Logo
শিরোনাম

ঝিনাইদহে নিউমোনিয়া ডায়রিয়ার প্রকোপ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৬০জন দেখেছেন
Image

ঝিনাইদহে শিশুদের নিউমোনিয়া ও ডায়রিয়া রোগের প্রকোপ দেখা দিয়েছে। প্রতিদিনই ঝিনাইদহ সদর ও শিশু হাসপাতালে আক্রান্ত শিশুদের চিকিৎসা নিতে আনা হচ্ছে। হাসপাতাল দুটিতেই শিশু ওয়ার্ডে স্থান সংকুলান না হওয়ায় মেঝেতে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

ঝিনাইদহ ২৫০ শয্যা সদর হাসপাতালে শিশু ওয়ার্ডে শয্যা আছে আটটি। গতকাল সোমবার ভর্তি ছিল ১১৭ শিশু। এর মধ্যে ৯০ জন নিউমোনিয়াতে আক্রান্ত। বাকি শিশুরা ডায়রিয়াতে আক্রান্ত। এ হাসপাতালে প্রতিদিন আউটডোরে কমপক্ষে ১৫০ নিউমোনিয়া ও ডায়রিয়া আক্রান্ত শিশুকে চিকিৎসাসেবা দিতে আনা হচ্ছে। এর মধ্যে যাদের রোগ জটিল আকার ধারণ করেছে তাদের ভর্তি করা হচ্ছে। বাকিদের ব্যবস্থাপত্র ও কিছু ওষুধ দিয়ে বাড়ি পাঠানো হচ্ছে।

ঝিনাইদহ শিশু হাসপাতালে শয্যা আছে ২৫টি। গতকাল সোমবার সেখানে ৪০ জন শিশু রোগী ভর্তি ছিল। তারা সবাই নিউমোনিয়াতে আক্রান্ত। এ হাসপাতালেও প্রতিদিন নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত কমপক্ষে ১০০ শিশুকে অভিভাবকরা নিয়ে আসছেন। তাদের মধ্যে যাদের রোগ জটিল আকার ধারণ করেছে তাদের ভর্তি করা হচ্ছে। বাকিদের ব্যবস্থাপত্র ও কিছু ওষুধ দিয়ে বাড়ি পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

ঝিনাইদহ সদর উপজেলার বড় কামারকুন্ডু গ্রামের তামান্না বেগম বলেন, তার শিশুকে সাত দিন আগে সদর হাসপাতালে এনে ভর্তি করা হয়েছে। নিউমোনিয়া হয়েছে। এখনো ভালো হয়নি। তাদের গ্রামে আরো শিশু নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়েছে। শৈলকুপা উপজেলার কাতলাগাড়ি গ্রামের হজরত বিশ্বাস বলেন, তার শিশু নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হলে সদর হাসপাতালে এনে ভর্তি করা হয়েছে। এ ওয়ার্ডে ডাক্তারের অভাব রয়েছে বলে তিনি অভিযোগ করেন। তিনি ডাক্তার বাড়ানোর দাবি করেন। শিশু হাসপাতালের কনসালট্যান্ট ডা. আলি আহসান ফরিদ (জামিল) বলেন, নতুন চালু হওয়া এ হাসপাতালে শয্যার অভাব রয়েছে। নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত শিশু রোগীর চাপ বেড়ে গেছে। শয্যা বাড়ানো প্রয়োজন বলে তিনি জানান।

ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের শিশু বিভাগের সিনিয়র কনসালট্যান্ট ডা. আনোয়ার হোসেন বলেন, আগস্ট মাস থেকে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত শিশু রোগীর সংখ্যা বেড়েছে। এ ওয়ার্ডে বর্তমানে এক জন ডাক্তার আছেন। রোগীর চাপ সামলাতে হিমশিম খাচ্ছেন ডাক্তার ও নার্সরা। তিনি জানান, ঋতু পরিবর্তনের কারণে শিশুরা নিউমোনিয়া ও ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছে। এ সময় শিশুদের যাতে ঠান্ডা না লাগে সে ব্যাপারে মায়েদের সতর্ক থাকতে পরামর্শ দেন তিনি।


আরও খবর



দেশে ফিরলেন কাবুলে আটকেপড়া ছয় বাংলাদেশি

প্রকাশিত:বুধবার ০১ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৬০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে কর্মরত বাংলাদেশি ছয় প্রকৌশলী দেশে ফিরেছেন। মঙ্গলবার (৩১ আগস্ট) রাত সাড়ে ১১টার দিকে ইকে ৫৮৪ ফ্লাইটে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান তারা।

