শিরোনাম

‘জ্বালানি তেলের দাম কমানোর বিষয়টি সরকার বিবেচনা করবে’

প্রকাশিত:বুধবার ১২ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৪৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, 'আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দাম নিম্নমুখী দেখা যাচ্ছে। আমার বিশ্বাস সরকার সেটি বিবেচনা করবে।'

বুধবার (১২ জানুয়ারি) দুপুরে অর্থমন্ত্রীর সভাপতিত্বে ভার্চুয়ালি অর্থনৈতিক বিষয়ক সংক্রান্ত ও সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

জ্বালানি তেলের দাম নিয়ে শিগগিরই কোনো সিদ্ধান্ত আসবে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী মুস্তফা কামাল বলেন, 'বিষয়টি সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ভালো বলতে পারবে। এটা আমাদের পর্যায়ে এলে আপনাদের অবহিত করতে পারব। আমার বিশ্বাস, যখন যেটা করা দরকার সরকার অবশ্যই সেটি করবে।'

তিনি বলেন, 'আপনারা জানেন জ্বালানি তেলের দাম কতটা ঊর্ধ্বমুখী ছিল, এখন আমরা নিম্নমুখী দেখতে পাচ্ছি। আমার বিশ্বাস, সরকার সেটি বিবেচনা করবে। এটার জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে।'

তিনি আরো বলেন, 'মধ্যম আয়ের দেশগুলো ট্র্যাপের মধ্যে পড়ে যাওয়াটা আমাদের জন্য এই মুহূর্তে কার্যকর নয়। ২০৪১ সাল পর্যন্ত আমরা যে পরিকল্পনা করেছি সেখানে বাৎসরিক আমাদের প্রক্ষেপণ এবং বাস্তবায়ন সব কিছু উল্লেখ করা আছে। আমি মনে করি, অন্যদের সঙ্গে আমাদের মেলানো যাবে না।'

আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, 'যদি ভিয়েতনামের কথা বলেন, তাদের বিনিয়োগ অলমোস্ট আসে বাইরে থেকে, বিদেশি বিনিয়োগ থেকেই তারা করে। সেখানে আন্তর্জাতিক বাজার আপস অ্যান্ড ডাউন কিছু হলে বৈদেশিক বিনিয়োগ ইম্প্যাক্টেড হয়। আমাদের দেশে তা উল্টো। আমাদের দেশে আমরা যা করে আসছি তা নিজেদের বিনিয়োগ থেকে করছি। মূলত আমাদের বিনিয়োগ অনেক বড়। ফলে আমাদের ওপর এর প্রভাব আসবে বলে মনে করি না।'

নিউজ ট্যাগ: অর্থমন্ত্রী

আরও খবর



দুর্নীতি ও যৌন অপরাধ বাড়ছে পাকিস্তানে: ইমরান খান

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৬৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দুই ধরনের অপরাধ নিয়ে উদ্বিগ্ন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তিনি বলেছেন, একটি হলো দুর্নীতি। অন্যটি যৌন অপরাধ। পাকিস্তানের বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে এক বৈঠকে এমন মন্তব্য করেছেন তিনি। এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে ডন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, রবিবার (২ জানুয়ারি) এই বৈঠক করেন ইমরান খান। তরুণদের বিশ্বাস, ধর্ম ও নৈতিক মূল্যবোধের ওপর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহার করে যে আঘাত হানা হচ্ছে, তা থেকে রক্ষার উপায় খুঁজতে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

ইমরান খান বলেন, যৌন অপরাধ ব্যাপক হারে বাড়ছে আমাদের সমাজে। যার মধ্যে রয়েছে ধর্ষণ, শিশুদের যৌন হয়রানির মতো ঘৃণ্য কাজ। পাকিস্তানে এসব ঘটনার এক শতাংশের খবর পাওয়া যায়।’

তিনি আরও বলেন, সমাজের লড়াই করতে হবে যৌন অপরাধের বিরুদ্ধে। একই পদক্ষেপ নিতে হবে দুর্নীতি ক্ষেত্রেও। দুর্নীতিবাজদের অগ্রহণযোগ্য করে তুলতে হবে সবার মাঝে। কিন্তু হতাশার বিষয় হলো আমাদের নেতারাই যখন দীর্ঘদিন ধরে দুর্নীতি করে, তখন এই দুর্নীতি সমাজের প্রতিটি স্তরে গ্রহণযোগ্য হয়ে যায়।’


আরও খবর

আবুধাবিতে ড্রোন হামলায় তিনজন নিহত

সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২




সন্তানকে কীভাবে বোঝাবেন সময়ের গুরুত্ব?

