Logo
শিরোনাম

লড়াই শেষে না ফেরার দেশে ঐন্দ্রিলা

প্রকাশিত:রবিবার ২০ নভেম্বর ২০22 | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ | ২২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দীর্ঘ লড়াইয়ের পর, সকলের প্রার্থনাকে বিফল করে চলে গেলেন 'জিয়ন কাঠি'-খ্যাত অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলা শর্মা। ১ নভেম্বর ব্রেন স্ট্রোক হয় অভিনেত্রীর। এরপরই তাঁকে হাওড়ার বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। করা হয় অপারেশনও। কিন্তু সংক্রমণ বাড়তে থাকায় তাঁকে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়। রোববার (২০ নভেম্বর) দুপুরে সবাইকে কাঁদিয়ে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

মাঝে কদিন সুস্থতার দিকে এগোলেও শেষ পর্যন্ত লড়াইটা হেরেই গেলেন 'ফাইটার' ঐন্দ্রিলা। গত বুধবার তাঁর কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হয় পর পর দু'বার। মাঝে খবর ছড়িয়ে যায় যে তিনি আর নেই। তখন তাঁর বন্ধু সব্যসাচী জানান, এই খবর মিথ্যে। শুক্রবার তাঁর অবস্থার খানিক উন্নতি হলেও শনিবার ফের অ্যাটাক। ১০ বার কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হয় অভিনেত্রীর। এরপরই আর শেষ রক্ষা করা গেল না।

কয়েক বছর আগেই বছর কুড়ির গণ্ডি পেরিয়েছিলেন ঐন্দ্রিলা, অথচ এই স্বল্প সময়ে কী ভীষণ লড়াই করে গেলেন। দেখিয়ে গেলেন বেঁচে থাকার লড়াই কাকে বলে। প্রথমে ২০১৫ সালে মারণ রোগ ক্যানসার থাবা বসায় তাঁর শরীরে। তারপর ২০২১ আরও একবার তিনি ক্যানসার আক্রান্ত হন। দুইবার ক্যানসারকে হারিয়ে, কেমোথেরাপি করিয়ে সুস্থ হয়ে ওঠেন। কাজে ফেরেন। একাধিক ওয়েব সিরিজ, সিনেমায় অভিনয় করেন। কিন্তু তারপরই আচমকা তাঁর ব্রেন স্ট্রোক। সেখানেও লড়েছিলেন জি জান দিয়ে। তবে লড়াইটা তাঁর আর জেতা হল না।

'ঝুমুর' নামক একটি সিরিয়াল দিয়ে অভিনয় জগতে পা রাখেন ঐন্দ্রিলা। এই সিরিয়ালেই তাঁর বিপরীতে দেখা গিয়েছিল সব্যসাচী চৌধুরীকে। এই 'বামাখ্যাপা' সব্যসাচী চৌধুরীই শেষ দিন পর্যন্ত তাঁর পাশে থেকেছেন। ভালোবাসায়, যত্নে ভালো রাখার চেষ্টা করেছেন ঐন্দ্রিলাকে। ঐন্দ্রিলার সঙ্গে তিনিও লড়াই করছিলেন।

সবটাই বিফল করে অন্য জীবনে পাড়ি দিলেন অভিনেত্রী। সকলের প্রার্থনাকে পিছনে ফেলে চলে গেলেন অমৃতলোকে।


আরও খবর



বনানীর ওসিসহ ১৬ জনের বিরুদ্ধে তাবিথের মামলার আবেদন খারিজ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৮ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২২ | ৫৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রাজধানীর বনানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাসহ (ওসি) ১৬ জনের বিরুদ্ধে বিএনপি নেতা তাবিথ আউয়ালের করা মামলার আবেদন খারিজ করেছেন আদালত। ঢাকা মহানগর দায়রা জজ মো. আসাদুজ্জামান আজ মঙ্গলবার এ আদেশ দেন। প্রথম আলোকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন সংশ্লিষ্ট আদালতের সরকারি কৌঁসুলি তাপস কুমার পাল।