এর আগে দুপুরে দেশের ফেরার উদ্দেশ্যে কাতারের দোহা থেকে দুবাই যান তারা। পরে দুবাই থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হন।

দেশে ফেরা প্রকৌশলীরা হলেন, রাজিব বিন ইসলাম, মো. কামরুজ্জামান, মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম, ইমরান হোসেন, আবু জাফর মো. মাসুদ করিম ও শেখ ফরিদ উদ্দিন।

তারা আফগানিস্তানের মোবাইল ফোন অপারেটর আফগান ওয়্যারলেসের প্রকৌশলী হিসেবে কর্মরত ছিলেন। এর আগে তারা কাবুল থেকে দোহায় ফিরে মার্কিন সামরিকঘাঁটিতে ছিলেন।

দেশে ফেরার পর রাজীব বিন ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, আফগানিস্তান থেকে দেশে ফেরার অপেক্ষায় ছিলেন ১৫ বাংলাদেশি। তাদের মধ্যে ১২ জন গত ২৮ আগস্ট দুই দফায় মার্কিন বিমানবাহিনীর সহায়তায় কাতারে পৌঁছান। সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত বাকি তিনজন কাবুলে অবস্থান করছিলেন।

জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থার ব্যবস্থাপনায় একটি বিশেষ ফ্লাইটে গত ২৬ আগস্ট ১৫ বাংলাদেশির দেশে আসার কথা ছিল। তাদের সঙ্গে চট্টগ্রামের এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেনের ১৬০ জন আফগান শিক্ষার্থীরও বাংলাদেশে আসার কথা ছিল।

বুধবার (২৫ আগস্ট) দুপুর থেকে তারা কাবুলের হামিদ কারজাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের বাইরে অপেক্ষায় ছিলেন। কাবুল বিমানবন্দরের প্রবেশপথে আত্মঘাতী বোমা হামলার পর তারা নিজ নিজ আবাসস্থলে ফিরে যান।


আরও খবর

অভিভাবকরা স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না

রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১




সংসদ অধিবেশন বসছে বিকালে

প্রকাশিত:বুধবার ০১ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৮২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

জাতীয় সংসদের ১৪তম অধিবেশন বসছে আজ (১ সেপ্টেম্বর) বিকেল ৫টায়। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে এ অধিবেশন শুরু হবে। এবারের অধিবেশন চলবে মাত্র চার কার্যদিবস। করোনার কারণে এবারও মানা হবে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি।

করোনার কারণে এবারও শুক্রবার (৩ সেপ্টেম্বর) জাতীয় সংসদের বৈঠক বসবে। ওই দিন বিকেল সাড়ে ৪টায় বসবে অধিবেশন। এছাড়াও ২ ও ৪ সেপ্টেম্বর বেলা ১১টায় সংসদ অধিবেশন বসবে। করোনার কারণে তাড়াতাড়ি অধিবেশন শেষ করতে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে এবারও সংসদে প্রবেশের অনুমতি পাচ্ছেন না সাংবাদিকরা। সংসদের একাধিক কর্মকর্তা এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

সংসদের যুগ্মসচিব মো. তারিক মাহমুদ জানিয়েছেন, করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে অধিবেশনের সময় সাংবাদিকদের পাস সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে না। জনস্বার্থে অধিবেশনের সব কার্যক্রম সংসদ বাংলাদেশ টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচার হবে।

সংসদ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, করোনা পরীক্ষা করে সংসদ সদস্য ও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের অধিবেশনে যেতে হয়। অধিবেশনের কার্যদিবসের মধ্যে বিরতি রাখলে কেউ সংক্রমিত হতে পারেন। এজন্য শুক্রবারও অধিবেশন চালানোর পরিকল্পনা রয়েছে।

আসন্ন অধিবেশনটি হবে চলতি বছরের চতুর্থ অধিবেশন। গত ৩ জুলাই শেষ হয়েছিল সংসদের ১৩তম অধিবেশন, যেটি ছিল বাজেট অধিবেশন। করোনার প্রাদুর্ভাবের মধ্যে সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনে গত কয়েকটি অধিবেশন বসেছে। জাতীয় সংসদের এক অধিবেশন শেষ হওয়ার পরবর্তী ৬০ দিনের মধ্যে অধিবেশন ডাকার সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

