Logo
শিরোনাম

মুক্তিযোদ্ধাকে মারধরের ঘটনায় ইউপি সদস্য আটক

প্রকাশিত:রবিবার ০৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৮৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

লোহাগাড়ার চরম্বা ইউনিয়নে মুক্তিযোদ্ধাকে মারধরের ঘটনায় ওসমান গণি (৪২) নামে এক ইউপি সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শনিবার সন্ধ্যায় ওই ইউপি সদস্যকে এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে নিজ গ্রাম থেকে গ্রেফতার করা হয়। তিনি ইউনিয়নের বিবিবিলা এলাকার পশ্চিমপাড়ার মৃত আবদুল আলমের ছেলে ও ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের সদস্য। মারধরের শিকার মুক্তিযোদ্ধা অতীন্দ্র লাল নাথ (৭০) একই এলাকার পূর্ব নাথপাড়ার মৃত শ্যামা চরণ নাথের ছেলে।

জানা গেছে, এলাকায় চলাচলের রাস্তা বন্ধ করা নিয়ে স্থানীয় দুপক্ষের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল। এ ঘটনা কেন্দ্র করে ওসমান গণি মেম্বার মুক্তিযোদ্ধা অতীন্দ্র লাল নাথের ওপর চড়াও হন। পরে শনিবার সকালে তিনি মুক্তিযোদ্ধাকে পাড়ার চা দোকানে দেখলে গালাগাল করতে থাকেন। একপর্যায়ে ওসমান গণির নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধাকে মারধর করা হয়। এতে তিনি গুরুতর আহত হন।

ঘটনার দিন বিকালে ইউপি সদস্য ওসমান গণি, কায়ছার হামিদ, মোস্তাক মিয়া, আদিল, আবদুল করিম, অনিল নাথসহ অজ্ঞাতনামা আরও ৫-৬ জনকে আসামি করে থানায় মামলা রুজু করা হয়। এর পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে ওসমান মেম্বারকে গ্রেফতার করে।

মুক্তিযোদ্ধা অতীন্দ্র লাল নাথকে মারধরের ঘটনায় এলাকার অন্যান্য বীর মুক্তিযোদ্ধার মাঝে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।

লোহাগাড়া থানার ওসি (তদন্ত) ওবাইদুল ইসলাম জানান, মুক্তিযোদ্ধাকে মারধরের ঘটনায় এক ইউপি সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে। রবিবার সকালে তাকে চট্টগ্রাম আদালতে পাঠানো হয়েছে। মামলার অন্যান্য আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত আছে বলেও জানান তিনি।


আরও খবর

২০০ টাকার জন্য বাবাকে পিটিয়ে খুন

বুধবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১




এমন দিন এলো না খেয়ে থাকার উপক্রম

প্রকাশিত:রবিবার ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৪৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

১৯৯২ সালে সোহানুর রহমান সোহান পরিচালিত লাভ ছবির মধ্য দিয়ে  চলচ্চিত্রে যাত্রা করেন অভিনেত্রী নাসরিন আক্তার। নৃত্য সহশিল্পী হিসেবে যাত্রাটা শুরু হলেও দেশের প্রথম সারির অনেক নায়কের বিপরীতেও অভিনয় করেছেন তিনি। কৌতুক অভিনেতা দিলদারের নায়িকা হিসেবে আকাশছোঁয়ায় জনপ্রিয়তা পেয়েছেন।

তার দাবি, দীর্ঘ ক্যারিয়ারে পাঁচ শতাধিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। এখন তাকে সিনেমা অঙ্গনে খুব একটা দেখা যায় না। কেমন আছেন কি কাজ করছেন এ বিষয় জানতে তার সঙ্গে কথা হয়।

কেমন আছেন জানতে চাইলে নাসরিন বলেন, আল্লাহর রহমতে ভালোই আছি।

কাজের খবর জানিয়ে অভিনেত্রী বলেন, একদম কাজ নেই। মোস্তাফিজুর রহমান মানিক ভাইয়ের পরিচালনায় আনন্দ অশ্রু সিনেমায় কাজ করছি, যা আর দু-একদিন করলেই পুরোপুরি শেষ হয়ে যাবে। তারপর আর কোনো কাজ নেই। বেকার।

একটা সময় ছিল সিডিউল দেয়া নিয়ে আতঙ্কে থাকতাম। চারদিকে কাজ আর কাজ। সিডিউল দিতে পারতাম না সবাইকে। কত কথা শুনতে হয়েছে। কতজনের রাগ ভাঙাতে হয়েছে। এখন এমন দিন এলো না খেয়ে থাকার উপক্রম। তার ওপর করোনার যন্ত্রণা যোগ হয়েছে- বললেন নাসরিন।

