Logo
শিরোনাম

করোনায় একদিনে আরও ৬৫ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৬৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ৬৫ জনের মৃত্যু হয়েছে।  এ নিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে ১১ হাজার ৬৪৪ জনের।

নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ১ হাজার ৭৩৯ জন। সবমিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৭ লাখ ৬৩ হাজার ৬৮২ জনে।

সোমবার (৩ মে) বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য মতে, ২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে করোনা ভাইরাসের প্রথম রোগী শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ১৮ মার্চ করোনায় আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। এরপর ধীরে ধীরে আক্রান্তের হার বাড়তে থাকে।


আরও খবর



চট্টগ্রামের ৬০ গ্রামে ঈদ বৃহস্পতিবার

প্রকাশিত:বুধবার ১২ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৬৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
দরবারের অনুসারীরা জানান, তারা শুধু ঈদ না সব ধর্মীয় উৎসব সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে পালন করে। আজ সেখানের মতো তাদের ৩০ রমজান পূর্ণ হবে। তাই আগামীকালই আমরা ঈদ পালন করা হবে

চট্টগ্রামের অন্তত ৬০ গ্রামে বৃহস্পতিবার (১৩ মে) পালিত হবে পবিত্র ঈদুল ফিতর। প্রায় ২০০ বছরের ঐতিহ্য মোতাবেক সাতকানিয়ার মির্জারখীল দরবার শরীফের অনুসারীরা সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে ঈদ, রোজা ও বিভিন্ন ধর্মীয় উৎসব পালন করে আসছেন। গতকাল সৌদি আরবে চাঁদ দেখা যায়নি। সে হিসাবে আগামীকাল সৌদি আরবে ঈদুল ফিতর পালিত হবে।

জানা গেছে, সাতকানিয়ার মির্জারখীল, এওচিয়ার গাটিয়া ডেঙ্গা, মাদার্শা, খাগরিয়ার মৈশামুড়া, পুরানগড়, চরতির সুইপুরা, চন্দনাইশের কাঞ্চননগর, হারালা, বাইনজুরি, কানাইমাদারি, সাতবাড়িয়া, বরকল, দোহাজারী, জামিরজুরি, বাঁশখালীর কালীপুর, চাম্বল, শেখেরখীল, ছনুয়া, আনোয়ারার বরুমছড়া, তৈলারদ্বীপের প্রায় ৬০ গ্রামের বাসিন্দারা আজকে রোজা রেখেছেন।

এ বিষয়ে দরবারের অনুসারীরা জানান, তারা শুধু ঈদ না সব ধর্মীয় উৎসব সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে পালন করে। আজ সেখানের মতো তাদের ৩০ রমজান পূর্ণ হবে। তাই আগামীকালই আমরা ঈদ পালন করা হবে।

এদিন সকাল ১০টায় মির্জারখীল দরবার শরীফের মসজিদে ঈদের নামাজ অনুষ্ঠিত হবে। দরবার শরীফের পীর হযরত মাওলানা মোহাম্মদ আরেফুল হাই এর বড় ছেলে মুফতি মাওলানা মোহাম্মদ মকছুদুর রহমান ঈদের নামাজ পড়াবেন।

তবে বিগত বছরগুলোতে চট্টগ্রামের বিভিন্ন উপজেলা ছাড়াও দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে দরবার শরীফের মুরিদরা ঈদের নামাজ আদায়ের জন্য দরবার শরীফে আসলেও বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে বাইরের মুরিদদের নিজ নিজ এলাকায় ঈদের নামাজ আদায়ের জন্য বলা হয়েছে এবং সংক্রমণ এড়াতে তাদেরকে দরবারে আসতে নিষেধ করা হয়েছে বলে জানান দরবার শরীফের মুরিদ বজলুল করিম চৌধুরী।


আরও খবর



আবদুল মতিন খসরুর সম্মানে আজ সুপ্রিম কোর্ট বসছেন না

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৭৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
প্রধান বিচারপতি বলেন, আপিল বিভাগের সকল বিচারপতির সঙ্গে এ বিষয়ে আমি আগেই আলোচনা করেছি। সব বিচারপতি একবাক্যে বলেছেন কোর্ট বন্ধ রাখার জন্য। কোর্ট বসবে না

সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও সাবেক আইনমন্ত্রী আবদুল মতিন খসরুর মৃত্যুতে তার প্রতি সম্মান জানিয়ে আজ বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) সুপ্রিম কোর্টের উভয় বিভাগে ভার্চ্যুয়ালি বিচারকার্য পরিচালিত হবে না। বৃহস্পতিবার আপিল বিভাগের ভার্চ্যুয়াল বেঞ্চে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন এ কথা বলেন।

এর আগে অ্যাটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিন সুপ্রিম কোর্টের উভয় বিভাগের বিচার কাজ বন্ধ রাখার জন্য প্রধান বিচারপতিকে অনুরোধ জানান। তখন প্রধান বিচারপতি বলেন, আপিল বিভাগের সকল বিচারপতির সঙ্গে এ বিষয়ে আমি আগেই আলোচনা করেছি। সব বিচারপতি একবাক্যে বলেছেন কোর্ট বন্ধ রাখার জন্য। কোর্ট বসবে না।

চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার (১৪ এপ্রিল) ৪টা ৫০ মিনিটে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে আবদুল মতিন খসরু ইন্তেকাল করেন।


আরও খবর



রাতের খাবারে যে কৌশলগুলো ওজন কমাবে

প্রকাশিত:শনিবার ০১ মে ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১১ মে ২০২১ | ৭৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সারাদিন কম খেয়ে রাতে ভারী খাবার খাওয়া অনেকেরই অভ্যাস। এই অভ্যাসের কারণে ওজনটাও বেড়ে যায় দ্রুত। তখন আবার অনেকেই রাতের খাবার একেবারেই বাদ দিয়ে ফেলেন। এই অভ্যাসটাও ক্ষতির কারণ। তাহলে কী করবেন? জেনে নিন কিছু কৌশল।

ছোট প্লেট: ছোট এবং সমতল প্লেটে রাতের খাবার খাবেন। তাহলে খুব বেশি খাবার খেয়ে ফেলার ঝুঁকি অনেকটাই কমে যাবে।

সেদ্ধ বা কম তেল: ওজন কমাতে চাইলে রাতে তেল ছাড়া সেদ্ধ খাবার খাওয়ার চেষ্টা করুন। আর যদি সেদ্ধ খাবার একেবারেই ভালো না লাগে, তাহলে খুব অল্প পরিমাণে অলিভ ওয়েল বা নারিকেল তেল দিয়ে খাবার রান্না করুন।

বিকেলের নাস্তা: বিকেল বেলা হালকা নাস্তা করুন। এতে পেট ভরা থাকবে এবং রাতে খাওয়ার সময়ে অতিরিক্ত খেয়ে ফেলার সম্ভাবনা অনেকটাই কমে যাবে।

দেরিতে না খাওয়া: রাত ৮টার মধ্যে খাবার খেয়ে নিন। দেরীতে রাতের খাবার খাওয়ার অভ্যাসের কারণে ওজন বাড়ে।

টেবিলে বসে খাওয়া: চেষ্টা করুন পরিবারের সঙ্গে খাবার টেবিলে বসে খেতে। খাওয়ার সময় মোবাইল ফোন ব্যবহার করবেন না এবং টেলিভিশন দেখবেন না। কারণ, এতে অন্যমনস্ক হয়ে বেশি ক্যালরি গ্রহণ করার সম্ভাবনা থাকে।

এক গ্লাস পানি: খেতে বসার আগে এক গ্লাস পানি খেয়ে নিন। তাহলে অতিরিক্ত খেয়ে ফেলার সম্ভাবনা কমে যাবে। 


আরও খবর



শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষার প্রস্তুতি

প্রকাশিত:বুধবার ০৫ মে ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১২ মে ২০২১ | ৫৬জন দেখেছেন
এস এম মনির

Image

মুজিববর্ষে এনটিআরসির তৃতীয় গণবিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে সারা দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে শূন্যপদ থাকা সাপেক্ষে ৫৪ হাজার শিক্ষক নিয়োগ পেতে যাচ্ছে। বর্তমানে চলছে ১৬ তম শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার ভাইভা। করোনা মহামারি ও আইনি জটিলতায় যদিও এনটিআরসির নিয়োগ কার্যক্রম কিছুটা ঢিলেঢালা ভাবে চলছে; কিন্তু সামনেই ১৭ তম এর প্রিলিমিনারি পরীক্ষা।

