Logo
শিরোনাম

জনবল নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩১ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৮১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

জনবল নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। প্রতিষ্ঠাটি শতাধিক পদে ৬২৮ জন লোকবল নিয়োগ দেবে। আগ্রহী প্রার্থীরা অনলাইনের মাধ্যমে আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন।

প্রতিষ্ঠানের নাম: বাংলাদেশ সেনাবাহিনী

পদের সংখ্যা: ৬২৮ জন

কাজের ধরন: পূর্ণকালীন

কর্মস্থল: দেশের বিভিন্ন স্থানে

পদের নাম ও শিক্ষাগত যোগ্যতা:

১। কার্পেন্টার, পরিচ্ছন্নতাকর্মী, ইঅ্যান্ডবিআর, শ্রমিক, পেইন্টার, মালী, ইউএসএম এবং ধোপা হিসেবে পঞ্চম শ্রেণি পাসেই নিয়োগ দেয়া হবে।

২। বাবুর্চি, সহকারী বাবুর্চি, বার্তাবাহক, ব্ল্যাক স্মিথ, নিরাপত্তা প্রহরী, টিন স্মিথ, ফায়ারক্রু ও অফিস সহায়ক পদে অষ্টম শ্রেণি পাসে আবেদন করা যাবে। এ ছাড়া এসএসসি, এইচএসসি ও স্নাতক অথবা সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণরাও বিভিন্ন পদে আবেদন করতে পারবেন।

বয়স: প্রার্থীর বয়সসীমা ১৮ থেকে ৩০ বছর। তবে কোটায় আবেদন করলে ৩২ বছর।

জাতীয়তা: বাংলাদেশি

বেতন: জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫ অনুযায়ী ১১ থেকে ২০তম গ্রেডের পদে নিয়োগ দেয়া হবে ৫৮৩ জন। আর বিশেষ আর্মি অর্ডার ২০১৮ অনুযায়ী নিয়োগ পাবেন ৪৫ জন।

আবেদন ফি : ৫০০ টাকা

আবেদনের সময়সীমা : আগ্রহী প্রার্থীরা আগামী ২৯ আগস্ট থেকে ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখ পর্যন্ত অনলাইন/এসএমএসের মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন।

আবেদন প্রক্রিয়া:

আগ্রহী প্রার্থীরা এই https://www.army.mil.bd ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর বিজ্ঞপ্তিটি দেখতে ক্লিক করুন।


আরও খবর

পুলিশে কনস্টেবল পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

শুক্রবার ১০ সেপ্টেম্বর ২০২১




কাবুল বিমানবন্দরে সন্ত্রাসী হামলার আশঙ্কা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৬ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৫২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
মার্কিন সৈন্য প্রত্যাহারের ৩১ আগস্টের নির্ধারিত সময়সীমা বাড়ানোর বিরোধিতা করেছেন তালেবানরা। তবে তারা প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন এই সময়ের পরেও দেশটিতে অবস্থানরত বিদেশি

আফগানিস্তানের কাবুল বিমানবন্দরে সন্ত্রাসী হামলার আশঙ্কা করে সেখানে ভ্রমণে নিজ দেশের নাগরিকদের সতর্ক করেছে অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য।

একই সঙ্গে যারা বিমানবন্দরের বাইরে অবস্থান করছেন তাদেরকে সেখান থেকে সরে যেতে বলা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার বিবিসির প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

তালেবানরা কাবুল দখলের ১০ দিনে মধ্যে ৮২ হাজারেরও বেশি মানুষকে দেশটি থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। আগামী ৩১ আগস্টের মধ্যে নিজ দেশের নাগরিকদের সরিয়ে নিতে দ্রুতগতিতে কাজ করছে দেশগুলো। দেশ ছাড়তে ইচ্ছুক কয়েক হাজার মানুষ এখনও বিমানবন্দরের ভেতরে ও বাইরে অপেক্ষা করছে।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন জানিয়েছেন, মার্কিন সৈন্য প্রত্যাহারের ৩১ আগস্টের নির্ধারিত সময়সীমা বাড়ানোর বিরোধিতা করেছেন তালেবানরা। তবে তারা প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন এই সময়ের পরেও দেশটিতে অবস্থানরত বিদেশি নাগরিক ও আফগানদের সরে যেতে বাধা দেওয়া হবে না।