তিনি মনে করেন এফডিসির সিনিয়র পরিচালকরা সিনেমায় অনিয়মিত হওয়ার কারণেই তার মতো সিনিয়র শিল্পীরাও কাজ পাচ্ছেন না। এখন নতুন পরিচালকদের সময় যাচ্ছে। প্রচুর কাজ হচ্ছে। কিন্তু এ পরিচালকদের সঙ্গে তার মতো আগেকার শিল্পীদের পরিচয়-জানাশোনা নেই। অভিনেত্রীর ভাষ্য, আমরা নতুনদের সঙ্গে কাজ করতে চাই বেশি বেশি। তাদের সঙ্গে মিলেমিশে নতুন করে ইন্ডাস্ট্রিতে সোনালি দিন ফিরিয়ে আনতে চাই। সমস্যা হলো নতুন পরিচালকরা আমাদের এড়িয়ে চলে। গুণের চেয়ে গ্ল্যামার আর বন্ধু সম্পর্ককে বেশি গুরুত্ব দেয়।

তারা মনে করেন আমাদের নিয়ে কাজ করলে ইচ্ছেমতো তুই তুমি বলা যায় না। কাজ ছাড়া কোনো আড্ডায় পাওয়া যায় না।

নাসরিন নতুন পরিচালকদের সঙ্গে কাজের আরও একটি সমস্যার কথা তুলে ধরে বলেন, বর্তমান সময়ের পরিচালকদের আরেকটা সমস্যা হলো তারা মনে করে তাদের মতো আর কেউ কাজ করতে জানে না। তারাই সব জানে ও বোঝে। ভীষণ অহংকারী। তারা সম্মানও দিতে চায় না সিনিয়র শিল্পীদের। কেমন যেন সবাই। এসবের জন্য আরও কাজ করতে মন চায় না।

নিউজ ট্যাগ: নাসরিন আক্তার

আরও খবর



জুলহাজ-তনয় হত্যা মামলার রায় ৩১ আগস্ট

প্রকাশিত:সোমবার ২৩ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৯১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
আসামিদের মধ্যে প্রথম চারজন পলাতক রয়েছেন। তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আবেদন করেছেন তদন্ত কর্মকর্তা। বাকি চারজন কারাগারে আছেন

ব্লগার জুলহাজ মান্নান ও তার বন্ধু নাট্যকর্মী মাহবুব তনয় হত্যা মামলায় নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের আট সদস্যের বিরুদ্ধে আগামী ৩১ আগস্ট রায় ঘোষণার দিন ধার্য করেছেন আদালত।

সোমবার ঢাকার সন্ত্রাস বিরোধ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মজিবুর রহমানের আদালত রাষ্ট্রপক্ষ এবং আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে রায়ের এ তারিখ ধার্য করেন।

রাষ্ট্রপক্ষে সংশ্লিষ্ট ট্রাইব্যুনালের পাবলিক প্রসিকিউটর গোলাম ছারোয়ার খান জাকির যুক্ততর্ক উপস্থাপন করেন। আর আসামিদের পক্ষে অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম ও খায়রুল ইসলাম লিটন যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী বলেন, আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছি। আশা করছি, আদালত তাদের সর্বোচ্চ সাজা দেবেন।

অপরদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবীরা বলেন, রাষ্ট্রপক্ষ আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণ করতে পারেনি। তাই তারা খালাস পাবেন।

অভিযোগপত্রভুক্ত আসামিরা হলেন- সৈয়দ মোহাম্মদ জিয়াউল হক ওরফে মেজর জিয়া (চাকরিচ্যুত মেজর), আকরাম হোসেন, সাব্বিরুল হক চৌধুরী, জুনাইদ আহমদ ওরফে মওলানা জুনায়েদ আহম্মেদ ওরফে জুনায়েদ, মোজাম্মেল হুসাইন ওরফে সায়মন, আরাফাত রহমান, শেখ আব্দুল্লাহ ও আসাদুল্লাহ।

আসামিদের মধ্যে প্রথম চারজন পলাতক রয়েছেন। তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আবেদন করেছেন তদন্ত কর্মকর্তা। বাকি চারজন কারাগারে আছেন।

২০১৯ সালের ২৩ জুলাই পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের ইন্সপেক্টর মুহাম্মদ ইমরুল ইসলাম এই মামলায় জিয়াসহ আনসার আল ইসলামের আট সদস্যের বিরুদ্ধে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন। পরে গত বছরের ১৯ নভেম্বর আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জগঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেন আদালত।

