শিরোনাম

নির্বাচন কমিশন কার স্বার্থে কাজ করছে: সুজন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ২৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনে জনগণের স্বার্থে কাজ না করে নির্বাচন কমিশন (ইসি) কার স্বার্থে কাজ করছে- এমন প্রশ্ন তুলেছে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন)। 

নির্বাচন নিয়ে কাজ করা প্রতিষ্ঠানটি বলছে, প্রার্থীদের আয়কর বিবরণীর তথ্য প্রকাশ না করে এবং অসম্পূর্ণ হলফনামা প্রকাশের মাধ্যমে নির্বাচন কমিশন ভোটারদের বঞ্চিত করছে।

বৃহস্পতিবার নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী প্রার্থীদের তথ্য উপস্থাপন নিয়ে আয়োজিত এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলা হয়।

১৬ জানুয়ারি নাসিকে ভোট হবে।  এ নির্বাচনে মেয়র, কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১৮৯ জন প্রার্থী।  ইসির ওয়েবসাইটে ৩ প্রার্থীর তথ্য না পাওয়ায় ১৮৬ জনের তথ্য বিশ্লেষণ করেছে সুজন।

সুজনের সমন্বয়কারী দিলীপ কুমার প্রার্থীদের তথ্য তুলে ধরেন।  প্রার্থীদের শিক্ষাগত যোগ্যতা বিশ্লেষণ করে সুজন বলছে, এবার উচ্চশিক্ষিত প্রার্থীদের অংশগ্রহণ বেড়েছে।  নারায়ণগঞ্জেও ব্যবসায়ী প্রার্থীদের প্রাধান্য বেশি।  ১২ শতাংশ প্রার্থীর আয়ের কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। সুজন বলেছে, প্রার্থীরা সম্পদের যে তথ্য দিয়েছেন, তা প্রকৃত চিত্র নয়।

সংবাদ সম্মেলনে সুজনের সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার বলেন, হলফনামায় যেসব তথ্য দেওয়া হয়েছে, সেগুলো বিস্তারিত নয়।  হলফনামার যে ছক, তা সঠিক নয়।  এতে পরিবর্তন আনতে হবে।  হলফনামাগুলো অত্যন্ত দুর্বল।  নির্বাচন কমিশনের দায়িত্ব হচ্ছে এগুলো যাচাই–বাছাই করে দেখা।  তথ্য গোপন করলে মনোনয়ন বাতিল করা।  এই নির্বাচনে অনেক প্রার্থীই অনেক তথ্য দেননি।  এগুলো অসম্পূর্ণ। এতে মনোনয়ন বাতিল হওয়ার কথা।

ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচন থেকে প্রার্থীদের আয়করের বিবরণী দেওয়া হয় না বলে জানায় সুজন।  এই বিবরণীর জন্য নির্বাচন কমিশনে চিঠি দেওয়া হলেও তারা দেবে না বলে জানিয়েছে সুজনকে।

এতে সভাপতিত্ব করেন সুজনের কোষাধ্যক্ষ সৈয়দ আবু নাসের বখতিয়ার আহমেদ, বক্তব্য দেন সুজনের নির্বাহী সদস্য শাহনাজ হুদা এবং নারায়ণগঞ্জ সুজনের সম্পাদক ধীমান সাহা।


আরও খবর



মুরাদের স্ত্রীর ফোন ৯৯৯-এ, বাসায় পুলিশ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৬ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৪৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

৯৯৯ এ ফোন করে পুলিশের সহযোগিতা চেয়েছেন সাবেক প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসানের স্ত্রী ডা. জাহানারা এহসান। তাকে মারধর করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। এমনকি প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয় বলে জানান জাহানারা।

বৃহস্পতিবার (৬ জানুয়ারি) ৯৯৯ থেকে বিষয়টি জানানো হয় ধানমন্ডি থানা পুলিশকে। এরপরই পুলিশের একটি টিম মুরাদের বাসায় যায়।

