Logo
শিরোনাম

ইন্টারনেট ছাড়া ইউটিউব ভিডিও দেখার ৩ উপায়

প্রকাশিত:সোমবার ২৩ জানুয়ারী 20২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ৩০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ভিডিও স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম ইউটিউবের জনপ্রিয়তা এখন সারাবিশ্বেই। প্রতিদিন বিশ্বব্যাপী কয়েকশো কোটি গ্রাহক এই প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করেন। শুধু বিনোদনের জন্যই নয় কন্টেন্ট তৈরি করে হাজার হাজার টাকা ইনকাম করা যায় ইউটিউব থেকে। ইউটিউব দেখতে আপনার স্মার্টফোনে ইন্টারনেট কানেকশন থাকতে হবে, একথা সবারই জানা। তবে সব সময় হয়তো ইন্টারনেট থাকে না। অনেক সময় স্লো ইন্টারনেট কানেকশনের কারণে ভিডিও স্ট্রিমিং বন্ধ করে দিতে হয়। তবে ইউটিউবের ভিডিও দেখতে পারবেন ইন্টারনেট ছাড়াই।

৩ উপায়ে আইফোন ও অ্যান্ড্রয়েড উভয় গ্রাহকরা অফিশিয়াল ইউটিউব অ্যাপ থেকেই অফলাইনে প্রায় সব ভিডিও দেখার সুযোগ পাবেন। চলুন দেখে নেওয়া যাক কীভাবে ইন্টারনেট কানেকশন ছাড়াই অফলাইনে ইউটিউবে ভিডিও দেখবেন-

ইউটিউব প্রমিয়াম: আপনি যদি ইউটিউব প্রিমিয়ামের সদস্য হন তাহলে খুব সহজেই ইন্টারনেট ছাড়াই ইউটিউবের ভিডিও দেখতে পাবেন। এটিকে অনেকেই রেড বা লাল ইউটিউব বলেন। মূলত ইউটিউব প্রিমিয়ামের সদস্য হলে ইউটিউব আইকনের ব্যাকগ্রাউন্ড সাদার পরিবর্তে লাল দেখায়। ইউটিউব প্রিমিয়ামের সদস্য হওয়ার পর ভিডিও ডাউনলোড করে নিতে পারেন অনলাইনে। এরপর অফলাইনে এগুলো দেখতে পাবেন।

থার্ড পার্টি অ্যাপ: থার্ড পার্টি অ্যাপ ব্যবহার করতে পারেন। এর মাধ্যমে ইউটিউবের পছন্দের নাটক, সিনেমা বা গানের ভিডিও ডাউনলোড করে সংরক্ষণ করতে পারেন। এরপর যে কোনো সময় সেই ভিডিও দেখে নিতে পারবেন। পিসি এবং ম্যাকে ৪কে ভিডিও ডাউনলোডার ব্যবহার করতে পারেন। ৪কে ভিডিও ডাউনলোডার একটি বিনামূল্যের অ্যাপ যা আপনাকে ইউটিউব থেকে আপনার ডেস্কটপ বা ম্যাকবুকে ভিডিও ডাউনলোড করতে দেয়। তবে অফিসিয়াল ওয়েবসাইট ছাড়া অন্য কোনো উৎস থেকে ৪কে ভিডিও ডাউনলোডার ডাউনলোড করবেন না।

ইউটিউব অ্যাপ: আপনার নিজের ফোন থেকেই ইউটিউবের অ্যাপ থেকে ভিডিও ডাউনলোড করতে পারবেন। এজন্য প্রথমে নিজের ফোনের ইউটিউব অ্যাপ ওপেন করুন। হোম পেজে ডান দিকে উপরে সার্চ আইকনে ট্যাপ করুন। এবার যে ভিডিও অফলাইনে দেখতে চান সেই ভিডিওটি সার্চ করুন। ভিডিও স্ট্রিমিং শুরু হলে নিচে ডাউনলোড আইকনে ট্যাপ করুন। এরপরে ডাউনলোডের কোয়ালিটি বেছে নিন। এবার অফলাইনে ইউটিউবের হোম পেজ থেকে ডাউনলোড অপশনে গিয়ে ভিডিও দেখতে পারবেন। সংরক্ষণ করতে পারবেন যতদিন ইচ্ছা।