বনানীতে বিএনপির মোমবাতি প্রজ্বালন কর্মসূচিতে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের হামলায় আহত হয়েছিলেন তাবিথ। এ ঘটনায় গতকাল সোমবার ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতে মামলা নেওয়ার আবেদন করেন তিনি।

মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, বিদ্যুৎ, গ্যাস ও জালানি তেলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় সব পণ্যের লাগামহীন মূল্যবৃদ্ধি ও পুলিশের গুলিতে দলের তিন নেতা নিহত হওয়ার প্রতিবাদে গত ১৭ সেপ্টেম্বর বনানীর কাকলী থেকে গুলশান দুই নম্বর গোলচত্বর পর্যন্ত মোমবাতি প্রজ্বালন কর্মসূচি পালন করে বিএনপি।

ওই কর্মসূচি চলাকালে মামলার আসামিদের নেতৃত্বে দুই-তিনশ সন্ত্রাসী অস্ত্র নিয়ে প্রদক্ষিণ করে। এ সময় মামলার বাদী তাবিথ আউয়াল বনানী থানার ওসিসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের কিাছে নেতাকর্মীদের নিরাপত্তার জন্য অনুরোধ করেন। কিন্তু তারা কোনো পদক্ষেপ নেননি।

পরে কর্মসূচি শেষ হলে বাদীসহ নেতাকর্মীরা যাওয়ার সময় সন্ত্রাসীরা হত্যার উদ্দেশে তাদের ওপর হামলা চালায়। হামলায় তাবিথ আউয়াল মাথায় আঘাত পান। পরে তাকে ইউনাইটেড হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে যাওয়া হয়। বনানী থানার ওসিসহ ২০ থেকে ৩০ পুলিশ সদস্যের ইশারায় আওয়ামী লীগের নেতারা ওই হামলা করেছিলেন বলে অভিযোগ করেন তাবিথ আউয়াল।

নিউজ ট্যাগ: বনানী থানা

আরও খবর



কাতার বিশ্বকাপের খাবারদাবার

প্রকাশিত:সোমবার ২৮ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ | ৩৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সৌদি আরব-আর্জেন্টিনা এবং জাপান-জার্মানি দ্বৈরথে মরুর বুকে উঠেছে ঝড়। হিসাবনিকাশ বদলে গেছে খানিক। আর আমাদের দেশের ফুটবল সমর্থকদের শীতের আমেজ গেছে পালিয়ে! চায়ের কাপ হাতে বিস্তর বিতর্ক হলো অফসাইড নিয়ে। এই শেষ নভেম্বরের মধ্য রাতে হাইভোল্টেজ খেলা দেখতে গিয়ে আমাদেরও খুব কম মুড়ি-চানাচুর কিংবা নাগেটস-নুডলস উড়ে যাচ্ছে না! টেলিভিশনের সামনে বসে উত্তেজনায় আমাদেরই যদি এ অবস্থা হয়, তাহলে যাঁরা মাঠে ফুটবল নৈপুণ্যের ভেলকি দেখিয়ে চলেছেন, সেই মেসি-নেইমার-এমবাপ্পেদের কী অবস্থা, সেটা সহজে অনুমান করা যায়। সংবাদমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, আর্জেন্টিনা ও উরুগুয়ে জাতীয় দল কাতারে ল্যান্ড করেছে ৪ হাজার পাউন্ড মাংস নিয়ে! দেশ দুটির ফুটবল সংস্থা খেলোয়াড়দের বাড়ির স্বাদে খাইয়ে-দাইয়ে ভালো খেলতে অনুপ্রাণিত করতে চেয়েছে বলে দেশ থেকেই বয়ে এনেছে মাংস।

এদিকে লাখ লাখ ফুটবল সমর্থক সৌদি আরবের চেইন রেস্তোরাঁ আলবাইকের চিকেন উইংস এবং আমেরিকান ম্যাকডোনাল্ডের বার্গার খেয়ে ফ্যান জোনগুলো মাতিয়ে রেখেছেন। স্থানীয় রেস্তোরাঁগুলোতে উপচে পড়ছে মানুষ কাতারের স্থানীয় খাবার খেতে। তাই মাজবুস, মাদরাউবা, উম্মে আলী, লুকাইমাত, কুনাফা, শর্মা কিংবা করক চা বা কাহওয়া কফির মতো স্থানীয় জনপ্রিয় খাবারগুলোরও এখন রমরমা অবস্থা। কিছুটা কম দামে এগুলো খেতে পারছেন কাতারের বিদেশি অতিথিরা। ফলে রেস্তোরাঁগুলোর রান্নাঘরে চাপ বেড়েছে বিস্তর! 