প্রকাশিত:রবিবার ১৯ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৫ জানুয়ারী ২০২২ | ৯৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ছোট থেকেই সন্তানকে সময়ের গুরুত্ব শেখান। কারণ সময়ানুবর্তিতা ঠিকমতো না জানলে বড় হতে হতে যখন বিভিন্ন কাজে আপনার সন্তান জড়িয়ে পড়বে, তখন সময়ের অভাবে ভুগবে সে। তাই কী ভাবে সময়ের কাজ সময়ে শেষ করতে হবে, তা ছোট থেকেই শিখাতে হবে আপনাকে।

কিন্তু কী ভাবে নিজের সন্তানকে সময়ের গুরুত্ব বোঝাবেন? জেনে নিন-

>অধিকাংশ সময় বাচ্চারা মা-বাবাকে দেখেই শিখে থাকে। তাই প্রথমে অভিভাবকদের সময়ের গুরুত্ব দেওয়া শিখতে হবে। আপনারাই যদি সময় নষ্ট করেন, তা হলে আপনার দেখাদেখি বাচ্চারাও তাই শিখবে। তাই অভিভাবকদের উচিত সময় মেনে চলা, তা হলে সন্তানও তাদের অনুসরণ করবে।

>আপনার সন্তান সময় মেনে কোনও কাজ করে থাকলে বা আপনার দেওয়া সময়ের মধ্যে কাজ সম্পন্ন করলে তার প্রশংসা করুন, পাশাপাশি কোনও পুরস্কারও দিন। এর ফলে তারা আগামী দিনেও সময় মেনে কাজ করার তাগিদ অনুভব করবে। সময়ানুবর্তিতা তাদের অভ্যাসে পরিণত হবে।

>বাচ্চাদের কাছেও ঘড়ি বা ক্যালেন্ডার থাকা অত্যন্ত জরুরি। কারণ ঘড়ি বা ক্যালেন্ডার দেখে তারা সময়ের হিসাব করতে পারবে। এ ক্ষেত্রে ঘুম থেকে ওঠার সময়, পড়াশোনা, গোসল, খাওয়া-দাওয়া ও ঘুমানোর সময়ের তালিকা বানিয়ে দিন। বিভিন্ন কাজের জন্য রিমাইন্ডার বা অ্যালার্ম সেট করে রাখুন। আবার কোনও বিশেষ কাজ থাকলে, কোন দিন কোন কাজ করতে হবে, তারও একটি তালিকা দিয়ে দিন।

>যে বাচ্চাদের মধ্যে আত্মবিশ্বাসের অভাব থাকে, তারা থেমে থেমে কাজ শেষ করে। তাই নিজের সন্তানকে আশ্বস্ত করুন যে, আপনি তাকে বিশ্বাস করেন এবং সে সময় মতো কাজ পূর্ণ করতে পারবে। মা-বাবার সন্তানের ওপর বিশ্বাস বজায় রাখলে ধীরে ধীরে তারা নিজের আত্মবিশ্বাস ফিরে পাবে।

>কাউকে প্রতিশ্রুতি দিয়ে থাকলে তা সময়ের মধ্যে পূরণ করা কতটা জরুরি, তা-ও তাদের শেখাতে হবে। আপনার সন্তান যদি কাউকে কোন নির্দিষ্ট সময়ে কাজ করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে থাকে, তা হলে তা পূরণ করার জন্য তাদের উৎসাহিত করুন। এর ফলে অন্যেরাও আপনার সন্তানের ওপর ভরসা করবে। অন্যের বিশ্বাস অর্জন করায় বাচ্চাদের মধ্যে সময়ানুবর্তিতা ও সততা বিকশিত হবে।

>সন্তানকে সঠিক পথ দেখানো মা-বাবার প্রধান দায়িত্ব। সময় বুঝে সন্তানের পথ প্রদর্শন করতে হবে। সন্তান যদি আপনার দেওয়া কাজ পূর্ণ করতে না-পারে, তা হলে তাদের উৎসাহিত করুন এবং কাজ সম্পন্ন করার জন্য প্রয়োজনীয় পথ প্রদর্শন করুন।

>সন্তান যদি সময় মেনে না-চলে বা অভিভাবকদের দেওয়া কাজ পূর্ণ না-করে, তা হলে মা-বাবারা তাদের প্রতি কঠিন ব্যবহার করে থাকেন। কিন্তু এর ফলে হীতে বিপরীত হতে পারে। কারণ বাচ্চাদের মনোবল ভেঙে যাবে এবং আত্মবিশ্বাসের অভাবও দেখা দিতে পারে তাদের মধ্যে। শত চেষ্টা সত্ত্বেও যদি বাচ্চারা ধীরে ধীরে কাজ করে, তা হলে কোনও বিশেষজ্ঞের পরামর্শ গ্রহণ করে তাদের মানসিক স্বাস্থ্য উন্নতির চেষ্টা করুন।


