Logo
শিরোনাম

হিজাব পুড়িয়ে বিক্ষোভ করছেন ইরানের নারীরা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ সেপ্টেম্বর 20২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২ | ৪৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

হিজাব আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে আটক নারীর পুলিশ হেফাজতে মৃত্যুর ঘটনায় ইরানে চলমান বিক্ষোভের সামনের সারিতে রয়েছেন দেশটির নারীরা। মঙ্গলবার সারি এলাকায় বিক্ষোভকারীদের জ্বালানো আগুনে নারীরা যখন হিজাব পুড়াচ্ছিলেন তখন সমবেতরা উল্লাসধ্বনি করেন। বিক্ষোভ টানা পঞ্চম রাতেও চলমান এবং বিভিন্ন শহরে ছড়িয়ে পড়েছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এখবর জানিয়েছে।

অ্যাক্টিভিস্টরা বলছেন, ইরানের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় উর্মিয়া ও পিরানশাহর এলাকায় নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে দুই পুরুষ বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছে। দক্ষিণে শিরাজ এলাকায় পুলিশের এক সহকারী নিহতের খবর পাওয়া গেছে। হিজাব আইনবিরোধী চলমান বিক্ষোভে এখন পর্যন্ত ছয়জন নিহত হয়েছে ধারণা করা হচ্ছে।

হিজাব আইন লঙ্ঘনের দায়ে ইরানের নৈতিকতা পুলিশ ২২ বছর বয়সী কুর্দি নারী মাশা আমিনিকে আটক করে। তিন দিন কোমায় শুক্রবার (১৬ সেপ্টেম্বর) হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। নৈতিকতা পুলিশ যখন তাকে তেহরানে গ্রেপ্তার করে তখন সঙ্গে ছিলেন তার ভাই। আমিনির বিরুদ্ধে হিজাব আইন লঙ্ঘনের অভিযোগ আনে নৈতিকতা পুলিশ। কারাগারে লুটিয়ে পড়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই তিনি কোমায় চলে যান।

জাতিংঘের ভারপ্রাপ্ত মানবাধিকার কমিশনার নাদা আল-নাশিফ বলেছেন, আমিনির মাথায় পুলিশ ব্যাটন দিয়ে আঘাত করা ও গাড়িতে মাথা চেপে ধরার অভিযোগ পাওয়া গেছে। পুলিশের পক্ষ থেকে এসব অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। তাদের দাবি, হঠাৎ করে আমিনির হৃদযন্ত্র বিকল হয়ে যায়। যদিও তার পরিবারের দাবি, তিনি সুস্থ ও সবল ছিলেন। 

ইরানের কুর্দি এলাকায় সক্রিয় নরওয়েভিত্তিক একটি মানবাধিকার সংস্থা জানিয়েছে, পিরানশাহর ও উর্মিয়া এলাকায় মঙ্গলবার বিক্ষোভে গুলি চালিয়েছে নিরাপত্তা বাহিনী। এতে ১৬ বছর বয়সী এক কিশোর ও ২৩ বছর বয়সী এক যুবক নিহত হয়েছে। এর আগে সোমবার নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে তিন পুরুষ বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছেন। আমিনির শহর সাকেজে একজন, অপর দুইজন দিভানদারেহ ও দেহগোলান এলাকায়। এর আগে আরেক ব্যক্তি নিহতের কথা জানিয়েছিল সংস্থাটি। কিন্তু ওই ব্যক্তির পরিবার জানিয়েছে, আহত ব্যক্তির অবস্থা আশঙ্কাজনক, এখনও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা ইরনা এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর শিরাজে পুলিশের আহত এক সহকারীর মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে হিজাব আইনবিরোধী চলমান বিক্ষোভ হয়েছে ১৫টি শহরে। এর মধ্যে রয়েছে রাজধানী তেহরান, মাশহাদ, রাশত, কেরমান, ইসফাহান। বিক্ষোভকারীরা সড়ক অবরোধ করে, পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ এবং পুলিশের গাড়িতে অগ্নিসংযোগ করেছে। বিক্ষোভ দমনে পুলিশ টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ ও বেশ কয়েকজনকে আটক করেছে।