এ ব্যাপারে ধানমন্ডি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকরাম আলী মিয়া এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, মুরাদ হাসানের স্ত্রী ৯৯৯-এ ফোন করলে পুলিশ পাঠানো হয়। ওই সময় ডা. মুরাদ বাসায় ছিলেন। ধারণা করা হচ্ছে পারিবারিক কলহ থেকেই অভিযোগ করা হয়েছে। লিখিত অভিযোগ পেলে আমরা ব্যবস্থা নিব।

নিউজ ট্যাগ: ডা. মুরাদ হাসান

আরও খবর

অ্যাটর্নি জেনারেল করোনা আক্রান্ত

সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২




রায়ের কপি পেতে বিচারপ্রার্থীদের যেন ঘুরতে না হয়: রাষ্ট্রপতি

প্রকাশিত:শনিবার ১৮ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৮৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
আবদুল হামিদ বলেন, দেশের সব আদালতের কার্যক্রম ডিজিটাল পদ্ধতিতে সম্পন্ন করার ব্যবস্থা করতে হবে। এতে বিচার কার্যক্রমে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে

মামলার রায় হওয়ার পর রায়ের কপি পাওয়ার জন্য বিচারপ্রার্থীদের যেন আদালতের বারান্দায় ঘোরাঘুরি করতে না হয় সে বিষয়ে বিচারকদের খেয়াল রাখার আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

বিচারকাজ একটা জটিল বিষয় উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বিচারকদের আরও বেশি কাজ করার অনুরোধ করেন। কেননা মামলার পরিমাণ দিন দিন যে হারে বাড়ছে সেটা আয়ত্তের মধ্যে আনতে হবে।

শনিবার (১৮ ডিসেম্বর) বিকেলে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট দিবস-২০২১ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি বঙ্গভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এই নির্দেশনা দেন।

বিচার বিভাগের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবাইকে তথ্যপ্রযুক্তির সব সুবিধা ব্যবহার করে মামলা ব্যবস্থাপনায় গতিশীলতা আনার নির্দেশ দিয়ে আবদুল হামিদ বলেন, দেশের সব আদালতের কার্যক্রম ডিজিটাল পদ্ধতিতে সম্পন্ন করার ব্যবস্থা করতে হবে। এতে বিচার কার্যক্রমে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে।

সুপ্রিম কোর্ট যেহেতু কোর্ট অব রেকর্ড সেহেতু এর সব নথি ডিজিটাল নথিতে পরিণত করার উদ্যোগ নিতে হবে এবং মামলা দায়ের থেকে রায় ঘোষণা পর্যন্ত সব কার্যক্রমকে ডিজিটাল পদ্ধতিতে সংরক্ষণের ব্যবস্থা করাও জরুরি বলে তিনি উল্লেখ করেন।

ইতোমধ্যে সুপ্রিম কোর্টে অনলাইন কজলিস্ট চালু হয়েছে এবং অনলাইন বেল কনফারমেশন ব্যবস্থা কার্যকরভাবে চলছে,- আবদুল হামিদ যুক্ত করেন।

বিচার বিভাগ নিয়ে সরকারের চিন্তাভাবনা উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, সরকার বিচার বিভাগের স্বাধীনতায় দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে এবং বিচারকদের সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধির জন্য আন্তরিক প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে।

তিনি জানান, বিচার বিভাগের আধুনিকায়নে সরকার অত্যন্ত আন্তরিক এবং এ লক্ষ্য অর্জনে ই-জুডিসিয়ারি প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ হাতে নেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি দেশে সামরিক শাসন জারির মাধ্যমে সংবিধানকে নানাভাবে কাঁটাছেড়া করে গণতন্ত্রকে চিরতরে হত্যা করার অপচেষ্টা করেছিল। কিন্তু বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট সংবিধানের ৫ম ও ৭ম সংশোধনীকে অবৈধ ঘোষণা করে দেশের মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকারকে প্রতিষ্ঠা করেছে।

