Logo
শিরোনাম

জামালপুরে বন্যায় ৭০ হাজার মানুষ পানিবন্দি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৩ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | ৪৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

জামালপুরের বাহাদুরাবাদ পয়েন্টে যমুনা নদীর পানি গত ঘণ্টায় ১৩ সেন্টিমিটার হ্রাস পেয়ে বিপৎসীমার ৪৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) সকালে এ দৃশ্য দেখা যায়। তবে বন্যার পানি কমতে শুরু করায় জেলার সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে।

জানা গেছে, ব্রহ্মপুত্র নদের পানি এখনো বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। সব মিলিয়ে জেলার ৬টি উপজেলার ৩২টি ইউনিয়নের প্রায় ৭০ হাজার মানুষ পানিবন্দি রয়েছে। একই সঙ্গে বন্ধ রয়েছে শতাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পাঠদান। এদিকে বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে ৪ হাজার ১০ হেক্টর ফসলি জমির আউশ, পাট, মরিচ, সবজিখেত। অন্যদিকে বন্যাদুর্গতদের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার লক্ষে ৮০টি মেডিকেল টিমের মধ্যে একটি মেডিকেল টিম কাজ করছে। এ ছাড়াও দুর্গতদের জন্য ৩৫০ টন চাল ও নগদ ৭ লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়েছে জেলা প্রশাসন।

জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন জানান, বন্যাদুর্গতদের জন্য ৩৫০ টন চাল ও নগদ ৭ লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়েছে জেলা প্রশাসন।


আরও খবর



চীনের শীর্ষ তিনটি ইভি নির্মাতার একটি বিওয়াইডি

প্রকাশিত:শনিবার ১৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ | ৫৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

মে মাসে দ্বিগুণেরও বেশি গাড়ি বিক্রি করেছে চীনা বিদ্যুচ্চালিত গাড়ি (ইভি) নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বিওয়াইডি। এর মাধ্যমে চীনের শীর্ষ তিনটি ইভি নির্মাতার একটি হয়ে উঠেছে প্রতিষ্ঠানটি। চায়না প্যাসেঞ্জার কার অ্যাসোসিয়েশনের তথ্য অনুসারে, গত মাসে বিওয়াইডি ১ লাখ ১৩ হাজার ৭৬৮ ইউনিট নতুন জ্বালানির গাড়ি বিক্রি করেছে। যদিও সে সময় কোভিড জনিত কঠোর লকডাউনের কারণে সরবরাহ চেইনে প্রতিবন্ধকতা এবং চীনাদের ভোক্তা মনোভাবে নেতিবাচক প্রভাব অব্যাহত ছিল।

ওয়ারেন বাফেটের বার্কশায়ার হ্যাথাওয়ে সমর্থিত ব্যাটারি প্রস্তুতকারক বিওয়াইডি চীনের একটি প্রধান ইভি ব্র্যান্ড হয়ে উঠেছে। প্রতিষ্ঠানটির কিছু মডেল জনপ্রিয়তায় টেসলার সঙ্গে প্রতিযোগিতা করছে। চলতি বছরের এখন পর্যন্ত বিওয়াইডি কেবল নতুন জ্বালানির যানবাহনগুলোতেই আধিপত্য বজায় রেখেছে। এর মধ্যে হাইব্রিড ও ব্যাটারিচালিত গাড়ি রয়েছে।

অ্যাসোসিয়েশনের তথ্য অনুসারে, গত মাসে চীনে সবচেয়ে বেশি বিক্রীত নতুন জ্বালানির মডেলগুলোর মধ্যে দুটিই বিওয়াইডির। এ বিক্রির মাধ্যমে চীনের যাত্রীবাহী গাড়ির বাজারে সামগ্রিকভাবে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে বিওয়াইডি। গত মাসে ১ হাজার ৫০ হাজার ৯ ইউনিট গাড়ি বিক্রি করে শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে এফএডবিøউ-ফক্সওয়াগন জোট। দুই গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের এ জোট অডি ও ফক্সওয়াগন ব্র্যান্ডের গাড়ি বিক্রি করে। গত মাসে বিওয়াইডির গাড়ি বিক্রি বেড়েছে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ১৬৯ দশমিক ৫ শতাংশ বেশি। যেখানে এফএডবিøউ-ফক্সওয়াগন জোটের গাড়ি বিক্রি ১০ দশমিক ৬ শতাংশ কমেছে। গিলির গাড়ি বিক্রি ১৪ দশমিক ৫ শতাংশ কমে ৭৩ হাজার ৩১৫ ইউনিটে দাঁড়িয়েছে। এক্ষেত্রে যাত্রীবাহী গাড়ি বিক্রির দিক থেকে সংস্থাটি তৃতীয় বৃহত্তম। গত বছরও যাত্রীবাহী গাড়ি বিক্রিতে বিওয়াইডির অবস্থান ১৩তম স্থানে ছিল।