বর্তমানে দেশের শিক্ষিত বেকারদের জন্য সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন একটি চাকরি। কারণ একটি চাকরির সাথে জড়িয়ে আছে নিজের জীবন ও পরিবারের অনেক কিছু। যারা ১৭ তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষার প্রস্তুতি যেভাবে নিবেন

মুজিববর্ষে এনটিআরসির তৃতীয় গণবিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে সারা দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে শূন্যপদ থাকা সাপেক্ষে ৫৪ হাজার শিক্ষক নিয়োগ পেতে যাচ্ছে। বর্তমানে চলছে ১৬ তম শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার ভাইভা। করোনা মহামারি ও আইনি জটিলতায় যদিও এনটিআরসির নিয়োগ কার্যক্রম কিছুটা ঢিলেঢালা ভাবে চলছে; কিন্তু সামনেই ১৭ তম এর প্রিলিমিনারি পরীক্ষা।

বর্তমানে দেশের শিক্ষিত বেকারদের জন্য সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন একটি চাকরি। কারণ একটি চাকরির সাথে জড়িয়ে আছে নিজের জীবন ও পরিবারের অনেক কিছু। যারা ১৭ তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষা দেবেন, তারা কীভাবে প্রস্তুতি নিবেন তা নিয়ে লিখেছে, ‘‘সহকারী শিক্ষক (ইংরেজি), ১৫ তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ; জাতীয় মেধায় ১ম স্থান সাগর দত্ত” ।

শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষার প্রিলিমিনারির মোট নম্বর ১০০, এর মধ্যে ৪০ শতাংশ পেলে পাশ যদিও আসলেই ৪০ মার্কস পেলে পাস করায় কি-না; এটা নিয়ে অনেক অভিযোগ রয়েছে। প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলে আপনাকে লিখিত পরীক্ষার জন্য ডাকা হবে। লিখিত পাস করলে আপনকে ভাইভার জন্য ডাকা হবে। ভাইভায় পাস করলে জাতীয় মেধায় আপনার পজিশন ও পরবর্তীতে আবেদনের প্রেক্ষিতে আপনাকে নিয়োগ দেওয়া হবে।

প্রিলিমিনারি পরীক্ষা হবে কয়েকটি বিষয়ের উপর। বিষয়গুলো হচ্ছে বাংলা, গণিত, ইংরেজি ও সাধারণ জ্ঞান। মোট ১০০টি নৈর্ব্যক্তিক প্রশ্ন থাকবে। প্রতিটি প্রশ্নের মান ১। প্রতিটি ভুল উত্তরের জন্য ০.৫০ নম্বর কাটা যাবে। অর্থাৎ দুটি উত্তর ভুল হলেই প্রাপ্ত নম্বর থেকে ১ নম্বর কাটা যাবে।

আপনাকে প্রতিটি বিষয়ের জন্যই আলাদাভাবে প্রস্তুতি নিতে হবে। তাই প্রস্তুতি নিতে হবে ভালভাবে। কারণ আপনাকে কয়েক লাখ প্রার্থীর সাথে প্রতিযোগিতা করতে হবে আর একটি চাকরির সাথে আপনার জীবন ও ভবিষ্যৎ জড়িত।

কী কী পড়বেন ও কীভাবে পড়বেন?

বাংলা

প্রথমেই বাংলা নিয়ে বলছি। বাংলা অংশে ব্যাকরণের ওপর বেশি জোর দিতে হবে। অষ্টম ও নবম-দশম শ্রেণির বোর্ড প্রণীত ব্যাকরণ বইয়ের সব অধ্যায় উদাহরণসহ ভালোভাবে পড়তে হবে। জানতে হবে কবি-সাহিত্যিকদের সাহিত্যকর্ম ও জীবনী সম্পর্কে। এসএসসি বোর্ড বইয়ের লেখক পরিচিতি বা সাহিত্যিক পরিচিতি অংশ পড়লে অনেকটা সহায়ক হবে। ব্যাকরণ থেকে ভাষা, বর্ণ, শব্দ, সন্ধি বিচ্ছেদ, কারক, বিভক্তি, উপসর্গ, অনুসর্গ, ধাতু, সমাস, বানান শুদ্ধি, পারিভাষিক শব্দ, সমার্থক শব্দ, বিপরীত শব্দ, বাগধারা, এককথায় প্রকাশ থেকে প্রশ্ন আসে।