নিউজ ট্যাগ: ইউটিউব

আরও খবর



নতুন বছরে ব্যবসার ১০টি ট্রেন্ড

প্রকাশিত:বুধবার ২৮ ডিসেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২৫ জানুয়ারী ২০২৩ | ৫৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কয়েক দিন পরেই শুরু হবে নতুন বছর। নতুন আশা নতুন উদ্দীপনা নিয়ে হাজির হচ্ছে ২০২৩ সাল। তবে অতীতের কিছু ক্ষত বয়ে নিতে হবে তাকেও। ২০২২র মতো ইউক্রেন যুদ্ধ ও করোনাভাইরাস মহামারি থাকবে আগামী বছরেও। ভোগ্যপণ্যের চড়া দামে উৎপাদকরা উপকৃত হলেও খাদ্য অনিশ্চয়তা বাড়বে। বৈশ্বিক জিডিপি বৃদ্ধির হার ২০২৩ সালে ১ দশমিক ৬ শতাংশে নেমে আসবে। মূল্যস্ফীতির হার ছয় শতাংশের ওপরে থাকায় ক্ষতির মুখে পড়ে বহু অর্থনীতি। দেখে নেওয়া যাক ২০২২ সালে ঘটে যাওয়া এমন ১০টি ঘটনা বা বিষয়, যা ২০২৩ সালে বৈশ্বিক অর্থনীতির সম্ভাব্য গতিনির্ধারক হয়ে উঠতে পারে-

১. ২০২২ সালে মূল্যস্ফীতি মোকাবিলায় যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভসহ পশ্চিমা কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলো সুদের হার বাড়িয়েছে। তবে আর্থিক নীতি শিথিল রেখেছিল চীন।

২. মূল্যস্ফীতি সংকট ক্রেতা ও খুচরা বিক্রেতাদের ক্ষতি করেছে, এমনকি ই-কমার্স খাতের প্রবৃদ্ধিতেও স্থবিরতা নেমেছে। সার্বিক বেচাকেনায় অনলাইনের অংশ বেড়ে ১৪ শতাংশে পৌঁছেছে, যা ২০১৯ সালের তুলনায় ১০ শতাংশ বেশি।

৩. করোনাভাইরাস আরও অনেকের প্রাণ নিয়েছে। কিন্তু এর সংখ্যা ফ্লুতে মৃতের সংখ্যার চেয়ে অর্ধেকেরও নিচে নেমে এসেছে।

৪. এশিয়ার ক্রমবর্ধমান জ্বালানি ক্ষুধা বিশ্বব্যাপী তেলের চাহিদা ১ দশমিক ৫ শতাংশ বাড়িয়ে প্রাক-মহামারির মাত্রা ছাড়িয়ে যেতে সাহায্য করেছে। ওপেক নামমাত্র উৎপাদন বাড়ানোয় দামও কিছুটা কমেছে।

৫. মন্দার ঝুঁকি এবং সুদের হার বৃদ্ধি সত্ত্বেও প্রযুক্তি খাতে ব্যয় ছয় শতাংশের বেশি বেড়েছে। যন্ত্রাংশ বিক্রি হতাশ করলেও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার বাজার ফুলেফেঁপে ৫০ হাজার কোটি মার্কিন ডলারে পৌঁছেছে।

৬. নতুন সাবস্ক্রাইবার পাওয়া দুঃসাধ্য এবং প্রতিদ্বন্দ্বীদের সঙ্গে প্রতিযোগিতা কঠিন হয়ে উঠলেও স্ট্রিমিং কোম্পানিগুলো কন্টেন্ট তৈরিতে মোটা অংকের বিনিয়োগ অব্যাহত রেখেছে। যেমন- নেটফ্লিক্স বার্ষিক ১ হাজার ৭০০ কোটি ডলার খরচের পরিকল্পনায় অনড় ছিল।

৭. ২০২২ সালে নতুন গাড়ি বিক্রি বেড়েছে মাত্র এক শতাংশ। কিন্তু বৈদ্যুতিক গাড়ি বিক্রির হার বেড়েছে ২৫ শতাংশ।

