Logo
শিরোনাম

নৌপথে ঢাকায় যাচ্ছে কোরবানির গরু

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১ | ৭৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর থেকে এ বছর ৪০ হাজার ষাঁড় গরু ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন পশুর হাটে নিয়ে যাওয়া শুরু হয়েছে। এর সিংহভাগ নৌপথে যাচ্ছে। নৌপথে গরু পরিবহণ খরচ অনেক কম, যানজটে আটকা পড়ার ভয় নেই, দ্রুত সময়ের মধ্যে হাটে পৌঁছানো যায়। এসব কারণে ব্যবসায়ী ও খামারিরা নৌপথে গরু পরিবহণে স্বস্তি বোধ করেন। ফলে গত কয়েকদিন ধরে শাহজাদপুর থেকে নৌপথে গরু পরিবহণ শুরু হয়েছে। তবে নৌপথে গরু পরিবহনে ডাকাতের আক্রমণের ভয়ে শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন ব্যবসায়ীরা।

শাহজাদপুর উপজেলার সোনাতনী গ্রামের গরু ব্যবসায়ী মোল্লা ফকির চান জানান, শাহজাদপুর উপজেলার পৌর এলাকাসহ ১৩টি ইউনিয়নের অধিকাংশ গ্রামের বাড়িতে কোরবানি উপলক্ষে ২/৪টি করে ষাঁড় বা বলদ গরু লালন পালন করে হৃষ্টপুষ্ট করা হয়। এসব গরু স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে সিংহ ভাগ ঢাকা, নারায়ণগঞ্জসহ বিভিন্ন বড় বড় কোরবানির পশুর হাটে নিয়ে বিক্রি করা হয়।

এ বিষয়ে শাহজাদপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মিজানুর রহমান জানান, এ বছর ঈদুল আযহা উপলক্ষে শাহজাদপুরে ৬০ হাজার ষাঁড় ও বলদ গরু মোটাতাজা করা হয়েছে। এলাকার চাহিদা মিটিয়ে প্রায় ৪০ হাজার গরু নৌপথে বিভিন্ন বড় বড় হাটে নিয়ে যাওয়া শুরু হয়েছে। নৌপথে কোরবানির গরু পরিবহণে ব্যাপক নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ইতোমধ্যেই শাহজাদপুর উপজেলা প্রশাসন, থানা পুলিশ ও নৌ-পুলিশকে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। তারপরও পথে কোনও সমস্যা হলে ব্যবসায়ীদের আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে।

শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহ মো. শামসুজ্জোহা জানান, নৌপথে যেনও কোরবানির গরু নির্বিঘ্নে ব্যবসায়ীরা নিয়ে যেতে পারে সে জন্য সকল পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। তিনি এ বিষয়ে ব্যবসায়ীদের আতঙ্কিত না হওয়ার জন্য পরামর্শ দিয়েছেন।


আরও খবর

ব্যাংকে লেনদেন দেড়টা পর্যন্ত

রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১




ময়মনসিংহ মেডিকেলে একদিনে প্রাণ গেল আরও ২০ জনের

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ জুলাই ২০২১ | ৪৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ (মমেক) হাসপাতালের করোনা ইউনিটে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়ে সাতজন ও উপসর্গ নিয়ে ১৩ জন মারা গেছেন। রবিবার (১৮ জুলাই) সকালে মমেক হাসপাতালের করোনা ইউনিটের ফোকালপারসন ডা. মহিউদ্দিন খান মুন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

করোনায় মৃতরা হলেন- ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলা হাওয়া বেগম (৬০), নুরুল হক (৮৫), ভালুকার হেলেনা (৭৫), শেরপুরের নালিতাবাড়ি উপজেলার মোস্তফা কামাল (৪৫), বইশিষ্ট (৭০), আক্কাস আলী (৭৫), ও নেত্রকোনা সদর উপজেলার আনোয়ার আহমেদ (৫৫)।

উপসর্গে মৃতরা হলেন- ময়মনসিংহ সদর উপজেলার শাহদত (৬৭), শামসুন নাহার (৬৫), নেত্রকোনা সদর উপজেলার শামসুল হুদা (৭৮), সোনিয়া আক্তার (৩২), আমরোজ আলি (৭৫), মোহনগঞ্জের খোদেজা বেগম (৬৫), কেন্দুয়ার রমেলা বেগম (৫৫), শেরপুর সদর উপজেলার নুরুল ইসলাম (৮০), সুইটি আক্তার (২৬), গেন্দাফুল (৩৫), জামালপুর সদরের জামিল হোসাইন (৪৫), ইসলামপুরের জমিলা বেগম (৬০) ও টাঙ্গাইল সদর উপজেলার রহিমা খাতুন (৭০)।