সাহিত্য অংশ থেকেও অনেক প্রশ্ন আসে। সাহিত্য অংশে গল্প বা উপন্যাসের রচয়িতা, কবিতার লাইন উল্লেখ করে কবির নাম থেকে প্রশ্ন আসতে পারে। ছদ্মনাম, পত্রিকার নাম, সম্পাদকের নাম পড়তে হবে। এই সবগুলো বিষয় যে কোনো গাইডে গুছিয়ে দেওয়া আছে। সেখান থেকে পড়তে পারেন।

ইংরেজি

ইংরেজি অংশে অনেকেই দুর্বল থাকে। তবে এটা কঠিন কিছু না। ইংরেজি গ্রামারের Right forms of verb, Tense, Preposition, Parts of Speech, Voice, Narration, Spelling, Sentence Correction- থেকে প্রশ্ন আসে। যে কোনো গ্রামার বই থেকে গ্রামারের এই টপিকসগুলো উদাহরণসহ পড়ুন। মুখস্থ করতে হবে Phrase and Idoims, Vocabulary, Synonym, Antonym। ইংরেজি থেকে বাংলা অনুবাদ ও বাংলা থেকে ইংরেজিতে ট্রান্সলেশন ও পড়তে হবে। বিগত সালের বিভিন্ন সরকারি নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন সমাধান করতে পারেন।

গণিত

গণিত অংশে মার্কস পাওয়া তুলনামূলকভাবে সহজ। প্রতিদিন ২-৩ ঘণ্টা গণিত প্রাকটিস করা দরকার। পাটিগণিতের পরিমাপ ও একক, ঐকিক নিয়ম, অনুপাত, শতকরা, সুদকষা, লাভ-ক্ষতি, ভগ্নাংশ থেকে প্রশ্ন আসে। বীজগণিতের সাধারণ সূত্রাবলী থেকে প্রশ্ন থাকে। মুখে মুখে ও সূত্র প্রয়োগ করে সংক্ষেপে ফল বের করার প্র্যাকটিস করতে হবে। যাতে প্রশ্ন দেখামাত্রই সূত্র প্রয়োগ করে ফল বের করা যায়। জ্যামিতির জন্য ত্রিভুজ, চতুর্ভুজ, বর্গক্ষেত্র, রম্বস, বৃত্ত ইত্যাদির সাধারণ সূত্র ও সূত্রের প্রয়োগ প্রাকটিস করবেন। মাধ্যমিক পর্যায়ে পাঠ্যবই যেমন অষ্টম ও নবম-দশম শ্রেণির গণিত বই অনুসরণ করলে ভালো হবে।

সাধারণ জ্ঞান

বাংলাদেশ বিষয়াবলী থেকে প্রশ্ন বেশি আসে। এক্ষেত্রে বাংলাদেশের শিক্ষা, ইতিহাস, ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধ, ভূপ্রকৃতি ও জলবায়ু, সভ্যতা ও সংস্কৃতি, বিখ্যাত স্থান, বাংলাদেশের রাষ্ট্র ব্যবস্থা, অর্থনীতি, বিভিন্ন সম্পদ, জাতীয় দিবস থেকে প্রশ্ন আসতে পারে।

আর আন্তর্জাতিক অংশে বিভিন্ন সংস্থা, দেশ, মুদ্রা, রাজধানী, দিবস, পুরস্কার ও সম্মাননা, খেলাধুলা থেকে প্রশ্ন থাকে। সাম্প্রতিক বিষয়ের জন্য মাসিক কারেন্ট এ্যাফেয়ার্স অবশ্যই পড়বেন।

কম্পিউটার ও আইসিটি থেকেও প্রশ্ন থাকে। আপনি কম্পিউটার ও আইসিটির বেসিক বিষয়গুলো ভালভাবে মনে রাখার চেষ্টা করুন।

বিজ্ঞান, আইসিটি ও কম্পিউটারের জন্য ২০১৫-২০২০ সালের বিভিন্ন পরীক্ষায় আসা প্রশ্নগুলো ভালভাবে পড়লে বেশ কিছু কমন পেতে পারেন।