আরও খবর

মুখে স্বাদ ফেরাতে বানান মুরগির পুলি

সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২

চাইনিজ সবজি রান্নার সহজ রেসিপি

সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২




স্বাস্থ্যবিধি না মানলে লকডাউন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত:শনিবার ১৫ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৮৩৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদমালেক বলেছেন, করোনা আশংকাজনক ভাবে বেড়েই চলছে, সরকারের ১১ বিধি নিষেধ না মানলে দেশের পরিস্থিতি হবে ভয়াবহু। তখন বাধ্য হয়ে লকডাউনে যেতে হবে। তবে  লকডাউন দিলে দেশের ক্ষতি আমরা সেদিকে যেতে চাইনা, চাই সবাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুক।

শনিবার(১৫ জানুয়ারি)  দুপুরের দিকে মানিকগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে সিটি স্ক্যান মেশিন ও ডায়ালাইসিস ইউনিটের উদ্বোধন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। 

মন্ত্রী বলেন, করোনা খুবই উর্ধমূখি গতকাল প্রায় ৪ হাজার ৪ শত জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে এবং এর শতকরা হার ১৩ % ছাড়িয়ে গেছে। প্রতিদিন এক থেকে তিন শতাংশ হারে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে যাচ্ছে আর এই হারে বাড়াটা খুবই আশংকা জনক। বর্তমানে প্রায়১% লোকের আইসিও প্রয়োজন হচ্ছে আর এই হারে রোগীর সংখ্যা রাড়তে থাকলে হাসপাতালে জায়গা হবে না। 

এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে  ছিলেন জেলা প্রশাসক আব্দুল লতিফ,পুলিশ সুপার গোলাম আজাদ খান, মানিকগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে তত্ত্ববধায়ক আরশ্বাদ উল্লাহসহ স্বাস্থ্য খাতের অন্যান্নরা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর

দেশে মোট ৫৫ জনের দেহে ওমিক্রন শনাক্ত

সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২




সিসিটিভি ক্যামেরা চললে বুথের গোপনীয়তা রক্ষা হবে না: রিটার্নিং অফিসার

প্রকাশিত:শনিবার ১৫ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ১৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কেন্দ্রের ভেতরে বুথের গোপনীয়তা রক্ষায় সিসিটিভি ক্যামেরা বন্ধ রাখা হবে বলে জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার মাহফুজা আক্তার। আজ শনিবার দুপুরে নগরীর মডার্ন উচ্চ বিদ্যালয়ে নির্বাচনী সামগ্রী বিতরণকালে তিনি এ কথা বলেন।

একজন স্বতন্ত্র প্রার্থী অভিযোগ করেছেন, কেন্দ্র থেকে সিসিটিভি ক্যামেরা খুলে ফেলা হয়েছেএ প্রসঙ্গে জানতে চাওয়া হলে মাহফুজা আক্তার বলেন, কেন্দ্রে সিসিটিভি ক্যামেরা কাজ করবে না। কেন্দ্রে যদি সিসিটিভি ক্যামেরা যদি কাজ করে তাহলে কেন্দ্রের ভেতরে বুথের গোপনীয়তা রক্ষা হলো না। সব কেন্দ্রে তো সেটা নেই, যেখানে আছে সেখানে বন্ধ থাকবে।

তিনি আরও বলেন, ভোটাররা তার পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দেবেন। ভোট দিতে আসবেন, শান্তিপূর্ণ-সুশৃঙ্খল পরিবেশে আসবেন। তারা স্বাস্থ্যবিধি মেনে ভোটকেন্দ্রে আসবেন, ভোট দেবেন। উৎসবমুখর পরিবেশে সচ্ছন্দে ফিরে যাবেন। আমরাদের প্রস্তুতি ভালো, পরিবেশও সন্তোষজনক আছে বলে জানান মাহফুজা আক্তার।

ইভিএম-এ কোনো গোলযোগ দেখা দিলে বিকল্প পরিকল্পনা কী জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমাদের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী তো নিয়জিত আছেই। পাশাপাশি অতিরিক্ত আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী চাওয়া হয়েছে। স্ট্রাইকিং ফোর্স, টহল বাহিনী সবই থাকবে। তারা সব কিছু দেখবে। পুরো সিটি করপোরেশন এলাকা ৩ ভাগে ভাগ করে ৪৮ জনের টেকনিক্যাল মোবাইল টিম ঘুরবে। ইভিএম-এ কোনো ত্রুটি দেখা দিলে যখন যেখানে প্রয়োজন হবে তারা সেখানে যাবেন এবং কার্যকর ব্যবস্থা নেবেন।

