Logo
শিরোনাম

হাসপাতালের করিডরে ডিএমসির ডাক্তারদের নাচের ভিডিও ভাইরাল

প্রকাশিত:বুধবার ২৮ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ | ৭২৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

করোনায় রোগীদের সঙ্গে চিকিৎসকদের অবস্থাও করুণ। বিভিন্ন প্রতিকূলতা ও সীমাবদ্ধতার মধ্যেও মানুষের প্রাণ বাঁচাতে লড়ে যাচ্ছেন ডাক্তাররা। এই শীতল পরিবেশের মধ্যে জীবনের উষ্ণতা নিয়ে এসেছে সম্প্রতি ভাইরাল হওয়া ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ডিএমসি) হাসপাতালের তিন চিকিৎসকের নাচের একটি ভিডিও।

জানা যায়, সারাক্ষণ করোনা ওয়ার্ডে কর্মরত চিকিৎসক ও সেবাদানকারীদের উৎসাহ দিতে এই ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছেন তিন ডাক্তার। ডিউটির ফাঁকে ডা. শাশ্বত চন্দন, ডা. আনিকা ও ডা. দীপা বিশ্বাস এই নাচের আয়োজন করেন।

ভিডিওতে দেখা যায়, হাসপাতালের করিডরে এই তিন চিকিৎসক মুখে মাস্ক দিয়ে সিলেট অঞ্চলের একটি বিয়ের গীতের তালে তালে নৃত্যছন্দে মেতে ওঠেন।

এ বিষয়ে ডা. শাশ্বত চন্দন বলেন, আমরা চেষ্টা করেছি আমাদের নাচের মাধ্যমে এই করোনার দুঃসময়ে ডাক্তাররা যেন উৎফুল্ল হন এবং অনুপ্রেরণা পান।

কিছুদিন আগে করোনার সংক্রমণে হিমশিম খাওয়া ভারতের কেরালার দুই চিকিৎসকের বনি এমের গানের তালে নাচের ভিডিও ভাইরাল হয়।



আরও খবর



বেড়েছে সবজি-ডিমের দাম

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ | ৩৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বাজারে দাম বেড়েছে সবজি ও ডিমের। আটার দাম কমেছে। এছাড়া বাজারে অপরিবর্তিত আছে অন্য সব পণ্যের দাম। শুক্রবার (২৭ জানুয়ারি) সকালে রাজধানীর মিরপুরের ১১ নম্বর বাজার ঘুরে এ চিত্র উঠে এসেছে।

বাজারে দাম বেড়েছে  শীতকালীন সবজির। আকার ভেদে বাঁধাকপি ও ফুলকপি বিক্রি হচ্ছে ৪০-৫০ টাকায়। শসা প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০-৬০ টাকায়। লম্বা ও গোল বেগুনের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০-৭০ টাকা। টমেটো বিক্রি হচ্ছে ৫০-৬০ টাকা। 

বাজারে শিমের কেজি ৪০-৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। করলা ১০০-১১০ টাকা, চাল কুমড়া প্রতিটি ৫০-৬০ টাকা, লাউ প্রতিটি আকারভেদে বিক্রি হচ্ছে ৮০-১০০ টাকায়, মিষ্টি কুমড়ার কেজি ৪০-৫০ টাকা, চিচিঙ্গা ৬০, পটল ৬০, ঢেঁড়স ৬০, কচুর লতি ৭০-৮০, পেঁপে ৩০-৪০, বরবটি ৮০-১০০ ও ধুন্দুল ৬০-৭০ টাকা কেজি। 

বাজারে কাঁচামরিচ প্রতিকেজি বিক্রি হচ্ছে ১০০ থেকে ১২০ টাকায়। আগে কাঁচামরিচের কেজি ছিল ৮০ থেকে ৯০ টাকা। এছাড়া বাজারে কাঁচকলার হালি বিক্রি হচ্ছে ২০-৩০ টাকায়। লেবুর হালি বিক্রি হচ্ছে ২০ টাকা।

১১ নম্বর বাজারের সবজি বিক্রেতা মো. রাজু  বলেন, বাজারে সবজির দাম উঠা-নামার মধ্যে থাকে। এ সপ্তাহে সবজির দাম বেড়েছে। সাধারণত শীতের মৌসুম শেষের দিকে সবজির দাম কম থাকে। কিন্তু উৎপাদন ও পরিবহন খরচ বেড়ে যাওয়ায় দাম বেড়েছে। 

