Logo
শিরোনাম

করোনা: সুস্থ হয়েছেন ১০ কোটি ৭২ লাখ ৬০ হাজার

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১১ এপ্রিল ২০২১ | ৬২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানির পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্যানুযায়ী, বুধবার (৭ এপ্রিল) সকাল পর্যন্ত বিশ্বে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১৩ কোটি ৩০ লাখ ১৬ হাজার ৭৭৪ জন এবং মৃত্যু হয়েছে

বিশ্বব্যাপী করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের তাণ্ডব কোনোভাবেই থামছে না। দিন দিন এ ভাইরাসটি আরও ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছে। কিছুতেই মানুষের মনে আতঙ্ক কমছে না। করোনার টিকা আবিষ্কার হলেও এখনো অস্বস্তিতে বিশ্ববাসী। এরই মধ্যে বিশ্বে করোনায় মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ২৮ লাখ ৮৫ হাজার এবং আক্রান্ত হয়েছে ১৩ কোটি ৩০ লাখের বেশি মানুষ।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানির পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্যানুযায়ী, বুধবার (৭ এপ্রিল) সকাল পর্যন্ত বিশ্বে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১৩ কোটি ৩০ লাখ ১৬ হাজার ৭৭৪ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ২৮ লাখ ৮৫ হাজার ৯১৬ জনের। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১০ কোটি ৭২ লাখ ৬০ হাজার ৯০ জন।

করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও মৃত্যু হয়েছে বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশ যুক্তরাষ্ট্রে। তালিকায় শীর্ষে থাকা দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনা সংক্রমিত হয়েছেন ৩ কোটি ১৫ লাখ ৬০ হাজার ৪৩৮ জন। মৃত্যু হয়েছে ৫ লাখ ৭০ হাজার ২৬০ জনের। আক্রান্তে ও মৃত্যুতে দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ব্রাজিলে এখন পর্যন্ত সংক্রমিত হয়েছেন এক কোটি ৩১ লাখ ৬ হাজার ৫৮ জন এবং মারা গেছেন ৩ লাখ ৩৭ হাজার ৩৬৪ জন। আক্রান্তে তৃতীয় এবং মৃত্যুতে চতুর্থ অবস্থানে থাকা ভারতে এখন পর্যন্ত করোনায় এক কোটি ২৭ লাখ ৯৯ হাজার ৭৪৬ জন সংক্রমিত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে এক লাখ ৬৬ হাজার ২০৮ জনের।

আক্রান্তের দিক থেকে চতুর্থ স্থানে ফ্রান্স রয়েছে। দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৪৮ লাখ ৪১ হাজার ৩০৮ জন। ভাইরাসটিতে মারা গেছেন ৯৭ হাজার ২৭৩ জন। আক্রান্তের দিক থেকে রাশিয়া রয়েছে পঞ্চম স্থানে। দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ৪৫ লাখ ৮৭ হাজার ৮৬৮ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন ১ লাখ ১ হাজার ১০৬ জন। এদিকে আক্রান্তের তালিকায় যুক্তরাজ্য ষষ্ঠ, ইতালি সপ্তম, তুরস্ক অষ্টম, স্পেন নবম এবং জার্মানি দশম স্থানে আছে। এ ছাড়া বাংলাদেশের অবস্থান ৩৩তম।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরের শেষ দিকে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান থেকে করোনাভাইরাস সংক্রমণ শুরু হয়। এখন পর্যন্ত বাংলাদেশসহ বিশ্বের ২১৮টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে কোভিড-১৯।


আরও খবর

মিয়ানমারে সেনা অভিযানে নিহত ৮২

রবিবার ১১ এপ্রিল ২০২১




হোটেল-রেস্তোরাঁ খোলা, তবে বসে খাওয়া যাবে না

প্রকাশিত:রবিবার ০৪ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১০ এপ্রিল ২০২১ | ৩৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আগামী ৫ থেকে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত লকডাউন চলাকালে খাবার হোটেল বা রেস্তোরাঁ খোলা রাখার অনুমতি থাকলেও সেখানে বসে খাবার গ্রহণে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে সরকার। 

