Logo
শিরোনাম

হাতীবান্ধায় বিজিবির মারমুখী আচরণের প্রতিবাদে মানববন্ধন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২৫ নভেম্বর ২০২৩ | ১৯৮৫জন দেখেছেন
Image

লালমনিরহাট প্রতিনিধি:

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় সীমান্তবর্তী লোকজনের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের ও হয়রানীসহ বিজিবির মারমুখী আচারণের প্রতিবাদে একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার নেতৃত্বে সীমান্ত এলাকায় বসবাসরত স্থানীয় লোকজন মানববন্ধন ও সংবাদ সম্মেলন করেছেন।

মঙ্গলবার (১ ফেব্রুয়ারি)  সকালে ওই উপজেলার টংভাঙ্গা ইউনিয়নের বাড়াইপাড়ার কানীপাড়া এলাকায় এ মানববন্ধন ও সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধন ও সংবাদ সম্মেলন থেকে সিঙ্গিমারী বিজিবি ক্যাম্পের নায়েক সুবেদার মফিদুল ইসলাম ও বড়খাতা বিজিবি ক্যাম্পের হাবিলদার শহিদুল ইসলামের প্রত্যাহারের দাবী তুলেন সীমান্তবাসী স্থানীয়জনতা।

বীর মুক্তিযোদ্ধা মফিজুল ইসলাম খোকা ও স্থানীয় বাসিন্দা রেজাউল ইসলাম মানববন্ধন ও সংবাদ সম্মেলনে জানান, সিঙ্গিমারী বিজিবি ক্যাম্পের কয়েকজন সদস্য বেশ কিছু দিন ধরে সীমান্তবর্তী লোকজনের সাথে মারমুখী আচারণ করে আসছে। গত ২৪ জানুয়ারী কোনো কারণ ছাড়াই ওই এলাকার তছলিম উদ্দিনের পুত্র হাফিজুল ইসলামকে তাদের নিজ জমি থেকে ধরে নিয়ে গিয়ে তার কাছে ভারতীয় মোবাইল সিম পাওয়া গেছে এমন অভিযোগে একটি মিথ্যা মামলা দিয়ে থানায় দেন করেন।

এ ঘটনার প্রতিবাদ করায় গত ২৯ জানুয়ারী বড়খাতা ইউনিয়নের পুর্ব সারডুবী এলাকার একটি মাদকের মামলায় হাফিজুলের ছোট ভাই হাবিবুর রহমানকেও আসামী করেন। যার সাথে বাস্তবতার কোনো মিল নেই।

সীমান্তবাসীর অভিযোগ, সিঙ্গিমারী বিজিবি ক্যাম্পের নায়েক সুবেদার মফিদুল ইসলাম ও বড়খাতা ক্যাম্পের হাবিলদার শহিদুল ইসলামসহ কয়েকজন বিজিবি সদস্যের মারমুখী আচরণ ও মিথ্যা মামলা দায়েরসহ হয়রানীর ঘটনায় সীমান্তবাসী নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। যে কারণে নায়েক সুবেদার মফিদুল ইসলাম ও হাবিলদার শহিদুল ইসলামের প্রত্যাহারের দাবী তুলেছেন স্থানীয়রা।

তবে এ বিষয়ে সিঙ্গিমারী বিজিবি ক্যাম্পের নায়েক সুবেদার মফিদুল ইসলাম দাবী করেন তাদের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ তোলা হয়েছে তা মিথ্যা। সুনিদিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে তাদের আটক করে মামলা দায়ের করা হয়েছে।


আরও খবর