Logo
শিরোনাম

করোনার টিকা ব্যবস্থাপনা: দশে দশ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৭৭২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
একবার টিকা নেওয়ার এক মাস পর দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিতে হবে। প্রথম ডোজ টিকা নেওয়ার ১০ দিন পর মাত্র ৫২ ভাগ ইমিউনিটি অর্জিত হয় বলে বিশেষজ্ঞরা বলছেন

আব্দুল কাইয়ুম

আজ ১০ ফেব্রুয়ারি সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে করোনার টিকা নিতে গিয়ে আমি তো হতবাক! এমন চমৎকার ব্যবস্থা কল্পনাও করিনি। আমার সাংবাদিক পরিচয় না দিয়ে ভাবলাম, দেখি তো কী হয়? একটি টেবিলে তিন-চারজন কর্মী কাজ করছেন। আমার অনলাইনে করা রেজিস্ট্রেশন কার্ড দিলাম। চট করে কর্মীরা তাঁদের ফাইলে রেজিস্ট্রেশন নম্বর লিখে পাঠিয়ে দিলেন ৬ নম্বর বুথে। পাঁচ মিনিটের মধ্যেই ডাক এল। একজন প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত নার্স আমাকে বললেন, কিছু না, টেরই পাবেন না। এই তো হয়ে গেল। তারপরই বললেন, হয়ে গেছে। বাইরে আধঘণ্টা বসে তারপর যেতে পারেন।

আমি তো অবাক। ত্বকে কখন সুই ফোটানো হলো টেরই পাইনি। এত সরু সুই আমি আগে কখনো দেখিনি। আজ পর্যন্ত বিভিন্ন সময় অন্তত কয়েক শ বার ইনজেকশন দিয়েছি। প্রতিবারই একটু চোখ বন্ধ করে, দম আটকিয়ে ব্যথা সহ্য করতে হয়েছে। কিন্তু এবারই প্রথম, ইনজেকশন কখন নিলাম, টেরই পেলাম না।

ভাবছিলাম কতই না অব্যবস্থাপনা দেখব। লাইন ধরে দাঁড়িয়ে থাকতে হবে। কিন্তু কিছু না। প্রশস্ত হলঘর। আট-দশটি বুথ। প্রতিটি বুথের সামনে বসার আসন। আসুন, বসুন, ইনজেকশন নিন, ব্যস, এবার নিশ্চিন্তে চলে যান। এ তো ভাবাই যায় না। টিকা নিতে আসছেন মানুষ। আবার যত জনের ব্যবস্থা, প্রায় সমানসংখ্যক মানুষ আসছেন। কোনো চেয়ার ফাঁকা নেই, আবার উপচে পড়া ভিড়ও নেই। দুই মিনিটে ইনজেকশন শেষ, ২০-৩০ মিনিট বসে বিশ্রাম। মানুষ আসছেন আর যাচ্ছেন।

এত চমৎকার ব্যবস্থাপনার জন্য সরকারের দক্ষতা সত্যি এক রেকর্ড। এর আগে আমরা দেখেছি করোনার সোয়াব টেস্টের জন্য কিছু ভুয়া ক্লিনিক গজিয়ে উঠেছে। হাজার হাজার টাকা নিয়ে মানুষকে মিথ্যা রিপোর্ট দিয়েছে। সরকার তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিয়ে একটা বার্তা দিয়েছে যে এ ধরনের অপকর্মের শাস্তি ভোগ করতে হবে। সরকার এবার টিকার ব্যাপারে বেসরকারি ভুয়া ক্লিনিকের কারসাজি বন্ধে দৃঢ় ব্যবস্থা নিয়েছে। সরকারি ব্যবস্থাপনায় টিকার ব্যবস্থা করা হয়েছে। হয়তো কিছুদিন পর বেসরকারি হাসপাতাল বা ক্লিনিককে সুযোগ দিতে পারে। সেটা সরকারের সিদ্ধান্তের বিষয়। কিন্তু জালিয়াত চক্র যেন কোনোভাবেই ঢুকে না পড়ে, সেটা নিশ্চিত করতে হবে।

মানুষ যেন প্রতারিত না হয়। হাজার হাজার টাকা লাগবে, আবার পরে হয়তো দেখা যাবে করোনার নকল ইনজেকশনের ব্যবসা শুরু হয়ে গেছে! এ ব্যাপারে যেকোনো সিদ্ধান্তের আগে নিরাপত্তা শতভাগ নিশ্চিত করতে হবে। আমাদের বিশ্বাস, সরকার এসব বিষয়ে সচেতন।

