Logo
শিরোনাম

লালবাগ থানার ওসিসহ পাঁচ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৮ অক্টোবর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ | ৮৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রাজধানীর লালবাগ থানার ওসি এমএস মুর্শেদসহ ৫ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে সাড়ে চার লাখ টাকা লুটপাট ও মারধরের অভিযোগ আনা হয়েছে মামলায়।

বৃহস্পতিবার ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট ফারাহ দিবা ছন্দার আদালতে এ মামলা করেন বিল্লাল হোসেন নামের এক ব্যক্তি।

আদালত আদালত বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) আগামী ৩০ নভেম্বর তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য নির্দেশ দেন।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন- লালবাগ থানার এসআই তারেক নাজির, তারেক আজিজ, মো. আতোয়ার হোসেন ও কৃষ্ণ চন্দ্র মিত্র।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, চলতি বছরের ১৩ অক্টোবর লালবাগ থানার পেনাল কোড ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের পৃথক দুই মামলায় বিল্লাল হোসেনকে সুকৌশলে মিথ্যা আসামি বানিয়ে তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়। বাদীর লালবাগ ইয়াছিন সমবায় সমিতি লিমিটেড অফিসে তাকে গ্রেফতার করতে আসে আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে পোশাক পরে তার অফিসের টেবিলের ড্রয়ারে সংরক্ষিত চার লাখ পঞ্চাশ হাজার টাকা, সাড়ে ৩ ভরি স্বর্ণালংকার, সিসি ক্যামেরার ডিবিআর ও গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্রাদি ড্রয়ারের তালা ভেঙে লুপপাট করে ছিনিয়ে নিয়ে যান।এ সময় বাদী প্রতিবাদ করলে আসামিরা তার গায়ে হাত তুলে মারধর করে এবং অশ্লীল গালিগালাজ করে তাকে অপমান করেন।

অভিযোগে আরও বলা হয়, গ্রেফতারের সাত দিন পর মামলার বাদী আদালত থেকে দুই মামলায় জামিন পেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন। গত ২২ অক্টোবর বাদী থানায় যোগাযোগ করে চার লাখ পঞ্চাশ হাজার টাকা এবং সাড়ে ৩ ভরি স্বর্ণালংকারের বিষয়ে জানতে চাইলে আসামিরা পুনরায় মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে দেবে বলে হুমকি প্রদান করে।এরপর আসামিরা বাদীকে গা ধাক্কা দিয়ে থানা থেকে বের করে দেন এবং হুমকি দিয়ে বলেন- তুই যা পারিস করিস’।


আরও খবর

দেশে ১০ মাসে ধর্ষণের শিকার ৮৩০

রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২




সহকর্মীকে গুলি করে খুন, পলাতক বিজিবি সদস্য আটক

প্রকাশিত:সোমবার ২১ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০২ ডিসেম্বর 2০২2 | ৪৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে ২০-বিজিবির সিপাহি নেপাল দাসকে গুলি করে হত্যার পর পালিয়ে যাওয়া সহকর্মী হযরত আলীকে আটক করেছে র‍্যাব। রবিবার (২০ নভেম্বর) বিকালে তাকে ২০-বিজিবির কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এর আগে শনিবার রাতে তাকে দিনাজপুরের পার্বতীপুর থেকে আটক করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জয়পুরহাট র‍্যাব-৫ সিপিসি-৩-এর কোম্পানি কমান্ডার মেজর মোস্তফা জামান।

এদিকে, নিহত নেপাল দাসের ময়নাতদন্ত শেষে মরদেহ বিজিবির কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় সদর থানায় মামলা হয়েছে। নিহত নেপাল দাস (৩৫) জয়পুরহাট-২০ বিজিবির সিপাহি ছিলেন। তিনি ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলার মেঘচামি গ্রামের নারায়ণ দাসের ছেলে। গত বৃহস্পতিবার (১৭ নভেম্বর) রাত সাড়ে ১০টায় গুলিবিদ্ধ অবস্থায় তাকে জয়পুরহাট আধুনিক হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিলে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক।

জয়পুরহাট র‍্যাব-৫ সিপিসি-৩-এর কোম্পানি কমান্ডার মেজর মোস্তফা জামান বলেন, নেপাল দাসকে গুলি করে হত্যার পর পালিয়ে যান সিপাহি হযরত। শনিবার (১৯ নভেম্বর) রাতে পার্বতীপুর রেলস্টেশন এলাকা থেকে তাকে আটক করে বিজিবির কাছে হস্তান্তর করা হয়। তিনি দেশের বাইরে পালিয়ে যেতে চেয়েছেন। নেপালকে কি কারণে গুলি করে হত্যা করেছেন হযরত; সে বিষয়ে র‌্যাবকে কিছুই জানাননি বলেও জানান মেজর মোস্তফা।