১৯৭২ সালের ১৮ ডিসেম্বর বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট তার যাত্রা শুরু করে মানুষের মৌলিক মানবাধিকার রক্ষা, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা এবং স্বল্প সময়ে বিচারপ্রার্থীদের ন্যায়বিচার প্রদানে কাজ করে যাচ্ছে- রাষ্ট্রপতি মনে করেন।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের চেয়ারম্যান অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন, সুপ্রিম কোর্ট বার কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান মুহাম্মদ ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন এবং জাজেস কমিটির সভাপতি ও আপিল বিভাগের বিচারপতি ওবায়দুল হাসান।

শান্তি ও সংকটে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট সংবিধানের অভিভাবক ও রক্ষক হিসেবে মর্যাদাপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে বলে উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, সংবিধানবিরোধী ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ বাতিল করে সুপ্রিম কোর্ট ষড়যন্ত্রকারীদের সেই নীলনকশা বাস্তবায়িত হতে দেয়নি।

শেষ পর্যন্ত জাতির পিতার হত্যাকারীদের বিচার করে সুপ্রিম কোর্ট তার সাংবিধানিক দায়িত্ব পালন করেছে, হামিদ বলেন।

জাতি আজ সেই কলঙ্ক থেকে কিছুটা হলেও দায়মুক্ত উল্লেখ করে তিনি বলেন, জাতির ক্রান্তিকালে যখনই প্রয়োজন হয়েছে, সুপ্রিম কোর্ট তার ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে মানুষের মৌলিক মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা এবং সংবিধানকে রক্ষা করেছে।

সুপ্রিম কোর্ট দিবসের অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি কৃতজ্ঞতাভরে স্মরণ করেন সুপ্রিম কোর্টের সেই সব অকুতোভয় বিচারপতি এবং আইনজীবীদের যারা বন্দুকের নলের কাছে নতিস্বীকার করেননি। বিবেককে কখনো বিকিয়ে দেননি।

করোনাকালে ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে বিচার কার্যক্রম পরিচালনার মাধ্যমে উচ্চ আদালত ও অধস্তন আদালতের বিচারক এবং আইনজীবীরা বিচারপ্রার্থী জনগণের ন্যায়বিচার নিশ্চিতকরণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে- এজন্য আবদুল হামিদ বিচার বিভাগকে ধন্যবাদ জানান।

রাষ্ট্রপ্রধান বলেন, বাংলাদেশ এখন বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল। উন্নয়নের এ ধারা অব্যাহত রেখে একটি সুখী ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে সম্মিলিত প্রয়াস চালিয়ে যেতে হবে।

তিনি দেশের সামগ্রিক উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রায় বিচার বিভাগের সংশ্লিষ্ট সবাইকে শামিল হওয়ারও তাগিদ দেন। রাষ্ট্রপতি বলেন, দেশ, জনগণ ও সংবিধানের প্রতি দায়বদ্ধ থেকে বিচারকরা তাদের মেধা ও মনন প্রয়োগের মাধ্যমে আইনের শাসন ও ন্যায়বিচার নিশ্চিত করবেন দেশবাসী তা প্রত্যাশা করে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একটি শোষণ ও বঞ্চনামুক্ত স্বাধীন বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেছিলেন যেখানে মানুষে মানুষে থাকবে না ভেদাভেদ, থাকবে না ধনী-গরিবের বৈষম্য। জনগণ অত্যন্ত কম খরচে অল্প সময়ের মধ্যে ন্যায়বিচার লাভ করবে।

অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের স্থাপনার ছবি সম্বলিত স্মারকগ্রন্থের মোড়ক উম্মোচন করেন।


আরও খবর



নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন

সহিংসতা ছাড়াই ভোটগ্রহণ শেষ, চলছে গণনা

প্রকাশিত:রবিবার ১৬ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ১২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে। আজ রোববার সকাল ৮টা থেকে শুরু হয়ে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীন ১৯২টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ চলে।