প্রথম দিকে মানুষ কিছুটা দ্বিধায় ছিল। টিকা নিলে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কথা ভাবছিল। কিন্তু এখন তো মন্ত্রী, জনপ্রতিনিধি, সমাজের গণ্যমান্য ব্যক্তি সবাই টিকা নিচ্ছেন এবং সুস্থই আছেন। তাঁরা সবাইকে টিকা নিতে বলছেন। তাই মানুষের দ্বিধা-দ্বন্দ্ব কেটে যাচ্ছে। করোনাভাইরাস নির্মূল করতে টিকার বিকল্প নেই। মানুষ তো মরবেই, অর্থনীতিও ভেঙে পড়বে। তাই সরকার যে প্রথম থেকেই টিকা কেনার ব্যবস্থা নিয়েছে, সেটা ছিল সময়োচিত উদ্যোগ। এ না হলে দেশে সারা বছর করোনার বিপর্যয় ঘুরেফিরে চলত।

টিকা ছাড়া শুধু সাধারণ চিকিৎসায় এই ভাইরাসের হাত থেকে বাঁচা কঠিন। আমরা তো দেখলাম আমাদের সহকর্মী, যুগ্ম সম্পাদক মিজানুর রহমান খান, সংবাদের সম্পাদক মুনীরুজ্জামানসহ কত সিনিয়র সাংবাদিক, চিকিৎসক, অধ্যাপকসহ অগণিত সাধারণ মানুষ কত অসহায়ভাবে মৃত্যুবরণ করলেন। এভাবে চললে অন্তত দুই বছরে অগণিত মানুষের রোগ-শোক-মৃত্যুর পর হয়তো করোনাভাইরাসে হার্ড-ইমিউনিটি অর্জন করা সম্ভব হতো। কিন্তু সেটা হতো সবচেয়ে অমানবিক একটা ব্যাপার। সরকার যে সেটা বুঝে সময়োচিত উদ্যোগ নিয়েছে, তা এক সাংঘাতিক সুবিবেচনার পরিচয়।

এখন আমাদের দেখতে হবে যেন দেশের অন্তত ৮০-৮৫ ভাগ মানুষ টিকা নিয়ে করোনামুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি করতে পারেন। এ জন্য সরকারের উদ্যোগই হবে মূল। দেশের অন্তত ১৩-১৪ কোটি মানুষের টিকার ব্যবস্থা করা দরকার। এ জন্য টাকা লাগবে। আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে বিল গেটসসহ অনেক ব্যক্তি টিকার ব্যবস্থা করার জন্য হাজার হাজার কোটি ডলার দান করেছেন। অনুন্নত দেশে বিনা পয়সার ব্যবস্থা করার আন্তর্জাতিক উদ্যোগ রয়েছে। আমাদের দেশের শিল্পপতিরাও নিজ দেশের সাধারণ মানুষের জন্য বিনা পয়সায় টিকার ব্যবস্থা করার জন্য সীমিত পর্যায়ে হলেও উদ্যোগ নিতে পারেন।

একবার টিকা নেওয়ার এক মাস পর দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিতে হবে। প্রথম ডোজ টিকা নেওয়ার ১০ দিন পর মাত্র ৫২ ভাগ ইমিউনিটি অর্জিত হয় বলে বিশেষজ্ঞরা বলছেন। তিন-চার সপ্তাহের মধ্য প্রায় ৯৫ ভাগ ইমিউনিটি নিশ্চিত। দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার দিন দশেকের মাথায় মোটামুটি করোনাপ্রতিরোধী হওয়া সম্ভব। তাই প্রথম টিকা নেওয়ার পর আগের মতোই সবাইকে মাস্ক পরে চলাফেরা করতে হবে। এটা যতটা না নিজের নিরাপত্তার জন্য, তার চেয়ে বেশি অন্যদের সংক্রমণমুক্ত রাখার জন্য। কারণ, করোনার টিকায় নিজে রোগপ্রতিরোধী হলেও শ্বাস-প্রশ্বাস, হাঁচি-কাশির মাধ্যমে অন্যদের করোনায় সংক্রমিত করতে পারে। তাই অন্তত আরও বেশ কয়েক মাস, অন্তত এই বছরটা মাস্ক পরা অব্যাহত রাখা জরুরি।

