Logo
শিরোনাম

কুমিল্লা-৭ আসনে নৌকার টিকেট পেলেন ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত

প্রকাশিত:শনিবার ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৯১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কুমিল্লা-৭ আসনের উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পেয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ও কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত।

শনিবার (১১ সেপ্টেম্বর) আওয়ামী লীগের সংসদীয় ও স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধির মনোনয়ন বোর্ডের যৌথসভায় এ মনোনয়ন দেওয়া হয়। এদিন সকাল সাড়ে ১০টায় আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে গণভবনে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এর আগে দলীয় সূত্রে জানা যায়, আজ শনিবার (১১ সেপ্টেম্বর) সভায় কুমিল্লা-৭ আসনের উপনির্বাচনে দলীয় প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে। গত ৩০ জুলাই চান্দিনা উপজেলা নিয়ে গঠিত কুমিল্লা-৭ আসনের এমপি অধ্যাপক আলী আশরাফের মৃত্যুতে আসনটি খালি হয়।

তিনি টানা তিন মেয়াদসহ পাঁচ বারের এমপি ছিলেন। সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার কারণে এরই মধ্যে তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। তফসিল অনুযায়ী, আগামী ৭ অক্টোবর ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

কুমিল্লা-৭ আসনের উপনির্বাচনে অংগ্রহণের জন্য আওয়ামী লীগের ৮ নেতা মনোনয়নের আবেদনপত্র সংগ্রহ করে জমা দিয়েছিলেন। তারা হলেন- প্রয়াত আলী আশরাফের ছেলে ও চান্দিনা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুনতাকিম আশরাফ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ও কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত।

এ ছাড়া মনোনয়নপ্রত্যাশীরা ছিলেন- উপজেলা আওয়ামী লীগের আইন সম্পাদক শাহজালাল মিঞা, কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য জাকির হোসেন, দোল্লাই-নবাবপুর কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মজিবুর রহমান, কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মো. জাহাঙ্গীর আলম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. সহিদ উল্লাহ ও সদস্য নাজনীন আক্তার।

দলীয় আরেকটি সূত্র জানায়, স্বাধীনতা পুরস্কারপ্রাপ্ত চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্তের মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি। কারণ, দীর্ঘদিন ধরে অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত চান্দিনার মানুষকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিয়ে আসছেন। তাদের কাছে তার একটি গ্রহণযোগ্যতাও তৈরি হয়েছে।

পাশাপাশি তিনি জাতীয়ভাবে একজন খ্যাতনামা চিকিৎসক হিসেবে পরিচিত। তিনি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন চেয়েছিলেন। অধ্যাপক আলী আশরাফকে বাদ দিয়ে তাকে দেওয়া হয়নি। এখন যেহেতু আলী আশরাফ নেই, তাই হয়ত তার একটি সুযোগ হতে পারে। দলীয় মনোনয়ন পেতে আগ্রহী প্রার্থীরা গত ৪ থেকে ৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মনোনয়নের আবেদনপত্র সংগ্রহ করে জমা দেন।

উল্লেখ্য, নির্বাচন কমিশন জাতীয় সংসদের কুমিল্লা-৭ আসনের উপনির্বাচন, রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী পৌরসভার মেয়র পদে উপনির্বাচন এবং নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ, নরসিংদী সদর উপজেলা, নেত্রকোনা জেলার খালিয়াজুরি, চাঁদপুর জেলার শাহরাস্তি, যশোর সদর উপজেলা, মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল, বাগেরহাট জেলার কচুয়া, কিশোরগঞ্জ জেলার বাজিতপুর ও ফেনী সদর উপজেলা পরিষদেও চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে। এসব নির্বাচনে নৌকার মনোনয়ন প্রার্থীদের আজ চূড়ান্ত করা হবে।

এদিকে আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ অর্থাৎ ২০২৩ সালের শেষ অথবা ২০২৪ সালের শুরুতে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রস্তুতি শুরু করেছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। আর নির্বাচনে প্রস্তুতি হিসেবে সাংগঠনিক বিষয়গুলোর ওপর জোরালো পদক্ষেপ নিচ্ছে দলটি।

আর এক্ষেত্রে শৃঙ্খলা রক্ষায়ও কঠোর অবস্থান যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন দলের প্রধান শেখ হাসিনা। আগামীতে যে কোনো নির্বাচনে দলের সিদ্ধান্তের বাইরে প্রার্থী হলে তার বিরুদ্ধে সঙ্গে সঙ্গেই নেওয়া হবে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা।