নাসিক নির্বাচনের প্রধান আকর্ষণ ছিল মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা নিয়ে। নির্বাচনে মেয়র পদে সাতজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। তাঁরা হলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী (নৌকা), স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপির সাবেক নেতা ও আইনজীবী তৈমূর আলম খন্দকার (হাতি), খেলাফত মজলিসের এ বি এম সিরাজুল মামুন (দেয়ালঘড়ি), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মাওলানা মো. মাছুম বিল্লাহ (হাতপাখা), বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের মো. জসীম উদ্দিন (বটগাছ), বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির মো. রাশেদ ফেরদৌস (হাতঘড়ি) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী কামরুল ইসলাম (ঘোড়া)।

আজ সকাল ১১টায় শহরের দেওভোগে শিশুবাগ বিদ্যালয়ে ভোট দেন ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। ভোটদান শে‌ষে সাংবা‌দিক‌দের সঙ্গে কথা ব‌লেন তিনি।

আইভী বলেন, কয়েকটি কেন্দ্রে ধীরগতিতে ভোটগ্রহণ হচ্ছে। কিছু কিছু কেন্দ্রে ইভিএম মেশিনে সমস্যা হচ্ছে শুনেছি। তবে নির্বাচন সুষ্ঠু হলে আমার বিজয় নিশ্চিত।

এ সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে যেকোনো প্রকার বিশৃঙ্খলা প্রতিহত করার আহ্বান জানান ডা. আইভী।

এর আগে রোববার সকাল ৮টা ২০ মিনিটে নারায়ণগঞ্জ ইসলামিয়া কামিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে ভোট দেন স্বতন্ত্র মেয়রপ্রার্থী বিএনপির সাবেক নেতা তৈমূর আলম খন্দকার।

তৈমূর আলম খন্দকার বলেন, এখন পর্যন্ত ভোটের পরিবেশ ভালো, তবে শেষে বোঝা যাবে ভোটের পরিবেশ। পাঁচ নম্বর ওয়ার্ডের পাওয়ার অব স্টেশন কেন্দ্রে সকাল থেকে আমার এজেন্টকে প্রিজাইডিং কর্মকর্তা প্রবেশ করতে দেয়নি। সুষ্ঠু ভোট হলে আশা করছি এক লাখ ভোটের ব্যবধানে জয়ী হব ইনশাআল্লাহ। ভোটারদের পুলিশ বাধা দেবে না বলে প্রত্যাশা করি।

পরে দুপুরে সাত নেতাকর্মীকে আটক করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন তৈমূর আলম খন্দকার বলেন, প্রশাসন আমার বিভিন্ন এলাকা থেকে সাত জন কর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে। তবে আমরা ভীত নই। ফলাফলে জবাব দেবে জনগণ। পুলিশ প্রশাসন আমাদের হয়রানি করার চেষ্টা করছে। আমি আশা করছি এক লাখ ভোটের ব্যবধানে জয়ী হব ইনশাআল্লাহ।

তৈমূর আলম খন্দকার বলেন, ইভিএমে ভোট হওয়ার কারণে বিভিন্ন সমস্যা হচ্ছে। অনেক ভোটারই ভোট দিতে পারছে না। মেশিন স্লো, বয়স্ক ভোটারেরা ভোট দিতে পারছেন না। এতে সমস্যা তৈরি হচ্ছে।

শামীম ওসমান বলেন, আমি কখনও ইভিএমে ভোট দিইনি। আজ প্রথম ইভিএমে ভোট দিলাম।

অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন নিশ্চিত করতে সব ধরনের পদক্ষেপ নেওয়ার কথা জানিয়েছিল নির্বাচন কমিশন। জেলা প্রশাসকও নারায়ণগঞ্জ সিটির ভোট শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করতে সব ধরনের সহযোগিতার কথা জানায়।

সকালে ভোটগ্রহণের শুরুতে ভোটারের উপস্থিতি কম থাকলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বিভিন্ন কেন্দ্রে নারী-পুরুষ ভোটার উপস্থিতি বাড়ে সমান তালে।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনে ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোটগ্রহণ করা হয়েছে। এর জন্য নারায়ণগঞ্জে দুই হাজার ৯১২টি ইভিএম মেশিন আনা হয়। প্রতিটি কেন্দ্রে প্রয়োজনের তুলনায় দেড়গুণ ইভিএম রাখা হয়। এর আগে গতকাল শনিবার দুপুর থেকে ভোটকেন্দ্রগুলোতে নির্বাচনি সামগ্রী পৌঁছানো শুরু হয়।