বিক্ষোভের প্রকাশিত ভিডিওতে দেখা গেছে, রাজধানী তেহরানে নারীরা নিজেদের হিজাব খুলে ফেলছেন এবং স্বৈরাচার নিপাত যাক বলে স্লোগান দিচ্ছেন। অন্যরা ন্যায়বিচার, মুক্তি ও হিজাব পরার বাধ্যবাধকতা প্রত্যাহারের স্লোগান দিয়েছেন। সোমবার রাশত শহরে বিক্ষোভে অংশ নিয়ে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে অল্প আহত এক নারী বিবিসিকে বলেছেন, পুলিশ টিয়ারগ্যাস নিক্ষেপ করেই যাচ্ছিল। আমাদের চোখে জ্বালা করছিল। আমরা পালাচ্ছিলাম। কিন্তু তারা আমাদের ঘিরে ফেলে এবং মারধর করে। তারা আমাকে একজন পতিতাও বরেছে।

ইসফাহানে বিক্ষোভে অংশ নেওয়া অপর এক নারী বিবিসিকে বলেন, আমরা যখন হিজাব হাতে নিয়ে ওড়াচ্ছিলাম তখন আমি আপ্লুত হয়ে পড়ি। আমাদের চারপাশে তখন পুরুষরা ছিলেন, তারা আমাদের রক্ষা করছিলেন। এটি বড় ধরনের ঐক্যের অনুভূতি। আমার আশা বিশ্ব আমাদের সমর্থন করবে। তেহরানের গভর্নর মোহসেন মনসৌরি মঙ্গলবার টুইটারে বলেছেন, অস্থিতিশীলতা তৈরির এজেন্ডা নিয়ে বিক্ষোভ পরিচালনা করা হচ্ছে।

নিউজ ট্যাগ: হিজাব বিতর্ক

আরও খবর

‘হাসি’ মানুষের সবচেয়ে ভালো ওষুধ

শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২




আজারবাইজানের সাথে যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করল আর্মেনিয়া

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ০৫ অক্টোবর ২০২২ | ৪৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নাগরনো-কারাবাখ নিয়ে আবারও যুদ্ধে জড়িয়েছে প্রতিবেশী দুই দেশ আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান। ইতোমধ্যে এই লড়াই উভয় পক্ষের ১৫৫ জন সেনা নিহত হয়েছেন। এমন পরিস্থিতিতে উভয় দেশের মধ্যে যুদ্ধবিরতিতে পৌঁছানোর ঘোষণা দিয়েছে আর্মেনিয়া। যদিও এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানায়নি আজারবাইজান।

আল-জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আর্মেনিয়ার নিরাপত্তা পরিষদের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা আরমেন গ্রিগরিয়ান টেলিভিশনে যুদ্ধ বিরতির ঘোষণা দিয়েছেন। তিনি বলেন, গতকাল বুধবার স্থানীয় সময় রাত ৮টা থেকে এটি কার্যকর হয়েছে। আজারবাইজান এবং আর্মেনিয়া আলোচনা করেই এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে।

ধারণা করা হচ্ছে, রাশিয়ার মধ্যস্থতায় যুদ্ধবিরতি হয়েছে। গ্রিগরিয়ানের ঘোষণার কয়েক ঘণ্টা আগে আর্মেনিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছিল গোলাগুলি বন্ধ হয়ে গেছে। তবে, তখন যুদ্ধবিরতির চুক্তির কথা উল্লেখ করা হয়নি। চুক্তির বিষয়ে আজারবাইজানের রাজধানী বাকু থেকে এখন পর্যন্ত আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসেনি।

প্রসঙ্গত, ২০২০ সালে নাগরনো-কারাবাখ নিয়ে ৬ সপ্তাহের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে জড়ায় প্রতিবেশী দুই দেশ। এতে আর্মেনিয়ার বিপুল ক্ষয়ক্ষতি ও প্রাণহানি হয়। বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, সিক্স ডে ওয়ার নামে পরিচিত ওই ঘটনায় ৬ হাজার ৭০০ মানুষ নিহত হন।


আরও খবর

‘হাসি’ মানুষের সবচেয়ে ভালো ওষুধ

শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২




আমানতের সুদ হারে ক্যাপ প্রত্যাহার চায় এফবিসিসিআই

প্রকাশিত:বুধবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ | ৪৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আমানতের সুদের ওপর নির্ধারিত ৭ শতাংশ সুদের হারের বিধান বাতিল চায় দেশের ব্যাংক বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো। বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) বিকালে এফবিসিসিআইর নন-ব্যাংকিং ফিন্যান্সিয়াল ইনস্টিটিউশন সংক্রান্ত স্ট্যান্ডিং কমিটির প্রথম বৈঠকে এ দাবি জানান এই খাত সংশ্লিষ্টরা।