প্রার্থীরা সংবাদ সম্মেলনে তাদের আশঙ্কার কথা তুলে ধরছেন। এ ধরনের কোনো আনুষ্ঠানিক অভিযোগ কমিশন পেয়েছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমাদের কাছে এ ধরনের কোনো অভিযোগ আসেনি। তবে আমাদের প্রস্তুতি আছে। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, ম্যাজিস্ট্রেট এবং আমাদের টিমের সমন্বয়ে প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে।

মাহফুজা আক্তার আরও বলেন, এখান থেকে আমরা ১০ থেকে ১১ নম্বর ওয়ার্ডের মালামাল বিতরণ করছি। ১ থেকে ৯ পর্যন্ত ওয়ার্ডের মালামাল বিতরণ হবে সিদ্ধিরগঞ্জ পাওয়ার হাউস বিদ্যালয় থেকে। বন্দর থানার মালামাল বিতরণ হবে বন্দর থেকে। ইতোমধ্যে সব আয়োজন সম্পন্ন হয়েছে। আমাদের প্রিসাইডিং অফিসাররা চলে এসেছেন। দায়িত্বরত পুলিশ ফোর্স তারা আসতে শুরু করেছেন।

মডার্ন উচ্চ বিদ্যালয়ে ৪টি কেন্দ্রের মধ্যে দুটি কেন্দ্র (১২১ ও ১২৩) আমরা মডেল বুথ হিসেবে ব্যবহার করছি। একটি পুরুষ কেন্দ্র ও একটি নারী কেন্দ্র। একটি কেন্দ্রে বুথ সংখ্যা ৬টি ও অন্যটিতে ৫টি। এখানে আমাদের টেকনিক্যাল টিম থাকবে, অতিরিক্ত মেশিন থাকবে, ট্রাবল শ্যুটাররা থাকবে বলে জানান রিটার্নিং অফিসার।


আরও খবর



ককটেল বিস্ফোরণ: বিএনপির ১০ নেতাকর্মীর পাঁচ বছর করে কারাদণ্ড

প্রকাশিত:সোমবার ১০ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৬ জানুয়ারী ২০২২ | ৫৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

২০১৩ সাল ভাষানটেক থানা এলাকায় বিএনপির ডাকা হরতাল-অবরোধে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় করা মামলায় বিএনপির ১০ নেতাকর্মীর পাঁচ বছর করে কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। কারাদণ্ডের পাশাপাশি প্রত্যেকের পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও তিনমাসের বিনাশ্রম কারাভোগ করতে হবে। অন্যদিকে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় বিএনপির ১৪ নেতাকর্মীকে খালাস দিয়েছেন আদালত।

আজ সোমবার (১০ জানুয়ারি) ঢাকার ৯ নং বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক আমিরুল ইসলাম এ রায় ঘোষণা করেন।

কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- সুমন চন্দ্র, জসিম, আমিনুল, সোহেল, কাউছার, জুয়েল, আব্দুর রহমান, শহীদ, মহসিন ও লিটন।

খালাসপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- ইসমাইল, আজাদ, বকুল হোসেন, নজরুল ইসলাম, নাডু জামান, আব্দুল কালাম, জিলাফি বাচ্চু, বিকু জামান, জলিল ইসলাম, ফিরোজ, শামীম, কালা বাচ্চু, আলতাফ হোসেন ও সিরাজুল ইসলাম।

মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, ২০১৩ সালে ২৬ নভেম্বর বিএনপিসহ ১৮ দলের ডাকা হরতাল-অবরোধের সময় আসামিরা ভাষানটেক থানার ভাষানটেক মোড়ে নাশকতা সৃষ্টি করতে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। এ ঘটনায় ভাষানটেক থানার উপ-পরিদর্শক জাহিদুল ইসলাম বাদী হয়ে বিস্ফোরক আইনে একটি মামলা করেন।

সংশ্লিষ্ট আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী কারিমা আক্তার ও ওবাইদুল হক চৌধুরী এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তারা জানান, ২০১৩ সালের বিএনপির ডাকা হরতাল অবরোধে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় বিএনপির ১০ নেতাকর্মীর পাঁচ বছর করে কারাদণ্ড একই সঙ্গে ১৪ জনকে খালাসের আদেশ দিয়েছেন আদালত।


আরও খবর