এদিকে নতুন পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩৫ থেকে ৪০ টাকা।

মসলার বাজারে দাম বেড়েছে রসুনের। প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ১২০-১৫০ টাকায়। দেশি আদা ১২০-১৫০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। চায়না আদার কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৩০ থেকে ২৪০ টাকা। 

বাজারে আলুর কেজি এখন ২৫ থেকে ৩০ টাকা। খোলা চিনির দাম বেড়েছে। প্রতি কেজি ১১৫ থেকে ১২০ টাকা।

প্রায় বেশিরভাগ পণ্যের দর বৃদ্ধির মধ্যে বাজারে কমেছে কেবল আটার দাম।

খোলা আটার কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকা। প্যাকেট আটার কেজি ৬৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আগে কেজি ছিল ৭০ টাকা। ২ কেজির প্যাকেট আটা বিক্রি হচ্ছে ১৩০ টাকায়। আগে কেজির প্যাকেট ছিল ১৪০-১৪৫ টাকা।

এসব বাজারে দেশি মসুরের ডালের কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৪০ টাকা। ইন্ডিয়ান মসুরের ডালের কেজি ১২০-১২৫ টাকা।

বাজারে সয়াবিন তেলের লিটার বিক্রি হচ্ছে ১৮৭ টাকা।  লবনের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩৮-৪০ টাকা।

দাম বেড়েছে ফার্মের মুরগির ডিমের দামও। ডজন বিক্রি হচ্ছে ১২৫ টাকায়। এক সপ্তাহ আগে ডজন বিক্রি হত ১১৫ টাকায়। হাঁসের ডিমের ডজন বিক্রি হচ্ছে ২১০-২২০ টাকা। দেশি মুরগির ডিমের ডজন ১৮০-১৯০ টাকা।

১১ নম্বর বাজারের ডিম বিক্রেতা মো. আশিক বলেন, ডিমের দাম অল্প বেড়েছে। লাল ফার্মের মুরগির হালি বিক্রি হচ্ছে ৪২ টাকা গত সপ্তাহে ছিল ৩৮ টাকা টাকা। আর ডজন বিক্রি হচ্ছে ১২৫ টাকায়। ডিমের উৎপাদন কম থাকায় দাম বেড়েছে।

বাজারে গরুর মাংসের কেজি ৬৮০-৭০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। খাসির মাংসের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৯০০-১০০০ টাকায়। 

আগে দামেই রয়েছে মুরগির। ব্রয়লার মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা। সোনালি মুরগির দাম কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৫০-২৬০ টাকা। লেয়ার মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ২১০-২২০ টাকায়।  

নিউজ ট্যাগ: সবজি-ডিম

আরও খবর

তিন বছরের মধ্যে অ্যাপলের বিক্রিতে বড় পতন

শুক্রবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩




নারীদের সম্পৃক্ত করে উন্নত দেশ গড়তে সরকার কাজ করছে: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:সোমবার ২৩ জানুয়ারী 20২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ | ৪০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নারী সমাজকে মূলধারায় সম্পৃক্ত করে উন্নত দেশ গড়ার সরকার কাজ করছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সরকার নারী সমাজকে সঙ্গে নিয়েই বাংলাদেশকে উন্নত দেশের দিকে নিয়ে যাবে।

রোববার (২২ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় এশিয়ান ইউনিভার্সিটি অব উইমেনের (এইউডব্লিউ) কাউন্সিল অব প্যাট্রনস-এর একটি প্রতিনিধি দল সংসদ ভবনে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করতে গেলে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।

প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন বিশ্ববিদ্যালয়টির চ্যান্সেলর চেরি ব্লেয়ার। পরে প্রধানমন্ত্রীর স্পিচ রাইটার মো. নজরুল ইসলাম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০২৬ সালে বাংলাদেশ চূড়ান্তভাবে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হবে। আমরা আরও এগিয়ে যাব। সেটা মাথায় রেখেই আমরা আমাদের সমস্ত উন্নয়ন কর্মসূচি প্রণয়ন করছি। আমরা নারীদের সম্পৃক্ত করে এগিয়ে যাব।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সবার জন্য খাদ্য, শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবাসহ দেশের সার্বিক উন্নয়ন নিশ্চিত করাই তার সরকারের প্রধান লক্ষ্য।

