Logo
শিরোনাম

নারীরাই বেশি ভুগছেন লং কোভিডে: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ সেপ্টেম্বর 20২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২ | ৪৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বর্তমান বিশ্বের প্রায় ১৪৪ মিলিয়নেরও বেশি মানুষ ভুগছেন লং কোভিডে। যার মধ্যে নারীদের সংখ্যাই সবচেয়ে বেশি, বলে জানাচ্ছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। সম্প্রতি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) এক রিপোর্টে উঠে এসেছে চাঞ্চল্যকর সব তথ্য। হু প্রথমবারের মতো কোভিড-পরবর্তী স্বাস্থ্যের বিষয়টি বিবেচনা করেছিল গত বছর।

২০২১ সালের ডিসেম্বরে হু পোস্ট-কোভিড অবস্থার উপর একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিল। এর মাধ্যেমে উঠে এসেছিল বিভিন্ন লক্ষণের কথা। বিশ্ব স্বস্থ্য সংস্থার রিপোর্ট বলছে, ২০২০-২০২১ সালের মধ্যে নতুন দীর্ঘ কোভিডের ক্ষেত্রে ৩০৭ শতাংশ বেড়েছে। যার মধ্যে পুরুষদের তুলনায় নারীদের সংখ্যা দ্বিগুণ।

দীর্ঘ কোভিডের লক্ষণগুলি হচ্ছে ক্লান্তি, শ্বাসকষ্ট, বিভ্রান্তি বা ভুলে যাওয়া ও মনোযোগের অভাব।

বিশ্ব স্বাস্থ্য পর্যবেক্ষকরা বলেছেন, দীর্ঘ কোভিডের কারণে দীর্ঘস্থায়ী ভোগান্তি মানসিক সুস্থতার উপর প্রভাব ফেলতে পারে। হু এর পরামর্শ অনুযায়ী, এসব লক্ষণে ভুগলে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। উল্লেখিত লক্ষণগুলো ছাড়াও গুরুতর সব শারীরিক সমস্যা দেখা দিচ্ছে লং কোভিডের কারণে। বেশ কিছু গবেষণায় চুল পড়াকে দীর্ঘ কোভিডের সঙ্গে যুক্ত করা হয়েছে।

সমীক্ষায় দেখা গেছে, এই অবস্থা কোভিড সংক্রমণের এক থেকে দুই মাস পরে ঘটে ও ৬০ শতাংশেরও বেশি লোক এই সমস্যার মধ্য দিয়ে গেছেন। দীর্ঘ কোভিডের কারণে আরেকটি বড় জটিলতা হলো টিনিটাস বা কানে বাজানো সংবেদন। কোভিড সংক্রমণের পরে অনেক লোকের মধ্যে একটি বিরক্তিকর রিং বা কানের মধ্যে গুঞ্জন সংবেদন দেখা গেছে। এর আগে এ বিষয়ে পর্যাপ্ত গবেষণা ছিল না, তবে ধীরে ধীরে এই ধরনের আরও প্রতিবেদন সামনে আসার পর গবেষকরা এতে আগ্রহী হন ও দুটি শর্তের মধ্যে একটি যোগসূত্র খুঁজে পান।

দীর্ঘ কোভিড সম্পর্কিত অন্যান্য জটিলতাগুলো হলো টাকাইকার্ডিয়া, হজম সংক্রান্ত সমস্যা, গভীর শিরা থ্রম্বোসিস ও পালমোনারি এমবোলিজম। কোভিড সংক্রমণের পরে অনেক লোকের মধ্যে ত্বকের সমস্যাও দেখা যায়।


আরও খবর

করোনায় একজনের মৃত্যু, কমেছে শনাক্ত

বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২




ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ ধরা পড়ছে সাগরে

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২ | ৫০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আবহাওয়া অনুকূলে আসায় সাগরে জালে ধরা পড়ছে ঝাঁকে ঝাঁকে রুপালি ইলিশসহ অন্যান্য মাছ। এতে খুশি পটুয়াখালীর জেলেরা।