আইসিইউতে ২২ জনসহ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে মোট রোগী ৪১১ জন চিকিৎসাধীন আছেন। নতুন ভর্তি হয়েছেন ৩৮ জন ও সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৭১ জন।

ময়মনসিংহ জেলা সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাব ও এন্টিজেন টেস্টে ৭৫২টি নমুনা পরীক্ষা করে ১৯৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।


আরও খবর



লালমনিরহাট সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১ | ৬৫জন দেখেছেন
Image

লালমনিরহাট প্রতিনিধি :

লালমনিরহাটের আদিতমারী সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) গুলিতে সুবল চন্দ্র(৩০) নামে বাংলাদেশী এক গরুর রাখাল নিহত হয়েছেন।

বুধবার (১৪ জুলাই) সকালে আদিতমারী উপজেলার ভেলাবাড়ি ইউনিয়নের তালুক দুলালী বারঘড়ি সীমান্তের ৯২৯ নম্বর মেইনপিলার এলাকার এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত সুবল চন্দ্র উপজেলার ভেলাবাড়ি ইউনিয়নের ফলিমারী গ্রামের পেলকু রাম বর্ম্মনের ছেলে।

সীমান্তবাসী ও বিজিবি জানান, উপজেলার ভেলাবাড়ি ইউনিয়নের তালুক দুলালী বারঘড়ি সীমান্তের ৯২৯ নম্বর মেইন ও ৮ নং সাব-পিলার এলাকা হয়ে ভারতে গরু আনতে যান সুবল চন্দ্রসহ কয়েকজন রাখাল। তারা বুধবার সকালে গরু নিয়ে বাংলাদেশে ফেরার পথে ভারতীয় কোচবিহার ১৪০ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের বাবুর বিএসএফ ক্যাম্পের টহল দলের সদস্যরা ভারতের অভ্যন্তরে গুলি ছুড়লে ঘটনাস্থলেই মারা যান সুবল চন্দ্র। তার মরদেহ বিএসএফ উদ্ধার করে ভারতীয় পুলিশে সোপর্দ করেছে।

লালমনিরহাট ১৫ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল তৌহিদুল আলম বলেন, ভারতে অভ্যন্তরে একটি মরদেহ পড়ে রয়েছে বলে জেনেছি। তবে তার পরিচয় নিশ্চিত করা সম্ভব হয়নি। তবে এ ঘটনায় বিজিবি'র পক্ষ থেকে প্রতিবাদসহ পতাকা বৈঠকের আহবান জানানো হবে।


আরও খবর



তুরস্কে ভয়াবহ বাস দুর্ঘটনা, বাংলাদেশিসহ নিহত ১২

প্রকাশিত:রবিবার ১১ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ জুলাই ২০২১ | ৭৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

তুরস্কে অভিবাসনপ্রত্যাশী বিভিন্ন দেশের নাগরিকদের বহনকারী একটি বাস দুর্ঘটনায় বাংলাদেশিসহ ১২ জন নিহত হয়েছে। রবিবার (১১ জুলাই) ইরান সীমান্তসংলগ্ন তুরস্কের মুরাদিয়া জেলায় ওই দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা বাংলাদেশ, আফগানিস্তান ও পাকিস্তানের নাগরিক।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে বলা হয়, অভিবাসনপ্রত্যাশীদের বহনকারী একটি বাস রাস্তার পার্শ্ববর্তী খাদে পড়ে আগুন ধরে যায়। এতে বাসে থাকা ওই ১২ অভিবাসনপ্রত্যাশীর মৃত্যু হয়।

তুরস্কের স্থানীয় কর্তৃপক্ষ রয়টার্সকে জানিয়েছে, ওই দুর্ঘটনায় আরও ২৬ জন আহত হয়েছে। তাদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে তাৎক্ষণিকভাবে নিহত বা আহতদের নাম-পরিচয় নিশ্চিত করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। দুর্ঘটনায় বাসটির চালককে আটক করেছে পুলিশ। 