মার্কিন পররাষ্ট্র দফতর বুধবার এক নিরাপত্তা বিষয়ক সতর্কবার্তায় জানিয়েছে, আফগানিস্তান ছাড়ার জন্য কাবুলের হামিদ কারজাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের অ্যাবেই গেট, পূর্ব গেট এবং উত্তর গেটে অপেক্ষারত মানুষকে অবিলম্বে সরে যেতে বলা হয়েছে।

এর আগে একই ধরনের পৃথক একটি নির্দেশনায় যুক্তরাজ্য সরকারও সবাইকে নিরাপদ স্থানে সরে যেতে এবং পরবর্তী নির্দেশনার জন্য অপেক্ষা করতে পরামর্শ দেয়। যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র দফতর জানিয়েছে, আফগানিস্তানের নিরাপত্তা পরিস্থিতি এখনও ঝুঁকিপূর্ণ এবং যেকোনো সময় সেখানে সন্ত্রাসী হামলার উচ্চ সম্ভাবনা রয়েছে।

তবে কি ধরনের নিরাপত্তা হুমকির আশঙ্কা করা হচ্ছে, সে বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানায়নি যুক্তরাষ্ট্র বা যুক্তরাজ্য।


আরও খবর



দিনাজপুরে মা-ছেলেকে অপহরণ মামলা ডিবিতে হস্তান্তর

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৬ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৮২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে মা-ছেলেকে অপহরণের মামলা গোয়েন্দা পুলিশে (ডিবি) হস্তান্তর করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চিরিরবন্দর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুব্রত কুমার সরকার।

এর আগে বুধবার বিকেল সাড়ে ৫টায় সাদা মাইক্রোবাসে করে কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে এএসপি সারোয়ার কবীরসহ পাঁচজনকে আদালতে নেয়া হয়। দিনাজপুর আমলি আদালতের-৪-এর বিচারক শিশির কুমার বসু সন্ধ্যায় তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। একইসাথে অপহরণের শিকার মা-ছেলেকে ছেড়ে দেয়ারও আদেশ দেন আদালত।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী লুৎফর রহমানের ভাই খলিলুর রহমান চিরিরবন্দর থানায় অপহরণের মামলা দায়ের করেছেন। এ মামলায় তাদের গ্রেফতার দেখানো হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ২৩ আগস্ট রাত ৯টার দিকে চিরিরবন্দর উপজেলার নান্দেড়াই গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে মা জহুরা বেগম (৪৬) ও ছেলে জাহাঙ্গীরকে (২৫) ডিবি পুলিশের পরিচয়ে মাইক্রোবাসযোগে অপহরণ করা হয়। এ সময় মা-ছেলেকে মারধরও করে অপহরণকারীরা। অপহরণকারীরা বলে, তারা জাহাঙ্গীরের বাবা লুৎফর রহমানকে ধরতে এসেছে, তার বিরুদ্ধে ৫০ লাখ টাকার প্রতারণার মামলা আছে। পরে জহুরা বেগমের বাড়ির লোকজন র‌্যাব, ডিবি পুলিশসহ বিভিন্ন জায়গায় আটকের বিষয়ে খোঁজ নেন। কিন্তু কেউ আটকের বিষয়ে কিছু বলতে পারে না। পরে অপহরণকারীরা মোবাইলে লুৎফর রহমান ও তার ভাই রমজানের কাছে প্রথমে ৫০ লাখ এবং পরে ১৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে।

পরের দিন মঙ্গলবার মুক্তিপণের টাকা দেবেন বলে হাজী দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে যান লুৎফর রহমান ও রমজান আলী। সেখানে অপহরণকারীদের থাকার কথা ছিল। কিন্তু লুৎফরদের সাথে সিভিল পোশাকে পুলিশ রয়েছে টের পেয়ে অপহরণকারীরা মাইক্রোবাস নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। পুলিশ তাদের তাড়া করে দশমাইল নামক স্থানে গিয়ে ধরে ফেলে। অভিযানে জেলা পুলিশ ও চিরিরবন্দর থানার পুলিশ অংশ নেয়।