সভায় বক্তারা জানান, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনা অনুযায়ী আমানতের ওপর গ্রাহকদের ৭ শতাংশের বেশি সুদ দিতে পারছে না ব্যাংক বহির্ভূত প্রতিষ্ঠানগুলো। অন্যদিকে ব্যাংকগুলো বাড়তি সুদে আমানত সংগ্রহ করছে। এতে অসম প্রতিযোগিতায় পড়ছে নন-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো।

এছাড়াও তারা জানান, কোভিড পরিস্থিতি মোকাবিলায় ঋণ খেলাপি সংক্রান্ত নীতিতেও ব্যাংকগুলো বাড়তি সুবিধা পাচ্ছে। অন্যান্য আর্থিক প্রতিষ্ঠানকেও একই সুবিধার দাবি জানান তারা। ব্যাংক বহির্ভূত প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য পুন:অর্থায়ন তহবিলের আকার আরও বাড়ানোর আহ্বান করেন কমিটির সদস্যরা।

বৈঠকে উঠে আসা দাবির সঙ্গে একমত প্রকাশ করে এফবিসিসিআই সভাপতি জসিম উদ্দিন বলেন, সুদের সর্বোচ্চ হারের ব্যাপারে বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে শিগগিরই আলোচনা করবে এফবিসিসিআই। এ ছাড়াও ব্যাংক ও ব্যাংক বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নীতি সহায়তায় পার্থক্য থাকা উচিত নয় বলে মন্তব্য করেন এফবিসিসিআই সভাপতি।

শিল্পে দীর্ঘমেয়াদী ঋণের প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্ব আরোপ করে সভাপতি বলেন, এক্ষেত্রে ব্যাংক বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো ভূমিকা রাখতে পারে। এসময় এসব প্রতিষ্ঠানকে প্রান্তিক উদ্যোক্তা ও এসএমই খাতে ঋণ অর্থায়নে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান জসিম উদ্দিন।

সীমিত নীতি সহায়তার মধ্যেও দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও শিল্পায়নে ব্যাংক বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানের অবদানের কথা তুলে ধরেন কমিটির ডিরেক্টর ইন চার্জ এস এম জাহাঙ্গীর আলম (মানিক)। তিনি বাংলাদেশ ব্যাংককে সমান নীতি সহায়তা দেওয়ার আহ্বান জানান।

বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন কমিটির চেয়ারম্যান উত্তরা ফিন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডের ভাইস চেয়ারম্যান মতিউর রহমান।

সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন কমিটির কো চেয়ারম্যান মমিনুল ইসলাম, মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন, কান্তি কুমার সাহা, অন্যান্য সদস্য, এফবিসিসিআইর পরিচালক রেজাউল করিম রেজনু, বিজয় কুমার কেজরিওয়াল ও মহাসচিব মাহফুজুল হক।


আরও খবর

৩১ ডিসেম্বরের পর পাম অয়েল বিক্রি বন্ধ

বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২




ভারতে উৎপাদিত আইফোনের দাম কী কম হবে

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ | ৫৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

চীনে আইফোন উৎপাদন নিয়ে বেশ ঝুঁকিতে রয়েছে টেক জায়ান্ট অ্যাপল। ঝুঁকি হ্রাসেই ভারতে আইফোন ১৪এর উৎপাদন শুরু করতে যাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। আইফোনের সাপ্লাই চেইন চীন থেকে সরিয়ে নিয়ে নিজেদের সরবরাহ ব্যবস্থা ঠিক রাখতেই এই উদ্যোগ। তবে ভারতে উৎপাদন শুরু করলেও এই অঞ্চলে কী আইফোনের দাম কমবে?

মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন নিউজের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অ্যাপলের অধিকাংশ ফোনই উৎপাদিত হয় চীনে। কিন্তু অ্যাপলের সাম্প্রতিক সিদ্ধান্ত অনুসারে প্রতিষ্ঠানটি তাদের সর্বশেষ মডেলের ফোন তৈরি করতে যাচ্ছে ভারতে। স্থানীয় সময় সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) প্রতিষ্ঠানটি এক বিবৃতিতে বলেছে, যুগান্তকারী প্রযুক্তি এবং গুরুত্বপূর্ণ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে বাজারে এসেছে আইফোন ১৪। আমরা ভারতে আইফোন ১৪ উৎপাদন শুরু করতে পেরে আনন্দিত। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়া টুডের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আইফোনের মোট উৎপাদনের ২৫ শতাংশই নিয়ে আসা হবে ভারতে।