আরও খবর



রামেক হাসপাতালে ৩ মাসে সর্বনিম্ন মৃত্যু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৬ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৭১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে আরও ৬ জন মারা গেছেন। এ সময় ৪ জন করোনা পজিটিভ, ১ জন উপসর্গ নিয়ে এবং ১ জন নেগেটিভ হবার পর মারা যান। এদের মধ্যে রাজশাহীর ১ জন, নওগাঁর ১ জন, নাটোরেরর ২ জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের ২ জন রয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (২৬ আগস্ট) সকালে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন রামেক হাসপাতালের পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী। জানা গেছে, রামেক হাসপাতালে করোনা ও এর উপসর্গ নিয়ে গত ৮৭তম দিনে মোট ১২১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।

শামীম ইয়াজদানী জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ওয়ার্ডে নতুন রোগী ভর্তি হয়েছেন ১৪ জন। এনিয়ে ৪১৮ বেডের বিপরীতে মোট ভর্তি রোগী আছেন ১৯০ জন। এর আগের দিন রাজশাহীর দুটি পিসিআর ল্যাবে রাজশাহী জেলার ৩৫৭ টি নমুনা পরীক্ষায় ৬০জনের করোনা পজিটিভ আসে। রাজশাহীতে শনাক্তের হার ১৬.৮১ শতাংশ।

এছাড়াও করোনার সংক্রামণ ও মৃত্যু কমে আসায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা ও করোনা উপসর্গ নিয়ে রোগী ভর্তি সংখ্যা কমেছে। তাই করোনা ইউনিটে শয্যা সংখ্যা কমানোর পর বর্তমানে ২০টি আইসিইউসহ শয্যা সংখ্যা রয়েছে ৪১৮টি। এর মধ্যে রোগী ভর্তি রয়েছে ১৯০ জন আর গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ১৪ জন।


আরও খবর

রামেকের করোনা ওয়ার্ডে আরও ৭ জনের প্রাণহানি

বৃহস্পতিবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১




সোনাইমুড়ীতে বিদেশী অস্ত্রসহ যুবক আটক

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৭ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৭৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে অস্ত্র  ও মাদকসহ এক সন্ত্রাসীকে আটক করেছে র‌্যাব-৩।

গতকাল বৃহস্পতিবার (২৬ আগষ্ট) সন্ধ্যা সাতটার দিকে উপজেলার জুনুদপুর বাজারের পল্লী মঙ্গল উচ্চ বিদ্যালয়ের দক্ষিণ পার্শ্বে স্কুল রোড থেকে তাকে আটক করা হয়।

আটককৃত মো.আমির হামজা নাহিদ (২২), সোনাইমুড়ী উপজেলার কালুয়াই গ্রামের মৃত নুরুন্নবীর ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, র‌্যাব-৩ এর একটি টি সোনাইমুড়ীর জুনুদপুর বাজারস্থ পল্লী মঙ্গল উচ্চ বিদ্যালয়ের দক্ষিন পার্শ্বে স্কুল রোডর দোকানের ভিতরে উপস্থিত হলে নাহিদ দোকান হতে নাস্তা ফেলে রেখে পলায়নের সময় র‌্যাব সদস্যরা তাকে আটক করেন। তার কোমরে গোজা অবস্থায় ১টি পিস্তল,  ২ রাউন্ড গুলি ও প্যান্টের পকেট থেকে ১১০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় র‌্যাব-৩ সোনাইমুড়ী থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে দুটি মামলা দায়ের করেন।

র‌্যাবের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মিডিয়া) বীণা রাণী দাস জানান, এ ঘটনায় অস্ত্রসহ আটককৃত আসামির বিরুদ্ধে দুইটি মামলা হয়েছে। অস্ত্রধারী ওই যুবক সোনাইমুড়ী উপজেলার জুনদপুরসহ আসপাশের এলাকায় আধিপত্য বিস্তার, মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ, চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের সাথে সম্পৃক্ত।


আরও খবর

মায়ের ওপর অভিমান করে আত্মহত্যা

রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

৪ দিন পর হাতিয়ার সঙ্গে সারাদেশে নৌ চলাচল শুরু

বৃহস্পতিবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১




বাংলাদেশে ঢুকে মাছ ধরায় ১৩ ভারতীয় জেলে আটক

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৯৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বঙ্গোপসাগরে বাংলাদেশের জলসীমায় অনুপ্রবেশ করে মাছ শিকারের সময় এফবি মা-বাবার আর্শিবাদ-১২ নামের একটি মাছ ধরার ট্রলারসহ ১৩ ভারতীয় জেলেকে আটক করেছে কোস্টগার্ড। মোংলা বন্দরের অদূরে ফেয়ারওয়ে বয়া-সংলগ্ন বঙ্গোপসাগর এলাকা থেকে গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে তাদের আটক করা হয়।