ইসি থেকে জানানো হয়, নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পাশাপাশি ১৪ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। পেনাল কোডের অধীনে তাঁরা মামলা নিয়ে সংক্ষিপ্ত বিচার কাজ পরিচালনা করবেন।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনে ২৭টি ওয়ার্ডের ১৯২টি কেন্দ্রের এক হাজার ৩৩৩ ভোটকক্ষে মোট ভোটার সংখ্যা পাঁচ লাখ ১৭ হাজার ৩৬১ জন। তাঁদের মধ্যে চার জন তৃতীয় লিঙ্গের ভোটারও ছিলেন। ২৭টি সাধারণ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ১৪৮ জন ও সংরক্ষিত নয়টি ওয়ার্ডে মহিলা কাউন্সিলর পদে রয়েছেন ৩৪ জন প্রার্থী।

এবারের নির্বাচনে মেয়র পদে প্রধান দুই প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বলেছেন, তিনিই জিতবেন লাখো ভোটের ব্যবধানে। কিন্তু, তাঁদের সে কথা কি শুধু কথার কথা, না-কি বাস্তবতা, তা আজ রাতেই জানা যাবে। নির্বাচনের ফলাফলই বলে দেবে কে হাসবেন বিজয়ের হাসি।

 


আরও খবর



হংকং বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সরানো হলো ‘পিলার অব শেম’ ভাস্কর্য

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৩ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৪৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

তিয়েনআনমেন স্কয়ার গণহত্যার স্মরণে হংকং বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকা ভাস্কর্য পিলার অব শেম সরিয়ে ফেলেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ১৯৮৯ সালে চীনা কর্তৃপক্ষের হাতে নিহত গণতন্ত্রপন্থী আন্দোলনকর্মীদের মরদেহ স্তূপাকারভাবে দেখানো হয়েছিল এই ভাস্কর্যে। ভাস্কর্যটি গত ২৪ বছর ধরে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ছিল। এখন থেকে এটি নিজেদের স্টোরেজে রাখা হবে বলে জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

হংকংয়ের ওই স্মরণীয় ঘটনায় এখনো অবশিষ্ট আছে এমন গুটি কয়েক স্মৃতিস্তম্ভের মধ্যে এটিও একটি ছিল, যা চীনে খুবই স্পর্শকাতর। হংকংয়ে রাজনৈতিক ভিন্ন মতাবলম্বীদের বেইজিংয়ের প্রতিনিয়ত দমন-পীড়নের মধ্যেই এটি সরিয়ে নেওয়া হলো। খবর বিবিসি অনলাইনের। 

বিশ্ববিদ্যালয় গত অক্টোবরে পিলার অব শেম নামের এই ভাস্কর্যটি সরানোর প্রাথমিক নির্দেশ দিয়েছিল। বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে বিশ্ববিদ্যালয় বলেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের বৃহৎ স্বার্থে ঝুঁকি মূল্যায়ন করে এবং বাহ্যিক আইনি পরামর্শের ভিত্তিতে বহু বছরের পুরনো এই ভাস্কর্য সরানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় এই ভাস্কর্য সম্পর্কিত নিরাপত্তা ইস্যু নিয়েও উদ্বিগ্ন। 

বুধবার রাতে ভাস্কর্যটি সরানোর প্রথম লক্ষণ ধরা পড়ে যখন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ প্লাস্টিক শিট দিয়ে ওই এলাকা ঘিরে ফেলে। নির্মাণ শ্রমিকরা সারারাত প্লাস্টিকের বেড়ার ওপাশে কাজ করে তামার তৈরি ২৬ ফুট উঁচু ভাস্কর্যটি উপড়াতে সক্ষম হয়। এসময় সাংবাদিকরা ঘটনাস্থলের ছবি তোলার চেষ্টা করলে নিরাপত্তারক্ষীরা বাধা দেয়।