যাঁরা বালুকাময় মরুভূমিতে রাতে তাঁবুতে থাকার রোমাঞ্চ উপভোগ করছেন, তাঁরা পাচ্ছেন প্যাকেজ খাবার। সাধারণভাবে সেসব প্যাকেজে থাকছে তাজা ও শুকনো ফল, বার্গার কিংবা হটডগ, ডোনাট, কফির স্যাশে, পানির বোতল ও জুস। কোনো কোনো প্যাকেজে স্থানীয় খাবারের সঙ্গে থাকছে গ্রিক সালাদ। কাতারে যাওয়া দর্শকদের অনেকেই, বিশেষ করে এশিয়ান দেশগুলোর দর্শকেরা চেখেদেখছেন স্থানীয় খাবারগুলো। কাতারের খাবারের সঙ্গে এশিয়ার বিভিন্ন দেশের খাবারের রন্ধনপ্রণালি ও স্বাদে মিল আছে বলেই এশিয়ানরা এদিকে খানিক এগিয়ে আছে। কিন্তু এ বিশ্বকাপে বিতর্ক চলছিল একেবারে শুরু থেকে। আর সেটা খেলা নিয়ে নয়। ছিল পানীয় নিয়ে। কাতার বিশ্বকাপে অ্যালকোহলযুক্ত পানীয় পাওয়া যাবে কি না, সে বিতর্ক ছিল বিশ্বকাপ আসরের একেবারে শুরু থেকে। তারপর বহু জল ঘোলা করে একটা সমাধানে পৌঁছেছে আয়োজক দেশ কাতার এবং ফুটবলের অভিভাবক সংস্থা ফিফা। পানীয় নিয়ে বিতর্কের অবসান হলেও নতুন বিতর্ক শুরু হয়েছে খাবারের মান ও দাম নিয়ে!

এককথায়, কাতার বিশ্বকাপ এখন ফুটবল উন্মাদনার পাশাপাশি খাবার নিয়েও এক দারুণ উন্মাদনাময় সময় কাটাচ্ছে। এই উন্মাদনায় মেসি, নেইমার কিংবা রোনালদো কী খাচ্ছেন?

মেসি: এ তথ্য এখন সবাই জানে যে আর্জেন্টিনার অধিনায়ক লিও মেসির বয়স ৩৫ বছর। এ বয়সে সব মানুষকেই খাবারদাবারের বিষয়ে কিছুটা সচেতন হতে হয়। আর মেসির মতো একজন পেশাদার ফুটবল খেলোয়াড়কে তো অনেক কিছুই মেনে চলতে হয় ক্যারিয়ারের জন্য। ফলে তাঁকে এখন খাবারদাবার নিয়ে যথেষ্ট সচেতন হতে হয়েছে। একসময় চিনি আর চর্বিযুক্ত প্রক্রিয়াজাত খাবারে অভ্যস্ত লিও মেসি এখন উচ্চ প্রোটিনযুক্ত খাবারে অভ্যস্ত হয়েছেন। তবে আগের খাবার যে একেবারে ছেড়ে দিয়েছেন, তাও নয়। পরিমিত করেছেন। জানা যায়, এখন মেসির ডায়েটে এক দিকে থাকে প্রক্রিয়াজাত খাবার আর অন্যদিকে থাকে ফল, প্রোটিন ও শিম-জাতীয় খাবার। এসব খাবার থেকে শক্তি নিয়েই তিনি মাতিয়ে চলেছেন ফুটবল বিশ্ব।