এ প্রসঙ্গে তিনি এইউডব্লিউ প্রতিনিধি দলকে এমন শিক্ষাক্রম প্রণয়ন করতে বলেন- যা শিক্ষার্থীদের উদ্যোক্তা এবং ভবিষ্যতের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় দক্ষ মানবসম্পদ হিসেবে গড়ে তুলবে।

তিনি বলেন, শুধু সাধারণ শিক্ষা নয়, এমন শিক্ষা প্রদান করুন যা তাদের দক্ষ করে তুলবে, বেকার তৈরি করবে না।

এই বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য তিনি জমি দান করেছেন বলেও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী । তিনি বলেন, যে কোনো দেশের উন্নয়নের জন্য নারী শিক্ষা অপরিহার্য। তিনি সংক্ষিপ্তভাবে তার সরকারের গৃহীত বিভিন্ন কর্মসূচি তুলে ধরেন।

বৈঠকে আফগানিস্তানের প্রসঙ্গ এলে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইসলামের নামে নারীদের শিক্ষা বন্ধ করার কোনো সুযোগ নেই।

তিনি আরও উল্লেখ করেন যে, ইসলাম সর্বদা নারী ও পুরুষের সমান অধিকারের কথা বলে।

এ প্রসঙ্গে রাজনীতিতে যুক্ত হওয়ার  সময় নারী নেতৃত্ব নিয়ে নিজে তীব্র বিরোধিতার সম্মুখীন হয়েছেন বলেও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।

আফগানিস্তান প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, বর্তমান আফগান সরকার জোর করে সে দেশের নারী শিক্ষা বন্ধ করে দিচ্ছে।

তিনি বলেন, পুরো বিশ্ব এটি প্রত্যক্ষ করছে, কেউ এর বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছে না। দেশ ও জনগণের উন্নয়নে নিজের  জীবন উৎসর্গ করেছেন বলেও উল্লেখ করেন শেখ হাসিনা।

রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তার সরকার রোহিঙ্গা শিশুদের তাদের নিজ ভাষায় শিক্ষার ব্যবস্থা করেছে।

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো.তোফাজ্জল হোসেন মিয়া, পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন ও এইউডব্লিউর উপাচার্য ড. রুবানা হক এ সময় উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর

গণতন্ত্র সূচকে দুই ধাপ এগিয়ে ৭৩তম বাংলাদেশ

শুক্রবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩




চীনের শিল্পোৎপাদন কার্যক্রম সংকুচিত হয়েছে

প্রকাশিত:বুধবার ০৪ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০২ ফেব্রুয়ারী 2০২3 | ৪৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

চীনের কারখানা কার্যক্রমে নিম্নমুখী প্রবণতা অব্যাহত রয়েছে। ডিসেম্বরে এ নিয়ে টানা তৃতীয় মাসের মতো দেশটির শিল্পোৎপাদন কার্যক্রম সংকুচিত হয়েছে। গত মাসে এ সংকোচনের হারও প্রায় তিন বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ ছিল। হঠাৎ করে জিরো কোভিড নীতি থেকে বেরিয়ে এসেও সংকটের মুখোমুখি হয়েছে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতি। দেশজুড়ে ছড়িয়ে পড়া করোনা সংক্রমণ উৎপাদন কার্যক্রমকে বিপর্যয়ের দিকে ঠেলে দিয়েছে।

চীনের পরিসংখ্যান অফিস ন্যাশনাল ব্যুরো অব স্ট্যাটিসটিকস (এনবিএস) জানিয়েছে, সরকারি ম্যানুফ্যাকচারিং পারচেজিং ম্যানেজারস ইনডেক্স (পিএমআই) ডিসেম্বরে ৪৭ পয়েন্টে নেমেছে। নভেম্বরেও এ হার ৪৮ পয়েন্ট ছিল। এর আগে দুই মাস সংকোচনের পর সেপ্টেম্বরে ইতিবাচক অবস্থানে ফিরেছিল দেশটির শিল্পোৎপাদনের এ সূচক। এরপর আবারো তা নেতিবাচক অবস্থানে চলে  গেছে। গত মাসে চীনের উৎপাদন খাতের এ সংকোচন অর্থনীতিবিদদের পূর্বাভাসের চেয়ে তীব্র ছিল। রয়টার্সের জরিপে অর্থনীতিবিদরা এটি ৪৮ পয়েন্টে অপরিবর্তিত থাকার পূর্বাভাস দিয়েছিলেন। পিএমআই ৫০ পয়েন্টের নিচে সংকোচন এবং এর ওপরে প্রসারিত হওয়ার ইঙ্গিত দেয়।

