে। তাদের হামলায় ২০০-রও বেশি ইউক্রেনীয় সেনার মৃত্যু হয়েছে। একটি অস্ত্রাগারও ধ্বংস করেছে তারা।

২৩টি যুদ্ধযান গুঁড়িয়ে দিয়েছে। ওডেসার গভর্নর দাবি করেছেন, রুশরা তাদের বিমানবন্দরেও ক্ষেপণাস্ত্র হানা চালিয়েছে। রানওয়ে ভেঙে গিয়েছে। সে কথা অবশ্য প্রকাশ করেনি মস্কো। তারা দাবি করেছে, ওডেসায় একটি বায়ুসেনা ঘাঁটি ধ্বংস করা হয়েছে। ইউক্রেনের দুটি এসইউ-২৪এম বোমারু বিমান গুলি করে নামানো হয়েছে। এ-ও দাবি করা হয়েছে, আমেরিকা ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে ইউক্রেনে অস্ত্র সরবরাহের পথ বন্ধ করে দিয়েছে তারা।


আরও খবর



মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীরা কে কোথায় ঈদ করবেন

রাজনৈতিক অঙ্গনে ঈদের ছোঁয়া

প্রকাশিত:সোমবার ০২ মে 2০২2 | হালনাগাদ:শনিবার ২১ মে ২০২২ | ৫২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর উদযাপন হবে মঙ্গলবার (৩ মে)। রাজনৈতিক অঙ্গনেও লেগেছে ঈদের ছোঁয়া। ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ থেকে শুরু করে বিরোধী দলগুলোর শীর্ষ নেতাদের অনেকে এবারও নিজ নির্বাচনী এলাকার মানুষের সঙ্গে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করবেন। আবার অনেকে ঈদ করবেন ঢাকায়।

করোনা মহামারির কারণে গত দুই বছর বন্ধ থাকার পর এবার ঈদের প্রধান জামাতের জন্য প্রস্তুত জাতীয় ঈদগাহ ময়দান। প্রায় ৩৫ হাজার মুসল্লি নিয়ে ঈদের দিন সকাল সাড়ে ৮টায় ঈদের প্রধান জামাত হবে জাতীয় ঈদগাহে। জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে সকাল ৭টা থেকে ১১টা পর্যন্ত ঈদের মোট পাঁচটি জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

প্রতিবারই সর্বসাধারণের আগ্রহের কেন্দ্রে থাকেন দেশের শীর্ষস্থানীয় ও আলোচিত রাজনৈতিক নেতাদের ঈদ। কোন দলের কোন নেতা বা সরকারের কোন মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী-এমপি কোথায় ঈদ করবেন, এ নিয়ে সাধারণ মানুষের কৌতুহলের শেষ নেই। টানা তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের মন্ত্রিসভার সদস্যরা এবার কে কোথায় ঈদ করছেন।

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা যথারীতি গণভবনে ঈদ উদযাপন করবেন। মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক সকাল-বিকেল ঢাকা ও নির্বাচনী এলাকা গাজীপুর মিলিয়ে ঈদ করবেন। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এবং কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক ঈদ করবেন ঢাকায়। এরইমধ্যে নিজ নির্বাচনী এলাকায় ঈদ উপলক্ষে ঘুরে এসেছেন কৃষিমন্ত্রী, শুভেচ্ছা বিনিময় করতে যাবেন ঈদের পরদিনও। আইনমন্ত্রী আনিসুল হক ঈদ করবেন ঢাকায়।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম ঢাকায় ঈদ করেই চলে যাবেন নির্বাচনী এলাকা পিরোজপুরে।এ বছর শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির ঈদও হবে ঢাকায়। তিনি বলেন, আমার নেতাকর্মীরা যেন যার যার পরিবার ও আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে ঈদ উদযাপন করতে পারেন সেজন্য সবসময়ই আমি ঈদের প্রথম ও দ্বিতীয় দিন ঢাকায় থাকি। ঈদের তৃতীয় দিন এলাকায় সবার সঙ্গে আনন্দ ভাগাভাগি করি।

তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ নিজ নির্বাচনী এলাকা রাঙ্গুনিয়ায় ঈদ করবেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ঢাকায় তার নির্বাচনী এলাকা তেজগাঁওয়ে ঈদ করবেন। মনিপুরীপাড়ার মসজিদে ঈদের নামাজ আদায় করার কথা রয়েছে তার।

স্থানীয় সরকারমন্ত্রী তাজুল ইসলাম ঈদ করবেন নির্বাচনী এলাকা কুমিল্লার লাকসামে। পরিবেশ ও বনমন্ত্রী শাহাব উদ্দিন নির্বাচনী এলাকা মৌলভীবাজারের বড়লেখায় ঈদ করবেন।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন ঈদ করবেন নিজ এলাকায়। তিনি মেহেরপুর পৌর ঈদগাহে ঈদের নামাজ আদায় করবেন। নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী নিজ নির্বাচনী এলাকা দিনাজপুরে ঈদ উদযাপন করে ঢাকায় ফিরবেন।

পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক ঈদ করবেন নিজ নির্বাচনী এলাকা বরিশালে। পানিসম্পদ উপ-মন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম ঈদ করবেন ঢাকায়। তিনি এরইমধ্যে নির্বাচনী এলাকা শরীয়তপুর ঘুরে এসেছেন, ঈদের পরে আবারও এলাকাবাসীর মাঝে ফিরবেন।পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য নিজ নির্বাচনী এলাকা যশোরের মনিরামপুরে ঈদ উদযাপন করবেন।

অন্যদিকে আওয়ামী লীগ নেতাদের মধ্যে তোফায়েল আহমদ, মাহবুব-উল-আলম হানিফ, আব্দুর রহমান, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, আহমদ হোসেন, অসীম কুমার উকিল ও তার স্ত্রী যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক অপু উকিল, সুজিত রায় নন্দী, শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল ও আমিনুল ইসলাম আমিন নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকায় ঈদ করবেন। জাহাঙ্গীর কবির নানক, ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, বিএম মোজাম্মেল হক, ড. সেলিম মাহমুদ ঈদ উদযাপন করবেন ঢাকায়।


আরও খবর



জাকাত আদায়ের হিসাব করবেন কীভাবে

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৯ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২১ মে ২০২২ | ১০৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নবীজির (সা.) ঘোষণা অনুযায়ী, রমজানে একটি নফল ইবাদতে একটি ফরজের সমান সওয়াব পাওয়া যায়। আর একটি ফরজ ইবাদতে মেলে সত্তর গুণ সওয়াব। জাকাত যেহেতু ফরজ ইবাদত, তাই এক হাজার টাকা জাকাত হিসেবে আদায় করা হলে সত্তর হাজার টাকা জাকাত আদায়ের সওয়াব পাওয়া যায় রমজানে। এ কারণে অনেকেই জাকাত আদায়ের জন্য বেছে নেন পবিত্র রমজান মাস।

যেসব ক্ষেত্রে জাকাত দিতে হয় :

জাকাত দিতে হয় স্বর্ণের, রুপার, নগদ সম্পদের, ব্যবসায়িক সম্পদের, জমাকৃত সম্পদের, উৎপাদিত কৃষি ফসলের। চারণভূমিতে চড়ে বেড়ায় এমন গরু, ছাগল, উট, দুম্বা যখন জাকাত ফরজ হওয়ার পরিমাণে হবে তখনও জাকাত দিতে হবে। ব্যাংকে জমাকৃত যেকোনো ধরনের টাকা জাকাতের সম্পদ হিসাবে গণনায় আসবে। এমনকি ফিক্সড ডিপোজিট হলেও মূল জমাকৃত টাকার জাকাত দিতে হবে। হজের জন্য জমাকৃত টাকার জাকাত দিতে হবে। তবে হজ কর্তৃপক্ষ বা হজ এজেন্টের কাছে টাকা জমা দেওয়া হয়ে গেলে অফেরতযোগ্য টাকার জাকাত লাগবে না।

যারা শেয়ার ব্যবসা করেন তারা শেয়ারের মার্কেট ভ্যালুর ওপর জাকাত দেবেন। বীমা থেকে যখন অর্থ পাওয়া যাবে তখন বিগত বছরসহ জাকাত আদায় করতে হবে। হারিয়ে যাওয়া, চুরি বা ছিনতাই হয়ে যাওয়া সম্পদে জাকাত নেই। ফেরত পাওয়ার সম্ভাবনা নেই এমন ঋণেরও জাকাত নেই। তবে এসব ফেরত পেলে শুধু সংশ্লিষ্ট বছরের জাকাত দিতে হবে। বিগত বছরের জাকাত দিতে হবে না।

বাড়িওয়ালার কাছে অগ্রিম ভাড়া হিসাবে জমাকৃত টাকার, দোকানের জন্য জামানতের টাকার জাকাত দিতে হবে। ব্যবসার সম্পদের ক্ষেত্রে জাকাত গণনায় কারখানা বা দোকানের মেশিনারিজের মূল্য ধরা হয় না। এমনিভাবে দোকান বা অফিস ডেকোরেশনের জিনিসপত্রের মূল্য জাকাতের হিসাবে আসে না। এসব ক্ষেত্রে শুধু কোম্পানি, কারখানা বা দোকানের আয় জাকাতের সম্পদ হিসেবে গণ্য হবে। কারখানার কাঁচামাল যেমন প্রেসের কালি, বস্ত্রকলের তুলা-সুতার মূল্যের জাকাত দিতে হবে।