নেইমার: নেইমার দা সিলভা সান্তাস জুনিয়র, যাঁকে আমরা সংক্ষেপে নেইমার নামেই জানি। পাঁচ ফুট নয় ইঞ্চি উচ্চতার এ ব্রাজিলিয়ান খেলোয়াড় সপ্তাহে কমপক্ষে পাঁচ দিন জিম করে কাটান। এ ছাড়া খেলার দিনগুলোতে আলাদা শারীরিক পরিশ্রম তো আছেই। নেইমার যেসব খাবার খান না তার তালিকা বেশ বড়। তাতে আছে সব ধরনের লাল মাংস, প্রক্রিয়াজাত খাবার, দুধ দিয়ে বানানো যেকোনো খাবার, সব ধরনের জাঙ্ক ফুড, ভাজা খাবার, রাসায়নিক উপকরণে তৈরি খাবার এবং কৃত্রিম ভাবে বিভিন্ন উপকরণ সংযোজন করা খাবার। তাহলে তিনি কী খান? এ তালিকাও নেহাত ছোট নয়। এতে আছে ডিম, টার্কি, এভোকাডো, অ্যাসপারাগাস, মিষ্টি আলু, সবজি, মুরগির মাংস, মাছ, ভাত, বিভিন্ন ধরনের বীজ, বাদা, বাদামের মাখন, প্রোটিন শেক ও পানি। তিনি দিনে দুই বার প্রোটিন শেক খেয়ে থাকেন। 

রোনালদো: সিআর সেভেন হিসেব পরিচিত তিনি। ফিট থাকতে কঠোর জীবনযাপন করেন রোনালদো। কিছুদিন আগে এক সংবাদ সম্মেলনে কোমল পানীয়র বোতল নিজের সামনে থেকে সরিয়ে রাখার জন্য আলোচনায় এসেছিলেন তিনি। রোনালদো একটি সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, আমি প্রচুর পরিমাণে হোলগ্রেইন কার্ব, ফলমূল এবং শাকসবজিসহ উচ্চ প্রোটিনযুক্ত খাবার খাই এবং চিনিযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলি। রোনালদোর ব্যক্তিগত ডায়েটিসিয়ান জানিয়েছেন, তিনি প্রতিদিন তিন থেকে চার ঘণ্টা পরপর  ছয় বার খাবার খান। বহুবার বহু জায়গায় রোনালদোর সন্তানেরা জানিয়েছেন, রোনালদো আইসক্রিম, মিষ্টি জাতীয় খাবার এবং জাঙ্ক ফুড খাওয়া পছন্দ করেন না। তিনি সোর্ড ফিশ, টুনা এবং মুরগির মাংসের খাবার পছন্দ করেন। এ ছাড়া আছে গোটা শস্য, সবজি ও প্রচুর ফল। রোনালদোর খাদ্যতালিকায় আছে সি-উইড নামের একটি সামুদ্রিক খাবার। এ ছাড়া আছে পনির দেওয়া হ্যাম এবং কম চর্বিযুক্ত দই। 

নিউজ ট্যাগ: কাতার বিশ্বকাপ

আরও খবর

আপনার আজকের দিন- ৩০ নভেম্বর, ২০২২

বুধবার ৩০ নভেম্বর ২০২২

আজকের রাশিফল!

মঙ্গলবার ২৯ নভেম্বর ২০২২




১০ দফা দাবিতে নৌযান শ্রমিকদের কর্মবিরতির ঘোষণা

প্রকাশিত:শনিবার ২৬ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ | ৩৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নৌযান শ্রমিকরা ১০ দফা দাবিতে আগামীকাল রোববার মধ্যরাত ১২টা থেকে সারা দেশে লাগাতার কর্মবিরতি সফল করতে বরিশালে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে।

আজ সকাল ১১টায় বিভাগীয় নৌযান শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদের আয়োজনে বরিশাল নদী বন্দর থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলটি নগরীর প্রধান সড়কগুলো প্রদক্ষিণ করে অশ্বিনী কুমার হলের সামনে এসে বিক্ষোভ সমাবেশ করে। সমাবেশ শেষে পুনরায় বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে তারা নদী বন্দরে যায়।

সমাবেশে সংগঠনটির বরিশাল বিভাগীয় সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম বলেন, 'আজকের মধ্যে আমাদের ১০ দফা দাবি আদায় না হলে রাত ১২টা থেকে লাগাতার কর্মবিরতি পালন করবে সারা দেশের নৌযান শ্রমিকরা।'