এ ঘটনায় সহকারী পুলিশ সুপার সারোয়ার কবির ও কনস্টেবল আহসানুল হক আটকের পর পুলিশ জানতে পারে অপহরণকারীদের মধ্যে রংপুর জোনের সিআইডি পুলিশের এএসপি সারোয়ার কবীর, এএসআই হাসিনুর রহমান, কনস্টেবল আহসান উল ফারুক ও চালক হাবিবুর রয়েছেন।

এ ঘটনা জানাজানি হয় বুধবার সকালে। তখন অপহৃত জহুরা বেগম-ছেলে জাহাঙ্গীরকে ডিবি অফিসে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আনা হয়।

রংপুর সিআইডির পুলিশ সুপার আতাউর রহমান জানান, অভিযুক্তরা কোনো প্রকার অনুমতি না নিয়ে সেখানে (চিরিরবন্দর) গেছে। তাদের আটকের বিষয়টি শুনেছি। তারা কেন সেখানে গেছে, কাকে অপহরণ করেছে, এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় খোঁজখবর নিয়ে তদন্ত সাপেক্ষে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।



আরও খবর



ঘরজামাই বলায় সংঘর্ষ, বাড়িঘর ভাংচুর

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০২ সেপ্টেম্বর 2০২1 | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৭৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলায় তুচ্ছ ঘটনায় দুইপক্ষের সংঘর্ষে নারী ও শিশুসহ কমপক্ষে ২৬ জন আহত হয়েছেন। বুধবার রাত ৯টার দিকে উপজেলার মাছিহাতা ইউনিয়নের আটলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় বেশকিছু বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগও উঠেছে।

হাসপাতাল ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, মাছিহাতা ইউনিয়নের আটলা গ্রামের আমির হকের ছেলে সোহাগ মিয়া ওই এলাকার ফজলুর রহমানের জামাতা খুরশিদ মিয়াকে ঘরজামাই ডাকেন। এ নিয়ে দুজনের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়।

বুধবার দুপুরে হাজী মার্কেটে খুরশিদকে মারধর করেন সোহাগ মিয়া। পরে বাজারে এক সালিশ বৈঠকে সোহাগ ও খুরশিদ মিয়াকে মিলিয়ে দেন তারা। এরপরও দুইপক্ষই এলাকায় গিয়ে মারামারিতে জড়িয়ে পড়েন। এতে উভয়পক্ষের ২৬ জন আহত হন। আহতদের উদ্ধারের পর ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার ওসি মুহাম্মদ এমরানুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ওই গ্রামে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। আহতদের হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়। তবে এখনো কোনো পক্ষই থানায় অভিযোগ করেনি।


আরও খবর



ডেঙ্গুতে আরও ২৩৪ জন আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৪৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও ২৩৪ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকার বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ১৮২ জন এবং ঢাকার বাইরের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ৫২ জন।

আজ বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের নিয়মিত ডেঙ্গুবিষয়ক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে নতুন ২৩৪ জন ভর্তি হয়েছে। এ নিয়ে বর্তমানে দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে সর্বমোট ভর্তি থাকা রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক হাজার ২৪৭ জন।

এর মধ্যে ঢাকার ৪১টি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি আছে এক হাজার ৪৭ জন এবং অন্যান্য বিভাগের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি আছে ২০০ জন।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, গত ১ জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ১৫ হাজার ৬৫ জন। তাদের মধ্যে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছে ১৩ হাজার ৭৬১ জন রোগী। ডেঙ্গুতে এ সময়ে ৫৭ জনের মৃত্যু হয়েছে।


আরও খবর

ডেঙ্গুতে হাসপাতালে আরও ২৩২ রোগী

শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

করোনায় আরও ৩৫ জনের মৃত্যু

শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১




কাঠগড়ায় বসে ওসি প্রদীপের মোবাইল ফোনে কথোপকথন

প্রকাশিত:বুধবার ২৫ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১৩১৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যা মামলার শুনানি চলছে আদালতে। এ সময় কাঠগড়ায় মোবাইলে কথা বলছেন কক্সবাজারের টেকনাফ থানার বরখাস্ত ওসি প্রদীপ কুমার দাশ।