কেউ যেন ভাববেন না, আমাদের এলাকায় করোনা নেই, টিকার দরকার কী? না, এটা ভুল। আজ হয়তো নেই, কিন্তু কাল করোনা এসে যাবে। গ্রামের পর গ্রাম ছারখার হয়ে যেতে পারে। তাই করোনার টিকা উপেক্ষা করা যাবে না। অন্তত ১০ বছরের বেশি বয়সের সবাইকে করোনার টিকা নিতে হবে। পর্যায়ক্রমে সে ব্যবস্থা সরকার করবে, এটাই আমরা চাই।

সূত্র: প্রথম আলো


আরও খবর



ভারতে একদিনে রেকর্ড মৃত্যু ও শনাক্ত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৬ মে ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১১ মে ২০২১ | ৭৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
ভারতে এ পর্যন্ত ২ কোটি ১০ লাখ ৭০ হাজার ৮৫২ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। আর মৃত্যুর সংখ্যা ৪ লাখ ১৪ হাজার ৬৪৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। ভারতের পাঁচটি প্রধান রাজ্যে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু হওয়ায় মৃতের সংখ্যা প্রায় চার

করোনাভাইরাসের তাণ্ডবে রীতিমতো বিধ্বস্ত ভারত। দেশটিতে গত দুইদিন কিছুটা কম থাকলেও আবার এক ধাক্কায় সংক্রমণ বেড়েছে দেশটিতে। এতে আগের সব রেকর্ড ছাপিয়ে গেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছে ৪ লাখ ১২ হাজার ৬১৮ জন। আর মৃত্যু হয়েছে ৩ হাজার ৯৮২ জন।

এর আগে বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে কয়েকদিন আগে প্রথমবার একদিনে ৪ লাখ করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছিল ভারতে। গত ৩০ এপ্রিল ৪ লাখ ২ হাজার ৩৫১ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছিল ভারতে। সংক্রমণের সেই ধারা কিছুটা কমে আসলেও এখন আবার হঠাৎ করে আক্রান্তের সংখ্যা সব রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে।

এদিকে ভারতে এ পর্যন্ত ২ কোটি ১০ লাখ ৭০ হাজার ৮৫২ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। আর মৃত্যুর সংখ্যা ৪ লাখ ১৪ হাজার ৬৪৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। ভারতের পাঁচটি প্রধান রাজ্যে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু হওয়ায় মৃতের সংখ্যা প্রায় চার হাজারের কাছাকাছি পৌঁছে গেছে।

করোনায় ভারতের মহারাষ্ট্রের অবস্থা সবচেয়ে খারাপ। সেখানে গত ২৪ ঘণ্টায় মৃতের সংখ্যা ৯০০ পেরিয়ে গেছে। রাজ্যটিতে একদিনে ৯২০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া উত্তরপ্রদেশে ৩৫৭, কর্ণাটকে ৩৪৬, পাঞ্জাবে ১৮২, হরিয়ানায় ১৮১ ও তামিলনাড়ুতে ১৬৭ জনের মৃত্যু হয়েছে।


আরও খবর



আইন করে কিশোরীর সঙ্গে যৌন সম্পর্ক নিষিদ্ধ করলো ফ্রান্স

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ মে ২০২১ | ৮৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
ফ্রান্সে এতদিন নারীদের ক্ষেত্রে সম্মতিসূচক শারীরিক সম্পর্কের বয়স ছিল ১৫ বছর। যদি এর চেয়ে কম বয়সী কেউ ধর্ষণের শিকার হতো, তাহলে অভিযুক্তের আইনজীবী সেই ঘটনাকে সম্মতিসূচক সহবাস প্রমাণের চেষ্টা করতে পারতেন

কোনো কিশোরী অর্থাৎ ১৫ বছরের কম বয়সী মেয়ের সঙ্গে যৌন সম্পর্ক শাস্তিযোগ্য অপরাধ বলে ঘোষণা করলো ফ্রান্স। মেয়ের সম্মতিতেও যদি এই সম্পর্ক স্থাপিত হয় তবুও তা ধর্ষণ বলে বিবেচিত হবে বলে নতুন এক আইন পাস করেছে দেশটি।

ফ্রান্সে এতদিন নারীদের ক্ষেত্রে সম্মতিসূচক শারীরিক সম্পর্কের বয়স ছিল ১৫ বছর। যদি এর চেয়ে কম বয়সী কেউ ধর্ষণের শিকার হতো, তাহলে অভিযুক্তের আইনজীবী সেই ঘটনাকে সম্মতিসূচক সহবাস প্রমাণের চেষ্টা করতে পারতেন। এর মাধ্যমে অনেক ধর্ষণের ঘটনাই সম্মতিপূর্ণ সহবাস হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করে অভিযুক্তরা শাস্তি এড়িয়ে যেতেন।