বাড়ি ভাড়া দিলে শুধু ভাড়া থেকে আয়ের ওপর জাকাত দিতে হবে। বাড়ির মূল্যের ওপর জাকাত নেই। গাড়ি ভাড়ার ব্যবসায়ীরা গাড়ি থেকে আয়ের ওপর জাকাত দেবেন। গাড়ির মূল্যের ওপর জাকাত নেই। তবে যারা গাড়ি বিক্রির ব্যবসা করেন তারা গাড়ির মূল্যের ওপর জাকাত দেবেন। এমনিভাবে ফ্ল্যাট ও প্লট ব্যবসায়ীরাও ফ্ল্যাট ও প্লটের মূল্যের ওপর জাকাত দেবেন। নিজে ব্যবহারের জন্য প্লট কেনার জন্য টাকা জমা করলে বা কিস্তি দিলে যেহেতু তখনও সেই টাকার মালিক নিজেই থাকে তাই তা জাকাতের সম্পদ হিসেবে গণ্য হবে। তবে জমি ক্রয় চূড়ান্ত হয়ে গেলে সেই জমির মূল্যের জাকাত দিতে হবে না।

মুরগির ফার্ম থেকে ডিম উৎপাদন উদ্দেশ্য হলে ডিমের মূল্যের জাকাত দিতে হবে। মুরগির মূল্যের জাকাত দিতে হবে না। মুরগি এ ক্ষেত্রে কারখানার মেশিনারিজের মতো গণ্য হবে। তবে বয়লার ফার্ম হলে যাতে মুরগির বাচ্চা বড় করা হয় তাতে উৎপাদিত-পালিত মুরগির বাচ্চার মূল্যের জাকাত দিতে হবে। ফিসারিজের জন্য ভাড়াকৃত বা ক্রয়কৃত জমি বা পুকুরের মূল্যের জাকাত দিতে হবে না। তবে বিক্রিত মাছের মূল্যের ওপর জাকাত আসবে।

যেসব ক্ষেত্রে জাকাত দিতে হয় না :

নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস, ব্যবহৃত কাপড়, ঘরোয়া ইলেকট্রনিক জিনিসপত্র যেমন ফ্রিজ, এসি, ফ্যান, কম্পিউটার, ওভেন, ওয়াশিং মেশিন ইত্যাদি, থাকার জন্য বাড়ি, আগামী ফসল না পাওয়া পর্যন্ত পারিবারিক খাবারের জন্য জমাকৃত ধান, গম, চাল, লেখাপড়ার জন্য বইপত্র এবং কৃষি সরঞ্জামাদি যেমন ট্রাক্টর, মাড়াই মেশিন ইত্যাদিতে জাকাত ফরজ হয় না।

জাকাতের সম্পদ থেকে যা বিয়োগ হবে :

ঋণের টাকায় জাকাত ওয়াজিব হয় না। বরং জাকাতের হিসাব করার সময় জাকাতযোগ্য সম্পদের হিসাব থেকে ঋণের টাকা বা সম্পদ বিয়োগ হবে। তবে দীর্ঘমেয়াদি ঋণ হলে শুধু আগামী এক বছরে প্রদেয় ঋণের টাকা বিয়োগ হবে। ব্যবসার সম্পদে জাকাত হিসাব করার সময় মহাজন বা মাল সরববাহকারীকে প্রদেয় টাকা বা সম্পদ বাদ যাবে। ডায়মন্ডের অলঙ্কার ব্যবহার করলে জাকাত দিতে হয় না। তবে ডায়মন্ডের ব্যবসায়ীরা ডায়মন্ডের মূল্যের জাকাত দেবেন।

ব্যবসায়িক সম্পদে ২.৫ ভাগ জাকাত দিতে হয়। ব্যবসার উদ্দেশ্যে কোনো বস্তু ক্রয় করার পর তা ব্যক্তিগত ব্যবহারে নিলে তার জাকাত দিতে হবে না। আবার ব্যক্তিগত ব্যবহারের ইচ্ছায় ক্রয়কৃত কোনো বস্তু নিয়ে ব্যবসা করার ইচ্ছা করলেই তা ব্যবসায়িক বস্তু হবে না। যখন তা বিক্রি করবে তখনই তা ব্যবসায়িক বস্তু হিসেবে গণ্য হবে। কোনো বস্তু বা অলঙ্কার বন্ধক রেখে টাকা উঠালে বন্ধকি বস্তু জাকাতের হিসাবে আসবে না। প্রভিডেন্ট ফান্ডে যা বাধ্যতামূলকভাবে কেটে নেওয়া হয়, এর জাকাত দিতে হয় না। যদি নিজের পক্ষ থেকে অতিরিক্ত টাকা কাটানো হয় বা জমা রাখা হয় তাহলে অতিরিক্তের ওপর জাকাত আসবে।

মোট জাকাতযোগ্য সম্পদ থেকে যা বিয়োগ দেওয়ার থাকে তা বিয়োগ করে মোট প্রদেয় জাকাতের সম্পদের ৪০ ভাগের ১ ভাগ বা ২.৫ ভাগ টাকা বা সম্পদ সারা বছরে জাকাত দিতে হবে।


আরও খবর