৮. প্রতিরক্ষা খাতে বিশ্বের বৃহত্তম খরুচে দেশ যুক্তরাষ্ট্র ২০২২ সালে বাৎসরিক ব্যয় ৮০ হাজার কোটি ডলারে উন্নীত করেছে, যা চীনের তুলনায় তিনগুণ বেশি। কিন্তু মূল্যস্ফীতির সঙ্গে সামঞ্জস্য করতে গিয়ে সংকুচিত হয়েছে মার্কিনিদের বাজেট।

৯. নিত্যপণ্যের দামে ঊর্ধগতি থেমেছে। এটি বহু কোম্পানির পাশাপাশি বিশ্বের ৮০ কোটি ক্ষুধার্ত মানুষকে কিছুটা হলেও স্বস্তি দিয়েছে।

১০. আন্তর্জাতিক আগমন ৩০ শতাংশ বেড়ে যাওয়ায় আকাশভ্রমণ লাভজনক হয়ে উঠেছে। কিন্তু এখনো তা প্রাক-মহামারি মাত্রার নিচে। অনেক ব্যবসায়িক ভ্রমণকারী সশরীরে যাওয়ার পরিবর্তে অনলাইনে সাক্ষাৎ পদ্ধতি বেছে নিয়েছেন।

নিউজ ট্যাগ: করোনাভাইরাস

আরও খবর



মেট্রোরেল চালুতে সারা দেশ খুশি হলেও বিএনপি খুশি হতে পারেনি : তথ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ২৮ ডিসেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩ | ৪৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ঢাকায় মেট্রোরেল চালু হওয়ায় সারা দেশের মানুষ খুশি হলেও বিএনপি খুশি হতে পারেনি বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। আজ বুধবার বিকেলে রাজধানীর কাকরাইলে বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের অনুদান চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, 'ভুল, অসত্য তথ্য নিয়ে গতকাল বিএনপি নেতা নজরুল ইসলাম খান সংবাদ সম্মেলন করলেন, বিভিন্ন দেশের মেট্রোর ভাড়া নিয়ে তিনি মিথ্যা তথ্য পরিবেশন করেছেন। আজকে পুরো দেশ খুশি অথচ তারা খুশি হতে পারছে না। এই যে রাজনৈতিক দৈন্য, এটি দেশের উন্নয়ন-অগ্রগতির ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধক।'

তিনি বলেন, আমি সাংবাদিক ভাইদের অনুরোধ জানাব, দায়িত্বশীলদের যেমন সমালোচনা হবে, যারা বিরোধী দলে থাকে তাদেরও একটা দায়িত্ব থাকে তাদেরও সমালোচনা হওয়া প্রয়োজন। আপনারা দুটি বিষয়ই দেখবেন।

'আওয়ামী লীগ সরকার সাংবাদিকদের একচোখা নীতি নিয়ে দেখে না এবং যে সাংবাদিকরা জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে সরকারকে টেনে নামানোর আন্দোলনে ব্যস্ত, তাদেরও সরকারের অনুদান দেওয়া হয় এবং হচ্ছে' উল্লেখ করেন তথ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, 'বিএনপির আমলে ২০০১ সালে কলমের এক খোঁচায় বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার ২৬ জন সাংবাদিককে বরখাস্ত করা হয়েছিল, অথচ আওয়ামী লীগ আমলে ভিন্নমতের জন্য একজন সাংবাদিককেও বরখাস্ত করা হয়নি। সব সাংবাদিকের জন্য গণমাধ্যমবান্ধব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সৃষ্ট সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্ট দল-মত নির্বিশেষে সব সাংবাদিককে সহায়তা দিচ্ছে।'

সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সুভাষ চন্দ বাদলের সভাপতিত্বে জাতীয় প্রেস ক্লাব সভাপতি ফরিদা ইয়াসমীন, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) মহাসচিব দীপ আজাদ, সাবেক সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ, ভোরের কাগজ সম্পাদক শ্যামল দত্ত, দৈনিক সংবাদের ব্যবস্থাপনা সম্পাদক কাশেম হুমায়ুন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



৭ মাত্রার ভূমিকম্পে কেঁপে উঠল ইন্দোনেশিয়া

প্রকাশিত:বুধবার ১৮ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩ | ২৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

