শিরোনাম

খালেদা জিয়া মুক্ত, তিনি সরকারি হেফাজতে নেই: আইনমন্ত্রী

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ১৪০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
কিন্তু ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১ ধারায় এমন কিছু নেই। এই বিধানটি সরকারকে এই বিষয়ে যেকোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার সীমাহীন কর্তৃত্ব দেয়

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া এখন মুক্ত, কারণ তিনি নিশ্চিতভাবে সরকারি হেফাজতে নেই। আজ রোববার জাতীয় সংসদে আইনমন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

আনিসুল হক বলেন, তিনি (খালেদা) অবশ্যই মুক্ত। তিনি স্পষ্টতই আমাদের হেফাজতে বা সরকারি হেফাজতে নয়। ফলে তিনি অবশ্যই তাঁর ইচ্ছামতো যেকোনো জায়গায় চিকিৎসা পেতে পারেন এবং তিনি তা করছেন।

খালেদা জিয়া এখনও সরকারি হেফাজতে আছেন বলে সংসদে বিএনপির সংসদ সদস্য রুমিন ফারহানার করা মন্তব্যের জবাবে সংসদে আইনমন্ত্রী এ মন্তব্য করেছেন।

রুমিন বলেন, নেত্রীর কিছু হলে তার পুরো দায়ভার সরকারকেই বহন করতে হবে। কারণ তিনি গত তিন বছর ধরে সরকারি হেফাজতে রয়েছেন। তিনি বলেন, আইনমন্ত্রী এর আগে যুক্তি দিয়েছিলেন যে, ফৌজদারি কার্যবিধির একই বিধানে (ধারা ৪০১) একটি ফৌজদারি মামলা পুনর্বিবেচনার সুযোগ না থাকায় বিদেশে যাওয়ার জন্য খালেদা জিয়াকে আবার কারাগারে যেতে হবে।

রুমিন বলেন, কিন্তু ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১ ধারায় এমন কিছু নেই। এই বিধানটি সরকারকে এই বিষয়ে যেকোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার সীমাহীন কর্তৃত্ব দেয়।

বিএনপির সংসদ সদস্য মোশারফ হোসেন বলেছেন, সরকার যেহেতু যুক্তি দিচ্ছে যে, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে বিদেশ যাওয়ার অনুমতি নিতে আবার কারাগারে যেতে হবে, তাই সরকার তাঁর বাসভবনকে সাব-জেল ঘোষণা করে তাঁকে বিদেশে যাওয়ার অনুমতি দিতে পারে।

এসব মন্তব্যের জবাবে আইনমন্ত্রী জানান, এ বিষয়ে তিনি যা বলেছেন তার ওপর এখনও অটল রয়েছেন। একটি নির্ধারিত মামলার বিষয়ে আর কোনো সিদ্ধান্ত দেওয়া যাবে না।

আইনমন্ত্রী বিএনপির সংসদ সদস্যদকে ইঙ্গিত করে বলেন, আপনি ধারা ৪০১ (সিআরপিসি) নিয়ে কী ব্যাখ্যা দিয়েছেন তা নিয়ে আমার মতভেদ রয়েছে।

আনিসুল হক বলেন, খালেদা জিয়াকে মানবিক কারণে মুক্ত করা হয়েছে এবং তার ওপর নতুন দাবি মেনে নেওয়া যায় কি না সরকার বিবেচনা করবে।


আরও খবর



এ মুহূর্তে লকডাউন দেওয়ার পরিকল্পনা নেই : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিত:রবিবার ০৯ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৪৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দেশে এ মুহুর্তে লকডাউন দেওয়ার কোনো পরিকল্পনা সরকারের নেই বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন।

রোববার দুপুরে শেখ রাসেল জাতীয় গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট হাসপাতালে ঢাকায় নিযুক্ত বিদেশি রাষ্ট্রদূতদের কোভিড-১৯ টিকার বুস্টার ডোজ প্রদানের উদ্বোধনকালে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কথা জানান।

তিনি বলেন, বিদেশ যাওয়া-আসার বিষয়ে আমরা সবাইকেই নিরুৎসাহিত করছি। বিশেষ করে আমাদের জনসাধারণকে বাঁচাতে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে ভ্রমণে স্বাস্থ্য নিরাপত্তা জোরদার করা হচ্ছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ভালো খবর হচ্ছে ওমিক্রনের আক্রান্তদের মৃত্যুহার অনেক কম। অনেক মানুষ বেশি সাবধান থাকতে চায়, তাই তারা লকডাউন চাচ্ছেন।