এদিকে এর আগে, গত শুক্রবার তুরস্ক সীমান্তবর্তী ভূমধ্যসাগরে ১২৭ অভিবাসী বহনকারী একটি নৌকা ডুবে গেছে। ওই ঘটনায় অন্তত ৪৩ জন নিখোঁজ হয়েছে বলে জানিয়েছে তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দেওয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়, গত সপ্তাহের শুরুর দিকে লিবিয়ার জুয়ারা থেকে ইউরোপের উদ্দেশে যাত্রাকালে ২ জুলাই তিউনিশিয়ার উপকূলবর্তী শহর জারজিস পৌঁছালে নৌকাটি ডুবে যায়।

দেশটিতে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের প্রায় নিয়মিত অকালমৃত্যু উদ্বেগ প্রকাশ করে তুর্কি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, এসব ঘটনায় শুধু চলতি বছরই ৮৬৬ অভিবাসনপ্রত্যাশী প্রাণ হারিয়েছেন। তুরস্ক বা লিবিয়া কেউ অনিয়মিত অভিবাসনের উৎস নয়। বরং আফ্রিকা, আফগানিস্তান ও সিরিয়ায় নানা অস্থিতিশীলতা, দ্বন্দ্ব এবং দারিদ্র্যই অভিবাসনের মূল কারণ।

প্রসঙ্গত, এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য ও পূর্ব আফ্রিকার দেশগুলো থেকে ইউরোপ যাওয়ার অন্যতম প্রবেশপথ হচ্ছে তুরস্ক। মানুষ বহু বছর ধরে ইউরোপে যাওয়ার জন্য এই পথটি ব্যবহার করে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে এই পথটি ব্যবহার করে অভিবাসনপ্রত্যাশীরা ইউরোপে পাড়ি জমানোর চেষ্টা করছে। ২০১৫ সাল এ পর্যন্ত কয়েক লাখ অভিবাসনপ্রত্যাশী তুরস্ক থেকে গ্রিসের ওপর দিয়ে ইউরোপে প্রবেশ করেছে। 



আরও খবর



মডার্না ও সিনোফার্মের ৪৫ লাখ টিকা দেশে এসে পৌঁছালো

প্রকাশিত:শনিবার ০৩ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ জুলাই ২০২১ | ৯৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

মাত্র ১২ ঘন্টারও কম সময়ে চার ধাপে দেশে এলো ৪৫ লাখ ডোজ করোনার টিকা। এর মধ্যে কোভ্যাক্সের আওতায় যুক্তরাষ্ট্রের উপহারের মর্ডানার ২৫ লাখ আর বাকি ২০ লাখ চীনের কাছ থেকে কেনা সিনোফার্মের টিকা। এর মধ্যে আজ সকাল ৮টা ৪০ মিনিটের দিকে যুক্তরাষ্ট্রের মর্ডানার টিকা পরিবহনকারী ফ্লাইট ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

শনিবার সকালে এমিরেটস এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে ২৫ লাখ ডোজের মধ্যে প্রায় অর্ধেক ১২ লাখ ৬৭ হাজার ২শ টিকা এসে পৌঁছায়। এর আগে বাকি টিকা এসে পৌঁছায় আরেকটি ফ্লাইটে।

মহাখালীর ইপিআর স্টোরে সংরক্ষণ করা হবে এসব টিকা। সব মিলিয়ে দুটি ফ্লাইটে মোট ২৫ লাখ ভ্যাকসিন এলো মডার্নার। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার কো-ভ্যাক্স জোট থেকে বাংলাদেশ পেল এ টিকা।

এ ছাড়া শুক্রবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে একটি ফ্লাইটে সরকারি অর্থে চীনের কাছ থেকে কেনা সিনোফার্মের ১০ লাখ ডোজ এবং শনিবার ভোর সাড়ে ৫টায় অপর একটি ফ্লাইটে চীনের সিনোফার্মের আরও ১০ লাখ করোনা টিকা দেশে এসে পৌঁছায়।

রাতে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে টিকা গ্রহণ করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, ডিসেম্বরের মধ্যেই সব মিলিয়ে ১০ কোটি ডোজ টিকা আনার বিষয়ে কাজ করছেন তারা।

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে টিকা গ্রহণ করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।  এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত রবার্ট মিলার।

পরে বিমানবন্দরের ভিআইপি লাউঞ্জে টিকার বিষয়ে কথা বলেন দুই মন্ত্রী ও যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত। স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, করোনার টিকা নিয়ে সংকট কাটতে শুরু করেছে। ডিসেম্বরের মধ্যেই ১০ কোটি টিকা আনতে কাজ করছে সরকার। 