শক্তিশালী এক ভূমিকম্পে পূর্ব ইন্দোনেশিয়া কেঁপে ওঠে। তাৎক্ষণিকভাবে কোনো ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি এবং কোনো সুনামির সতর্কতা জারি করা হয়নি।আজ বুধবার (১৮ জানুয়ারি) ৭ মাত্রার ভূমিকম্পের পর কিছু বাসিন্দা বাড়ি ছেড়ে পালানোর চেষ্টা করেন।

মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ জানিয়েছে যে এটি উত্তর মালুকু প্রদেশের টোবেলো থেকে ১৫০ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে সমুদ্রের তলদেশে ৬০ কিলোমিটার গভীরে ঘটেছে।

ইন্দোনেশিয়ার আবহাওয়া, জলবায়ুবিদ্যা এবং জিওফিজিক্স এজেন্সি সুনামির কোনো সতর্কতা জারি করেনি। হনলুলুতে প্রশান্ত মহাসাগরীয় সুনামি সতর্কীকরণ কেন্দ্র সংক্ষিপ্তভাবে বলেছে যে নিকটবর্তী ইন্দোনেশিয়ান উপকূলে একটি সম্ভাব্য হুমকি রয়েছে কিন্তু কিছু পরেই বিজ্ঞপ্তিটি তুলে নেয়।

টোবেলোর বাসিন্দা পিয়াস ওহোইউতুন বলেছেন যে ভূমিকম্পের সময় কিছু মানুষ বাড়ি থেকে দ্রুত বের হয়ে যান।ওহোইউতুন বুধবার জানান, আমি কিছুটা কম্পন অনুভব করেছি। কেউ কেউ বাড়ি ছেড়ে পালানোর চেষ্টা করে। বুধবার সকালে পূর্ব ইন্দোনেশিয়ায় ৬.১ মাত্রার একটি ভূমিকম্পও অনুভূত হয়। কোনো ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি।


আরও খবর



চবি ছাত্রলীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষ, আহত ৩

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৬ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২৫ জানুয়ারী ২০২৩ | ৫৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

শাটল ট্রেনে কথা-কাটাকাটির জের ধরে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) শাখা ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় এখনো পর্যন্ত তিনজন আহত হয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। আজ বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেলস্টেশনে সংঘর্ষ শুরু হয়। রাত পৌনে ১১টায় এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত দুপক্ষের সংঘর্ষ চলছিল।

বিবাদমান গ্রুপ দুইটি হলো-ভিএক্স ও সিক্সটি নাইন গ্রুপ। গ্রুপ দুইটিই নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের অনুসারী হিসেবে ক্যাম্পাসে পরিচিত।

জানা যায়, শহর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে আসা রাতের শাটল ট্রেনে ভিএক্স গ্রুপের কর্মীদের সঙ্গে সিক্সটি নাইন গ্রুপের কর্মীদের কথা-কাটাকাটি হয়। এর জের ধরে শাটল ট্রেন বিশ্ববিদ্যালয় স্টেশন পৌঁছার পর ভিএক্স গ্রুপের কর্মীরা সোহরাওয়ার্দী হল ও সিক্সটি নাইন গ্রুপের কর্মীরা শাহজালাল হলের সামনে অবস্থান নেয়। পরে দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা-ধাওয়া শুরু হয়। এ সময় উভয় পক্ষ একে অপরের দিকে ইট-পাটকেল ছুড়তে থাকে। এই ঘটনায় উভয় পক্ষের তিনজন আহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

জানতে চাইলে ভিএক্স গ্রুপের নেতা ও শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি প্রদীপ চক্রবর্তী দুর্জয় বলেন, জুনিয়রদের মধ্যে ঝামেলা হয়েছে। আমরা বসে মীমাংসা করে নেব।’

তবে এ বিষয়ে জানতে সিক্সটি নাইন গ্রুপের নেতা ও শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন টিপুর সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসা কেন্দ্রের প্রধান চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. আবু তৈয়ব বলেন, সংঘর্ষে এখন পর্যন্ত তিনজন চিকিৎসা নিতে এসেছেন। এদের মধ্যে একজনের অবস্থা গুরুতর। বাকি দুজন চিকিৎসা নিয়ে চলে গেছে। গুরুতর আহত শিক্ষার্থীকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’