এভাবে পড়লে আশা করি, আপনি সরকারি যে কোনো চাকরির প্রিলিতে ভালো নম্বর পেয়ে প্রিলিমিনারি পাস করতে পারবেন। তবে আপনি চাইলে যিনি আরো ভালো জানেন তার কাছ থেকে বা নিজের পরামর্শ অনুযায়ী প্রস্তুতি নিতে পারেন। তবে যেভাবেই নেন না কেন আপনাকে পড়তে হবে, পরিশ্রম করতে হবে। দৈনিক ৬-৮ ঘণ্টা করে পড়ালেখা করুন। পারলে আরো বেশি সময় দিন।

পড়ুন, পরিশ্রম করুন, প্রার্থনা করুন এবং পড়ুন। আপনি যদি ভালভাবে পড়েন সেটা কোনো না কোন জবে ঠিকই কাজে লাগবে। পড়ালেখা কখনো বৃথা যায় না।কোনো না কোনোভাবে এর সুফল আপনি পাবেনই। ভালো প্রস্তুতির মাধ্যমেই ভালো পরীক্ষা দেওয়া যায়। আর পরীক্ষা ভালো হলে জব হওয়াটা সহজ। যারা নেগেটিভ কথা বলবে তাদের থেকে দূরে থাকুন। ভালো থাকবেন। আপনার জন্য শুভ কামনা রইলো।

লেখক: সহকারী শিক্ষক (ইংরেজি), ১৫ তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ; জাতীয় মেধায় ১ম স্থান।।

শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষার প্রিলিমিনারির মোট নম্বর ১০০, এর মধ্যে ৪০ শতাংশ পেলে পাশ যদিও আসলেই ৪০ মার্কস পেলে পাস করায় কি-না; এটা নিয়ে অনেক অভিযোগ রয়েছে। প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলে আপনাকে লিখিত পরীক্ষার জন্য ডাকা হবে। লিখিত পাস করলে আপনকে ভাইভার জন্য ডাকা হবে। ভাইভায় পাস করলে জাতীয় মেধায় আপনার পজিশন ও পরবর্তীতে আবেদনের প্রেক্ষিতে আপনাকে নিয়োগ দেওয়া হবে।

প্রিলিমিনারি পরীক্ষা হবে কয়েকটি বিষয়ের উপর। বিষয়গুলো হচ্ছে বাংলা, গণিত, ইংরেজি ও সাধারণ জ্ঞান। মোট ১০০টি নৈর্ব্যক্তিক প্রশ্ন থাকবে। প্রতিটি প্রশ্নের মান ১। প্রতিটি ভুল উত্তরের জন্য ০.৫০ নম্বর কাটা যাবে। অর্থাৎ দুটি উত্তর ভুল হলেই প্রাপ্ত নম্বর থেকে ১ নম্বর কাটা যাবে।

আপনাকে প্রতিটি বিষয়ের জন্যই আলাদাভাবে প্রস্তুতি নিতে হবে। তাই প্রস্তুতি নিতে হবে ভালভাবে। কারণ আপনাকে কয়েক লাখ প্রার্থীর সাথে প্রতিযোগিতা করতে হবে আর একটি চাকরির সাথে আপনার জীবন ও ভবিষ্যৎ জড়িত।

কী কী পড়বেন ও কীভাবে পড়বেন?

বাংলা

প্রথমেই বাংলা নিয়ে বলছি। বাংলা অংশে ব্যাকরণের ওপর বেশি জোর দিতে হবে। অষ্টম ও নবম-দশম শ্রেণির বোর্ড প্রণীত ব্যাকরণ বইয়ের সব অধ্যায় উদাহরণসহ ভালোভাবে পড়তে হবে। জানতে হবে কবি-সাহিত্যিকদের সাহিত্যকর্ম ও জীবনী সম্পর্কে। এসএসসি বোর্ড বইয়ের লেখক পরিচিতি বা সাহিত্যিক পরিচিতি অংশ পড়লে অনেকটা সহায়ক হবে। ব্যাকরণ থেকে ভাষা, বর্ণ, শব্দ, সন্ধি বিচ্ছেদ, কারক, বিভক্তি, উপসর্গ, অনুসর্গ, ধাতু, সমাস, বানান শুদ্ধি, পারিভাষিক শব্দ, সমার্থক শব্দ, বিপরীত শব্দ, বাগধারা, এককথায় প্রকাশ থেকে প্রশ্ন আসে।