গত মাসে বিশ্বের বৃহত্তম গাড়ির বাজারে সামগ্রিকভাবে বিক্রি কমেছে ১১ দশমিক ৮ শতাংশ। যেখানে নতুন জ্বালানির গাড়ি বিক্রি ৯১ দশমিক ২ শতাংশ বেড়েছে।

নিউজ ট্যাগ: বিওয়াইডি

আরও খবর



অর্থনীতিতে অভাবনীয় পরিবর্তন আনবে পদ্মা সেতু : শ ম রেজাউল করিম

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৩ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ জুন ২০২২ | ৭১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পদ্মা সেতু দক্ষিণাঞ্চলের অর্থনীতিতে অভাবনীয় পরিবর্তন আনবে বলে জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

আজ শুক্রবার পটুয়াখালীর কুয়াকাটায় পর্যটন হলিডে কমপ্লেক্সে বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিএফআরআই) আয়োজিত সিউইড মেলার উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের এ কথা জানান মন্ত্রী।

অনুষ্ঠানে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেন, পদ্মা সেতু দক্ষিণের জনপদের উন্নয়নে অভাবনীয় পরিবর্তন নিয়ে আসবে। এ সেতুর কারণে মানুষের জীবনমানের পরিবর্তন হবে, তাদের আধুনিক আকাঙ্ক্ষা পূরণ হবে। এ সেতু দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের জন্য আশীর্বাদ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা না থাকলে এটি কখনোই সম্ভব হতো না। প্রক্রিয়াজাতকরণের ব্যবস্থা না থাকায় এ অঞ্চলে উৎপাদিত মাছ, মাংস, দুধ, ডিমসহ অন্যান্য কৃষিসামগ্রী রাজধানী ঢাকায় পৌঁছানো বা রপ্তানির সুযোগ ছিল না। পদ্মা সেতুর সংযোগের ফলে দক্ষিণাঞ্চলে উৎপাদিত মাছসহ অন্যান্য কৃষিসামগ্রী দ্রুততার সাথে ঢাকায় যেতে পারবে। পাশাপাশি এ অঞ্চলে প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্প প্রতিষ্ঠা হবে।

এর আগে বিএফআরআই এর আয়োজনে কুয়াকাটা পর্যটন হলিডে কমপ্লেক্স মিলনায়তনে সিউইড মেলার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগদান শেষে বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে সিউইড মেলার উদ্বোধন করেন মন্ত্রী।

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. ইয়াহিয়া মাহমুদের সভাপতিত্বে উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. মুহাম্মদ ইয়ামিন চৌধুরী। অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. তৌফিকুল আরিফ ও মৎস্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক খ. মাহবুবুল হক।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে মন্ত্রী বলেন সিউইড বা সামুদ্রিক শৈবাল বাণিজ্যিক গুরুত্বসম্পন্ন একটি সমুদ্রসম্পদ। এ সম্পদ কাজে লাগাতে হবে। মানুষের পুষ্টি চাহিদা মেটাতে, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে এবং সুস্বাদু খাবারের যোগান দিতে সিউইড অত্যন্ত সহায়ক। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সিউইডের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। সিউইড পণ্যের প্রয়োজনীয়তা ও গ্রহণযোগ্যতা তারা উপলব্ধি করে। সিউইড প্রাপ্তির একটি বড় অঞ্চল কুয়াকাটা। এ অঞ্চলের পর্যটন হোটেলসহ অন্যান্য হোটেল-মোটেল সংশ্লিষ্টদের সিউইডের বিষয়ে উদ্বুদ্ধ করতে হবে। সিউইডের আহরণ ও বিপণনে যেন কোন বাধার সৃষ্টি না হয় সে বিষয়ে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে। এর আহরণ, চাষ পদ্ধতি ও গুণাবলী সবার কাছে পৌঁছে দিতে হবে।