এবারের অধিবেশনের শুরুতে পাঁচজন সভাপতিমণ্ডলী সদস্যদের নাম ঘোষণা করা হবে। তারা স্পিকার বা ডেপুটি স্পিকারের অনুপস্থিতিতে সংসদের বৈঠক পরিচালনা করবেন। এরপর আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য অধ্যাপক মো. আলী আশরাফের মৃত্যুতে শোক প্রস্তাব আনা হবে। শোকপ্রস্তাব গ্রহণ শেষে মরহুমের আত্মার প্রতি সম্মান প্রদর্শনের জন্য সবাই দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করবেন। এরপর মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হবে। পরে সংসদের রীতি অনুযায়ী অধিবেশন মুলতবি করা হবে।


আরও খবর

অভিভাবকরা স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না

রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১




১৮ বছরের নিচে শিক্ষার্থীরা পাবে ফাইজার-মডার্নার টিকা

প্রকাশিত:শনিবার ০৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৭৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

১৮ বছরের নিচে শিক্ষার্থীদের ফাইজার এবং মডার্নার টিকা দেওয়া হতে পারে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক। শনিবার (৪ সেপ্টেম্বর) সকালে নার্সিং ও মিডওয়াইফারি কোর্সে কম্প্রেহেনসিভ পরীক্ষায় তেজগাঁওয়ের একটি কেন্দ্র পরিদর্শন শেষে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ১৮ বছরের ওপরে যে কোনো টিকা দেওয়া যাবে। ১৮ বছরের নিচে হলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও অন্যান্য দেশের নির্দেশনা দেখে ফাইজার ও মডার্নার টিকা দেওয়া হতে পারে। তিনি বলেন, কীভাবে শিশুদের টিকা দেওয়া যাবে সে বিষয়ে  আগামীকাল (৫ সেপ্টেম্বর) আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে সিদ্ধান্ত হবে।

তিনি বলেন, ১২ বছরের বেশি হলে অন্যান্য দেশে যেভাবে দেওয়া হচ্ছে, বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেনে শিশুদের ফাইজার এবং মডার্নার টিকা দেওয়া হচ্ছে। আমরাও এটি অনুসরণ করতে পারি।

ক্যাম্পেইনের দ্বিতীয় ডোজের টিকা মজুত আছে জানিয়ে জাহিদ মালেক বলেন, ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে যাদের প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে আগামী ৭ সেপ্টেম্বর থেকে তাদের দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হবে। প্রথম ডোজ যে কেন্দ্র দেওয়া হয়েছে, দ্বিতীয় ডোজও একই কেন্দ্রে নিতে হবে। গ্রামের টিকা নেওয়ার জন্য মানুষের আগ্রহ কম ছিল, আমরা তাদের অনুপ্রাণিত করতেই এ কর্মসূচি হাতে নিয়েছেলাম।

মন্ত্রী বলেন, টিকা পাওয়ার ভিত্তিতে পর্যায়ক্রমে বাকিদেরও টিকা নিশ্চিত করা হবে। চীনের সঙ্গে নতুন করে ছয় কোটি ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কাছে সাড়ে ১০ কোটি টিকা চাহিদা দেওয়া হয়েছে। আগামী বছরের জানুয়ারি নাগাদ এসব টিকা পাওয়ার আশা করা হচ্ছে। এ সাড়ে ১৬ কোটি টিকা পেলে সংকট কেটে যাবে।



আরও খবর

ডেঙ্গুতে হাসপাতালে আরও ২৩২ রোগী

শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

করোনায় আরও ৩৫ জনের মৃত্যু

শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১




ভারতে ফের বেড়েছে দৈনিক সংক্রমণ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৪ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১০৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ভারতে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা কমে প্রায় সাড়ে তিনশোতে নেমে এসেছে। তবে আগের দিনের তুলনায় কিছুটা বেড়েছে ভাইরাসে আক্রান্ত নতুন রোগীর সংখ্যা। অবশ্য শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বাড়লেও গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে সুস্থতার হার আরও বেড়েছে। ফলে দেশটিতে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা নেমে এসেছে সোয়া ৩ লাখের নিচে।

মঙ্গলবার (২৪ আগস্ট) ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ২৫ হাজার ৪৬৭ জন মানুষ। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় দেশটিতে নতুন সংক্রমিত রোগী সংখ্যা বেড়েছে প্রায় চারশ। সর্বশেষ এই সংখ্যাসহ মহামারির শুরু থেকে দেশটিতে করোনায় আক্রান্তের মোট সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ কোটি ২৪ লাখ ৭৪ হাজার ৭৭৩ জনে।