কোস্টগার্ড পশ্চিম জোনের (মোংলা সদর দপ্তর) অপারেশন অফিসার লেফটেন্যান্ট এম মামুনুর রহমান জানান, বৃহস্পতিবার বিকেলে বঙ্গোপসাগরের বাংলাদেশ জলসীমায় একটি ভারতীয় ট্রলারকে মাছ ধরতে দেখেন সমুদ্রে টহলরত কোস্টগার্ডের সদস্যেরা। এ সময় কোস্টগার্ড সদস্যেরা টহলরত জাহাজ নিয়ে সেখান থেকে ভারতীয় ওই ট্রলারটি জব্দ করেন।

কোস্টগার্ড জানায়, ট্রলারটিতে ১৩ জন ভারতীয় জেলেকে পাওয়া গেছে। তাঁদের বাড়ি ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের কলকাতায়। ট্রলারসহ ওই ১৩ ভারতীয় জেলেকে মোংলায় আনা হচ্ছে। আজ শুক্রবার দুপুরে মোংলায় আনার পর তাদের থানা পুলিশে হস্তান্তর করা হবে।

এর আগে গত ৮ আগস্ট একই এলাকা থেকে ১৩ ভারতীয় জেলেসহ একটি ট্রলার আটক করে কোস্টগার্ড।

নিউজ ট্যাগ: ভারতীয় জেলে আটক

আরও খবর



টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারে বিষাক্ত মদপানে তিন যুবকের মৃত্যু

প্রকাশিত:শুক্রবার ২০ আগস্ট ২০21 | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৭৬জন দেখেছেন
Image

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি:

টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলার পাচ এলাসিন গ্রামে বিষাক্ত মদপানে তিন যুবকের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৯ আগস্ট) মধ্যে রাতে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- উপজেলার পাচ এলাসিন গ্রামের জুলহাস মিয়ার ছেলে মোহাম্মদ নাসির মিয়া (২২), বাবুল মিয়ার ছেলে  মোহাম্মদ পারভেজ মিয়া (৩৪) ও কাশেম মিয়ার ছেলে মোহাম্মদ আক্কাস মিয়া (২৩)।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, বৃহস্পতিবার রাত নয়টার দিকে, তিন বন্ধু মিলে তাদের এক বন্ধু নাসিরের মুদির দোকানে বসে মদপান করে। মদপানের পর তারা তিনজনই অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকে। পড়ে একজন ক্রেতা তাদের দোকানে গেলে, তাদের অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে দোকানের পাশের লোকজনকে ডেকে বিষয়টি জানান। পরে খবর পেয়ে পরিবারের লোকজন তিন জনকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়। এ সময় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মধ্যে নাসির ও পারভেজকে মৃত ঘোষণা করেন। এরপর চিকিৎসারত অবস্থায় রাত দেড়টার দিকে আক্কাসও মারা যায়।

এ ঘটনায় নিহতদের পরিবারের কান্নায় ভারি হয়ে উঠেছে পূরো এলাকা। স্থানীয়দের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

দেলদুয়ার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ সাজ্জাদ হোসেন জানান, রাতে তিন বন্ধু মদ খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ে। পরে তাদের টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে। বিস্তারিত জানার পর প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।



আরও খবর



আফগানিস্তান: তালেবান পাঞ্জশিরে বেসামরিক নাগরিকদের হত্যা করছে

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৪৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আফগানিস্তানের পাঞ্জশির উপত্যকায় অন্তত ২০ জন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম বিবিসি। পাঞ্জশিরের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে তালেবানের সঙ্গে সেখানকার বিরোধী বাহিনীর সঙ্গে তুমুল লড়াই হয়েছিল।

বিবিসি জানিয়েছে, পাঞ্জশির উপত্যকা যোগাযোগ-বিচ্ছিন্ন থাকার ফলে সেখানে সংবাদকর্মীদের পক্ষে কাজ করে কঠিন হলেও তাদের কাছে তালেবানের সংযমের প্রতিশ্রুতি সত্ত্বেও চালানো হত্যাকাণ্ডের প্রমাণ রয়েছে।

পাঞ্জশিরের একটি ধুলোমাখা রাস্তার পাশের ফুটেজে দেখা গেছে সামরিক সরঞ্জাম সংবলিত পোশাক পরা এক ব্যক্তিকে তালেবান যোদ্ধারা ঘিরে রেখেছে। এরপর গুলির শব্দ শোনা যায় এবং ওই ব্যক্তিকে মাটিতে লুটিয়ে পড়তে দেখা যায়।

তবে, নিহত ওই ব্যক্তি সেনাবাহিনীর সদস্য কি না, তা স্পষ্ট নয়। কেননা, পাঞ্জশিরের বাসিন্দাদের মধ্যে যুদ্ধের পোশাক পরার চল রয়েছে। ভিডিওতে দেখা যায়একজন প্রত্যক্ষদর্শী নিজেকে বেসামরিক নাগরিক বলছেন।

