Logo
শিরোনাম

করোনায় গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৬০

প্রকাশিত:শনিবার ০১ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৭৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

করোনাভাইরাসে দেশে গত ১০ দিনের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন মৃত্যু হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ৬০ জন। আর আক্রান্ত হয়েছেন এক হাজার ৪৬২ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনাভাইরাস বিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞিপ্তিতে শনিবার (১ মে) এ তথ্য জানানো হয়।

উল্লেখ্য, গত বছরের ৮ মার্চ দেশে করোনাভাইরাসের প্রথম রোগী শনাক্ত হয়। এর ঠিক ১০ দিন পর ১৮ মার্চ করোনায় আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যুর খবর আসে। এরপর ধীরে ধীরে আক্রান্ত ও মুতের হার বাড়তে থাকে।

 

 


আরও খবর



যে কারণে ইফতারে রাখবেন আনারসের শরবত

প্রকাশিত:শনিবার ২৪ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৪৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
নিয়মিত আনারস খাওয়ার ফলে হজমশক্তি বৃদ্ধি পায়। কেননা, আনারসে ব্রোমেলিন উপাদান রয়েছে, যা কিনা আমাদের হজমশক্তিকে উন্নত করতে বেশ কার্যকরী

পবিত্র মাহে রমজান মাস চলছে। ধর্মপ্রাণ মুসলিমরা সেহরি থেকে ইফতার পর্যন্ত না খেয়ে রোজা থেকে সৃষ্টিকর্তার ইবাদত করে। সারাদিন রোজা থাকার ফলে সন্ধ্যায় ইফতারের পর শরীরে ক্লান্তিভাব চলে আসে। এই সময় প্রয়োজন পুষ্টিকর কিছু খাবার খাওয়া। যে সকল খাবার শরীরের জন্য পুষ্টিকর এবং শরীরের ঘাটতি চাহিদা পূরণ করে।

আনারস খুবই সুস্বাদু একটি ফল। ইফতারে আনারস রাখলে অনেক উপকারী। আর সেটা যদি হয় আনারসের শরবত তাহলে তা কথাই নেই। এবার তাহলে ইফতারে আনারস রাখার উপকারিতা জেনে নেয়া যাক-

পুষ্টির চাহিদা পূরণ : পুষ্টির বিশাল একটি উৎস এই আনারস। এতে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন-এ, সি এবং ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম ও ফসফরাস রয়েছে। এসব উপাদান শরীরের পুষ্টির চাহিদা পূরণে সহায়তা করে।

হজমশক্তি বৃদ্ধি : নিয়মিত আনারস খাওয়ার ফলে হজমশক্তি বৃদ্ধি পায়। কেননা, আনারসে ব্রোমেলিন উপাদান রয়েছে, যা কিনা আমাদের হজমশক্তিকে উন্নত করতে বেশ কার্যকরী।

হাড়ের সুস্থতা : ক্যালসিয়াম ও ম্যাংগানিজ রয়েছে আনারসে। হাড় গঠনে যেমন ক্যালসিয়ামের ভূমিকা অপরিসীম তেমনি হাড়কে মজবুত করে তুলতে ভূমিকা রাখে ম্যাংগানিজ। প্রতিদিন ইফতারে নিয়ম করে আনারস বা আনারসের শরবত রাখলে হাড়জনিত রোগ প্রতিরোধ সম্ভব।

চোখের সুস্থতায় : গবেষণা থেকে জানা যাচ্ছে যে আনারসে থাকা উপাদান ম্যাক্যুলার ডিগ্রেডেশন থেকে রক্ষা করে আমাদের। এ রোগটি চোখের রেটিনা নষ্ট করে এবং এর ফলে মানুষ ধীরে ধীরে অন্ধ হয়ে যায়। নিয়মিত আনারস খাওয়ার ফলে এতে থাকা বেটা ক্যারোটিন চোখের এই রোগ হওয়ার শঙ্কা ৩০ শতাংশ পর্যন্ত হ্রাস করে এবং চোখও সুস্থ থাকে।