কোভিড-১৯ মহামারি আমাদের উপলব্ধি করিয়েছে যে, এটিকে আমরা একা সামলাতে পারব না। এ চ্যালেঞ্জ আমাদের একে অন্যের সহযোগিতায় মোকাবিলা করতে হবে-যোগ করেন আবদুল মোমেন।

তিনি বলেন, আমি খুব খুশি আমরা বিশেষভাবে বাংলাদেশে কর্মরত কূটনীতিক ও তাদের পরিবারের বুস্টার ডোজ টিকা কার্যক্রম চালু করতে পেরে। ইতোমধ্যে দেশে আমরা সাড়ে সাত কোটি মানুষকে টিকা দিয়েছি।


আরও খবর



আমার হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হচ্ছে: শামীম ওসমান

প্রকাশিত:শুক্রবার ৩১ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৬ জানুয়ারী ২০২২ | ৬২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ শামীম ওসমান বলেছেন, আমি এখনো মানসিকভাবে সুস্থ না। হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হচ্ছে। অনেকটাই ভেঙে পড়েছি। কারণ আমার বাবা-মাসহ স্বজনদের কবরে শ্মশানের মাটি এনে রেখেছিল। সেই ঘটনার মানসিক যন্ত্রণা এখনো আমি ঘুচাতে পারি নাই। তাই আমার মনটা বেশি ভালো না।

গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে শহরের রাইফেল ক্লাবে মতবিনিময় কালে এই মন্তব্য করেন শামীম ওসমান। সদ্য অনুষ্ঠিত ফতুল্লা ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের সঙ্গে এই মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

শামীম ওসমান বলেন, রাজনীতিতে আমাদের পূর্ব পুরুষদের অনেক অবদান আছে। আমরা সে হিসেবে অনেক নগণ্য। যখন তাঁদের কবরে এমন ঘটনা ঘটে তখন কষ্ট লাগে। সেই কষ্টের দাগ এখনো শুকায়নি। জানি না কবে শুকাবে। ঘটনার পর সিটি করপোরেশন একটা প্রেস রিলিজ দিল। কিন্তু সেখানেও তাদের মিথ্যার আশ্রয়।

ফতুল্লায় পরিবর্তন করার ঘোষণা দিয়ে সাংসদ বলেন, আমি অচিরেই ফতুল্লার মানুষের ঘরে ঘরে যাব, যেভাবে ভোটের আগে গিয়েছিলাম। এলাকাভিত্তিক পঞ্চায়েত ব্যবস্থা শুরু করব। পাড়া মহল্লার পরিবেশ পরিবর্তন আনতে হবে।

মতবিনিময় সভায় অন্যান্যদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সেক্রেটারি আবু হাসনাত শহীদ বাদল, বন্দর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এম এ রশিদ, মহানগর আওয়ামী লীগের সম্পাদক খোকন সাহা, সহসভাপতি চন্দন শীল, যুগ্ম সম্পাদক শাহ নিজাম, ফতুল্লা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান স্বপন প্রমুখ।


আরও খবর



রংপুরে প্রেমের ফাঁদ

অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার মামলায় গ্রেফতার পুলিশ পরিদর্শকের স্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৪ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৭৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

প্রেমের ফাঁদে ফেলে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে রংপুর জেলা পুলিশে কর্মরত একজন পুলিশ পরিদর্শকের স্ত্রীকে গ্রেফতার করেছে মেট্রোপলিটন কোতয়ালী থানা পুলিশ। মঙ্গলবার (৪ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় রংপুর মহানগরীর বিকন মোড়ের একটি বহুতল ভবনের তৃতীয়তলা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

কোতয়ালী থানার ওসি আব্দুর রশিদ বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, গ্রেফতারকৃত ফাতেমা খাতুন (তানিশা) রংপুর জেলা পুলিশ হাসপাতালের দায়িত্বরত পরিদর্শক হাবিবুর রহমানের স্ত্রী। তারা নগরীর বিকন মোড়ের ছয়তলা ওই ভবনটি তৃতীয় তলায় ভাড়ায় থাকতেন।