বিবিসি বলছে, পাঞ্জশিরে এ ধরনের ঘটনায় অন্তত ২০ জন নিহত হয়েছে। নিহতদের একজনের নাম আবদুল সামি। দুই সন্তানের পিতা সামি পেশায় ছিলেন দোকানদার।

স্থানীয় সূত্র জানায়, তালেবানকে আসতে দেখে সামি পালিয়ে না গিয়ে তাদের বলেছিলেন : আমি নিতান্ত দরিদ্র এক দোকানমালিক, যুদ্ধের সঙ্গে আমার কোনো সম্পর্ক নেই।

কিন্তু, তালেবানবিরোধী যোদ্ধাদের কাছে সিম কার্ড বিক্রির অভিযোগে সামিকে গ্রেপ্তার করে তালেবান। কয়েক দিন পর সামির লাশ তাঁর বাড়ির কাছে পড়ে থাকতে দেখা যায়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সামির মরদেহে নির্যাতনের চিহ্ন ছিল। গত মাসে যখন তালেবান আফগানিস্তানের ক্ষমতায় আসে, তখন কেবল পাঞ্জশির তাদের নিয়ন্ত্রণে ছিল না।

আফগানিস্তানে দীর্ঘদিন প্রতিরোধের কেন্দ্র ছিল এই পাঞ্জশির উপত্যকা। সেখানকার প্রতিরোধ বাহিনী অতীতে কমান্ডার আহমদ শাহ মাসউদের নেতৃত্বে সাবেক সোভিয়েত বাহিনী ও তালেবানকে পাঞ্জশির থেকে বিতাড়িত করেছিল। পাহাড়ে ঘেরা থাকায় সাবেক সোভিয়েত বাহিনী ও তালেবান পাঞ্জশির উপত্যকা দখল করতে ব্যর্থ হয়।

মাসউদের মৃত্যুর পর তাঁর ছেলে আহমদ বাবার পদাঙ্ক অনুসরণ করেন। তালেবান দ্বিতীয় দফায় আফগানিস্তানজুড়ে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে একের পর অঞ্চল নিজেদের হাতে নেওয়া শুরু করলে আহমদ পাঞ্জশিরে তালেবাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। কিন্তু, গত সপ্তাহে তালেবান পাঞ্জশির উপত্যকায় নিজেদের বিজয়ী ঘোষণা করে। ভিডিও ফুটেজে তালেবান যোদ্ধাদের পাঞ্জশিরে নিজেদের পতাকা উত্তোলন করতে দেখা গেছে।

তবে, হার না মানা প্রতিরোধ বাহিনী পাঞ্জশিরে লড়াই জারি রাখবে বলে জানিয়েছে। আহমদ মাসউদ তালেবানদের বিরুদ্ধে জাতীয় অভ্যুত্থানের ডাক দিয়েছেন।

তালেবানরা আবার আফগানিস্তানের ক্ষমতায় ফেরার পর, এখন দেখা বিষয়আফগানিস্তানের অন্যান্য অঞ্চলের মতো পাঞ্জশিরে এরপর কী ঘটে। পাঞ্জশিরে ঢোকার সময় তালেবান উপত্যকার বাসিন্দাদের স্বাভাবিক জীবনযাপন চালিয়ে যেতে বলেছিল। তালেবানের অন্যতম মুখপাত্র মৌলভি আবদুল্লাহ রাহমানি বলেছিলেন, তাদের (পাঞ্জশিরবাসী) বাইরে আসা উচিত, নিজেদের দৈনন্দিন কাজকর্ম করা উচিত।

মৌলভি আবদুল্লাহ রাহমানি আরও বলেছিলেন, দোকান মালিকেরা  দোকানে যেতে পারেন। কৃষকেরা তাঁদের খামারে যেতে পারেন। আমরা এখানে তাঁদের, তাঁদের জীবন এবং তাঁদের পরিবারের সুরক্ষা দিতে এসেছি।

কিন্তু বিবিসি জানিয়েছে, বাস্তবে ভিন্ন চিত্র দেখা গেছে। একটি ফুটেজ দেখা গেছেএকসময়ের ব্যস্ত বাজারগুলো জনশূন্য। লোকজন পালানোর চেষ্টা করছে। এবং উপত্যকার খাড়া চূড়ার নিচে যানবাহনের দীর্ঘ লাইন দেখা যাচ্ছে। এ ছাড়া পাঞ্জশিরে খাদ্য ও ওষুধের ঘাটতির সতর্কতাও জারি করা হয়েছে।


আরও খবর

আফগানিস্তানে আবারও বিস্ফোরণ, নিহত ৭

রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১