তবে নতুন আইনের ফলে ওই সুযোগ আর থাকছে না। এখন থেকে ১৫ বছরের কম বয়সী কোনো মেয়ের সঙ্গে যৌন সম্পর্ক হলেই সেটি ধর্ষণ হিসেবে ধরা হবে এবং দোষীকে সর্বোচ্চ ২০ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হবে।

ফরাসি আইনমন্ত্রী এরিক মোরেট্টি এই আইন পাস হওয়ার ঘটনাটিকে তাদের সমাজব্যবস্থা ও শিশুদের জন্য ঐতিহাসিক বলে উল্লেখ করেছেন। অবশ্য এর নেতিবাচক প্রভাব নিয়ে উদ্বেগ জানিয়েছেন আইনজীবীদের একাংশ। দুজনের সম্মতিতে সহবাস হলেও আইন অনুযায়ী কেবল একজন ধর্ষণের সাজা পাবেন- এটা কি অবিচার নয়, এমন প্রশ্ন তাদের।


আরও খবর



করোনায় মৃত্যু ও সংক্রমণে এখন বিশ্বের শীর্ষে ভারত

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ মে ২০২১ | ৭৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
এই সময়সীমার মধ্যে দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৭৫ হাজার ৩০৬ জন, মারা গেছেন ১ হাজার ৬২৫। মহামারির শুরু থেকেই ২২১টি দেশে করোনায়

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে নাকাল ভারত। দেশটিতে ভয়াবহভাবে বেড়েই চলেছে ভাইরাসটিতে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। গত চার-পাঁচদিন ধরে ভারতে দৈনিক করোনা সংক্রমণ দুই লাখ ছাড়িয়ে যাচ্ছে এবং প্রতিদিনই সেই সংখ্যা আগের দিনের চেয়ে বাড়ছে।

এ পরিস্থিতিতে বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলোর মধ্যে ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় সর্বোচ্চ সংক্রমণ ও মৃত্যু হয়েছে। এই সময়সীমার মধ্যে দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৭৫ হাজার ৩০৬ জন, মারা গেছেন ১ হাজার ৬২৫। মহামারির শুরু থেকেই ২২১টি দেশে করোনায় আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থ হয়ে ওঠা বিষয়ক হাল নাগাদ তথ্য দিয়ে যাওয়া ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটার এই তথ্য জানিয়েছে।

ভারতে দৈনিক মৃত্যুও বাড়ছে লাগামহীনভাবে। রবিবার (১৮ এপ্রিল) দেশটিতে মারা গিয়েছিলেন ১ হাজার ৫০১ জন। তার আগের দিন শনিবার (১৭ এপ্রিল) দেশটিতে ১ হাজার ৩৪১ জনের মৃত্যু হয়েছিল। গত বছর ১৬ সেপ্টেম্বরের পর থেকে সেটিই ছিল দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে একদিনে মৃত্যুর সর্বোচ্চ সংখ্যা।

এদিকে সংক্রমণ ও মৃত্যুতে শীর্ষে আছে ভারতের পশ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্য মহারাষ্ট্র। সেখানে দৈনিক ৭০ হাজারের কাছাকাছি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হচ্ছে। মহারাষ্ট্রের পরই আছে দিল্লি। সেখানে করোনা পরীক্ষা করাতে আসা প্রতি তিনজনে একজন পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হচ্ছেন।

এছাড়া উত্তর প্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ, পাঞ্জাব, হরিয়ানা, কেরালা, তামিলনাড়ু, ছত্তিশগড় প্রভৃতি রাজ্যের অবস্থাও ভালো নয়। করোনার বাড়বাড়ন্তে হাসপাতালগুলোতে বেড়েছে রোগীর চাপ। যেসব রোগী হাসপাতালগুলোতে ভর্তি আছেন, তাদেরকেও অক্সিজেন ও প্রয়োজনীয় ওষুধ সরবরাহ করতে পারছে না কর্তৃপক্ষ।


আরও খবর



সেই সিএনজি চালক আলাউদ্দিনের ধান কেটে দিচ্ছে আ.লীগের নেতৃবৃন্দ

প্রকাশিত:বুধবার ২৮ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ মে ২০২১ | ৬১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নোয়াখালী প্রতিনিধি

