Logo
শিরোনাম

ওদেসায় রুশ হামলা, নিহত বেড়ে ২১

প্রকাশিত:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ আগস্ট ২০২২ | ৫৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ইউক্রেনে আক্রমণের পরিধি বৃদ্ধি করেছে রাশিয়া এবং এর মিত্র সশস্ত্র বাহিনী। দেশটির দক্ষিণাঞ্চলীয় বন্দর ওদেসায় রুশ ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় শিশুসহ নিহত হয়েছেন অন্তত ২১ জন, আহত ৩৮ জন। ইউক্রেনের কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে শনিবার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে বিবিসি।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, ওদেসায় দুই দফায় হামলা চালায় রাশিয়া। প্রথমে একটি নয়তলা আবাসিক ভবনে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানো হয়। এতে ১৬ জন নিহত হন। পরে একটি হলিডে রিসোর্টে হামলা হয়। এতে নিহত হন পাঁচজন।

স্থানীয় এক বাসিন্দা বিবিসিকে বলেন, আমরা তিনটি বিস্ফোরণের শব্দ শুনেছি। যে হলিডে রিসোর্টে হামলা হয়েছে সেটির আর কিছুই অবশিষ্ট নেই। আমাদের গ্রামটি খুব শান্ত। আমরা কখনই ভাবিনি এমনটি হতে পারে।

ওদেসার একজন আঞ্চলিক কর্মকর্তা বলেন, স্নেক আইল্যান্ড থেকে সেনা প্রত্যাহার করার পর স্থানীয় সময় শুক্রবার ভোরবেলা রুশ বাহিনী হামলা চালায়। এর আগে, গত ২৭ জুন ইউক্রেনের ক্রেমেনচুক শহরের একটি জনাকীর্ণ শপিং সেন্টারে রুশ হামলার ঘটনা ঘটে। এতে অন্তত ১৯ জন নিহত হন।

এদিকে সাধারণ মানুষের ওপর হামলা চালানোর বিষয়টি অস্বীকার করেছেন ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ। উল্লেখ্য, গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে হামলা শুরু করে রাশিয়া। 


আরও খবর



সন্ধ্যা নদীতে লঞ্চের সঙ্গে বাল্কহেডের সংঘর্ষ, নিখোঁজ ২

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ আগস্ট ২০২২ | ৪৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বরিশালের সন্ধ্যা নদীতে যাত্রীবাহী লঞ্চ ও বালু বোঝাই বাল্কহেডের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে নদীতে ডুবে গেছে বাল্কহেডটি। ফলে বাল্কহেডের মাস্টার ও তার সহযোগী নিখোঁজ রয়েছেন। তবে লঞ্চের কোনো যাত্রী হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। সোমবার (৮ আগস্ট) রাত ৮টার দিকে বানরীপাড়া উপজেলার মসজিদ বাড়ি এলাকা সংলগ্ন সন্ধ্যা নদীতে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিখোঁজরা হলেন, মাস্টার মো. কালাম ও তার সহযোগী মো. মিলন। তাদের বাড়ি পিরোজপুরের নান্দুহার এলাকায়।

লঞ্চের কয়েকজন যাত্রী জানান, পিরোজপুরের হুলারহাট থেকে বিকেলে ঢাকার উদ্দেশ্যে মর্নিংসান-৯ লঞ্চটি ছাড়ে। এতে যাত্রী ছিল পাঁচ শতাধিক। সন্ধ্যা নদীতে বালু বোঝাই বাল্কহেডের সঙ্গে ধাক্কা লাগে লঞ্চটির। এসময় লঞ্চের যাত্রীরা আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। ধাক্কা লাগার কারণে লঞ্চের তলা ফেটে পানি উঠতে শুরু করে। পরে লঞ্চটিকে উজিরপুর উপজেলার চৌধুরীর হাট লঞ্চঘাটে ভেড়ানো হয়। অন্যদিকে ধাক্কা লাগার কিছু সময়ের মধ্যে বাল্কহেডটি তলিয়ে যায়।

বাল্কহেডের মালিক হাবুল কাজী মুঠোফোনে জানান, দুর্ঘটনার খবর পেয়ে মাস্টার কালাম ও তার সহযোগী মিলনের মোবাইলে একাধিকবার কল করেছেন। কিন্তু দুটি ফোনই বন্ধ পাওয়া গেছে।

ঘটনাস্থলে থাকা উজিরপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মমিন উদ্দিন বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা চৌধুরীর হাট লঞ্চঘাট এলাকায় এসেছেন। তারা খোঁজ নিয়েছেন যাত্রীদের। বিকল্পভাবে তাদের গন্তব্যে যেতে সহায়তা করছেন।