২০১৬ সালের ২৫ এপ্রিল রাজধানীর কলাবাগানের লেক সার্কাস রোডের বাড়িতে প্রবেশ করে ইউএসএইড কর্মকর্তা জুলহাজ মান্নান ও তার বন্ধু থিয়েটারকর্মী মাহবুব তনয়কে কুপিয়ে হত্যা করেন দুর্বৃত্তরা। ওই ঘটনায় কলাবাগান থানায় জুলহাজের বড় ভাই মিনহাজ মান্নান ইমন হত্যা মামলা এবং সংশ্লিষ্ট থানার এসআই মোহাম্মদ শামীম অস্ত্র আইনে আরেকটি মামলা দায়ের করেন।

নিহত জুলহাজ বাংলাদেশে নিযুক্ত প্রাক্তন রাষ্ট্রদূত ড্যান ডব্লিউ মজিনার প্রটোকল কর্মকর্তা ছিলেন। নিহত তনয় নাট্য সংগঠন লোক নাট্যদলের শিশু সংগঠন পিপলস থিয়েটারে জড়িত ছিলেন।


আরও খবর



বিষাক্ত মদ্যপানে তিন যুবকের মৃত্যু

প্রকাশিত:শুক্রবার ২০ আগস্ট ২০21 | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৯২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলায় বিষাক্ত মদ্যপানে তিন যুবকের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৯ আগস্ট) রাত দেড়টায় ওই তিন যুবকের মৃত্যু হয়। নিহতরা হলেন, উপজেলার পাচ এলাসিন গ্রামের জুলহাস মিয়ার ছেলে মোহাম্মদ নাসির মিয়া (২২), বাবুল মিয়ার ছেলে মোহাম্মদ পারভেজ মিয়া (৩৪) ও কাশেম মিয়ার ছেলে মোহাম্মদ আক্কাস মিয়া (২৩)।

স্থানীয় ও পরিবার সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাত নয়টার দিকে তিন বন্ধু মিলে তাদের এক বন্ধু, নাসিরের মোদি দোকানে বসে মদ্যপান করেন। মদ্যপানের পর তারা তিনজনই অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকে। পরে একজন ক্রেতা তাদের দোকানে গেলে তাদের অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে আসে পাশের লোকজনকে ডেকে বিষয়টি অবগত করেন। পরে স্থানীয়রা তাদের পরিবারকে বিষয়টি জানালে তারা ছুটে এসে ঐ তিন জনকে টাঙ্গাইল সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাদের মধ্যে নাসির এবং পারভেজকে তাৎক্ষনিক মৃত ঘোষণা করেন।

এরপর চিকিৎসারত অবস্থায় রাত দেড়টার দিকে আক্কাসও মারা যায়। এ ঘটনায় নিহতদের পরিবারের কান্নায় ভারি হয়ে উঠেছে পুরো এলাকা।

দেলদুয়ার থানার অফিসার ইনচার্জ মো. সাজ্জাদ হোসেন বলেন, রাতে তিন বন্ধু মদপান অসুস্থ হয়ে পড়ে। পরে তাদের টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে। বিস্তারিত জানার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আরও খবর



‘নগদ’ প্রধানমন্ত্রী স্বীকৃত একটি আর্থিক সেবা : সচিব

প্রকাশিত:রবিবার ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৭৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নগদ-এর সঙ্গে ডাক বিভাগের অংশীদারিত্বের বিষয়ে একটি কুচক্রী মহলের চলমান বিভ্রান্তিমূলক প্রচারকে উড়িয়ে দিয়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব মো. আফজাল হোসেন বলেছেন, নগদ প্রধানমন্ত্রী স্বীকৃত একটি আর্থিক সেবা। রোববার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এমনটাই দাবী করেছে মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সেবা (এমএফএস) দাতা প্রতিষ্ঠান নগদ।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আজ রোববার এক ভিডিও বার্তায় ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব মো. আফজাল হোসেন বলেন, এই মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসে ডাক বিভাগ তথা ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের অংশীদারিত্ব রয়েছে, এটা সর্বজন স্বীকৃত। এটি সকলেই জানে যে, প্রধানমন্ত্রী নগদ-এর এই সেবাকে স্বীকৃতি দিয়েছেন এবং তিনি নিজে ১০ হাজার টাকা দিয়ে এটির লেনদেন শুরু করেন। কাজেই এই ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর স্বীকৃতি রয়েছে।

সচিবের আগে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার এবং ডাক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. সিরাজ উদ্দিনও পৃথক পৃথক বার্তায় নগদ-এর মালিকানা নিয়ে অপপ্রচারকে উড়িয়ে দিয়ে বলেছেন, নগদ ডাক বিভাগের সেবা, এ নিয়ে বিভ্রান্তির কোনো সুযোগ নেই।