দীর্ঘদিন পর সামুদ্রিক মাছ নিয়ে হাঁকডাকে মুখরিত মহিপুর আলীপুর মৎস্য কেন্দ্র।

কয়েকদিন আগে দফায় দফায় বৈরি আবহাওয়া ও টানা ৬৫ দিন সমুদ্রে মাছ ধরা বন্ধ থাকার পর জেলেদের জালে ধরা পড়ছে ঝাঁকে ঝাঁকে রুপালী ইলিশ, ডেলা, টোনা, পোয়াসহ সামুদ্রিক বিভিন্ন প্রজাতির মাছ। পটুয়াখালী মহিপুর মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রে আসতে শুরু করেছে এসব মাছ। আকারেও রয়েছে পরিবর্তন। বেশিরভাগ মাছই বড়। বর্তমানে ১ কেজি ওজনের ইলিশের মণ ৩০ থেকে ৩৬ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে, যা অন্য সময় ৪০ থেকে ৬০ হাজার টাকায় বেচাকেনা হয়।

মহিপুর মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রের আড়ৎদার মো. মজনু গাজী বলেন, ৬৫দিন অবরোধে জেলেরা অনেক কষ্ট করলেও বর্তমানে সাগরে প্রচুর ইলিশ মাছ ধরা পড়ায় খুশি সবাই। আর সরবরাহ বাড়ায় দামও অনেক কম।

এ বিষয়ে জেলা মৎস্য কর্মকর্তা এস এম আজাহারুল ইসলাম জানান, সরকারের মাছ বৃদ্ধির লক্ষ্যে নেয়া নানা কার্যক্রমের সুফল পেতে শুরু করেছেন মৎস্যজীবীরা।

মৎস্য অফিসের তথ্য অনুযায়ী, জেলায় গত বছর ৭০ হাজার মেট্রিক টন ইলিশ আহরণ করা হয়। আর প্রায় এক লাখ জেলের মধ্যে নিবন্ধিত জেলে ৭৯ হাজার ৩৪৮ জন।


আরও খবর



পচন ধরছে পানে, চিন্তায় চাষিরা

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ অক্টোবর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ | ১৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দিনাজপুর প্রতিনিধি 

দিনাজপুরের হাকিমপুরে পানের বরজে পচন রোগ দেখা দিয়েছে। এনিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন পান চাষিরা। পানের ফলন ভালো হওয়া সত্ত্বেও রোগ নিয়ে আতঙ্কে রয়েছেন তারা।  চাষিদের অভিযোগ, রোগ নিয়ন্ত্রণে ওষুধ দিয়েও কোনো উপকার পাচ্ছেন না। তবে উপজেলা কৃষি দপ্তর বলছে, পচনসহ বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধে নিয়মিত পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন তারা।

সরেজমিনে উপজেলার ঘাসুরিয়া ও মাধবপাড়া গ্রামের কয়েকটি পানের বরজ ঘুরে দেখা যায়, এই অঞ্চলের মাটি পান চাষের জন্য উপযোগী। বর্তমান পান একটি লাভ জনক ফসল। তাই এই দুইটি গ্রামে গড়ে উঠেছে দেড় শতাধিক পানের বরজ। ওই এলাকার চাষিরা পান চাষ করেই আর্থিকভাবে সাবলম্বী হয়েছেন। চলতি বছর পানের ফলন ভালো হওয়ায় দামও ভালো পাচ্ছেন চাষিরা। কিন্তু কিছুদিন আগেই দেখা দিয়েছে পচন রোগ। এই রোগ ছোঁয়াছে রোগের মতো। যে বরজে দেখা দিচ্ছে, কয়েকদিনের মধ্যেই ছড়িয়ে পড়ছে তা অন্য বরজগুলোতে।

উপজেলার মাধবপাড়া গ্রামের পানচাষি মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, আমার দেড় বিঘা জমির উপর একটি পানের বরজ আছে। এই বরজটি আমার বাবা তৈরি করেছেন। বর্তমান আমি এই বরজের উপর ভর করে সংসার চালাই। বাজারে পানের দাম অনেক ভালো। তবে কিছুদিন আগে বরজে পচন রোগ দেখা দিয়েছে। বিভিন্ন ওষুধ স্প্রে করছি, তাতে কোনো ফল আসছে না। খুবি চিন্তায় আছি।