আনারসের শরবত তৈরির পদ্ধতি : প্রথমে একটি আনারস ভালো করে ছিলে নিয়ে ধুয়ে নিন। এবার চাকু দিয়ে ছোট ছোট টুকরো করুন। তারপর ব্লেন্ডার মেশিনে হালকা লবণ ও কয়েক কিউব বরফ দিয়ে আনারসের টুকরোগুলো একসঙ্গে মিশিয়ে ব্লেন্ড করুন। ব্লেন্ড হয়ে গেলে এবার ছেঁকে নিন। তারপর গ্লাসে করে পরিবেশন করুন ইফতারের আয়োজনে।


আরও খবর



আজ পবিত্র লাইলাতুল কদর

প্রকাশিত:রবিবার ০৯ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৮২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
এ রাতে ঝিকির-আজগার, ইবাদত-বন্দেগী ও কুরআন তিলাওয়াতের মধ্যদিয়ে ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা মহান রাব্বুল আলামিনের রহমত কামনা করে থাকেন

আজ শনিবার (৯ মে) দিবাগত রাত পবিত্র লাইলাতুল কদর বা শবে কদর। মুসলমানদের কাছে এটি অত্যন্ত মহিমান্বিত রাত। প্রতিবারের মতো এবারও দেশব্যাপী ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য ও ইবাদত-বন্দেগির মাধ্যমে ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা পবিত্র শবে কদর পালন করবেন।

এ রাত হাজার মাসের চেয়েও উত্তম। কারণ এই রাতে শেষ নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর ওপর পবিত্র কুরআন অবতীর্ণ হয় এবং এই রাতকে কেন্দ্র করে কদর নামে একটি সুরাও নাজিল হয়।

এ রাতে ঝিকির-আজগার, ইবাদত-বন্দেগী ও কুরআন তিলাওয়াতের মধ্যদিয়ে ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা মহান রাব্বুল আলামিনের রহমত কামনা করে থাকেন।

এই রাতে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর অনুসারীদের সম্মান বৃদ্ধি করা হয় এবং মানবজাতির ভাগ্য পুনর্নির্ধারণ করা হয়। সারা বিশ্বের মুসলমানদের কাছে তাই এই রাত অতীব পুণ্যময় ও মহিমান্বিত।

লাইলাতুল কদর উপলক্ষে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে আলোচনা, মিলাদ ও বিশেষ মোনাজাতের আয়োজন করা হয়েছে। এছাড়াও দেশের সব মসজিদে দিন ও রাতব্যাপী বিশেষ ইবাদত-বন্দেগি, ওয়াজ মাহফিল, ধর্মীয় বয়ান ও আখেরি মোনাজাতের আয়োজন করা হয়েছে।

পবিত্র শবে কদর উপলক্ষে বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল এবং বাংলাদেশ বেতার ও বেসরকারি রেডিও বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচার করবে। এ ছাড়া সংবাদপত্রগুলোতে বিশেষ নিবন্ধ প্রকাশিত হবে। পবিত্র শবে কদর উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।


আরও খবর



মুমূর্ষ প্রমত্তা করতোয়াকে বাচাঁবে কে?

প্রকাশিত:বুধবার ২৮ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৮৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

শেরপুর(বগুড়া) থেকে আবু বকর সিদ্দিক

উজান থেকে পানি প্রবাহ কমে যাওয়া, দখল-দূষণ এবং গতিপথে মানুষের হস্তক্ষেপে বিপন্ন হচ্ছে উত্তরাঞ্চলের অন্যতম প্রধান নদী প্রমত্তা করতোয়া। বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক প্রধান তিনটি নদী পদ্মা মেঘনা যমুনা ছাড়াও সরকারি তথ্য মতে ছোট বড় মিলে ৪০৫টি নদীর হিসেব পাওয়া যায়। করতোয়া নদীর সবচেয়ে খারাপ অবস্থা বগুড়া জেলার শেরপুর অংশে। শহরের ভেতর দিয়ে বয়ে চলা প্রমত্তা করতোয়া নদী এখন মৃত প্রায়। উজান থেকে পানির প্রবাহ নেই। তাই দখল আর আবর্জনার দূষণে এ নদী জর্জরিত। এক কালের প্রমত্তা করতোয়া নদী আজ দখল, শহরের হাট-বাজার, বাসা-বাড়ির বর্জ্য, খনন বা সংস্কার না হওয়া ও দূষণে পচা নর্দমার ড্রেন বা ক্যানেলে পরিণত হয়েছে।