আরও খবর



গোসাইরহাটে মাছের ঘের থেকে কুমির উদ্ধার

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৫ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০২ ডিসেম্বর 2০২2 | ২৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

শরীয়তপুরের গোসাইরহাটে পুকুর থেকে প্রায় আট ফুট দৈর্ঘ্যের কুমির উদ্ধার করেছে স্থানীয়রা। সোমবার (১৪ নভেম্বর) রাত ৮টায় উপজেলার আলাওলপুর ইউনিয়নের পাজাল কান্দি এলাকার খলিল কাজির মাছের ঘের থেকে কুমিরটি উদ্ধার করা হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সন্ধ্যায় পুকুরে বড় একটি কুমিরকে ডিম বা থাকার জন্য মাটি খুঁড়তে দেখেন পুকুরের কাজ করা কর্মীরা। পুকুরে কাজ করে কর্মীরা একটি ফাঁদ পাতেন। সেই ফাঁদে আটকে পড়ে কুমিরটি। এর দৈর্ঘ্যে প্রায় ৮ ফিট। উপজেলা প্রাণী সম্পদ অফিসে জানালে তাদের কর্মীরা এসে দেখে যায়। এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয়রা কুমির দেখতে ভিড় জমিয়েছে।

আলাওলপুর চেয়ারম্যান ওসমান বেপারী বলেন, আমি খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে যাই। পরে উপজেলা প্রশাসনকে জানালে তারা সেটি নেয়ার জন্য বন বিভাগের অফিসে জানান। সকালে এটিকে নেওয়ার জন্য বন বিভাগের ঢাকার কর্মীদের আসার কথা রয়েছে। তবে বিষয় হল এটি খুলনা বাগেরহাটের পানির কুমির। আর এই ঘেরের পাশে ছোট একটি নদী। কিভাবে এটি আসল দেখার বিষয়।

নিউজ ট্যাগ: কুমির উদ্ধার

আরও খবর



ডেঙ্গু: মৃত্যু ১, হাসপাতালে ২২১

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৫ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২২ | ৪৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

একদিনে নতুন করে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ২২১ জন। বর্তমানে দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি আছেন ১ হাজার ৯৬৯ জন। ডেঙ্গু-আক্রান্ত হয়ে ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে এক জনের মৃত্যু হয়েছে। এ বছর এখন পর্যন্ত ডেঙ্গুতে প্রাণ গেছে ২৪২ জনের।

শুক্রবার (২৫ নভেম্বর) সারাদেশের পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের নিয়মিত ডেঙ্গু বিষয়ক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ডেঙ্গু-আক্রান্ত হয়ে ২৪ ঘণ্টায় ঢাকার হাসপাতালগুলোতে ভর্তি হয়েছেন ১৪১ জন। আর ঢাকার বাইরের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৮০ জন।

বর্তমানে ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি আছেন ১ হাজার ১৩৫ জন। আর ঢাকার বাইরের হাসপাতালগুলোতে ভর্তি আছেন ৮৩৪ জন।

এ বছরের ১ জানুয়ারি থেকে আজ পর্যন্ত ডেঙ্গু-আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৫৫ হাজার ১৪৫ জন। এর মধ্যে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছেন ৫২ হাজার ৯৩৪ জন।


আরও খবর



চিনি-পাট-বস্ত্রকল ও রেলের পতিত জমি আবাদের জন্য কৃষিমন্ত্রীর পত্র

প্রকাশিত:রবিবার ১৩ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ৩০ নভেম্বর ২০২২ | ৩৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

চিনিকল, পাটকল, বস্ত্রকল ও রেলের চাষযোগ্য পতিত জমিতে আবাদের উদ্যোগ গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট তিন মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতা কামনা করে আধা-সরকারি পত্র দিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী মো. আব্দুর রাজ্জাক। শিল্পমন্ত্রী, বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী এবং রেলপথ মন্ত্রীর ব্যক্তিগত উদ্যোগ কামনা করে কৃষিমন্ত্রী তার আধা সরকারি পত্রে বলেন, বৈশ্বিক প্রতিকূল অবস্থায় সম্ভাব্য খাদ্য সংকট মোকাবিলায় সরকারি মালিকাধীন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে অব্যবহৃত চাষযোগ্য জমিতে খাদ্যশস্য, শাকসবজি, ডাল ও তেলবীজ চাষের উদ্যোগ গ্রহণ করার সুযোগ রয়েছে।