ডিসেম্বরের শুরুর দিকে কঠোর জিরো কোভিড নীতি থেকে হঠাৎ সরে আসার ঘোষণা দেয় বেইজিং। পাশাপাশি প্রায় তিন বছর ধরে চালিয়ে আসা গণপরীক্ষা কার্যক্রমও বন্ধ করে দিয়েছে দেশটি। এ অবস্থায় নতুন শনাক্ত চিহ্নিত করার পদক্ষেপও থমকে  গেছে। লকডাউন ও বিধিনিষেধ তুলে দেয়ায় দেশটির ব্যবসায়িক পরিস্থিতি উন্নত হওয়ার আশা করা হয়েছিল। তবে এর পরই দেশটিতে ভয়াবহ আকারে ছড়িয়ে পড়ছে সংক্রমণ। কিছু অনুমান বলছে, বর্তমানে দেশটিতে দ্রুত কোভিড সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ছে। ফলে চীনের ১৪০ কোটি জনসংখ্যার ৬০ শতাংশ পর্যন্ত সংক্রমিত হতে পারে। যুক্তরাজ্যভিত্তিক স্বাস্থ্য তথ্য সংস্থা এয়ারফিনিটির তথ্য অনুসারে, ডিসেম্বরে ক্রমবর্ধমান সংক্রমণ সম্ভবত ১ কোটি ৮৬ লাখে পৌঁছেছে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, দেশজুড়ে ছড়িয়ে পড়া সংক্রমণ সাময়িকভাবে শ্রম ঘাটতি এবং সরবরাহ ব্যবস্থায় ব্যাঘাত ঘটাচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে প্রতিষ্ঠানগুলো উৎপাদন সক্ষমতা কমিয়ে আনতে বাধ্য হয়েছে। কিছু প্রতিষ্ঠান সাময়িকভাবে বন্ধও করা হয়েছিল। যেমন ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে সাংহাইয়ের কারখানা বন্ধ রেখেছিল টেসলা। মার্কিন বিদ্যুৎচালিত গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি চলতি মাসেও গাড়ি উৎপাদন কমিয়ে আনার পরিকল্পনা করেছে। পাশাপাশি হ্রাসকৃত উৎপাদন সময়সূচি চালিয়ে যাওয়া হবে।

বিশ্বজুড়ে ক্রমবর্ধমান সুদের হার, মূল্যস্ফীতি ও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের মধ্যে বৈশ্বিক মন্দার ঝুঁকি এরই মধ্যে চাহিদা দুর্বল করে দিয়েছে। এ পরিস্থিতি চীনের রফতানিকে আরো কমিয়ে দিতে পারে। ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হবে দেশটির বিশাল উৎপাদন খাত। বাধাগ্রস্ত হবে অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার। সরবরাহ ব্যবস্থাবিষয়ক একটি পরামর্শক প্রতিষ্ঠান টাইডালওয়েভ সলিউশনের একজন অংশীদার ক্যামেরন জনসন বলেন, বেশির ভাগ কারখানায় ক্রয়াদেশ কমে গেছে। সুতরাং চীনে বিধিনিষেধ তুলে নেয়া হলেও উৎপাদন খাত ধীর হয়ে যাচ্ছে। কারণ বাকি বিশ্বের অর্থনীতি ধীর হয়ে যাচ্ছে। পরিস্থিতি এমন যে কারখানায় শ্রমিক থাকবে কিন্তু তাদের হাতে কোনো ক্রয়াদেশ থাকবে না।

এনবিএস জানিয়েছে, উৎপাদন খাতের ৫৬ দশমিক ৩ শতাংশ প্রতিষ্ঠান করোনা সংক্রমণের কারণে ডিসেম্বরে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার কথা জানিয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত প্রতিষ্ঠানের এ হার আগের মাসের তুলনায় ১৫ দশমিক ৫ শতাংশ পয়েন্ট বেশি। তবে বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠান আশা করছে, পরিস্থিতি ধীরে ধীরে উন্নতি হবে। গত সপ্তাহে দেশটির ব্যাংকিং ও বীমা নিয়ন্ত্রক প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল, ক্যাটারিং ও পর্যটন খাতের ছোট এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোয় আর্থিক সহায়তা বাড়ানো হবে। বিশেষ করে মহামারীতে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোকে ঘুরে দাঁড়াতে এ সহায়তা দেয়া হবে।