এরই মধ্যে ৩০০ যাত্রী বিকল্প পথে ঢাকায় রওনা হয়েছেন। বাকি যাত্রীরা (রাত ১২টা পর্যন্ত) লঞ্চে অবস্থান করছেন। নিরাপদে তারা যেন গন্তব্যে যেতে পারেন সে ব্যবস্থা করা হচ্ছে। পাশাপাশি লঞ্চটিকে ঘাটে নোঙর করে রাখা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত সেখানেই অবস্থান করবে লঞ্চ।

এদিকে নিখোঁজ দুজনের সন্ধানে ট্রলার নিয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা নদীতে টহল দিচ্ছেন। তাদের খোঁজ না পাওয়া পর্যন্ত টহল অব্যাহত থাকবে বলে জানান উজিরপুর থানার পরিদর্শক।


আরও খবর



রেল খাতের অব্যবস্থাপনা : এবার সিলেট স্টেশনে রনি

প্রকাশিত:শনিবার ০৬ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ আগস্ট ২০২২ | ৫৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রেল খাতের অব্যবস্থাপনা নিয়ে আন্দোলন করা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মহিউদ্দিন রনি এবার সিলেট স্টেশনে এসেছেন। তিনি শুক্রবার রাতে এসে যাত্রী সাধারণের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি করতে সিলেট স্টেশনে এসে পৌঁছান।

এসময় তিনি যাত্রীদের উদ্দেশ্যে লিফলেট বিতরণ করে বলেন, আপনারা কেউ যদি রেল খাতে ভোগান্তির শিকার হন তাহলে ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তরের অভিযোগ করতে পারেন। কেউ অভিযোগ করে ফলাফল না পেলে আমাকে ইমেইল করতে পারেন। আমি আপনাদের হয়ে কাজ করব।

মহিউদ্দিন রনি বলেন, সিলেটের মানুষ অনেক সচেতন। সিলেটে আসার পর আমরা তেমন কিছু পাইনি৷ এসে দেখলাম, কোনো কর্মকর্তা কর্মচারী শৃঙ্খলা ও দায়িত্বে অবহেলা করছেন কিনা। তবে এ অঞ্চলের লোকজন সচেতন। তবে আমরা স্টেশনে অবস্থানকালে একজনকে ব্ল্যাকে টিকিট বিক্রি করতে দেখেছি। পরে তাকে সংশ্লিষ্টদের কাছে হস্তান্তর করেছি।

তিনি বলেন, আমাদের সবাইকে সচেতন হতে হবে। অব্যবস্থাপনা ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে হবে। তিনি আরও বলেন, বর্তমানে সবকয়টি স্টেশন শৃঙ্খলার মধ্যে রয়েছে। এটাই ভালো লেগেছে। আমরা দুর্নীতিমুক্ত ও অব্যবস্থাপনামুক্ত রেল সেক্টর দেখতে চাই।


আরও খবর



আসছে নিম্নচাপ, বিক্ষুব্ধ হতে পারে সাগর

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ আগস্ট ২০২২ | ৪২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দেশজুড়ে আগামী কয়েক দিন বৃষ্টিপাত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে তাপমাত্রা কমতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। সাগরে সৃষ্টি হওয়া সুস্পষ্ট লঘুচাপের প্রভাবে দেশের বিভিন্ন স্থানে বিশেষ করে দক্ষিণাঞ্চলে বৃষ্টি বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। একই সঙ্গে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর থেকে সমুদ্রবন্দরসমূহকে ৩ (তিন) নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারসমূহকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি চলাচল করতে বলা হয়েছে। এ ছাড়া আগামীকাল মঙ্গলবার রাত ১টা পর্যন্ত নদীবন্দরসমূহে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখানোর কথা জানানো হয়েছে।

সোমবার রাতে আবহাওয়াবিদ হাফিজুর রহমান আজকের পত্রিকাকে বলেন, সুস্পষ্ট লঘুচাপের প্রভাবে বৃষ্টিপাতের প্রবণতা আরও কয়েক দিন থাকবে। দেশের উত্তরাঞ্চলের তুলনায় দক্ষিণাঞ্চলে বৃষ্টির পরিমাণ বেশি হবে। এ সময় তাপমাত্রা কিছুটা কমে আসবে।

এদিকে, রোববার (৭ আগস্ট) সন্ধ্যা ৬টা থেকে সোমবার (৮ আগস্ট) সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় দেশের সব বিভাগে কম-বেশি বৃষ্টিপাত হয়েছে। এ সময় সিলেটে সর্বোচ্চ ৮০ মিলিমিটার বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে। রাজধানী ঢাকায় এ সময় সামান্য বৃষ্টি হয়েছে। সোমবার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিলনীলফামারীর সৈয়দপুরে ৩৫ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে সীতাকুণ্ডে ২৪ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে। আর ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৪ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