পুলিশ জানিয়েছে, রংপুর এক্সপ্রেসের ম্যানেজার আশরাফুল ইসলামের করা মামলায় তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তানিশার বাড়ি বগুড়ার সোনাতলা ও হাবিবুর রহমানের বাড়ি কুড়িগ্রামে।

মামলায় অভিযোগ আনা হয় প্রেমের ফাঁদে ফেলে তানিশা আশরাফুলের কাছ থেকে কয়েক লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। সুনির্দিষ্ট প্রমাণের ভিত্তিতে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তানিশা এ চক্রের বেশ হোতা ও অন্যান্য সদস্যদের তথ্য দিয়েছেন। তা খতিয়ে দেখতে অভিযান অব্যাহত আছে।

রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের একজন উর্ধতন কর্মকর্তা জানান, ইদানিং রংপুর মহানগর এলাকায় প্রেমের আড়ালে বিভিন্ন পুরুষকে ব্ল্যাক মেইল করে অর্থ হাতিয়ে নেয়ার পাশাপাশি নানা ধরণের অপরাধে জড়াচ্ছে একটি চক্র। এ কাতারে সমাজের উুঁচ শ্রেনীর নারীদের নামই আসছে বেশি। যারা বিভিন্ন সম্মানজনক পেশায়ও নিয়োজিত আছেন। পুরো চক্রটির ব্যপারে পুলিশ সোচ্চার আছে। সুনির্দিষ্ট অভিযোগ ও তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে তাদের আইনের আওতায় আনা হচ্ছে। পাশাপাশি আমরা সোস্যাল নুইসেন্স আইনের কঠোর প্রয়োগও করছি।

উল্লেখ্য, গতকাল সোমবার (৩ জানুয়ারি) দুপুরে রংপুর মহানগরীর গ্র্যান্ড হোটেল মোড়ের নিজ বাড়িতে থেকে একই ধরনের প্রতারণার অভিযোগে শাহারুখ করিম অনিক (৩৪) ও স্ত্রী আসমানী আক্তার (৩০) দম্পতিকে গ্রেফতার করে র‍্যাব-১৩। এসময় তাদের একটি টর্চার রুম থেকে দুটি চাপাতি, ইলেকট্রিক শর্টের তার, মাদক সেবনের সরঞ্জামাদি, হাতুড়ি, ছুরি, স্ট্যাম্প, ভিডিও ধারনের দুটি মোবাইল ফোন ও একটি ল্যাপটপ উদ্ধার করা হয়েছিল।

নিউজ ট্যাগ: রংপুর

আরও খবর



কেউ সংলাপে না এলেও ইসি গঠন থেমে থাকবে না : কাদের

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৩৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এমপি বলেছেন, নেতিবাচক রাজনীতি থেকে সরে এসে শক্তিশালী নির্বাচন কমিশন গঠনে বিএনপি এগিয়ে আসবে বলে আশা করি। কেউ সংলাপে আসুক বা না আসুক নির্বাচন কমিশন গঠন থেমে থাকবে না। সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির ভার্চুয়াল সভায় আজ বুধবার (২৯ ডিসেম্বর) সকালে তার বাসভবনে ব্রিফিংকালে তিনি এসব কথা বলেন।

রাষ্ট্রপতির সংলাপ অর্থহীন এবং এই সংলাপে নাকি সংকটের সমাধান হবে না, বিএনপি মহাসচিবের এমন বক্তব্যের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, এর আগেও নির্বাচন কমিশন গঠনে যে পদ্ধতি অনুসরণ করা হয়েছে, এবারও সেই পদ্ধতি অনুসরণ করা হচ্ছে।

গতবারও বিএনপির তালিকা থেকে একজন নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ দেওয়া হয়েছে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, মিডিয়ায় বক্তব্য দিয়ে শক্তিশালী নির্বাচন কমিশন গঠন করা যাবে না। নির্বাচন কমিশন গঠন করতে হলে নির্দিষ্ট প্রক্রিয়া অনুসরণ করতে হবে। এর মাধ্যমেই প্রমাণিত হবে বিএনপি কী শক্তিশালী নির্বাচন কমিশন চায়, নাকি বিতর্ক সৃষ্টি করতে চায়।