প্রাথমিকভাবে ভারতের চেন্নাইয়ে অ্যাপলের ফোনগুলো উৎপাদন করবে তাইওয়ানের প্রতিষ্ঠান ফক্সকন, উইসট্রন এবং পেগাট্রন। তবে সাধারণত অ্যাপল তাদের নতুন মডেলের ফোন বাজারে ছাড়ার ঘোষণা দেওয়ার সাত থেকে আট মাস পর ভারতে উৎপাদন শুরু করে। তবে এবার আইফোন ১৪ বাজারে ছাড়ার ঘোষণা দেওয়ার ৩ সপ্তাহের মাথায় এই ঘোষণা দিল বলে সিএনএনকে জানিয়েছেন বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান কাউন্টারপয়েন্টের পরিচালক তরুণ পাঠক।

তবে যাই হোক না কেন, ভারতে আইফোনের উৎপাদন শুরু হলেও দাম কমবে কিনা সে নিয়ে রয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। ভারতে মাত্র চার ভাগের একভাগ উৎপাদন করা হবে এবং এখানেও উৎপাদন করতে গিয়ে গুরুত্বপূর্ণ অনেক যন্ত্রাংশের জন্য অ্যাপলকে চীন নির্ভরই থাকতে হবে। ফলে ভারত কিংবা আশপাশের দেশগুলোতে অ্যাপলের দাম কমার কোনো সম্ভাবনা দেখেন না বিশেষজ্ঞরা।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আউটলুক ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভারতে যেসব ফোন বাইরে থেকে আনা হয় সেগুলোর ওপর একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ কাস্টম শুল্ক আরোপ করা হয়। কিন্তু ভারতে উৎপাদন করা হলে সেই শুল্ক দিতে হবে না। সেই বিবেচনায় দাম অনেকটা কমে আসতে পারে। তবে, তা আসলে কতটা কমে সেটাই প্রশ্ন। কারণ, অ্যাপল সাধারণত বিশ্বের অন্যান্য অঞ্চলের সঙ্গে উৎপাদক দেশে আইফোনের দামের পার্থক্য করে না।

দাম না কমার পেছনে আরও একটি কারণ সামনে এনেছে আউটলুক। তাদের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অ্যাপল ভারতে উৎপাদন করলেও সারা দেশে এমনকি বিশ্বজুড়ে বিপণনের জন্য তৃতীয় একটি পক্ষকে বেছে নেয়। ফলে তাদের লভ্যাংশ বিবেচনায় নিলেও দাম কমার সম্ভাবনা অনেকটাই হ্রাস পায়। তবে শেষ পর্যন্ত ভারত এবং আশপাশের দেশগুলোতে আইফোনের দাম বিশেষ করে নতুন মডেল আইফোন ১৪ এর দাম কমবে কিনা এবং কমলে কতটা কমবে তা আসলে পুরোপুরি নির্ভর করছে অ্যাপলের সিদ্ধান্তের ওপর।

নিউজ ট্যাগ: আইফোন আইফোন ১৪

আরও খবর

‘হাসি’ মানুষের সবচেয়ে ভালো ওষুধ

শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২




বনজ কুমারের বিরুদ্ধে বাবুল আক্তারের মামলার আবেদন খারিজ

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ০৫ অক্টোবর ২০২২ | ৪৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পিবিআই প্রধান বনজ কুমারসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে রিমান্ডে নির্যাতনের অভিযোগে সাবেক পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের মামলার আবেদন খারিজ করে দিয়েছে আদালত।

রোববার (২৫ সেপ্টেম্বর) মহানগর দায়রা জজ ড. বেগম জেবুননেছার আদালত দীর্ঘ শুনানি শেষে আবেদন খারিজ করে দেন।

রোববার মহানগর দায়রা জর্জ ড. জেবুননেছার আদালত দীর্ঘ আদেশে বলেন, মিতু হত্যা মামলায় যেহেতু চার্জশিট হয়ে গেছে। তাই আবেদনটি আমলে নেয়ার কোনো যৌক্তিকতা না থাকায় খারিজ করা হলো।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী এইচ এম জিয়া উদ্দীন বলেন, মামলা চলাকালে বাবুল আক্তার নির্যাতনে বিষয়ে কোনো কথা বলেনি। এছাড়া মামলার চার্জশিটও হয়ে গেছে। এসব বিষয় মাথায় নিয়ে আবেদন খারিজ করেন আদালত।