এ সময় তিনি আরও বলেন, সুনীল অর্থনীতির অন্যতম সম্ভাবনাময় সম্পদ সিউইড। খাদ্য, ওষুধ শিল্প, প্রসাধনী শিল্পসহ নানা ক্ষেত্রে সিউইডের বহুমুখী ব্যবহার রয়েছে। এ সম্পদকে কাজে লাগিয়ে আমাদের অর্থনীতিকে সুদৃঢ় করতে হবে। বিদেশে সিউইড রপ্তানির বড় বাজার রয়েছে, সেটা আমরা ধরতে চাই। সিউইড জাতীয় অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ এখন মাছে স্বয়ংসম্পূর্ণ। সমুদ্র থেকে টুনা জাতীয় মাছ আহরণে মৎস্য অধিদপ্তর প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। বিশ্বের অন্তত ৯০টি দেশে বাংলাদেশের মাছের চাহিদা রয়েছে। পদ্মা সেতু হওয়ার কারণে দক্ষিণাঞ্চলে মাছ প্রক্রিয়াজাতকরণ ও প্যাকেটজাতকরণ শিল্প গড়ে উঠবে। বিশ্বের অনেক দেশে মাছ পাঠানো যাবে। এখান থেকে প্যাকেটজাত করে সরাসরি মাছ রপ্তানি করতে পারলে মৎস্য সংশ্লিষ্ট শিল্পেই দক্ষিণাঞ্চল এগিয়ে যাবে, এ অঞ্চলের অর্থনীতি সমৃদ্ধি হবে।


আরও খবর



‘সম্রাট পৃথ্বীরাজ’ দেখে মুগ্ধ যোগী আদিত্যনাথ

প্রকাশিত:শনিবার ০৪ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ | ৬৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

৩ জুন মুক্তি পেল বলিউডের বহু প্রতীক্ষিত সিনেমা পৃথ্বীরাজ। সম্রাট পৃথ্বীরাজের চরিত্রে অক্ষয় কুমারকে দেখতে বহুদিন ধরেই অপেক্ষায় রয়েছেন তার ভক্তরা। এরইমধ্যে উত্তরপ্রদেশ ও মধ্যপ্রদেশে করমুক্ত হলো এই সিনেমা।

সরকারের এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। বৃহস্পতিবার থেকেই উত্তরপ্রদেশে এই সিনেমা করমুক্ত করে দেওয়া হয়েছে। লক্ষ্নৌতে সিনেমার স্পেশাল স্ক্রিনিং দেখার পর এ সিদ্ধান্ত নেন যোগী আদিত্যনাথ।

সিনেমাটিকে করমুক্ত করার পেছনে যেসব কারণ রয়েছে তা হলো- করমুক্ত করা হলে বেশি মানুষ সিনেমাটি দেখার সুযোগ পাবে, এটি শিক্ষামূলক সিনেমা, তাই একে করমুক্ত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে যোগী আদিত্যনাথের সুরে সুর মিলিয়ে কথা বলেছেন মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান। 

টুইটারে তিনি লিখেছেন, যুব সমাজের প্রত্যেকের এই সিনেমা দেখা উচিত। তাই সিনেমাটি করমুক্ত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। মাতৃভূমিকে রক্ষা করার যে লড়াই, সেই অনুপ্রেরণাই প্রদান করে সম্রাট পৃথ্বীরাজের জীবন।  একই পথে হেঁটেছে উত্তরাখন্ডও। মুখ্যমন্ত্রী পুস্কর সিং ঢামিওপৃথ্বীরাজকে করমুক্ত করার কথা ঘোষণা করেছেন।

এর আগে দ্য কাশ্মির ফাইলস করমুক্ত করেছিল সরকার। কয়েকদিন আগেই সম্রাট পৃথ্বীরাজ সিনেমার নামকরণ নিয়ে আপত্তি তুলে মামলা করেছিল কর্ণি সেনা। এমনকি, এই সিনেমা মুক্তিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করার আবেদন জানানো হয়েছিল কর্ণি সেনার তরফ থেকে। ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপটে এর আগেও বহুবার ছবি তৈরি হয়েছে বলিউডে। তবে সঞ্জয়লীলা বনশালির পদ্মাবত সিনেমা যেভাবে কর্ণি সেনার রোষে পড়েছিল, সেই রকম ঘটনা অবশ্য আর ঘটেনি।


আরও খবর

২৭ বছরের সম্পর্কে ইতি টানলেন মীর!

শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২

বড় পর্দায় বাম-কংগ্রেস সন্ত্রাস

শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২




ডিপো থেকে কঙ্কাল ও মাথার খুলি উদ্ধার

প্রকাশিত:বুধবার ০৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ | ৬০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপো থেকে একটি কঙ্কাল ও মাথার খুলি উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিস। বুধবার সন্ধ্যায় কনটেইনার সরাতে গিয়ে এক জায়গায় কঙ্কাল আরেক জায়গায় মাথার খুলি পাওয়া যায়।

এর আগে সকালে চট্টগ্রাম মেডিকেলে কলেজ (চমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক ব্যক্তি মারা যায়। এ নিয়ে বিএম কনটেইনার ডিপোতে অগ্নিকাণ্ড ও বিস্ফোরণের ঘটনায় মৃত্যুর সংখ্যা ৪৫ জনে দাঁড়িয়েছে।