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে আ.লীগের দুগ্রুপের মধ্যে বিবদমান দ্বন্দ্বের জেরে সংঘর্ষে নিহত সিএনজি চালক ও শ্রমিক লীগ নেতা আলাউদ্দিনের পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আ.লীগ নেতৃবৃন্দ।

বুধবার (২৮ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ৯টা থেকে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আ.লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদলের নেতৃত্বে নিহত আলাউদ্দিনের পরিবারের ১৭ ডিসেমেল জমির ধান কেটে ঘরে তুলে দিচ্ছেন স্থানীয় আ.লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতাকর্মী।

এ বিষয়ে বাদল বলেন, নিহত সিএনজি চালকের পরিবার এ মৌসুমে ইরি বোরো ধান চাষ করে। নানা সমস্যার কারণে তারা ধান কাটতে পারছেনা। ধান ক্ষেতে নষ্ট হওয়ার উপক্রম প্রায়। খবর পেয় দলীয় নেতাকর্মিদের নিয়ে তাদের চরফকিরা ইউনিয়নের চরকালি গ্রামের ১৭ ডিসমেল জমির ধান কেটে আমরা ঘরে তুলে দিচ্ছি। সম্পূর্ণ ধান ঘরে তুলে দিতে আরো একদিন সময় লাগতে পারে। এ ছাড়াও উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের অসহায় কৃষকদের পাশে দাঁড়ানোর আশা ব্যক্ত করেন তিনি।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি জায়দল হক কচি, চরফকিরা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আশ্রাফ হোসেন রভেন্স, চরফকিরা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক বদরুল হাসান সম্রাট প্রমূখ।

উল্লেখ্য, নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের বসুরহাটে গত (৯ মার্চ) বসুরহাটে আবদুল কাদের মির্জা ও উপজেলা আ.লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমানের বাদল অনুসারীদের মধ্যে সংঘর্ষে শ্রমিক লীগ নেতা আলাউদ্দিন গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান। তিনি মিজানুর রহমান বাদলের অনুসারী। এ ঘটনায় আলাউদ্দিনের ছোট ভাই এমদাদ হোসেন ওরফে রাজু সেতুমন্ত্রীর ছোট ভাই আবদুল কাদের মির্জাসহ ১৬৪ জনের নাম উল্লেখ করে লিখিত অভিযোগ নিয়ে একাধিকবার থানায় গেলেও পুলিশ মামলা নেয়নি।

পরে ১৪ মার্চ এমদাদ হোসেন বাদী হয়ে নোয়াখালীর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের ৪ নম্বর আমলি আদালতে একই আসামিদের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন।


আরও খবর



মেট্রোরেলের নির্মাণ কাজের অগ্রগতি ৬৩ শতাংশ: কাদের

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১১ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৪৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি বলেছেন, মেট্রোরেলের নির্মাণ কাজের ৬৩ দশমিক ২৬ শতাংশ সার্বিক গড় অগ্রগতি হয়েছে। প্রথম পর্যায়ের নির্মাণের জন্য নির্ধারিত উত্তরা তৃতীয় পর্ব হতে আগারগাঁও অংশের পূর্ত কাজের অগ্রগতি ৮৪ দশমিক ৭৯ শতাংশ। উত্তরার মেট্রোরেল ডিপোতে প্রথম মেট্রোট্রেন সেট এবং মেট্রোরেল নির্মাণ প্রকল্পের অগ্রগতি পরিদর্শন অনুষ্ঠানে মঙ্গলবার (১১ মে) সকালে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে তিনি এ তথ্য জানান।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী জানান, দ্বিতীয় পর্যায়ে নির্মাণের জন্য নির্ধারিত আগারগাঁও থেকে মতিঝিল অংশের পূর্ত কাজের অগ্রগতি হয়েছে ৫৯ দশমিক ৭৮ শতাংশ। অপরদিকে ইলেকট্রিক্যাল ও মেকানিক্যাল সিস্টেম, রোলিং স্টক ও ডিপো ইকুইপমেন্ট সংগ্রহ কাজের সমন্বিত অগ্রগতি হয়েছে ৫৪ দশমিক ৪০ শতাংশ। এ সময় উত্তরা ডিপোতে জাপানের অ্যাম্বাসেডর ও জাইকার কান্ট্রি ডিরেক্টর উপস্থিত ছিলেন।



আরও খবর

ঈদ মোবারক

শুক্রবার ১৪ মে ২০২১