সরকার নাকি দেশকে অগণতান্ত্রিক দেশ হিসেবে চিহ্নিত করেছে, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এই বক্তব্য প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রকৃতপক্ষে দেশের গণতান্ত্রিক অগ্রযাত্রায় শেখ হাসিনার নিরলস প্রয়াসে বিএনপিই পদে পদে বাধা সৃষ্টি করছে। বিএনপির বহুদলীয় তামাশা আর ভোটারবিহীন নির্বাচনই দেশকে গণতন্ত্র থেকে ছিটকে দিয়েছিল।

সোয়া এক কোটি ভুয়া ভোটার সৃষ্টি করে বিএনপি গণতন্ত্রের কবর রচনা করতে চেয়েছিল উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, আপাদমস্তক অগণতান্ত্রিক ও লুটপাটের রাজনীতির জনক বিএনপি মুখে গণতন্ত্রের বুলি ছাড়লেও অন্তরে সাম্প্রদায়িকতা আর সুবিধাবাদ লালন করে। বিএনপিই এদেশকে ধর্মান্ধ, উগ্রবাদী ও সাম্প্রদায়িক দেশ হিসেবে চিহ্নিত করেছিল।

বিএনপি নেতাদের অবিরাম মিথ্যাচারের দাপটে এখন আর তাদের বক্তব্যে সত্যের লেশমাত্র খুঁজে পাওয়া যায় না এমন দাবি করে ওবায়দুল কাদের বলেন, বেগম জিয়ার মামলার শুরু থেকে এখন পর্যন্ত তারা মিথ্যাচার আর অপরাজনীতির ওপরই ভরসা করে চলেছে। বন্দি বেগম জিয়া অধিকতর শক্তিশালী- এ দর্শন প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে তারা মুক্তির চেষ্টাও করেনি। আইনগত লড়াইও তেমনটা করেনি। তাদের উদ্দেশ্যমূলক অপরাজনীতির দাবার গুটি হয়েছেন বেগম জিয়া।

বিএনপি নেতারা বেগম জিয়ার চিকিৎসা নিয়েও অতিরাজনীতি করছে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, তারা চিকিৎসার চেয়ে রাজনৈতিক ফায়দা হাসিলকেই অধিকতর গুরুত্ব দিয়েছে। বরং শেখ হাসিনাই বেগম জিয়ার প্রতি উদারতা ও মানবিকতার নজির স্থাপন করেছেন। অথচ সেই কৃতজ্ঞতাবোধও বিএনপিতে নেই।


আরও খবর



চট্টগ্রামে বিএনপির সমাবেশে দুইপক্ষের মারামারি

প্রকাশিত:বুধবার ১২ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৩৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে উন্নত চিকিৎসার দাবিতে ডাকা চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির সমাবেশে দুই পক্ষের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটেছে। 

এসময় মঞ্চ ভাংচুর করা হয় এবং দক্ষিণ জেলা বিএনপি নেতা সরওয়ার নিজামকে লাঞ্ছিত করা হয়।

বুধবার (১২ জানুয়ারি) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে কর্ণফুলী থানার সিডিএ আবাসিক মাঠে এ ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছেন কর্ণফুলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দুলাল মাহমুদ।

তিনি  বলেন, সকাল থেকে বিএনপির নেতা-কর্মীরা সমাবেশে আসতে শুরু করে। সমাবেশ শুরু হওয়ার কিছুক্ষণ পরই দুপুরে তারা মারামারিতে জড়ায়। এসময় বিএনপির এক নেতা লাঞ্ছিত হয়েছেন বলে শুনেছি। তবে এ ঘটনায় কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি। 

সমাবেশে প্রধান অতিথি বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন। পরে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। 

এ সমাবেশে আবু সুফিয়ানের সভাপতিত্বে প্রধান বক্তা বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা জয়নাল আবেদীন ফারুক ছাড়াও কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতারা বক্তব্য দেন। দক্ষিণ চট্টগ্রামের আনোয়ারা, পটিয়া, বোয়ালখালী, বাঁশখালী, সাতকানিয়া, লোহাগাড়া, চন্দনাইশ ও কর্ণফুলী উপজেলা থেকে নেতা-কর্মীরা সমাবেশে যোগ দেন।


আরও খবর