উপজেলার গাড়িদহ ইউনিয়নের ফুলবাড়ি ঘাট, পৌরসভা কার্যালয়ের পূর্বপাশ, বারোদুয়ারী হাট, রনবীরবালা ঘাটপার ও শহীদিয়া আলিয়া মাদ্রাসা সংলগ্নসহ বিভিন্ন এলাকায় করতোয়া নদীর তীরবর্তী ১৮টি স্পট দখল করে ভবন নির্মাণ, সীমানা প্রাচীর, ময়লার ভাগার ফেলে দখল করে রেখেছে দখলবাজরা। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয় না বলে স্থানীয়দের অভিযোগ অহরহ। একদিকে দীর্ঘদিন খনন না হওয়া ও অন্যদিকে দখল চলতে থাকায় শেরপুরের মানচিত্র থেকে প্রমত্তা করতোয়া নদী তার ঐতিহ্য হারাতে বসেছে।

বচন রয়েছে, কর অর্থ হাত, আর তোয়া অর্থ ধোঁয়া জল, অর্থাৎ হাত ধোয়া জল, হিন্দু ধর্মীয় দেবতা হিমালয়ে ধ্যানমগ্ন শিবের হাত ধোঁয়া জল থেকেই করতোয়া নদীর উৎপত্তি। তাছাড়া বিশিষ্ঠ ইতিহাসবিদ প্রভাত চন্দ্র সেন বগুড়ার ইতিহাস গ্রন্থেও ভারতের হিমালয় পাদদেশ থেকে করতোয়া নদীর উৎপত্তির উল্লেখ রয়েছে। ভারতে শিলিগুড়ি, জলপাইগুড়ি হয়ে বাংলাদেশের পঞ্চগড়ে এ নদী প্রবেশ করে। সেখান থেকে করতোয়া বগুড়ার শহরের বুক চিরে সিরাজগঞ্জের বাঘাবাড়িতে হুরা নদীর সঙ্গে মিলিত হয়েছে। মোট ৫৯৭ কিলোমিটার বা ৩৭৩ মাইল দৈর্ঘ্যের করতোয়া নদীতে আশির দশকে প্রচুর পানি থাকায় প্রমত্তা ছিল। জনশ্রুতি আছে করতোয়া নদীতে সওদাগরী জাহাজ, লঞ্চ এবং বড় বড় নৌকা বজরা যেটা বলে সেটা যাতায়াত করতো। পণ্য পরিবহন হতো এবং ব্যবসা বাণিজ্যের কেন্দ্রবিন্দু ছিল পুর্ন্ড্রবর্ধন নগরী বগুড়া এবং করতোয়া নদীকে কেন্দ্র করে এ অঞ্চলে সভ্যতা গড়ে উঠেছে।

বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্র্ড ১৯৮৮ সালে উজানে গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার খুলশিতে বাধ ও স্যুইচ  গেইট নির্মাণ করে । সংশ্লিস্ট কর্তৃপক্ষের অপরিনাম দর্শিতার কারনে করতোয়ার পানি প্রবাহের গতিপথ সম্পূর্ণ বন্ধ ও ভরাট হয়ে গেছে।  সে থেকেই প্রভাবশালীরা ধীরে ধীরে দখল -দূষণ নানা প্রাকৃতিক কারনে বন্যা জনিত ক্ষয়-ক্ষতি ও নদী সংস্কারের অভাবে করতোয়া পূর্বের সকল বৈশিষ্ট্য সম্পূর্ণভাবে হারিয়ে ফেলেছে। অপরিকল্পিত ও অনিয়ন্ত্রিতভাবে দ্রুত নগরায়ন, জনসংখ্যা বৃদ্ধি মানুষের অপরিনামদর্শী কর্মকাণ্ড প্রভাব ফেলেছে করতোয়া নদীর উপর।