ঘাসুড়িয়া গ্রামের বরজ মালিক সাইদুর রহমান বলেন, হাটে বড় আকারের পান ১২০ টাকা বিরা বিক্রি করছি। পানের বরজই আমার হালগরু। আল্লাহ দিলে কয়েক বছর ধরে পানের দাম ভালো পাইছি, এবারও দাম ভাল আছে। কিন্তু হঠাৎ পানপাতা গাছে থাকতেই পচন রোগে আক্রমণ করেছে। বরজ নিয়ে খুবি আতঙ্কে আছি।

হাকিমপুর উপজেলা কৃষি অফিসার ড. মমতাজ সুলতানা বলেন, উপজেলার ৪০ হেক্টর জমিতে ১৫৬টি পানের বরজ রয়েছে। বরজগুলোর অধিকাংশই খট্রামাধবপাড়া ইউনিয়নের ঘাসুরিয়া ও মাধবপাড়া গ্রামে অবস্থিত। বরজগুলোতে পচন রোগ দেখা দিয়েছে। এই রোগ প্রতিরোধে বরজগুলোতে ছত্রাক নাশক অটোস্কীন, ম্যালছার, অক্সিক্লোবাইট ওষুধ স্প্রে করার পরামর্শ দিচ্ছি পান চাষিদের। 

নিউজ ট্যাগ: পানের বরজ

আরও খবর

যেভাবে উন্নত জাতের গাভি চিনবেন

সোমবার ০৩ অক্টোবর ২০২২

বেশি ডিম দেওয়া মুরগি চেনার উপায়

সোমবার ০৩ অক্টোবর ২০২২




কাঁচপুর ব্রিজে গাড়ির ধাক্কায় ২ তরুণ নিহত

প্রকাশিত:রবিবার ১১ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২ | ৬২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ উপজেলায় অজ্ঞাত গাড়ির ধাক্কায় দুই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন।

শনিবার (১০ সেপ্টেম্বর) দিনগত রাত ১২টার দিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কাচঁপুর ব্রিজের ঢালে দুর্ঘটনাটি ঘটে।

নিহতরা হলেন- নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের সানারপাড় এলাকার আব্দুর রশিদ ভূঁইয়ার ছেলে আমির হামজা (১৮) ও একই এলাকার সেলিম রেজার ছেলে শ্রাবণ রেজা (১৮)।

কাঁচপুর শিমরাইল হাইওয়ে ক্যাম্পের ইনচার্জ একেএম শরফুদ্দিন বলেন, রাতে অজ্ঞাত গাড়ির ধাক্কায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। আজ সকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শ্রাবণ রেজা ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে এবং আমির হামজা ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে মারা যান। তাদের মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা হবে।

কাঁচপুর হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নবীর হোসেন বলেন, দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত মোটরসাইকেলটি থানা হেফাজতে রয়েছে। আমরা জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা করছি।


আরও খবর



২০ গুণীজন পাচ্ছেন শিল্পকলা পদক

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ সেপ্টেম্বর 20২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২ | ৪৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দেশের শিল্প-সংস্কৃতিতে অবদানের জন্য ২০১৩ সাল থেকে গুণীজনদের শিল্পকলা পদক দিয়ে আসছে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি। এ ধারাবাহিকতায় ২০১৯ ও ২০২০ সালের জন্য ২০ জন গুণীকে শিল্পকলা পদক দেওয়ার ঘোষণা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) বিকাল ৪টা ৩০ মিনিটে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হবে পদক বিতরণ অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালি উপস্থিত থাকবেন রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ।

বিশেষ অতিথি থাকবেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান ও সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আবুল মনসুর। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রি কে.এম খালিদ। স্বাগত বক্তব্য রাখবেন একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী। আলোচনা ও পদক প্রদান শেষে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির শিল্পীদের পরিবেশনায় অনুষ্ঠিত হবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। করোনা মহামারির কারণে শিল্পকলা পদক স্থগিত থাকায় এ বছর ২০১৯ ও ২০২০দুই বছরের পদক একসঙ্গে প্রদান করা হবে। নীতিমালা অনুযায়ী ১৬ সদস্যের কমিটি প্রতি বছর পদকের জন্য গুণীজন নির্বাচন করে থাকেন। শিল্পকলা পদকের জন্য মনোনীত ব্যক্তি প্রত্যেকে পাবেন একটি স্বর্ণপদক, সনদপত্র এবং এক লাখ টাকার চেক।