লকডাউন তথা করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) এর বিস্তার রোধকল্পে শর্ত সাপেক্ষে সার্বিক কার্যাবলি/চলাচলে নিষেধাজ্ঞা দিয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ রবিবার (০৪ এপ্রিল) প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।

এতে বলা হয়, খাবারের দোকান ও হোটেল-রেস্তোরাঁয় কেবল খাদ্য বিক্রয়/সরবরাহ (টেকওয়ে/অনলাইন) করা যাবে। কোনো অবস্থাতেই হোটেল-রেস্তোরাঁয় বসে খাবার গ্রহণ করা যাবে না।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, এই আদেশ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


আরও খবর



হরতালের প্রভাব নেই রাজধানীর ফার্মগেট-কারওয়ান বাজারে

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৯ এপ্রিল ২০২১ | ৪৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

হেফাজতে ইসলামের ডাকা হরতালের প্রভাব নেই রাজধানীর কারওয়ান বাজার ও ফার্মগেট এলাকায়। রোববার (২৮ মার্চ) সকাল ১০টা পর্যন্ত এ এলাকায় তাদের নেতাকর্মী বা সমর্থকদের দেখা যায়নি। সড়কে যানবাহন চলাচলও রয়েছে স্বাভাবিক।

কাওরান বাজার ও ফার্মগেট এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, বাস, প্রাইভেটকার, সিএনজি, মোটরসাইকেলসহ সবধরনের যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। কারওয়ান বাজারের কাঁচাবাজারে মানুষের ভিড়। এছাড়া কর্মজীবী মানুষ অফিস বা কাজের জন্য বের হওয়াসহ যাবতীয় কার্যক্রম স্বাভাবিক রয়েছে।

সড়কে বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশের সতর্ক অবস্থানে থাকতে দেখা গেছে। তবে মাঠে নামতে দেখা যায়নি হেফাজতে ইসলামের সমর্থক বা নেতাকর্মীদের। এ এলাকায় এখন পর্যন্ত কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

রাজধানীতে সকাল থেকেই রিকশা চালাচ্ছেন রতন মিয়া। ফার্মগেট মোড়ে দাঁড়িয়ে তিনি বলেন, সকাল থেকেই আমি রিকশা চালাচ্ছি। হরতালের সমর্থনে কোথাও কোনো গণ্ডগোল দেখিনি। হেফাজতের কোনো নেতাকর্মীও তো দেখলাম না।

ফার্মগেটের কাপড় বিক্রেতা মো. আরিফ বলেন, আজ যে হরতাল হচ্ছে, তা বোঝা যাচ্ছে না। হরতাল পালন কেডা করব, ওই ঘোষণা দেয়া পর্যন্তই।

নিউজ ট্যাগ: হরতাল

আরও খবর

লকডাউনেও ট্রাফিক জ্যাম

মঙ্গলবার ০৬ এপ্রিল ২০২১




স্ত্রীর যৌতুক মামলা : স্বামী নিজেই জানে না বউ কার

প্রকাশিত:রবিবার ২১ মার্চ 20২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৮ এপ্রিল ২০২১ | ৮৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বগুড়ার ধুনটে বিয়ে না করেও বউয়ের যৌতুক মামলার আসামি হয়েছেন শরীফ মেলামাইন কোম্পানির জোনাল ম্যানেজার টিএম আল জুবায়ের (৪৩)। তিনি উপজেলার নছরতপুর গ্রামের মৃত হাবিবর রহমানের ছেলে। এ ঘটনার পর থেকে গ্রামে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, জুবায়ের গাজীপুর জেলা শহরে শরীফ মেলামাইন কোম্পানির জোনাল ম্যানেজার পদে চাকরি করেন। তার শিক্ষা সনদপত্রের ফটোকপি কৌশলে হাতিয়ে নেন নছরতপুর গ্রামের মৃত তাহের মন্ডলের ছেলে জুয়েল মাহমুদ (৩৫)।