এ প্রসঙ্গে পরিবেশবিদরা জানান, করতোয়াকে বাঁচাতে হলে ব্যাপক পরিবেশগত সচেতনতা ও স্থানীয় উদ্যোগে নদীর দুইধার অবকাঠামো মুক্ত রাখতে হবে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ময়নুল ইসলাম বলেন, বাংলাদেশ নদী মার্তৃক দেশ। নদী রক্ষায় সরকার বদ্ধ পরিকর। খুব দ্রুত নদীর খনন কাজ শুরু হবে। এছাড়াও যারা নদী দখল করে বিভিন্ন স্থাপনা গড়ে তুলেছে তা দ্রুত অপসারণ করে করতোয়া নদীকে আগের রুপে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করা হবে।



আরও খবর



বাংলাদেশে অনুমোদন পেল সিনোফার্মের টিকা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৯ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ মে ২০২১ | ৬৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
আজকে আমরা সিনোফার্মের টিকার অনুমোদন দিলাম। এই টিকার প্রথম ডোজ নেওয়ার ২৮ দিন পর দ্বিতীয় ডোজ দিতে হবে

রাশিয়ার স্পুৎনিক-ভির পর এবার চীনা কোম্পানি সিনোফার্মের তৈরির জরুরি ব্যবহারের অনুমোদন দিলো সরকার।

বৃহস্পতিবার (২৯ এপ্রিল) মহাখালীতে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর আয়োজিত এক ব্রিফিংয়ে প্রতিষ্ঠানটির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মাহবুবুর রহমান জানান, চীন প্রথম দফায় ৫ লাখ ডোজ দিচ্ছে। এর বাইরে আগামী দুই সপ্তাহে চীনের ভ্যাকসিন আসার সম্ভাবনা আছে।

মাহবুবুর রহমান বলেন, আজকে আমরা সিনোফার্মের টিকার অনুমোদন দিলাম। এই টিকার প্রথম ডোজ নেওয়ার ২৮ দিন পর দ্বিতীয় ডোজ দিতে হবে।

এর আগে মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) রাশিয়ার স্পুটনিক-ভি ভ্যাকসিন দেশে প্রয়োগের জরুরি অনুমোদন দেয় ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর।


আরও খবর



জিজ্ঞাসাবাদ শেষে রফিকুল ফের কাশিমপুর কারাগারে

প্রকাশিত:শনিবার ২৪ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১২ মে ২০২১ | ৮৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

গাজীপুর মহানগর পুলিশের বাসন থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা মামলায় দুইদিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আলোচিত শিশু বক্তা রফিকুল ইসলাম মাদানীকে আবারও কামিশপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২ এ ফেরত পাঠোনো হয়েছে। শনিবার (২৪ এপ্রিল) দুপুরে তাকে কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২ এ পৌঁছে দিয়েছে পুলিশ।

নগরীর বাসন থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ফারুক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, গত বুধবার (২১ এপ্রিল) ভার্চুয়াল শুনানির মাধ্যমে গাজীপুরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক শেখ নাজমুন্নাহার রফিকুল ইসলাম মাদানীর দুইদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। পরে তাকে বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল) আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী বাসন থানার মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ হেফাজতে আনা হয়। রিমান্ড শেষ হওয়ায় আজ শনিবার রফিকুল ইসলাম মাদানীকে আদালত হাজির করা হলে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। পরে তাকে কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।

ওসি আরও জানান, জিজ্ঞাসাবাদে রফিকুল ইসলাম মাদানী অনেক তথ্য দিয়েছেন। এখন আমরা এসব তথ্য যাচাই করে দেখব। পরে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এর আগে রাষ্ট্রবিরোধী উসকানিমূলক বক্তব্য দেওয়ায় গত ৭ এপ্রিল রফিকুল ইসলাম মাদানীকে তার গ্রামের বাড়ি নেত্রকোনার পূর্বধলার লেটিরকান্দা থেকে আটক করে র‍্যাব। পরদিন ৮ এপ্রিল র‍্যাব বাদী হয়ে গাজীপুর মহানগরীর গাছা থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করে। ওই মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়। ১৩ এপ্রিল গাছা থানা পুলিশ রফিকুল ইসলাম মাদানীর বিরুদ্ধে গাজীপুর আদালতে সাতদিনের রিমান্ড আবেদন করে। পরে ১৫ এপ্রিল আদালত তার দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। পরে বাসন থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা মামলায় গত বুধবার (২১ এপ্রিল) তার দুইদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।


আরও খবর