যাঁরা পাচ্ছেন শিল্পকলা পদক

২০১৯ সাল: মাসুদ আলী খান (নাট্যকলা), হাসিনা মমতাজ (কণ্ঠসংগীত), আবদুল মান্নান (চারুকলা), অনুপম হায়াৎ (চলচ্চিত্র), লুবনা মারিয়াম (নৃত্যকলা), শম্ভু আচার্য (লোকসংস্কৃতি), মো. মনিরুজ্জামান (যন্ত্রসংগীত), এম এ তাহের (ফটোগ্রাফি), হাসান আরিফ (আবৃত্তি), ছায়ানট (সৃজনশীল সাংস্কৃতিক সংগঠন)।

২০২০ সাল: মলয় ভৌমিক (নাট্যকলা), মাহমুদুর রহমান বেণু (কণ্ঠসংগীত), শহিদ কবীর (চারুকলা), শামীম আখতার (চলচ্চিত্র), শিবলী মোহাম্মদ (নৃত্যকলা), শাহ আলম সরকার (লোকসংস্কৃতি), মো. সামসুর রহমান (যন্ত্রসংগীত), আ ন ম শফিকুল ইসলাম স্বপন (ফটোগ্রাফি), ডালিয়া আহমেদ (আবৃত্তি), দিনাজপুর নাট্য সমিতি (সৃজনশীল সাংস্কৃতিক সংগঠন)।

নিউজ ট্যাগ: শিল্পকলা পদক

আরও খবর

দুরন্তপনার ৫ বছর

বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২




রূপগঞ্জে শালিসে ডেকে যুবককে ছুরিকাঘাত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ | ৪৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে শালিসে ডেকে নিয়ে প্রতিপক্ষের লোকজন মাহাবুবুর রহমান (২৬) নামে এক যুবককে ছুরিকাঘাত করে পেটের ভুঁড়ি বের করে ফেলেছে অভিযোগ পাওয়া গেছে। মঙ্গলবার রাতে উপজেলার তারাব পৌরসভার মোগরাকুল এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় বুধবার বিকালে আহত যুবক মাহবুবুর রহমানের স্ত্রী বাদী হয়ে রূপগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরে উপজেলার মোগরাকুল এলাকার মৃত ফিরোজ ভুঁইয়া ছেলে হৃদয়কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, গত ৮ মাস আগে সাড়ে ৪ লাখ টাকা নিয়ে মাহবুবুর রহমানের বড় ভাই সোহাগ মিয়াকে (৪৫) সৌদি আরবে পাঠান সবুজ নামে তাদের এক প্রতিবেশী। প্রতিবেশী সবুজ সৌদি আরবে সোহাগকে কাজ দেওয়ার কথা বলে নিলেও সে তাকে কোনো কাজ না দিয়ে বরং ফেলে দেয়। বিষয়টি সোহাগের পরিবারের লোকজন সবুজ ভুঁইয়াকে জানালে সে কিছু টাকা ফেরত দিবেন বলে জানান।

এ বিষয় নিয়ে মঙ্গলবার রাতে মোগরাকুল এলাকার আওয়ামী লীগ অফিসে শালিস ডাকা হয়। সেই শালিসে অংশ নিতে মাহবুবুর রহমান বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। সে আওয়ামী লীগের অফিসের সামনে পৌঁছালে সুবজের ভাই হৃদয় ও তার সঙ্গে থাকা আলী আক্কাস, জামাল, মোস্তফা, ইয়ানুসসহ অজ্ঞাত ১০-১২ জন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে মাহবুবুর রহমানকে ঘিরে ফেলে এলোপাথাড়িভাবে পেটাতে থাকে। এক পর্যায়ে হৃদয়ের হাতে থাকা ছুরি দিয়ে মাহাবুবুরের পেটে আঘাত করে ভুঁড়ি বের করে ফেলেন। প্রতিপক্ষের লোকজন তাদের হুমকি ধমকি দিয়ে চলে যায়। পরে পরিবারের লোকজন মাহবুবুর রহমানকে মুমূর্ষু অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন।

এ ব্যাপারে রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এএফএম সায়েদ বলেন, এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রধান আসামি হৃদয়কে গ্রেফতার করা হয়েছে।


আরও খবর