বরিশাল বিভাগের শ্রমিকরাও এই কর্মসূচির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেছে।

শ্রমিকদের ১০ দফা দাবি হচ্ছে:

১. নৌযান শ্রমিকদের নিয়োগপত্র, পরিচয়পত্র ও সার্ভিস বুক প্রদান।

২. নৌযান শ্রমিকদের সর্বনিম্ন মজুরি ২০ হাজার টাকা নির্ধারণ।

৩. সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কন্ট্রিবিউটরি প্রভিডেন্ট ফান্ড ও নাবিক কল্যাণ তহবিল গঠন করা এবং দুর্ঘটনা ও কর্মস্থলে মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরণ ১০ লাখ টাকা নির্ধারণ করা।

৪. চট্টগ্রাম থেকে পাইপলাইনের মাধ্যমে জ্বালানি তেল সরবরাহে দেশের স্বার্থবিরোধী অপরিণামদর্শী প্রকল্প বাস্তবায়নে চলমান কার্যক্রম বন্ধ করা।

৫. বালুবাহী বাল্কহেড ও ড্রেজারের রাত্রিকালীন চলাচলের ওপরে ঢালাও নিষেধাজ্ঞা শিথিল করা।

৬. নৌপথে সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি ও ডাকাতি বন্ধ করা।

৭. ভারতগামী শ্রমিকদের লান্ডিং পাস প্রদানসহ ভারতীয় সীমানায় সব ধরনের হয়রানি বন্ধ করা।

৮. চট্টগ্রাম বন্দর থেকে পণ্য পরিবহন নীতিমালা শতভাগ কার্যকর করে সব লাইটারিং জাহাজকে সিরিয়াল মোতাবেক চলাচলে বাধ্য করা।

৯. চরপাড়া ঘাটের ইজারা বাতিল করা।

১০. নৌ-পরিবহন অধিদপ্তরের সব ধরনের অনিয়ম-অব্যবস্থাপনা বন্ধ করা।


আরও খবর



ব্রাজিলকে হারানোর সামর্থ্য আমাদের আছে: সুইজারল্যান্ড কোচ

প্রকাশিত:সোমবার ২৮ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০২ ডিসেম্বর 2০২2 | ৫৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বিশ্বকাপে বরাবরই চমক দিতে পছন্দ করে ইউরোপিয়ান আন্ডারডগ হিসেবে পরিচিত সুইজারল্যান্ড। যদিও বিশ্বকাপের নকআউট রাউন্ডে তেমন ভালো করার নজির নেই তাদের। তবে গ্রুপ পর্ব তারা বেশ কয়েকবারই উতরে গেছে। এবার সে লক্ষ্যেই শক্তিশালী ব্রাজিলের বিপক্ষে সোমবার মাঠে নামতে যাচ্ছে তারা। সে ম্যাচে নামার আগে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে এসে দলটির কোচ দৃঢ় কণ্ঠেই ব্যক্ত করলেন, তার দলের সামর্থ্য রয়েছে ব্রাজিলকে হারানোর।

সুইস কোচ মুরাত ইয়াকিন ব্রাজিলের বিপক্ষে মোটা দাগে দুই কারণে জয়ের সম্ভাবনা দেখছেন। এর প্রথমটা হচ্ছে এবারের বিশ্বকাপে মাঝারি দলগুলোর বড় দলকে হারানো এবং সম্প্রতি বেশ কয়েকটি বড় ইউরোপিয়ান দলকে হারিয়েছে সুইজারল্যান্ড।

মুরাত ইয়াকিন বলেন, অবশ্যই ব্রাজিলের বিপক্ষে জেতা সম্ভব। এই টুর্নামেন্ট ইতোমধ্যে অনেক অবিশ্বাস্য কিছু খেলা উপহার দিয়েছে। এটা মূলত ঐদিনের ফর্ম এবং ম্যাচের অবস্থার উপর নির্ভর করবে। আমরা এই ম্যাচের জন্য প্রস্তুতি নিয়েছি। আমরা তাদের ব্যাপারে বেশ সচেতন কেননা তারা বিশ্বকাপ জয় করতে এসেছে। তাদের বিপক্ষে লড়াই করাটা হবে রোমাঞ্চকর।