এদিকে উৎপাদন খাতের পাশাপাশি চীনের পরিষেবা কার্যক্রমেও বড় ধরনের পতন হয়েছে। এনবিএসের তথ্য অনুসারে, পরিষেবা খাতের পিএমআই ডিসেম্বরে ৪১ দশমিক ৬ পয়েন্টে নেমেছে। নভেম্বরে এ সূচক ৪৬ দশমিক ৭ পয়েন্টে ছিল। গত মাসের পিএমআই ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারির পর সর্বনিম্ন। এছাড়া উৎপাদন ও পরিষেবা খাত অন্তর্ভুক্ত থাকা সরকারি কম্পোজিট পিএমআই নভেম্বরের ৪৭ দশমিক ১ থেকে কমে ডিসেম্বরে ৪২ দশমিক ৬ পয়েন্টে নেমেছে।

অর্থনীতি গবেষণা প্রতিষ্ঠান ক্যাপিটাল ইকোনমিকসের প্রধান এশীয় অর্থনীতিবিদ মার্ক উইলিয়ামস বলেন, ইংরেজি নববর্ষের আগের সপ্তাহগুলো চীনের পরিষেবা খাতের জন্য চ্যালেঞ্জিং ছিল। কারণ ধারণা করা হচ্ছে, লোকেরা সংক্রমণের ভয়ে বাড়ির বাইরে যেতে এবং প্রয়োজনের চেয়ে বেশি ব্যয় করতে অনাগ্রহী ছিল। তবে নববর্ষের ছুটিতে এ পরিস্থিতি পরিবর্তন হওয়া উচিত।


আরও খবর

যুক্তরাষ্ট্রের আকাশে চীনা গোয়েন্দা বেলুন

শুক্রবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩




খুলনাকে বড় ব্যবধানে হারিয়ে শীর্ষস্থান ধরে রাখল সিলেট

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩১ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ | ৩৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ক্রমেই কঠিন হয়ে যাচ্ছে খুলনা টাইগার্সের বিপিএলে প্লে অফ খেলার স্বপ্ন। আগের ম্যাচে সহজ জয় থেকে বঞ্চিত হওয়া খুলনা আজও (৩০ জানুয়ারি) হেরেছে। সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে স্বাগতিকদের কাছে হারের মধ্য দিয়ে খুলনার প্লে অফে যাওয়ার সম্ভাবনা ফিকে হয়ে যাচ্ছে।

অন্যদিকে খুলনাকে আজ ৩১ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়ে প্রথম দল হিসেবে প্লে অফে নিজেদের জায়গা নিশ্চিত করে ফেলেছে মাশরাফী বিন মোর্ত্তজার সিলেট স্ট্রাইকার্স। সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে এদিন টসে হেরে আগে ব্যাটিং করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ১৯২ রান করতে পারে।

জবাবে লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৯ উইকেটে খুলনা তুলতে পারে মোটে ১৬১ রান। খুলনার বিপক্ষে জিতে ১০ ম্যাচ থেকে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষস্থান আরও পোক্ত করে শেষ চারে চলে গেলেন মাশরাফীরা। অন্যদিকে খুলনা ৮ ম্যাচ থেকে সংগ্রহ করতে পেরেছে মাত্র ৪ পয়েন্ট।

লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে এই ম্যাচেও বাজে শুরু করে খুলনা। মাত্র ২০ রানের মধ্যে দুই ওপেনারকে হারিয়ে ফেলে দলটি। বালবির্নি ৭ এবং তামিম ১২ রান করে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন। এরপর তিনে নেমে শেই হোপ ঝড় তোলে আশা জাগান খুলনার ভক্তদের মুখে। তবে ২২ বলে ২টি করে চার-ছয়ে ৩৩ রান করে হোপ প্যাভিলিয়নে ফিরলে খুলনার হোপও কমে যায় অনেকাংশে।