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানান, আপনারা জানেন যে, আমাদের ভ্যাকসিন কার্যক্রম অল্প অল্প করে চলছিলো। এটা আরও বেগবান হবে এবং আমরা অল্পদিনের মধ্যেই আমাদের ভ্যাক্সিন কার্যক্রম আবারও শুরু করতে পারবো। ভারত থেকে আমরা ঈঙ্গিত পেয়েছি আগস্ট মাস থেকে তারা আমাদের ভ্যাকসিন দেয়া শুরু করবে। ডিসেম্বরের মধ্যে প্রায় ১০ কোটি ভ্যাকসিন বাংলাদেশে আসবে বলে আমরা আশারাখি।

টিকা পেতে বাংলাদেশ উৎপাদনকারী সব দেশের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে বলে জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী। পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন বলেন, আমরা আমেরিকা ছাড়াও অন্যান্ন দেশের সোর্স খুঁজেছি। আশা করছি আমরা এরমধ্যে আরও ভ্যাকসিন পাবো। আগামীতে ভ্যাকসিন নিয়ে কোন সমস্যা থাকবে না।



আরও খবর



গাজরের মালাই পাটিসাপ্টা

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১ | ১৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

স্বাদের ভিন্নতার জন্য এই পাটিসাপ্টার বেশ কিছু প্রকরণ তৈরি হয়ে থাকে। এর প্রকরণগুলো হলো- ডিম পাটিসাপ্টা, সবজি পাটিসাপ্টা, মাংস পাটিসাপ্টা মালাই পাটিসাপ্টা। আর গাজরের মালাই পাটিসাপ্টা বানানো খুবই সহজ।

তাহলে আর দেরি না করে, বাড়িতে বানিয়ে চেখে দেখতে জেনে নিন রেসিপিটি-

উপকরণ: সেদ্ধ করে ম্যাশ করা গাজর ৪ টেবিল চামচ, ঝুরি করা গাজর আধা কাপ, কোরানো নারকেল ১/৩ কাপ, ময়দা ৬ টেবিল চামচ, পোলাওয়ের চালের গুঁড়া ৪ টেবিল চামচ, সুজি ৪ টেবিল চামচ, মাওয়া সিকি কাপ, চিনি আধা কাপ, দুধ ২ কাপ, ক্রিম ২ টেবিল চামচ, কাজুবাদাম কুচি ২ টেবিল চামচ, কিশমিশ ১ টেবিল চামচ, এলাচ গুঁড়া সামান্য, জাফরান এক চিমটি, ঘি দেড় চা চামচ।

পুর তৈরির প্রণালী: প্যানে ঘি গলিয়ে তাতে কোরানো নারকেল ও ঝুরি করা গাজর দিয়ে ভালো করে বেশ কিছুক্ষণ ভেজে নিন। মাওয়া মিশিয়ে আরো কিছুক্ষণ রান্না করুন। তারপর চিনি দিয়ে মিশিয়ে নেড়ে ক্রিম ও এলাচ গুঁড়া দিয়ে হালকা নেড়ে চুলা বন্ধ করে দিন। বাটিতে এই মিশ্রণ ঢেলে ছড়িয়ে ঠাণ্ডা হতে দিন। এরপর তাতে কাজুবাদাম, কিশমিশ কুচি ও জাফরান দিয়ে মেখে রাখুন। 

ব্যাটার তৈরির প্রনালী: একটি বাটিতে সামান্য জাফরান, ম্যাশ করা গাজর, ময়দা, সুজি, চিনিও দুধ দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। মসৃণ ব্যাটার না হওয়া পর্যন্ত মেশাতে থাকুন। 

পাটিসাপটা তৈরির প্রনালী: একটি ননস্টিক প্যান গরম করে সামান্য ঘি ব্রাশ করে নিন। গোল চামচের ২ চামচ ব্যাটার দিয়ে পুরো প্যান ঘুরিয়ে  রুটির মতো তৈরি করে নিন। কাঁচাভাব গিয়ে সাদাটে হয়ে এলে তাতে লম্বালম্বি করে গাজরের পুর রাখুন। রোল করে পেঁচিয়ে নিয়ে পরিবেশন করুন মজাদার গাজরের মালাই পাটিসাপ্টা।   



আরও খবর

মেজবানি মাংস রান্না করবেন যেভাবে

বৃহস্পতিবার ২২ জুলাই ২০২১