সোমবার (২৩ আগস্ট) কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতে মামলার প্রথম দিনের সাক্ষ্যগ্রহণের সময় মোবাইলে কথা বলতে দেখা যায় বরখাস্ত ওসি প্রদীপ কুমার দাশকে। তার কথা বলার একটি ছবি গণমাধ্যমে পৌঁছানোর পর একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে বেসরকারি একটি টেলিভিশন চ্যানেল।

ছবিতে দেখা যাচ্ছে, আদালতের কাঠগড়ার ভেতরে হাঁটু গেড়ে বসে মোবাইলে কথা বলছেন বরখাস্ত ওসি প্রদীপ। তার কথা বলার সময় আশপাশে কয়েকজন ব্যক্তিকে দাঁড়ানো দেখা গেছে।

বিষয়টি নিয়ে নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন, সিনহা হত্যা মামলার এই আসামি মোবাইলে একের পর এক কথা বলেছেন। তার পরনে কালো পোলো শার্ট ছিল। জানা গেছে, বরখাস্ত ওসি প্রদীপকে কথা বলার জন্য মোবাইলটি সরবরাহ করেছিলেন সেখানেই দায়িত্বরত এক পুলিশ কনস্টেবল।

বিচার বিভাগীয় বাতায়নে আদালতের আচরণবিধিতে বলা হয়েছে, আদালত চলাকালীন মোবাইল বন্ধ রাখতে হবে। অর্থাৎ, আদালতে মোবাইল ব্যবহার করা যাবে না। এদিকে বরখাস্ত ওসি প্রদীপ কুমার আদালতের বাইরে সাংবাদিকদের তার ছবি তুলতে দেখে বিরক্তি নিয়ে বলেন, আমাকে নতুন করে চেনানোর প্রয়োজন নেই।

মঙ্গলবার (২৪ আগস্ট) মামলার সাক্ষগ্রহণের দ্বিতীয় দিন কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালত প্রাঙ্গণে সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে এ কথা বলেন বরখাস্ত ওসি প্রদীপ কুমার দাশ।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ৩১ জুলাই রাত সাড়ে ১০টার দিকে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন মেজর সিনহা রাশেদ খান। এ ঘটনায় ৫ আগস্ট নিহত সিনহার বড় বোন শারমিন শাহরিয়ার ফেরদৌস বাদী হয়ে হত্যা মামলা করেন।

মামলায় বাহারছড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের সাবেক ইনচার্জ (পরিদর্শক) লিয়াকত আলীকে প্রধান করে টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ ৯ পুলিশ সদস্যকে আসামি করা হয়। আদালত মামলাটির তদন্ত করার আদেশ দেন র‌্যাবকে। এরপর গত ৬ আগস্ট প্রধান আসামি লিয়াকত আলী ও প্রদীপ কুমার দাশসহ ৭ পুলিশ সদস্য আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। পরবর্তীতে সিনহা হত্যায় জড়িত থাকার সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে মামলার ৩ সাক্ষী এবং শামলাপুর চেকপোস্টের দায়িত্বরত আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ানের (এপিবিএন) ৩ সদস্যকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।

চার মাসেরও বেশি সময় তদন্ত শেষে গত বছরের ১৩ ডিসেম্বর ১৫ জনকে অভিযুক্ত করে অভিযোগপত্র দেয় তদন্তকারী সংস্থা র‍্যাব। এর মধ্যে ১২ আসামি ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। গত ২৭ জুন মামলার ১৫ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে আদালত।

মামলায় কারাগারে থাকা ১৫ আসামি হলেন বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির তৎকালীন পরিদর্শক লিয়াকত আলী, টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, দেহরক্ষী রুবেল শর্মা, টেকনাফ থানার এসআই নন্দদুলাল রক্ষিত, কনস্টেবল সাফানুর করিম, কামাল হোসেন, আব্দুল্লাহ আল মামুন, এএসআই লিটন মিয়া, কনস্টেবল সাগর দেব, এপিবিএনের এসআই মো. শাহজাহান, কনস্টেবল মো. রাজীব ও মো. আবদুল্লাহ। এ ছাড়া পুলিশের মামলার সাক্ষী টেকনাফের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুরের মারিশবুনিয়া গ্রামের নুরুল আমিন, মো. নিজামুদ্দিন ও আয়াজ উদ্দিন।



আরও খবর