জুবায়েরের শিক্ষা সনদপত্রের ফটোকপি দিয়ে জুয়েল মাহমুদ গাজীপুর এলাকায় পোশাক কারখানায় চাকরি নেন। পরে একই কারখানায় চাকরি করার সুবাদে আলমিনা খাতুন নামে এক সহকর্মীর সাথে জুয়েল মাহমুদের প্রেমের সম্পর্ক তৈরি হয়। আলমিনা কিশোরগঞ্জের অস্টগ্রাম উপজেলার দেওঘর গ্রামের মৃত আব্দুর রহমানের মেয়ে।

২০১৫ সালের ৮ নভেম্বর জুয়েল মাহমুদ নিজের নাম গোপন রেখে শিক্ষা সনদ অনুযায়ী আল জুবায়েরের নাম ও পরিচয় ব্যবহার করে দুই লাখ টাকা রেজিস্ট্রি কাবিনমূলে আলমিনা খাতুনকে বিয়ে করেন। বিয়ের ৩ বছর পর জুয়েল মাহমুদ বউকে ছেড়ে পালিয়ে যান। এই কারণে আলমিনা খাতুন বাদী হয়ে ২০১৯ সালের ৬ অক্টোবর কিশোরগঞ্জ আদালতে বিয়ের কাবিননামায় লিখিত নাম অনুসারে আল জুবায়েরের বিরুদ্ধে যৌতুক নিরোধ আইনে মামলা করেন।

কিশোরগঞ্জ আদালত থেকে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা পেয়ে আল জুবায়ের প্রতারণার বিষয়টি টের পান। এর পরে এ ঘটনার বিষয়ে অনুসন্ধানে আল জুবায়ের বেশ কিছু তথ্য পান, জুয়েল মাহমুদ তার নাম ব্যবহার করে আলমিনা খাতুনকে বিয়ে করেছেন। এ ঘটনায় বর্তমানে আল জুবায়ের আদালত থেকে জামিন নিয়েছেন। অন্যদিকে প্রতারক জুয়েল মাহমুদ এখনো পলাতক।

ভুক্তভোগী আল জুবায়ের বলেন, জুয়েল মাহমুদের প্রতারণার শিকার হয়ে আমার মানসম্মান ক্ষুণ্ণ হয়েছে ও আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি। তার প্রতারণার হাত থেকে রক্ষা পেতে থানায় একটি সাধারণ ডায়রি (জিডি) করেছি।

এ ঘটনার বিষয়ে ধুনট থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) প্রদীপ কুমার বর্মন বলেন, আল জুবায়েরের জিডির আরজি তদন্ত করে সত্যতা পাওয়া গেছে।

নিউজ ট্যাগ: যৌতুক মামলা

আরও খবর



নোয়াখালীতে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১০ এপ্রিল ২০২১ | ৬৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নোয়াখালীতে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ মিছিলসহ শান্তিপূর্ণভাবে চলছে হরতাল। হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের ডাকা দেশব্যাপী হরতালের দিন আজ রোববার নোয়াখালীর সর্বত্র শান্তিপূর্ণভাবে হরতাল চলছে। তবে, আজ সকাল ৬টা থেকে জেলা শহর মাইজদী, চৌমুহনীসহ বিভিন্ন স্থানে রাস্তায় গাছের গুড়ি ফেলে সড়ক অবরোধ করে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ মিছিল করেছে হরতালকারীরা। বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা এ সময় হাতে লাঠি নিয়ে মিছিল নিয়ে বাজার প্রদক্ষিণ করে।