বুধবার ভোরে হাসপাতালের আইসিইউ চিকিৎসাধীন থাকা ওই ব্যক্তির মৃত্যু হয়। নিহত ওই ব্যক্তির নাম মাসুদ রানা (৩৪)। তিনি বিএম কনটেইনার ডিপোর অপারেটর হিসেবে কর্মরত ছিলেন। মাসুদ জামালপুর জেলার খলিলুর রহমানের ছেলে।

চমেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই আলাউদ্দিন তালুকদার বলেন, বুধবার সন্ধ্যায় ডিপো থেকে উদ্ধার করা কঙ্কাল ও পোড়া মাথার খুলি হাসপাতালে আনা হয়। এসব কঙ্কালের সঙ্গে পাওয়া যায় ফায়ার সার্ভিসের গামবুট ও হেলমেট। এ কারণে ধারণা করা হচ্ছে ওই কঙ্কালটি ফায়ার সার্ভিস কর্মীর। তবে পৃথক জায়গা থেকে উদ্ধার হওয়া মাথার খুলি ও কঙ্কাল একই ব্যক্তির কিনা সেটি নিশ্চিত নই।

তিনি আরও বলেন, গত শনিবার রাতে বিএম ডিপোতে বিস্ফোরণে অগ্নিদগ্ধ মাসুদকে গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়। তার অবস্থা শুরু থেকেই খারাপ ছিল। পাঁচদিন হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন থাকার পর বুধবার ভোরে তার মৃত্যু হয়। তার লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।


আরও খবর



অনাগত সন্তানের মুখ দেখা হলো না ইব্রাহীমের

প্রকাশিত:সোমবার ০৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ | ৫৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বাকরুদ্ধ হয়ে আছেন চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপোতে বিস্ফোরণে নিহত ইব্রাহীম হোসেনের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী মুন্নী খাতুন। মা, বাবা, বোন স্বজনদের গগণবিদারী আহাজারিতে ভারি হয়ে ওঠছে চারপাশ।

ইব্রাহীম (২৭) যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার জহুরপুর ইউনিয়নের নরসিংহপুর গ্রামের আবুল কাশেম মুন্সীর ছোট ছেলে। এই বাড়িতে চলছে এখন শোকের মাতম। কাঁদছে ইব্রাহীমের বোন সেলিনা আক্তার।

কনটেইনার ডিপোতে বিস্ফোরণে নিহত ইব্রাহীমের বোন বিলাপ করে বলছেন, আমার ভাই ভিডিও করতিছিলো! ভিডিও করতি করতি কী ছুইটে আইসে আমার ভাইর মাথায় লাইগলো রে...। মা কয়ে চিল্লেন দিয়ে আর কথা কইনি রে...। আমার ভাই কী কইরে ফুরোয়ে গেলো রে..। ভাইতো আর আসবে নারে...।

ইব্রাহীমের খালাতো ভাই শিমুল হোসেন বলেন, ইব্রাহীম শনিবার রাতে অনেকের মতো অগ্নিকাণ্ডের ভিডিও ফেসবুকে লাইভ করছিলেন। কিছু সময় পর হঠাৎ ডিপোর কনটেইনারগুলোতে বিকট শব্দে বিস্ফোরণ ঘটে। তখন থেকে ইব্রাহীমের মুঠোফোন বন্ধ ছিল। এরপর ঘটনাস্থলে গিয়ে খোঁজাখুঁজির পরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গিয়ে তার মরদেহের সন্ধান মেলে।

রোববার (৫ জুন) সকাল থেকেই প্রতিবেশি ও গ্রামের লোকজন ইব্রাহীমের বাড়িতে ভিড় করছেন। ছেলের অপেক্ষায় রয়েছেন মা দুলুপি বেগম ও বাবা আবুল কাশেম। জীবন সঙ্গীকে হারিয়ে স্ত্রী মুন্নি খাতুন যেন বাকরুদ্ধ হয়ে গেছেন। ভাই-বোনসহ অন্যান্য স্বজনদের গগণবিদারী আহাজারিতে চারপাশ ভারি হয়ে উঠেছে।

ইব্রাহীমের মা বলেন, ইব্রাহীমের সঙ্গে শনিবার রাত নয়টায় মুঠোফোনে আমাদের শেষ কথা হয়। ঈদে বাড়ি এসে সন্তানের মুখ দেখতে চেয়েছিলো সে। পুত্র সন্তান হলে মাদরাসায় পড়াতে চেয়েছিল, হাফেজ বানাবে। কিন্তু অগ্নিকাণ্ডে ইব্রাহীমের সেই স্বপ্ন শেষ হয়ে গেলো।

ইব্রাহীমের খালাতো ভাই শিমুল রোববার সন্ধ্যায় হাসপাতাল থেকে মরদেহ গ্রহণ করে যশোরের পথে রয়েছেন। আজ জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে বলে জানা গেছে।


আরও খবর