এরই ধারাবাহিকতায় ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব মো. আফজাল হোসেন বলেন, ডাক বিভাগ ও থার্ড ওয়েভ টেকনোলজিস ২০১৭ সালে যাত্রা শুরু করেছিল নগদ সেবার মাধ্যমে। সময়ের পরিক্রমায় নানা রকম চড়াই-উৎড়াই পার করে ২০২১ সালে নগদ ভালো একটি পর্যায়ে চলে এসেছে।

নগদ জনগণের সেবায় ব্যাপকভাবে ভূমিকা রাখবে এবং একসময় ক্যাশলেস সোসাইটি গড়ার ক্ষেত্রেও বিশেষভাবে অবদান রাখবে বলে আশা প্রকাশ করেন সচিব। তিনি বলেন, দেশে যে সমস্ত ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস চালু রয়েছে, নগদ’ এর মধ্যে একটি অন্যতম সার্ভিস। নগদ’-এর গ্রাহক সংখ্যা ও মুনাফাও দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।

সচিব বলেন, ‘‘নগদ’-এর সঙ্গে যেসব বাঁধাবিঘ্ন বা অসুবিধা রয়েছে, সেগুলো অতিক্রম করে আগামী দিনে এটি একটি পরিপূর্ণ তথ্যসমৃদ্ধ টেকনোলজিক্যাল সার্ভিস হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে। বর্তমানে আমরা দ্বিতীয় অবস্থানে আছি, খুব শিগগির নগদ’ প্রথম স্থানে থেকে দেশ ও জনগণের সেবা দিতে পারবে বলে আমি বিশ্বাস করি।’

২০১৯ সালের ২৬ মার্চ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আনুষ্ঠানিকভাবে নগদ’ এর সেবার উদ্বোধন করেন। গত আড়াই বছরে নগদ’ সাড়ে পাঁচ কোটি গ্রাহক পাওয়ার পাশাপাশি দৈনিক গড় লেনদেন ৭০০ কোটি টাকা পেরিয়ে গেছে। সরকারি ভাতা-উপবৃত্তি ও আর্থিক সহায়তা বিতরণে মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সেবার ব্যবহার করে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করাসহ অ্যাকাউন্ট খোলার ক্ষেত্রে অভিনব পদ্ধতি উদ্ভাবন করে দেশের আর্থিক অন্তর্ভূক্তি বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে নগদ’।


আরও খবর

অভিভাবকরা স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না

রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১




সিরাজগঞ্জে নাতিকে শ্বাসরোধ করে হত্যার দায়ে দাদির মৃত্যুদণ্ডাদেশ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩১ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৭৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সিরাজগঞ্জে নাতিকে শ্বাসরোধ করে হত্যার দায়ে দাদি কুলছুম খাতুন (৩৭)কে মৃত্যুদণ্ড প্রদান করা হয়েছে। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায় সিরাজগঞ্জের জেলা ও দায়রা জজ ফজলে খোদা মোঃ নাজির আসামির উপস্থিতিতে এই রায় ঘোষণা করেন। কুলছুম খাতুন সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার শিয়ালকোল ইউনিয়নের ধুকুরিয়া শেখপাড়া গ্রামের মজিবুর রহমানের স্ত্রী।

সরকার পক্ষের উকিল আব্দুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ২০১৮ সালের ১৭ জুন দুপুরে খাওয়ার পর আসামি কুলছুম খাতুনের নাতী স্থানীয় ব্র্যাক স্কুলের ছাত্র রিফাত হোসেন(৭)বাড়ী থেকে ৫শ গজ দূরে খেলতে যায়। এসময় কুলছুম খাতুন তাকে ডেকে পাশ্ববর্তী সাত্তারের পাট ক্ষেতে নিয়ে গিয়ে গলাটিপে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। ঘটনার পরদিন রিফাতের বাবা চাঁন মিয়া বাদী হয়ে কুলছুম খাতুন ও সাইদুল হক নামের আরেক জনকে আসামি করে সিরাজগঞ্জ সদর থানায় মামলা দায়ের করে। পরে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দেওয়ার সময় আসামি হত্যার কথা স্বীকার করে। দীর্ঘ শুনানী শেষে মঙ্গলবার জেলা ও দায়রা জজ কুলছমুকে মৃত্যুদন্ড ও ২০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করেন। অপরদিকে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় অপর আসামি সাইদুল হককে বেকুসুর খালাস প্রদান করা হয়।


আরও খবর