তবে, জেলার সঙ্গে অন্যান্য অঞ্চলের ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। চৌমুহনী রেলগেইট, মোর্শেদ কমপ্লেক্স, দক্ষিণ বাজার এবং সদরের বড় মসজিদ মোড়, টাউনহল এলাকাসহ বিভিন্ন স্থানে হরতালকারীদের অবস্থান করতে দেখা যায়। তাদের রাস্তায় দাঁড়িয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করতে দেখা যায়।

নিউজ ট্যাগ: হরতাল

আরও খবর



গাইবান্ধায় কালবৈশাখীর তাণ্ডবে নিহত বেড়ে ১০

প্রকাশিত:সোমবার ০৫ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১১ এপ্রিল ২০২১ | ৬৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

গাইবান্ধা সদর, পলাশবাড়ী, সুন্দরগঞ্জ ও ফুলছড়ি উপজেলায় কালবৈশাখী ঝড়ে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১০ জনে দাঁড়িয়েছে। নিহতের মধ্যে গাইবান্ধা সদরে চারজন, ফুলছড়িতে দুইজন, পলাশবাড়ীতে  তিনজন এবং সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় একজন।

সোমবার (৫ এপ্রিল) সকালে গাইবান্ধা জেলা প্রশাসক (ডিসি) আব্দুল মতিন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ফুলছড়িতে নিহত দুইজেনের মধ্যে একজন ঝড়ের সময় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন। তাই সরকারিভাবে ঝড়ে নিহতের সংখ্যা ৯ জন হিসাব করা হয়েছে।

তারা হলেন- গাইবান্ধা সদর উপজেলার মালিবাড়ী ইউনিয়নের ঢনঢনিপাড়া গ্রামের মিঠু মিয়ার স্ত্রী সাহারা বেগম (৪১), হরিণসিংগা গ্রামের হিরু মিয়ার ছেলে মুনির (৫), আরিফ খান বাসুদেবপুর গ্রামের রিজু মিয়ার স্ত্রী আর্জিনা বেগম (২৮), রিফাইতপুর গ্রামের খগেন্দ্র চন্দ্রের স্ত্রী জোৎস্না রানী (৫৫), পলাশবাড়ী উপজেলার ডাকেরপাড়া গ্রামের ইউনুস আলীর স্ত্রী জাহানারা বেগম (৫০), মোস্তফাপুর গ্রামের আব্বাস আলীর ছেলে গোফ্ফার (৪২), মনোহরপুর ইউনিয়নের কুমেদপুর গ্রামের মমতা বেগম (৫৫), সুন্দরগঞ্জ উপজেলার কিশামত হলদিয়া গ্রামের সোলেমান আলীর স্ত্রী ময়না বেগম (৪০), ফুলছড়ি উপজেলার কাতলামারী গ্রামের বিটুল মিয়ার স্ত্রী শিমুলী বেগম (২৫), ফুলছড়ি উপজেলার রেন্ডাবাড়ী ইউনিয়নের ডাকাতিয়ার চর গ্রামের বারেক মিয়ার ছেলে হাফিজ উদ্দিন (৬০)। তাদের মধ্যে হাফিজ উদ্দিন ঝড়ের সময় বাতাসে ইজিবাইজ উল্টে নিহত হন।

এর আগে রবিবার (৪ এপ্রিল) বিকেল ৩টার দিকে গাইবান্ধা সদরসহ সাত উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে যায় ঘণ্টাব্যাপী কালবৈশাখী ঝড়। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কয়েক হাজার ঘরবাড়ি, বিদ্যুতের খুঁটি, দোকানপাটসহ সরকারি স্থাপনা। নষ্ট হয়েছে আমের মুকুল ও আমন ধানের গাছসহ বিভিন্ন ফসল। সোমবার সকাল পর্যন্ত জেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হয়নি।

জেলা প্রশাসক আব্দুল মতিন জানান, প্রত্যেক মৃত ব্যক্তির পরিবারকে ১০ হাজার টাকা করে আর্থিক সহযোগিতা করা হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন স্থানে ভেঙে পড়া গাছ অপসারণসহ বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক করতে কাজ চলছে।


আরও খবর