অন্যদিকে মঙ্গলবার ভারতে প্রাণহানির সংখ্যা আরও কমেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে মারা গেছেন ৩৫৪ জন। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় গত একদিনে মৃত্যু কমেছে ৩৫ জন। মহামারির শুরু থেকে দেশটিতে এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ৪ লাখ ৩৫ হাজার ১১০ জন।

এদিকে দৈনিক সুস্থতা ও সংক্রমণের ক্ষেত্রে মঙ্গলবারও ভারতে বজায় রয়েছে স্বাভাবিক চিত্র। অর্থাৎ সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে ভাইরাসে নতুন করে সংক্রমিত রোগীর তুলনায় সুস্থ হয়েছেন বেশি মানুষ। ফলে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা আরও কমেছে।

গত একদিনে ভারতে সুস্থ হয়েছেন বা হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন ৩৯ হাজার ৪৮৬ জন মানুষ। অন্যদিকে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় সাড়ে ২৫ হাজার। ফলে দেশটিতে মোট সক্রিয় রোগীর সংখ্যা কমে দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ১৯ হাজার ৫৫১ জনে। গত ১৫৬ দিনের মধ্যে যা সর্বনিম্ন।

বর্তমানে ভারতে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা দেশটির মোট শনাক্ত রোগীর ১ শতাংশেরও কম। ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, মঙ্গলবার এই হার দশমিক ৯৮ শতাংশ (০.৯৮%)। ২০২০ সালের মার্চ মাসের পর থেকে এই হার সর্বনিম্ন।

এদিকে মঙ্গলবার ভারতে সুস্থতার হার আরও বেড়েছে। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে সুস্থতার হার ৯৭ দশমিক ৬৮ শতাংশ। করোনা মহামারি শুরুর পর থেকে যা সর্বোচ্চ। অন্যদিকে, গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে দৈনিক সংক্রমণের হার ১ দশমিক ৫৫ শতাংশ। টানা ২৯ দিন ধরে দেশটিতে এই হার ৩ শতাংশের নিচেই রয়েছে।


আরও খবর

আফগানিস্তানে আবারও বিস্ফোরণ, নিহত ৭

রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১




বিশ্বে করোনায় একদিনে আরও ৯ হাজারের বেশি মৃত্যু

প্রকাশিত:বুধবার ০১ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৬২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানির সংখ্যা কোনোভাবেই কমছে না। গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৯ হাজার ৮৪৩ জন। বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) পর্যন্ত বিশ্বে করোনাভাইরাসে মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪৫ লাখ ৩৩ হাজার ৬০৯ জনে। মঙ্গলবার (৩১ আগস্ট) মৃত্যুর সংখ্যা ছিলো ৪৫ লাখ ২৩ হাজার ৭৬৬ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে নতুন শনাক্ত হয়েছেন ৬ লাখ ৩৯ হাজার ২২৮ জন। এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে বিশ্বে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২১ কোটি ৮৫ লাখ ৪০ হাজার ৯৯৪ জন। মঙ্গলবার (৩১ আগস্ট) শনাক্তের সংখ্যা ছিলো ৭৯ লাখ ১ হাজার ৭৬৬ জনে। বিশ্বে এ পর্যন্ত করোনায় সুস্থ হয়েছেন ১৯ কোটি ৫৩ লাখ ৬৫ হাজার ১২৬ জন।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানির পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটার থেকে বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) সকালে এই তথ্য জানা গেছে।

ওয়ার্ল্ডওমিটারের সবশেষ তথ্য অনুযায়ী, করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও মৃত্যু হয়েছে বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশ যুক্তরাষ্ট্রে। তালিকায় শীর্ষে থাকা দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনা সংক্রমিত হয়েছেন ৪ কোটি ১ লাখ ১৪ হাজার ৯৯ জন আর মারা গেছেন ৬ লাখ ৩৩ হাজার ১১৬ জন।

করোনায় আক্রান্তের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে প্রতিবেশী দেশ ভারত। দেশটিতে মোট আক্রান্ত ৩ কোটি ২৮ লাখ ১০ হাজার ৮৯২ জন এবং মারা গেছেন ৪ লাখ ৩৯ হাজার ৫৪ জন।

লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিল করোনায় আক্রান্তের দিক থেকে তৃতীয় ও মৃত্যুর সংখ্যায় তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগী ২ কোটি ৭ লাখ ৭৭ হাজার ৮৬৭ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৫ লাখ ৬৩ হাজার ৪৭০ জনের।


আরও খবর

আফগানিস্তানে আবারও বিস্ফোরণ, নিহত ৭

রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১