এ বিষয়ে শিল্প মন্ত্রণালয়, রেলপথ মন্ত্রণালয় এবং বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের অধীন প্রতিষ্ঠান, চিনিকল, পাটকল, বস্ত্রকল ও রেলপথের অব্যবহৃত বা পতিত জমিতে আবাদের উদ্যোগ গ্রহণ করলে তা দেশের খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধিতে সহায়ক হবে। আবাদের জন্য কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্ট উপজেলা কৃষি অফিসার প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করবে। পত্রে বলা হয়, কোভিড-১৯ এবং রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ফলে বিশ্বব্যাপী খাদ্য উৎপাদন ও বিপণন ব্যবস্থা চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হয়। সে সঙ্গে সার ও জ্বালানীসহ অত্যাবশ্যকীয় উপকরণের মূল্যবৃদ্ধি ও সরবরাহ বাধাগ্রস্ত হওয়ায় খাদ্য সংকটের আশংকা দেখা দেয়। এ পরিস্থিতিতে, দেশে খাদ্য নিরাপত্তা বজায় রাখতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধি ও কোনো জমি যেন পতিত না থাকে এ বিষয়ে নির্দেশনা দেন।

এ পরিপ্রেক্ষিতে কৃষি মন্ত্রণালয় উৎপাদন বৃদ্ধির পাশাপাশি ফসলের আবাদ এলাকা বৃদ্ধি, বসতবাড়িতে পুষ্টিবাগান স্থাপন ও প্রতিষ্ঠানের পতিত জমিকে চাষের আওতায় আনতে নিরলস কাজ করে যাচ্ছে।


আরও খবর



পোশাক রপ্তানিতে ভিয়েতনামকে ফের টপকাল বাংলাদেশ

প্রকাশিত:শুক্রবার ০২ ডিসেম্বর 2০২2 | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ | ৩৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

তৈরি পোশাক রপ্তানিতে বিশ্বে দ্বিতীয় অবস্থানে চলে এসেছে বাংলাদেশ। এ তালিকায় প্রথম স্থানে রয়েছে চীন। বাংলাদেশের বর্তমান অবস্থানে কয়েক বছর ধরে ছিল ভিয়েতনাম। করোনার প্রকোপ শুরু হলে ২০২০ সালে পোশাক রফতানিতে এ জায়গা করে নেয় দেশটি।

বুধবার (৩০ নভেম্বর) বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা (ডব্লিউটিও) প্রকাশিত বিশ্ব বাণিজ্য পরিসংখ্যান পর্যালোচনা ২০২২- এ তথ্য উঠে আসে।

ডব্লিউটিওর পরিসংখ্যান পর্যালোচনায় আরও দেখা গেছে, গত বছর বাংলাদেশ থেকে আরএমজি রপ্তানি দৃঢ়ভাবে বেড়েছে এবং বার্ষিক ২৪ ভাগ বৃদ্ধির রেকর্ড করেছে। বাংলাদেশের অংশ ২০২০ সালে ৬.৩০ ভাগ থেকে গত বছর ৬.৪০ ভাগে উন্নীত হয়েছে। এবছর রপ্তানি একটি বড় ধাক্কার সম্মুখীন হয়েছিল এবং ভিয়েতনামের আরএমজি রপ্তানির ৭ ভাগ বৃদ্ধির বিপরীতে বাংলাদেশে ১৭ ভাগ হ্রাস পেয়েছিল।

অপরদিকে প্রথম স্থানে থাকা চীন ২০২০ সালে ৩১.৬০ ভাগ থেকে গত বছরে ৩২.৮০ ভাগে উন্নীত করে।

ডব্লিউটিও-র প্রকাশনা অনুসারে ইউরোপীয় ইউনিয়ন আরএমজির দ্বিতীয় বৃহত্তম বিশ্ব রপ্তানিকারক। সুতরাং, প্রযুক্তিগত ভাবে, বাংলাদেশ তৃতীয় বৃহত্তম বিশ্ব আরএমজি রপ্তানিকারক দেশ এবং ভিয়েতনাম চতুর্থ।

ইইউ-এর সম্মিলিত রপ্তানি পরিসংখ্যান দেশভিত্তিক আলাদা করা হলে, বাংলাদেশ দ্বিতীয় এবং ভিয়েতনাম তৃতীয় শীর্ষ রফতানিকারক হবে। তুরস্ক পঞ্চম এবং ভারত ষষ্ঠ অবস্থানে রয়েছে। তারপরেই রয়েছে মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, হংকং এবং পাকিস্তান।


আরও খবর

আরেক দফা বাড়ল এলপিজির দাম

রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২