এদিকে উচ্চ আদালতে যাওয়ার কথা জানান বাবুল আক্তারের আইনজীবী এডভোকেট গোলাম মওলা মুরাদ।

গত ৮ সেপ্টেম্বর পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ মহাপরিদর্শক বনজ কুমার মজুমদারসহ ছয় পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বাবুল আক্তার মামলার আবেদন করেন।

মামলায় অন্যরা হলেন- পিবিআই চট্টগ্রাম জেলার এসপি মো. নাজমুল হাসান, মেট্রো এসপি নাঈমা সুলতানা, খুলশী থানার ওসি সন্তোষ কুমার চাকমা, সিএমপির ডিবি বন্দর জোনের সহকারী কমিশনার একেএম মহিউদ্দিন সেলিম ও পিবিআই চট্টগ্রাম জেলার ইন্সপেক্টর কাজী এনায়েত কবির।

আবেদনে বলা হয়, স্ত্রী হত্যা মামলায় ২০২১ সালের ১০ মে থেকে ১৭ মে পর্যন্ত সময়ে পিবিআই চট্টগ্রাম মেট্রো ও জেলা অফিসে বাবুল আক্তারের উপর নির্যাতন করা হয়। স্ত্রী হত্যার ঘটনায় মিথ্যা স্বীকারোক্তি দিতে করা হয় বাবুল আক্তারের সঙ্গে নিষ্ঠুর আচরণ। আবেদনটি গ্রহণ করে আদেশের অপেক্ষায় রাখেন আদালত।

২০১৬ সালে ৫ জুন চট্টগ্রামে দুর্বৃত্তের ছুরিকাঘাতে খুন হন মিতু। হত্যাকাণ্ডে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ এনে পাঁচলাইশ থানায় একটি হত্যা মামলা করেন বাবুল আক্তার নিজেই। কিন্তু সময়ের সাথে নাটকীয়তায় মামলার গতিপথ বদলে সন্দেহের কেন্দ্রবিন্দুতে চলে আসেন খোদ বাবুল আক্তার নিজেই।


আরও খবর

৩১ ডিসেম্বরের পর পাম অয়েল বিক্রি বন্ধ

বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২




জাপানের মধ্যাঞ্চলে টাইফুনের আঘাত, দুই জনের প্রাণহানি

প্রকাশিত:শনিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ | ৩০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

জাপানের মধ্যাঞ্চলে ঘূর্ণিঝড় টাইফুনের আঘাতে অন্তত দুইজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) ঘূর্ণিঝড় দেশটির কয়েকটি এলাকায় তাণ্ডব চালায়। এর জেরে দেড় লাখের মতো পরিবার বিদ্যুৎহীন অবস্থায় আছেন। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ঘূর্ণিঝড়ে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে রাজধানী টোকিওর দক্ষিণ-পশ্চিমের শহর শিজুওকা। জাপানের আবহাওয়া সংস্থা (জেএমএ) জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) বৃষ্টি শুরু হওয়ার পর থেকে ৪১৭ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে সেখানে। টাইফুনের কারণে প্রতি ঘণ্টায় বাতাসের গতিবেগ ৬৫ কিলোমিটার থেকে সর্বোচ্চ ৯০ কিলোমিটার পর্যন্ত ছিল।

প্রবল বৃষ্টির ফলে ভূমিধসে ৪০ বছর বয়সী একজনের প্রাণহানি হয়েছে। পানিতে ডুবে থাকা অবস্থায় একটি গাড়ির ভেতর থেকে ২৯ বছর বয়সী একজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

প্রায় দেড় লাখের মতো পরিবার বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েছে বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্টরা। দ্রুত বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া লাইন মেরামত করার কথাও জানিয়েছেন তারা। সেন্ট্রাল রেল সার্ভিস বিভাগ কিছু বুলেট ট্রেন পুনরায় চালু করেছে। গত শুক্রবার থেকে ভারি বৃষ্টির কারণে ট্রেন চলাচল বন্ধ ছিল।

জেএমএ শনিবার সকালে শিজুওকায় আরও প্রবল বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে এবং ভূমিধস ও বন্যার জন্য সতর্কতা জারির আহ্বান জানিয়েছে। টোকিও থেকে প্রায় ৩০ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থিত ইয়োকোহামা শহর থেকে তিন হাজার বাসিন্দাকে সরিয়ে নেওয়ার কথা জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।


আরও খবর

‘হাসি’ মানুষের সবচেয়ে ভালো ওষুধ

শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২