চারে নেমে মাহমুদুল হাসান জয় বিশাল লক্ষ্য তাড়া করতে গিয়ে ধীরে খেলেন। ২১ বলে ২০ রান করে ফিরে যান তিনি। পাঁচে নেমে আজম খানও এদিন ঝড় তোলেন। মাত্র ১৭ বলে ৪টি চার ও ২টি ছয়ে ৩৩ রান করে আজম ফিরলে খুলনার জয়ের আশা থেমে যায় একেবারেই।

শেষ দিকে আর কোনো ব্যাটসম্যানই বলার মতো কোনো রানই করতে পারেনি খুলনার জন্য। বরং সিলেটের বোলাররা ছড়ি ঘুরাতে থাকে। এই ম্যাচে সুযোগ পেয়ে সিলেটের রুবেল হোসেন ৪ উইকেট শিকার করেছেন ৩৭ রানের বিনিময়ে। রুবেল ছাড়াও আমির এবং রেজাউর রাজা ২টি করে উইকেট শিকার করেন।

এর আগে তৌহিদ হৃদয় এবং জাকির হাসানের অসাধারণ ব্যাটিংয়ে বিশাল স্কোর দাঁড় করায় সিলেট। দুই উদীয়মান তারকাই ঝড়ো ইনিংস খেলে ফিফটি পূর্ণ করেন। দুইজনে দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে যোগ করেন ১১৪ রান। সিলেটের পক্ষে সর্বোচ্চ ৭৪ রান করেন তৌহিদ। তাও মাত্র ৪৯ বলে ৯ চারের সুবাদে। ১৫১ স্ট্রাইক রেটে।

অন্যদিকে ১৩৯ স্ট্রাইক রেটে জাকির হাসান করেন ৫৩ রান। ৩৮ বলে ২টি চার ও ৪টি ছয়ের মাধ্যমে। এই দুই ব্যাটসম্যান ছাড়া নিচের দিকে নেমে ব্যাট হাতে ঝড় তোলেন রায়ান বার্ল এবং থিসারা পেরেরাও। বার্ল মাত্র ১১ বলে ১টি চার ও ২ ছয়ে করেন অপরাজিত ২১ রান। পেরেরার ব্যাট থেকে আসে ৭ বলে ২টি চার ও ১টি ছয়ে অপরাজিত ১৭ রান।


আরও খবর



আল্লাহ নিজ হাতে গজব না ফেললে দেশে দুর্ভিক্ষ হবে না : খাদ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ২৫ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ | ৩৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আল্লাহ নিজ হাতে গজব না ফেললে দেশে দুর্ভিক্ষ হবে না জানিয়ে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেছেন, দেশে চালের সর্বকালের সর্বোচ্চ মজুত আছে, দুর্ভিক্ষ হবে না। হওয়ার কোনো চান্স নেই। যদি আল্লাহ নিজ হাতে গজব না ফেলেন। বুধবার রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে জেলা প্রশাসক সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনের দ্বিতীয় অধিবেশন শেষে এসব কথা বলেন তিনি।

মন্ত্রী আরও বলেন, আমনটা ভালো হয়েছে। আমন যেখানে প্রতি বিঘা জমিতে ১৫ থেকে ১৬ মণ হতো, সেখানে এবার ২০ থেকে ২৫ মণ হয়েছে। তাছাড়া সামনে আবার বোরোর আবাদ। বোরোর ফলনও ভালো হবে। অতএব শঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই। তবে গ্লোবালি যে মার্কেট বৃদ্ধি আছে সেটার সঙ্গে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশকেকেও চলতে হবে।

চালের এত মজুত তবুও দাম কমছে না কেন- জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, চালের দাম যাদের জন্য অসহনীয় তাদের জন্য ওএমএস, খাদ্যবান্ধব ভিজিডি, ভিজিএফ আছে। অতএব শঙ্কিত হওয়ার কারণ নেই। সবাই ভালো আছে। তবে খাদ্যের অপচয় যেন রোধ হয় সেদিকে সবাইকে লক্ষ্য রাখতে হবে। কারণ অনেক বিয়ে বাড়িতে ১৫ থেকে ২০ পারসেন্ট খাবার নষ্ট হয়। এগুরো রোধ করতে হবে।


আরও খবর

গণতন্ত্র সূচকে দুই ধাপ এগিয়ে ৭৩তম বাংলাদেশ

শুক্রবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