বিশ্ববিদ্যালয় পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মিজানুর রহমান বলেন, দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। দুই পক্ষ এখনও আছে, আমারা তাদের থামানোর চেষ্টা করছি। ঘটনাস্থলে পুলিশ ও প্রক্টরিয়াল বডি আছে।’


আরও খবর

কড়াইয়ের গরম তেলে পড়ে শিশুর মৃত্যু

শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩

কুকুর বাঁচাতে গিয়ে প্রাণ গেলো যুবকের

বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩




মগজ খেকো অ্যামিবার সংক্রমণে দ.কোরিয়ায় প্রথম মৃত্যু

প্রকাশিত:বুধবার ২৮ ডিসেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩ | ৪০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দক্ষিণ কোরিয়ায় নেগেলেরিয়া ফাউলেরি বা মস্তিষ্ক খেকো অ্যামিবা থেকে প্রথম সংক্রমণের খবর পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে দেশটির স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ। এছাড়া এতে সংক্রমিত ব্যক্তিও ইতোমধ্যেই মারা গেছেন। থাইল্যান্ড থেকে দক্ষিণ কোরিয়ায় ফিরে আসার পর চলতি মাসেই মারা যান তিনি। এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, থাইল্যান্ড থেকে দক্ষিণ কোরিয়ায় ফেরার পর মারা যাওয়া কোরিয়ান নাগরিক নেগেলেরিয়া ফাউলেরিতে সংক্রমিত ছিলেন বলে নিশ্চিত করেছে কোরিয়া ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন এজেন্সি (কেডিসিএ)। মূলত নেগেলেরিয়া ফাউলেরি মানুষের মস্তিষ্ক ধ্বংস করে দেয়। পঞ্চাশোর্ধ ওই ব্যক্তি দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশ থাইল্যান্ডে চার মাস থাকার পর গত ১০ ডিসেম্বর কোরিয়ায় ফিরে আসেন এবং পরের দিন তাকে একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ইয়োনহাপ নিউজ এজেন্সি জানিয়েছে, গত সপ্তাহের মঙ্গলবার তিনি মারা যান।

১৯৩৭ সালে যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম এই সংক্রমণের বিষয়ে রিপোর্ট করা হয়েছিল এবং দক্ষিণ কোরিয়ায় নেগেলেরিয়া ফাউলেরিতে সংক্রমণের এটিই প্রথম কোনও ঘটনা। মূলত নেগেলেরিয়া ফাউলেরি হলো একটি অ্যামিবা যা সাধারণত সারা পৃথিবীতে উষ্ণ মিঠা পানির হ্রদ, নদী, খাল এবং পুকুরে পাওয়া যায়। এই অ্যামিবা সাধারণত নাক দিয়ে শ্বাস নেওয়ার সময় শরীরে প্রবেশ করে এবং মস্তিষ্কের টিস্যু ধ্বংস করতে মগজে চলে যায়।

২০২০ সালে এক প্রতিবেদনে বিবিসি জানিয়েছিল, নেগেলেরিয়া ফাউলেরি নামের আণুবীক্ষণিক এক-কোষী অ্যামিবা মানুষের মগজে সংক্রমণ ঘটিয়ে থাকে এবং এটা সাধারণত প্রাণঘাতী হয়। গরম মিষ্টি পানিতে বাস এই অ্যামিবা নাকের ভেতর দিয়ে মানুষের দেহে ঢোকে। তবে এটা একজন থেকে আরেকজনের দেহে ছড়ায় না।

কেডিসিএ বলেছে, নেগেলেরিয়া ফাউলেরিয়া মানুষ থেকে মানুষে সংক্রমণের সম্ভাবনা কম। তবে যে অঞ্চলে এই রোগটি ছড়িয়ে পড়েছে সেখানে সাঁতার কাটা থেকে স্থানীয় বাসিন্দাদের বিরত থাকতে বলা হয়ে থাকে। যুক্তরাষ্ট্র, ভারত এবং থাইল্যান্ডসহ ২০১৮ সাল পর্যন্ত বিশ্বজুড়ে নেগেলেরিয়া ফাউলেরিতে সংক্রমণের মোট ৩৮১টি ঘটনা রিপোর্ট করা হয়েছে।


আরও খবর