আজ সোমবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছেখুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের অধিকাংশ জায়গায়, রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায় এবং ঢাকা ও রাজশাহী বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ী দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী থেকে ভারী বর্ষণ হতে পারে। এ সময় সারা দেশে দিনের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।


আরও খবর



রোববার কোথায় কখন লোডশেডিং (তালিকা)

প্রকাশিত:রবিবার ৩১ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ আগস্ট ২০২২ | ৪০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী দেশের বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানিগুলো সম্ভাব্য লোডশেডিংয়ের তালিকা তৈরি করা শুরু করেছে। সে অনুযায়ী রবিবারের (৩১ জুলাই) তালিকা প্রকাশ করেছে তারা। ঢাকা বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানি (ডিপিডিসি), ঢাকা ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানি (ডেসকো), নর্দান ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানি (নেসকো), ওয়েস্টজোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি (ওজোপাডিকো), বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (বিআরইবি) এবং বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (বিপিডিবি) ওয়েবসাইটের নির্দিষ্ট লিংককে গিয়ে এই তালিকা দেখতে পারবেন গ্রাহকরা।

নিচের লিংকে ডিপিডিসি, ডেসকো, ওজোপাডিকো, নেসকো, আরইবি ও পিডিবির রবিবারের লোডশেডিংয়ের এলাকাভিত্তিক তালিকা রয়েছে।

* ডেসকোর তালিকা

* ডিপিডিসির তালিকা

* ওজোপাডিকোরতালিকা

* নেসকোর তালিকা

* আরইবির তালিকা

* পিডিবির তালিকা


আরও খবর



জাপানে আগ্নেয়গিরিতে অগ্ন্যুৎপাত, সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি

প্রকাশিত:সোমবার ২৫ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ আগস্ট ২০২২ | ৪৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সাকুরাজিমা আগ্নেয়গিরি, জাপানের সবচেয়ে সক্রিয় আগ্নেয়গিরিগুলির মধ্যে একটি। যেখানে অগ্ন্যুৎপাতের ঘটনা ঘটেছে। অগ্ন্যুৎপাত শুরুর পর থেকে এই আগ্নেয়গিরির জ্বালামুখ থেকে ব্যাপক ধোঁয়া, ছাই ও পাথর বেরিয়ে আসতে দেখা যায়।

রবিবার (২৪ জুলাই) সন্ধ্যা ৮টা ৫ মিনিটের দিকে জাপানের দক্ষিণাঞ্চলীয় কিউশু দ্বীপে এই আগ্নেয়গিরিতে অগ্ন্যুৎপাত শুরু হয়। এই ঘটনায় তাৎক্ষণিকভাবে কোনো আহত, মৃত্যু বা ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি।

আবহাওয়া সংস্থা আগ্নেয়গিরির কাছাকাছি আবাসিক এলাকা কাগোশিমা শহরের কিছু অংশ খালি করার জন্য সম্ভাব্য সর্বোচ্চ সতর্কতা সংকেত ৫ জারি করা হয়েছে। একই সঙ্গে ওই এলাকার সব বাসিন্দাদের দ্রুত নিরাপদে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। শহরটিতে প্রায় ৬ লাখ লোকের বাসস্থান।

এ প্রসঙ্গে জাপানের ডেপুটি চিফ ক্যাবিনেট সেক্রেটারি ইয়োশিহিকো ইসোজাকি গণমাধ্যমকে বলেছেন, আমরা জনগণের জীবনকে প্রথমে রাখব। একই সঙ্গে পরিস্থিতি মূল্যায়ন করতে এবং যে কোনও জরুরি অবস্থার প্রতিক্রিয়া জানাতে আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব।"

এসময় তিনি এলাকার বাসিন্দাদের তাদের জীবন রক্ষার জন্য স্থানীয় কর্তৃপক্ষের সর্বশেষ অবস্থার প্রতি গভীর মনোযোগ দেওয়ারও আহ্বান জানিয়েছেন।

জানা যায়, ১৯৫৫ সাল থেকে এ আগ্নেয়গিরিটির গতিবিধিতে সতর্ক নজর রাখে জাপান সরকার।

জাপান সরকারের তথ্যানুযায়ী, ১৯৬০ সাল থেকে সাকুরাজিমা আগ্নেয়গিরি থেকে অগ্ন্যুৎপাত হতে দেখা যাচ্ছে। প্রতি বছরই কয়েক দফা এ আগ্নেয়গিরি অগ্ন্যুৎপাত করে। এসময় আগ্নেয়গিরির মুখ থেকে কয়েক কিলোমিটার উঁচুতে পাথর ও ছাই ছড়াতে দেখা যায়। 


আরও খবর