সাহিত্য অংশ থেকেও অনেক প্রশ্ন আসে। সাহিত্য অংশে গল্প বা উপন্যাসের রচয়িতা, কবিতার লাইন উল্লেখ করে কবির নাম থেকে প্রশ্ন আসতে পারে। ছদ্মনাম, পত্রিকার নাম, সম্পাদকের নাম পড়তে হবে। এই সবগুলো বিষয় যে কোনো গাইডে গুছিয়ে দেওয়া আছে। সেখান থেকে পড়তে পারেন।

ইংরেজি

ইংরেজি অংশে অনেকেই দুর্বল থাকে। তবে এটা কঠিন কিছু না। ইংরেজি গ্রামারের Right forms of verb, Tense, Preposition, Parts of Speech, Voice, Narration, Spelling, Sentence Correction- থেকে প্রশ্ন আসে। যে কোনো গ্রামার বই থেকে গ্রামারের এই টপিকসগুলো উদাহরণসহ পড়ুন। মুখস্থ করতে হবে Phrase and Idoims, Vocabulary, Synonym, Antonym। ইংরেজি থেকে বাংলা অনুবাদ ও বাংলা থেকে ইংরেজিতে ট্রান্সলেশন ও পড়তে হবে। বিগত সালের বিভিন্ন সরকারি নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন সমাধান করতে পারেন।

গণিত

গণিত অংশে মার্কস পাওয়া তুলনামূলকভাবে সহজ। প্রতিদিন ২-৩ ঘণ্টা গণিত প্রাকটিস করা দরকার। পাটিগণিতের পরিমাপ ও একক, ঐকিক নিয়ম, অনুপাত, শতকরা, সুদকষা, লাভ-ক্ষতি, ভগ্নাংশ থেকে প্রশ্ন আসে। বীজগণিতের সাধারণ সূত্রাবলী থেকে প্রশ্ন থাকে। মুখে মুখে ও সূত্র প্রয়োগ করে সংক্ষেপে ফল বের করার প্র্যাকটিস করতে হবে। যাতে প্রশ্ন দেখামাত্রই সূত্র প্রয়োগ করে ফল বের করা যায়। জ্যামিতির জন্য ত্রিভুজ, চতুর্ভুজ, বর্গক্ষেত্র, রম্বস, বৃত্ত ইত্যাদির সাধারণ সূত্র ও সূত্রের প্রয়োগ প্রাকটিস করবেন। মাধ্যমিক পর্যায়ে পাঠ্যবই যেমন অষ্টম ও নবম-দশম শ্রেণির গণিত বই অনুসরণ করলে ভালো হবে।

সাধারণ জ্ঞান

বাংলাদেশ বিষয়াবলী থেকে প্রশ্ন বেশি আসে। এক্ষেত্রে বাংলাদেশের শিক্ষা, ইতিহাস, ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধ, ভূপ্রকৃতি ও জলবায়ু, সভ্যতা ও সংস্কৃতি, বিখ্যাত স্থান, বাংলাদেশের রাষ্ট্র ব্যবস্থা, অর্থনীতি, বিভিন্ন সম্পদ, জাতীয় দিবস থেকে প্রশ্ন আসতে পারে।

আর আন্তর্জাতিক অংশে বিভিন্ন সংস্থা, দেশ, মুদ্রা, রাজধানী, দিবস, পুরস্কার ও সম্মাননা, খেলাধুলা থেকে প্রশ্ন থাকে। সাম্প্রতিক বিষয়ের জন্য মাসিক কারেন্ট এ্যাফেয়ার্স অবশ্যই পড়বেন।

কম্পিউটার ও আইসিটি থেকেও প্রশ্ন থাকে। আপনি কম্পিউটার ও আইসিটির বেসিক বিষয়গুলো ভালভাবে মনে রাখার চেষ্টা করুন।