বিশ্বকাপের ড্র-তে যখন ব্রাজিলের গ্রুপে পড়ে সুইজারল্যান্ড তখন থেকেই তাদের বিপক্ষে লড়তে মুখিয়ে আছেন সুইস কোচ। তিনি বলেন, আমি ছোট থেকেই ব্রাজিলের খেলা দেখতে ভালোবাসি। মূলত তাদের খেলা দেখেই আমি ফুটবলার হয়েছিলাম। কৌশলগত দিক দিয়ে এই ম্যাচটা অনেক কঠিন হতে যাচ্ছে। আমরা আমাদেরকে এই ম্যাচে একটা দল হিসেবে মেলা ধরবো। আমি আমার কাজটি করে যাবো ম্যাচ শুরু হওয়ার আগ পর্যন্ত।

সোমবার রাত ১০টায় সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে মাঠে নামবে ব্রাজিল। যারাই এই ম্যাচ জিতবে তারাই পৌঁছে যাবে নকআউট রাউন্ডে।


আরও খবর

রোনালদোকে টপকে গেলেন মেসি

রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২




গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছি: ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১০ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০১ ডিসেম্বর ২০২২ | ৪৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। আজ বৃহস্পতিবার শহীদ নূর হোসেন দিবস উপলক্ষে রাজধানীর জিরো পয়েন্টে নূর হোসেন স্কয়ারে আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের নিয়ে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানোর পর সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের, গণতন্ত্র একটি বিকাশমান প্রক্রিয়া, এটি কোনো ম্যাজিক্যাল ট্রান্সফরমেশন নয় যে রাতারাতি পরিবর্তন হয়ে যাবে। আমাদের নেত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা স্বৈরাচার থেকে গণতন্ত্রকে শৃঙ্খলমুক্ত করার আন্দোলন করেছেন।

তিনি বলেন, বিএনপি সরকারে থাকতেও গণতন্ত্রের ক্ষতি করেছিল, বিরোধী দলে গিয়েও তারা গণতন্ত্রের ক্ষতি করেছে। এখন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে আমরা লড়াই চালিয়ে যাচ্ছি। আমাদের এই লড়াই অব্যাহত থাকবে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরও বলেন, বিএনপি নিজেরা প্রতিজ্ঞা করুক, তারা আগুন-সন্ত্রাস করবে না। সেটি তারা মাঠে বাস্তবায়ন করুক। সমাবেশে লাঠি নিয়ে কেন তাদের নেতাকর্মীদের বের হতে হবে? জাতীয় পতাকা লাঠির সঙ্গে বেঁধে তারা আন্দোলন করবে, এটাও তো আরেক সন্ত্রাস। এটা বন্ধ করতে হবে।

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আন্দোলনে গণতন্ত্র মুক্তি পেয়েছে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, কিন্তু গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে বাংলাদেশে অনেক প্রতিবন্ধকতা আছে। গণতন্ত্রকে বারবার বাধাগ্রস্ত করা হয়েছে। ১৫ আগস্টে রাজনৈতিক সম্পর্কে বিভিন্ন দলের যে উঁচু দেয়াল বিএনপি তুলেছিল, সেই দেয়াল ৩ নভেম্বর আরও উঁচু হলো। ২১ আগস্ট আরও উচ্চতা পেল। এটা তো গণতন্ত্র বিকাশের পথে প্রধান অন্তরায়।

১৯৮৭ সালের ১০ নভেম্বর তৎকালীন স্বৈরশাসকের বিরুদ্ধে রাজধানী ঢাকার রাজপথে গণতান্ত্রিক আন্দোলনের মিছিলে শহীদ হন নূর হোসেন। দিনটি উপলক্ষে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে ফুল দিয়ে নূর হোসেনের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়।

এ সময় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, এস এম কামাল হোসেন, প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, সহ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, কেন্দ্রীয় সদস্য ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। 


আরও খবর