বিবিসির সাংবাদিক গ্র্যাস টোসই ঘটনাস্থল থেকে বলেন, ভেতরে ভাঙচুর ও ড্রিল মেশিনের শব্দ হচ্ছিল কিন্তু কেউ দেখতে পায়নি আসলে কি ঘটতেছিল।


আরও খবর

আবুধাবিতে ড্রোন হামলায় তিনজন নিহত

সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২




ভারতে দৈনিক শনাক্তের হার ১৬.৬৬ শতাংশ বৃদ্ধি

প্রকাশিত:শনিবার ১৫ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ২৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ভারতে গত ২৪ ঘন্টায় কোভিড আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৬৮ হাজার ৮৩৩ জন। যা আগের দিনের তুলনায ১ দশমিক ৮ শতাংশ বেশি। দেশটির কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দেওয়া তথ্য অনুসারে এই খবর জানা গেছে।

এটি দেশটির ক্রমবর্ধমান সংখ্যাকে বাড়িয়ে ৩ কোটি ৬৮ লাখ ৫০ হাজার ৯৬২শতে নিয়ে গেছে। এর মধ্যে ৬ হাজার ৪১শটি ওমিক্রন কেস রয়েছে, যা করোনাভাইরাসের উচ্চ সংক্রমণযোগ্য রূপ।

সারা দেশে মোট সুস্থ হওয়া রোগীর সংখ্যা ৩ কোটি ৪৯ লাখ ৪৭ হাজার ৩৯০শ জন। গত ২৪ ঘন্টায় মোট ১ লাখ ২২ হাজার ৬৮৪ জন রোগী সুস্থ হয়েছেন। সুস্থতার হার এখন ৯৪ দশমিক ৮৩ শতাংশ।

ভারতের সক্রিয় রোগীর সংখ্যা বর্তমানে ১৪ লাখ ১৭ হাজার ৮২০ জন। গত ২৪ ঘন্টায়, সক্রিয় রোগী ১ লাখ ৪৫ হাজার ৭৪৭ জন বেড়েছে। দৈনিক ইতিবাচকতার হার ১৬ দশমিক ৬৬ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। যেখানে সাপ্তাহিক ইতিবাচকতার হার ছিল ১২ দশমিক ৮৪ শতাংশ।

সব রাজ্যের মধ্যে, মহারাষ্ট্রে সর্বাধিক ৪৩ হাজার ২১১ কেস রিপোর্ট করা হয়েছে। এরপরে কর্ণাটকে ২৮ হাজার ৭২৩টি, দিল্লিতে ২৪ হাজার ৩৮টি, তামিলনাড়ুতে ২৩ হাজার ৪৫৯টি এবং পশ্চিমবঙ্গে ২২ হাজার ৬৪৫টি কেস রয়েছে।

মহারাষ্ট্র থেকে রিপোর্ট করা হয়েছে, এই পাঁচটি রাজ্য শনিবার রিপোর্ট করা কেস দৈনিক নতুন কেসের ৫২ দশমিক ৯৭ শতাংশ। নতুন কেসের ১৬ দশমিক ০৭ শতাংশ ।

গত ২৪ ঘন্টায় কোভিডে, ৪০২ জনের মৃত্যু হয়েছে। ফলে মোট মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে ৪ লাখ ৮৫ হাজার ৭৫২শ জনে দাঁড়িয়েছে। সর্বাধিক কেরালায় ১৯৯ জন এবং তারপরে দিল্লিতে ৩৪ জন মারা গেছেন।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুসারে, ভারতে ১৬ লাখ ১৩ হাজার ৭৪০টি পরীক্ষা হয়েছে।

গত ২৪ ঘন্টায় ভারতে মোট ৫৮ লাখ ০২ হাজার ৯৭৬টি ভ্যাকসিন ডোজ দেওয়া হয়েছে। এর ফলে মোট টিকাকরনের সংখ্যা হল ১৫৬ কোটি ০২ লাখ ৫১ হাজার ১১৭শ


আরও খবর

আবুধাবিতে ড্রোন হামলায় তিনজন নিহত

সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২