বিজ্ঞান, আইসিটি ও কম্পিউটারের জন্য ২০১৫-২০২০ সালের বিভিন্ন পরীক্ষায় আসা প্রশ্নগুলো ভালভাবে পড়লে বেশ কিছু কমন পেতে পারেন।

এভাবে পড়লে আশা করি, আপনি সরকারি যে কোনো চাকরির প্রিলিতে ভালো নম্বর পেয়ে প্রিলিমিনারি পাস করতে পারবেন। তবে আপনি চাইলে যিনি আরো ভালো জানেন তার কাছ থেকে বা নিজের পরামর্শ অনুযায়ী প্রস্তুতি নিতে পারেন। তবে যেভাবেই নেন না কেন আপনাকে পড়তে হবে, পরিশ্রম করতে হবে। দৈনিক ৬-৮ ঘণ্টা করে পড়ালেখা করুন। পারলে আরো বেশি সময় দিন।

পড়ুন, পরিশ্রম করুন, প্রার্থনা করুন এবং পড়ুন। আপনি যদি ভালভাবে পড়েন সেটা কোনো না কোন জবে ঠিকই কাজে লাগবে। পড়ালেখা কখনো বৃথা যায় না।কোনো না কোনোভাবে এর সুফল আপনি পাবেনই। ভালো প্রস্তুতির মাধ্যমেই ভালো পরীক্ষা দেওয়া যায়। আর পরীক্ষা ভালো হলে জব হওয়াটা সহজ। যারা নেগেটিভ কথা বলবে তাদের থেকে দূরে থাকুন। ভালো থাকবেন। আপনার জন্য শুভ কামনা রইলো।


আরও খবর



ভারতের পেট্রাপোলে আটকা পড়েছে কয়েকশ বাংলাদেশি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৭ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৬৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের সব ধরনের সীমান্ত যোগাযোগ ১৪ দিনের জন্য বন্ধ করে দেওয়ায় বেনাপোল স্থলবন্দরের ওপারে ভারতের পেট্রাপোলে আটকা পড়েছেন প্রায় তিন শতাধিক বাংলাদেশি। এর মধ্যে বেশিরভাগই চিকিৎসা নিতে ভারত গিয়েছিলেন। আর কয়েকজন রয়েছেন শিক্ষার্থীও।

সোমবার (২৬ এপ্রিল) রাতে ঢাকার ভারতীয় হাইকমিশন সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

হাইকমিশন সূত্রে জানা যায়, যারা আটকা পড়েছেন তারা সোমবার সকাল থেকে স্থলবন্দর দিয়ে দেশে আসার জন্য সেখানে অবস্থান করেন। তবে এখনও তারা পেট্রোপোলে অবস্থান করছেন কিনা এ বিষয়ে কোনো তথ্য জানা যায়নি।

ভারতের হাইকমিশন থেকে পাঠানো কয়েকটি ভিডিওতে দেখা যায়, আটকেপড়া এক বাংলাদেশি বলেন, আমরা সরকারের কাছে অনুরোধ করছি যেন আমাদের বাংলাদেশে ফিরিয়ে নেয়। কারণ আমরা এখানে শুধু চিকিৎসার জন্য এসেছিলাম। এখন আমাদের হাতে টাকা-পয়সা নেই। আমরা এখানে কি করে থাকব!

কূটনৈতিক সূত্রগুলো বলছে, আটকাপড়া তিন শতাধিক বাংলাদেশি দেশে ফেরার জন্য আবেদন করেছে। পর্যায়ক্রমে এসে বাংলাদেশিসহ যাদের ভিসার মেয়াদ ১৫ দিন বা তার চেয়ে কম তাদের দেশে ফেরত আনা হবে।

বেনাপোল ইমিগ্রেশন স্বাস্থ্য বিভাগের মেডিকেল অফিসার ডা. হাবিবুর রহমান জানান, গতকাল সর্বশেষ ভারত থেকে ৫৭০ জন বাংলাদেশি ফিরেছেন। এসব যাত্রীর মধ্যে ৩ জন করোনা পজিটিভ ছিল। এরা ভারতে গিয়েই করোনা আক্রান্ত হন। আক্রান্তদের যশোর সদর হাসপাতালের করোনা ইউনিটে আর করোনা নেগেটিভ সনদবিহীন ১১ জনকে বেনাপোল রজনীগন্ধা প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: ভারত বেনাপোল

আরও খবর